Bartaman Patrika
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 

ভোট মানেই তো
স্লোগানের ছড়াছড়ি
কল্যাণ বসু

ভোটের মাঠে হরেক রকমের সুর। স্লোগানে মেলে ছড়ার ছন্দ। গ্রাম-শহরের অলি-গলি ছাপিয়ে রাজপথে মাইকে ভাসে সেই ছন্দময় স্লোগান। চলে স্লোগান নিয়ে শাসক-বিরোধীর আকচা-আকচিও। বহু স্লোগান দাগ কেটে যায় দেশের মাটিতে। বহুকাল টিকে থাকে তার স্মৃতিও। দেশের সৈনিক ও কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করার জন্য ১৯৬৫ সালে তদানীন্তন প্রধানমন্ত্রী লালবাহাদুর শাস্ত্রীর স্লোগান  ‘জয় জওয়ান,  জয় কিষান’  আজও তো কত ইতিহাসের সাক্ষী। ১৯৬৭ সালের নির্বাচনে কংগ্রেস ও তামাককে একাসনে বসিয়ে ভারতীয় জনসঙ্ঘের তরফে এক অদ্ভুত স্লোগান তোলা হয়েছিল।  ‘জনসঙ্ঘ কো ভোট দো, বিড়ি পিনা ছোড় দো;  বিড়ি মে তামাকু হ্যায়, কংগ্রেসওয়ালা ডাকু হ্যায়।’  সেই সময়ই জনসঙ্ঘ স্লোগান তুলেছিল: ‘কোন করেগা দেশ অখন্ড,  ভারতীয় জনসঙ্ঘ, ভারতীয় জনসঙ্ঘ।’ সেই ষাটের দশকেই উন্নয়নকে মুখ্য হাতিয়ার হিসাবে প্রয়োগ করে রাজনৈতিক প্রচারে এসেছিল কংগ্রেসের আরও এক স্লোগান।  ‘প্রোগ্রেস থ্রু কংগ্রেস’।  অর্থাৎ, কংগ্রেসের হাত ধরেই উন্নয়ন। শিবসেনা কংগ্রেসের এই স্লোগানকে প্রশ্নচিহ্নের মধ্যে দাঁড় করিয়ে দিয়ে স্লোগান তুলেছিল  ‘কংগ্রেস আর প্রোগ্রেস?’
সাতের দশকের কথাই ধরুন। মাত্র দুটি শব্দে কেঁপে উঠেছিল গোটা দেশ। গরিবি হঠাও। এই স্লোগানটাই ৭১-এ ম্যাজিকের মতো কাজ করেছিল। আসমুদ্র হিমাচল ইন্দিরা গান্ধীর কথায় বিশ্বাস করেছিল। এত প্রভাবী স্লোগান ভারতে খুব কমই হয়েছে। ইন্দিরা গান্ধীর জমানায় তাঁকে এবং কংগ্রেসকে নিয়েই পক্ষে-বিপক্ষে স্লোগানের ফুলঝুড়ি। ষাটের দশকে ভোটের প্রচারে ব্যবহৃত একটা জনপ্রিয় স্লোগান ছিল  ‘ভোট ফর কাফ অ্যান্ড কাউ, ফরগেট অল আদারস নাউ।’  তবে, ইন্দিরা গান্ধীর নিজের স্লোগান  ‘গরিবি হটাও’  সম্ভবত দেশের অন্যতম সেরা। আজও। গরিবি হটাও-এর স্লোগান হল একেবারে পাকা মাথার কাজ। পুরোদস্তুর রাজনৈতিক স্লোগান এবং অনেক ভেবেচিন্তে এই অমোঘ বাক্যবন্ধ তৈরি হয়েছিল। বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের পর প্রধানমন্ত্রী হিসাবে তিনি এই স্লোগান দিয়ে ১৯৭১-এর নির্বাচনে কংগ্রেসের জয় এনে দিয়েছিলেন। তবে  ‘গরিবি হটাও’  ধাঁচে এরপর আরও স্লোগান হয়েছে।  যেমন — জয়প্রকাশ নারায়ণের  ‘ভ্রষ্টাচার হটাও।’  একই স্লোগান নিয়ে মোররাজি দেশাই গুজরাতের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রীর দুর্নীতি ও তাঁকে হঠানোর দাবিতে অনশনে বসে গেলেন। ইন্দিরা সেই দাবি মেনে নিলেন। স্লোগানও প্রতিষ্ঠিত হয়ে গেল।
১৯৭৮ সালে কর্ণাটকের চিকমাগালুর উপনির্বাচনে জয়ী হয়েছিলেন ইন্দিরা গান্ধী। সেই নির্বাচনে স্লোগান ছিল  ‘এক শেরনি,  শ লাঙ্গুর,  চিকমাগালুর ভাই চিকমাগালুর।’  এর সৃষ্টিকর্তা ছিলেন কংগ্রেসপন্থী কবি শ্রীকান্ত ভার্মা। সেই ইন্দিরা দেশে জরুরি অবস্থা লাগু করার পর জনতা পার্টির নেতৃত্বাধীন বিরোধী শক্তি তাঁরই স্লোগানের অনুকরণে স্লোগান তুলেছিল  ‘ইন্দিরা হটাও,  দেশ বাঁচাও।’  জরুরি অবস্থার সময় দেবকান্ত বড়ুয়ার  ‘ইন্দিরা ইজ ইন্ডিয়া’  স্লোগানটি কার্যত বুমেরাং হয়ে ফিরেছিল নির্বাচনে। ইন্দিরা খুন হওয়ার পর শোকের হাওয়া তুলে কংগ্রেসের স্লোগান হয়েছিল: ‘যব তক সুরজ চাঁদ রহেগা,  ইন্দিরা তেরা নাম রহেগা।’  ১৯৮৪-র নির্বাচনে বিপুলভাবে জিতেছিল কংগ্রেস। একসময় বিহারের লালুপ্রসাদ যাদবকে উদ্দেশ্য করে তাঁর ভক্তবৃন্দও এই জাতীয় স্লোগান দিয়েছিল:  ‘যব তক রহেগা সমোসে সে আলু, তব তক রহেগা বিহার মে লালু।’
নকশালদের স্লোগানও একসময় যুবসমাজকে আকৃষ্ট করত। যেমন, জনগণ যখনই চায় বস্ত্র ও খাদ্য, সীমান্তে বেজে ওঠে যুদ্ধের বাদ্য। নকশালরাই এই বাংলায় লাঠি ও ট্রিগার-হ্যাপি পুলিসের বিরুদ্ধে তুলেছিল স্লোগান, ‘পুলিস তুমি যতই মারো, মাইনে তোমার একশো বারো’। প্রণব মুখোপাধ্যায়কে ‘আঙ্কেল ডাঙ্কেল’ বলে স্লোগান তো বামেদেরই দেওয়া।
ভোট তথা রাজনীতির স্লোগান মূলত নেতা-মন্ত্রীর মুখ নিঃসৃত হলেও দেওয়াল লিখনে,  পোস্টারে,  বক্তৃতায়ও নানারকম স্লোগান জন্ম নেয়। সেই সব স্লোগান অনেক সময় আকর্ষণীয় ছড়ার আদলে উঠে আসে। অনেক সময় বিখ্যাত ছড়াকার বা কবির পংক্তিও স্লোগান হিসাবে পরিবেশিত হয়। সেই সব পংক্তি যেমন জাতীয় ইস্যুকে নিয়ে হয়, তেমনই আঞ্চলিক বিষয়ও মুখ্য হয়। নির্ভর করে নির্বাচনের প্রকৃতির উপর অর্থাৎ লোকসভা, বিধানসভা,  পঞ্চায়েত না পৌর নির্বাচন। এরকম অসংখ্য রয়েছে।
