Bartaman Patrika
রঙ্গভূমি
 

আসরে মার খেতে খেতে বেঁচে গিয়েছিলেন 

যাত্রার নায়িকা শর্মিষ্ঠা গঙ্গোপাধ্যায়কে নিয়ে লিখেছেন সন্দীপন বিশ্বাস। 

বাবা ছিলেন রানিগঞ্জ কোলিয়ারি এলাকার ডাক্তার। বাবার মতোই ডাক্তার হতে চেয়েছিলেন নমিতা চক্রবর্তী। কিন্তু ঘটনাচক্রে হয়ে গেলেন যাত্রার বিশিষ্ট অভিনেত্রী। মানুষ তাঁকে চেনেন শর্মিষ্ঠা গঙ্গোপাধ্যায় হিসাবে। কোলিয়ারিতে বিভিন্ন যাত্রা দল যায়। তাদের আড্ডা জমে ডাক্তার গুরুপদ চক্রবর্তীর বাড়িতে। ফলে সকলকেই চিনতেন শর্মিষ্ঠাকে। কিন্তু কখনও তিনি যাত্রাশিল্পী হবেন, এটা কল্পনাতেও ছিল না। একদিন আকাশবাণীতে গানের অডিশন দিতে এসেছেন তাঁর শিক্ষকের সঙ্গে। সেখানে দেখা চলচ্চিত্র পরিচালক পিনাকী মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে। তাঁর সঙ্গীত-শিক্ষকের সঙ্গে পরিচয় ছিল। তিনি শর্মিষ্ঠাকে দেখে বললেন, ‘আমার ছবিতে ওকে দিয়ে একটা রোল করাতে চাই। ছবির নাম ‘ভক্তের ভগবান’। ওর চরিত্রটা হবে কালী ঠাকুরের।’ শর্মিষ্ঠা বলেছিলেন, ‘আমি ছবিতে অভিনয় করেছি শুনে আনন্দময় বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন, ‘অভিনয়ই যদি করবি, তবে তুই যাত্রায় অভিনয় কর।’ পরিচালক গোপেন দেব গিয়ে ধরলেন বাবাকে। যাত্রায় অভিনয়ের অনুমতি চাইলেন।’ অনুমতি মিলে গেল। শর্মিষ্ঠা চলে এলেন যাত্রায়। তখন শ্রীদুর্গা অপেরা নামে একটি দল ছিল। নতুন দল। উৎসাহ নিয়ে এলেন বটে কিন্তু যাত্রার কষ্ট যে কতটা তা আগে বোঝেননি। কিন্তু সেই দল চলল না।
পরের বছর পঞ্চু সেনের ডাকে যোগ দিলেন লোকনাট্য দলে। সে বছর লোকনাট্যের যাত্রা শুরু। শিল্পী তালিকাও ঝলমলে। শ্যামল সেন, কেতকী দত্ত, সমীর লাহিড়ী। পালা ‘মুকুন্দ দাস’ এবং ‘মর্জিনা অবদাল্লা’। তখন ভালো করে মেক আপ করতেও জানতেন না। নিজের হাতে শর্মিষ্ঠাকে মেক আপ করে দিতেন কেতকী দত্ত। রিহার্সাল হল। কিন্তু যেদিন দল প্রথম শোয়ে বের হবে, সেদিনই গোঁ ধরে বসলেন শর্মিষ্ঠা। তিনি অভিনয় করবেন না। বাড়ি ফিরে যাবেন। কেন না দল যাচ্ছে লরিতে। সামনে ড্রাইভারের পাশে সাধারণত তখন বসতেন দলের প্রধান চরিত্রের অভিনেতা অভিনেত্রীরা। সেই সুবাদে সামনে জায়গা হল সমীর লাহিড়ী এবং কেতকী দত্তের। কিন্তু শর্মিষ্ঠা বললেন, তিনি এভাবে যেতে পারবেন না। মহা সঙ্কট! সমাধানে এগিয়ে এলেন সমীর লাহিড়ী। বললেন, ‘শর্মিষ্ঠাই সামনে বসুক। আমি না হয় লরির উপরে চেপে যাব।’
পরের বছর লোকনাট্যে এলেন শেখর গঙ্গোপাধ্যায়। সে বছর দলের পালা ছিল উৎপল দত্তের ‘দিল্লি চলো’। তখন শর্মিষ্ঠা মনস্থির করে ফেলেছেন, আর যাত্রা করবেন না। এত কষ্ট করে থাকা তাঁর সহ্য হচ্ছিল না। সেসময় শেখরবাবুই তাঁকে দল না ছাড়ার অনুরোধ করলেন।
