Bartaman Patrika
শরীর ও স্বাস্থ্য
 

 জলবাহিত রোগের মোকাবিলা করবেন কীভাবে?

পরামর্শে পিয়ারলেস হসপিটাল অ্যান্ড বি কে রয় রিসার্চ সেন্টারের গ্যাসট্রোএনটেরোলজি এবং হেপাটোলজি বিভাগের ক্লিনিক্যাল ডিরেক্টর ডাঃ অশোকানন্দ কোনার।

ক্যালেন্ডারে বছরের পর বছর বদলে গেলেও, রাজ্যের জলছবি কিন্তু বদলায় না। বৃষ্টির দাপটে রাজ্যের উত্তর ভাগ যেমন ভেসেছে, কয়েক দফা বৃষ্টিতে দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জায়গায় ছিল হাঁটু জল। অসংখ্য মানুষ জল যন্ত্রণার শিকার। তবে এসবের মধ্যে সবচেয়ে বড় মাথা ব্যথার কারণ হয়ে উঠতে পারে বিভিন্ন ধরনের জলবাহিত রোগের বাড়বাড়ন্ত। তাই এই পরিস্থিতিতে সতর্কতা প্রয়োজন।
সমস্যার গোড়ায়
আমাদের দেশ তথা রাজ্যের গ্রামের এবং শহরের পানীয় জলের ব্যবস্থা সম্পূর্ণ ভিন্ন। গ্রাম বাংলায় অনেক মানুষ পুকুর, ঝিল, কুয়োর জল পান করেন। সমস্যা হল, বৃষ্টির কারণে মল, মূত্র অন্যান্য আবর্জনা এসে এই পানীয় জলের উৎসে মেশে। পানীয় জল সংক্রামিত হয়। এবার সেই অপরিশোধিত জলপান করলে মানুষের বিভিন্ন ধরনের সমস্যায় আক্রান্ত হওয়াই স্বাভাবিক।
অন্যদিকে শহরে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই পাইপের মাধ্যমে পানীয় জল পৌঁছে দেওয়া হয়। এক্ষেত্রে সাধারণত নদীর জলকে বিভিন্ন উপায়ে পরিশোধিত করে মানুষের কাছে জল পৌঁছানো হয়। ফলে এই জলে সংক্রমণের আশঙ্কা তুলনায় অনেকাংশে কম। তবে এক্ষেত্রেও জল পরিশোধনে খামতি থাকলে সমস্যা হতে পারে। কারণ এখন দেশের বেশিরভাগ বড় নদীই দূষণের শিকার। এবার কোনও কারণে সেই নদীর সংক্রামিত জল সঠিক পদ্ধতিতে পরিশোধিত না করে মানুষের বাড়ি পৌঁছে গেলেই সমস্যা। এক্ষেত্রে সংক্রামিত জলপান করে মানুষ বিভিন্ন জলবাহিত রোগে আক্রান্ত হন। এই ধরনের সমস্যা অনেকসময় মহামারীর আকার নেয়। আমাদের রাজ্যেও এই ধরনের ঘটনার সংখ্যা ভুরি ভুরি। আবার শহরাঞ্চলে অনেকসময় পানীয় জলের পাইপ ফেটেও জলে সংক্রমণ হয়। মূলত বর্ষাকালে পানীয় জলের পাইপ লাইনে ফাটলের মাধ্যমে নোংরা জল প্রবেশ করে। তখন পানীয় জল সংক্রামিত হয়। সেই জলপান করেও বহু মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়েন।
এক নজরে বিভিন্ন জলবাহিত অসুখ
 ব্যাকটেরিয়াল ডায়ারিয়া—ই-কোলাই ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণের কারণে মূলত মানুষ এই সমস্যায় আক্রান্ত হন। সাধারণত এই ধরনের ব্যাকটেরিয়া অন্ত্র বা ইনটেসটাইনে ইনফেকশন তৈরি করে। ফলে মানুষ ডায়ারিয়াতে আক্রান্ত হয়ে থাকেন। এক্ষেত্রে রোগী বারংবার তরল মলত্যাগ করেন। পাশাপাশি বমি, পেট কামড়ানো, জ্বরের মতো সমস্যাও দেখা দিতে পারে। এই সমস্যার প্রাথমিক চিকিৎসা হল ওআরএস। ডায়ারিয়ার সময় শরীরকে রিহাইড্রেট করার জন্য ওর‌্যাল রিহাইড্রেশন সলিউশন বা ওআরএসের কোনও জুড়ি নেই। ডায়ারিয়া শুরু হওয়ার সময় থেকেই ওআরএস মেশানো জলপান করলে ভালো ফল দেয়। এক্ষেত্রে এক প্যাকেট ওআরএস এক লিটার জলে গুলে নিতে হবে। তবে সমস্যা খুব বেড়ে গিয়ে থাকলে অবশ্যই অপেক্ষা না করে চিকিৎসকের কাছে যাওয়া উচিত।
অনেকের আবার পায়খানা, বমির সমস্যায় ওষুধের দোকানে বলে অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়ার অভ্যেস রয়েছে। এই অভ্যেস কিন্তু অত্যন্ত বিপজ্জনক। এর থেকে হিতে বিপরীত হওয়ার আশঙ্কাই বেশি। তাই ওষুধের দোকানে জিজ্ঞাসা করে অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়ার অভ্যেস ছাড়তে হবে। বদলে এমন সমস্যা হলে প্রাথমিক পর্যায়ে ওআরএস পান করা দরকার। সমস্যা বেগতিক বুঝলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকই রোগীর শারীরিক অবস্থা অনুযায়ী সঠিক পরামর্শ দিতে পারেন।
