Bartaman Patrika
গল্পের পাতা
 

পুণ্য ভূমির পুণ্য ধুলোয়
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায় 

চিন্তাপূর্ণী দেবী, পর্ব-১১

গাড়োয়াল হিমালয় ও সংলগ্ন হিমাচল প্রদেশে চিন্তাপূর্ণী দেবীর মান্যতা খুব। কেননা ইনিও নয় দেবীর এক অন্যতমা মহাদেবী। জ্বালামুখী ও কাংড়ার খুব কাছেই চিন্তাপূর্ণী দেবীর স্থান। নগরকোট কাংড়া থেকে চিন্তাপূর্ণীর দূরত্ব ৫০ কিমির মতো। জ্বালামুখী থেকে দূরত্ব ৩৪ কিমি। একান্ন মহাপীঠের অন্তর্গত এই পুণ্যক্ষেত্রে সতীর দক্ষিণ-চরণের কিছু অংশ পতিত হয়েছিল। কথিত আছে— সতী এখানেই ছিন্নমস্তা হয়ে তাঁর দশমহাবিদ্যা রূপ মহাদেবকে দেখিয়েছিলেন। তাই এই ক্ষেত্রের মান্যতা এখানে সর্বাধিক।
আমি বেশ কয়েকবার নানা তীর্থ পরিভ্রমণকালে জ্বালামুখী ও কাংড়াতে এলেও চিন্তাপূর্ণীতে কিন্তু একবারই গিয়েছি।
জ্বালামুখী বাসস্ট্যান্ড থেকে চিন্তাপূর্ণীর ঘন ঘন বাস ছাড়ে। পথের দূরত্ব আগেই বলেছি। ঘন জঙ্গলের মধ্য দিয়েই পথ। বাণগঙ্গার সেতু পার হয়ে একের পর এক ঘাট অতিক্রম করে ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই পৌঁছনো যায় চিন্তাপূর্ণীতে। উচ্চতা ৩ হাজার ৯০০ ফুট।
বাসস্ট্যান্ডের পিছন দিক দিয়েই মন্দির মার্গ। পথ শেষ হয়েছে পর্বতের উচ্চশিখরে। প্রায় এক কিমির মতো হেঁটে উঠতে হবে পাহাড়চূড়ায়। জনবহুল পথ। পথের দু’পাশে অজস্র হোটেল, লজ ও উন্নতমানের ধর্মশালা। ভক্ত তীর্থযাত্রীরা মনস্কামনায় অথবা মনোবাঞ্ছা পূর্ণ হওয়ার আনন্দে দলে দলে পুজো দিতে যান। কেউ পূজার ডালি নিয়ে, কেউ বাজনাবাদ্যি বাজিয়ে নৃত্যগীত সহকারে যান দেবীর মন্দিরে। জ্বালামুখীর চেয়েও অনেক বেশি ভক্তের সমাগম হয় এখানে।
চিন্তাপূর্ণী হল উনা জেলার অন্তর্গত। প্রতি বাসন্তী ও শারদ নবরাত্রে এত যাত্রীর সমাগম হয় এখানে যে, তখন দর্শন করাও দীর্ঘ সময়ের ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। তাছাড়া শ্রাবণ মাসের শুক্লপক্ষেও বিরাট এক মেলা বসে।
কোনওরকম মানতের ব্যাপার না থাকলে চিন্তাপূর্ণী দর্শন জ্বালামুখী থেকেই সেরে নেওয়া উচিত। পাহাড়ের মাথায় অনেকখানি প্রশস্ত ও ঘেরা জায়গার মধ্যে একটি সুপ্রাচীন কল্পবৃক্ষকে কেন্দ্র করে এখানকার মন্দিরের অবস্থান। দেবী এখানে ছিন্নমস্তা। এখানেই মহাদেবকে তাঁর মহাশক্তির প্রদর্শন করিয়ে ছিলেন। ছিন্নমস্তা হয়ে তিনি চিন্তাপূর্ণী দেবী, বৈষ্ণোদেবীর মতোই পিণ্ডিরূপা।
সুরম্য ছোট্ট এই দেবীর মন্দির ঘিরে বহু যাত্রীর ঢল। তাই অসময়েও লাইনে দাঁড়িয়ে পুজো দিতে হয়। পিণ্ডিরূপা দেবীকে দর্শন করে অন্যদের মতো আমি ধন্য হলাম। ভক্তদের দানে দেবীর মস্তকে সোনা-রূপার বেশ কয়েকটি ছোট-বড় ছাতা। শুধু তাই নয়, মন্দিরগাত্র থেকে চূড়াটি পর্যন্ত সবই স্বর্ণময়। আসলে এই দেবী সবার মনস্কামনা পূর্ণ করেন বলেই ভক্তদের দানে এত বৈভব।
