Bartaman Patrika
শরীর ও স্বাস্থ্য
 

ট্রোল করা কি মানসিক সমস্যা?

পরামর্শে সল্টলেক মাইন্ডসেট-এর কর্ণধার বিশিষ্ট মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ দেবাঞ্জন পান।

‘ট্রোলিং’ কী?
 সেলিব্রিটির পোশাক নিয়ে কমেন্ট বক্সে নীতিবাক্য মূলক মতামত প্রদান।  সেলিব্রিটির কাজকর্ম নিয়ে অশ্লীল বাক্য পোস্ট করা।  সেলিব্রিটিদের ছবি এবং কাজকর্মকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন ধরনের অযৌক্তিক গুজব রটানো।  ইদানীং সেলিব্রিটিদের অভিনীত চরিত্র এবং ডায়ালগ নিয়েও সোশ্যাল মিডিয়াতে ট্রোল করার রীতি শুরু হয়েছে।  তবে শুধু সেলিব্রিটি নয়। অন্যান্য পেশার মানুষদের কার্যকলাপ নিয়েও ট্রোল করার রীতি দেখা যাচ্ছে এখন। এমনকী পারিবারিক কোনও ছবি পোস্ট করেও ট্রোলড হচ্ছেন সাধারণ মানুষ।

