Bartaman Patrika
রঙ্গভূমি
 

যাত্রায় নতুন প্রজন্ম তৈরি করেছিলেন মোহিত বিশ্বাস 

যাত্রা ছিল তাঁর কাছে ধর্মের মতো। লিখেছেন সন্দীপন বিশ্বাস
যাত্রা একসময় ছিল তাঁর কাছে স্বাধীনতার লড়াই। গ্রামে গ্রামে মানুষের কাছে গিয়ে অভিনয় করে তিনি চেয়েছিলেন লোকশিক্ষার মাধ্যমে জনজাগরণ ঘটাতে। তাই একদিন তিনি অ্যামেচার থেকে চলে এসেছিলেন পেশাদারী যাত্রায়। সেটা ১৯৪১ সাল। জাপানি বোমার ভয়ে তখন সবাই কলকাতা ছেড়ে পালাচ্ছেন। তখন যাত্রাদলে তৈরি হয় শূন্যতা। শিল্পীর অভাব। সেই অভাব মেটাতে শহরের অ্যামেচার শিল্পীদের ডাক পড়ে। এভাবেই তিনি যোগদান করলেন পেশাদারী যাত্রায়। ১৯২১ সালের ২ ডিসেম্বর জন্ম। দীর্ঘ ৪৮ বছরের অভিনয় জীবন ছিল তাঁর। তিনি হলেন যাত্রার জনপ্রিয় অভিনেতা মোহিত বিশ্বাস। যিনি নিজেই ছিলেন একটা ঘরানা।
বাবা মারা যাওয়ার পর মোহিত বিশ্বাস মায়ের হাত ধরে মুর্শিদাবাদের সুজাপুর থেকে এই শহরে চলে আসেন। তখন তাঁর বয়স মাত্র দশ বছর। শুরু হয় জীবনযাপনের লড়াই। বেড়ে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে একটু একটু করে যোগাযোগ ঘটে বিপ্লবী দলের সঙ্গে এবং পাশাপাশি শুরু হয় অ্যামেচার অভিনয়।
’৪২ এর আন্দোলনে জড়িয়ে পড়লেন। কলকাতায় গুলি চলল। অল্পের জন্য বেঁচে গেলেন। কিন্তু জখম হলেন। নবদ্বীপে গিয়ে আত্মগোপন করে চলল চিকিৎসা। সুস্থ হয়ে ’৪৩ সালে যোগ দিলেন রায় অপেরায়। পালা ছিল ‘আকালের দেশ’ এবং ‘রাজা হরিশ্চন্দ্র’।
১৯৪৬ সালে নবশক্তি অপেরায় মোহিত বিশ্বাস অভিনয় করলেন ‘ক্ষুদিরামের ফাঁসি’ পালায়। শশাঙ্কশেখর বন্দ্যোপাধ্যায় ছিলেন রচয়িতা ও নির্দেশক। দলে ছিলেন পূর্ণেন্দুশেখর বন্দ্যোপাধ্যায়, নন্দদুলাল রায়চৌধুরী প্রমুখ। তখন দেশজুড়ে স্বাধীনতার আন্দোলন তুঙ্গে। মানুষের প্রাণে স্বাধীনতার আকাঙ্ক্ষা প্রবলতর হয়ে উঠেছে। সুপারহিট হল পালা। সেই পালা চলল পরের বছরও। স্বাধীন ভারতের বুকে যেন বয়ে গেল এক আনন্দলহরী। খ্যাতির পথে চলা শুরু হল মোহিত বিশ্বাসের।
এরপর একে একে করলেন নন্দবাবুর ‘বিদ্রোহী সন্তান’ (রৌদ্রাসুর), ‘জরাসন্ধ বধ’ (কালযবন), সৌরীন্দ্রমোহন চট্টোপাধ্যায়ের ‘ভক্ত হরিদাস’ (গোরাই কাজী), ‘শুম্ভ-নিশুম্ভ’ (রক্তবীজ)। ধীরে ধীরে প্রতিষ্ঠা পেতে লাগলেন। সেই সময় সহ অভিনেতা হিসাবে পেয়েছিলেন মহেন্দ্র গুপ্তকে। ‘পাঞ্জাব কেশরী রণজিৎ সিং’ পালায়। নীতীশ মুখোপাধ্যায়কেও তিনি পেয়েছিলন সহ অভিনেতা হিসাবে। ‘মিশরকুমারী’তে নীতীশবাবু করতেন আবন আর মোহিত বিশ্বাস খারেব। সহ অভিনেতা হিসাবে পেয়েছিলেন বড় ফণী, ছোট ফণীকেও।