ধৌলাধারের ঘন তুষারাবৃত পর্বতমালার একদিকে এই দেবীপীঠ, অন্যদিকে অনবদ্য পরিবেশে প্রসাদ গ্রহণ ও বিতরণের পালা দেখে নিজেকে যেন আর ঠিক রাখা যায় না। এরই মধ্যস্থলে যে কল্পবৃক্ষ তাকে ঘিরেই শত শত যাত্রীর উন্মাদনা। সুপ্রাচীন সেই গাছটি এখন আর নেই। তার গুঁড়িটি অবশিষ্ট মাত্র। তারই গা থেকে যে সব ডালপালা। তাতেই কামনা পূরণের আশায় চুনোরি বাঁধার সে কী ধুম।
এই দেবী এখানে কীভাবে প্রকট হলেন সে নিয়ে একটি প্রচলকথা আছে—
বহুকাল আগে মাইদাস নামে দেবী চণ্ডিকার এক পরম ভক্ত এই স্থানটি আবিষ্কার করেন। মাইদাস তাঁর ব্যবসায়ী পিতার কাজে মন দিতেন না বলে একবার তিনি গৃহ হতে বিতাড়িত হন। মাইদাস তখন শাসনমুক্ত হয়ে পরম নিশ্চিন্তে এই পার্বত্য প্রদেশের গভীর বনাঞ্চলে গিয়ে অত্যন্ত নিষ্ঠার সঙ্গে দেবীর আরাধনা করতে থাকেন। মাইদাস যেখানে বনমধ্যে বটবৃক্ষমূলে আশ্রয় নিয়েছিলেন সেই জায়গার নাম ছপরোহ। বিশ্রামকালে এখানেই তিনি ঘুমের মধ্যে স্বপ্ন দেখলেন এক দিব্যজ্যোতিসম্পন্না কন্যা তাঁকে বলছেন, ‘ভক্ত মাইদাস! তুমি এখানে থেকেই আমার সাধনা করো, এতেই তোমার ভালো হবে।’
স্বপ্নভঙ্গে কাউকেই তিনি দেখতে না পেয়ে বারে বারে দেবীর ধ্যান ও আরাধনা করতে লাগলেন।
দেবী তখন চতুর্ভুজা সিংহবাহিনী মূর্তিতে দর্শন দিলেন মাইদাসকে। বললেন, ‘পুরাকালে আমি এই স্থানেই দেবাদিদেবকে আমার ছিন্নমস্তা রূপ দেখিয়েছিলাম। এই বটবৃক্ষতলেই আমার স্থিতি। আমি ছিন্নমস্তা হলেও সকলের চিন্তা দূর করার জন্য চিন্তাপূর্ণী নামেই এখানে প্রসিদ্ধ হব।’ তারপর আরও বললেন, ‘এই স্থান থেকে একটু নীচে একটি বড় পাথর দেখতে পাবে। সেই পাথর সরালেই সুপেয় জল পাবে। ওই জলেই আমার পূজা ও তোমার তৃষ্ণা দূর হবে।’
মাইদাস সেই নির্দেশ মতোই দেবীর পীঠকে জাগ্রত করতে লাগলেন।
পরবর্তীকালে দেবীর মহিমায় এই স্থান এক মহান তীর্থে পরিণত হল। গড়ে উঠল মন্দির। অগণিত ভক্ত সমাগমে পাহাড় ও বনতল এখন জমজমাট। দেবীর নির্দেশে মাইদাস যে বড় পাথরটিকে উৎখাত করে জলের প্রবাহ ঘটিয়ে ছিলেন সেটি পরবর্তীকালে চিন্তাপূর্ণীর মন্দিরে নিয়ে এসে রাখা হয়েছে। এই পাথরটিরও এখন নিয়মিত পূজা হয়। এখান থেকে বেশ কয়েকটি সিঁড়ি অতিক্রম করে একটু নীচে নেমে সেই জলাশয়ের অমৃতবারিও স্পর্শ করেন তীর্থযাত্রীরা। এই জলেই দেবীর অভিষেক হয়। জলাশয়ের স্থানটি এখন অনেক প্রশস্ত। ধনী শেঠরা দেবীর স্বপ্নাদেশে, কেউ কেউ মনোবাঞ্ছা পূর্ণ হওয়ার আনন্দে এটিকে বড় তালাও বা কুণ্ডের চেহারা দিয়ে চারদিক সুন্দরভাবে বাঁধিয়ে দিয়েছেন। কাংড়া বা জ্বালামুখী তীর্থপথে চিন্তাপূর্ণী তাই এক অনবদ্য দেবীস্থান।
(ক্রমশ)
অলংকরণ : সোমনাথ পাল 
12th  May, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায় 