 নিজের প্রচার এবং বক্তব্য জানানোর স্বার্থে বহু সেলিব্রিটি ফেসবুকে, ট্যুইটারে প্রোফাইল খোলেন। তাঁদের রোজকার কাজকর্মের ছবিও দেন। লক্ষ লক্ষ ফ্যান সেই ছবি দেখতে পান। সেই ছবি দেখে সেলিব্রিটিদের ফ্যানেরা লাইক দেন। বিভিন্ন ধরনের মন্তব্যও করেন। এতদূর পর্যন্ত বিষয়গুলো ঠিক ছিল। কিন্তু এখন নতুন ট্রেন্ড শুরু হয়েছে— ‘ট্রোলিং’।
কী এই ‘ট্রোলিং’?
আলাদা কিছুই নয়। সেলিব্রিটিদের পোস্ট করা ভিডিও বা ছবি নিয়ে নেটিজেনদের করা বিভিন্ন ধরনের কুরুচিকর কার্যকলাপ। তা কেমন সেই কার্যকলাপ? দেখে নেওয়া যাক—
 সেলিব্রিটির পোশাক নিয়ে কমেন্ট বক্সে নীতিবাক্য মূলক মতামত প্রদান।
 সেলিব্রিটির কাজকর্ম নিয়ে অশ্লীল বাক্য পোস্ট করা।
 সেলিব্রিটিদের ছবি এবং কাজকর্মকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন ধরনের অযৌক্তিক গুজব রটানো।
 এখানেই শেষ নয়। আজকাল সেলিব্রিটিদের অভিনীত চরিত্র এবং ডায়ালগ নিয়েও সোশ্যাল মিডিয়াতে ট্রোল করার রীতি শুরু হয়েছে।
 তবে শুধু সেলিব্রিটি নয়। অন্যান্য পেশার মানুষদের কার্যকলাপ নিয়েও ট্রোল করার রীতি দেখা যাচ্ছে এখন।
এমনকী পারিবারিক কোনও ছবি পোস্ট করেও ট্রোলড হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। এ যেন ট্রোল করতে হবে বলেও করা। এমনকী পিতা ও কন্যার ছবি নিয়েও করা হচ্ছে নিম্ন রুচির রসিকতা। তবে এসব ঘটনা ঘটলেও আমাদের সামনে সেভাবে আসে না। সেলিব্রিটিদের নিয়ে ট্রোল করলে তা নজরে আসে বেশি।
সাম্প্রতিক ঘটনার দিকে চোখ রাখলে দেখা যাবে, রানি রাসমণি (দিতিপ্রিয়া রায়) চরিত্রে অভিনয় করা বাচ্চা মেয়েটিকে নিয়ে বিভিন্ন ধরনের কুরুচিকর ট্রোলে ভরে গিয়েছিল ফেসবুক। এছাড়া পার্লামেন্টের সামনে অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী ও নুসরতের পোস্ট করা ছবিতে, তাঁদের পোশাক নিয়েও কুৎসিত মন্তব্য করতে ছাড়েনি নেটিজেনরা!
আর শুধু ফেসবুক বা ইনস্টাগ্রামেই নয়, দেখা যাচ্ছে ট্রোল, নানা মর্ফড কুরুচিকর ভিডিও, ফটোশপড ছবি, মেসেজ ঘোরাফেরা করে হোয়্যাটস অ্যাপেও। আরও ভয়ঙ্কর ব্যাপার হল, প্রযুক্তির এমন উন্নতির যুগে ভিডিও মর্ফ করা এবং ফটোশপ করে ছবি বিকৃত করা এমন কিছু অসম্ভব ব্যাপার নয়। তা সত্ত্বেও কিছু মানুষ নিজের যুক্তিবোধকে শিকেয় তুলে সেই মিথ্যে ছবি দেখেই সত্যি হিসেবে বিশ্বাস করছেন!
আর যাঁরা এমন ছবি এবং ভিডিও তৈরি করছেন, সোশ্যাল মিডিয়া ছড়িয়ে দিচ্ছেন— সেই ধরনের মানুষের যুক্তিবোধ বা নীতিবোধ নিয়ে বলার কিছু নেই! তবু তাঁদের এহেন আচরণে সমাজের বিশাল অংশের জান্তব হর্ষে যোগদান দেখে বেশ কতকগুলো প্রশ্ন ওঠে বইকি।
কয়েকটি জরুরি প্রশ্ন
প্রথম প্রশ্নটিই হল— ‘আমরা কি তাহলে নিজেকে প্রশ্ন করতে ভুলে যাচ্ছি?’
কারণ বিকৃত কোনও ছবি হোয়্যাটস অ্যাপে বা ফেসবুকে দেখামাত্র আমরা তা ঝড়ের গতিতে শেয়ার করছি অগ্রপশ্চাৎ বিবেচনা না করেই। অথচ ছবি বা ভিডিও আদৌ সত্যি না মিথ্যে, সেই প্রশ্ন কি আমাদের মনে একবারও জাগছে?
অথচ কী আশ্চর্য, সচেতন নাগরিক হিসেবে কুরুচিকর যে কোনও ছবি বা মেসেজ পেলে প্রথমেই আমাদের থমকানো উচিত ছিল! অন্যকে ফরোয়ার্ড করার আগে উচিত ছিল নিজের বিবেককে প্রশ্ন করা। কারণ অনেকক্ষেত্রে ভ্রান্ত ভিডিও দেখে অনেকেই ধর্মীয় হানাহানিতেও জড়িয়ে পড়ছেন আমাদের দেশে! আর এর ফায়দা লুটছে কিছু দুষ্ট মানুষ!
তাই আমাদের নিজেদেরকে প্রশ্ন করা শিখতে হবে। বিশেষত, মেসেজ ফরোয়ার্ড করার আগে, সেলিব্রিটির পোস্টে কুরুচিকর মন্তব্য লেখার আগে নিজেকে ফের প্রশ্ন করুন— ‘আমার হাতে কি সত্যিই এত সময় আছে যে এই সমস্ত ফালতু ট্রোল তৈরি করা নিয়ে মাথা ঘামাবো?’
উত্তর যদি ‘হ্যাঁ’ হয়, তাহলে বুঝতে হবে সমস্যা আসলে অনেক গভীরে।
সমস্যা কতটা গভীরে?
প্রথমত, যে ব্যক্তি সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোলিং করার জন্য অনেকটা সময় খরচ করেন, তিনি আসলে নিজের পরিবারকে অনেক কম সময় দিয়ে থাকেন।