 আন্ত্রিক—আমাশার একটি বিশেষ ধরন হল আন্ত্রিক। মূলত জলবাহিত ব্যাকটেরিয়া থেকেই এই সমস্যায় মানুষ আক্রান্ত হন। অনেকসময় একটি নির্দিষ্ট অঞ্চলের অনেক মানুষ একসঙ্গে আন্ত্রিকের করলে পড়েন। এক্ষেত্রে রোগী বারংবার রক্ত যুক্ত মলত্যাগ করেন। সঙ্গে পেটে ব্যথা থাকে। এই জটিল সমস্যা সমাধানে যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।
 জন্ডিস— এই সময়ে জলবাহিত হেপাটাইটিসের সংক্রমণ বাড়তে থাকে। মূলত হেপাটাইটিস ই ভাইরাসটিই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এই সমস্যার নেপথ্যে দায়ী। তবে সংখ্যায় কম হলেও, হেপাটাইটিস এ ভাইরাস জলবাহিত হয়ে মানুষের শরীরে সমস্যা তৈরি করতে পারে।
সাধারণত, সেপ্টেম্বর মাস নাগাদই জলবাহিত হেপাটাইটিসে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ে। কারণ এই ভাইরাসটি শরীরে প্রবেশ করার পর প্রায় চার থেকে ছয় সপ্তাহ বাদেই রোগ লক্ষণ দেখা দিতে শুরু করে। এই সময়টি হল জলবাহিত হেপাটাইটিসের ইনকিউবেশন পিরিয়ড। এক্ষেত্রে রোগীর গা-হাত-পা ম্যাজ ম্যাজ করে, চোখ হলদে হয়ে যায়, গা বমি ভাব দেখা দেয়। এছাড়া শরীরে আরও কিছু লক্ষণ ফুটে উঠতে পারে। হেপাটাইটিসের মতো অসুখে প্রথম থেকেই সঠিক চিকিৎসা দরকার। তাই রোগীর শরীরে এমন লক্ষণ দেখা দিলে, যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের কাছে আনতে হবে। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ খাওয়া উচিত নয়।
 টাইফয়েড—জলবাহিত অসুখের তালিকায় টাইফয়েডের নামটি বিশেষভাগে উল্লেখযোগ্য। সামলোনেল্লা টাইফি ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ থেকে মানুষ টাইফয়েডে আক্রান্ত হয়। মূল রোগ লক্ষণ হল জ্বর। এক্ষেত্রে জ্বরের মাত্রা থাকে বেশি। পাশাপাশি দুর্বলতা, মাথাব্যথা, পেটে ব্যথা, বারবার মলত্যাগের মতো উপসর্গও দেখা দিতে পারে। এই রোগের নির্দিষ্ট চিকিৎসা রয়েছে। প্রয়োজন শুধু যত শীঘ্র সম্ভব রোগ নির্ণয়ের। তাই টাইফয়েডের লক্ষণ দেখা দিলেই অবশ্যই চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে।
অনেকসময় রোগীর টাইফয়েড এবং হেপাটাইটিস একসঙ্গে হতে পারে। এক্ষেত্রে প্রাথমিকভাবে রোগীকে টাইফয়েডের লক্ষণ নিয়ে চিকিৎসকের কাছে আনা হয়। পরে হেপাটাইটিস ধরা পড়ে। তবে এক্ষেত্রেও তেমন দুশ্চিন্তা করার কিছু নেই। চিকিৎসকের পরামর্শ মতো চললে সমস্যার সমাধান সম্ভব।
জলবাহিত রোগ থেকে বাঁচতে
১. জলবাহিত রোগের হাত থেকে নিস্তার পাওয়ার একমাত্র উপায় হল পরিশুদ্ধ পানীয় জলপান করা।
২. গ্রামের দিকে যেই পুকুর বা জলাশয়ের জলপান করা হয়, সেই জলে স্নান, কাপড় কাচা বন্ধ করতে হবে।
৩. সবথেকে ভালো হয় বর্ষার সময় টিউবওয়েলের জলপান করতে পারলে। মোটামুটি ২০০ ফিট বা তার বেশি গভীর টিউবওয়েলের জলে সংক্রমণের আশঙ্কা খুব কম। আর অপরদিকে শহরাঞ্চলে পরিশোধিত পানীয় জল পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থাকে আরও মজবুত করা ছাড়া কোনও উপায় নেই।
৪. কোনও একটি নির্দিষ্ট অঞ্চলে নির্দিষ্ট জলবাহিত অসুখের প্রকোপ বাড়লে সেখানকার মানুষ এবং প্রশাসনকে অবশ্যই আরও বেশি সতর্ক থাকতে হবে।
৫. সবথেকে ভালো হয় জল ফুটিয়ে পান করলে। তবে সব সময় জল ফুটিয়ে পান করা সম্ভব নয়। বিশেষত আমাদের মতো দেশে সকল মানুষ জ্বালানি পুড়িয়ে জল ফুটিয়ে পান করবেন, এটা ভাবাই অবাস্তব। তাই গ্রাম-শহর নির্বিশেষে সরকারকেই মানুষের কাছে পরিশোধিত পানীয় জল পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। অন্যথায় জলবাহিত রোগ প্রতিরোধ প্রায় অসম্ভব।
লিখেছেন সায়ন নস্কর
22nd  August, 2019
 পুজোয় বেড়াতে গেলে
কী কী ওষুধ রাখবেন?
ডাঃ আশিস মিত্র ( মেডিসিন বিশেষজ্ঞ)

