Bartaman Patrika
গল্পের পাতা
 

পুন্য ভূমির পুন্য ধুলোয়
দেবী ত্রিপুরমালিনী
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায় 

পর্ব-১৪

এবার বলি দেবী ত্রিপুরমালিনীর কথা। পীঠ নির্ণয় তন্ত্রে আছে ‘ভীষণা ভৈরবস্তত্র দেবী ত্রিপুরমালিনী’। পাঞ্জাব প্রদেশে এই সতীপীঠ জলন্ধর পীঠ নামে খ্যাত। কিন্তু এই পীঠ সম্বন্ধে নানারকম বিভ্রান্তিকর তথ্য পাওয়ার কারণে এর সঠিক অবস্থান কিছুতেই নির্ণয় করতে পারিনি। অবশেষে কাশীর এক মাতাজির পরামর্শে আমি জলন্ধরে গিয়েই জলন্ধর পীঠের অনুসন্ধান করব এই স্থির করলাম। তাই একদিন বারাণসী থেকেই দুপুর বারোটা পঞ্চাশের বেগমপুরা এক্সপ্রেসে জলন্ধরের পথে রওনা হলাম।
ভাগ্যক্রমে এই ট্রেনে আমার সহযাত্রীদের মধ্যে পাঁচজন মহিলা বৈষ্ণোদেবী যাত্রী ছিলেন। আমি জলন্ধর পীঠ যাচ্ছি শুনে ওঁদেরই একজন বললেন, ‘জলন্ধর পীঠ দেবী কা মুখ্য পীঠ। লেকিন উধার যাকে দেবীতালাও বোলনা পড়েগি। তব মালুম হো যায়েগি সবকো।’
ব্যস। সেদিন এবং রাতটা বেশ ভালোভাবেই কাটল। পরদিন সকালে জলন্ধর ক্যান্ট থেকে সিটিতে এসে রওনা হলাম দেবী তালাওয়ের পথে। ভাড়া শেয়ারের অটোয় দশ টাকা।
এক বিশাল প্রাচীর ঘেরা অঞ্চলের মধ্যে দেবীতালাও বা জলন্ধর পীঠ। তোরণ পার হলেই প্রকট স্থানে পৌঁছনো যায়। প্রথমেই চোখে পড়ে দেবীতালাও। বিশাল একটি স্বচ্ছ জলের সরোবর। এখানে দেবীর বাম স্তন পতিত হয়েছিল। কালিকাপুরাণে আছে ‘জলন্ধরে স্তনযুগং স্বর্ণহার বিভূষিতম্‌’। দেবী এখানে ত্রিপুরমালিনী। যেখানে দেবীপীঠ সেখানেই ভৈরব। ভৈরবও তাই এখানে বিরাজমান। এই পীঠ হল ষষ্ঠ মহাপীঠ।
জলন্ধর মাহাত্ম্যে আছে, পুরাকালে জলন্ধর নামে এক দৈত্যের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে দেবতারা যুদ্ধ ঘোষণা করলে বহুবর্ষ ধরে দেব-দানবের এক তুমুল যুদ্ধ চলতে থাকে। ভগবান বিষ্ণু ও মহাদেবের কপট মায়ায় জলন্ধর যখন জর্জরিত, মরণাপন্ন, তখন দুই দেবতাই জলন্ধর পত্নী বৃন্দার অভিশাপের ভয়ে জলন্ধরকে প্রত্যক্ষ দর্শন দিয়ে বর প্রার্থনা করতে বললেন। জলন্ধর তখন করজোড়ে বলল, ‘হে সর্বশক্তিমান প্রভু, যদিও আপনারা আমায় কপট যুদ্ধে হত্যা করলেন তবুও আমাকে প্রত্যক্ষ দর্শন দেওয়ার ফলে আমার মতো তমোগুণসম্পন্ন ও অহংকারী একজন দৈত্য উদ্ধার প্রাপ্ত হল। তাই অন্তিমকালে আমার প্রার্থনা এই যে, যুদ্ধকালীন সময়ে আমার দেহের যে সমস্ত অংশ এই প্রদেশের বিভিন্নস্থানে পড়েছে সেই সমস্ত অঞ্চল যেন তীর্থের মহিমা পায়। বিভিন্ন দেবদেবীর মঠ মন্দির যেন গড়ে ওঠে এই স্থানকে ঘিরে। স্নান-তর্পণে দেবভক্তগণ যেন অশেষ পুণ্যফল প্রাপ্ত হন। শ্রীবিষ্ণু ও মহাদেব জলন্ধরের মনোবাঞ্ছা পূর্ণ করতে তথাস্তু বলে সেই বরই প্রদান করলেন। তখন থেকেই এই শিবালিক পর্বতমালার প্রদেশে দ্বাদশযোজন ক্ষেত্র জুড়ে চৌষট্টি মন্দির ও নানা তীর্থ গড়ে ওঠে। জলন্ধরের কান যেখানে পড়েছিল বর্তমানে সেই স্থানের নাম কাংড়া। এখানে বজ্রেশ্বরী দেবীর মন্দির আছে। আর জলন্ধরের পৃষ্ঠদেশ যেখানে পড়েছিল লম্বালম্বিভাবে সেই অংশ এবং আশপাশের জনপদ ‘জলন্ধর’ নামেই অভিহিত।
