গল্পের পাতা
 

ভা লো মা নু ষ - ম ন্দ মা নু ষ
ভয় দেখাতেন বংশীচন্দ্র

পর্ব-১৭ 
অমর মিত্র: বংশীবাবুর বাড়ি তফাবনি কিংবা কুলবনি। বাঁকুড়া। তিনি সম্পন্ন গেরস্ত। জমি আছে। ছেলে ইস্কুল টিচার। ভালই বেতন। তাঁর জমির ধারে ঝোরা আছে। ফলে অসেচ এলাকার জমি সেচসেবিত হয়ে গেছে। ঝোরার বিস্তৃতি সামান্য, কিন্তু সারা বছর তিরতিরে জল থাকে। এপার ওপার দুই পারে তাঁর জমি। তখন হাতির উপদ্রব ছিল না। জঙ্গল গভীর ছিল। আমি পঁচিশ বছর আগের কথা বলছি। পঁচিশ বছর আগে বংশীবাবুর সঙ্গে আমার দেখা হয়েছিল বড়জোড়ায়। বড়জোড়া দুর্গাপুর বাঁকুড়া মহাসড়কের ধারে এক গঞ্জ। সেই গঞ্জে বংশীবাবুর অফিস। ভূমি সংস্কার দপ্তরের বড়বাবু। কৃষ্ণকায় গোলগাল মানুষ। মাথাভর্তি ঘন কালো চুল। তখন তাঁর বয়স বছর পঞ্চাশ। শাদা ধুতি আর শার্ট পরেন। প্রতিদিন এগারটায় অফিসে ঢোকেন। তারপর জল খাওয়া, চা খাওয়া, এর ওর খবর নেওয়া, খবর দেওয়া করতে করতে বেলা বারোটা। মধ্যে দশ মিনিটের জন্য অফিসারের ঘরে ঢোকেন। গুড মর্নিং স্যার, বেলিয়াতোড় থেকে বড়জোড়া রাস্তাটা এত খারাপ হয়েছে যে একটা বড় কিছু না হয়ে যায় না।
বড় কিছু মানে ? তরুণ অফিসার একটু উদ্বিগ্ন হয়ে জিজ্ঞেস করেন।
অ্যাকসিডেন্ট, বাস না উলটে যায় না, আপনি বড়জোড়ায় বাসা নিন।
কলকাতার মানুষ অফিসার বাসা নিয়ে একা থাকেন বেলিয়াতোড়। বেলিয়াতোড় থেকে বড়জোড়া বাসে মিনিট কুড়ি। বংশীবাবু আসেন যে তফাবনি থেকে, তাঁকেও আসতে হয় বেলিয়াতোড় হয়ে একই পথে। নিজের বাস উল্টোবে না, অফিসারের বাস উলটে যাওয়ার সম্ভাবনা যথেষ্ট ? সেই কথা জিজ্ঞেস করলে, তিনি বললেন, তাঁর যা ছিল সব পঞ্চাশ বছরের আগে। মহাজ্যোতিষী বলেছেন। আর কোষ্টী গণনায়ও তা আছে। বছর পঁয়তাল্লিশে তিনি দিল্লি যাচ্ছিলেন কালকা মেলে। গাড়ি কোথায় একটা লাইন চ্যুত হয়েছিল। খুব বাঁচা বেঁচে গিয়েছিলেন। একটা দিন খুব হয়রানি হয়েছিল। সেই গেছে ফাঁড়া। আর একবার, যখন তাঁর আটচল্লিশ, বছর তিন আগে ট্যাক্সি ধাক্কা মেরেছিল গাছে। তাঁর কিছু হয়নি। আপনার একটু সাবধান হওয়া উচিত, বছর চল্লিশ কিন্তু খুব ঝুঁকির বয়স।
বংশীবাবুর কথা শুনে আর এক ক্লার্ক লিয়াকত আলি ্বলল, আপনি ভয় দেখাচ্ছেন কেন স্যারকে, আপনার গাড়ির কিছু হবে না, স্যারের গাড়ির হবে।
বংশীবাবু বললেন, চান্স আছে, হবেই যে এমন কথা বলছি না, হতেও পারে।
বংশীচরণ চক্রবর্তী মশায় সব সময় ভয় দেখাতেন। ভয় দেখানই তাঁর অভ্যাস ছিল। সব কিছুই বক্র দৃষ্টিতে দেখতেন। মন্দ দৃষ্টিতে দেখতেন সব কিছুকেই। কোনো কিছুই ভালো না। কোনো কিছুর সম্ভাবনাই ভালো না। কেউ যদি কিছু করতে যায়, তার পতন অবসম্ভাবী। বংশীবাবু ছিলেন এমন। অথচ মানুষটি খারাপ নন। খারাপ নন মানে ঘুষ নিতেন না, কাউকে ফেরাতেন না। কিন্তু অনুগ্রহ প্রার্থীকে প্রথমেই বলতেন, দেখি সে ফাইল খুঁজে পাই কি না, কিংবা দেখি তোমার জমির পরচা খতিয়ান ইঁদুরে কাটল কি না। বুঝলে তো এই অফিসে ইঁদুর আর উই দুইই আছে, আর তাদের কাজ কাগজ খাওয়া।