ছয়ের দশকের অনেকটা সময় তিনি অভিনয় করেছিলেন গণেশ অপেরায়। সেখানে ‘মসনদ’, ‘অভিনয়’, ‘পরিচয়’, ‘দেবী চৌধুরানী’, ‘যাযাবর’, ‘পাপ ও পাপী’, ‘দেবী অষ্টভূজা’, ‘আগুন’, ‘সম্রাট নাদির শাহ’ প্রভৃতি বিখ্যাত পালায় অভিনয় করেছেন। সেই সময় সহ অভিনেতা হিসাবে পেয়েছিলেন গোপাল চট্টোপাধ্যায়, অনাদি চক্রবর্তী, গুরুদাস ধাড়া, গোরাশশী মণ্ডল, পশুপতি ঘোষ, রাধারমণ পাল, বীণা ঘোষ, বাবলী রানী, সন্তোষ রানী প্রমুখকে।
নাট্যভারতীতে তিনি গেলেন ১৯৬৮ সালে। এই সময় ‘বাঁশের কেল্লা’ পালাটি মানুষের কাছে আদরণীয় হয়ে ওঠে। সেই পালায় ‘তিতুমির’ চরিত্রটি অভিনয় করে মোহিত বিশ্বাস প্রচুর খ্যাতি ও পুরস্কার পেয়েছিলেন। এই পালায় অভিনয় চলাকালীন অসুস্থ হয়ে মারা যান ফণীভূষণ বিদ্যাবিনোদ বা বড় ফণী। সেবার ‘বাঁশের কেল্লা’ পালার অভিনয় হয়েছিল বোম্বাইয়ে। ওখানে বাঙালিদের দুর্গাপুজোর মণ্ডপে। পুজোর পাঁচদিন অভিনয় হয়েছিল শিবাজি পার্ক এবং ক্রস ময়দানে। বোম্বাইয়ের বাঙালিরা সেই পালা দেখেছিলেন। বলিউডের বাঙালি অভিনেতারাও এসেছিলেন। তার মধ্যে ছিলেন অশোককুমার, তাঁর ভাই অনুপকুমার, বিপিন গুপ্ত, বেলা বোস, শশধর মুখার্জি সহ আরও অনেকেই। সেই অভিনয় দেখে তাঁরা মুগ্ধ হয়েছিলেন। মোহিত বিশ্বাসকে জড়িয়ে ধরে অশোককুমার বলেছিলেন, ‘অসাধারণ। বাংলা যাত্রা এতো সমৃদ্ধ হয়েছে, তা জানতামই না।’ রুস্তম চরিত্রে প্রশংসা পেয়েছিলেন অসীমকুমারও।
এরপর মাধবী নাট্য কোম্পানি। সেখানে তাঁর অভিনীত বিখ্যাত পালাগুলি হল, ‘মার্ডার’, ‘হেডমাস্টার’, ‘রিকশওয়ালা’ প্রভৃতি। রিকশওয়ালায় ভজনের ভূমিকায় তিনি সাড়া ফেলে দিয়েছিলেন।
১৯৭১ সালে মোহন চট্টোপাধ্যায় লিজ নেন গণেশ অপেরা। সেই সময় ওই দলের হিট পালাগুলি ছিল, ‘বামাক্ষ্যাপা’, ‘ভুলি নাই’, ‘ঘুমন্ত পৃথিবী’, ‘সন্তান’, ‘হাটে বাজারে’। এই পালাগুলিতে মোহিত বিশ্বাসের অভিনয় ছিল দাগকাটার মতো। তখন এই দলে ছিলেন গোপাল চট্টোপাধ্যায়, মোহন চট্টোপাধ্যায়, মিতা চট্টোপাধ্যায়, আনন্দময় বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমুখ। এই গণেশ অপেরাতেই তিনি পরে করেছেন ‘পলাতক’, ‘নীল আকাশের নীচে’, ‘ময়নামতীর মাঠ’, ‘কথার দাম’। সবকটিই হিট পালা। ১৯৮৩ সালে গণেশ অপেরায় তিনি অভিনয় করলেন ‘মহুয়া বসন্ত’ এবং ‘মন্দিরে আজান’ পালায়। নির্দেশনায় ছিলেন তিনিই।
১৯৭২ সালে মোহিত বিশ্বাস গেলেন প্রভাস অপেরায়। সেবার ওই দলের বিখ্যাত পালাগুলি ছিল ‘ভক্ত কবীর’, ‘বাঁচতে চাই’ এবং ‘মেজবৌ’। নাট্যপরিচালনা ছিল তাঁরই। শিল্পীদের মধ্যে ছিলেন শিবদাস মুখোপাধ্যায়, রাধারমণ পাল, বাবলু ভট্টাচার্য, প্রণয় কুমার, জয়শ্রী মুখোপাধ্যায় প্রমুখ।
পরে এক বছর অভিনয় করেছিলেন সুশীল নাট্য কোম্পানিতে। সেখানে পালা ছিল ‘সুখের সন্ধানে’ ও ‘স্বর্ণলতা’। ১৯৮৬ সালে তিনি তপোবন নাট্য কোম্পানিতে ‘লক্ষ্মণের শক্তিশেল’ পালায় রাবণের চরিত্রে অভিনয় করলেন। রাম চরিত্রে ছিলেন মনোজকুমার, মন্দোদরীর ভূমিকায় ছিলেন গীতাঞ্জলি।