১৫
নিস্তব্ধ নির্জন ঘর, দেবতা বিশ্রাম করছেন খাটে। ঘরের এককোণে চুপ করে বসে আছেন মতিলাল। প্রদীপটা তখনও মিটমিট করে জ্বলছে। সময় যেন আর কাটতেই চাইছে না। মাঝে একটু তন্দ্রাচ্ছন্ন মতো হয়ে পড়েছিলেন মতিলাল। সেই রেশ কাটাতে তিনি ঘরের ভেতর পায়চারি করতে শুরু করলেন।  
বিশদ

16th  June, 2019
পুন্য ভূমির পুন্য ধুলোয়
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায় 

মৈহর পীঠ, পর্ব-১৫
মৈহর হল মধ্যপ্রদেশের সাতনা জেলা তহশিলের এক প্রসিদ্ধ দেবীস্থান। একান্ন পীঠের অন্তর্গত পীঠ না হলেও উপপীঠ। এখানে সতীর দেহাংশ নয় কণ্ঠহার পড়েছিল। এই পুণ্যভূমিতেই ত্রিকূট পর্বতের চূড়ায়। সতীমাঈ কি হার। তাই থেকেই মাঈহার, মৈহার ও বর্তমানে মৈহর।  
বিশদ

16th  June, 2019
প্রাণেশদার শান্তিনিকেতন
আশিস ঘোষ 

স্টাফরুমে বসেছিলাম। ঘরের টিউব লাইট খারাপ থাকায় আবছা অন্ধকার। একটু আগেই এক পশলা বৃষ্টি হয়েছে। একটু যেন শীত শীত ভাব। অশোক কথা বলছিল। আমাদের কয়েকজনের অফ পিরিয়ড। কোনও তাড়া নেই। আড্ডা বেশ জমে উঠেছে। এমন সময় খবর এল, প্রাণেশবাবু আর নেই। 
বিশদ

16th  June, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায় 

১৪

কথাসাহিত্যিক শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের পিতা মতিলাল চট্টোপাধ্যায়। ভাগ্যদেবী কোনওদিনই এই মানুষটির প্রতি বিন্দুমাত্র সদয় ছিলেন না। চিরকালই তিনি তাঁর কৃপা-করুণা লাভে বঞ্চিত থেকেছেন। ফলস্বরূপ তাঁর পরিবার পরিজনকে যথেষ্ট সঙ্কটের মধ্যেই দিন কাটাতে হতো।  
বিশদ

