Bartaman Patrika
গল্পের পাতা
 

পুণ্য ভূমির পুণ্য ধুলোয়
সিদ্ধপীঠ জলপা, পর্ব-১৬
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়

মৈহরপীঠ দর্শনের পর সে রাতটা মৈহরেই কাটালাম। পরদিন সকাল সাড়ে সাতটার ইন্টারসিটি এক্সপ্রেসে ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই কাটনিতে। মধ্য রেলওয়ের কাটনি একটি গুরুত্বপূর্ণ জংশন স্টেশন। এ যাত্রায় আমি ঘরমুখো হব বলেই কাটনিতে এলাম। কেন না এখানে ট্রেন একটু বেশিক্ষণ দাঁড়ায় তাই।
আমার সঙ্গে সামান্য মালপত্তর সহ যে কিটব্যাগটা থাকে সেটি রেলের ক্লোকরুমে রেখে এলাম।
এখানে যে রেলকর্মচারী ছিলেন তিনি বেশ সদালাপী। আমার ব্যাগ জমা নিয়ে বললেন, ‘কাটনিতে কোথায় এসেছিলেন? এখানে কোনও আত্মীয় আছে নাকি?’
আমি তখন আমার কথা বললাম। ‘বহু তীর্থ দর্শন করলেও মৈহরপীঠ বাকি ছিল। তাই মৈহর মাতাকে দর্শন করে ট্রেন ধরার সুবিধার জন্য এখানে এসেছি।’
উনি দু’হাত জোড় করে কপালে ঠেকিয়ে বললেন, ‘আপনি আসেননি। এখানকার মা-ই আপনাকে কৃপা করে টেনে নিয়ে এসেছেন। এই কাটনিতেই সিদ্ধপীঠে বিরাজ করছেন জলপা দেবী। কেউ কেউ জালোয়া বা জলবাও বলেন। ইনি হলেন ত্রিগুণাত্মিকা দেবী। এখন আপনি আর এদিক-সেদিক না করে এখনকার জাগ্রতা মাতাকে দর্শন করে আসুন।’
আমি উল্লসিত হয়ে বললাম, ‘নিশ্চয়ই যাব। এটাই তো আমার কাজ। জলপা দেবীর মন্দির এখান থেকে কতদূর? যাবই বা কীভাবে?’
‘স্টেশনের বাইরে গিয়ে একটা অটো অথবা রিকশ নিন। মাত্র দু’ কিলোমিটার পথ।’
মুহূর্তমাত্র দেরি না করে বাইরে এসে এক কাপ চা খেয়ে সেই দোকান থেকে পথ নির্দেশ নিয়ে হাঁটা শুরু করলাম। দু’ কিমি পথের জন্য কোনও পরিবহনেরই দরকার হয় না আমার।
নতুন এক দেবী তীর্থ দেখার আনন্দে মন আমার দারুণভাবে উন্মুখ হয়ে উঠেছে। ভাগ্যে কাটনিতে এসেছিলাম।
কিছুদূর আসার পর প্রশস্ত রাজপথের উপর একটি মন্দিরকে ঘিরে অনেক জনসমাগম দেখে ভাবলাম এই বোধহয় জলপা মাতার স্থান। তবে মন্দিরে বিগ্রহ দর্শন করে ভুল ভাঙল। এই মন্দির হল দক্ষিণমুখী বড়ে হনুমানের মন্দির। ইনি হলেন এখানকার রক্ষক। সর্বজনের সংকটমোচনের জন্য ইনি সদা জাগ্রত।
