Bartaman Patrika
চাষ আবাদ
 

 গরমে পাটের রোগপোকা দমনে ব্যবস্থা না নিলে কমবে ফলন, তন্তুর মান বৃদ্ধিতে পরিচর্যা জরুরি

ব্রতীন দাস: এই সময় পাটের পরিচর্যা ও রোগপোকার দিকে চাষিদের বিশেষভাবে নজর রাখতে হবে বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। এক্ষেত্রে সুসংহত উপায়ে পাটের রোগপোকা দমন করা যেতে পারে বলে সুপারিশ তাঁদের। কৃষি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আবহাওয়ার পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে পাটের রোগপোকার প্রকোপের তারতম্য দেখা দিচ্ছে। কয়েক বছর আগেও পাটে যেসব রোগ দেখা যেত না কিংবা কম দেখা যেত, এখন তার দাপট অনেকটাই বেড়েছে। সবচেয়ে বড় বিষয়, পাটে পোকার আক্রমণ একসঙ্গে হয় না। প্রথম ২০ দিনের মধ্যে নীল পোকা, তার পরবর্তী দু’মাসের মধ্যে ডেবরো পোকা এবং ৬০-৮০ দিনের মধ্যে দয়ে পোকার আক্রমণ দেখা দেয় পাটে। পরবর্তী ২০ দিনের মধ্যে হলুদ মাকড় এবং ফসলের শেষ পর্যায়ে ঘোড়া পোকা ও শুঁয়ো পোকা পাটের মারাত্মক ক্ষতি করে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় পাট ও সহজাত তন্তু গবেষণা সংস্থা বারাকপুর শাখার প্রধান বিজ্ঞানী ড. রাজীবকুমার দে।
তিনি জানিয়েছেন, তোষা পাটের ক্ষেত্রে হলুদ মাকড় সবচেয়ে বেশি আক্রমণ করে। হাল্কা হলুদ রঙের এই মাকড় গাছের পাতার ডগায় আক্রমণ করে। এবং ডগার কচি রস শুষে খায়। ফলে ডগার পাতা কুঁকড়ে যায়। আক্রান্ত পাতার রং সবুজ তামাটে হলদে হয়ে যায়। পাতা নৌকার মতো বেঁকে যায়। এবং গাছের বৃদ্ধি পায়। তিতা পাটের ক্ষেত্রে আংকা পোকার আক্রমণ ঘটে থাকে। তবে অনুকূল আবহাওয়ায় মিঠা পাটেও ক্ষতি করে। চারা ওঠার সঙ্গে সঙ্গেই এদের আক্রমণ শুরু হয়ে যায়। স্ত্রী পোকা গাছের ডগার নরম অংশে ডিম পাড়ে। এতে ডগা শুকিয়ে যায়। অবাঞ্ছিত শাখা বের হয় গাছে। এতে তন্তুর মান কমে যায়। বর্ষার শুরুতে পাটে ঘোড়া পোকার আক্রমণ ঘটে থাকে। সবুজ রঙের শুককীট গাছের ডগার পাতা খেয়ে নেয়। এতে গাছের বৃদ্ধি ব্যাহত হয়। ঘোড়া পোকার দাপট বেশি হলে বীজের খোসা এমনকী কাণ্ডের উপরের অংশও খেয়ে ফেলে। বৃষ্টির সঙ্গে সঙ্গেই পাটে শুঁয়ো পোকার আক্রমণ দেখা দেয়। ছোট অবস্থায় শুঁয়োপোকা দলবদ্ধভাবে পাতার নীচে থাকে। এরা গাছের কচি পাতা খেয়ে জালি করে দেয়। এবং দ্রুত গোটা জমিতে ছড়িয়ে পড়ে। তোষা পাট ও তিতা পাটে সমানভাবে শুঁয়োপোকার আক্রমণ ঘটে থাকে।
বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, জলদি বীজ বপন করলে পাটের ক্ষেত্রে নীল বা কাথারি পোকার আক্রমণ ঘটে। চৈত্র-বৈশাখ মাসে এই পোকা গাছের উপরের পাতাগুলিকে জড়িয়ে দেয়। এবং খেতে শুরু করে। ইদানীংকালে পাটের চারায় এই পোকার আক্রমণ অনেকটাই বেড়েছে। তোষা পাটের ক্ষেত্রে হাল্কা ধূসর রঙের ডেবরো পোকার আক্রমণ ঘটে থাকে। এদের আক্রমণে পাটগাছের পাতায় নানা আকারের ছিদ্র দেখা যায়। জ্যৈষ্ঠের মাঝামাঝি যখন খুব গরম থাকে, তখন লাল মাকড়ের আক্রমণের আশঙ্কা খুব বেশি থাকে। এদের আক্রমণে আক্রান্ত গাছের পাতা চামড়ার মতো হয়ে ফ্যাকাশে হয়ে যায়। গাছ নাড়া দিলে পাতা ঝরে পড়ে। সব ধরনের পাটগাছের ক্ষেত্রে সুতো কৃমির আক্রমণ হয়ে থাকে। বেলে-দোঁয়াশ মাটিতে পাটচাষ করলে এর আক্রমণের আশঙ্কা আরও বেড়ে যায়। বর্ষা শুরুর পরই পাটগাছের শিকড়ে এদের আক্রমণ দেখা যায়। আক্রান্ত গাছের শিকড় ফুলে ওঠে। আক্রান্ত গাছ মাটি থেকে ঠিকমতো জল ও খাবার গ্রহণ করতে পারে না। সুতো কৃমি ডাঁটা পচা ও ঢলে পড়া রোগের প্রকোপ বৃদ্ধিতে পরোক্ষভাবে সাহায্য করে। পাটে সুতো কৃমি আক্রমণের সঙ্গে সঙ্গে গোড়া পচা রোগ মারাত্মক আকার নেয়। বীজ শেষ পর্যন্ত রোগাক্রান্ত গাছের জন্ম দেয়। পাটের মরচে ধরা রোগে প্রথমে পাতায় ও পরে কাণ্ডে ছোট আকারের দাগ দেখা যায়।
এই দাগের মধ্যের অংশ হাল্কা ছাই রঙের হয়। এবং কাণ্ডের গভীরে ক্ষত সৃষ্টি করে। এর ফলে পাটের গুণগত মান কমে যায়। অনেকগুলি ছোট দাগ মিশে গিয়ে বড় ক্ষত সৃষ্টি করে। আক্রমণ বেশি হলে গাছ মারা যায়। পাটের ঢলে পড়া বা হুগলি উইল্ট রোগটি মূলত জীবাণু ঘটিত। মিঠা পাটের ক্ষেত্রে এই রোগ বেশি মাত্রায় দেখা যায়। একই জমিতে প্রতি বছর পাট, আলু বা ওই গোত্রের ফসল যেমন, বেগুন, টম্যাটো, লঙ্কা প্রভৃতি চাষ করলে রোগের প্রকোপ বেশি হয়। প্রথমে গাছের নীচের পাতাগুলি ঝরে পড়ে। এবং ক্রমে উপরের পাতাগুলি ঝরতে থাকে। গাছ ঢলে পড়ে। আক্রান্ত গাছের রং কালো হয়ে যায়। এবং তার উপর সাদা ছত্রাক দেখা যায়। আক্রান্ত গাছের ডাঁটার টুকরো কেটে পরিষ্কার জলে ডোবালে জল ঘোলাটে হয়ে যায়। পাটের রস পচা বা সফট রট রোগে গাছের গোড়ায় হাল্কা বাদামি দাগ দেখা যায়। সকালের দিকে ওই দাগের উপর তুলোর মতো ছত্রাকের বৃদ্ধি লক্ষ্য করা যায়। কয়েকদিন পরে সর্ষে দানার মতো দেখা যায়।
সামান্য হাওয়ায় গাছটি গোড়া থেকে ভেঙে পড়ে এবং মারা যায়। মোজাইক রোগে পাটের পাতায় সবুজ ও হলুদ ছোপ দাগ দেখা যায়। এটি একটি ভাইরাস ঘটিত রোগ। সাদা মাছি এই রোগ ছড়াতে সাহায্য করে। এটি মূলত তিতা পাটের রোগ। আক্রমণ বেশি হলে গাছের বৃদ্ধি ব্যাহত হয় এবং ফলন কমে। পাটের রোগ প্রতিরোধে চাষের শুরু থেকেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। পাটচাষের জন্য দোঁয়াশ মাটি যুক্ত মাঝারি থেকে উঁচু জমি নির্বাচন করতে হবে। মাটি অম্ল হলে বীজ বোনার একমাস আগে হেক্টর প্রতি ২-৪ টন চুন ব্যবহার করতে হবে। মাটি পরীক্ষা করিয়ে নিতে পারলে ভালো হয়।
29th  May, 2019
 অল্প খরচেই কম্পোস্ট সার