স্বাধীনোত্তর সময়ে প্রথম কয়েক দশক রাজনৈতিক দলগুলির প্রতীক নিয়ে ছড়া ছোঁড়াছুড়ি হতো। যেমন,  কংগ্রেস যদি বলত  ‘ভোট দেবেন কোথায়/ জোড়া বলদ যেথায়’,  তাহলে সিপিএম বলত  ‘ভোট দিন বাঁচতে/ তারা হাতুড়ি কাস্তে।’  বামেরা বিদ্রুপ করে বলত  ‘জোড়া বলদের দুধ নেই/ কংগ্রেসেরও ভোট নেই।’  নাছোড় কংগ্রেসও ১৯৬২ সালের চীন-ভারত সীমান্ত সংঘর্ষে সিপিএমের ভূমিকাকে সমালোচনা করে বলেছিল, ‘চীনের চিহ্ন কাস্তে হাতুড়ি/ পাকিস্তানের তারা/ এখনও কি বলতে হবে/ দেশের শত্রু কারা?’
ব্যক্তি আক্রমণ করেও কম বুলি ছাড়া হতো না। ১৯৬৭ সালে খাদ্য আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে বামপন্থীরা বলেছিল:  ‘দু’ আনা সের বেগুন কিনে/ মন হল প্রফুল্ল/ বাড়িতে এসে কেটে দেখি সব/ কানা অতুল্য।’  ইন্দিরা গান্ধীকে জুড়ে দিয়ে বলা হতো, ‘ইন্দিরা মাসি বাজায় কাঁসি/ প্রফুল্ল বাজায় ঢোল/ আয় অতুল্য ভাত খাবি আয়/ কানা বেগুনের ঝোল...।’  কংগ্রেসও জ্যোতিবাবুকে জড়িয়ে স্লোগান তুলেছিল:  ‘অনিলা মাসি বাজায় কাঁসি/ জ্যোতি বাজায় ঢোল/ আয় প্রমোদ ভাত খাবি আয়/ মাগুর মাছের ঝোল।’
ততদিনে কংগ্রেসের প্রতীক গাই-বাছুরের বদলে হাত হয়েছে। সিপিএমের তরফে কমরেডরা বললেন, ‘শুনলেও হাসি পায়/ কাটা হাতে ভোট চায়।’ কংগ্রেসও স্লোগান তুলেছিল, ‘সিপিএমের তিনটি গুণ/ লুট, দাঙ্গা, মানুষ খুন।’  বামেদের বিরুদ্ধে এও শোনা গেল, ‘দিনের বেলায় কৌটা নাড়ায়/ রাত্রে করে ফিস্ট/ এরাই আবার চেঁচিয়ে বলে/ আমরা কমিউনিস্ট।’
ভ্রান্তিবিলাসী বঙ্গীয় বামেরা তাঁদের সুদীর্ঘ শাসনকালে অজস্র ভুলের যে রেট্রোস্পেক্টিভ তুলে ধরেছিলেন তার অন্যতম একটা হল রবীন্দ্রনাথকে গালমন্দ করা। মার্কস-স্তালিন-লেলিনে যখন আর কাজ হচ্ছিল না এবং বিলম্বিত বোধদয়ে যখন তাঁরা বুঝলেন বঙ্গবাসীর কাছে রবীন্দ্রনাথ দেবতার মতো, তখন বাধ্য হয়ে তাঁরা রবীন্দ্রভজনায় মগ্ন হলেন। এবং এটা স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিমায় অকপটে শুরু করলেন প্রয়াত জননেতা সুভাষ চক্রবর্তী। ‘আমি তোমাদেরই লোক’ প্রচারের প্রাচুর্যে প্রাবল্যে এমন পর্যায়ে পৌঁছেছিল যে সাধারণ মানুষ ভেবেছিল এটা যেন সুভাষ চক্রবর্তীরই স্লোগান। অথচ রবীন্দ্রনাথের  ‘সেঁজুতি’  কাব্যগ্রন্থের  ‘পরিচয়’  কবিতাটির শেষ চারটি লাইন হল— ‘মোর নাম এই বলে খ্যাত হোক,/  আমি তোমাদেরই লোক/ আর কিছু নয়,/  এই হোক শেষ পরিচয়।’  এমনকী সুভাষ চক্রবর্তীর মৃত্যুর পর জনসমুদ্র নিয়ে শেষ যাত্রায়ও এই প্রথম দু’টি লাইনই মুখ্য স্লোগান ছিল। বাম জামানার শেষ দিকে এবং বর্তমানে বামেরা এই হৃদয়াকর্ষী স্লোগানটিকে সেভাবে আর ব্যবহার করতে পারল না।
জ্যোতি বসুর পর যিনি মুখ্যমন্ত্রীর আসনটিতে বসেছিলেন সেই বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের অবশ্য দুটো বিখ্যাত স্লোগান আছে। প্রথমটি ছিল বাম আমলে পার্টিবাজির সর্বগ্রাসী সংস্কৃতির কারণে সরকারি কর্মচারীদের তলানিতে পৌঁছানো কর্মসংস্কৃতি ফেরানোর জন্য। আসলে জ্যোতিবাবুর আমলেই তৈরি হওয়া কর্মবিমুখ এই দলবাজমণ্ডলী যখন বুমেরাং হয়ে ফিরেছিল তখন স্বয়ং জ্যোতিবাবু বিরক্ত হয়ে বলেছিলেন, ‘কাকে কাজ করতে বলব, চেয়ারকে?’
আসলে কাজ করার জন্য চেয়ারে যে কাউকে পাওয়া যেত না! বুদ্ধদেববাবুর আমলেও পার্টিজান কর্মচারীবৃন্দ স্বমহিমায় পল্লবিত। তবে জ্যোতিবাবুর মতো স্বগতোক্তি না করে বুদ্ধবাবু সরাসরি বললেন, ‘ডু ইট নাউ।’ রাতারাতি স্লোগান হিট। কাজের কাজ যা-ই হোক না কেন রসিকতার ছলে হলেও বেশ কিছুদিন এই স্লোগান মানুষের মুখে মুখে ঘুরেছে।
বুদ্ধবাবুর দ্বিতীয় স্লোগানটিও বেশ বিখ্যাত হয়েছিল। কারণ সেটাতে গ্রেট লিপ ফরয়ার্ডের মতো একটা উলম্ফনের গল্প ছিল। ক্রমাগত কলকারখানা বন্ধ হয়ে যাওয়া, নতুন শিল্প স্থাপনে মন্দা, ক্রমবর্ধমান বেকারত্ব যখন দীর্ঘ বাম জামানার ব্যর্থতাকে প্রকট করে তুলেছিল তখন ভোট বৈতরণী পার হওয়ার জন্য বাজারে ছাড়া হয়েছিল সেই স্লোগান: ‘কৃষি আমাদের ভিত্তি, শিল্প আমাদের ভবিষ্যৎ।’  কিন্তু শুকনো কথায় যে চিড়ে ভেজেনি,  বামফ্রন্ট সরকারের ভরাডুবি সেটাই প্রমাণ করেছে।
 