লোকটি তো ভয় পেয়েছে খুব। ভয় পাবেই। সে তার জমি বিক্রি করবে বলেই পরচার কপি তুলতে এসেছে। এই সব বলে বংশীচন্দ্র কিন্তু ডি-গ্রুপ কর্মচারীকে বললেন ফুলডিহি মৌজার জমির রেকর্ড নিয়ে আসতে। ডি-গ্রুপ কর্মচারীকে অর্ডার করে আবার চাষীটিকে বললেন, বললাম তো, কিন্তু পাওয়া যাবে বলে সন্দেহ, এতদিন নাওনি কেন ?
কী বলবে সে? হাত কচলাতে থাকে। আধঘন্টার উপর হয়ে গেল। রেকর্ড আসেনি। খুঁজছে রেকর্ড কিপার। এই আধঘন্টা সেই গ্রাম্য মানুষটির কাছে ভয়ানক হয়ে উঠল। সামনের চেয়ারে বসিয়ে নিজের পয়সায় তাকে চা খাওয়াতে খাওয়াতে বংশীবাবু বলে যাচ্ছেন, যদি পরচা না পাওয়া যায়, তবে তার সমূহ বিপদ। কী বিপদ, না সে জমি বেচতে পারবে না। জমি যদি অন্য কেউ দখল করে নেয়, তাহলে জমি ফেরত পেতে তো অসুবিধে হবে। পরচা দেখাতে হবে তো সরকারি আমিনকে। কী দেখাবে? লোকটির পর্চা ছিল। তা সে হারিয়েছে। তার চোখে প্রায় জল এসে গেল। তখন রেকর্ড এল বংশীবাবুর টেবিলে। তিনি বললেন, তোমার কপাল খুব ভালো, পেয়ে গেলে, পাওয়ার কথা নয় তবু পেলে।
এই হলেন বংশীচন্দ্র। তাঁর অফিসের কর্তা যে কাজই করতে যান, যে সিদ্ধান্ত নিতে যান, শুনলেই বংশীচন্দ্র বলবেন,ভেবে চিন্তে সিদ্ধান্ত নেবেন স্যার, দেখবেন পরে আপনার পেনশন আটকে না যায়! অদ্ভুত কথা। অফিসার অবসর নেবেন আরো কুড়ি বছর পরে। সেই কথা স্মরণ করিয়ে বংশীচন্দ্র তাঁকে সাবধান করছেন। তিনি দামোদর নদ এ তদন্ত করাতে তিনজনকে পাঠাচ্ছেন। নদী থেকে যথেচ্ছ বালি তুলে পাচার করে দিচ্ছে দুর্গাপুরের এক বালি ব্যবসায়ী। তদন্ত করতে বলেছে হেড অফিস। কিন্তু বংশীচন্দ্র বলছেন, বালি ব্যবসায়ী নরহরি যাদবের হাত অনেক দূর। তার বিরুদ্ধে রিপোর্ট করলে বিপদ হতে পারে। কিন্তু মিথ্যে রিপোর্ট কি দেওয়া যায়? না স্যার, তাহলেও পেনশন নিয়ে সমস্যা হতে পারে। প্রমোশনও পিছিয়ে যেতে পারে। অফিসার ভয় পান না। বলেন, হলে আর কী হবে?
বংশীচন্দ্র উদাহরণ দেন, অজিত মুখার্জি মশায়ের। তিনি ঠিক কাজ করে উত্তরবঙ্গ বদলি হয়ে গিয়েছিলেন। আবার নিমাই পালিত সারা জীবন ঠিক কাজ করে একবার তাঁর উপরওয়ালার মর্জি মতো কাজ করতে গিয়ে সাসপেন্ড। উপরওয়ালা তো দায়ই নিলেন না। সরকারি চাকরি খুব রিস্কি স্যার। যা করবেন ভেবে চিন্তে করবেন। যা করবেন না, তাও ভেবে চিন্তে করবেন। এই সেদিন বাঁকুড়া যাওয়ার পথে বড়জোড়া পার হলাম। বংশীচন্দ্রের কথা মনে পড়ল। ভয় দেখিয়ে খুব আনন্দ হতো তাঁর। সেই সময় ভয় পাইনি আমি তাই একটু দুঃখে ছিলেন বংশীচন্দ্র। সেই দুঃখটিকে আমি টের পাই এখনও।
অলংকরণ: সোমনাথ পাল
23rd  April, 2017
কবির পুরস্কার
চন্দন চক্রবর্তী