 অলোক বন্দ্যোপাধ্যায়: অল্প খরচে কম সময়ে কম্পোস্ট সার তৈরি করে চাষিরা তাঁদের চাষের কাজে ব্যবহার করতে পারেন। একইসঙ্গে অতিরিক্ত কম্পোস্ট সার বিক্রি করে তাঁরা আর্থিকভাবে লাভবানও হতে পারেন।
বিশদ

 বাজারে সারাবছরই চাহিদা, মুগ ডাল চাষে মিলবে লাভ

  সংবাদদাতা: মুগ ডালের চাষ খুবই লাভজনক। বাজারে মুগডালের চাহিদা সবচেয়ে বেশি থাকে। সেইসঙ্গে দামও বেশি থাকে। রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় মুগডালের চাষ কম হওয়ায় অন্য রাজ্য থেকে মুগ নিয়ে আসা হয় আমাদের রাজ্যে মুগডালের চাহিদা মেটানোর জন্য।
বিশদ

 তেহট্টে শুঁয়োপোকার দাপটে পাটে ক্ষতির শঙ্কা

 সৌরভ ভট্টাচার্য : তেহট্ট মহকুমাজুড়ে পাটগাছে ব্যাপকভাবে শুঁয়োপোকার আক্রমণ ঘটেছে। এলাকার বহু পাটের জমিতে শুঁয়োপোকা ভরে গিয়েছে। চাষিরা বলেন, শুঁয়োপোকার উপদ্রব না কমলে আগামীদিনে পাটচাষে ব্যাপক ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থাকছে। গোটা জেলার সঙ্গে তেহট্ট মহকুমাতেও ভালো পাটচাষ হয়।
বিশদ

 একাঙ্গী চাষে খরচ কম, বিঘায় আয় লাখ টাকা

ব্রতীন দাস: একাঙ্গী একটি লাভজনক চাষ। এ রাজ্যের যেকোনও অঞ্চলে এটি চাষ করা যায়। একাঙ্গী কন্দযুক্ত ভেষজ উদ্ভিদ। কন্দ মাটির নীচে হয়। এটি চন্দ্রমূলি নামেও পরিচিত। দেখতে অনেকটা কচুরিপানার মতো। সবুজ রঙের বড় পাতা হয়। গাছের গোড়া থেকে একসঙ্গে ৮-১০টি পাতা বের হয়। সাত থেকে নয় মাসে ফসল তোলা যায়।
বিশদ

সুন্দরবনেও যন্ত্রের সাহায্যে ধান চাষের উদ্যোগ 

নিজস্ব প্রতিনিধি: এবার সুন্দরবন এলাকার কৃষকরাও যন্ত্রের সাহায্যে ধান চাষ শুরু করতে চলেছেন। উত্তর ২৪ পরগনার সন্দেশখালি ২ নম্বর ব্লকে কৃষি দপ্তরের উদ্যোগে মেকানাইজড প্যাডি ট্রান্সপ্লান্টার মেশিনের সাহায্যে আমন ধানের চারা রোপণের প্রস্তুতি শুরু হয়েছে।   বিশদ