দেশে কংগ্রেস সরকারের আমলে মুদ্রাস্ফীতিকে বড় করে দেখাতে তদানীন্তন জনসঙ্ঘের তরফে যে মজার স্লোগানটি দেওয়া হয়েছিল সেটি হল:  ‘ইয়ে দেখো ইন্দিরা কি খেল,  খা গায়ি সাক্কার পি গায়ি তেল।’  ১৯৮৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসকে নিষ্প্রভ করে দিয়েছিল ভি পি সিংয়ের  ‘গলি গলি মে শোর হ্যা,  রাজীব গান্ধী চোর হ্যা’  স্লোগান। সেই সময় ওই স্লোগান তো মানুষের মুখে মুখে ফিরত। এই বফর্সের জন্য সরকার হারাতে হয়েছিল রাজীবকে। এই স্লোগান তার জন্য অনেকটা দায়ী।
কংগ্রেসের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে ভারতীয় রাজনীতিতে বিজেপির উত্থানের সঙ্গে সঙ্গে নানা রকম স্লোগানেরও জন্ম হয়।  ‘জয় শ্রীরাম’ তো আসমুদ্র হিমাচল জুড়ে বিভিন্ন সময় কম্পন তৈরি করে। বিশ্ব হিন্দু পরিষদের দ্বারা হিন্দুত্বের জিগির তোলা স্লোগান ‘বাচ্চা বাচ্চা রাম কা,  জন্মভূমিকা কামকা’, ‘মন্দির ওহি বানায়েঙ্গে’ ধ্বনিতে তো গোটা দেশ মুখরিত হয়ে ওঠে।
ভারতীয় রাজনীতিতে উত্তরপ্রদেশের রাজনীতি বরাবর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। অযোধ্যার বিতর্কিত মসজিদ ধ্বংসের পর সেই রাজ্যের রাজনীতি যখন  ‘শ্রী রাম’  ধ্বনিতে মুখর তখন মুলায়াম সিং যাদব ও কাঁসিরাম এক জোট হয়ে সরকার গড়েছিলেন। সেই সময় শোনা গিয়েছিল আর এক স্লোগান:  ‘মিলে মুলায়েম কাঁসিরাম,  হাওয়া হো যায়ে জয় শ্রী রাম।’ ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে কংগ্রেস হাতিয়ার করেছিল প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নরসিমা রাওয়ের স্লোগান: ‘জাত পর না পাত পর,  মোহর লাগেগি হাত পর।’ আর অটলবিহারী বাজপেয়িকে সামনে রেখে বিজেপির স্লোগান ছিল: ‘বারি বারি সবকি বারি, আপকি বারি অটলবিহারি।’
আবার বাজপেয়িজির সময়ে সবচেয়ে ফ্লপ স্লোগান হল ‘ইন্ডিয়া শাইনিং।’ ২০০৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে বাজপেয়ি সরকারের দেশের উন্নতির জয়গাঁথা প্রচার হিসেবে বিজেপি সেই স্লোগান তুলেছিল। এতে হিতে বিপরীত হয়েছিল। শুধু নয় ‘কংগ্রেস কা হাত, আম আদমি কা সাথ’, সোনিয়া গান্ধীর এই স্লোগানও  ‘ইন্ডিয়া শাইনিং’-কে টক্কর দিয়েছিল।
২০০৭ সালে ভারতীয় সিনেমার মেগাস্টার অমিতাভ বচ্চনকে জড়িয়ে স্লোগানের বাজার জমে উঠেছিল। উত্তরপ্রদেশে সমাজবাদী পার্টির প্রশংসা করে বচ্চনজি স্লোগান দিয়েছিলেন, ‘ইউপি মে হ্যায় দম,  কিউকি জুরুম হ্যায় ইহাঁ কম।’ উত্তরপ্রদেশের নির্বাচন কমিশন বচ্চনজির ব্যাখ্যা চেয়ে তাঁকে নোটিসও পাঠিয়েছিল। যাই হোক, কংগ্রেস এই স্লোগানের পাল্টা দিয়ে বলেছিল: ‘ইউপিমে থা দম, লেকিন কাহাঁ পৌঁছ গায়ে হাম।’
২০১৪ সালের বিজেপির স্লোগান ছিল অব কি বার মোদি সরকার। এই স্লোগান ঝড় তুলেছিল আসমুদ্রহিমাচলে। ম্যাজিকের মতো কাজ করেছিল বিজেপির স্লোগান। যার ফলস্বরূপ তিন দশক পর অকংগ্রেসি কোনও দল বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে দিল্লির কুর্সি দখল করে। জনপ্রিয়  ‘আচ্ছে দিন আয়েঙ্গে’  স্লোগানটিও দোসর হয়েছিল সেইসময়। দিল্লির মসনদ দখলের জন্য আর একটা স্লোগান ছিল  ‘মিনিমাম গভর্নমেন্ট, ম্যাক্সিমাম গভর্নন্যান্স।’ পদ্ম শিবির স্লোগান তুলেছিল, ঘর ঘর মোদি। হর ঘর মোদি...। আর একটা বিখ্যাত তাঁর নির্বাচনী স্লোগান:  ‘সব কা সাথ সব কা বিকাশ।’  আসলে নরেন্দ্র মোদি স্লোগান তৈরিতে মাস্টার। বহু এবং বিচিত্রগামী তাঁর স্লোগান। ২০১৪ সালে ক্ষমতায় বসে স্লোগান দিলেন  ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’। দেশের কোম্পানিগুলোকে ডাক দেওয়া হল যাতে পণ্য দেশে উৎপন্ন করে গোটা বিশ্বে বিক্রি করতে উদ্যোগী হয়।