09th  June, 2019
পুন্য ভূমির পুন্য ধুলোয়
দেবী ত্রিপুরমালিনী
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায় 

পর্ব-১৪

এবার বলি দেবী ত্রিপুরমালিনীর কথা। পীঠ নির্ণয় তন্ত্রে আছে ‘ভীষণা ভৈরবস্তত্র দেবী ত্রিপুরমালিনী’। পাঞ্জাব প্রদেশে এই সতীপীঠ জলন্ধর পীঠ নামে খ্যাত। কিন্তু এই পীঠ সম্বন্ধে নানারকম বিভ্রান্তিকর তথ্য পাওয়ার কারণে এর সঠিক অবস্থান কিছুতেই নির্ণয় করতে পারিনি।  বিশদ

09th  June, 2019
দাদা, কেমন আছ?
 অমর মিত্র

দাদা, কেমন আছ?
কে বলছ? বীরেন জিজ্ঞেস করে।
দাদা, আমি অনুপ।
কোন অনুপ?
গলার স্বরে বুঝতে পারছ না, বেলঘরিয়ার অনুপ।
ও, মিত্রা সিনেমার অনুপ? বীরেন চিনতে পারে।
 
বিশদ

09th  June, 2019
পুন্য ভূমির
পুন্য ধুলোয়
কালকার কালিকা দেবী
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়

কালকার কালিকা দেবী দর্শনে কোনও দুর্গম পন্থার পথিক হতে হবে না। কলকাতা থেকে কালকায় যাওয়ার একমাত্র ট্রেন দিল্লি কালকা মেল। এছাড়াও আম্বালা ক্যান্ট থেকে কালকাগামী বাসে কালকায় আসা যায়। তবে নয়নাদেবীর যাত্রীদের উচিত ফেরার পথে চণ্ডীগড়ে এসে কালকায় যাওয়া। চণ্ডীগড় থেকে কালকার দূরত্ব মাত্র ২৫ কিলোমিটার।
বিশদ

26th  May, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়

 দীনবন্ধু মিত্র সেইসময় কর্মসূত্রে যশোরে বসবাস করেন। তাঁর বাড়ির খুব কাছেই এক কুলীন বৃদ্ধের বাড়ি। সদ্য সেই বৃদ্ধের তরুণী স্ত্রী কয়েকদিনের জ্বরে ভুগে গত হয়েছেন। তাঁদের একটি আট ন-বছরের কন্যা সন্তান রয়েছে। স্ত্রী রোগ শয্যায় শুয়ে বৃদ্ধ স্বামীর দুটি হাত ধরে অনুরোধ করে বলেছিলেন, তুমি খুকির মুখ চেয়ে আর বিয়ে করো না।
বিশদ

26th  May, 2019
পুণ্য ভূমির পুণ্য ধুলোয়
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়  

নয়নাদেবী, পর্ব-১২

শিবালিক পর্বতমালার উত্তমশৃঙ্গে রমণীয় পরিবেশে নয়নাদেবীর অধিষ্ঠান। নয়নাদেবীতে সতীর দুটি নয়নই পতিত হয়েছিল। কিন্তু কোথায় সেই স্থান? সচরাচর কোনও যাত্রীরও যাতায়াত নেই সেখানে।  
বিশদ

19th  May, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়  

১২
অভাব অনটন তাঁর পরিবারের নিত্য সঙ্গী তবু পিতা কালাচাঁদ মিত্র আদর করে পুত্রের নাম রাখলেন গন্ধর্বনারায়ণ।১৮৩০ সালে নদীয়া জেলার চৌবেড়িয়া গ্রামে জন্ম হল বাংলার এই অন্যতম কৃতী সন্তানের।  
বিশদ

