Bartaman Patrika
শরীর ও স্বাস্থ্য
 

অ্যান্টিবায়োটিক মাঝপথে
বন্ধ করলে কী হয়?

পাঁচদিন ওষুধ খেতে বলেছেন ডাক্তারবাবু। আপনি দু’দিন ওষুধ খেয়েই ট্যাবলেট খাওয়া বন্ধ করে দিলেন! অদূর ভবিষ্যতে এর ফলাফল কিন্তু ভয়াবহ হতে পারে। পরামর্শে আর জি কর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের ফার্মাকোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডাঃ অঞ্জন অধিকারী।

 অ্যান্টিবায়োটিক কীভাবে তৈরি হয়?
 দু’টি শব্দ আছে। একটি অ্যান্টিবায়োটিক অন্যটি হল অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল। আমাদের যেমন ঘাম হয় তেমনি ছোট ছোট মাইক্রোদের গা থেকে জলের মতো জিনিস বের হয়। এটা নিজেদের বাঁচার জন্যই ওরা বের করে। এই নিঃসরণ থেকেই ওষুধ বানিয়ে ব্যাকটেরিয়া মারার কাজ করি। অ্যান্টি মাইক্রোবিয়ালের অধীনে অ্যান্টি বায়োটিক, অ্যান্টি ভাইরাল বা অ্যান্টি ফাঙ্গাস সবই পড়ে।
 আচ্ছা। অ্যান্টিবায়োটিকের তো একটা ডোজ আছে। ডাক্তাররা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত খেতে বলেন। যদি তার আগেই রোগ সারে, তাহলেও কি পুরো ডোজ সম্পূর্ণ করতে হবে?
 ডাক্তাররা রোগীর শরীর ও রোগের উপর নির্ভর করেই ওই ডোজ দেন। ব্যাকটেরিয়া সাধারণত দ্রুত দেহে বংশবৃদ্ধি করে। অ্যান্টিবায়োটিক হয় সেটিকে ধ্বংস করে, না হয় তার বংশবৃদ্ধি রোধ করে দেয়। যাতে একটা সময় পরে দেহের সক্ষমতা বা প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার মাধ্যমে সেই ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াকে পরোক্ষে মেরে দেয়। তাই ওই ডোজ সম্পূর্ণ করাটাই উচিত।
 যদি সেই ডোজ সম্পূর্ণ না করি, তবে কী ক্ষতি হতে পারে?
 সেক্ষেত্রে দু’টো জিনিস হতে পারে। প্রথমত ওই ব্যাকটেরিয়া পুরোপুরি ধ্বংস হল না। সেক্ষেত্রে যেগুলি বেঁচে থাকবে, সেগুলি কিন্তু ওই ওষুধের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে ফেলল। ফলে রোগ আবার হবে। কিন্তু তখন ওই অ্যান্টিবায়োটিক আর কাজ করবে না। শুধু তাই নয়, সমগ্র সমাজই এতে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। কারণ, ওই প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পন্ন ব্যাকটেরিয়া হাঁচি, কাশি, কথা বলার মধ্য দিয়ে অন্যের শরীরে ঢুকে যায়। এভাবে জীবাণু ছড়াতে ছড়াতে প্রায় সকলেরই দেহে ব্যাকটেরিয়ার অনুপ্রবেশ ঘটবে। তখন দেখা যাবে ওই এলাকাতেই কারও ক্ষেত্রেই ওই অ্যান্টিবায়োটিক কার্যকর হবে না। দ্বিতীয়ত, ওই ব্যাকটেরিয়া থেকে অন্য কোনও ব্যাকটেরিয়া তৈরি হওয়ার আশঙ্কাও থেকে যায়। এই নতুন ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে কোনও ওষুধ কাজ করতে পারে না। ক্রিটিকাল কেয়ার বা বাচ্চাদের ইউনিটে গেলে দেখতে পাবেন মাঝে মধ্যে কী অসহায় অবস্থা তৈরি হয়। কোনও অ্যান্টি বায়োটিক কাজ করছে না। আসলে, ডোজ কমপ্লিট না করার ক্ষতিটা তখনই হয়তো রোগী বুঝতে পারেন না। বোঝেন অনেক পরে, বিশেষ করে যখন তিনি দেখেন কিডনিটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বা অন্য বড় কিছু হয়েছে।