পরিবারতন্ত্র থেকে মুক্তি?  স্বজনপোষণ থেকে রেহাই?  দুর্নীতি-মূল্যবৃদ্ধি-কুশাসনের বিরুদ্ধে লড়াই?  রোজগার-নিরাপত্তা-শিক্ষা-স্বাস্থ্য-উন্নয়ন? মোদির মতে, সব কিছুরই দাওয়াই একটাই।  ‘ভোট ফর ইন্ডিয়া’। দেশের জন্য ভোট দিন, দলের জন্য নয়। এখন অবশ্য অনেক সময়ই পেশাদাররা স্লোগান তৈরি করেন। আপ কি বার মোদি সরকার,  সম্ভবত তারই ফসল ছিল। যেমন ধরুন এবার বিজেপি স্লোগান তুলেছে, ‘মোদি হ্যায় তো মুমকিন হ্যায়’। অর্থাৎ, পারলে  একমাত্র মোদিই পারেন। বালাকোটে হানার পর দেশভক্তির আবেগকে কাজে লাগিয়ে তৈরি হয়েছিল গেরুয়া শিবিরের সেই রণকৌশল।
উনিশের লোকসভা ভোট শুরুর আগেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ঘোষণা করেন বিজেপির নির্বাচনী স্লোগান হবে, ‘ম্যায় ভি চৌকিদার’। নিজের ট্যুইটার অ্যাকাউন্টে এই স্লোগানের কথা উল্লেখ করে একটি ভিডিও পোস্ট করেন প্রধানমন্ত্রী। ট্যুইটে লেখেন, ‘আপনাদের চৌকিদার নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে শক্ত হাতে দেশের হাল ধরে আছে। কিন্তু আমি একা নই। যাঁরা সমাজের নোংরা পরিষ্কার করেন,  দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই করেন, তাঁরা প্রত্যেকে চৌকিদার। যাঁরা প্রতি মুহূর্তে দেশের উন্নতির জন্য পরিশ্রম করেন,  তাঁরা প্রত্যেকে চৌকিদার। আজকে,  প্রত্যেক ভারতীয় বলছেন,  ম্যায় ভি চৌকিদার।’
যদিও এই চৌকিদার প্রসঙ্গেই বিরোধীদের সবথেকে বেশি সমালোচনার মুখে পড়েছেন নরেন্দ্র মোদি। কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী বারবার মোদিকে আক্রমণ করে বলেছেন, ‘চৌকিদার চোর হ্যায়।’  সম্প্রতি এক সভা থেকে রাফাল চুক্তির কথা তুলে এনে মোদির উদ্দেশে তোপ দাগেন রাহুল গান্ধী। বলেন, ‘পাঁচ বছর আগে চৌকিদার বলেছিলেন তিনি দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই করছেন। তিনি বলেছিলেন কংগ্রেস মুক্ত ভারত বানাবেন। আজকে ‘আচ্ছে দিন আয়েঙ্গে’  স্লোগান পরিবর্তন হয়ে  ‘চৌকিদার চোর হ্যায়’  স্লোগান হয়ে গিয়েছে।’
আমাদের রাজ্যের জননেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজনৈতিক জীবনেও ছড়িয়ে অসংখ্য বর্ণময় স্লোগান। ২০০১ সালে তাঁর বিখ্যাত স্লোগান  ‘উল্টে দিন, পাল্টে দিন’  বামফ্রন্ট সরকারের বিরুদ্ধে জনমত তৈরির ক্ষেত্রে যথেষ্ট সাড়া জাগিয়েছিল। ২০০৫ সাল নাগাদ জনগণকে ভরসা জুগিয়ে ভোট বাক্সে প্রতিফলন ঘটানোর ডাক দিয়ে বললেন, ‘চুপচাপ ফুলে ছাপ।’  সেই স্লোগানও আবাল-বৃদ্ধ-বণিতার মুখে মুখে ফিরেছে। ২০০৬-এর বিধানসভা নির্বাচনে বামফ্রন্টের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত লড়াইয়ের বার্তা দিয়ে তাঁর স্লোগান:  ‘হয় এবার, নয় নেভার।’  কিন্তু সেই বছরও ব্যর্থ মনোরথ। অবশেষে ২০১১-র স্লোগান:  ‘বদলা নয়, বদল চাই।’  পশ্চিমবঙ্গবাসী বিস্ময়ের সঙ্গে দেখলেন একটা স্লোগান কীভাবে পূর্ণতা পায়। তবে, মমতার শ্রেষ্ঠ স্লোগান সম্ভবত ‘মা-মাটি-মানুষ।’  সিপিএমের নেতারা ব্যঙ্গ করে একে যাত্রাপালার সঙ্গে মেলাবার চেষ্টা করলে কী হবে,  এ রাজ্যের সঙ্গে ওতোপ্রতোভাবে জড়িয়ে গিয়েছে এই স্লোগান।
২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনের জন্য জননেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নতুন স্লোগান কী?  কলকাতার পুলিস কমিশনার বনাম সিবিআই দ্বৈরথে জন্ম নেওয়া মমতার ধর্না মঞ্চে ইংরেজি ক্যাপিটাল লেটারে বড় করে লেখা ছিল  ‘সেভ ইন্ডিয়া।’  এই স্লোগানটির জন্মদাত্রী এবং মোদি তথা বিজেপি বিরোধিতাকে সর্বভারতীয় করে তোলার অন্যতম কারিগর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্লোগানটিকে প্রসারিত করে আর একটা সোজা-সাপটা স্লোগান দিয়েছেন: ‘দেশ বাঁচানা হ্যায় তো মোদিজিকো ভাগানা হ্যায়।’  এর সংক্ষেপিত ভাষ্য অবশ্য তাঁর একাধিক ভাষণে আগেই পেয়েছি। ‘মোদি হটাও দেশ বাঁচাও’।  তবে ২০১৯-এর নির্বাচনে তাঁর মূল স্লোগান  ‘দু’হাজার ঊনিশ,  বিজেপি ফিনিশ।’ 
31st  March, 2019
ভো-কাট্টা

