রঙ্গভূমি
 

সময়ের সঙ্গে চলতে পারাটাই থিয়েটারের সাফল্য‌

বুদ্ধিজীবী মহলে নাট্যব্যক্তিত্ব কৌশিক সেন প্রতিবাদী হিসেবেই পরিচিত। নাটক এবং সমাজ নিয়ে তাঁর চিন্তাভাবনা শুনলেন স্বস্তিনাথ শাস্ত্রী। স্বপ্নসন্ধানী ২৫ বছর পূর্ণ করল। ২৫ বছরে প্রাপ্তি ও অপ্রাপ্তি কী?
 স্বপ্নসন্ধানী ২৫ বছর পূর্ণ করল। ২৫ বছরে প্রাপ্তি ও অপ্রাপ্তি কী?
 প্রাপ্তি ও অপ্রাপ্তি অর্থাৎ সাফল্য ও অসাফল্যের হিসেবটা দু’ভাবে করা যায়। প্রথমত, আমার দল কতগুলো নাটক করেছে, কতগুলো হাউজফুল শো করেছে, কত টাকার টিকিট বিক্রি হয়েছে তার ওপর ভিত্তি করে সাফল্য-অসাফল্য বিচার করা যায়। সেরকম একটা হিসেব আমাদের এবারের পত্রিকায় দেওয়াও হয়েছে। কিন্তু আমার মনে হয়, একটা নাটকের দলের সাফল্য হল সে সময়ের সঙ্গে চলতে পেরেছে কি পারেনি সেটাই। কারণ, থিয়েটার কিন্তু থাকে না। সিনেমা থেকে যায়, গান থেকে যায়, থিয়েটার থাকে না। তাকে ভিডিও করে রাখলেও থাকে না। কারণ মঞ্চে থিয়েটার দেখে যে অভিঘাত দর্শকের ওপর পড়ে, যে মজা দর্শক পায় তা কখনই পরদায় দেখে পাওয়া যায় না। এই কারণেই সম্প্রতি একটি চ্যানেলে থিয়েটার দেখানোর যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল তা মুখ থুবড়ে পড়ল। ড্রইয়ংরুমে বসে মানুষ সিরিয়াল দেখতে পারে, থিয়েটার নয়। এভাবে থিয়েটারকে জনপ্রিয় করা যায় না।
থিয়েটার কতটা সময়োপযোগী হল তার ওপরেই নির্ভর করে তার সাফল্য। আমাদের দলের প্রথমদিকের কিছু নাটক একেবারেই ভাবনাচিন্তাহীনভাবে সিলেকশন করা হয়েছিল।
 ‘টিকটিকি’ ধরে বলছেন?
 হ্যাঁ, টিকটিকি ধরেই বলছি। ৯৭ সালে ‘প্রথম পার্থ’ থেকে আমরা চেষ্টা করেছি সময়ের সঙ্গে চলার। তাতে কেউ বলতে পারেন যে আমাদের ওমুক নাটকটা খারাপ হয়েছিল, ভালো লাগেনি, অভিনয় ভালো হয়নি। কিন্তু তবু নাটকটা সময়োপযোগী ছিল। সেটাই সাফল্য।
আর অসাফল্য হল এখনও আমরা থিয়েটার করে পেটের ভাত জোগাড় করতে পারি না। কাউকে ব্যাংকে চাকরি করতে হয়, কাউকে অন্য কোথাও, কাউকে সিরিয়াল কিংবা সিনেমা করতে হয়।
 আপনাদের দলের সবেথেকে সফল নাটক বোধহয় ‘টিকটিকি’। আপনি যেটাকে ভাবনাচিন্তাহীনভাবে বাছা হয়েছিল বলে বললেন।
 অবশ্যই। কিন্তু শুধুই ‘টিকটিকি’ নয়। ‘ম্যাকবেথ’-ও দারুণ জনপ্রিয় হয়েছিল। ম্যাকবেথের সর্বোচ্চ টিকিট করেছিলাম ৩০০ টাকা। প্রতিটা শোয়ে উপচে পড়ত মানুষ। কিন্তু বিশ্বাস করুন, তা সত্ত্বেও প্রোডাকশন কস্ট সামলে দলের সদস্যদের হাতে আমরা কিছু তুলে দিতে পারিনি। পরে যখন কল শো পেতে শুরু করলাম তখন সামান্য কিছু টাকা সদস্যদের দিতে পেরেছিলাম—যৎ সামান্য।
 তাহলে কি ‘কোম্পানি থিয়েটার’ নাম দিয়ে যে প্রফেশনাল থিয়েটারের কথা বলা হচ্ছে সেটাই সঠিক?