 সারা বছরের ধকল কাটাতে পুজোর ছুটিতে বাইরে বেড়াতে যাওয়া বাঙালির সংখ্যা নেহাত কম নয়। শরতের আবাহাওয়ায় পাহাড়, জঙ্গল, সমুদ্র যেন নতুন রূপে সেজে ওঠে। আর সেই অপরূপ সাজ চাক্ষুষ করতে ভ্রমণ পিপাসুরা দলে পৌঁছে যান প্রকৃতির কোলে। বুনে ফেলেন নতুন অভিজ্ঞতার স্মৃতি।
বিশদ

12th  September, 2019
 হোমিওপ্যাথিক ওষুধ
ডাঃ দেবর্ষি দাস ( হোমিওপ্যাথি চিকিৎসক)

 বাঙালি আর বেড়ানো এই দুই শব্দকে কখনওই আলাদা করা যায় না। কিন্তু বেড়াতে গিয়ে শরীর খারাপ হলে প্রকৃতি দর্শনের পুরো আনন্দটাই মাটি। আর এই বেড়ানোর আনন্দটা যাতে কোনওভাবেই নিরানন্দে পরিণত না হয় তাই বেড়াতে যাবার ব্যাগ গোছানোর সময় অবশ্যই কিছু জরুরি ওষুধ ব্যাগে নিতে হবে। দরকারে এগুলো ভীষণ উপযোগী এবং বেড়ানোটাকে নির্ঝঞ্ঝাট রাখতে পারে। বিশদ

12th  September, 2019
 শিশুদের সমস্যায়
ডাঃ সুজয় চক্রবর্তী ( শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ)