 অসম্পূর্ণ ডোজ কি কিছুদিন বাদে আবার চালু করা যায়?
 কখনও হয় ঠিকই। যদি দেখা যায় ওই একই ব্যাকটেরিয়া দ্বারা ব্যক্তি সংক্রামিত হয়েছেন। কিন্তু অন্য ধরনের জীবাণু দ্বারা ব্যক্তিটি সংক্রামিত হলে সেই ডোজ চালু করে লাভ নেই। কিন্তু প্রশ্ন হল সমস্যাটা একই কি না। এটা তো কোনও রোগী ধরতে পারবেন না। উপসর্গ বোঝা সাধারণ মানুষের কাজ নয়। মানুষ জ্বর বাড়ছে না কমছে, পেটে ব্যথা হচ্ছে কি না, সেটা বুঝতে পারে। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে কী তফাৎ সেটা তাঁরা ধরতে পারবেন না। তাই ওষুধ হঠাৎ বন্ধের পর শরীর ফের খারাপ হলে ডাক্তারের পরামর্শ নিতেই হবে।
 অ্যান্টিবায়োটিকের ক্ষেত্রে যে কথা বললেন, তা কি যে কোনও ওষুধের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য?
 না সব ওষুধের ক্ষেত্রে একই কথা প্রযোজ্য নয়। নন কমিউনিকেবল রোগ যেমন হাইপারটেনশন, ডায়াবেটিসের মতো রোগের ক্ষেত্রে ওষুধ নিয়মিত খাওয়া উচিত। লাইফ স্টাইল ঠিক রাখতে হয়। এগুলি কিন্তু দীর্ঘকালীন প্রক্রিয়া। তাই ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া মাঝপথে ওষুধ ছাড়াও উচিত নয়, মাত্রাও পরিবর্তন করা উচিত নয়। তবে সাধারণ সংক্রমণ বা জ্বরের মতো রোগের ক্ষেত্রে এই শর্ত প্রযোজ্য নয়। বরং বলাই হয়, এটা হলে তবেই খাবেন। যেমন বলা হয়, জ্বর এলে তবেই এটা দেবেন। কাশি হলে কাফ সিরাপ খাও।
 আমরা তো সাধারণ নানাবিধ রোগের জন্য দোকান থেকে ওষুধ কিনি। অথবা কেউ কেউ বলেও দেন এই ওষুধটা ব্যবহার করুন, রোগ সেরে যাবে। এই অভ্যেস কতটা বিজ্ঞানসম্মত?
 একেবারেই বিজ্ঞানসম্মত নয়। যিনি দিচ্ছেন তিনি হয়তো ভালোর জন্যই দিচ্ছেন। কিন্তু এতে হিতে বিপরীত হতে পারে। আমরা হয়তো পয়সা বাঁচানোর জন্য ডাক্তার এড়িয়ে যাই। কিন্তু এই অভ্যেস ক্ষতিই করে। কারণ মনে রাখা দরকার সব কিছুতেই বিশেষজ্ঞ রয়েছেন। তাই আদতে কী রোগ হয়েছে সেটা আমরা সঠিকভাবে না বুঝেই ওষুধ খেয়ে ফেলি। দোকানদার রোগীর মুখের কথা শুনে একটা ওষুধ দিয়ে দেন। গায়ে ব্যথা হচ্ছে শুনে, হয়তো বিশেষ গোত্রের বেদনানাশক দিয়ে দিলেন। সেই ওষুধ খেয়ে আপনার ব্যথা কমে গেল! কিন্তু কেউ জানলই না, ওই ব্যথার আসল কারণ হয়ত কিডনিতে সমস্যার কারণে। ফলে ব্যথা কমে গেল, কিন্তু মূল সমস্যাটা রয়ে গেল। এভাবে দিনের পর দিন ধরে বেদনানাশক খেয়ে উপসর্গ কমানো হল, কিন্তু মূল সমস্যাটা আয়ত্ত্বের বাইরে চলে গেল। ফলে রোগীর যখন প্রকৃতপক্ষেই কিডনির সমস্যা হয়তো যখন জানবে তখন অনেক দেরি হয়ে গিয়েছে। তাই না জেনেই ওই ওষুধ দিলে পরোক্ষে ক্ষতিই হয়ে যায়।