 না, একেবারেই তা নয়। কোম্পানি থিয়েটার করতে গেলে প্রথমে থিয়েটারকে একটা এসেনশিয়াল কমোডিটি করে তুলতে হবে। অর্থাৎ যে জিনিসটা ছাড়া মানুষ চলতে পারবে না। আমাদের দেশে থিয়েটার এখনও সেই স্থান নিতে পারেনি। বিদেশ কোথাও কোথাও হয়তো তা হয়েছে। তাছাড়া আরও একটা জিনিস সত্যি যে, সেই প্রাচীনকাল থেকেই থিয়েটার স্টেট স্পনসরড। প্রথমে রাজা-রাজড়াদের আনুকূল্যে চলত। তারপর জমিদাররা সেই জায়গা নিলেন। এখন চলে রাষ্ট্রের আনুকূল্যে। কিন্তু সমস্যা হল আমাদের দেশের নীতি নির্ধারকরা থিয়েটারকে কখনই সিরিয়াসলি নিলেন না। ইচ্ছে করেই এটা করা হল বা এখনও করা হচ্ছে। কারণ, থিয়েটারকে কখনও কন্ট্রোল করা যায় না। তাই সেনসরশিপের খাঁড়াটা সর্বপ্রথম নেমে আসে থিয়েটারের ওপরই। যুব সমাজকে থিয়েটার থেকে দূরে সরিয়ে রাখার চেষ্টা চলছে নানা ভাবে, নানা অছিলায়। কারণ থিয়েটারটা মানুষকে ভাবায়। আর ওরা ভাবতে দিতে চায় না। আমাদের রাজ্যেও তাই হয়েছে বারবার। কংগ্রেসি আমলে, বাম আমলে এবং এখন তৃণমূলের আমলেও তাই হচ্ছে। কেন্দ্রে মোদি সরকার আসার পর থেকে থিয়েটারের গ্রান্ট নিয়ে এত টালবাহনা শুরু হয়েছে যে আমার মনে হচ্ছে ২০১৯ সালে যদি মোদি ফের ক্ষমতায় আসেন তবে সমস্ত সিরিয়াস শিল্প চর্চাকেই বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা হবে। একমাত্র যারা ওদের হয়ে কথা বলবে তাদেরকেই ওরা টিঁকিয়ে রাখবে।
 তুলনামূলকভাবে আমাদের রাজ্যে নাটক নিয়ে সরকার বেশ দরাজ অবস্থান নিয়েছে। প্রয় ৩০০টার মতো দলকে বছরে ৫০ হাজার টাকা গ্রান্ট দেওয়া হচ্ছে...
 দাঁড়ান দাঁড়ান, এই প্রসঙ্গে একটু বলি। এই ৫০ হাজার টাকা গ্রান্ট দেওয়ার ব্যাপারটা কখন চালু হল মনে আছে আপনার? আকাদেমির সামনে বিমল বন্দ্যোপাধ্যায়কে মারা হল। যখন দলমত নির্বিশেষে ঘটনাটার নিন্দা করা উচিত ছিল। তা না করে তৈরি করা হল নাট্যস্বজন। এই নাট্যস্বজন ঠিক করতে শুরু করল কোন দল কোন ফেস্টিভ্যালে ডাক পাবে, কোন ফেস্টিভ্যালে ডাক পাবে না। সব বিষয়ে ডিকটেট করতে শুরু করল। সেই সময়ে এই ৫০ হাজার টাকার অনুদান ব্যাপারটা চালু করা হল এবং নাট্যস্বজনের অর্ন্তভুক্ত দলগুলিই তাতে অগ্রাধিকার পেল। ২০১২ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত এই অসহনীয় দমবন্ধ করা পরিস্থিতিটা চলেছিল। তারপর তো নিজেদের মধ্যেই ভাঙন ধরল। এখন বরং একটা নিশ্বাস ফেলার মতো পরিস্থিতি তাও হয়েছে। হ্যাঁ, যা বলছিলাম। প্রত্যেক সরকারই চায় একটা ঘেটো তৈরি করতে। নিজের অনুগতদের নিয়ে একটা বাহিনী। এটা বাম আমলেও ছিল। বুদ্ধদেববাবু যাঁদের শিল্পী বলে মনে কবতেন তাঁরাই সব ছিলেন। এই জমানাতেও তাই আছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ক্ষমতায় এসেই সমাজের প্রভাবশালী অংশকে কাছে টানার চেষ্টা করলেন এবং সফলও হলেন। শিল্পী, বুদ্ধিজীবী, সিনেমার স্টার, খেলোয়াড়—এঁদের। এঁদের দলে নেওয়ার সুবিধে হল, এঁরা সমাজকে প্রভাবিত করতে পারেন। এই প্রচেষ্টার অঙ্গ হল নাটকের দলগুলিকে গ্রান্ট দেওয়া। মনে করে দেখুন তখন কিন্তু