‘কি হল! সকালবেলাতেই বিছানায় বসে কবিতার জাবর কাটছ!’ দুখিরাম তখন কবিতার ডায়েরিটা খুলে সবে বসেছে। গতকাল রাতে একটু বৈশাখী ঝড়, টুপুর টুপুর বৃষ্টি হয়েছে। সকালের মেঘেও নরম খবর। দুখিরামের স্ত্রী সতী রকম সকম দেখে কথাটা বলে দাঁড়ায়। গলায় শ্লেষ এনে বলে!
বিশদ

22nd  October, 2017
ফুটবল ঘিরে জেগে উঠেছে এক বুক স্বপ্ন

কলকাতা এমনই এক জা‌য়গা যেখানে ভারত বা কলকাতার কোনও দলের খেলা থাকলে দর্শকের ভিড়ে মাঠ উপচে পড়ে, কিন্তু বিদেশি খেলায় উৎসাহ থাকে অনেকটাই স্তিমিত। এবারে কিন্তু তার উজ্জ্বল ব্যতিক্রম। লিখেছেন সুকুমার সমাজপতি। বিশদ

15th  October, 2017
বনানীগড়ের ঝগড়ামহল
রতনতনু ঘাটী

সে রাজ্যের নাম বনানীগড়। সে এক ভারী মজার রাজ্য। তার দক্ষিণ দিকে একটা মস্ত উঁচু পাহাড়। উত্তর দিকে ধু ধু মরুভূমি। পুব দিকে বিরাট সাগর। আর পশ্চিম দিকে দিগন্তের পর দিগন্তে মিশে যাওয়া আকাশ। রাজা না থাকলে কি আর রাজ্য হয় নাকি? তাই সে রাজ্যেরও একজন রাজাআছেন। তাঁর নাম পক্ষীকেতু। সেই রাজার রানিও আছেন একজন। তাঁর নাম কুসুমকান্তা।
বিশদ

15th  October, 2017
লোকনাথজির কৃপায় মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এলেন নিশিকান্ত বসু 

অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়
পর্ব-২৬
ডাক্তার নিশিকান্ত বসু, বিএসএমডি। পিতা রজনীকান্ত বসু। মাতা রাজকুমারী বসু। অধুনা বাংলাদেশের বারদীর বড় জমিদার স্বর্গীয় কালীকিশোর নাগ মহাশয়ের কনিষ্ঠা কন্যা ছিলেন রাজকুমারী দেবী। বিশদ