সেই প্রথম শেখর গঙ্গোপাধ্যায়কে দেখা। তার আগে বাবার কাছে শুনেছিলেন শেখরের নাম। ‘বাবা আমাকে বললেন, ‘একটা ছেলে আমাদের এখানে এসে ‘রামকৃষ্ণ’ চরিত্রে অভিনয় করে গেল। কী অভিনয় করল! আমি এত ভালো রামকৃষ্ণের অভিনয় আগে দেখিনি।’ শেখরবাবু, নিরঞ্জন ঘোষের অনুরোধে আর যাত্রার সঙ্গত্যাগ হল না। তাছাড়া সেবছর থেকে বাসও এল। ওই বছরে লোকনাট্যের আলোড়নকারী পালা ছিল ‘দিল্লি চলো’। এলেন উৎপল দত্ত। নতুন ছন্দে বাঁধলেন যাত্রাকে। প্রতিটি চরিত্রের মধ্য দিয়ে তৈরি করলেন এক নতুন অভিনয় ধারা। সে কী দুরন্ত টিম! ছিলেন বিজন মুখোপাধ্যায়ও। আর একটি পালাও সে বছর ছিল। ভৈরব গঙ্গোপাধ্যায়ের ‘পাঁচ পয়সার পৃথিবী’।
‘দিল্লি চলো’ পালায় সোখা চরিত্রটি করে খুব সুনাম হল শর্মিষ্ঠার। নাগা বিপ্লবী চরিত্র। সেই পালায় অসাধারণ একট গান ছিল তাঁর কণ্ঠে। জ্বলন্ত প্রদীপ হাতে করে কুড়ি-বাইশ জন মঞ্চে ঢুকে গান গাইতেন। শর্মিষ্ঠা লিড করতেন। স্টেজের সমস্ত আলো নিভিয়ে দেওয়া হতো। শুধু ওই হাতের প্রদীপের আলোয় অভিনয় হতো। অপূর্ব একটা সিকোয়েন্স তৈরি হতো। কয়েকটি ভাষায় সে গান গাইতে হতো। ‘বাসি ফুলের মালাগুলো জলে ফেলে দে/.. সামা জিলিয়াং জিলিয়াং সামা’। খুব হাততালি পেত সিনটা। ওই পালায় একটা দৃশ্য ছিল। শর্মিষ্ঠা দৌড়ে এসে ইংরেজদের আসার খবরটা দিচ্ছে। কিন্তু কিছুতেই হাঁফাতে হাঁফাতে সংলাপটা বলতে পারছেন না। রিহার্সালে সেটা দেখে উৎপল দত্ত তাঁকে বললেন, ‘তুই এই বাড়ির একতলায় চলে যা। তারপর সিঁড়ি দিয়ে ছুটতে ছুটতে আয়। এসে এখানে ডায়ালগটা বল। দেখ কীভাবে সত্যি করে হাঁফাতে হাঁফাতে কথাটা থ্রো করছিস।’ এভাবেই শিখেছেন।
লোকনাট্যেই শেখরবাবুর সঙ্গে প্রেম ও বিবাহ। বিয়ে নিয়ে শর্মিষ্ঠা বললেন, ‘আমার থেকে শেখরবাবু অন্তত কুড়ি বছরের বড় ছিলেন। কিন্তু প্রেম হয়ে গেল। তিনি ছিলেন আমার শিক্ষকের মতো। অনেক কিছু তাঁর কাছ থেকেই .শিখেছি। আমার প্রেমের মধ্যেই তাই শ্রদ্ধার স্থান ছিল অনেকখানিই। কিন্তু যাত্রাওয়ালার সঙ্গে কিনা বিয়ে! আমার বাড়ির অনেকেই এটা পছন্দ করল না। সেই সময় অনেক আত্মীয় আমাদের বয়কট করেছিল। কিন্তু আমার বাবা সেদিন পাশে দাঁড়িয়েছিল বলেই সেই প্রেম বিয়ে পর্যন্ত পৌঁছেছিল।’
তখনও তিনি নমিতা চক্রবর্তী। তখনকার বহু লিফলেট হ্যান্ডবিলে এই নাম পাওয়া যাচ্ছে। তারপর তরুণ অপেরায় এসে হয়ে গেলেন শর্মিষ্ঠা। একদিন অমর ঘোষ শান্তিগোপালকে বললেন, ‘ওর নমিতা নামটা সেকেলে। অন্য নাম দেওয়া দরকার।’ তারপর শান্তিগোপাল এবং অমর ঘোষ মিলে নামকরণ করলেন শর্মিষ্ঠা। তারপর থেকেই তিনি শর্মিষ্ঠা গঙ্গোপাধ্যায়। তরুণ অপেরায় অভিনয় করলেন, ‘হিটলার’, ‘লেনিন’, ‘আমি সুভাষ’ ইত্যাদি পালায়।