মন্দিরে প্রণাম জানিয়ে আরও খানিক যাওয়ার পর এলাম লক্ষ্মীনারায়ণ মন্দিরে। সেখানে কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে আরতি দর্শন করে আর এক রম্য মন্দিরে এলাম। এটি সাঁই মন্দির। শিরডি সাঁইবাবার শ্বেতপাথরের পূর্ণাবয়ব মূর্তি দর্শন করে মন ভরে গেল। এই মন্দিরেরই বিপরীত দিকের গলিতে নবনির্মিত একটি কালীমন্দির অতিক্রম করলেই জলপা দেবীর স্থান।
একটি তোরণ পার হয়ে প্রথমেই এলাম ভৈরব মন্দিরে। জাগ্রত ভৈরবকে দর্শনের পর জলপা মন্দিরে। হিমালয় ভ্রমণের সময় চম্বাতে রাভী নদীর তীরে জলপা ভবানীর মন্দির ও বিগ্রহ দেখেছিলাম। সেই দেবী হলেন চণ্ডী। কিন্তু এখানকার যিনি অধিষ্ঠাত্রী তিনি কে?
অনেকখানি পাঁচিল ঘেরা জায়গা জুড়ে জলপা দেবীর মন্দির। মন্দির প্রাঙ্গণে ভক্ত দর্শনার্থীদের সংখ্যাও অনেক। তবে বেশিরভাগই মেয়ে। একপাশে বিশাল একটি বটবৃক্ষের নীচে অনেক দেব-দেবীর মূর্তি। সেখানেও জল ঢালা, সিঁদুর লেপা ও পুজো-আচ্চা চলছে। আমি সেখানে মাথা ছুঁইয়ে মূল মন্দিরে এলাম। মন্দিরটি বেশ খোলামেলা। ঘিঞ্জি নয়। সেখানে আছেন পরপর তিন দেবী। মন্দিরের সেবায়েতকে জিজ্ঞেস করলাম, ‘পণ্ডিতজি, এঁদের মধ্যে জলপা মাতা কোনটি?’
সেবায়েত বললেন, ‘মাঝেরটি। এখানে ত্রিগুণাত্মিকা দেবী, মহাকালী, মহালক্ষ্মী ও মহাসরস্বতী। তবে মহাসরস্বতী এখানে মধ্যস্থলে। এই দেবী এখানে পিণ্ডরূপা নন। মূর্তিমতী।’
আমি অনিমেষ নয়নে জলপা দেবীকে দর্শন করে বললাম, ‘এই দেবী কি একান্ন পীঠের অন্তর্গত কোনও দেবী?’
‘না। এটি কোনও পীঠ বা উপপীঠ নয়। এটি হল সিদ্ধপীঠ।’
জলপা দেবী দর্শনের পর মন্দির প্রাঙ্গণে প্রাচীরের গায়ে বহু দেবদেবীর মূর্তি খোদাই করা আছে দেখলাম। পুণ্যার্থী ভক্ত মহিলারা এঁদের সবাইকে ক্লান্তিবিহীনভাবে পুষ্পচন্দন, আলোচালসহ জলসিঞ্চন করছেন দেখলাম। এই দেবীরা কেউ ভয়ঙ্করী, কেউ সৌমাতিসৌম্য, কেউ বরাহমুখী, কেউ অশ্বমুখী, কেউ বা সারমেয়মুখী। ধন্দে পড়লাম। এঁরা কোন দেবী? অনুসন্ধানে জানলাম এই সব মূর্তি হল চৌষট্টি যোগিনীর। এঁরা মন্দির বেষ্টন করে জলপা দেবীকে রক্ষা করছেন।