তখন পর্দায় শক্তি সামন্তের ‘অনুসন্ধান’ সুপারহিট ছবি। সেটা যাত্রায় হল। ভোলানাথ অপেরায়। শম্ভু সিনহা তখন মারা গিয়েছেন। তাঁর ভাই অশোক সিনহা যাত্রায় এলেন। অশোক করতেন অমিতাভ বচ্চনের চরিত্রটা এবং মোহিত বিশ্বাস করতেন আমজাদ খানের চরিত্রটা। কিছুদিন পরেই চরিত্র বদল করতে হল। মোহিত বিশ্বাস চলে গেলেন উৎপল দত্তের চরিত্রটায়। আমজাদের চরিত্রে স্টেজে মারামারির সময় খুব ডিগবাজি খেতে হতো, ছিটকে পড়তে হতো। ওই বয়সে আর সেই ধকল নিতে পারতেন না। মাঝে মাঝেই হাঁটুতে, কোমরে চোট লাগত। তাই উৎপল দত্তের চরিত্রে চলে গিয়েছিলেন।
অন্যান্য যেসব পালায় অভিনয় করে তিনি আনন্দ ও খ্যাতি পেয়েছিলেন সেগুলি হল, ‘ধর্মের বলি’ (মুর্শিদকুলি খাঁ), ‘দেবী চৌধুরানী’ (ব্রজেশ্বর), ‘অভিনয়’ (আকবর সর্দার), ‘হে অতীত কথা কও’ (রাজ্যবর্ধন), ‘হাটে-বাজারে’, ‘পলাতক’ (আংটি চাটুজ্জে), ‘কলিকালের বউ’, ইত্যাদি।
মোহিত বিশ্বাস শুধু একজন অভিনেতা বা নির্দেশক ছিলেন না। তিনি ছিলেন একজন বড় নাট্য পরিচালক এবং শিক্ষকও। যাত্রাপ্রেমী প্রবীণ মানুষ স্বদেশ রায়। তাঁর মূল্যায়ণ, ‘মোহিত বিশ্বাস যত বড় শিল্পী, তার থেকেও বড় শিক্ষক। তাঁর হাত দিয়ে যে চিৎপুরের কত শিল্পীর সৃষ্টি হয়েছে এবং কত নাট্যকারের জন্ম হয়েছে, তার ইয়ত্তা নেই। তিনি নিজে যেমন অভিনয় করে গিয়েছেন, তেমনই প্রজন্মও তৈরি করে গিয়েছেন। তাঁর মতো উপযুক্ত শিক্ষকের অভাবেই আজ যাত্রার এই দুর্দশা’।
যাত্রা গবেষক দিবাকর ভৌমিক বলেছিলেন, ‘মোহিত বিশ্বাস এবং পঞ্চু সেন ছিলেন এক ঘরানার শিল্পী। বহুবার দেখা গিয়েছে পঞ্চু সেন দল ছেড়ে বেরিয়ে গেলেন। পরের বছর মোহিত বিশ্বাস গিয়ে সেই চরিত্রে অভিনয় করতেন। যেমন বিনয় বাদল দীনেশ। সেখানে পঞ্চু সেন যে চরিত্র করেছিলেন, সেটাই মোহিত বিশ্বাস করেছিলেন। আবার উল্টো ঘটনাও আছে। কোনওবার হয়তো মোহিত বিশ্বাস অন্য দলে চলে গেলেন। সেবার পঞ্চু সেন এসে মোহিতবাবুর চরিত্রটা অভিনয় করতেন। আসলে পঞ্চু সেনের অভিনীত কোনও চরিত্রে রূপ দেওয়া অন্য কোনও শিল্পীর কাছে ছিল অকল্পনীয়। কিন্তু মোহিতবাবুর দৃঢ় আত্মবিশ্বাস থাকায় তিনি সসম্মানে উত্তীর্ণ হয়েছিলেন। শুধু তাই নয়, সেই সঙ্গে সেই চরিত্রটিকে নতুনভাবে উপস্থাপিতও করতে পারতেন।’
মোহিত বিশ্বাসের সুযোগ্য শিষ্য অসীমকুমার আজও জীবিত। তিনি বলেছিলেন, ‘মোহিতদার কাছে অনেক কিছু শিখেছি। তাঁর কাছে যাত্রা ছিল ধর্মের মতো। তাই কোনও আপসেই তিনি যাত্রাধর্ম থেকে বিচ্যুত হননি। অসাধারণ সম্পাদনা করতে পারতেন। যে কোনও দুর্বল পালাকে ঠিক দাঁড় করিয়ে দিতেন।’
১৯৮৮ সালের ১০ ডিসেম্বর প্রয়াত হন এই শিল্পী। অনেক কাছ থেকে দেখেছি তাঁর জীবন ও অভিনয়। তাঁর কাছে শুনেছি অনেক কথা। কেন না তিনি ছিলেন আমার বাবা।
ছবি : সংশ্লিষ্ট সংস্থার সৌজন্যে 
07th  September, 2019
দুটি চেয়ার কেন? 