দ্বিতীয়ত, সেলিব্রিটিদের নিয়ে বিভিন্ন রকম ট্রোল তৈরি যাঁরা করছেন, তাঁরা সম্ভবত হীনমন্যতায় ভোগেন। মনে মনে ভাবেন কেন তিনি নিজে ওই জীবনযাপন করতে পারেন না! ওই বিলাসব্যসন তাঁরও পাওয়ার কথা ছিল! সেই না পাওয়ার যন্ত্রণা থেকে সেলিব্রিটিদের ট্রোল তৈরি করা এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়ানোর কাজ করতে থাকেন তাঁরা।
বেশ, হীনমন্যতায় ভুগে ট্রোলিং করার কাজ না হয় করলেন। কিন্তু এমন কার্যকলাপের পরিণাম কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারে সেই ব্যাপারে কি একবারও ভেবেছেন?
একটা কথা সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারী মানুষটিকে বুঝতে হবে— ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, হোয়্যাটসঅ্যাপের মতো কৃত্রিম দুনিয়ায় মানুষগুলিকে রক্তমাংসে দেখা না গেলেও, বর্তমানে এই ভার্চুয়াল জগৎই মানুষের সঙ্গে মানুষের অন্যতম যোগাযোগের মাধ্যম হয়ে উঠেছে। অতএব ফেসবুক, হোয়্যাটস অ্যাপের মতো ভার্চুয়াল জগতে পোস্ট করা আপনার একটা খারাপ বাক্য, খারাপ কাজ, প্ররোচনামূলক কথাবার্তা আপনারই চরিত্রের দিকে আঙুল তুলে দিতে পারে! দূরে সরে যেতে পারে খুব কাছের আত্মীয়-স্বজনরা! এমনকী সোশ্যাল মিডিয়ায় আপনার করা মন্তব্যে বা তৈরি করা ফটোশপড ছবির থেকে কেউ মানসিকভাবে আঘাত পেলে এবং তাঁর সামাজিক সম্মান ক্ষুণ্ণ হলে হতে পারে আপনার জেল-হেফাজতও! অতএব এখনই সচেতন ও সতর্ক হন। সোশ্যাল মিডিয়ার যথাযথ ব্যবহার শিখুন। সচেতন থাকুন।
মানসিকতা বদলাতে কী করবেন?
 অসংখ্য ভালো গান শোনা যায়, লেখা পড়া যায় এমন সাইট তৈরি হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেখানে ঢুকে গান শুনুন, লেখা পড়ুন।
 সোশ্যাল মিডিয়ায় ভালো এবং নামী মানুষদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করুন। কথা বলুন। সোশ্যাল মিডিয়া আসলে যোগাযোগ বাড়ানোর মাধ্যম।
 সামাজিক উন্নয়নমূলক কাজগুলি শেয়ার করুন।
 ভালো কাজ দেখলে নিন্দা নয়, প্রশংসা করুন।
 অন্যের সাফল্যে উদ্বুদ্ধ হন। ঈর্ষা করবেন না।
 ভাষার ব্যবহারে সচেতন হন। কারণ এখন সোশ্যালমিডিয়া আমাদের জীবনের অঙ্গ হয়ে গিয়েছে। তাই সোশ্যাল মিডিয়ায় কেমন ভাষা ব্যবহার করছেন তার উপরে নির্ভর করে আপনার সামাজিক ভাবমূর্তি।
কী করবেন না?
 প্রথমেই স্ক্রিন টাইম কমান। অর্থাৎ সারাদিনে কতক্ষণ সোশ্যাল মিডিয়ায় কাটাবেন তা ঠিক করে নিন। যত কম সময় কাটাবেন ততই ভালো আপনার পক্ষে।
 কোনওরকম উস্কানিমূলক পোস্ট দেখলে হুট করে শেয়ার করবেন না। আগে সত্যি মিথ্যে যাচাই করুন। তারপর নিজের বিবেককে প্রশ্ন করুন, এমন ভিডিও বা ছবি ছড়ালে তার থেকে আখেরে বহু নির্দোষ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হবেন কি না? কারণ সোশ্যাল মিডিয়ায় আপনার শেয়ার বা পোস্ট করা ছবি ও ভিডিও আরও অসংখ্য মানুষ শেয়ার এবং পোস্ট করবেন।
 সংযত ভাষায় খারাপ কাজের নিন্দা করতে পারেন। তবে কাউকে ট্রোল করবেন না বিনা কারণে।
 কারও দেওয়া পোস্ট পছন্দ না হলে এড়িয়ে যান।
 কোনও ভুল তথ্য দেখলে সংশোধন করতে পারেন। তবে ভাষা ব্যবহারে সংযত হন।
যাঁরা ট্রোলের শিকার, কী করা উচিত?
যাঁরা ট্রোলের শিকার হচ্ছেন তাঁদের জন্য বলব, ট্রোল নিয়ে বেশি মাথা ঘামাবেন না। মনে রাখবেন, আপনার কাজই আপনার পরিচয়। ভালো কাজ করলে মানুষ মনে রাখবে। খারাপ হলে ভুলে যাবে। তাই আরও বেশি কাজের মধ্যে থাকুন। মনে রাখবেন, যশপ্রার্থী হলে, অপযশও মাঝেমধ্যে সহ্য করতে হয়। আর অপযশের একটাই জবাব— আরও বেশি করে ভালো কাজ করা। খুব সমস্যা হলে কয়েকদিন সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার বন্ধ রাখুন। বড়ধরনের মানসিক সমস্যা হলে মনোবিদের পরামর্শ নিন।
লিখেছেন সুপ্রিয় নায়েক
20th  June, 2019
ডায়েটে জব্দ ডায়াবেটিস 