মন্দিরে প্রবেশ করলে প্রথমেই চোখে পড়ে প্রবেশ পথের ডানদিকে এক উন্নতমানের সুবিশাল ধর্মশালা।
যাই হোক, এবার মাতৃমন্দিরের পথে মন্দিরের পাশেই দৃষ্ট হয় উচ্চ বেদিকায় বাঁধানো এক বিশাল অশ্বত্থ গাছ। একে বলা হয় কল্পবৃক্ষ। ধর্মপ্রাণ নরনারীরা এই কল্পবৃক্ষতলে ধূপদীপ ইত্যাদি প্রজ্বলন করেন। অনেকের বিশ্বাস মন্দিরের বাইরে এই কল্পবৃক্ষেই দেবীর অবস্থান। দেবী এখানে সর্বক্ষণ বিরাজ করেন। কেন না এই বিশাল ভূখণ্ড হল জলন্ধরের মাথা। দেবীশক্তি না থাকলে মাথা নড়ে উঠবে। ফলে বিপর্যয় অবশ্যম্ভাবী। শুধু তাই নয় কেউ কোনও শুভকামনা নিয়ে এখানে মানত করলে তা বিফলে যায় না।
কল্পবৃক্ষে মাথা ছুঁইয়ে উচ্চ সোপান বেয়ে ওপরে উঠে এখানকার অধিষ্ঠাত্রী দেবী ত্রিপুরমালিনীকে দর্শন করলাম। আমার অনেক দিনের আশা পূর্ণ হল। দেবীর র‌ম্যমূর্তি শ্বেতপাথরের। তাঁর দু’পাশে সিদ্ধিবিনায়ক গণেশ। এই দেবী এখানে বিশ্বমুখী নামেও পরিচিতা। জলন্ধরে বিশ্বমুখী, তারা কিষ্কিন্ধ্যা পর্বতে।
দেবীপীঠ দর্শনের পর মন্দির চত্বরেই দর্শন করলাম দেবীতালাওয়ের পাশে ভৈরবকে। শিবলিঙ্গ ছাড়াও এখানে রয়েছে পীতবর্ণের এক বিশাল ভৈরবমূর্তি। সচরাচর এমন মূর্তি চোখে পড়ে না।
এরপর এলাম এখানকার সিদ্ধসাধক হেমগিরি মহারাজের সমাধি মন্দির দেখতে। সমাধি মন্দির দর্শনের পর পরশুরাম মন্দির। তারও পরে বালাজি মন্দির। আরতির সময় এসেছিলাম। তাই বোঁদে ও অমৃতি প্রসাদ পাওয়া গেল।
এরপর এলাম অমরনাথের গুহায়। সারা ভারতের বহুতীর্থ আমি একাধিকবার দর্শন করলেও অমরনাথে আমি বারবার বাধাপ্রাপ্ত হয়ে যেতে পারিনি। এখন দুধের স্বাদ ঘোলে মেটালাম। এখানকার অমরনাথের গুহামন্দির অনেকটা উচ্চস্থানে। তবু দারুণ উৎসাহ নিয়ে সেখানে গিয়ে দর্শন করে ধন্য হলাম।
এই মন্দিরচত্বরে দেবীতালাওকে ঘিরে অনেক মন্দির আছে। আমি প্রায় সবকটিই দর্শন করে দেবীতলাওতে স্নান করে ধন্য হলাম।
মন্দিরের বাইরেও এই অঞ্চলের কাছে দূরে আরও অনেক মন্দির আছে। তবে আমি আর সে সবের দর্শন না করে বাসস্ট্যান্ডে এসে রওনা দিলাম অমৃতসরের পথে। সেখানে দুর্গিয়ানা মন্দির, স্বর্ণমন্দির ও জালিয়ানওয়ালাবাগ দেখে রাতের ট্রেনে রওনা হব হরিদ্বারের পথে। হর হর গঙ্গে। জয় মা গঙ্গে।
(ক্রমশ)
অলংকরণ : সোমনাথ পাল 
09th  June, 2019
এ ফেরা অন্য ফেরা
তপন বন্দ্যোপাধ্যায়