অগ্রজকে কীভাবে সম্মান জানাতে হয় তা শিখেছিলেন বিভাস চক্রবর্তীর থেকেই। তাঁর আসন্ন জন্মদিন উপলক্ষে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করলেন প্রকাশ ভট্টাচার্য।  বিশদ

চণ্ডীতলা প্রম্পটারের কলাকেন্দ্র 

হুগলি জেলার বরিজাহাটি অঞ্চলে নাটকের দল চণ্ডীতলা প্রম্পটারের নিজস্ব উদ্যোগে নির্মিত হয়েছে একটি নাট্যগৃহ ‘কলাকেন্দ্র’-র। আদতে এটি একটি মুক্তমঞ্চ। গত ৮ সেপ্টম্বর নাট্যব্যক্তিত্ব ব্রাত্য বসু এটির উদ্বোধন করেন। 
বিশদ

নট চিন্ময় রায় 

‘চিন্ময় রায় কিন্তু নাটকেরও মানুষ ছিলেন’— মনে করিয়ে দিয়েছেন বিভাস চক্রবর্তী। আসলে ব্যবসায়িক সিনেমায় কমেডিয়ান হিসেবে চিন্ময় রায়ের নামডাকের আড়ালে তাঁর নাটকের সত্তা ঢাকা পড়ে গিয়েছিল। নান্দীকারের সদস্য হিসেবে শুরু করেছিলেন অভিনয় জীবন। পরে ১৯ জন মিলে সে দল ছেড়ে গড়ে তোলেন ‘থিয়েটার ওয়ার্কশপ’। 
বিশদ

বিদ্যাসাগরের দ্বিশত জন্মবর্ষ উপলক্ষে ভ্রান্তিবিলাস 

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের নাম বাংলার নবজাগরণের একেবারে উপরের সারিতে রয়েছে। বাংলা ভাষা ও সমাজ সংস্কারের কাজ ছাড়াও তিনি বেশকিছু সুখপাঠ্য গল্প, উপন্যাস লিখেছিলেন। তারই একটি ভ্রান্তিবিলাস। শেক্সপিয়রের লেখা ‘কমেডি অব এররস’ অবলম্বনে কাহিনীটি লিখেছিলেন বিদ্যাসাগর। 
বিশদ