ডায়াবেটিস হওয়া মানেই কিন্তু খাবার খাওয়া বন্ধ নয়। যদি ডায়াবেটিসে আক্রান্ত মানুষের রক্তে সুগার নিয়ন্ত্রণে থাকে, সেক্ষেত্রে কিছু নিয়ম মেনে সব খাবারই খাওয়া যায়। ডায়াবেটিস রোগীর প্রথম প্রশ্নই থাকে, আলু কি বন্ধ? এর উত্তর, সুগার নর্মাল রেঞ্জে থাকলে দিনে ২০ থেকে ৩০ গ্রাম আলু খেতে পারা যায়।
বিশদ

14th  November, 2019
ডায়াবেটিক ফুট থেকে সাবধান!

‘ইফ ইউ কমিট ওয়ান মিসটেক বাই নট নোইং ইট, দেন ইউ কমিট টেন মিসটেকস বাই নট লুকিং ইনটু ইট।’ অনবদ্য এই কথাটি বলেছিলেন প্রাক্তন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী উইনস্টন চার্চিল। ডায়াবেটিস বা মধুমেহ বা চলতি কথায় সুগার রোগে এই কথাটি খুব গুরুত্বপূর্ণ। 
বিশদ

14th  November, 2019
সুগারে চোখের যত্ন 

ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি কী?
রেটিনা হল চোখের পিছনের ভাগের নার্ভ সমষ্টি। এই অংশই বাইরের আলোকে রূপান্তরিত করে বৈদ্যুতিক সংকেতে। আমাদের মস্তিষ্ক এই সংকেতমালা বিশ্লেষণ করে তৈরি করে চিত্র। এই চিত্রই আমরা দেখি! রেটিনার উপরে অসংখ্য রক্তনালিকা বা ব্লাড ভেসেলস থাকে। 
বিশদ

14th  November, 2019
সুগার কন্ট্রোলে শীতের সব্জি 

ফুলকপি: অনেকেই জানে না যে ফুলকপিতে প্রচুর ভিটামিন সি পাওয়া যায়। এছাড়া আছে ক্যালশিয়াম, পটাশিয়াম, আয়রন, ডায়েটারি ফাইবার এবং ফোলেট। অর্থাৎ সব্জি বা চিকেনের সঙ্গে ফুলকপি খেলে ডায়াবেটিসের ডায়েট হিসেবে অনবদ্য।
বিশদ