 আচ্ছা একাধিক অ্যান্টিবায়োটিক কি একসঙ্গে খাওয়া যায়?
 হ্যাঁ, খাওয়া তো যেতেই পারে। প্রয়োজন পড়লে দেওয়া হয়ও। একাধিক অঙ্গের প্রয়োজনে একাধিক অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হয়। আবার দেখা যায়, রোগীকে একটা ওষুধ দিয়ে বাঁচানো যাবে না। তখন দ্বিতীয় অ্যান্টিবায়োটিক যোগ করা হয়। তবে সবটাই হয় রোগীকে পরীক্ষা করে।
 অনেক সময়ই দেখা যায় ডাক্তারবাবু অ্যান্টিবায়োটিক পাল্টে দিলেন বা মাত্রা বাড়িয়ে দিলেন...
 দেখুন, চিকিৎসা বিজ্ঞান ধারাবাহিক প্রক্রিয়া। মূল্যায়ণ করতে হয়। আমরা রোগীকে পরীক্ষা করে জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা দিয়ে একটা অ্যান্টিবায়োটিক দিলাম। কিন্তু তার সঙ্গে কয়েকটা পরীক্ষাও দিলাম। এর ফলে চিকিৎসক রোগীর অসুখ সম্পর্কে ভাবনাটা ঠিক কি না, তা মিলিয়ে নিতে পারেন। এটা একটা পুনর্মূল্যায়নের বিষয়। কিন্তু আবার বলছি, এই ডোজ বা ওষুধ পরিবর্তনের যৌক্তিকতা রয়েছে। দেখবেন, ডাক্তারবাবু হয়তো প্রথমে ৫০০ এমএল ডোজের ওষুধ দিলেন। কিন্তু পরে তিনিই বললেন ১০০০ খাও। সবটাই রোগ আর রোগীর উপর নির্ভর করে। কিন্তু রোগী নিজে থেকে কম ডোজ খেল বা সময় কমালো, সেটা ঠিক নয়।
 একই গ্রুপের সব অ্যান্টিবায়োটিকের গুণগত মান এক?
 হিসেব মতো এক হওয়ার কথা। কিন্তু আমাদের দেশে গুণগত মান নিশ্চিত করা কঠিন। তার উপর ওষুধের দাম নিয়ে লড়াই করতে গিয়ে দেখা যাবে জাল ওষুধ বিক্রি হচ্ছে, কম গুণের ওষুধ বিক্রি হচ্ছে। তাই দেখবেন অনেক সময় একটা অ্যান্টিবায়োটিক ভালো কাজ দিয়েছে। কারণ সেটার গুণগত মান ভালো। কিন্তু অন্য ওষুধটা তেমন কাজ দিচ্ছে না।
 ঘন ঘন বা যখন তখন অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়াটা কি ঠিক?
 অযথা ওষুধ খাওয়াই ঠিক নয়। দোকানদার বা লোকের পরামর্শ মেনে ওষুধ না খেয়ে ডাক্তারের কথা শোনা উচিত। নিজের ডাক্তারি নিজে করা ঠিক নয়। অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়া তো উচিত নয়ই। এমনিতেই খুব কম সংখ্যক অ্যান্টিবায়োটিক আমাদের হাতে রয়েছে। তার উপর যথেচ্ছ এবং ভুল পদ্ধতিতে অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহারের ফলে বহু অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী জীবাণু তৈরি হচ্ছে। তাই বিশ্বে অ্যান্টিবায়োটিকের সংখ্যাও ক্রমশ কমে আসছে। তাই বারবার বলা হচ্ছে, খুব প্রয়োজন না হলে অ্যান্টি বায়োটিক ব্যবহার করবেন না। এখন মানুষের সচেতনতাই আমাদের ভরসা।
সাক্ষাৎকার প্রীতম দাশগুপ্ত
13th  June, 2019
বর্ষার জ্বর-সর্দি-কাশিতে অব্যর্থ
হোমিওপ্যাথিক দাওয়াই