পাড়ার ক্লাবগুলোকেও ২ লক্ষ টাকা করে দেওয়া হচ্ছিল। একটা ছোট দল যদি বছরে ৫০ হাজার টাকা পায় তবে সে সরকার বিরোধী কোনও নাটক করবে? করতে সাহস পাবে? মুখ বন্ধ রাখবে। আমাদের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমি বাউল উৎসব, শিল্পমেলা, চলচ্চিত্র উৎসব এরকম নানা উৎসবে দেখতে পাই। কিন্তু ওঁকে কখনও নাট্যোৎসবে কিংবা নাট্য আকাদেমির পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে থাকতে দেখিনি। কারণ উনি নাটকের লোকদের বিশ্বাস করেন না। শুধু ওঁর ২১ জুলাইয়ের মঞ্চে ওঠেন যেমন দেবেশ-টেবেশ এমন দু-একজনকে ছাড়া।
 এই প্রসঙ্গে একটা কথা মনে পড়ে গেল। আপনি, দেবেশ, মনীশ, ব্রাত্য, সুমন, অর্পিতা এঁরা কিন্তু একসময়ে পরস্পরের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ছিলেন। সেই ঘনিষ্ঠতাটা কিন্তু আর নেই। কেন?
 রাজনৈতিক কারণে। দেখুন স্বপ্নসন্ধানীর উৎসবে আমরা কয়েকটা ছবির প্যানেল করেছিলাম। একটা প্যানেলে ছিল ‘যাঁরা আমাদের ঋদ্ধ করেছেন’ এই শিরোনামে শঙ্খ ঘোষ, সৌমিত্রদা, রুদ্রদা, বিভাসদাদের ছবি। আর একটা প্যানেলে ‘যাঁরা আমাদের উৎসাহিত করেছেন’ এই শিরোনামে দেবেশ, মনীশ, ব্রাত্য, সুমন, অর্পিতা, গৌতম এঁদের ছবি। এবং আমার স্বীকার করতে এতটুকুও দ্বিধা নেই যে যে যদি ব্রাত্যর অশালীন কিংবা গৌতম হালদারের মেঘনাদ বধ কাব্য না দেখতাম তবে নাটকের টেক্সট যে এমন হতে পারে তার কোনও ধারণাই হত না আমার। সেক্ষেত্রে প্রথম পার্থ নাটকটাই তৈরি হত না। এছাড়া বারেবারে উইংকল টুইংকল, শেষ রূপকথা, পশু খামারের মতো নাটকগুলো আমাকে অনুপ্রাণীত করেছে নতুন করে ভাবতে। কিন্তু অদ্ভুত বিষয় হল, একটা সময়ে এমনও হয়েছে যে একটি খবরের কাগজে শেখর সমাদ্দার, দেবেশ, মনীশ এঁরা লাগাতার কখনও শঙ্খ ঘোষ, কখনও সৌমিত্রদা, কখনও আমার আবার কখনও সুমনের বিরুদ্ধে লিখে গিয়েছেন। লিখতেই পারেন আমার বিরুদ্ধে। কিন্তু তাই বলে ওই ভাষায়! সেই কাগজগুলো আমার কাছে রয়েছে। আমার ধারণা এর পিছনে তৃণমূলের কোনও নেতার, যিনি নাটকের সঙ্গে যুক্ত—তাঁর ইন্ধন ছিল।
 এখন আপনার সঙ্গে এঁদের সম্পর্ক কেমন?
 আমি তো ব্রাত্যর ‘মুম্বই নাইটস’ দেখতে গিয়েছিলাম, ব্রাত্যও এসেছিল আমার ‘অ্যান্টিগোনি’ দেখতে। অর্পিতার ‘মাছি’ দেখতে গিয়েওে দেরি হওয়ায় ফিরে এসেছি। আমার নতুন নাটক অশ্বথামা আর নির্ভয়া দেখতে নিমন্ত্রণ জানিয়েছি ওঁদের। আর তাছাড়া থিয়েটারের কথা কী বলব। আমাদের দেশে এখন বাক-স্বাধীনতাটাই নেই। একজন মেয়ের ‘না’ বলার অধিকার এখনও আমাদের সমাজে স্বীকৃত নয়—তার বিয়ে, পড়াশুনো, প্রেম কোনওটাই ‘অভিভাবক’-এর সম্মতি ছাড়া হবে না। সমাজকে আমরা সেভাবে গড়ে তুলতেই পারিনি। থিয়েটার তো দূরস্থান।
13th  August, 2017
থিয়েলাভার্সের নতুন প্রযোজনা
মৌলবাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার ১৭ জুলাই
স্বস্তিনাথ শাস্ত্রী