এখানকারই একজন সেবায়েতের মুখে শুনলাম এই কাটনি শহর বা সিদ্ধপীঠ একসময় ছিল ভয়ঙ্কর মহারণ্যে ভরা ও শ্বাপদ সংকুলে পরিণত। কিছু ভীল ও শবর শ্রেণীর মানুষের বসবাস ছিল এখানে। এমনকী কোনও জলাশয়েরও চিহ্ন ছিল না। রামায়ণের যুগে ব্রহ্মর্ষি জাবালি এই মহারণ্যে কঠোর তপস্যা করেন। তাঁরই তপোপ্রভাবে এই স্থান সিদ্ধপীঠে রূপান্তরিত হয়।
রামায়ণ পরবর্তী যুগেরও অনেক পরে এই মহারণ্যে হঠাৎ আবির্ভাব হয় এক দিব্যজ্যোতিসম্পন্ন যোগীর। বর্তমান মন্দির প্রাঙ্গণে যে গাছটি আছে (প্রাচীন গাছটি নেই) সেখানে বসে তিনি কঠোর সাধনা শুরু করেন। এমনই সাধনা যে তিনি ছিলেন ক্ষুধা তৃষ্ণা রহিত। বনবাসী ভীলরা তাঁর সামনে কোনও ফল মূলাদি রেখে গেলেও তিনি তা গ্রহণ করতেন না।
এমন যখন অবস্থা তখন একরাতে এক অতীব সুন্দরী রমণী নানাবিধ অন্নব্যঞ্জন ও পরমান্ন এনে তাঁর তপোভঙ্গ করালেন। তারপর যোগীর মনোরঞ্জনের জন্য নানারকম ছলাকলায় নৃত্যগীতাদির দ্বারা তাঁর চিত্তবৈকল্য আনার চেষ্টা করলেন। এমনকী এও বললেন, ‘হে যোগীবর! শরীরের ধর্ম পালন না করে শরীরকে কষ্ট দিয়ে সিদ্ধিলাভ করা যায় না। অতএব তুমি প্রসাদ গ্রহণ করো।’ যোগীবর প্রসাদ গ্রহণ করলেন কিন্তু ছলাকলায় মজলেন না।
এইভাবে চৌষট্টি রমণীর ছলনায় চৌষট্টি রজনী অতিক্রান্ত হলে তাঁরা সবাই দিব্য শরীরে দেখা দিয়ে সাধককে বললেন, ‘আর তোমাকে সাধনা করতে হবে না যোগীবর। তুমি সিদ্ধিলাভ করেছ।’
যোগীবর বললেন, ‘আপনাদের পরিচয়?’
‘আমরা এখানকার দেবীর সহচরী। দেবী ত্রিগুণাত্মিকা। মহাকালী, মহাসরস্বতী ও মহালক্ষ্মী। ত্রিশক্তির ধারিকা হয়েও তিনি একাঙ্গী। এই বনভূমে এক রমণীয় সরোবরে দেবীর অধিষ্ঠান। দেবী কখনও উগ্রচণ্ডী, কখনও অশুভনাশিনী, জ্ঞানদায়িনী। আমরা এই চৌষট্টি যোগিনী সব সময় দেবীকে পাহারা দিই। রক্ষা করি। দেবীর প্রকাশ ব্রহ্ম হতে। দেবীর সহচরী আমরা। আসুন আপনি আমাদের সঙ্গে। আমরা দেবীকে দর্শন করিয়ে আনি।’
চৌষট্টি যোগিনীর সঙ্গে সরোবরের তীরে আসতেই শ্বেতশুভ্রা হংসবাহনা দেবীর দর্শন পেলেন সাধক।
দেবীর মহিমা প্রকট হল। জল থেকে উৎপত্তি বলে দেবীর নাম হল জালোয়া, জলবা বা জলপা। সাধকের কৃপায় এই স্থান সিদ্ধপীঠে পরিণত হল।
(ক্রমশ)
23rd  June, 2019
পুণ্য ভূমির পুণ্য ধূলোয়
মরুতীর্থের দেবী, পর্ব ২০
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়