উৎপল দত্ত না থাকলে অবশ্য শর্মিষ্ঠা এই খ্যাতি পেতেন না। তিনি তাঁকে হাতে ধরে অভিনয় শিখিয়েছেন। পাশে পেয়েছিলেন শেখরকেও।
উৎপল দত্তের বিভিন্ন অমর পালায় তিনি অভিনয় করেছেন, ‘দিল্লি চলো’র পাশাপাশি ‘সমুদ্র শাসন’, ‘ফেরারী ফৌজ’ প্রভৃতি পালায়। শিল্পীতীর্থ দলে তিনি অভিনয় করলেন ‘দ্বীপান্তর’ পালায়। সেখানে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করতেন জ্যোৎস্না দত্ত। আর ছিলেন অসীমকুমার, গুরুদাস ধাড়া, সীমা বসু প্রমুখ। সেবছর ‘সন্তোষী মা’ খুব জনপ্রিয় হয়েছিল। সেই পালায় শর্মিষ্ঠা করতেন মেজবউয়ের চরিত্র। চরিত্রটা খলনায়িকার। সেই অভিনয় দেখে বহু দর্শক রুষ্ট হয়ে কটূমন্তব্য করতেন। ‘কোথাও কোথাও দর্শকরা মাঝে মাঝে মঞ্চে উঠে আমাকে মারতে আসত। আমি তখন সন্তান সম্ভবা। আমাকে আড়াল করে বাঁচাতেন জ্যোৎস্নাদিই। সেই খলনায়িকার ভূমিকায় অভিনয় করেই পেয়েছিলাম দিশারী পুরস্কার।’ ‘দ্বীপান্তর’ পালায় একটা দৃশ্যে ছিল স্বামীর মৃত্যুর দৃশ্য। সেখানে একটা কান্নার সিন ছিল। দীর্ঘ সেই দৃশ্যের অভিনয় প্রসঙ্গে শর্মিষ্ঠা পুরনো স্মৃতি ফিরিয়ে এনে বললেন, ‘সেই অভিনয়ে এতটাই মানসিক যোগ তৈরি হয়ে যেত যে ওই দৃশ্যের শেষে গ্রিন রুমে ফিরে অনেকদিনই আমি অজ্ঞান হয়ে যেতাম।’
বহু সার্থক পালায় অভিনয় করেছেন তিনি। সত্যম্বর অপেরায় ‘দিন বদলের ডাক’, ‘কান্না ঘাম রক্ত’, অগ্রগামীতে করলেন ‘বাবা তারকনাথ’, ‘কালো তলোয়ার’, বঙ্গলোক অপেরায় করলেন ‘ভিখারি সম্রাট’, আর্য অপেরায় করলেন ‘দামামা ওই বাজে’ ইত্যাদি। অনেক পুরস্কার পেয়েছেন। দিশারীর পাশাপাশি নটরাজ পুরস্কার, আইকা পুরস্কার ইত্যাদি।
শেখর গঙ্গোপাধ্যায় সম্পর্কে শর্মিষ্ঠা বললেন, ‘শেষের দিকে শেখরবাবু অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। একটা জায়গায় শো করতে গিয়ে উনি পায়ে তার জড়িয়ে পড়ে গিয়েছিলেন। তারপর থেকেই ওঁর মধ্য একটা পরিবর্তন দেখতে থাকি। যাত্রার ডায়ালগ ভুলে যেতে লাগলেন। মনটাও উদাসী হয়ে গেল তাঁর। মাঝে মাঝে বাড়ি থেকে নিরুদ্দেশ হয়ে যেতেন। সেই সঙ্গে বাড়ছিল মদ্যপানের অভ্যাস। বহুবার বহু জায়গা থেকে গিয়ে ধরে নিয়ে এসেছি। সেই সময় চিকিৎসার জন্য অনেক সাহায্য পেয়েছি সুভাষ চক্রবর্তীর সঙ্গে।’ জীবনের জুটি একদিন ভেঙে গেল। ২০০৯ সালের ২১ এপ্রিল বিদায় নিলেন শেখর। সবকিছুর মধ্যেও আজ এক শূন্যতা ঘিরে আছে শর্মিষ্ঠাকে। শেখরবিহীন জীবনে জুড়ে আছে নানা স্মৃতি। দুই মেয়েকে শোনান সেই সব কাহিনী। এখনও মনে আছে বিভিন্ন পালার গান। মাঝে মাঝে ডুবে যান সেই সব গানে।
29th  June, 2019
 যাত্রায় এনেছিলেন নতুন যুগের হাওয়া
সন্দীপন বিশ্বাস