পরামর্শে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হোমিওপ্যাথির পেডিয়াট্রিক এবং অ্যানাটমি বিভাগের প্রধান ডাঃ গৌতম আশ: বর্ষা মানে তীব্র দাবদাহের পর একরাশ স্বস্তি। তাই গোটা গ্রীষ্ম জুড়ে রাজ্যবাসী তাকিয়ে থাকে বর্ষার আশায়। তবে এই বছর পশ্চিমবঙ্গে বর্ষা দ্বৈত নীতি নিয়ে এসেছে। বিশদ

16th  August, 2019
সহজে বসের নজরে
আসবেন কীভাবে?

হার্ডওয়ার্ক আর কাজের প্রতি প্যাশন থাকলে তবেই সাফল্যের শিখর ছোঁওয়া যায়। একথা সবাই জানে। তবে শুধু পরিশ্রম করলেই তো চলবে না, আপনার যে ঘাম ঝরছে, তা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজরে আসাও দরকার। না হলে দেখবেন আপনি শুধু কাজ করে যাচ্ছেন, আর অন্যরা প্রমোশন পাচ্ছেন।
বিশদ

16th  August, 2019
ঘিয়ের উপকারিতায়
কমবে রোগের প্রকোপ

গরম ভাতে ঘি খেতে চায় না এমন বাঙালি খুঁজে বের করাই ভার। কিন্তু এখন শরীর-স্বাস্থ্য ঠিক রাখার দায়ে অনেকেই ঘি-কে খাদ্যতালিকা থেকে বাদ দিয়েছেন। তবে হালের এক সমীক্ষা অনুযায়ী দেখা গিয়েছে, প্রতিদিন পরিমিত ঘি খেলে উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবিটিসের মতো সমস্যা কমে।
বিশদ

16th  August, 2019
এবার মস্তিষ্ক থেকে মুছে
ফেলা যাবে বাজে স্মৃতি

প্রেম ভেঙেছে বলে কষ্ট পাচ্ছেন। এবার পরিত্রানের উপায় রয়েছে নিজের হাতেই। ইচ্ছেমতো মুছে ফেলা সম্ভব পুরোনো বাজে স্মৃতি। কী ভাবছেন সায়েন্স ফিকশন ছবির গল্প? একেবারেই নয়। এবার সত্যিই এই অসাধ্যসাধন সম্ভব। সম্প্রতি এক গবেষণার তথ্য অনুযায়ী চিন্তার বদল ঘটিয়ে মস্তিষ্কে থাকা বাজে স্মৃতি মুছে ফেলা সম্ভব।
বিশদ

16th  August, 2019
ডেঙ্গুতে পেঁপে পাতা
কতটা উপকারী?

 ডেঙ্গু অসুখটিকে আয়ুর্বেদ শাস্ত্রের বহু জায়গায় দণ্ডকজ্বর নামে অভিহিত করা হয়েছে। মুশকিল হল, ডেঙ্গু রোগে আক্রান্তের শারীরিক পরিস্থিতি কেমন হবে তা নির্ভর করে তাঁর রোগ-প্রতিরোধী ক্ষমতার উপর। দেখা গিয়েছে, যাঁর ইমিউনিটি কম, তাঁর ক্ষেত্রে ডেঙ্গু ভাইরাসের আক্রমণের প্রভাবও বেশি।
বিশদ

15th  August, 2019
 প্রবীণদের জন্য
‘টাইম ব্যাঙ্ক’

 ডাঃ ধীরেশ কুমার চৌধুরী ( জেরিয়াট্রিশিয়ান): ‘হেথা নাই কো মৃত্যু নাই কো জরা’ গানের কথাগুলো যতই শুনতে ভালো লাগুক, রূঢ় বাস্তবে তো এই দুটিই অনিবার্য। তাই বরং আমাদের লক্ষ্য হওয়া উচিত বয়সকালে কীভাবে নিজেকে ভালো ও সুরক্ষিত রাখা যায়, সেই বিষয়ে পরিকল্পনা নেওয়া। কিন্তু এই ভাবনা বা পরিকল্পনা করতে হবে অনেক আগে থেকেই।
বিশদ

15th  August, 2019
 এএসজি আই হাসপাতালে আধুনিক অপারেশন থিয়েটার

  তিন বছর পূর্ণ করল এএসজি আই হাসপাতালের কলকাতা শাখা। এই উপলক্ষে সংস্থার পক্ষ থেকে মডিউলার অপথ্যালমিক অপারেশন থিয়েটারের উদ্বোধন করা হয়। সংস্থার তরফে জানানো হয়, ২০০৫ সালে দিল্লি এইএমস-এর দুই চক্ষু চিকিৎসক ডাঃ অরুণ সিংভি এবং ডাঃ শশাঙ্ক গ্যাঙ্গ নিজেদের প্রচেষ্টায় রাজস্থানের যোধপুরে এএসজি আই হসপিটাল চালু করেন।
বিশদ