08th  October, 2017
ভা লো মা নু ষ - ম ন্দ মা নু ষ: পর্ব-২৮
ভুবন ভরা জালিয়াত 

অমর মিত্র: টাকার জন্য, জমির জন্য, সম্পত্তির জন্য মানুষ কী না পারে? আমাদের দেশটি ভাগই হয়েছিল স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তির মালিকানা এবং শাসন ক্ষমতা অধিকারের জন্য। সম্পত্তি এখানে ক্ষমতা। দেশ শাসন করবে কে? কোন দল? ক্ষমতাই সমস্ত কিছু করায়ত্ত করার মূল।
বিশদ

08th  October, 2017
আগন্তুক 

পার্থ বন্দ্যোপাধ্যায়: হাঁসফাঁস করা গরম। একটু স্বস্তির জন্য ট্রেনের ভিতর থেকে দরজার কাছে এসে দাঁড়িয়ে ছিল অলোকনাথ। বারাসত স্টেশনে ট্রেনটা থামতেই দু-দ্দাড় করে উঠে এল ১০-১২ জন যুবক। বিশদ

08th  October, 2017
অন্নদাসুন্দরী
দীপান্বিতা মিত্র

 পুরানো দিনের বাড়ি, লম্বা লম্বা বারান্দা পেরিয়ে যে ঘরটার সামনে আমাকে দাঁড় করানো হল সেটি হল ‘দিদির ঘর’। তখনও জানতাম না, কে এই দিদি। ঘোমটার ফাঁক দিয়ে দেখলাম প্রকাণ্ড একটা পালঙ্কের উপর দুধ সাদা থান পরে এক মহিলা বসে আছেন, যার চারপাশ দিয়ে যেন জ্যোতি বের হচ্ছে। বেশ ফর্সা, দোহারা চেহারা, মাথার চুল খাটো করে কাটা, দুটি প্রকাণ্ড চোখ নিয়ে আমার দিকে স্থির দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছেন, আমি ধীর পায়ে ঘরে প্রবেশ করে তাঁকে প্রণাম করলাম। ওই পরিচয়ের শুরু.... তারপর আজ ষোলো বছর ধরে তার অস্তিত্বকে অস্বীকার করার ক্ষমতা আমার হয়নি। বিশদ

27th  September, 2017
পিতা পুত্র
শান্তনু বসু

 জেনেতুন্নেসা বেগমের করুণ আর্তনাদ শেলের মতো এসে বিঁধছে বিজয় সিংয়ের অন্তরে, অপরাধবোধ যেন কুরে কুরে খাচ্ছে তাঁকে। নবাবের মৃত্যুর সব দায়ই যেন তাঁর। অথচ তিনি তো যুদ্ধ করছিলেন অন্যদিকে। নিষেধ না শুনে সামনে অনেকটা এগিয়ে গিয়েছিলেন সরফরাজ খাঁ। ভুল কৌশলে নিজের বিপদ নবাব নিজেই ডেকে এনেছিলেন। একথা যে বিজয় সিং জানেন না তা নয়। তবুও অপরাধবোধ, আত্মধিক্কার। অন্নদাতা প্রভুকে রক্ষা করতে পারেননি বিজয় সিং।
বিশদ

27th  September, 2017
দুর্গাদুপুর
বাণীব্রত চক্রবর্তী

 গৌতমের মোবাইল বেজে উঠল। অরণি ফোন করছে, ‘কী হল! এত দেরি করছিস কেন! শুভায়ু দুটোর মধ্যে চলে এসেছে।’ গৌতম বলল, ‘কী করব! বাস পাচ্ছি না।’ গৌতমের পকেটে কেবল সাঁইতিরিশ টাকা আছে। অরণি বলল, ‘ট্যাক্সিতে চলে আয়। আমি ভাড়া দিয়ে দেব।’ গৌতম ফোনটা কেটে দিল এবং সঙ্গে সঙ্গে ফোনের সুইচ অফ করে দিল। বিশদ