বিশ্বকর্মা পুজোর সঙ্গে ঘুড়ি ওড়ানোটা সমার্থক হয়ে গিয়েছে। বিশ্বকর্মা পুজো মানেই আকাশজোড়া ঘুড়ির আলপনা। অসংখ্য ঘুড়ির ভেলায় যেন স্বপ্ন ভাসে। বহু কৈশোর আর যৌবনের মাঞ্জায় লেগে আছে ঘুড়ি ওড়ানোর স্মৃতি। যে ছেলেটা কোনওদিন সকাল দেখেনি, সেও বিশ্বকর্মা পুজোর দিনে সূর্য ওঠার আগেই ঘুড়ি-লাটাই নিয়ে ছাদে উঠে যায়।  
বিশদ

15th  September, 2019
নির্মাণশিল্পী বিশ্বকর্মা
সন্দীপন বিশ্বাস

জরাসন্ধ তখন প্রবল প্রতাপান্বিত। বারবার মথুরা আক্রমণ করছিলেন। কিন্তু সপ্তদশ প্রচেষ্টাতেও মথুরা জয় করা তাঁর পক্ষে সম্ভব হয়নি। তাই ফের তিনি মথুরা আক্রমণের প্রস্তুতি নিতে লাগলেন। কৃষ্ণ অবশ্য জানতেন জরাসন্ধ কিছুতেই মথুরা জয় করতে পারবেন না।
বিশদ