২০০২ সালের বিস্মৃত সেইসব ঘটনাবলী ফের মনে পড়ে গেল। যে ঘটনাবলী তোলপাড় ফেলে দিয়েছিল গোটা দেশে। শুধু দেশেই নয়, গোটা বিশ্বে। যে ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে দেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ভিসা দিতে অস্বীকার করেছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউনাইটেড কিংডম। তখন মোদি ছিলেন গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী।
বিশদ

19th  November, 2017
শকুনির পাশা ও কালো রাতের ভালো চোর

  দিশারী ও সাহাপুর প্রাজক-এর প্রযোজনায় গত ১১ অক্টোবর ২০১৭, শিশির মঞ্চে একই দিনে দুটি নাটক মঞ্চস্থ হয়ে গেল। প্রথম নাটকটি ‘শকুনির পাশা’। নাটক রুদ্রপ্রসাদ চক্রবর্তী, নির্দেশনায় সুব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়। দ্বিতীয়টি ‘কালো রাতের ভালো চোর’। নাটক অম্বর রায়, নির্দেশনায় অপু গঙ্গোপাধ্যায়।
বিশদ

19th  November, 2017
থিয়েলাইটের স্পেস থিয়েটার
শোভাবাজার রাজবাড়িতে মেমসাহেবের ঘড়ি

উত্তর কলকাতার এক বনেদি পরিবারের কর্তা নগেন্দ্র চৌধুরির কাজে খুশি হয়ে তাঁকে একখানি ঘড়ি উপহার দিয়েছিলেন এক মেমসাহেব। সে ইংরেজ আমলের কথা। এখন সে রামও নেই, সে অযোধ্যাও নেই।
বিশদ

19th  November, 2017
রাজনীতির প্রেক্ষাপটে প্রাসঙ্গিক প্রযোজনা
সুবর্ণ সেন মারা গিয়েছেন

অস্থির একটা সময়। গণতন্ত্রের গলা টিপে ধরেছে রাজনীতি। সুবিধেভগ, স্বার্থপরতা আর ঘর গোছানোর খেলা চলছে। যেখানে পুলিশ জনগণের রক্ষক নয়, রাজনীতির দাস। এইরকম ডামাডোলে মানুষকে সব মেনে নিয়ে চুপ করে থাকতে হবে।
বিশদ

19th  November, 2017
  রিকশাচালক নাট্যসমিতিকে সম্মান জানাল রাজা প্যারীমোহন কলেজ

গড়িয়ার রিকশাচালক নাট্যসমিতি বাংলা নাটকের জগতে একটা বিপ্লব। রিকশচালক বলতে আমাদের মনের মধ্যে যে ধারণাটা সচরাচর তৈরি হয় তাকে ভেঙেচুরে তছনছ করে দিয়েছেন এঁরা। রাস্তার ধারে বিড়ি টানতে টানতে তাস খেলে নয়, এঁরা দিনের শেষে ক্লান্ত শরীর নিয়ে নাটকের রিহার্সাল দিতে আসেন। বিশদ

12th  November, 2017
 এক্কাগাড়ী-র ‘নটী বিনোদিনী’...