27th  September, 2017
আগমনি
সায়ন্তনী বসু চৌধুরী

 অনেকক্ষণ থেকে মোবাইলটা বেজে চলেছে। একটানা ঘ্যানর ঘ্যানর শব্দ। বিরক্ত হয়ে মহুয়া ঘরের দিকে এগিয়ে গেল। এই এক জিনিস হয়েছে। দু’ দণ্ড একলা থাকতে দেয় না কাউকে। যখনই একটু নিভৃতে নিজের সঙ্গে আলাপ চলে ওমনি বেজে উঠে সব তালগোল পাকিয়ে দেয়। সাত ইঞ্চির চওড়া স্ক্রিনে মায়ের নম্বরটা ফুটে উঠছে। মহুয়ার মুখে এক আকাশ কালো মেঘ এসে জমা হল। দু’তিনবার ঢোঁক গিলে গলাটা যতদূর সম্ভব স্বাভাবিক করে ও কলটা রিসিভ করল,
—‘হ্যাঁ মা, বলো বলো।’
বিশদ

27th  September, 2017
ঝাড়খিলি
পাপিয়া ভট্টাচার্য

 দালানের অন্য দিকে প্রবল চেঁচামেচি হচ্ছে। ‘বলু গো, কুমোরদের বলু! নারায়ণকে তুলে নিয়ে পালিয়েছে।’ হাঁপাতে হাঁপাতে খবর দিল শেফালি। সে এতক্ষণ শাঁখ বাজাচ্ছিল দালানে। ‘শাঁখ রাখতে গিয়েই তো দেখলুম, মশারি তুলে শ্রীধরকে নিয়ে ছুটল। আবার বলছে সন্ধ্যে থেকে রোজ ঘুম! এত ঘুম কিসের, এ্যাঁ? চলো আমার সঙ্গে বেড়িয়ে আসবে।’
বিশদ

27th  September, 2017
একনজরে
রাতুল ঘোষ, ২২ অক্টোবর: প্রায় দেওয়ালে কোণ ঠেকে যাওয়া অবস্থা থেকে খাদের কিনারায় ঝুলন্ত ব্রাজিল রবিবার রাতে শেষ ২০ মিনিটের সাম্বা-ম্যাজিকে জার্মানিকে ২-১ গোলে হারিয়ে ...

সংবাদদাতা, ইসলামপুর: রবিবার বিকালে উত্তর দিনাজপুর জেলার গোয়ালপোখর থানার পাঞ্জিপাড়ায় ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কে দুর্ঘটনায় বাইক আরোহী এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। দুর্ঘটনায় তার বাবা জখম হয়েছেন। পুলিশ জানিয়েছে, মৃত তানিয়া মিত্র(৬) ইসলামপুরের পুরাতনপল্লির বাসিন্দা। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স কতটা ভয়ানক হতে পারে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)-এর সাম্প্রতিক রিপোর্ট জানিয়ে দিল সে কথা। এক বিবৃতিতে হু জানাল, অ্যান্টিবায়োটিক কাজ না করায় যৌনরোগ গনোরিয়ার চিকিৎসা এখন খুবই কঠিন, কিছু ক্ষেত্রে অসাধ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: পাতাল সফরে আরও বেশি এসি ট্রেন চাইছেন যাত্রীরা। বেড়েছে যাত্রীও। তবুও মেট্রোয় আসা দু’টি নতুন এসি রেককে যাত্রী পরিবহণে ব্যবহার করা হচ্ছে ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ছোটখাট সমস্যার কারণে কর্মপ্রার্থীদের কর্মলাভে বিলম্ব হতে পারে। ব্যাবসা শুরু করা যেতে পার। মাঝে মাঝে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৫৪: কবি জীবনানন্দ দাশের মৃত্যু
১৯৮৮: অভিনেত্রী পরিণীতি চোপড়ার জন্ম
২০০৮: চিত্রশিল্পী পরিতোষ সেনের মৃত্যু
২০০৮: চন্দ্রায়ন-১-এর সূচনা