 আমার বারো বছর বয়সের সময় বাবা-মায়ের সঙ্গে তীর্থযাত্রায় গিয়ে দ্বারকা থেকে ফেরার পথে ভাটিয়া স্টেশনে নেমে সমুদ্রের খাড়ি পার হতে হয়েছিল। ওখান থেকে গন্তব্য ছিল সুদামাপুরী (পোরবন্দর)। পথে যেতে যেতে এক জায়গায় বাসযাত্রীরা সবাই নেমে পড়লেন এক জাগ্রতা দেবীকে দর্শন করবার জন্য।
বিশদ

ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়

 একদিন মিউগেন্স সাহেবকে বললাম, আমি বাড়িতে মাঝে মাঝে মিডিয়াম হয়ে ‘স্পিরিটের’ সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু খুব ভালো পারছি বলে মনে হচ্ছে না। মিউগেন্স সাহেবের গম্ভীর মুখের দিকে তাকিয়ে আবার বললাম, — অথচ বিলেতের কাগজে পড়েছি, এফিসিয়েন্ট মিডিয়ামের সাহায্যে তারা একান্ত আপনজনের স্পিরিট নিয়ে আসছে....
বিশদ

এমনি বরষা ছিল সেদিন
ছন্দা বিশ্বাস

দশ দিন হতে চলল অর্ণব ঠাকুরপোকে পাওয়া যাচ্ছে না। অনিকেতের ছেলেবেলার বন্ধু অর্ণব। আমার বিয়ের পরে বেশ কয়েকবার আমাদের বাড়িতে এসেছে। তারপর বহুদিন আর দেখা হয়নি। মাঝখানে হঠাৎ একদিন এসেছিল আমাদের বাড়িতে। সেও বেশ কিছুদিন হতে চলল। অনিকেত শুনলাম থানায় একটা মিসিং ডায়েরি করেছে।
বিশদ

14th  July, 2019
পুণ্য ভূমির পুণ্য ধূলোয় 
গিরিতীর্থ হিংলাজ, পর্ব-১৯

 এবার গিরিতীর্থ হিংলাজে যাওয়া যাক। ভারতের বিভিন্ন স্থানে বিশেষ করে গুজরাত প্রদেশে হিংলাজ মাতার মন্দির আছে। তবে সে সবের সন্ধান আমার জানা নেই। দৈবকৃপায় আমি যে দুটি স্থানে গিয়ে পড়েছিলাম তারই বর্ণনা দেব। বিশদ

14th  July, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়

 প্যারীচাঁদ মিত্র সেইসময় কলিকাতার বেঙ্গল লাইব্রেরির (বর্তমানে জাতীয় গ্রন্থাগার) সম্পাদক ছিলেন। স্ত্রীর মৃত্যুর পর তিনি পরলোক চর্চা নিয়ে অতিশয় মেতে উঠলেন। লাইব্রেরির সংগ্রহশালায় থাকা পরলোকতত্ত্ব সম্বন্ধীয় বিভিন্ন পুস্তক ও প্রবন্ধাদি পাঠ করতে শুরু করলেন। বিশদ

14th  July, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই

অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়: জোড়াবাগান থানার বিপরীতে নিমতলার বিখ্যাত মিত্র বাড়ির এই দুপুরের সময়টা বউদের বড়ই ব্যস্ততার মধ্যে কাটে। এই বাড়ির প্রখ্যাত, রাশভারী শ্বশুরমশাই পুজো সেরে এখনই খেতে বসবেন।   বিশদ

07th  July, 2019
পুণ্য ভূমির পুণ্য ধুলোয়
অমরকণ্টক  পর্ব-১৮

ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়: বিন্ধ্যপর্বতের যে অংশটির নাম মেকল বা মৈকল, তীর্থভূমি নর্মদার সেই স্থানই অমরকণ্টক। শুধু তীর্থভূমি নয়, অমরকণ্টক হল সৌন্দর্যের খনি। এখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বর্ণনাতীত।  বিশদ

07th  July, 2019
শাল-পিয়ালের চুপকথা 

সুপর্ণা সেনগুপ্ত: পুরুলিয়ার প্রত্যন্ত অঞ্চল বাগমুণ্ডি। আকাশ যেখানে গল্প করে মেঘের সঙ্গে। ঘন জঙ্গল, পাহাড় আর ঝর্ণা ঘেরা ছোট ছোট গ্রাম, আঁকা থাকে নীল আকাশের ক্যানভাসে। বর্ষায় সেখানে নদীর জল ছাপিয়ে যায়।   বিশদ

07th  July, 2019
পুণ্য ভূমির পুণ্য ধুলোয় 

ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়: মধ্যপ্রদেশের গুণা জেলায় সুন্দরী চান্দেরিতে এক বনময় পর্বতের গুহায় দেবী জাগেশ্বরীর অধিষ্ঠান। ইনি শুধু দেবী নন, মহাদেবী। মাত্র ২০০ মিটার উঁচু এই দুর্গ শহরের আকর্ষণ ঐতিহাসিক গুরুত্ব, দেবী মহিমা ও লোভনীয় চান্দেরি শাড়ির জন্য।  বিশদ

30th  June, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই 

অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়: ঋষি এবং তাঁর স্ত্রী খুব ভালো মিডিয়াম— এই কথাটা শুনে শরৎচন্দ্র হাসতে হাসতে ভাইয়ের কাছে জানতে চাইলেন, তুমি কী করে জানলে তাঁরা খুব ভালো মিডিয়াম?
গিরীন্দ্রনাথ বললেন, আমি এবং আমার বন্ধু রায়সাহেব হরিসাধন মুখোপাধ্যায় তাঁদের সঙ্গে প্ল্যানচেটে বসেছিলাম। বিশদ