08th  August, 2019
মহর্ষি চরকের জন্মদিবস উদ্‌যাপন

 আয়ুর্বেদ-এর অন্যতম জনক মহর্ষি চরক। তাঁর রচিত ‘চরক সংহিতা’ আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে অন্যতম মূল্যবান গ্রন্থ। বিশদ

08th  August, 2019
হাত মেলাল নিউবার্গ ডায়গনস্টিক এবং সি-ক্যাম্প

  কেন্দ্রীয় সরকারের বায়োটেকনোলজি ডিপার্টমেন্টের উদ্যোগে তৈরি সেন্টার ফর সেলুলার অ্যান্ড মলিকিউলার প্ল্যাটফর্মস (সি-ক্যাম্প)-এর সঙ্গে হাত মেলাল নিউবার্গ ডায়গনস্টিক প্রাইভেট লিমিটেড।
বিশদ

08th  August, 2019
 মাইক্রোসফট-অ্যাপোলোর যৌথ উদ্যোগ

ভারতে ২৫ থেকে ৬৯ বছর বয়সি যত মানুষের প্রাণহানি ঘটে, তার মধ্যে ২৫ শতাংশই ঘটে হার্টের রোগের কারণে। বিশেষ করে ইউরোপিয়ানদের তুলনায় ভারতীয়রা আক্রান্ত হচ্ছেন প্রায় এক দশক আগেই!
বিশদ

08th  August, 2019
শিশুকে কেন মায়ের দুধ খাওয়ানো উচিত?

পরামর্শে এনআরএস মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নিওনেটাল ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট ও স্পেশাল নিউ বর্ন কেয়ার ইউনিটের প্রধান ডাঃ অসীম মল্লিক এবং চিকিৎসক ও স্নাতকোত্তর ছাত্র ডাঃ অমিত রায়।
বিশদ

08th  August, 2019
 অঙ্গ প্রতিস্থাপনে এগচ্ছে বাংলা

  ‘বেঙ্গল হ্যাস দ্য হার্ট টু ডোনেট অর্গানস’ (অঙ্গদান করার জন্য বাংলার হৃদয় তৈরি) শীর্ষক এক আলোচনা চক্রের আয়োজন করেছিল কলকাতার আনন্দপুরের ফর্টিস হাসপাতাল। সেই আলোচনার উদ্দেশ্য ছিল মানুষকে অঙ্গদানে আরও বেশি করে উৎসাহিত করে তোলা, বিশেষ করে হার্ট প্রতিস্থাপনের ক্ষেত্রে।
বিশদ

01st  August, 2019
 নিউটাউনে এইচসিজি ইকো ক্যান্সার সেন্টারের উদ্বোধন

  উদ্বোধন হয়ে গেল এইচসিজি ইকো ক্যান্সার সেন্টারের। এইচসিজি এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড এবং ইকো ডায়াগনস্টিক প্রাইভেট লিমিটেডের মিলিত উদ্যোগে নিউটাউনে শুরু হল এই ক্যান্সার হাসপাতালের পথ চলা।
বিশদ

01st  August, 2019
 সেলস রিপ্রেজেন্টেটিভসদের দাবি

 অল ওয়েস্ট বেঙ্গল সেলস রিপ্রেজেন্টেটিভস ইউনিয়নের পক্ষ থেকে ৪৫তম প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষ্যে কলকাতায় একটি সভার আয়োজন করা হয়েছিল। এই সভায় তথ্য প্রযুক্তি গবেষক শঙ্খদীপ ভট্টাচার্য ‘ধনতন্ত্রে যন্ত্র-বুদ্ধি’ নামক বিষয়ে আলোচনা করেন।
বিশদ

01st  August, 2019
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: গোটা বিশ্বেই মধ্যবিত্ত শ্রেণী বাড়ছে দ্রুত। নতুন প্রজন্ম অর্থ উপার্জন করছে বলেই এই শ্রেণীর বাড়বাড়ন্ত। সরকারেরও উচিত তাদের কাজের সুযোগ করে দেওয়া। সেই কারণেই সরকার যতটা পেনশন খাতে খরচ করে, তার চেয়ে গুরুত্ব দেওয়া উচিত শিক্ষা খাতে ...

সংবাদদাতা, বসিরহাট: ভ্যাপসা গুমোট গরমের শেষে একটানা বৃষ্টির স্বস্তি এখন অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে বসিরহাট পুরসভা এলাকায়। বেশিরভাগ ওয়ার্ডের রাস্তাঘাট, ঘরবাড়ি জলের তলায়। বাসিন্দাদের অভিযোগ, ...