19th  May, 2019
ব্যাডমিন্টন
মণিদীপ রায় 

সাড়ে আটটার লোকালটা যদি টাইমে আসে তাহলে নির্ঘাত মিস। কোনদিনই অবশ্য আসে না, এটুকুই যা ভরসা। প্লেটে একখানা আস্ত পরোটা, হাতে মেরেকেটে আর পাঁচটা মিনিট। অপর্ণা চায়ের কাপটা আমার দিকে এগিয়ে দিয়ে বলল, ‘এতো দামি গাড়িটা কিনলে বসিয়ে রাখার জন্যে?’ অপর্ণা বেছে বেছে ঠিক এই সময়টাই বের করে তার দাবি দাওয়া পেশ করার জন্য। 
বিশদ

19th  May, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায় 

১১

‘নিশীথ রাক্ষসীর কাহিনী’— সাহিত্যসম্রাট বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের অসমাপ্ত এক কাহিনী। এই লেখাটি তিনি শেষ করে যেতে পারেননি। লেখাটি শুরু করে বেশ কিছুটা এগবার পরই তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন।  
বিশদ

12th  May, 2019
ছায়া আছে কায়া নেই 
অপূর্ব চট্টোপাধ্যায়

১০
ফেরার পথে আর হেঁটে নয়, গাড়িতে করেই বাড়ি ফিরে এলেন দুই বন্ধু। তারপর নিস্তেজ নার্ভকে সতেজ করার জন্য দু কাপ গরম পানীয় নিয়ে তাঁরা মুখোমুখি বসলেন। তখনও তাঁদের ঘোর পুরোপুরি কাটেনি।  
বিশদ

05th  May, 2019
পুণ্য ভূমির পুণ্য ধুলোয়
ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়

জ্বালামুখী, পর্ব-১০

হিঙ্গুলায়া মহাস্থানং জ্বালা মুখ্যাস্তথৈব চ। একান্ন সতীপীঠের অন্তর্গত এই জ্বালামুখীতে আমি প্রথম গিয়েছিলাম তেইশ বছর বয়সে। তারপর তো বিভিন্ন সময়ে কয়েকবার।
এ যাত্রায় কাংড়া দুর্গ দেখার পর এখানে রাত্রিবাস না করে বাসস্ট্যান্ডে এসে পঁচিশ কিমি দূরে জ্বালামুখীতে পৌঁছলাম।
বিশদ

05th  May, 2019
একনজরে
 ম্যাঞ্চেস্টার, ১৮ জুন: পাঁচ ম্যাচে মাত্র তিন পয়েন্ট। লিগ তালিকায় এই মুহূর্তে নবম স্থানে রয়েছে পাকিস্তান। শেষ ম্যাচে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের কাছে ৮৯ রানে চূর্ণ হওয়ার পর ঘরে-বাইরে প্রচণ্ড সমালোচিত হয়েছেন পাক ক্রিকেটাররা। পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম এবং প্রাক্তনীরা সরফরাজ-ব্রিগেডের উপর তোপের পর ...

বিএনএ, পুন্ডিবাড়ি, কোচবিহার: মঙ্গলবার কোচবিহারে উত্তরবঙ্গ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়য়ের অডিটোরিয়ামে ‘জয় শ্রীরাম ধ্বনি’ দিয়ে তৃণমূল প্রভাবিত কর্মচারী সমিতির সভা ভণ্ডুল করার অভিযোগ উঠেছে বিজেপির বিরুদ্ধে। বিজেপির ...

  শ্রীনগর, ১৮ জুন (পিটিআই): মঙ্গলবার জম্মু-কাশ্মীরের অনন্তনাগে এনকাউন্টারে খতম দুই জয়েশ-ই-মহম্মদের জঙ্গি। হত দুই জঙ্গির মধ্যে একজন পুলওয়ামায় হামলার সঙ্গে জড়িত ছিল বলে স্থানীয় পুলিস জানিয়েছে। আর এই গুলির লড়াইয়ে এক জওয়ান গুরুতর জখম হন। তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে ...

 ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মপ্রার্থীদের কোনও চুক্তিবদ্ধ কাজে যুক্ত হওয়ার যোগ আছে। ব্যবসা শুরু করা যেতে পারে। বিবাহের যোগাযোগ ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৪৭- লেখক সলমন রুশদির জন্ম,
১৯৭০- রাজনীতিক রাহুল গান্ধীর জন্ম,
১৯৮১- ভারতে টেস্ট টিউব বেবির জনক সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যু,
২০০৮- বর্তমানের প্রতিষ্ঠাতা-সম্পাদক বরুণ সেনগুপ্তের মৃত্যু 

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.০৩ টাকা ৭০.৭২ টাকা
পাউন্ড ৮৫.৯৪ টাকা ৮৯.১১ টাকা
ইউরো ৭৭.০০ টাকা ৭৯.৯৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৩,৪৬৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩১,৭৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩২,২২৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৭,১৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৭,২৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৪ আষা‌ঢ় ১৪২৬, ১৯ জুন ২০১৯, বুধবার, দ্বিতীয়া ২৬/৩৫ দিবা ৩/৩৪। পূর্বাষাঢ়া ২১/২৩ দিবা ১/৩০। সূ উ ৪/৫৯/৯, অ ৬/১৯/১২, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৭ গতে ১১/১১ মধ্যে পুনঃ ১/৫১ গতে ৫/২৫ মধ্যে। রাত্রি ৯/৫২ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৯ গতে ১/২৪ মধ্যে, বারবেলা ৮/১৭ গতে ৯/৫৭ মধ্যে পুনঃ ১১/৩৮ গতে ১/১৮ মধ্যে, কালরাত্রি ২/১৭ গতে ৩/৩৭ মধ্যে। 
৩ আষাঢ় ১৪২৬, ১৯ জুন ২০১৯, বুধবার, দ্বিতীয়া ২৪/১৯/০ দিবা ২/৩৯/৬। পূর্বাষাঢ়ানক্ষত্র ২০/৫৮/৩৭ দিবা ১/১৮/৫৭, সূ উ ৪/৫৫/৩০, অ ৬/২১/৫৪, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪০ গতে ১১/১৪ মধ্যে ও ১/৫৫ গতে ৫/২৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/৫৫ মধ্যে ও ১২/২ গতে ১/২৭ মধ্যে, বারবেলা ১১/৩৮/৪৩ গতে ১/১৯/২১ মধ্যে, কালবেলা ৮/১৭/৭ গতে ৯/৫৭/৫৫ মধ্যে, কালরাত্রি ২/১৭/৩ গতে ৩/৩৬/১৯ মধ্যে। 
১৫ শওয়াল 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
বিশ্বকাপ: আফগানিস্তানকে ১৫০ রানে হারাল ইংল্যান্ড

18-06-2019 - 10:48:34 PM

স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে নিরাপত্তা, চালু কলকাতা পুলিসের হেল্প লাইন 
গতকাল মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ পাওয়ার পর স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে নিরাপত্তা জনিত সমস্যার ...বিশদ

18-06-2019 - 09:48:24 PM

বিশ্বকাপ: আফগানিস্তান ৮৬/২ (২০ ওভার) 

18-06-2019 - 08:17:00 PM

দার্জিলিং পুরসভায় প্রশাসক নিয়োগ করল রাজ্য সরকার 

18-06-2019 - 08:08:39 PM

জাপানে বড়সড় ভূমিকম্প, মাত্রা ৬.৫, জারি সুনামি সতর্কতা 

18-06-2019 - 07:34:58 PM

বিশ্বকাপ: আফগানিস্তান ৪৮/১ (১০ ওভার) 

18-06-2019 - 07:05:00 PM