অষ্টাদশ শতকের মধ্যভাগ। বাংলার শাসনভার তখন ইংরেজদের হাতে। দক্ষিণেশ্বরে ঠাকুর শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণদেবের অধিষ্ঠান। মা ভবতারিণীর মন্দিরে পূজাপাঠের জন্য তিনি রানি রাসমণির আশ্রিত পূজারি। তাঁর সর্বক্ষণের সঙ্গী ভাগ্নে হৃদে।
বিশদ

12th  November, 2017
শম্ভু মিত্র হলেন ভারতীয় থিয়েটারের শংকরাচার্য

হিন্দি থিয়েটার ও সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেতা পরেশ রাওয়াল সম্প্রতি কলকাতায় এসেছিলেন ইন্দ্ররঙ মহোৎসবে, তাঁর সুপারহিট হিন্দি নাটক ‘কিষেন ভার্সেস কানহাইয়া’ নিয়ে। মোহিত মৈত্র মঞ্চে শো শুরুর আগে মেকআপ নিয়ে নাটকের পোশাক পরেই সাক্ষাৎকার দিতে বসলেন গুজরাতের পূর্ব আমদাবাদ লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি সংসদ সদস্য। তাঁর মুখোমুখি স্বস্তিনাথ শাস্ত্রী।  সিনেমা না থিয়েটার, আপনার অগ্রাধিকারের তালিকায় কোনটা আগে আসবে?
 অবশ্যই থিয়েটার। আমি থিয়েটারের প্রেমে মজে আছি। তার কারণ, মঞ্চে অভিনয় করে যে আনন্দ, যে তৃপ্তি পাওয়া যায় তা ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে অভিনয় করে পাওয়া যায় না বলে আমার মনে হয়। সিনেমায় কী হয়, পরিচালকের কথা মতো সব করতে হয়। গোটা অভিনয়টাই পরিচালকের ভাবনা মতো হয়।
বিশদ

12th  November, 2017
একটি জরুরি বিষয়কে তুলে ধরে গোচরিত মানস

ধরা যাক, একদিন সকালে আপনি তাড়াহুড়ো কাজে বেরচ্ছেন। হঠাৎ আপনার বাবার ডাক, দেখা করে যাওয়ার জন্য। এমনিতেই আজ দেরী হয়ে গিয়েছে, তার ওপরে এখন বাবার সঙ্গে দেখা করতে যেতে হলে, অফিসে নিশ্চয় লেট-মার্ক পড়বে। কিন্তু কিছু করার নেই। আপনাদের এখনও একান্নবর্তী পরিবার আর তার সর্বময় কর্তা বাবা এখনও বর্তমান। অগত্যা...
বিশদ

05th  November, 2017
ভিক্ষে করে আর থিয়েটার করতে পারছি না

একসময় ‘তেরো পার্বণ’-এর ‘গোরা’ হিসেবে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন তিনি। পরবর্তীকালে লোকে তাঁকে চিনল ‘ফেলুদা’ হিসেবে। ছোট পরদা ও বড় পরদায় সমান জনপ্রিয় সব্যসাচী চক্রবর্তীর অভিনয়ে হাতেখড়ি কিন্তু নাটকের মঞ্চে।
 আপনার থিয়েটারে আসা কী ভাবে?
 আমার মা ছিলেন বিজন ভট্টাচার্যের ছোট বোন।
বিশদ

05th  November, 2017
নবরূপে ‘১৭ জুলাই’ ‌ইন্দ্ররঙ মহোৎসবে
এগারো নারী, হাতে তরবারি

 ২০০৪ সালে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার পরিপ্রেক্ষিতে একখানি নাটক লিখেছিলেন ব্রাত্য বসু। ‘১৭ জুলাই’ নামে সেই নাটকটি সেই সময়ে অভিনীত হয়ে প্রভূত প্রশংসা যেমন পেয়েছিল তেমনি বিতর্কও উসকে দিয়েছিল। নাটকের মূল দুটি চরিত্রে অভিনয় করতেন পীযুষ গঙ্গোপাধ্যায় ও বিপ্লব বন্দ্যোপাধ্যায়। হঠাৎ এক দুর্ঘটনায় চলে যান পীযুষ।
বিশদ