করাচি, ১৭ আগস্ট (পিটিআই): পাকিস্তানের বালুচিস্তান প্রদেশের একটি মসজিদে বিস্ফোরণে মৃত্যু হল পাঁচজনের। এঁদের মধ্যে রয়েছেন শীর্ষ তালিবান নেতা মুল্লা হাইবাতুল্লার ভাই হাফিজ আহমাদুল্লা। কোয়েত্তা থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে কুচলক এলাকায় রয়েছে শেখ হাইবাতুল্লা মাদ্রাসা। ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া: শুধু হাওড়া শহর সংলগ্ন এলাকায় নয়, হাওড়া জেলার প্রত্যন্ত এলাকায় এবার শিল্প স্থাপনে উদ্যোগী হল রাজ্য সরকার। তার জন্য উদয়নারায়ণপুরের কান্দুয়ায় ৪০০ একর জমি বাছা হয়েছে। তার মধ্যে ১৭০ একর জমি কেনাও হয়ে গিয়েছে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

হঠাৎ জেদ বা রাগের বশে কোনও সিদ্ধান্ত না নেওয়া শ্রেয়। প্রেম-প্রীতির যোগ বর্তমান। প্রীতির বন্ধন ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯০০: রাজনীতিক বিজয়লক্ষ্মী পণ্ডিতের জন্ম
১৯৩৬: গীতিকার ও পরিচালক গুলজারের জন্ম
১৯৫৮: ইংলিশ চ্যানেল অতিক্রম করলেন প্রথম এশীয় ব্রজেন দাস
১৯৮০: সঙ্গীতশিল্পী দেবব্রত বিশ্বাসের মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৫৯ টাকা ৭২.২৯ টাকা
পাউন্ড ৮৪.৮১ টাকা ৮৭.৯৪ টাকা
ইউরো ৭৭.৮৩ টাকা ৮০.৭৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
17th  August, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,২৪৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,২৮৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৬,৮৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৩,৯০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৪,০০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১ ভাদ্র ১৪২৬, ১৮ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, তৃতীয়া ৪৯/৪৯ রাত্রি ১/১৪। পূর্বভাদ্রপদ ২৯/২ অপঃ ৪/৫৫। সূ উ ৫/১৮/২, অ ৬/৩/১৪, অমৃতযোগ দিবা ৬/৯ গতে ৯/৩৩ মধ্যে। রাত্রি ৭/৩২ গতে ৯/২ মধ্যে, বারবেলা ১০/৫ গতে ১/১৬ মধ্যে, কালরাত্রি ১/৫ গতে ২/৩০ মধ্যে।
৩২ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৮ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, তৃতীয়া ৪৩/৯/৬ রাত্রি ১০/৩২/৩৬। পূর্বভাদ্রপদনক্ষত্র ২৬/১/৪১ দিবা ৩/৪১/৩৮, সূ উ ৫/১৬/৫৮, অ ৬/৫/৪৬, অমৃতযোগ দিবা ৬/১২ গতে ৯/৩১ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২২ গতে ৮/৫৪ মধ্যে, বারবেলা ১০/৫/১৬ গতে ১১/৪১/২২ মধ্যে, কালবেলা ১১/৪১/২২ গতে ১/১৭/২৮ মধ্যে, কালরাত্রি ১/৫/১৬ গতে ২/২৯/১০ মধ্যে।
 ১৬ জেলহজ্জ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
নেতাজিনগরে ২টি অটোর সংঘর্ষ, জখম মহিলা 

08:31:00 PM

বেনিয়াপুকুরে তরুণীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার 

06:21:00 PM

পানিহাটিতে গঙ্গায় ডুবে যাওয়া যুবকের দেহ উদ্ধার 

05:49:00 PM

পানিহাটিতে গঙ্গায় ডুবে যাওয়া যুবকের দেহ উদ্ধার 

05:46:00 PM

তপসিয়ায় বহুতলে আগুন, দমকলের ১টি ইঞ্জিনের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে 

05:43:00 PM

শেক্সপিয়র সরণীর ঘটনায় ধৃতের পুলিস হেফাজত 
শেক্সপিয়র সরণীর ঘটনায় ২৯ আগস্ট পর্যন্ত ধৃতের পুলিস হেফাজত। ...বিশদ

04:09:25 PM