উচ্চতা ৪ ফুট ৬ ইঞ্চি, গায়ের রং আধাফর্সা, রোগা-পাতলা চেহারা। পরনে অতিসাধারণ শাড়ি-ব্লাউজ, কিন্তু পরিষ্কার। ঈষৎ গম্ভীর থাকে কাজের সময়। ঠিক সময়ে ঘরে ঢোকে, দ্রুত নিজের কাজটি সেরে বেরিয়ে যায় অন্য বাড়ির উদ্দেশে। কামাই প্রায় করেই না।
বিশদ

পুণ্য ভূমির পুণ্য ধূলোয়
বহুচরা দেবী
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়

গুজরাত প্রদেশে আর এক তীর্থে আছেন বহুচরা দেবী। দিল্লি অথবা আমেদাবাদ থেকে মাহেসানায় নেমে এই তীর্থে যেতে হয়। স্থানীয়রা এই দেবীকে বলেন বেচরাজি। কিন্তু কেন ইনি বেচরাজি? প্রবাদ, বহুকাল আগে এক চাষি চাষ করতে করতে এখানকার দেবী দুর্গা বা অম্বিকাকে খেতের মধ্যে কুড়িয়ে পান।
বিশদ

ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়

 পাত্রীর ডাকনাম ফুলি, ভালোনাম ভবতারিণী। বিয়ের পর স্বামী রবীন্দ্রনাথ স্ত্রীর আর একটি ডাক নাম পদ্মের সঙ্গে মিলিয়ে রাখলেন মৃণালিনী। শুরু হল তাঁদের দাম্পত্য জীবন। বিশদ

ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়  

২৩

অপমৃত্যু নিয়ে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নিজস্ব একটা মতামত ছিল। পরিণত বয়সে তিনি এ সম্পর্কে তাঁর মতামত মংপুতে থাকাকালীন মৈত্রেয়ী দেবীর কাছে ব্যক্ত করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন,‘অপমৃত্যু সম্বন্ধে একটা কথা কি মনে হয় জানো, হঠাৎ যে বন্ধন ছিন্ন হয়, হয়তো তা সুসমঞ্জসভাবে ছিন্ন হয় না।  
বিশদ

11th  August, 2019
পুণ্য ভূমির পুণ্য ধূলোয়
আরাসূরীর অম্বাজি, পর্ব-২৩
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়  

গিরনারের অম্বাজির পর আরাসূরীর অম্বাজিকেও দর্শন করে আসা যাক এবার। রাজস্থানের অর্বুদ শিখরে ৫২ সতীপীঠের অন্তর্গত দেবী অম্বাজি আছেন। অম্বাজিতে আমি আগেও গিয়েছি।  
বিশদ

11th  August, 2019
যে মেঘ গাভীর মতো চরে
সুতপা বসু 

বেডরুমের লাগোয়া বারান্দায় তখন সিদ্ধার্থ আর বারিষ বৃষ্টির ছাট নিয়ে খেলছে। সিদ্ধার্থ বললো,‘ওই ছড়াটা বল, মনে আছে?’ বারিষ বুঝল তার বাবাই কোন ছড়ার কথা বলছে। সে লাফাতে লাফাতে সুর করে বলল, ‘বৃষ্টি পড়ে টাপুর টুপুর নদে এল বান...’ 
বিশদ

04th  August, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায় 

২২

শ্যামলাল গঙ্গোপাধ্যায়। জোড়াসাঁকোর বিখ্যাত ঠাকুর পরিবারের বাজার সরকার। মাসিক বেতন কুড়ি টাকা। ঠাকুর পরিবারের সঙ্গে তাঁর কেমন লতায়-পাতায় আত্মীয়তা ছিল বলেও শোনা যায়।  
বিশদ

04th  August, 2019
পুণ্য ভূমির পুণ্য ধূলোয়
গিরনারের অম্বাজি পর্ব-২২
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায় 