14th  November, 2019
ডায়াবেটিসে কিডনির অসুখ 

দেখা গিয়েছে, অন্তত ৩০ থেকে ৪০ শতাংশের বেশি টাইপ ওয়ান বা টাইপ টু ডায়াবেটিক রোগী কিডনির অসুখে ভোগেন। ডায়াবেটিসে কিডনি বিভিন্নভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। ডায়াবেটিক নেফ্রোপ্যাথি ছাড়াও কিডনির সংক্রমণের মাত্রা বেড়ে যায়। 
বিশদ

14th  November, 2019
সুগার থেকে হার্টের অসুখ 

আমেরিকান ডায়াবেটিস সোসাইটির তথ্য বলছে, বিশ্বে রোজ প্রতি ২১ সেকেন্ডে একজন মানুষ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হচ্ছেন। একজন প্রাপ্তবয়স্ক ডায়াবেটিস-আক্রান্ত মানুষের আকস্মিক মৃত্যুর আশঙ্কা একজন সুস্থ মানুষের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ। এই মুহূর্তে প্রতি তিনজন মানুষের মধ্যে একজনের জীবনের কোনও একটি পর্যায়ে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। 
বিশদ

14th  November, 2019
স্ট্রোকের রোগীকে ৪ ঘণ্টার মধ্যে হাসপাতালে আনুন 

চলতি বছরের ৩ নভেম্বর পঞ্চমীর রাতে তীব্র স্ট্রোকে আক্রান্ত হন ৫৮ বছর বয়সি সমীর বন্দ্যোপাধ্যায়। কথা জড়িয়ে যাওয়া, শরীরের ডানদিক বিকল হওয়ার মতো লক্ষণও ফুটে ওঠে তাঁর শরীরে। সেই রাতেই তাঁকে আনা হয় অ্যাপোলো গ্লেনিগলস হাসপাতালে। তৎক্ষণাৎ শুরু হয়ে যায় চিকিৎসা।
বিশদ

07th  November, 2019
ব্রেস্ট ক্যান্সারের লক্ষণ চিনুন 

পরামর্শে হাওড়ার নারায়ণা সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালের কনসালটেন্ট ব্রেস্ট অঙ্কো সার্জেন ডাঃ নেহা চৌধুরী।  বিশদ

07th  November, 2019
নিয়মিত ধ্যান করুন, বলছেন অ্যালোপ্যাথিক চিকিৎসকরাও 

ধ্যান বা মেডিটেশন শব্দটা শুনলেই চোখের সামনে ভেসে উঠে পদ্মাসনে বসে থাকা মুনি-ঋষিদের ছবি। কেননা ধ্যান সম্পর্কে সাধারণ মানুষের ধারণা খুবই কম। আসলে ধ্যান হল এমন একটি উপায়, যার মাধ্যমে মনের উপর নিয়ন্ত্রণ আনা হয়। মনকে প্রশিক্ষিত করা হয়। ধ্যানের মাধ্যমে নতুন ও ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি করা যায়। মানুষের মন সর্বদাই একসঙ্গে অনেক কিছু চিন্তা করে। ধ্যানের মাধ্যমে একটি বিষয়ে মনোনিবেশ করার অভ্যাস তৈরি হয়। কিন্তু, আজকের আধুনিক চিকিৎসাশাস্ত্রে তথা অ্যালোপ্যাথিক চিকিৎসা ব্যবস্থায় ধ্যান কতটা বিজ্ঞানসম্মত? কতটাই বা উপকারী ‘মেডিটেশন ইন মেডিকেশন’? সে বিষয়েই আলোকপাত করছেন তিন ক্ষেত্রের তিন বিশিষ্ট চিকিৎসক। 
বিশদ

07th  November, 2019
ধ্যান করলে কী কী লাভ? 