12th  June, 2019
ব্ল্যাক রাইস চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন কৃষকরা 

ব্রতীন দাস: শরীর সুস্থ রাখতে এবং ক্যান্সার, ডায়াবেটিসের মতো রোগ প্রতিরোধে কালো চালের গুরুত্ব অপরিসীম। কিন্তু সেই ধান উৎপাদন করেও বাজার না পাওয়ায় আগ্রহ হারাচ্ছেন কৃষকদের অনেকেই। কৃষি দপ্তরের পক্ষ থেকে ব্ল্যাক রাইস চাষের জন্য উৎসাহিত করা হলেও চাষিদের অভিযোগ, ব্ল্যাক রাইস ভাঙানোর জন্য যে বিশেষ ধরনের মিল দরকার তা বেশিরভাগ জায়গাতেই নেই।  বিশদ

12th  June, 2019
সঠিক পরিচর্যায় টবেও ফলবে স্ট্রবেরি 

নিজস্ব প্রতিনিধি: সঠিক জাত নির্বাচন করে ভালোভাবে পরিচর্যা করতে পারলে উত্তর ও দক্ষিণবঙ্গের মাটি ও আবহাওয়ায় স্ট্রবেরি সাফল্যের সঙ্গে চাষ করা সম্ভব। এমনকী টবেও স্ট্রবেরি ফলানো সম্ভব বলে জানাচ্ছেন উদ্যানপালন আধিকারিকরা।  বিশদ

05th  June, 2019
নিয়ম মেনে অড়হর ডাল চাষ করলে ভালো আয়ের সম্ভাবনা 

সংবাদদাতা : অড়হর একটি ভালো অর্থকরি ফসল। সঠিক নিয়ম মেনে চাষ করতে পারলে যে কোনও ফসলের থেকে বেশি লাভ পাওয়া যায়। কারণ, বাজারে সারাবছরই মুগডালের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে অড়হর ডালের দামও যেমন ভালো থাকে, তেমনই চাহিদাও ভালো থাকে।  বিশদ

05th  June, 2019
কম খরচে বছরে ২বার সয়াবিন চাষ 

অলোক বন্দ্যোপাধ্যায়: সয়াবিনের চাষ ভালো লাভজনক। চাষিরা কম খরচে সয়াবিনের চাষ করতে পারেন। বাজারে সবসময় সয়াবিনের চাহিদা থাকে। দামও ভালো পাওয়া যায়। সয়াবিন বাজারে সবসময় নির্দিষ্ট দামের মধ্যে বিক্রি হয়।  বিশদ

05th  June, 2019
আধুনিক পদ্ধতিতে চাষ করে লাভবান বোরো ধান কৃষকরা 

সংবাদদাতা: আধুনিক সুধা-বোরো অর্থাৎ সুনিশ্চিত ধান চাষ প্রযুক্তির পর নদীয়া জেলার জল ও সেচ ব্যবহার গবেষণা কেন্দ্র কৃষকের জমিতে নিয়ে এসেছে উন্নততর শুকনো কর্ষণে সুধা বোরো প্রযুক্তি। এই অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে বোরো ধান চাষ করে উপকৃত হয়েছেন নদীয়া জেলার রানাঘাট মহকুমা আর হুগলি জেলার শ্রীরামপুর মহকুমার বহু অগ্রণী চাষি। 
বিশদ

05th  June, 2019
টার্কি পালন করে স্বনির্ভর হচ্ছেন মহিলারা 

নবজ্যোতি সরকার: টার্কি পালন করে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিভিন্ন স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা আর্থিকভাবে স্বনির্ভর হচ্ছেন। টার্কির বিক্রিযোগ্য ওজন ৫ কেজি হতে সময় নেয় ২০-২৫ সপ্তাহ। এরা এই সময় মোট খাবার খায় ১৮ কেজি।  বিশদ