১৯৬৮ সাল। নানা পরিস্থিতিতে তখন অস্থির তাঁর জীবন। নিজের দল এলটিজি থেকে তখন তিনি বিতাড়িত। আগের বছরেই তাঁকে রাজনৈতিক কারণে জেলে যেতে হয়েছিল। চারিদিকের চেনা মানুষগুলি কেমন যেন অচেনা হয়ে উঠেছিল। তাঁর নাটক করার জায়গাটা তখন প্রায় বন্ধই হয়ে গিয়েছে। কিন্তু তিনি থেমে থাকার পাত্র নন।
বিশদ

13th  July, 2019
 হত্যাকারী কে?

  গত ১৫ই মে সুজাতা সদনে অনুষ্ঠিত হল বেহালা বাতায়ন নিবেদিত নাটক ‘হত্যাকারী’। নাটকটি লিখেছেন বৈদ্যনাথ মুখোপাধ্যায়। নির্দেশনা দিয়েছেন নবকুমার বন্দ্যোপাধ্যায়। একটি বধুহত্যাকে কেন্দ্র করে এই নাটকের ঘটনাচক্র আবর্তিত হয়। একাঙ্ক নাটকটি পুরোটাই অধ্যাপক নরেন পালের বৈঠকখানায়।
বিশদ

13th  July, 2019
 সন্ত কবীরের কথা আজকের দিনে অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক

 জাতপাত ও ধর্মের বৈষম্য, নিচু শ্রেণীর দলিত সম্প্রদায়ের লোকদের ওপর উচ্চবর্ণের মানুষের অত্যাচারের মতো ঘৃণ্য বিদ্বেষভাব আজও সমাজকে আষ্টে-পৃষ্ঠে বেঁধে রেখেছে। সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে কিছু কিছু উন্নতি হলেও মানুষের দৃষ্টিভঙ্গির তেমন কোনও পরিবর্তন হয়নি। অথচ সমাজে সকলের সমানভাবে বেঁচে থাকার অধিকার সংবিধান স্বীকৃত।
বিশদ

13th  July, 2019
প্রজ্ঞা কালচারাল সেন্টারের দুটি নাটক

 সম্প্রতি আইসিসিআর অডিটোরিয়ামে একদিনের নাট্যোৎসবে প্রজ্ঞা মঞ্চস্থ করল দুটি নাটক, ‘নাইন মাইলস টু গো’ এবং ‘পতি গয়ে রে কাটিয়াহার’। দুটি নাটকে দুটি ভিন্ন ধরনের বার্তা দেওয়া হয়েছে, যেগুলি সর্বকালের ও সময়ের জন্য খুবই অর্থবহ ও প্রাসঙ্গিক।
বিশদ

06th  July, 2019
 রাজনৈতিক অস্থিরতার দুটি দলিল

সমগ্র দেশ তো বটেই, এই রাজ্যেরও রাজনৈতিক অবস্থা ভয়াবহ। অত্যন্ত উত্তপ্ত। এখন রাজনীতি, মানেই দুর্নীতি, মিথ্যাচার, অপসংস্কৃতি, বিদ্বেষ আর আত্মসম্মানকে বিসর্জন দেওয়া এক মাদারির খেল। আর এই খেলা চলছে দু’টি দলকে কেন্দ্র করে। সাধারণ মানুষ আর রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে। এই নেতারা বহুরূপী।
বিশদ