15th  September, 2019
আগুন বাজার
বীরেশ্বর বেরা

 ‘কেন? আপনি যে পটল বেচছেন, এমন পটল তো আমরা ৩০-৩২ টাকায় কিনছি!’ গ্রাম্য যুবক তাঁর আপাত-কাঠিন্যের খোলস ছেড়ে সহজ হয়ে গেলেন হঠাৎ। তেলের টিনের উপর চটের বস্তা বেঁধে টুলের মতো বসার জায়গাটা এগিয়ে দিয়ে বললেন, ‘বসুন তাহলে, বলি। বিশদ

08th  September, 2019
সমাপ্তি
সমৃদ্ধ দত্ত

মহাত্মা গান্ধীর প্রকাশিত রচনাবলীর খণ্ড সংখ্যা ৯০ ছাড়িয়ে গিয়েছে। এ পর্যন্ত জওহরলাল নেহরুর লেখা নিয়ে প্রকাশিত যত রচনা আছে, তা প্রায় ৫০ খণ্ড অতিক্রান্ত। বাবাসাহেব আম্বেদকরের সারা জীবনের যাবতীয় রচনা সমন্বিত করে এখনও পর্যন্ত ১৬টি খণ্ডসংবলিত রচনাবলী প্রকাশ পেয়েছে। 
বিশদ

01st  September, 2019
রাজীব ৭৫
মণিশঙ্কর আইয়ার

 ছিয়াশি সালের ডিসেম্বর। অঝোরে তুষারপাত হচ্ছে। আমরা যাচ্ছি কাশ্মীর। কিন্তু একটা সময় আর্মি জানাল, আর যাওয়া সম্ভব নয়। এত তুষারপাতে হেলিকপ্টার ওড়ানো যাবে না। তাহলে? যাব কী করে? বাকিরাও বলল, দিল্লি ফিরে চলুন। কিন্তু প্রধাননমন্ত্রী বললেন, তা হয় না। যাব যখন বলেছি যেতে হবে। লোকেরা অপেক্ষা করে থাকবে যে!
বিশদ

25th  August, 2019
শতবর্ষে  সারাভাই
মৃন্ময় চন্দ

চন্দ্রযান-২’র সাফল্যে গর্বিত ভারত। অভিজাত মহাকাশ ক্লাবের সদস্যদেশগুলির সঙ্গে ভারত আজ এক পংক্তিতে। মহাকাশ গবেষণায় ভারতের ঈর্ষণীয় সাফল্যের রূপকার নিঃসন্দেহে ক্ষণজন্মা বিরল প্রতিভাধর মিতভাষী এক বিজ্ঞানী—বিক্রম সারাভাই। একার হাতে যিনি গড়ে দিয়ে গেছেন ভারতের বিপুলা মহাকাশ সাম্রাজ্য। ১২ই আগস্ট ছিল তাঁর জন্মশতবার্ষিকী। বিশদ

18th  August, 2019
জয় জওয়ান

ঝুঁকি শব্দটি যখনই উল্লেখ করা হয়, তখনই তার সঙ্গে আবশ্যিকভাবে যুদ্ধের বিষয়টি এসে পড়ে। কিন্তু শুধু যুদ্ধে নয়, ঝুঁকি রয়েছে প্রশিক্ষণ পর্বেও। একজন যুদ্ধবিমানের পাইলটকে নানাভাবে তৈরি হতে হয়। আকাশপথে সেই প্রশিক্ষণ যখন শুরু হয়, তখন প্রতিটি স্তরেই ঝুঁকি থাকে। সেগুলো অতিক্রম করে সাফল্য পাওয়াই একজন পাইলটের কাছে চ্যালেঞ্জ। বিশদ

11th  August, 2019
জাতীয়তাবাদ ও রবিঠাকুর 
সমৃদ্ধ দত্ত

জাতীয়তাবাদের সংজ্ঞা তাঁর কাছে আলাদা। বিশ্বাস করতেন, গ্রামই ভারতের চেতনা। সম্পদ। তাই শুধু ইংরেজ বিরোধিতা নয়, রবিঠাকুরের লক্ষ্য ছিল ভারতের উন্নয়ন। ভারতবাসীর উন্নয়ন। তাঁদের স্বনির্ভর করে তোলা। অন্যরকম তাঁর স্বদেশপ্রেম। আরও এক ২২ শ্রাবণের আগে স্মরণ এই অন্য রবীন্দ্রনাথকে। 
বিশদ

04th  August, 2019
গণহত্যার সাক্ষী
মৃণালকান্তি দাস

এ এক হিবাকুশার গল্প। পারমাণবিক বোমা হামলার পর হিরোশিমা ও নাগাসাকির যারা বেঁচে গিয়েছিলেন, তাদের বলা হয় হিবাকুশা। তাঁরা কেউই হিবাকুশা হতে চাননি, চেয়েছিলেন আর দশজন স্বাভাবিক মানুষের মতোই সুন্দর একটা জীবন কাটাতে। কিন্তু ‘ফ্যাট ম্যান’ ও ‘লিটল বয়’ নামে দুটি অভিশাপ তছনছ করে দিয়েছিল তাঁদের সাজানো সংসার, সাজানো স্বপ্ন সহ সবকিছু। তেমনই একজন হিবাকুশা সাচিকো ইয়াসুই। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ কেড়ে নিয়েছিল তার সর্বস্ব...।
বিশদ