05th  June, 2019
‘সুধা’ পদ্ধতিতে চাষে আমনে মিলবে প্রচুর ফলন 

ব্রতীন দাস: ‘সুধা’ অর্থাৎ সুনিশ্চিত ধানচাষ পদ্ধতিতে আমন ধানের ফলন ১০-১৫ শতাংশ বাড়বে। এমনটাই বলছেন কৃষি বিশেষজ্ঞরা। তাঁদের বক্তব্য, বৃষ্টিপাতের অনিশ্চয়তা যেভাবে বাড়ছে, তাতে এই পদ্ধতিতে আমন ধান চাষ করলে চাষিরা অনেকটাই নিশ্চিন্ত হতে পারবেন। 
বিশদ

05th  June, 2019
ফলের গাছের চারা তৈরি করে স্বনির্ভর বহু যুবক

নবজ্যোতি সরকার: উত্তর ২৪ পরগনা জেলার হাবড়া এক নম্বর ব্লকের পৃথিবা গ্রাম পঞ্চায়েতের বদর অঞ্চলের বহু নার্সারিতে চলছে পরীক্ষাগার ছাড়া গ্রাম্য পরিবেশ ও পদ্ধতিতে বিভিন্ন ফলের গাছের গ্রাফটিং। এক মাস বাদেই তৈরি হচ্ছে চারাগাছ। বিক্রি বেড়েছে বহুগুণ। বিক্রিতে লাভও মিলছে। তৈরি হচ্ছে আপেল পেয়ারা।
বিশদ

29th  May, 2019
 ধানের সহনশীল জাত স্বর্ণ সাব-১ সুন্দরবনের উপযোগী

  সংবাদদাতা: কৃষিক্ষেত্রে প্রতিকূল পরিবেশ সহনশীল ধানবীজের ব্যবহার আর রাসায়নিক সারের ব্যবহার কমিয়ে বা বন্ধ করে নতুন ভাবনায় এগিয়ে যেতে চাইছে রাজ্যের কৃষি দপ্তর ও জৈব প্রযুক্তি পরিকল্পনা বিভাগ। রাজ্যের প্রধান ফসল ধানচাষে প্রথাগত বীজ ব্যবহার হয়ে থাকত। এর ফলে প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে চাষিদের ক্ষতির মুখে পড়তে হতো।
বিশদ

29th  May, 2019

Pages: 12345

একনজরে
  শ্রীনগর, ১৮ জুন (পিটিআই): মঙ্গলবার জম্মু-কাশ্মীরের অনন্তনাগে এনকাউন্টারে খতম দুই জয়েশ-ই-মহম্মদের জঙ্গি। হত দুই জঙ্গির মধ্যে একজন পুলওয়ামায় হামলার সঙ্গে জড়িত ছিল বলে স্থানীয় পুলিস জানিয়েছে। আর এই গুলির লড়াইয়ে এক জওয়ান গুরুতর জখম হন। তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে ...

 ম্যাঞ্চেস্টার, ১৮ জুন: পাঁচ ম্যাচে মাত্র তিন পয়েন্ট। লিগ তালিকায় এই মুহূর্তে নবম স্থানে রয়েছে পাকিস্তান। শেষ ম্যাচে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের কাছে ৮৯ রানে চূর্ণ হওয়ার পর ঘরে-বাইরে প্রচণ্ড সমালোচিত হয়েছেন পাক ক্রিকেটাররা। পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম এবং প্রাক্তনীরা সরফরাজ-ব্রিগেডের উপর তোপের পর ...

বিএনএ, পুন্ডিবাড়ি, কোচবিহার: মঙ্গলবার কোচবিহারে উত্তরবঙ্গ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়য়ের অডিটোরিয়ামে ‘জয় শ্রীরাম ধ্বনি’ দিয়ে তৃণমূল প্রভাবিত কর্মচারী সমিতির সভা ভণ্ডুল করার অভিযোগ উঠেছে বিজেপির বিরুদ্ধে। বিজেপির ...

 ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মপ্রার্থীদের কোনও চুক্তিবদ্ধ কাজে যুক্ত হওয়ার যোগ আছে। ব্যবসা শুরু করা যেতে পারে। বিবাহের যোগাযোগ ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৪৭- লেখক সলমন রুশদির জন্ম,
১৯৭০- রাজনীতিক রাহুল গান্ধীর জন্ম,
১৯৮১- ভারতে টেস্ট টিউব বেবির জনক সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যু,
২০০৮- বর্তমানের প্রতিষ্ঠাতা-সম্পাদক বরুণ সেনগুপ্তের মৃত্যু 

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.০৩ টাকা ৭০.৭২ টাকা
পাউন্ড ৮৫.৯৪ টাকা ৮৯.১১ টাকা
ইউরো ৭৭.০০ টাকা ৭৯.৯৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৩,৪৬৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩১,৭৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩২,২২৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৭,১৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৭,২৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৪ আষা‌ঢ় ১৪২৬, ১৯ জুন ২০১৯, বুধবার, দ্বিতীয়া ২৬/৩৫ দিবা ৩/৩৪। পূর্বাষাঢ়া ২১/২৩ দিবা ১/৩০। সূ উ ৪/৫৯/৯, অ ৬/১৯/১২, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৭ গতে ১১/১১ মধ্যে পুনঃ ১/৫১ গতে ৫/২৫ মধ্যে। রাত্রি ৯/৫২ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৯ গতে ১/২৪ মধ্যে, বারবেলা ৮/১৭ গতে ৯/৫৭ মধ্যে পুনঃ ১১/৩৮ গতে ১/১৮ মধ্যে, কালরাত্রি ২/১৭ গতে ৩/৩৭ মধ্যে। 
৩ আষাঢ় ১৪২৬, ১৯ জুন ২০১৯, বুধবার, দ্বিতীয়া ২৪/১৯/০ দিবা ২/৩৯/৬। পূর্বাষাঢ়ানক্ষত্র ২০/৫৮/৩৭ দিবা ১/১৮/৫৭, সূ উ ৪/৫৫/৩০, অ ৬/২১/৫৪, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪০ গতে ১১/১৪ মধ্যে ও ১/৫৫ গতে ৫/২৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/৫৫ মধ্যে ও ১২/২ গতে ১/২৭ মধ্যে, বারবেলা ১১/৩৮/৪৩ গতে ১/১৯/২১ মধ্যে, কালবেলা ৮/১৭/৭ গতে ৯/৫৭/৫৫ মধ্যে, কালরাত্রি ২/১৭/৩ গতে ৩/৩৬/১৯ মধ্যে। 
১৫ শওয়াল 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
বিশ্বকাপ: আফগানিস্তানকে ১৫০ রানে হারাল ইংল্যান্ড

18-06-2019 - 10:48:34 PM

স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে নিরাপত্তা, চালু কলকাতা পুলিসের হেল্প লাইন 
গতকাল মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ পাওয়ার পর স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে নিরাপত্তা জনিত সমস্যার ...বিশদ

18-06-2019 - 09:48:24 PM

বিশ্বকাপ: আফগানিস্তান ৮৬/২ (২০ ওভার) 

18-06-2019 - 08:17:00 PM

দার্জিলিং পুরসভায় প্রশাসক নিয়োগ করল রাজ্য সরকার 

18-06-2019 - 08:08:39 PM

জাপানে বড়সড় ভূমিকম্প, মাত্রা ৬.৫, জারি সুনামি সতর্কতা 

18-06-2019 - 07:34:58 PM

বিশ্বকাপ: আফগানিস্তান ৪৮/১ (১০ ওভার) 

18-06-2019 - 07:05:00 PM