30th  June, 2019
মোম জোছনা 

সঞ্জয় রায়: ‘হেই, হ্যাট্‌-হ্যাট্‌-হ্যাট্‌, যাঃ যাঃ-যাঃ। উঃ, দ্যাকো দিকিনি উঠোনটা খালি খালি নোংরা করে। অ্যাই, যাঃ-যাঃ-যাঃ।’ কুসুম সক্কালবেলায় হাঁসের দলটাকে উঠোন থেকে তাড়াচ্ছিল। দীননাথ দাওয়ায় বসে কুসুমের ছলকে পড়া যৌবনটাকে জরিপ করছিল।  বিশদ

30th  June, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই
১৬
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়

 গিরীন্দ্রনাথ সরকার। সাহিত্যিক হিসেবে তেমন খ্যাতি অর্জন করতে না পারলেও, তিনি ছিলেন একজন প্রখ্যাত ভূপর্যটক। পৃথিবীর প্রায় সব দেশই তাঁর ঘোরা ছিল। বহুকাল তিনি সরকারি কন্ট্রাক্টর হিসেবে ব্রহ্মদেশে কাজ করেছিলেন। আর এইসময়ই তাঁর সঙ্গে পরিচয় হয় শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের।
বিশদ

23rd  June, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায় 

১৫
নিস্তব্ধ নির্জন ঘর, দেবতা বিশ্রাম করছেন খাটে। ঘরের এককোণে চুপ করে বসে আছেন মতিলাল। প্রদীপটা তখনও মিটমিট করে জ্বলছে। সময় যেন আর কাটতেই চাইছে না। মাঝে একটু তন্দ্রাচ্ছন্ন মতো হয়ে পড়েছিলেন মতিলাল। সেই রেশ কাটাতে তিনি ঘরের ভেতর পায়চারি করতে শুরু করলেন।  
বিশদ

16th  June, 2019
পুন্য ভূমির পুন্য ধুলোয়
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায় 

মৈহর পীঠ, পর্ব-১৫
মৈহর হল মধ্যপ্রদেশের সাতনা জেলা তহশিলের এক প্রসিদ্ধ দেবীস্থান। একান্ন পীঠের অন্তর্গত পীঠ না হলেও উপপীঠ। এখানে সতীর দেহাংশ নয় কণ্ঠহার পড়েছিল। এই পুণ্যভূমিতেই ত্রিকূট পর্বতের চূড়ায়। সতীমাঈ কি হার। তাই থেকেই মাঈহার, মৈহার ও বর্তমানে মৈহর।  
বিশদ

16th  June, 2019
একনজরে
পল্লব চট্টোপাধ্যায়, কলকাতা: তিনিই যোগ্যতম। বাণিজ্য শাখার স্কুল শিক্ষক হিসেবে চাকরিতে যোগ দেন ২০০১ সালের ৩০ জুলাই। কিন্তু, কম যোগ্যতাসম্পন্নদের স্কুলে শিক্ষক পদে রেখে দেওয়া হলেও তাঁর চাকরি বিগত ১৮ বছরেও অনুমোদিত হয়নি। তাঁর মামলা সূত্রে দেওয়া কলকাতা হাইকোর্টের একাধিক ...

সংবাদাতা, রায়দিঘি: রাজ্যে বর্ষা ঢুকে গিয়েছে। উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্ত বৃষ্টিতে ভেসে গেলেও দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টির দেখা নেই। তাই বৃষ্টি যাতে দ্রুত আসে, সেই কারণে ধুমধাম করে ...

 ওয়াশিংটন, ২০ জুলাই (পিটিআই): আন্তর্জাতিক চাপের মুখে মুম্বই হামলার মূলচক্রী হাফিজ সইদকে গ্রেপ্তার করেছে পাকিস্তান। এরপরেও পাকিস্তানের উপর থেকে সন্দেহ যাচ্ছে না আমেরিকার। ট্রাম্প প্রশাসনের প্রবীণ এক কর্তাব্যক্তি শুক্রবার জানিয়েছেন, আগেও হাফিজকে গ্রেপ্তার করেছিল ইসলামাবাদ। ...