06th  July, 2019
আধুনিক প্রজন্মের আকাশছোঁয়ার চাহিদাই ডেকে আনছে অনর্থ

 বিশ্বায়নের ফলে পৃথিবীটা এখন হাতের মুঠোয় এসে গেছে। মানুষের কাছে এখন সবকিছুই খুব সহজলভ্য হয়েছে। অর্থনৈতিক পরিকাঠামো, সামাজিক পরিস্থিতির চাপে যৌথ পরিবার ভেঙে তৈরি হয়েছে ছোট ছোট পরিবার বা নিউক্লিয়ার ফ্যামিলি। যেখানে রোজগেরে স্বামী-স্ত্রী আর তাদের সন্তান নিয়েই তৈরি হয় একটি পরিবার।
বিশদ

06th  July, 2019
 কার্টেন কলের আন্তর্জাতিক নাট্যোৎসব

সম্প্রতি ‘কার্টেন কল’-এর ব্যবস্থাপনায় দু’দিন ব্যাপী আন্তর্জাতিক নাট্যোৎসবের আয়োজন করা হয়। মঞ্চস্থ হয় বাংলাদেশের নাট্যদল ‘পদাতিক’-এর দু’টি নাটক। প্রথমদিন মঞ্চস্থ হয় ‘কালরাত্রি’। ৭১-এর মুক্তিযুদ্ধের উত্তপ্ত, ভয়াবহ দিনগুলোর প্রেক্ষাপটে নাটকের বিস্তার। স্বাধীনতার জন্য আকূল সমস্ত মানুষ।
বিশদ

06th  July, 2019
 ড্রা মে বা জি-২

সম্প্রতি চিলড্রেন থিয়েটার কার্নিভাল ‘ড্রামেবাজি-২’ হয়ে গেল আই সি সি আর-এ। দ্য ক্রিয়েটিভ আর্টস আয়োজিত এই কার্নিভালে শিশুদের জন্য সারাদিনের এক কর্মশালার আয়োজন করা হয়।
বিশদ

06th  July, 2019
পি সি চন্দ্র নাট্যোৎসব 

হাঁসফাঁস করা গরমে এক টুকরো শান্তি নিয়ে এল বাইপাস সংলগ্ন পি সি চন্দ্র গার্ডেনের সবুজের বিস্তার। তিনদিন ব্যাপী নাটকের আসর বসেছিল সবুজঘেরা এই ওয়েসিসে। নিবেদনে পি সি চন্দ্র। 
বিশদ

29th  June, 2019
অস্থির সময়ে বেঁচে থাকার নতুন দিশা 

একটা অস্থির সময়ের মধ্যে দিয়ে চলেছি। সন্ত্রাস, হত্যা চলছে ধর্মের নামে, জাতের নামে। সৃষ্টি হচ্ছে বিভেদ, অসহিষ্ণুতা। যা দেশ, কাল, সময়ের বৃহত্তর গণ্ডি পেরিয়ে উঁকি দিচ্ছে পরিবারে, সম্পর্কে। মানুষ এখন আত্মকেন্দ্রিক, নিজের ভালো ছাড়া আর কিছু দেখে না।  
বিশদ

29th  June, 2019
কালিদাস ও মল্লিকার প্রেমকাহিনী 

অতি সম্প্রতি কালিন্দী নাট্যসৃজন তাদের নবতম প্রযোজনা মোহন রাকেশের ‘আষাঢ়ের প্রথম দিনে’ মঞ্চস্থ করল। প্রসঙ্গত, ঠিক একই সময়ে আরো দুটি নাট্যগোষ্ঠী মোহন রাকেশের অন্য দুটি নাটক মঞ্চস্থ করেছেন।  বিশদ

29th  June, 2019
মেঘনাদ আবার চমকে দিলেন

ভাগীরথীর বুকে জেগে ওঠা এক চর। শহর থেকে অনেকটাই বিচ্ছিন্ন এক গ্রাম। নাম ঈশ্বরীপুর। সেই গ্রামের দূষণহীনতার মধ্যে বেড়ে ওঠে সত্যচরণ আর ধূর্জটিনারায়ণ, দুই বন্ধু। যৌবনের শুরুতেই একই গুরুর কাছে তাঁদের রাজনীতির পাঠ নেওয়া। শিক্ষাগুরু নিত্যানন্দ ছিলেন আদর্শবাদী, ন্যায়পরায়ণ। সত্যবাদিতা যার কাছে একমাত্র সত্য। বিশদ

