Bartaman Patrika
রঙ্গভূমি
 

পড়াশুনো না জেনেও ইংরেজিতে সংলাপ বলতেন

 যাত্রাভিনেত্রী বর্ণালী বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে লিখেছেন সন্দীপন বিশ্বাস।

১৯৭৫ সাল। সেবার লোকনাট্যের পালা হল ‘সীমান্ত’। রচনা ও নির্দেশনা উৎপল দত্ত। তিনি সেই পালায় ইজাবেল চরিত্রের জন্য বেছে নিলেন বর্ণালী বন্দ্যোপাধ্যায়কে। রিহার্সালের আগে পালা পাঠ করলেন পরিচালক। বর্ণালীকে তিনি বলে রেখেছিলেন, ‘তোর চরিত্রটা মন দিয়ে শুনবি।’ পালাপাঠ কিছুদূর চলার পরই বর্ণালী বুঝতে পারলেন, এই চরিত্র তিনি করতে পারবেন না। পালাপাঠ শেষ হওয়ার পর তিনি সেই কথা উৎপল দত্তকে বললেন। উৎপল তার কারণ জিজ্ঞাসা করলেন। বর্ণালী তাঁকে আমতা আমতা করে বললেন, ‘দাদা, জানেন তো আমি পড়াশোনা জানি না। অত ইংরেজি আমি বলতে পারব না।’
উৎপল দত্ত সেকথা শুনে হো হো করে হেসে উঠে বলেছিলেন, ‘তুই পারবি। দেখে নিস। আমি যেভাবে শেখাব, সেইভাবে শিখবি। যেভাবে উচ্চারণ করব, সেইভাবে করবি। তুই ইংরেজি জানিস না বলেই তার ভুল উচ্চারণটা শিখিস নি। যারা ইংরেজি জানে, তাদের বেশিরভাগই ভুল উচ্চারণ করে।’ এর পর শুরু হল রিহার্সাল। উৎপল দত্ত যেভাবে উচ্চারণ করতেন, সেগুলি গোপনে টেপরেকর্ডারে তুলে নিয়ে গিয়ে বাড়িতে শুনে শুনে উচ্চারণ করতেন আর মুখস্ত করতেন। এভাবেই তিনি অভিনয় করে মঞ্চ কাঁপিয়ে দিয়েছিলেন। তাঁর অভিনয় দেখে নাকি অনেকে বলেছিলেন, আপনি এত ভালো ইংরেজি জানেন!
বর্ণালী অভিনয় শুরু করেছিলেন সেই ছোট্ট বয়সে। না, শখ করে নয়। সংসারের অভাব মেটাতে। বাবা ছিলেন পুরোহিত। মাঝে মাঝে অ্যামেচার দলে অভিনয় করতেন বর্ণালী। কখনও জুটত পাঁচ টাকা, কখনও বা সাত টাকা। তাই দিয়ে সংসারের ছেঁড়াফাটা দিকগুলোয় তাপ্পি মারার আপ্রাণ চেষ্টা চলত। তখন তাঁর ডাকনাম ছিল বেণু। পারিবারিক পদবী তাঁদের চক্রবর্তী। যাত্রাদলের কর্নেটবাদক খোকা মল্লিক ছিলেন তাঁর বাবার পরিচিত। তিনি তরুণ অপেরায় তখন ক্ল্যারিওনেট বাজাতেন। সেই সূত্রে একদিন তিনি এসে তাঁর বাবাকে বললেন, ‘তরুণ অপেরায় ‘সোনাই দীঘি’ হবে। ওরা সোনাই চরিত্রের জন্য একটা নতুন মেয়ে খুঁজছে। আমি ভাবছিলাম বেণুকে একবার ওদের ওখানে নিয়ে যাব।’ সংসারের অভাব মেটাতে বেণু নদীয়ার দাদুপুর থেকে চলে এলেন কলকাতায়। নির্বাচিত হলেন। তখন তাঁর বয়স কতই বা হবে, ১৬ কী ১৭। নাম হল তাঁর বর্ণালী বন্দ্যোপাধ্যায়। অপেরা মালিক চক্রবর্তী পদবী বদলে করে দিলেন বন্দ্যোপাধ্যায়। সে বছর তরুণ অপেরায় ছিলেন ফণীভূষণ বিদ্যাবিনোদ, দিলীপ চট্টোপাধ্যায়, শান্তিগোপাল প্রমুখ। সবাই তাঁকে আপন করে নিলেন। স্বভাবের জন্য আর তাঁর শেখার অদম্য বাসনা দেখে। বড় ফণী বলতেন, ‘মাথা তুলে দর্শকদের দিকে তাকিয়ে কথা বল। অভিনয়ের সময় কোনও জড়তা রাখবি না।’ পরে উৎপল দত্ত যখন নাট্যশিক্ষক হলেন তখন বলতেন, ‘জোরে বল, সবাই যাতে শুনতে পায়, হাতের ব্যবহার ঠিকমতো কর। চলাটাও চরিত্রের মতো করে তুলতে হবে।’
বর্ণালী বললেন, ‘এইসব মানুষের কাছে কত কী শিখেছি। বুঝেছি কষ্ট করে শিখলে কিছুই বৃথা যায় না।’
পেট ভরে ভাত খেতে পাবে বলে যে মেয়েটিকে একদিন তাঁর বাবা বলেছিলেন, ‘যা বেণু কলকাতায় গিয়ে অভিনয় কর, ওখানে অন্তত পেট ভরে খেতে পাবি’, সেই মেয়েটিই আরও অনেক কিছু করে ফেললেন। অভিনয়ে তিনি একটু একটু করে বিখ্যাত হয়ে উঠতে লাগলেন।
তরুণ অপেরা থেকে লোকনাট্য। নাট্যশিক্ষক হিসাবে পেলেন উৎপল দত্তকে। তিনি মনের মতো করে গড়ে নিলেন বর্ণালীকে। বর্ণালী বললেন, ‘উনি অভিনেতা–অভিনেত্রীদের মানসিকতা খুব ভালো বুঝতেন। হয়তো অনেকক্ষণ রিহার্সাল হয়েছে। সবাই ঠিক মন দিতে পারছেন না। উনি রিহার্সাল কিছুক্ষণ বন্ধ রেখে হাসি-তামাশা করতেন। নিজের জীবনের মজার সব ঘটনা বলতেন। যেমন সিরিয়াস ছিলেন, তেমনই ছিলেন মজার মানুষ।’
একসময় যেমন শান্তিগোপাল-বর্ণালী জুটি হয়েছিলেন, হিটলার, লেনিন, নেপোলিয়ন, আমি সুভাষ, রাজা রামমোহন। ইতিহাস সৃষ্টিকারী সব পালা। এরপর তৈরি হল নতুন জুটি। শেখর গঙ্গোপাধ্যায় এবং বর্ণালী বন্দ্যোপাধ্যায়ের জুটি। তাঁদের অভিনীত ‘সন্ন্যাসীর তরবারি’, ‘জানোয়ার’, ‘ভীষ্মজননী গঙ্গা’, ‘পাণ্ডবজননী কুন্তী’ প্রভৃতি পালা আজও ইতিহাস হয়ে আছে।
অভিনয়ের পাশাপাশি চলছিল মন দেওয়া নেওয়ার পালা। তরুণ অপেরায় থাকতেই যাত্রার নামকরা অভিনেতা অনুপকুমারের সঙ্গে গড়ে উঠল প্রণয়ের সম্পর্ক। প্রেম গড়াল আসর থেকে বাসরে। কিন্তু কিছুদিন পরই কী যে হল, অন্য প্রেম এসে ভাসিয়ে নিয়ে গেল আগের প্রেমকে। সে ছিল এক অশান্তির সময়। একদিকে পালায় অভিনয়, অন্যদিকে ব্যক্তিগত জীবনের অশান্তি। মন একেবারে ভেসে গেল। নতুন জীবনসঙ্গী হিসাবে বেছে নিলেন আর এক যাত্রা অভিনেতা খোকন বন্দ্যোপাধ্যায়কে। মা হলেন। তারপরে এক ভয়ঙ্কর ক্লাইম্যাক্স! খোকন পৃথিবীর মঞ্চ ছেড়ে বিদায় নিলেন। সে এক লড়াইয়ের সময়। অভিনয়, নাকি মেয়েকে মানুষ করা? বর্ণালী বেছে নিলেন পারিবারিক জীবন। অভিনয় ছেড়ে মেয়েকে মানুষ করার কাজে লেগে পড়লেন।