নতুন নাটক আজীর 

মহাশ্বেতা দেবীর লেখা গল্প ‘আজীর’ অবলম্বনে ‘নব বারাকপুর কোরাস থিয়েটার’ নির্মাণ করেছে তাদের নতুন নাটক ‘আজীর’। এ গল্প হল সামন্ততান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থার নিষ্ঠুরতার এক জ্বলন্ত দলিল।  
বিশদ

আশুতোষ মুখোপাধ্যায় স্মারক নাট্যোৎসব 

সাহিত্যিক আশুতোষ মুখোপাধ্যায়ের জন্ম শতবর্ষ আগতপ্রায়। সেই উপলক্ষে গত ২০ সেপ্টেম্বর থেকে আগামী ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তিনদিনব্যাপী এক নাট্যোৎসবের আয়োজন করা হয়েছে কালীঘাটের যোগেশ মাইম অ্যাকাডেমি মঞ্চে। 
বিশদ

তাপসদাকে আজ
বড় প্রয়োজন ছিল

তাঁকে বলা হত আলোর জাদুকর। আলোকশিল্পী হিসেবে বিশ্বজোড়া তাঁর খ্যাতি। গত ১১ সেপ্টেম্বর ছিল সেই প্রয়াত তাপস সেনের জন্মদিন। তাঁকে কাছ থেকে দেখার সুবাদে স্মৃতিচারণ করলেন প্রকাশ ভট্টাচার্য। বিশদ

14th  September, 2019
বাংলা থিয়েটার
এখন কাগুজে বাঘ

 আজকের বাংলা থিয়েটারে ব্যস্ততম অভিনেতার নাম প্রসেনজিৎ বর্ধন। তাঁর সঙ্গে কথোপকথনে শুভঙ্কর গুহ। বিশদ

14th  September, 2019
বাবলীর বাবা কি শুধু পথের কাঁটা
আকাশবাণী’র ‘কালো মেয়ের রাঙা চরণ

 জন মনোরঞ্জনে জনতার আদালতে চৌখস পালা নিয়ে হাজির হচ্ছে সোনার বাংলা যাত্রা সংস্থা। সঞ্জীব দলুই ও সঞ্জীব ভট্টাচার্য প্রযোজিত এই অপেরার পালার নাম ‘বাবা কি শুধু পথের কাঁটা’। নামটাই জানান দিচ্ছে বর্তমান সমাজ সংসার আর সিস্টেমকে ঘিরে অত্যন্ত বাস্তবমুখী এই পালা। বিশদ

14th  September, 2019
প্রতিমাসে বাংলা নাটকের মেলা 

গত ৪ সেপ্টেম্বর থেকে তৃপ্তি মিত্র নাট্যগৃহে শুরু হয়েছে বাংলা নাটকের মেলা। আয়োজক বোড়াই ইতি থিয়েটার। সঙ্গে রয়েছে কালিন্দী নাট্যসৃজন, বাঘাযতীন আলাপ, সবুজ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, সরস্বতী কলামন্দির, কোলকাতা নাট্যসেনা সহ বাংলার মোট ২৫টি নাট্যদল।  বিশদ

07th  September, 2019
অশনির নিয়মিত অভিনয়ের একযুগ 

একযুগ আগে নিয়মিত নাটক অভিনয়ের বাসনা নিয়ে একটি উদ্যোগ গ্রহণ করেছিল গড়িয়ার অশনি নাট্যম সংস্থা। সেটা ছিল ২০০৭ সালের অক্টোবর মাস। গড়িয়া স্টেশন সংলগ্ন অঞ্চলের চার-পাঁচটি সমমনস্ক দলকে সঙ্গী করে কলকাতার হাজরা মোড়ের সুজাতা সদনে শুরু হয়েছিল নিয়মিত নাট্য অভিনয়।  বিশদ

07th  September, 2019
অঙ্গন ৩৩ ও ব্রাত্য বসু 

বেলঘরিয়ার অঙ্গন নাট্যদল ৩৩ বছরে পা দিল। এই উপলক্ষে নাট্যদলটির সাম্প্রতিক নাটক ‘টম অ্যান্ড জেরি’-র একটি বিশেষ প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা হয়েছিল অ্যাকডেমি মঞ্চে। নাটকের আগে সংবর্ধনা জানানো হয় ব্রাত্য বসুকে।   বিশদ