  বর্ষার শেষ আর শরতের আগমন মানেই বাঙালির এক বছরের অপেক্ষার অবসান। মা দুর্গার আগমনীবার্তায় যখন আকাশ-বাতাসে খুশির সুর, ঘরকুনো বাঙালিও তাঁর বদনাম ঘোচাতে হয়ে ওঠে ভ্রমণ পিপাসু। পাহাড় থেকে সমুদ্র, অরণ্য থেকে সমতল— এই সময়টাতে সর্বত্র আমাদের অবাধ বিচরণ।
বিশদ

12th  September, 2019
 ডি এন দে হোমিওপ্যাথিক কলেজের পুনর্মিলন উৎসব

  শিয়ালদহের কৃষ্ণপদ ঘোষ মেমোরিয়াল প্রেক্ষাগ্রৃহে অনুষ্ঠিত হল ডি এন দে হোমিওপ্যাথিক মেডিক্যাল কলেজের বার্ষিক পুনর্মিলন উৎসব। আয়োজক ছিল ওই কলেজের প্রাক্তন ছাত্র সমিতি। উৎসবের সূচনা করেন রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের (যোগোদদান) অধ্যক্ষ স্বামী বিমলাৎমানন্দজী মহারাজ।
বিশদ

12th  September, 2019
মাতৃভবন হাসপাতালে ল্যাপেরোস্কোপি

  আধুনিক ল্যাপেরোস্কোপি ও হিস্টেরেস্কোপির পদ্ধতিতে পেটের উপর শুধুমাত্র কয়েকটি ছিদ্র করে অপারেশন করা হচ্ছে। এরফলে রোগীর ব্যথা বেদনা কম হওয়া, অপারেশনের ঝুঁকি কম থাকা সহ আরও অনেক সুবিধে রয়েছে। কিন্তু খরচের কারণে অনেকেই এই সার্জারির সুবিধে নিতে পারেন না।
বিশদ

12th  September, 2019
গঙ্গা হাসপাতাল 

তামিলনাড়ুর কোয়াম্বাটুরের গঙ্গা মেডিক্যাল সেন্টার অ্যান্ড হাসপাতালের তরফে সল্টলেকে রিকনস্ট্রাকটিভ মাইক্রোসার্জারি, আগুনে পোড়া, ব্রেস্ট ক্যান্সার, প্লাস্টিক সার্জারি ইত্যাদি চিকিৎসার নয়া কেন্দ্র চালু হল।   বিশদ

05th  September, 2019
তামাকমুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে শিক্ষকদের নিয়ে প্রশিক্ষণ শিবির 

গ্লোবাল অ্যাডাল্ট টোব্যাকো সার্ভে (গ্যাটস ২০১৭) অনুযায়ী পশ্চিমবঙ্গে রোজ তামাকের নেশায় পা দিয়ে চলেছে ৪৩৮টি শিশু! রাজ্য জুড়ে যে হারে শিশুরা তামাকের নেশায় জড়িয়ে পড়ছে তা যথেষ্ট চিন্তায় রেখেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের শিক্ষা দপ্তরকে।   বিশদ

05th  September, 2019
মেডিকার সেন্টার ফর লিভার ডিজিজ 

লিভারের রোগের চিকিৎসা এবং লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্টের ক্ষেত্রে চিকিৎসা পরিষেবা দিতে মেডিকা হাসপাতালে শুরু হল সেন্টার ফর লিভার ডিজিজ ক্লিনিক। লিভারের চিকিৎসার সঙ্গে প্যাংক্রিয়াস ও গল ব্লাডারের রোগেরও চিকিৎসা হবে সেখানে।  বিশদ

05th  September, 2019
রক্তের গ্রুপ থেকে চরিত্র নির্ণয় 

জাপানের কোনও পানশালায় আপনার সঙ্গে অচেনা কারও হঠাৎ আলাপ হল। এক কথা- দু’কথার পরই উল্টোদিকের মানুষটি আচমকাই আপনার ব্লাড গ্রুপ জানতে চাইলেন। ভাবখানা এমন যেন আপনার বাড়ি কোথায় বা কোথায় চাকরি করেন, জানতে চাইছেন।   বিশদ

05th  September, 2019
রক্তের গ্রুপ থেকে
কী কী জানা যায়? 