22nd  June, 2019
জাহান্নামের সমাচার 

আপন সৃষ্টিশীলতায় ওরা ছোটছোট বৃত্ত রচনা করে ঘুরে চলেছে। ‘ওরা’ হল – ইফটা, থিয়েলাইট, যাদবপুর মন্থন, দমদম গোত্রহীন, অশোকনগর নাট্যমুখ এবং দমদম শব্দমুগ্ধ। ছোট ছোট স্বাবলম্বী নাটকের দল। স্বাধীন চিন্তাভাবনা, কল্পনা, সৃষ্টিশীলতাকে নিংড়ে, মেজেঘষে, বিগত দেড় দশক ধরে বাংলার নাট্যমঞ্চকে সমৃদ্ধ করে চলেছে।
বিশদ

22nd  June, 2019
 গঙ্গার ধারে মুক্ত অঙ্গনে নাটক

প্রসেনিয়ামের সাথে কোনও বিরোধিতা নেই, শুধু থিয়েটারের নতুন দিক খোঁজার তাগিদেই এক অভূতপূর্ব সন্ধ্যায় ১৫ই জুন সোদপুর গঙ্গাতীরবর্তী সুখচর পাইন ঠাকুরবাড়ির বিস্তৃত অঙ্গন, অন্দর-বাহির মিলে এক মুক্ত হাওয়ায় যেন এক নতুন ইতিহাস রচিত হল, রবীন্দ্রনাথের বিসর্জন উপস্থাপনার মধ্য দিয়ে।
বিশদ

22nd  June, 2019
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ইস্ট-ওয়েস্ট পথে বাণিজ্যিকভাবে ট্রেন চালানোর চূড়ান্ত অনুমোদন চেয়ে গত মাসের শেষের দিকে ‘কমিশনার অব রেলওয়ে সেফটি’ (সিআরএস)-র কাছে আবেদন করেছিল কলকাতা মেট্রো রেল কর্পোরেশন লিমিটেড (কেএমআরসিএল)। সঙ্গে পাঠানো হয়েছিল প্রয়োজনীয় কাগজপত্রও। ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: তাঁরা পঞ্চায়েত এলাকায় কর আদায় করেন। তাঁদের মাধ্যমে যে টাকা আদায় হয়, তার উপর অনেকটাই নির্ভর করে পঞ্চায়েতের আয়। মোটা টাকার অনুদান পাওয়ার ক্ষেত্রেও পঞ্চায়েতের ভরসা তাঁরাই। অথচ গ্রাম পঞ্চায়েতের ট্যাক্স কালেক্টরদের ন্যায্য টাকা দেওয়ার ক্ষেত্রে চরম ...

নিজস্ব প্রতিবেদন: বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে ভারতের সঙ্গে একই গ্রুপে রয়েছে বাংলাদেশ, ওমান, আফগানিস্তান ও কাতার। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, অপেক্ষাকৃত সহজ গ্রুপে পড়েছেন সুনীল ছেত্রী-সন্দেশ ঝিংগানরা। কিন্তু ভারতের ক্রোয়েশিয়ান কোচ ইগর স্টিম্যাচ বলেছেন, ‘গ্রুপের বাকি দলগুলির প্রত্যেককেই যথেষ্ট গুরুত্ব দিচ্ছি।’ ...