07th  September, 2019
ধর্মের মিথ্যা বুলি আউড়ে আজও
মানুষে মানুষে দ্বন্দ্ব লাগানো হয় 

বহুবার, বিভিন্ন সময়ে মঞ্চস্থ হওয়া রবীন্দ্রনাথের ‘বিসর্জন’-কে আবার মঞ্চে ফিরিয়ে আনল ‘থেসপিয়ানস’ নাট্য সংস্থা। বহু চর্চিত, আলোচিত, এই নাটকের বিষয়। এই সময়ে দাঁড়িয়ে নাটকটির প্রাসঙ্গিকতাকে নতুন করে উপলব্ধির পথটা করে দিল থেসপিয়ানস।   বিশদ

07th  September, 2019
রাজনীতি, মূল্যবোধ পেশ হল হাসির মোড়কে 

বৃক্ক, অর্থাৎ কিডনি। মানবশরীরের একজোড়া গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। এই কিডনিকে কেন্দ্রে রেখে সামাজিক ক্ষয়িষ্ণুতা, মূল্যবোধ এবং সম্পর্কের প্রেক্ষাপটে এক মজার নাটক ‘বিষবৃক্ক’। ‘সমকালীন সংস্কৃতি’র নতুন প্রযোজনা।   বিশদ

07th  September, 2019
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি, ২০ সেপ্টেম্বর: চলতি ২০১৯-২০ আর্থিক বছরে দেশের মাইক্রো-ফিনান্স ইন্ডাস্ট্রি ২ লক্ষ ৫০ হাজার কোটি টাকার গণ্ডি অতিক্রম করবে। স্ব-ধন ‘ভারত মাইক্রো-ফিনান্স রিপোর্ট, ২০১৯’-এ প্রকাশ পেয়েছে এই তথ্য। ...

 দিব্যেন্দু বিশ্বাস, নয়াদিল্লি, ২০ সেপ্টেম্বর: যাদবপুর-কাণ্ডে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে রিপোর্ট দেবে বঙ্গ বিজেপি। আজ এ কথা জানিয়েছেন বিজেপির অন্যতম কেন্দ্রীয় সম্পাদক তথা পশ্চিমবঙ্গের দায়িত্বপ্রাপ্ত দলের সহনেতা সুরেশ পূজারি। তিনি বলেছেন, ‘যে রাজ্যে একজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরই কোনও নিরাপত্তা নেই, সেই ...

সংবাদদাতা, ঘাটাল: কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা বিজেপির সংসদ সদস্য বাবুল সুপ্রিয়কে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে হেনস্তার প্রতিবাদে শুক্রবার দুপুরে দাসপুর থানার গৌরা বাসস্টপে বিজেপি পথ অবরোধ করে।  ...

 ইন্দোনেশিয়া, ২০ সেপ্টেম্বর: দ্বিতীয় ভারতীয় ব্যাডমিন্টন প্লেয়ার হিসেবে এশিয়ান টেবল টেনিস চ্যাম্পিয়নশিপের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠলেন জি সাথিয়ান। বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে ভারতের টপ র‌্যাঙ্কিং সাথিয়ান ১১-৭, ১১-৮, ১১-৬ পয়েন্টে হারালেন উত্তর কোরিয়ার আন-জি সংকে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শরীর ভালো যাবে না। সাংসারিক কলহবৃদ্ধি। প্রেমে সফলতা। শত্রুর সঙ্গে সন্তোষজনক সমঝোতা। সন্তানের সাফল্যে মানসিক ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস
১৮৬৬: ব্রিটিশ সাংবাদিক, ঐতিহাসিক ও লেখক এইচ জি ওয়েলসের জন্ম
১৯৩৪: জাপানের হনসুতে টাইফুনের তাণ্ডব, মৃত ৩ হাজার ৩৬ জন
১৯৪৭: মার্কিন লেখক স্টিফেন কিংয়ের জন্ম
১৯৭৯: ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটার ক্রিস গেইলের জন্ম
১৯৮০: অভিনেত্রী করিনা কাপুর খানের জন্ম
১৯৮১: অভিনেত্রী রিমি সেনের জন্ম
১৯৯৩: সংবিধানকে অস্বীকার করে রাশিয়ায় সাংবিধানিক সংকট তৈরি করলেন তৎকালীন প্রেসিডেন্ট বরিস ইয়েলৎসিন
২০০৭: রিজওয়ানুর রহমানের মৃত্যু
২০১৩: কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবিতে ওয়েস্ট গেট শপিং মলে জঙ্গি হামলা, নিহত কমপক্ষে ৬৭