বর্ণালী বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বহু পালায় অভিনয় করেছিলেন রুনু অধিকারী। তাঁর কথায়, ’বর্ণালীদি যত বড় অভিনেত্রী, তত বড় মনের মানুষ। কোনও অহঙ্কার ছিল না। আমি ছিলাম তখন শিশু অভিনেতা। তখন আমাকে অনেক কিছু শিখিয়েছেন।’
সে ছিল এক মজার কাহিনী। জানোয়ার পালার ঈশিতা চরিত্রে ছিলেন বর্ণালী। সে পালায় তাঁর একটি সিগারেট খাওয়ার দৃশ্য ছিল। জ্বলন্ত সিগারেট নিয়ে তিনি মঞ্চে উঠতেন। দু’এক টান দিতেন। তারপর নেমে আসতেন। একবার প্রস্থানের সময়, দর্শকদের মধ্য থেকে দুটো ছেলে চিৎকার করে বলল, ‘দিদি সিগারেটটা দিয়ে যান।’ প্রস্থান পথেই পাশেই তারা বসেছিল। তাদের হাতে জ্বলন্ত সিগারেটটা দিয়ে গ্রিনরুমে চলে গেলেন। তাদের সে কী আনন্দ! যেন লটারির টিকিট পেয়েছে। বললেন, ‘বেশ ভালো লেগেছিল ব্যাপারটা। আর একবার সীমান্ত পালায় আমার মদ্যপানের দৃশ্য ছিল। আমি বলতাম, দাও দাও আমাকে আরও মদ দাও। সামনের দিকে এক দর্শক নেশা করে আসরে এসেছিলেন। তিনি বারবার চেঁচিয়ে বলতে লাগলেন, আমিও খাব, আমাকে দাও। সবাই তাকে ধমক দিলেও সে শুনছিল না। একটু ডিসটার্ব হচ্ছিল। আমার সহ অভিনেতা ছিলেন অনাদি চক্রবর্তী। তিনি অভিনয় থামিয়ে তাঁকে বললেন, এখন চুপ করে বসুন। পালা শেষ হলে আপনাকে দেব। এরকম অসংখ্য ঘটনা জড়িয়ে আছে প্রতিটি রাতের অভিনয়ে।’
আজ অবসর জীবনের মাঝে হঠাৎ করে মনের মধ্যে ভেসে ওঠে এক টুকরো সংলাপ। স্বপ্নে ফিরে আসে হারানো কোনও চরিত্র। কোনও ঘটনা। সেই লরির ওপর চেপে এক আসর থেকে অন্য আসরে যাওয়া। তখন বাস আর কোথায়! কত কষ্ট ছিল। তবু ছিল কত আনন্দ! মনে হয়, শরীরটা উপযোগী থাকলে অভিনয় করা যেত। বরানগরের বাড়িতে বসে পুরনো দিনের কথা বলছিলেন বর্ণালী দেবী। দেহ-পট সনে নট সকলি হারায়। একদিন সমস্ত মঞ্চজুড়ে যে মেয়েটি তীব্র আবেগে অভিনয় করতেন। দর্শকদের কত হাততালি আর মুগ্ধতার মধ্য দিয়ে মঞ্চে ঢুকতেন, বেরতেন। ‘মুক্তিদীক্ষা’ পালায় প্যারিসের গেরিলা নেত্রী ক্লোদেৎ, ‘সন্ন্যাসীর তরবারি’ পালায় দেবী চৌধুরানি, ‘ঝড়’এ এমিলিয়া, ‘তুরুপের তাস’এ মিত্রা সালগাঁওকর। অসংখ্য চরিত্র বহু মানুষের স্মৃতিতে আজও অম্লান। তাঁরও স্মৃতিজুড়ে ভেসে থাকে হারানো অ্যালবাম। বয়স এখন তাঁর শরীরকে স্লথ করেছে। ঘর ভরতি ফ্রেমজুড়ে অভিনয়ের ছবি আর পোস্টার। হারানো স্মৃতির ভিতর একা একা ডুবে যান। যেন বলতে চান, ‘যেতে নাহি দিব।’ তবু যেতে দিতে হয়।
01st  June, 2019
মেঘনাদ আবার চমকে দিলেন