22nd  October, 2017
ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৪.২০ টাকা ৬৫.৮৮ টাকা
পাউন্ড ৮৩.৭৮ টাকা ৮৬.৬৩ টাকা
ইউরো ৭৫.৬০ টাকা ৭৮.২৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
21st  October, 2017
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ২৯,৯১০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৮,৩৭৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৮,৮০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৬ কার্তিক, ২৩ অক্টোবর, সোমবার, চতুর্থী অহোরাত্র, নক্ষত্র-অনুরাধা, সূ উ ৫/৪০/১২, অ ৫/১/৫৬, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৭/১১ মধ্যে পুনঃ ৮/৪২ গতে ১০/৫৮ মধ্যে। রাত্রি ঘ ৭/৩৫ গতে ১০/৫৬ মধ্যে পুনঃ ২/১৮ গতে ৩/৯ মধ্যে, বারবেলা ঘ ৭/৫ গতে ৮/৩০ মধ্যে পুনঃ ২/১২ গতে ৩/৩৭ মধ্যে, কালরাত্রি ৯/৪৭ গতে ১১/২১ মধ্যে।
৫ কার্তিক, ২৩ অক্টোবর, সোমবার, চতুর্থী রাত্রি ৫/০/৩৮, অনুরাধানক্ষত্র, সূ উ ৫/৪০/৮, অ ৫/১/৩৩, অমৃতযোগ দিবা ৭/১০/৫৯, ৮/৪১/৫১-১০/৫৮/৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৩৩/১৭-১০/৫৫/৩৬, ২/১৭/৫৪-৩/৮/২৮, বারবেলা ২/১১/১২-৩/৩৬/২৩, কালবেলা ৭/৫/১৯-৮/৩০/২৯, কালরাত্রি ৯/৪৬/১-১১/২০/৫০। 
২ শফর

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
  ভারতের নিকোবর আইল্যান্ডে ভূমিকম্প
নিকোবর আইল্যান্ডে আজ সন্ধ্যায় ভূমিকম্প অনুভুত হয়। রিখটার স্কেলে যার ...বিশদ

08:25:00 PM

বাগুইআটিতে গ্রেপ্তার হাইকোর্টের আইনজীবী
সিগন্যাল ভেঙে এগিয়ে যাওয়া একটি গাড়ি ধরায় এক সিভিক ভলান্টিয়ারকে ...বিশদ

07:26:00 PM

অনুর্ধ্ব ১৭ বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনাল গুয়াহাটির পরিবর্তে কলকাতায়

২৫ অক্টোবরের অনুর্ধ্ব ১৭ বিশ্বকাপের ইংল্যান্ড-ব্রাজিল সেমিফাইনাল ম্যাচটি গুয়াহাটির পরিবর্তে ...বিশদ

05:40:00 PM

দক্ষিণেশ্বরের রামকৃষ্ণ সারদা মিশনের উদ্যোগে বাগবাজারে ভগিনী নিবেদিতার সার্ধশত জন্মজয়ন্তী উদযাপন অনুষ্ঠানে ১৬ নং বোস পাড়া লেনের নিবেদিতার বাড়ি উদ্বোধন করলেন মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

04:51:00 PM

অমিতাভ মালিকের মৃত্যুর ঘটনায় তদন্তভার সিআইডির হাতে দিল রাজ্য সরকার 

04:30:10 PM

ডেবরায় তৃণমূলের বিরুদ্ধে গোষ্ঠী সংঘর্ষের অভিযোগ, জখম ১০ 
তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষে উত্তপ্ত পশ্চিম মেদিনীপুরের ডেবরা। ঘটনায় ...বিশদ

04:09:02 PM

পর্ণশ্রীতে আত্মঘাতী মহিলা 
পর্ণশ্রীতে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হলেন এক মহিলা। ...বিশদ

02:33:00 PM