28th  July, 2019
বদলের একুশ
জয়ন্ত চৌধুরী

 একুশে জুলাই। শহিদ স্মরণ। তৃণমূলের বাৎসরিক শহিদ তর্পণ। গত আড়াই দশকের বেশি সময় ধরে এটাই চল। ঝড়-জল-বৃষ্টি-বন্যা সবই অপ্রতিরোধ্য একুশের আবেগের কাছে। তাই কেন একুশ, এই প্রশ্নের চাইতে অনেক বেশি জায়গা দখল করে রয়েছে এই দিনকে ঘিরে বাঁধনহারা উচ্ছ্বাস।
বিশদ

21st  July, 2019
অচেনা কাশ্মীর
ফিরদৌস হাসান

 ২০১৪ সালের পর এই প্রথম এত তুষারপাত হয়েছে উপত্যকায়। সাদায় মুখ ঢেকেছিল ভূস্বর্গ। আর তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে পাল্লা দিয়েছিল পর্যটনও। বরফঢাকা উপত্যকার নৈসর্গিক দৃশ্য উপভোগ করার সুযোগ কে-ই বা হাতছাড়া করতে চায়! তাই তো জানুয়ারিতে দেশি-বিদেশি পর্যটকদের কোলাহলে উপত্যকা গমগম করছিল।
বিশদ

14th  July, 2019
জল সঙ্কট 

কল্যাণ বসু: দুধ সাদা ধুতি পাঞ্জাবি, মাথায় নেহরু টুপি, গলায় মালা ঝুলিয়ে মন্ত্রী দু’হাত জোড় করে হাসিমুখে মঞ্চের দিকে যাচ্ছেন। চারদিকে জয়ধ্বনি, হাততালি। মঞ্চে উঠে মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে মন্ত্রী বলতে শুরু করেছেন সবে।  বিশদ

07th  July, 2019
জগন্নাথের ভাণ্ডার
মৃন্ময় চন্দ

‘রথে চ বামনং দৃষ্ট, পুনর্জন্ম ন বিদ্যতে’। অর্থাৎ, রথের রশি একবার ছুঁতে পারলেই কেল্লা ফতে, পুনর্জন্ম থেকে মুক্তি। আসলে সর্বধর্মের সমন্বয়ে বিবিধের মাঝে মিলন মহানের এক মূর্ত প্রতিচ্ছবি এই রথযাত্রা। সেই কারণেই নিউজিল্যান্ডের হট প্যান্টের গা ঘেঁষে সাত হাত কাঞ্চীপূরমীয় ঘোমটা টানা অসূর্যমপশ্যা দ্রাবিড়ীয় গৃহবধূও শামিল হন রথের রশি ধরতে। অর্কক্ষেত্র, শঙ্খক্ষেত্র আর শৈবক্ষেত্রের সমাহারে সেই মিলন মহানের সুরটিই সতত প্রতিধ্বনিত নীলাচলে। তাই নীলাচলপতির দর্শনে অক্ষয় বৈকুণ্ঠ লাভের আশায় ভিড়ের ঠেলায় গুঁতো খেতে খেতে চলেন সংসার-বঞ্চিত বাল্যবিধবারা। একই মনোবাসনা নিয়ে চলেছেন অন্ধ, চলেছেন বধির, চলেছেন অথর্ব।
বিশদ

30th  June, 2019
স্টেফির হাফ সেঞ্চুরি
প্রীতম দাশগুপ্ত

 মার্টিনা নাভ্রাতিলোভা, ক্রিস এভার্টরা নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করার লড়াই শুরু করেছেন তখন। ঠিক একই সময়ে জার্মানির অখ্যাত শহর ব্রুয়ে বেড়ে উঠছিল স্টিফানি মারিয়া গ্রাফ। ১৯৬৯ সালের ১৪ জুন জার্মানির ম্যানহাইনে জন্ম স্টিফানির। মেয়ের দুষ্টুমি বন্ধের দাওয়াই হিসেবে স্টিফানির বাবা পিটার তার হাতে ধরিয়ে দিয়েছিলেন একটা পুরনো টেনিস র‌্যাকেট।
বিশদ

23rd  June, 2019
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া: শুক্রবার সকালে সাঁকরাইলের ডেল্টা জুটমিলের পরিত্যক্ত ক্যান্টিন থেকে নিখোঁজ থাকা এক শ্রমিকের মৃতদেহ উদ্বার হল। তাঁর নাম সুভাষ রায় (৪৫)। তাঁকে খুন করা হয়েছে বলে পরিবারের লোকজন অভিযোগ করেছেন। ...

 গুয়াহাটি, ২০ সেপ্টেম্বর (পিটিআই): এনআরসির বিরোধিতায় শুক্রবার অসমজুড়ে ১২ ঘণ্টার বন্ধ পালন করা হয়। অল কোচ রাজবংশী স্টুডেন্টস ইউনিয়ন (একেআরএসইউ)-এর ডাকা ওই বন্঩ধে এদিন স্বাভাবিক ...

সংবাদদাতা, ঘাটাল: কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা বিজেপির সংসদ সদস্য বাবুল সুপ্রিয়কে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে হেনস্তার প্রতিবাদে শুক্রবার দুপুরে দাসপুর থানার গৌরা বাসস্টপে বিজেপি পথ অবরোধ করে।  ...