ভাগীরথীর বুকে জেগে ওঠা এক চর। শহর থেকে অনেকটাই বিচ্ছিন্ন এক গ্রাম। নাম ঈশ্বরীপুর। সেই গ্রামের দূষণহীনতার মধ্যে বেড়ে ওঠে সত্যচরণ আর ধূর্জটিনারায়ণ, দুই বন্ধু। যৌবনের শুরুতেই একই গুরুর কাছে তাঁদের রাজনীতির পাঠ নেওয়া। শিক্ষাগুরু নিত্যানন্দ ছিলেন আদর্শবাদী, ন্যায়পরায়ণ। সত্যবাদিতা যার কাছে একমাত্র সত্য। বিশদ

22nd  June, 2019
জাহান্নামের সমাচার 

আপন সৃষ্টিশীলতায় ওরা ছোটছোট বৃত্ত রচনা করে ঘুরে চলেছে। ‘ওরা’ হল – ইফটা, থিয়েলাইট, যাদবপুর মন্থন, দমদম গোত্রহীন, অশোকনগর নাট্যমুখ এবং দমদম শব্দমুগ্ধ। ছোট ছোট স্বাবলম্বী নাটকের দল। স্বাধীন চিন্তাভাবনা, কল্পনা, সৃষ্টিশীলতাকে নিংড়ে, মেজেঘষে, বিগত দেড় দশক ধরে বাংলার নাট্যমঞ্চকে সমৃদ্ধ করে চলেছে।
বিশদ

22nd  June, 2019
 গঙ্গার ধারে মুক্ত অঙ্গনে নাটক

প্রসেনিয়ামের সাথে কোনও বিরোধিতা নেই, শুধু থিয়েটারের নতুন দিক খোঁজার তাগিদেই এক অভূতপূর্ব সন্ধ্যায় ১৫ই জুন সোদপুর গঙ্গাতীরবর্তী সুখচর পাইন ঠাকুরবাড়ির বিস্তৃত অঙ্গন, অন্দর-বাহির মিলে এক মুক্ত হাওয়ায় যেন এক নতুন ইতিহাস রচিত হল, রবীন্দ্রনাথের বিসর্জন উপস্থাপনার মধ্য দিয়ে।
বিশদ

22nd  June, 2019
 নাটকের বই

চন্দন দাশকে নাট্যমোদী মানুষ যতটা চেনেন অভিনেতা এবং নির্দেশক হিসেবে, নাট্যকার হিসেবে ততটা বোধহয় তাঁর পরিচিতি নেই। কিন্তু ঘটনা হল তিনি নাটক লেখেন এবং শুধু নাটকই নয়, কবিতাও তাঁর লেখনী থেকে জন্ম নেয়। ছাপার অক্ষরে প্রকাশিত তাঁর প্রথম নাটক ‘ভুল ঠিকানায়’। ২০১২ সালে সেটি প্রকাশিত হয়।
বিশদ