মরুভূমি ত্যাগ করে এবার যাওয়া যাক রৈবতক পর্বতে। এখানে বিরাজ করছেন অম্বাজি। সারা ভারতে, বিশেষ করে হিন্দিবলয়ে দেবী দুর্গা অম্বাজি নামেই প্রসিদ্ধ। অম্বিকা থেকে অম্বা, অম্বে, অম্বাজি।  
বিশদ

04th  August, 2019

দারোগা চমকিতচরণ
 
রতনতনু ঘাটী


দরকার পড়লে দারোগাবাবুকে চোর খুঁজতেও বেরতে হয়। কিন্তু আজ তিন দিন হল উদ্ভুট্টিডিহি থানা এলাকায় এক আজব কাণ্ড ঘটেছে। বড় দারোগা চমকিতচরণ দত্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, এই থানা এলাকার দাগি চোরদের ধরে ধরে এনে থানায় পুরবেন।
বিশদ

28th  July, 2019
পুণ্যভূমির পুণ্য ধুলোয়
মরুতীর্থ ও ওশিয়াঁ
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়

করাচি শহর থেকে ৩০০ কিমি দূরে লাসাবেলার বিস্তীর্ণ ও ভয়াবহ মরুভূমির বুকে হিঙ্গুলা নদীর তীরে যেমন হিংলাজ মাতার গুহা মন্দির, তেমনই রাজস্থানের থর মরুভূমির বুকে যোধপুর থেকে ৬৫ কিমি দূরে হল ওশিয়াঁ মাতার রম্য মন্দির। মরুভূমির বুকে মহাতীর্থ। মরুতীর্থ ওশিয়াঁ।
বিশদ

28th  July, 2019
 ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়

 ঘরে উপস্থিত সবাই বুঝতে পারলেন নিত্যরঞ্জন ঘোষের শরীরে কোনও অতৃপ্ত, ক্রুদ্ধ আত্মা ভর করেছেন। সেজবাতির আলোটা একটু বাড়িয়ে দিয়ে ডাক্তার রাজকৃষ্ণ মিত্র বললেন, হ্যাঁ, আমরা আপনার সম্পর্কে সবকিছু জানতে চাই। আপনি কে? আপনার নাম কী?
বিশদ

28th  July, 2019
পুণ্য ভূমির পুণ্য ধূলোয়
মরুতীর্থের দেবী, পর্ব ২০
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়

 আমার বারো বছর বয়সের সময় বাবা-মায়ের সঙ্গে তীর্থযাত্রায় গিয়ে দ্বারকা থেকে ফেরার পথে ভাটিয়া স্টেশনে নেমে সমুদ্রের খাড়ি পার হতে হয়েছিল। ওখান থেকে গন্তব্য ছিল সুদামাপুরী (পোরবন্দর)। পথে যেতে যেতে এক জায়গায় বাসযাত্রীরা সবাই নেমে পড়লেন এক জাগ্রতা দেবীকে দর্শন করবার জন্য।
বিশদ

21st  July, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়

 একদিন মিউগেন্স সাহেবকে বললাম, আমি বাড়িতে মাঝে মাঝে মিডিয়াম হয়ে ‘স্পিরিটের’ সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু খুব ভালো পারছি বলে মনে হচ্ছে না। মিউগেন্স সাহেবের গম্ভীর মুখের দিকে তাকিয়ে আবার বললাম, — অথচ বিলেতের কাগজে পড়েছি, এফিসিয়েন্ট মিডিয়ামের সাহায্যে তারা একান্ত আপনজনের স্পিরিট নিয়ে আসছে....
বিশদ

21st  July, 2019
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া: শুধু হাওড়া শহর সংলগ্ন এলাকায় নয়, হাওড়া জেলার প্রত্যন্ত এলাকায় এবার শিল্প স্থাপনে উদ্যোগী হল রাজ্য সরকার। তার জন্য উদয়নারায়ণপুরের কান্দুয়ায় ৪০০ একর জমি বাছা হয়েছে। তার মধ্যে ১৭০ একর জমি কেনাও হয়ে গিয়েছে। ...

সংবাদদাতা, বসিরহাট: ভ্যাপসা গুমোট গরমের শেষে একটানা বৃষ্টির স্বস্তি এখন অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে বসিরহাট পুরসভা এলাকায়। বেশিরভাগ ওয়ার্ডের রাস্তাঘাট, ঘরবাড়ি জলের তলায়। বাসিন্দাদের অভিযোগ, ...