 দিব্যেন্দু বিশ্বাস, নয়াদিল্লি, ২০ সেপ্টেম্বর: যাদবপুর-কাণ্ডে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে রিপোর্ট দেবে বঙ্গ বিজেপি। আজ এ কথা জানিয়েছেন বিজেপির অন্যতম কেন্দ্রীয় সম্পাদক তথা পশ্চিমবঙ্গের দায়িত্বপ্রাপ্ত দলের সহনেতা সুরেশ পূজারি। তিনি বলেছেন, ‘যে রাজ্যে একজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরই কোনও নিরাপত্তা নেই, সেই ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শরীর ভালো যাবে না। সাংসারিক কলহবৃদ্ধি। প্রেমে সফলতা। শত্রুর সঙ্গে সন্তোষজনক সমঝোতা। সন্তানের সাফল্যে মানসিক ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস
১৮৬৬: ব্রিটিশ সাংবাদিক, ঐতিহাসিক ও লেখক এইচ জি ওয়েলসের জন্ম
১৯৩৪: জাপানের হনসুতে টাইফুনের তাণ্ডব, মৃত ৩ হাজার ৩৬ জন
১৯৪৭: মার্কিন লেখক স্টিফেন কিংয়ের জন্ম
১৯৭৯: ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটার ক্রিস গেইলের জন্ম
১৯৮০: অভিনেত্রী করিনা কাপুর খানের জন্ম
১৯৮১: অভিনেত্রী রিমি সেনের জন্ম
১৯৯৩: সংবিধানকে অস্বীকার করে রাশিয়ায় সাংবিধানিক সংকট তৈরি করলেন তৎকালীন প্রেসিডেন্ট বরিস ইয়েলৎসিন
২০০৭: রিজওয়ানুর রহমানের মৃত্যু
২০১৩: কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবিতে ওয়েস্ট গেট শপিং মলে জঙ্গি হামলা, নিহত কমপক্ষে ৬৭

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.১৯ টাকা ৭২.৭০ টাকা
পাউন্ড ৮৬.৪৪ টাকা ৯১.১২ টাকা
ইউরো ৭৬.২৬ টাকা ৮০.৩৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৭,৯৯০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,০৪৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৬,৫৮৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫,৯০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৬,০০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৪ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার, সপ্তমী ৩৭/১২ রাত্রি ৮/২১। রোহিণী ১৪/৪৩ দিবা ১১/২২। সূ উ ৫/২৮/২৩, অ ৫/৩১/৪০, অমৃতযোগ দিবা ৬/১৬ মধ্যে পুনঃ ৭/৪ গতে ৯/২৯ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৪ গতে ৩/৬ মধ্যে পুনঃ ৩/৫৫ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ১২/৪১ গতে ২/১৭ মধ্যে, বারবেলা ৬/৫৯ মধ্যে পুনঃ ১/০ গতে ২/৩০ মধ্যে পুনঃ ৪/০ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ৭/১ মধ্যে পুনঃ ৩/৫৯ গতে উদয়াবধি।
৩ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার, সপ্তমী ২৫/২২/২১ দিবা ৩/৩৭/৫। রোহিণী ৭/১/২৪ দিবা ৮/১৬/৪৩, সূ উ ৫/২৮/৯, অ ৫/৩৩/২৯, অমৃতযোগ দিবা ৬/২০ মধ্যে ও ৭/৭ গতে ৯/২৯ মধ্যে ও ১১/৪৮ গতে ২/৫৫ মধ্যে ও ৩/৪২ গতে ৫/৩৩ মধ্যে এবং রাত্রি ১২/৩৮ গতে ২/১৭ মধ্যে, বারবেলা ১/১/২৯ গতে ২/৩২/৯ মধ্যে, কালবেলা ৬/৫৮/৪৯ মধ্যে ও ৪/২/৪৯ গতে ৫/৩৩/২৯ মধ্যে, কালরাত্রি ৭/২/৪৯ মধ্যে ও ৩/৫৮/৪৯ গতে ৫/২৮/২৮ মধ্যে।
২১ মহরম

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
অস্কারে মনোনীত গালি বয় ছবির নাম 

06:03:00 PM

ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় যুবককে মারধর
স্কুলের ছাত্রীদের উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় এক যুবককে লাঠি-রড দিয়ে ...বিশদ

05:22:00 PM

মুর্শিদাবাদে আগ্নেয়াস্ত্র সহ গ্রেপ্তার ১ 
আজ সকালে মুর্শিদাবাদের পাহাড়ঘাটি মোড় থেকে আগ্নেয়াস্ত্র সহ সফিকুল ইসলাম ...বিশদ

05:13:00 PM

দীঘায় ডুবন্ত ব্যক্তিকে উদ্ধার করল নুলিয়া
 

দীঘার সমুদ্রে তলিয়ে যাওয়ার মুখে এক পর্যটককে উদ্ধার করল নুলিয়া। ...বিশদ

05:05:00 PM

রায়গঞ্জে বাজ পড়ে মৃত্যু মহিলার, আহত আরও ১
রায়গঞ্জে বাজ পড়ে মৃত্যু হল এক মহিলা শ্রমিকের। গুরুতরভাবে জখম ...বিশদ

04:46:00 PM

সুরঞ্জন দাসকে দেখতে হাসপাতালে শিক্ষামন্ত্রী
যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সুরঞ্জন দাসকে দেখতে হাসপাতালে গেলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ ...বিশদ

03:39:30 PM