22nd  June, 2019
 অস্থির সময়ের প্রেক্ষিতে কিছু কথা

  ভোট পরবর্তী হিংসা, হানাহানি, ধর্মীয় সন্ত্রাস, সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ, এই মুহূর্তে এতটাই বেড়ে গেছে, যা সমাজকে এক ভয়ঙ্কর পরিণতির দিকে নিয়ে যাচ্ছে। চিন্তিত সাধারণ মানুষ। সেই সঙ্গে উদ্বিগ্ন, ভীত, চিন্তিত বিদ্ধজনেরা। এই দুশ্চিন্তা, ভয়কে সাধারণের সামনে প্রকাশ করার জন্য এক নাগরিক সভার আয়োজন করেছিলেন বিদদ্বজনেরা। যার শিরোনাম ছিল – এই মৃত্যু উপত্যকা আমার দেশ না।
বিশদ

22nd  June, 2019
কাগজের বিয়ে ও কর্ণ-কুন্তী কিস্‌সা 

আগামী ১৮ জুন গিরিশ মঞ্চে দেখা যাবে দু’ দুটি মজার নাটক। প্রথমটি বেলঘরিয়া থিয়েটার অ্যাকাডেমি প্রযোজিত ‘কাগজের বিয়ে’। কাগজের বিয়ে অর্থাৎ রেজিস্ট্রি ম্যারেজ। লোহালক্কড়ের ব্যবসায়ী রাধাকান্তবাবু কোষ্ঠী বিচার না করে কিছুতেই বিয়ের পক্ষপাতী নন। তাহলে পর্ণার বিয়েটা কি ভেস্তেই যাবে?  
বিশদ

15th  June, 2019
মঞ্চে শঙ্করাচার্যের দর্শন 

সম্প্রতি ‘নীলদর্পণ’ নাট্যসংস্থা শিশির মঞ্চে ‘মোহমুদ্গর’ নাটকটি মঞ্চস্থ করল। এটি একটি একক অভিনয়। নাট্যকার, পরিচালক ও অভিনেতা একজনই— রণেন্দ্রনাথ ধাড়া। ‘মোহমুদ্গর’ শঙ্করাচার্যের দার্শনিক গ্রন্থ।  
বিশদ

15th  June, 2019
সমসাময়িক সমস্যা তুলে ধরে এ নাটক 

ডাক্তারি এমন এক পেশা, যা অন্যান্য পেশার থেকে অনেকটাই আলাদা। কেননা এই পেশার সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে সহমর্মিতা, দায়িত্বশীলতা, বিচক্ষণতা, সততা, সেবার মানসিকতা প্রভৃতি মানবিক গুণগুলি। মানুষের মরাবাঁচা নির্ভর করে চিকিৎসকের হাতে। তাই ডাক্তারকে ভগবানের সমতুল্য মনে করা হয়।  
বিশদ

15th  June, 2019
ধর্মীয় মৌলবাদের বিরুদ্ধে আওয়াজ তোলে এ নাটক 

ধর্ম নয়, ধর্মান্ধতা ও ধর্মীয় মৌলবাদের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করতেই কলম ধরেন সুস্মিতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মানবতার অপমান, সংকীর্ণতা, অপব্যাখা ও অপক্ষয়ের প্রতি সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করার উদ্দেশ্যেই তাঁর লেখা ‘কাবুলিওয়ালার বাঙালি বউ’ বইটি একসময়ে সাড়া ফেলে জনমানসে।  
বিশদ

15th  June, 2019
রাজ্যে অস্থিরতায় উদ্বিগ্ন বিশিষ্টরা, ডাক সভার 

ভোট পরবর্তী হিংসা ও সামাজিক অস্থিরতায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বাংলা নাট্যজগত সহ অন্য ক্ষেত্রের বিশিষ্ট মানুষেরা। প্রায় প্রতিদিনই রাজ্যের নানা অংশে তৈরি হচ্ছে অস্থিরতা। বাড়ছে দাঙ্গা-হাঙ্গামা ও সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ। সামাজিক অনুষ্ঠান ও আচরণবিধিতে সাম্প্রদায়িক রং লাগানোর চেষ্টা চলছে।  
বিশদ