29th  October, 2017
 হাসির ফোয়ারা ছোটায় জয় মা কালী বোর্ডিং

সম্প্রতি শিশির মঞ্চে কালীপুর অ্যাকটিং লাভার্স থিয়েটার নিবেদন করল তাদের সাম্প্রতিক প্রযোজিত নাটক ‘জয় মা কালী বোর্ডিং’। শৈলেশ দে-র লেখা একসময় কলকাতায় আলোড়ন ফেলে দেওয়া আগাপাশতলা হাসির এই নাটকটির প্রেক্ষাপট জয় মা কালি বোর্ডিং এবং এখানকার আবাসিকরা।
বিশদ

29th  October, 2017
 আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম প্রতিভাধর কিন্তু বড্ড ব্যক্তিবাদী

   অভিনয় জীবনের ৫০ বছরে পা দিয়ে কেমন অনুভূতি হচ্ছে?
 থিয়েটার করেছি বলেই জীবনটা খুব দ্রুত বয়ে গিয়েছে। কর্মময়, আনন্দময়ভাবে কাটিয়েছি। থিয়েটার না করলে এটা সম্ভব হত না। তার মানে কি আমার জীবনে সমস্যা আসেনি? এসেছে। আমার অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো হয়নি? হয়েছে। কিন্তু কোনওটাই আমাকে প্রভাবিত করতে পারেনি। কারণ, আমি থিয়েটার করেছি।
বিশদ

29th  October, 2017
শ্রীহীন সমাজের বিপন্ন এক নারীর কণ্ঠস্বর

বহুস্বর’ নাট্যদল সবে পথ চলতে শুরু করেছে। সদ্য জন্ম নেওয়া এই দলটি যেভাবে তাদের প্রথম প্রযোজনাতেই দর্শকমণ্ডলীকে মুগ্ধতায় বিভোর করে ফেলল তা দেখে বোঝা যায় যে দীর্ঘ ও নিষ্ঠাভরে অনুশীলনের মধ্যে দিয়েই তারা নাটকটি প্রস্তুত করেছে।
বিশদ

22nd  October, 2017
শিরদাঁড়া সোজা করে দেখতে হয় মুদ্রারাক্ষস

এ সভ্যতা কার, কাদের জন্য? উত্তরে আমরা বলি এ মানুষের সভ্যতা, মানুষের জন্য। অথচ চোখ খুলে ভালো করে দেখলে আমরা দেখব, দিনে দিনে আমাদের মানবিক সত্তাগুলো হারিয়ে যাচ্ছে।
বিশদ

22nd  October, 2017
একনজরে
বিএনএ, আসানসোল: ট্রেনে যাত্রীদের সুরক্ষা বাড়াতে ‘স্পেশাল টিম’ তৈরি করেছে আরপিএফ। সম্প্রতি আরপিএফের আইজি বিনোদ কুমার দাকা আসানসোলে বৈঠক করতে এসে টিম তৈরির ব্যাপারে নির্দেশ দিয়ে গিয়েছেন। রেল সূত্রে জানা গিয়েছে, এই স্পেশাল টিমের কাজ হবে ট্রেনে অপরাধমূলক ঘটনা কমানো। ...

 বেজিং, ২০ নভেম্বর (পিটিআই): একাধিক পারমাণবিক অস্ত্র বহনে সক্ষম দূরপাল্লার নতুন ক্ষেপণাস্ত্র ‘ডংফেং-৪১’ সম্ভবত আগামী বছরই চীনের সেনা অস্ত্রভাণ্ডারে যুক্ত হতে চলেছে। এই ক্ষেপণাস্ত্রটি ‘ম্যাক ১০’-এর থেকে অনেক বেশি গতিসম্পন্ন। এটি একসঙ্গে ১০টি পারমাণবিক অস্ত্র বহনে সক্ষম। ...

 শ্রীনগর, ২০ নভেম্বর (পিটিআই): ফের কাশ্মীরে বাবা-মায়ের আবেদনে সাড়া দিয়ে বাড়ি ফিরল জঙ্গি সংগঠনে যোগ দেওয়া এক যুবক। দক্ষিণ কাশ্মীরের বাসিন্দা ওই যুবকের নাম, ঠিকানা ...