সংবাদদাতা, বিষ্ণুপুর: বিষ্ণুপুর শহরে দলমাদল রোডে ভরসন্ধ্যায় যুবক খুনের ঘটনায় শুক্রবার রাতে পুলিস এক ফুচকা বিক্রেতাকে গ্রেপ্তার করেছে। পুলিস জানিয়েছে, ধৃতের নাম মধুসূদন মাঝি। তার বাড়ি বিষ্ণুপুর পুরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডে। অভিযোগ,ওইদিন সন্ধ্যায় ফুচকা বিক্রেতার সঙ্গে যুবকের বচসা বাধে। তা ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: গঙ্গাবক্ষে বিশ্বের দীর্ঘতম সাঁতার প্রতিযোগিতার আয়োজন করছে মুর্শিদাবাদ সুইমিং অ্যাসোসিয়েশন। ভাগীরথী নদীর উপর এই সাঁতার প্রতিযোগিতা হবে ৮১ ও ১৯ কিলোমিটার দূরত্বে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

হঠাৎ জেদ বা রাগের বশে কোনও সিদ্ধান্ত না নেওয়া শ্রেয়। প্রেম-প্রীতির যোগ বর্তমান। প্রীতির বন্ধন ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯০০: রাজনীতিক বিজয়লক্ষ্মী পণ্ডিতের জন্ম
১৯৩৬: গীতিকার ও পরিচালক গুলজারের জন্ম
১৯৫৮: ইংলিশ চ্যানেল অতিক্রম করলেন প্রথম এশীয় ব্রজেন দাস
১৯৮০: সঙ্গীতশিল্পী দেবব্রত বিশ্বাসের মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৫৯ টাকা ৭২.২৯ টাকা
পাউন্ড ৮৪.৮১ টাকা ৮৭.৯৪ টাকা
ইউরো ৭৭.৮৩ টাকা ৮০.৭৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
17th  August, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,২৪৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,২৮৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৬,৮৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৩,৯০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৪,০০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১ ভাদ্র ১৪২৬, ১৮ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, তৃতীয়া ৪৯/৪৯ রাত্রি ১/১৪। পূর্বভাদ্রপদ ২৯/২ অপঃ ৪/৫৫। সূ উ ৫/১৮/২, অ ৬/৩/১৪, অমৃতযোগ দিবা ৬/৯ গতে ৯/৩৩ মধ্যে। রাত্রি ৭/৩২ গতে ৯/২ মধ্যে, বারবেলা ১০/৫ গতে ১/১৬ মধ্যে, কালরাত্রি ১/৫ গতে ২/৩০ মধ্যে।
৩২ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৮ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, তৃতীয়া ৪৩/৯/৬ রাত্রি ১০/৩২/৩৬। পূর্বভাদ্রপদনক্ষত্র ২৬/১/৪১ দিবা ৩/৪১/৩৮, সূ উ ৫/১৬/৫৮, অ ৬/৫/৪৬, অমৃতযোগ দিবা ৬/১২ গতে ৯/৩১ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২২ গতে ৮/৫৪ মধ্যে, বারবেলা ১০/৫/১৬ গতে ১১/৪১/২২ মধ্যে, কালবেলা ১১/৪১/২২ গতে ১/১৭/২৮ মধ্যে, কালরাত্রি ১/৫/১৬ গতে ২/২৯/১০ মধ্যে।
 ১৬ জেলহজ্জ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
নেতাজিনগরে ২টি অটোর সংঘর্ষ, জখম মহিলা 

08:31:00 PM

বেনিয়াপুকুরে তরুণীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার 

06:21:00 PM

পানিহাটিতে গঙ্গায় ডুবে যাওয়া যুবকের দেহ উদ্ধার 

05:49:00 PM

পানিহাটিতে গঙ্গায় ডুবে যাওয়া যুবকের দেহ উদ্ধার 

05:46:00 PM

তপসিয়ায় বহুতলে আগুন, দমকলের ১টি ইঞ্জিনের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে 

05:43:00 PM

শেক্সপিয়র সরণীর ঘটনায় ধৃতের পুলিস হেফাজত 
শেক্সপিয়র সরণীর ঘটনায় ২৯ আগস্ট পর্যন্ত ধৃতের পুলিস হেফাজত। ...বিশদ

04:09:25 PM