সংবাদদাতা, রামপুরহাট: নলহাটি থানার মাঠকলিঠা গ্রামে এক গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল। পুলিস জানিয়েছে, মৃতার নাম প্রতিমা দাস(২৮)। তাঁর বাপেরবাড়ি মুরারই থানার খানপুর গ্রামে। বছর পাঁচেক আগে মাঠকলিঠার বাসিন্দা পেশায় সিভিক ভলান্টিয়ার পলাশ দাসের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়।   ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মপ্রার্থীদের কর্মের যোগাযোগ আসবে। যে সুযোগ পাবেন তাকে সদ্ব্যবহার করুন। কর্মক্ষেত্রে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আনুকূল্য পাবেন। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮২৯- আমেরিকাতে টাইপরাইটারের পূর্বসুরী টাইপোগ্রাফার পেটেন্ট করেন উইলিয়াম অস্টিন বার্ড।
১৮৫৬- স্বাধীনতা সংগ্রামী বাল গঙ্গাধর তিলকের জন্ম
১৮৮১ - আন্তর্জাতিক ক্রীড়া সংস্থাগুলির মধ্যে সবচেয়ে পুরাতন আন্তর্জাতিক জিমন্যাস্টিক ফেডারেশন প্রতিষ্ঠিত হয়।
১৮৯৫- চিত্রশিল্পী মুকুল দের জন্ম
১৯৯৫- হেল-বপ ধূমকেতু আবিস্কার হয়। পরের বছরের গোড়ায় সেটি খালি চোখে দৃশ্যমান হয়।
২০০৪- অভিনেতা মেহমুদের মৃত্যু
২০১২- আই এন এ’ যোদ্ধা লক্ষ্মী সায়গলের মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার 67.49 70.53
পাউন্ড 84.31 88.37
ইউরো 75.63 79.29
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৫,৫৩৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৩,৭১৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৪,২২০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,৮৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,৯৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৬ শ্রাবণ ১৪২৬, ২৩ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার, ষষ্ঠী ২৭/৫২ অপঃ ৪/১৬। উত্তরভাদ্রপদ ২০/১৫ দিবা ১/১৪। সূ উ ৫/৭/৪২, অ ৬/১৮/১৭, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৬ গতে ১০/২৪ মধ্যে পুনঃ ১/২ গতে ২/৪৮ মধ্যে পুনঃ ৩/৪০ গতে ৫/২৬ মধ্যে। রাত্রি ৭/১ মধ্যে পুনঃ ৯/১১ গতে ১১/২১ মধ্যে পুনঃ ১/৩১ গতে ২/৫৮ মধ্যে, বারবেলা ৬/৪৭ গতে ৮/২৫ মধ্যে পুনঃ ১/২২ গতে ৩/১ মধ্যে, কালরাত্রি ৭/৩৯ গতে ৯/০ মধ্যে।
৬ শ্রাবণ ১৪২৬, ২৩ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার, ষষ্ঠী ১৮/৪৭/৯ দিবা ১২/৩৭/৪। উত্তরভাদ্রপদনক্ষত্র ১৪/২৯/১২ দিবা ১০/৫৩/৫৩, সূ উ ৫/৬/১২, অ ৬/২১/২৮, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৯ গতে ১০/২৪ মধ্যে ও ১/০ গতে ২/৪৪ মধ্যে ও ৩/৩৬ গতে ৫/১৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৫৫ মধ্যে ও ৯/৮ গতে ১১/২০ মধ্যে ও ১/৩২ গতে ৩/১ মধ্যে, বারবেলা ৬/৪৫/৩৬ গতে ৮/২৫/১ মধ্যে, কালবেলা ১/২৩/১৪ গতে ৩/২/৩৯ মধ্যে, কালরাত্রি ৭/৪২/৪ গতে ৯/২/৩৯ মধ্যে।
১৯ জেল্কদ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
খেজুরির হলুদবাড়িতে বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ৩ বছরের শিশু 
পূর্ব মেদিনীপুরের খেজুরি এলাকার হলুদবাড়িতে বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষের অভিযোগ। দু’পক্ষের গোলমালের ...বিশদ

10:11:23 AM

শহরে ট্রাফিকের হাল
আজ, মঙ্গলবার সকালে শহরের রাস্তাঘাটে যান চলাচল মোটের উপর স্বাভাবিক। ...বিশদ

10:08:39 AM

গোঘাটে খুন তৃণমূল কর্মী, অভিযুক্ত বিজেপি
 

সোমবার রাতে গোঘাটের নকুণ্ডা এলাকায় এক তৃণমূল কর্মীকে পিটিয়ে মারার ...বিশদ

09:57:22 AM

১০০ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স 

09:50:20 AM

২০২০-২১ অর্থবর্ষ থেকে ভারতের বৃদ্ধির হার ছাড়াবে ৮ শতাংশ: নীতি আয়োগ
 

আশানুরূপ ফল দিতে চলেছে পণ্য ও পরিষেবা কর (জিএসটি)। আর ...বিশদ

09:45:47 AM

মহরাষ্ট্রের ভিওয়ান্ডিতে একটি কেমিক্যালের গোডাউনে আগুন

09:44:50 AM