বর্তমানে ভারতে তো বটেই, সারা বিশ্বে রক্তরোগীর সংখ্যা বাড়ছে। রক্তের গ্রুপের সঙ্গে রোগের আদৌ কি কোনও সম্পর্ক রয়েছে? শরীরে ভুল রক্ত ঢুকলে তা কতটা মারাত্মক হতে পারে? রক্ত সম্পর্কিত রোগের শিকার মানুষের আধুনিক চিকিৎসার কোনও ব্যবস্থা আমাদের রাজ্যে রয়েছে কি? এসব প্রশ্নেরই জবাব দিলেন কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের ইমিউনোহেমাটোলজি অ্যান্ড ব্লাড ট্রান্সফিউশন বিভাগের প্রধান ডাঃ প্রসূন ভট্টাচার্য।
বিশদ

05th  September, 2019
হুকা বার কতটা
বিপদের?

একটা প্রচলিত ধারণা আছে, হুকা থেকে যে ধোঁয়া নির্গত হয় তাতে নিকোটিন এবং অন্যান্য দূষিত পদার্থগুলি থাকে না! এই ধরনের চিন্তা সম্পূর্ণরূপে ভ্রান্ত। হুকার ধোঁয়া বরং কয়েকগুণ বেশি ক্ষতিকারক! পরামর্শে নেতাজি সুভাষ ক্যান্সার হাসপাতালের মেডিক্যাল ডিরেক্টর ডাঃ আশিস মুখোপাধ্যায়।
বিশদ

29th  August, 2019
দুই হাসপাতালের যুগলবন্দিতে অঙ্গ প্রতিস্থাপনে সাফল্য

কলকাতার দুই নামকরা বেসরকারি হাসপাতালের যুগলবন্দিতে সাফল্যের সঙ্গে প্রতিস্থাপিত হল লিভার। সাব-অ্যারাকোনয়েড হেমারেজে আক্রান্ত ৬১ বছরের শেলি দে ২৩ আগস্ট ই এম বাইপাসের মেডিকা সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি হন। প্রাথমিকভাবে তাঁকে হাসপাতালের ইমার্জেন্সিতে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়।
বিশদ

29th  August, 2019
ইএনটি চিকিৎসকদের সম্মেলন ‘মিড আইকন’

নাক কান গলার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সর্বভারতীয় সংগঠনের, রাজ্য শাখার সম্মেলন ‘মিড আইকন’ এবার ১২ বছরে পা দিল। ২৫ আগস্ট, রবিবার এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হল পিয়ারলেস হাসপাতালে। সার্জিক্যাল ওয়ার্কশপে অংশ নিলেন বিশিষ্ট ইএনটি সার্জেন এবং সংস্থার সর্বভারতীয় সভাপতি ডাঃ সমীর ভার্গব।
বিশদ

29th  August, 2019
 কলম্বিয়া এশিয়া’র উদ্যোগ

 কলম্বিয়া এশিয়া হাসপাতাল গোষ্ঠী রোগীদের জন্য চালু করেছে ‘পেপ’ পরিষেবা। পুরো নাম পেশেন্ট এনগেজমেন্ট পোর্টাল। সংশ্লিষ্ট হাসপাতাল গোষ্ঠী এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, এই পোর্টালের মাধ্যমে রোগী তাঁর স্বাস্থ্যসম্বন্ধীয় যাবতীয় তথ্য পাবেন। এছাড়াও চিকিৎসকদের কাজের সুবিধার্থে ‘কাম’ নামের একটি অ্যাপসও আনা হয়েছে।
বিশদ

29th  August, 2019
একনজরে
সংবাদদাতা, ময়নাগুড়ি: উত্তরবঙ্গের বিগবাজেটের পুজোর উদ্যোক্তারা দক্ষিণবঙ্গ থেকে প্রতিমা নিয়ে আসছেন। ফলে উত্তরবঙ্গের মৃৎশিল্পীদের গুরুত্ব ক্রমশই কমতে শুরু করেছে। এতে প্রতিমা বানানোর অর্ডারের সংখ্যাও কমছে। ...

সংবাদদাতা, জঙ্গিপুর: বৃহস্পতিবার রাত থেকে রঘুনাথগঞ্জ-২ ব্লকের কাশিয়াডাঙা অঞ্চলে ভাঙন শুরু হওয়ায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায়। এলাকার কয়েক হাজার গ্রামবাসী আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। গ্রামে যাওয়ার প্রধান রাস্তাও গঙ্গার গর্ভে চলে গিয়েছে। ফলে সমস্যায় পড়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।   ...