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.১৯ টাকা ৭২.৭০ টাকা
পাউন্ড ৮৬.৪৪ টাকা ৯১.১২ টাকা
ইউরো ৭৬.২৬ টাকা ৮০.৩৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৭,৯৯০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,০৪৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৬,৫৮৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫,৯০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৬,০০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৪ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার, সপ্তমী ৩৭/১২ রাত্রি ৮/২১। রোহিণী ১৪/৪৩ দিবা ১১/২২। সূ উ ৫/২৮/২৩, অ ৫/৩১/৪০, অমৃতযোগ দিবা ৬/১৬ মধ্যে পুনঃ ৭/৪ গতে ৯/২৯ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৪ গতে ৩/৬ মধ্যে পুনঃ ৩/৫৫ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ১২/৪১ গতে ২/১৭ মধ্যে, বারবেলা ৬/৫৯ মধ্যে পুনঃ ১/০ গতে ২/৩০ মধ্যে পুনঃ ৪/০ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ৭/১ মধ্যে পুনঃ ৩/৫৯ গতে উদয়াবধি।
৩ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার, সপ্তমী ২৫/২২/২১ দিবা ৩/৩৭/৫। রোহিণী ৭/১/২৪ দিবা ৮/১৬/৪৩, সূ উ ৫/২৮/৯, অ ৫/৩৩/২৯, অমৃতযোগ দিবা ৬/২০ মধ্যে ও ৭/৭ গতে ৯/২৯ মধ্যে ও ১১/৪৮ গতে ২/৫৫ মধ্যে ও ৩/৪২ গতে ৫/৩৩ মধ্যে এবং রাত্রি ১২/৩৮ গতে ২/১৭ মধ্যে, বারবেলা ১/১/২৯ গতে ২/৩২/৯ মধ্যে, কালবেলা ৬/৫৮/৪৯ মধ্যে ও ৪/২/৪৯ গতে ৫/৩৩/২৯ মধ্যে, কালরাত্রি ৭/২/৪৯ মধ্যে ও ৩/৫৮/৪৯ গতে ৫/২৮/২৮ মধ্যে।
২১ মহরম

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আজকের রাশিফল
মেষ: সন্তানের সাফল্যে মানসিক সন্তুষ্টি। বৃষ: ব্যবসায়িক সাফল্য। মিথুন: সৃষ্টিশীল কাজে প্রভূত উন্নতি। ...বিশদ

08:09:17 AM

অযোধ্যা মামলায় সোমবার থেকে রোজ একঘণ্টা বেশি শুনানি সুপ্রিম কোর্টে
শুনানি শেষ করতে হবে আগামী ১৮ অক্টোবরের মধ্যে। অযোধ্যার রাম ...বিশদ

08:00:00 AM

ইতিহাসে আজকের দিনে
আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস১৮৬৬: ব্রিটিশ সাংবাদিক, ঐতিহাসিক ও লেখক এইচ জি ...বিশদ

07:50:00 AM

বাংলায় হচ্ছে না এনআরসি: মমতা
বাংলায় কোনও এনআরসি হবে না। আজ এভাবেই রাজ্যবাসীকে আশ্বস্ত করলেন ...বিশদ

20-09-2019 - 06:59:00 PM

রাজীব কুমারের উদ্দেশ্যে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিষ্ণুপুরের একটি রিসর্টে সিবিআই হানা

20-09-2019 - 03:35:00 PM

বালুরঘাটে এনআরসি আতঙ্ক, অসুস্থ হয়ে মৃত ১ 
এনআরসি আতঙ্ক এবার বালুরঘাটে। খাদ্যসাথী প্রকল্পে আবেদন করাকে কেন্দ্র করে ...বিশদ

20-09-2019 - 03:27:30 PM