সমস্ত রোগের উৎস আসলে রিপু। রিপুর আধার হল শরীর। শরীরকে চালনা করে মন। শরীর থেকে মনকে আলাদা করে ফেললেই রিপুর উপর আসবে নিয়ন্ত্রণ! আর মনকে নিয়ন্ত্রণে আনতে প্রয়োজন ধ্যানের অভ্যেস। পরামর্শে যোগবিশারদ প্রেমসুন্দর দাস 
বিশদ

07th  November, 2019
ঘুম না এলে
কী করবেন?

 আমাদের শরীরের ভিতরে রয়েছে কয়েক হাজার ঘড়ি! হার্টের যে কোষগুলি রয়েছে, সেই কোষগুলি নির্দিষ্ট সময় মেনে কাজ করে, একইরকমভাবে লিভার, প্যাংক্রিয়াসের কোষগুলিরও কাজ করার এবং কাজ বন্ধ করার নির্দিষ্ট সময় আছে। বিশদ

31st  October, 2019
 খাবার যখন বিষ!

  নিম্নমানের খাদ্যাভ্যাস আয়ু কমাচ্ছে আমাদের। প্রতিদিন যে নিম্নমানের খাদ্য খাই, তাতে ফি বছর এক কোটিরও বেশি মানুষ প্রাণ হারাচ্ছেন। তাও আবার অকালে। এক চিকিৎসা সাময়িকীতে প্রকাশিত তথ্য থেকে এমনটাই জানা গিয়েছে। ধূমপানের পাশাপাশি রোজকার কিছু খাবারও আমাদের অকালমৃত্যুর পিছনে অনুঘটকের কাজ করে।
বিশদ

31st  October, 2019
বোকাবাক্সে স্মৃতিনাশ!

প্রতিদিন সাড়ে তিন ঘণ্টার বেশি সময় টেলিভিশন দেখলে বয়স্ক মানুষদের স্মৃতিশক্তি কমে যেতে পারে! এমনই জানানো হয়েছে এক গবেষণায়। ৫০ বছরের বেশি বয়সি সাড়ে তিন হাজার মানুষের ওপর বিজ্ঞানীরা এই গবেষণাটি চালিয়েছেন।
বিশদ

31st  October, 2019
বাজি পোড়ানোর সময়
কী কী সাবধানতা নেবেন?

পুজোর সিজন এখন শুরু হয় গণেশপুজো থেকে। বিশ্বকর্মা, দুর্গা, লক্ষ্মী, ছট, কালী হয়ে জগদ্ধাত্রীতে এসে শেষ হয়। প্রতি পুজোতেই এখন কমবেশি বাজি-পটকা ফাটে, কালীপুজোতে যা ভয়ঙ্কর রূপ নেয়।
বিশদ

24th  October, 2019
একনজরে
ইসলামাবাদ, ১৮ নভেম্বর (পিটিআই): ভারতের অগ্নি-২ ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষার একদিন পরেই পাকিস্তান শাহিন-১ নামের একটি ক্ষেপণাস্ত্রের সফল উৎক্ষেপণ করল। ৬৫০ কিলোমিটার দূরের বস্তুকে আঘাতে সক্ষম পাক ক্ষেপণাস্ত্র শাহিন-১। ...

সংবাদদাতা, কান্দি: সোমবার সকালে বড়ঞা থানার বিপ্রশেখর গ্রামে এক প্রৌঢ়ের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ায়। পুলিস জানিয়েছে, মৃতের নাম বাদল দত্ত(৫২)। তিনি ওই গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন।   ...

মাইসুরু, ১৮ নভেম্বর: রবিবার মাইসুরুতে একটি বিয়েবাড়িতে যোগ দিতে গিয়ে আততায়ীর হামলায় গুরুতর জখম হলেন কর্ণাটকের কংগ্রেস বিধায়ক তনভির সাইত। তাঁর উপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায় এক ব্যক্তি। ...