সংবাদদাতা, বালুরঘাট: বালুরঘাট শহরের বিভিন্ন রাস্তায় গবাদিপশুর বিচরণ বেড়ে যাওয়া ব্যাপক সমস্যার পড়েছেন পথচলতি সাধারণ মানুষ। শহরের যত্রতত্র গোরু, ছাগল ঘোরাঘুরি করলেও সেসব ধরে সংশ্লিষ্ট মালিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উচ্চবিদ্যার ক্ষেত্রে ভালো ফল হবে। ব্যবসায় যুক্ত হলে খুব একটা ভালো হবে না। প্রেমপ্রীতিতে বাধাবিঘ্ন। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯২০: মা সারদার মৃত্যু
১৮৬৩: কবি, গীতিকার ও নাট্যকার দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের জন্ম
১৮৯৯: লেখক বনফুল তথা বলাইচাঁদ মুখোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৫৫: প্রাক্তন ক্রিকেটার রজার বিনির জন্ম
২০১২: বাংলাদেশের লেখক হুমায়ুন আহমেদের মূত্যু 

20th  July, 2019
ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৭.৯৫ টাকা ৬৯.৬৪ টাকা
পাউন্ড ৮৪.৭৭ টাকা ৮৭.৯২ টাকা
ইউরো ৭৬.১০ টাকা ৭৯.০৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
20th  July, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৫,৫২৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৩,৭০৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৪,২১০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,৫৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,৬৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ২১ জুলাই ২০১৯, রবিবার, চতুর্থী ১৬/২২ দিবা ১১/৪০। শতভিষা ৫/৪৫ দিবা ৭/২৫। সূ উ ৫/৬/৫২, অ ৬/১৮/১৬, অমৃতযোগ প্রাতঃ ৫/৫৯ গতে ৯/৩১ মধ্যে। রাত্রি ৭/৪৫ গতে ৯/১১ মধ্যে, বারবেলা ১০/৪ গতে ১/২২ মধ্যে, কালরাত্রি ১/৩ গতে ২/২৪ মধ্যে।
৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ২১ জুলাই ২০১৯, রবিবার, চতুর্থী ৯/২৬/৩১ দিবা ৮/৫২/১৬। শতভিষানক্ষত্র ২/০/৪৮ প্রাতঃ ৫/৫৩/৫৯, সূ উ ৫/৫/৪০, অ ৬/২১/৪৭, অমৃতযোগ দিবা ৬/৪ গতে ৯/৩২ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৪১ গতে ৯/৮ মধ্যে, বারবেলা ১০/৪/১৩ গতে ১১/৪৩/৪৪ মধ্যে, কালবেলা ১১/৪৩/৪৪ গতে ১/২৩/১৪ মধ্যে, কালরাত্রি ১/৪/১২ গতে ২/২৪/৪২ মধ্যে।
১৭ জেল্কদ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
শহরে ট্রাফিকের হাল
আজ, রবিবার সকালে শহরের রাস্তাঘাটে যান চলাচল মোটের উপর স্বাভাবিক। ...বিশদ

10:29:52 AM

ওভারথ্রোয়ের নিয়ম বদলাতে পারে এমসিসি
বিশ্বকাপের ফাইনালে ওভারথ্রো নিয়ে বিতর্ক তৈরি হওয়ায় নিয়ম বদল করা ...বিশদ

10:15:00 AM

  ইস্ট বেঙ্গলে জুনিয়র বিশ্বকাপার
ইস্ট বেঙ্গলের অনুশীলনে যোগ দিলেন যুব ভারতীয় দলের স্ট্রাইকার অভিজিৎ ...বিশদ

09:28:53 AM

প্রয়াত দিল্লির প্রাক্তন বিজেপি সভাপতি মঙ্গেরাম গর্গ 

09:25:00 AM

তেলেঙ্গানার নালগোন্ডায় জামাইবাবুর গলা কেটে খুন করল শ্যালক 

09:22:00 AM

হায়দরাবাদের জুলজিক্যাল পার্কে একটি সিংহের মৃত্যু 

09:20:00 AM