নয়াদিল্লি, ১৪ সেপ্টেম্বর (পিটিআই): তিনি ছত্রপতি শিবাজির বংশধর। শনিবার বিজেপিতে যোগ দিলেন সাতারার এনসিপি সাংসদ উদয়নরাজে ভোঁসলে। দিল্লিতে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ ও মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশের উপস্থিতিতে গেরুয়া শিবিরে ভিড়লেন উদয়নরাজে। ...

বিশ্বজিৎ দাস, হায়দরাবাদ: দীর্ঘদিন ধরেই রাজ্যের স্বাস্থ্যকর্তারা বলে আসছিলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্প মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্বপ্নের প্রকল্প স্বাস্থ্যসাথীরই নকল। আজ যা মোদি করছেন, কয়েক বছর আগে থেকেই তা বাস্তবায়িত করা শুরু করেছেন মমতা। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

অতিরিক্ত পরিশ্রমে শারীরিক ক্লান্তি, প্রিয়জনের বিপদগামীতায় অশান্তি ও মানহানির আশঙ্কা, সাংসারিক ক্ষেত্রে মতানৈক্য এড়িয়ে চলা ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস
১২৫৪: পরিব্রাজক মার্কো পোলোর জন্ম
১৮৭৬: কথাসাহিত্যিক শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম  

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.০৯ টাকা ৭১.৭৯ টাকা
পাউন্ড ৮৫.৯৩ টাকা ৮৯.১৩ টাকা
ইউরো ৭৭.০৩ টাকা ৮০.০১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
14th  September, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৭, ৯৯০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬, ০৪৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৬, ৫৮৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫, ২০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৫, ৩০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৯ ভাদ্র ১৪২৬, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, রবিবার, প্রতিপদ ১৭/২৪ দিবা ১২/২৪। উত্তরভাদ্রপদ ৫০/৪৪ রাত্রি ১/৪৪। সূ উ ৫/২৬/৩৮, অ ৫/৩৭/৪২, অমৃতযোগ দিবা ৬/১৪ গতে ৯/৩০ মধ্যে। রাত্রি ৭/১২ গতে ৮/৪৭ মধ্যে, বারবেলা ১০/০ গতে ১/৩ মধ্যে, কালরাত্রি ১/১ গতে ২/৩০ মধ্যে।
২৮ ভাদ্র ১৪২৬, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, রবিবার, প্রতিপদ ১৩/৩২/২১ দিবা ১০/৫১/১৩। উত্তরভাদ্রপদ ৪৯/৫০/৬ রাত্রি ১/২২/১৯, সূ উ ৫/২৬/১৭, অ ৫/৩৯/৩৭, অমৃতযোগ দিবা ৬/১৩ গতে ৯/৩০ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/১৬ গতে ৮/৫০ মধ্যে, বারবেলা ১০/১/১৭ গতে ১১/৩২/৫৭ মধ্যে, কালবেলা ১১/৩২/৫৭ গতে ১/৪/৩৭ মধ্যে, কালরাত্রি ১/১/১৭ গতে ২/২৯/৩৭ মধ্যে।
 ১৫ মহরম

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ধর্মশালায় বৃষ্টি, ভারত-দক্ষিণ আফ্রিকা প্রথম টি ২০ ম্যাচে দেরি 

07:04:27 PM

চিঠি হাতে নবান্নে সিবিআই 
সিবিআই হাজিরা এড়িয়ে এক মাস সময় চেয়েছেন প্রাক্তন পুলিস কমিশনার ...বিশদ

06:21:08 PM

ফের বদলাল রাজ চক্রবর্তীর ছবির নাম 
রাজ চক্রবর্তীর আগামী ছবির নাম আরও একবার বদলাল। ছবির প্রথম ...বিশদ

05:24:30 PM

অন্ধ্রপ্রদেশে নদীতে নৌকা উল্টে যাওয়ার ঘটনায় মৃত ১১, বাকিদের খোঁজ এখনও মেলেনি 

05:16:17 PM

মা উড়ালপুল থেকে পড়ে মৃত্যু যুবকের

04:45:00 PM

অন্ধ্রপ্রদেশে নদীতে উল্টে গেল নৌকা, ৫ জনের মৃত্যুর আশঙ্কা, নিখোঁজ একাধিক 

04:24:32 PM