সংবাদদাতা, তারকেশ্বর: পশ্চিমবঙ্গ সরকারের মৎস্য দপ্তরের পক্ষ থেকে ৩৮ জন মাছচাষিকে সোমবার মাছ ও চুন বিতরণ করা হল।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মপ্রার্থীদের কর্মলাভ কিছু বিলম্ব হবে। প্রেম-ভালোবাসায় সাফল্য লাভ ঘটবে। বিবাহযোগ আছে। উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় থেকে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৩৮: সমাজ সংস্কারক কেশবচন্দ্র সেনের জন্ম
১৮৭৭: কবি করুণানিধান বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯১৭: ভারতের তৃতীয় প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর জন্ম
১৯২২: সঙ্গীতকার সলিল চৌধুরির জন্ম
১৯২৮: কুস্তিগীর ও অভিনেতা দারা সিংয়ের জন্ম
১৯৫১: অভিনেত্রী জিনাত আমনের জন্ম 





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৮৪ টাকা ৭২.৫৪ টাকা
পাউন্ড ৯১.০৬ টাকা ৯৪.৩৪ টাকা
ইউরো ৭৭.৮৫ টাকা ৮০.৮১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৫৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৬০৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,১৫৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৪,৪০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৪,৫০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, সপ্তমী ২৪/১১ দিবা ৩/৩৬। অশ্লেষা ৩৮/৩৮ রাত্রি ৯/২২। সূ উ ৫/৫৫/২২, অ ৪/৪৮/২৩, অমৃতযোগ দিবা ৬/৪০ মধ্যে পুনঃ ৭/২৩ গতে ১১/০ মধ্যে। রাত্রি ৭/২৬ গতে ৮/১৯ মধ্যে পুনঃ ৯/১১ গতে ১১/৪৯ মধ্যে পুনঃ ১/৩৪ গতে ৩/১৯ মধ্যে পুনঃ ৫/৫ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৭/১৬ গতে ৮/৩৮ মধ্যে পুনঃ ১২/৪৩ গতে ২/৫ মধ্যে, কালরাত্রি ৬/২৭ গতে ৮/৫ মধ্যে। 
২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, সপ্তমী ১৯/২৬/৫২ দিবা ১/৪৩/৫৬। অশ্লেষা ৩৬/১/৪১ রাত্রি ৮/২১/৫১, সূ উ ৫/৫৭/১১, অ ৪/৪৮/১৯, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫০ মধ্যে ও ৭/৩০ গতে ১১/৬ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২৮ গতে ৮/২১ মধ্যে ও ৯/১৪ গতে ১১/৫৪ মধ্যে ও ১/৪১ গতে ৩/২৮ মধ্যে ও ৫/১৪ গতে ৫/৫৮ মধ্যে, বারবেলা ৭/১৮/৩৬ গতে ৮/৪০/১ মধ্যে, কালবেলা ১২/৪৩/১৫ গতে ২/৫/৪০ মধ্যে, কালরাত্রি ৬/২৭/৪ গতে ৮/৫/৪০ মধ্যে।
২১ রবিয়ল আউয়ল  

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
বুধেরহাটে অ্যাসিড খেয়ে আত্মঘাতী বধূ 
স্বামীর সঙ্গে অশান্তির জেরে অ্যাসিড খেয়ে আত্মঘাতী হলেন এক বধূ। ...বিশদ

06:22:42 PM

মালদহের প্রশাসনিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় 

06:13:00 PM

বিধানসভায় পালিত হবে সংবিধান দিবস 
২৬ এবং ২৭ নভেম্বর রাজ্য বিধানসভায় পালিত হবে সংবিধান দিবস। ...বিশদ

03:59:00 PM

প্রশাসনিক বৈঠকে যোগ দিতে মালদহে পৌঁছলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

03:58:52 PM

ডেঙ্গুতে পাঁচ বছরের এক শিশুকন্যার মৃত্যু 
ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হল পাঁচ বছরের এক শিশুকন্যার। মৃতের ...বিশদ

02:28:49 PM

শিশুদের সঙ্গে মঞ্চে অভিনয়ে নামছেন মদন মিত্র 
শিশুদের নিয়ে এবার নাট্য উৎসবের আয়োজন করতে চলেছেন মদন মিত্র। ...বিশদ

02:22:00 PM