সংবাদদাতা, আলিপুরদুয়ার: আলিপুরদুয়ার জেলার বক্সা পাহাড়ের ১৩টি পাহাড়ি গ্রাম এবং সমতলে থাকা সান্তলাবাড়ি ও জয়ন্তীকে নিয়ে বক্সাদুয়ার নামে একটি আলাদা করে গ্রাম পঞ্চায়েত গঠনের দাবিতে বিজেপি আন্দোলনে নামার প্রস্তুতি নিয়েছে। ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

প্রেম-প্রণয়ে কিছু নতুনত্ব থাকবে যা বিশেষভাবে মনকে নাড়া দেবে। কোনও কিছু অতিরিক্ত আশা না করাই ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব টেলিভিশন দিবস
১৬৯৪: ফরাসি দার্শনিক ভলতেয়ারের জন্ম
১৯৭০: নোবেলজয়ী পদার্থবিদ চন্দ্রশেখর বেঙ্কটরামনের মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৪.২০ টাকা ৬৫.৮৮ টাকা
পাউন্ড ৮৪.৯০ টাকা ৮৭.৭৯ টাকা
ইউরো ৭৫.৪৪ টাকা ৭৮.০৭ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩০,১৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৮,৬৩৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৯,০৬৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,১০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,২০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৪ অগ্রহায়ণ, ২০ নভেম্বর, সোমবার, দ্বিতীয়া রাত্রি ৯/৩৬, নক্ষত্র-জ্যেষ্ঠা রাত্রি ১২/৪৮, সূ উ ৫/৫৬/২৫, অ ৪/৪৮/৪, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৭/২৩ মধ্যে পুনঃ ৮/৫০ গতে ১১/০ মধ্যে। রাত্রি ঘ ৭/২৬ গতে ১০/৬ মধ্যে পুনঃ ২/২৭ গতে ৩/১৯ মধ্যে, বারবেলা ঘ ৭/১৮ গতে ৮/৪০ মধ্যে পুনঃ ২/৫ গতে ৩/২৬ মধ্যে, কালরাত্রি ৯/৪৪ গতে ১১/২২ মধ্যে।
৩ অগ্রহায়ণ, ২০ নভেম্বর, সোমবার, দ্বিতীয়া রাত্রি ৭/৪২/২৮, জ্যেষ্ঠানক্ষত্র ১১/৫৫/৩৬, সূ উ ৫/৫৬/৫৮, অ ৪/৪৬/৫৮, অমৃতযোগ দিবা ৭/২৩/৩৮, ৮/৫০/১৮-১১/০/১৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২৪/৫৮-১০/৫৫/১৮, ২/২৫/৩৭-৩/১৮/১৮, বারবেলা ২/৪/২৮-৩/২৬/৪৩, কালবেলা ৭/১৮/১৩-৮/৩৯/২৮, কালরাত্রি ৯/৪৩/১৩-১১/২১/৫৮। 
৩০ শফর

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
 কালিয়াগঞ্জে দাশমুন্সি ভবন ঘুরে মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় কালিয়াগঞ্জের দলীয় পার্টি অফিসে। এরপর সেখান থেকে নিয়ে আসা হয় রায়গঞ্জে। এখানে কংগ্রেস কার্যালয়ে অগুন্তি সমর্থক ও প্রিয়জনদের শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের পর অন্ত্যেষ্টির জন্য শ্মশানের উদ্দেশ্যে রওনা হবে।

07:25:00 PM

কলকাতায় গ্রেপ্তার ৩ জন আল কায়দা জঙ্গি
আজ কলকাতা স্টেশন থেকে ৩ জন আল কায়দা ...বিশদ

06:07:00 PM

 কালিয়াগঞ্জের উদ্দেশ্যে শেষযাত্রায় প্রিয়
প্রিয়রঞ্জনের মরদেহ দিয়ে হেলিকপ্টার পৌঁছাল রায়গঞ্জে। সেখান থেকে ...বিশদ

05:16:00 PM

  ফের সাংবাদিক খুন ত্রিপুরায়
মাস দুয়েকের মধ্যে ফের সাংবাদিক খুনের ঘটনা ঘটল ত্রিপুররায়। এবার ...বিশদ

05:13:45 PM

ট্রেনের সময়সূচি বদল 
ডাউন ট্রেন দেরিতে আসার কারণে

১৩০০৯ আপ হাওড়া-দেরাদুন ...বিশদ

04:02:00 PM