15th  June, 2019
আধুনিক যাত্রার রূপকথার এক নায়ক 

শক্তিশালী অভিনেতা শেখর গঙ্গোপাধ্যায়। খ্যাতি আর পতনের আলোছায়ায় বর্ণময় এক জীবন। লিখেছেন সন্দীপন বিশ্বাস 

যাত্রার দুরন্ত অভিনেতা শেখর গঙ্গোপাধ্যায় আপন প্রতিভায় একটি নিজস্ব ধারা তৈরি করেছিলেন। কিন্তু দেখা যায় যে উচ্চতায় তিনি আরোহণ করতে পারতেন, সেই শিখরে তিনি পৌঁছতে পারেননি। তিনি যেন শেক্সপিয়ারিয়ান ট্রাজেডির একটি চরিত্র।
বিশদ

15th  June, 2019
প্রকৃত জ্ঞানীর মতোই নিরহঙ্কার এবং আড়ম্বরহীন মানুষ ছিলেন সলিলদা

প্রয়াত হলেন নাট্যব্যক্তিত্ব সলিল বন্দ্যোপাধ্যায়। উঁচুপদে চাকরির লোভ সম্বরণ করে আজীবন থিয়েটারের সেবা করে এসেছেন। ১৯৭৪ সালে প্রতিষ্ঠা করেন নিজের দল ‘থিয়েট্রন’। প্রথম নাটক ‘প্রথম পার্থ’। তাঁর নির্দেশিত ‘বিসর্জন’, ‘অসংগত’, ‘খেলাঘর’ প্রভৃতি নাটকগুলি জনপ্রিয়তা লাভ করেছিল। স্মৃতিচারণ করলেন সংগ্রামজিৎ সেনগুপ্ত।
বিশদ

08th  June, 2019
ভালো প্রযোজনার ইচ্ছেই সম্বল

 প্রত্যন্ত একটি গ্রামে বাবা মায়ের সঙ্গে বাস অভির। একটি অখ্যাত অনামী স্কুলে অভির পড়াশোনা। কিন্তু স্কুল যাই হোক না কেন পড়াশোনায় অভি অত্যন্ত ভালো আর কৃতী ছাত্র হওয়ার সুবাদে গ্রামের মানুষ তাকে একটু অন্যরকমভাবে দেখে। অর্থাৎ ভালোছেলের মর্যাদায় ভূষিত অভি। অভির গৃহশিক্ষক (নাটকে ব্যবহৃত নাম মাস্টারমশাই) অভির আদর্শ।
বিশদ

08th  June, 2019
অন্যায় ও মনস্তত্ত্ব

  মনস্তত্ত্ব আর আবেগ দুটি অত্যন্ত জটিল বিষয়। যার ব্যাখ্যা করা সহজ নয়। কারণ এই দুটি বিষয়ের ওপর মানুষের নিয়ন্ত্রণ থাকে না। তাই যখন মানুষ ভুল করে, তখন তার কাজের একটা ব্যাখ্যা থাকে নিজের কাছে। যেটা সে অন্যদের বোঝাবার চেষ্টা করে। কিন্তু সে বুঝতে পারে না যে তার ছোট্ট একটা ভুল অন্য একজনের কত বড় ক্ষতি করে দিতে পারে।
বিশদ

08th  June, 2019
একনজরে
লন্ডন, ২৫ জুন (এপি): ডিউক ও ডাচেস অব সাসেক্স যুবরাজ হ্যারি ও মেগান মার্কেলের বাড়ি সংস্কারে খরচ হয়েছে ২৪ লক্ষ পাউন্ড বা ৩০ লক্ষ ৬ হাজার ডলার। যার পুরোটাই ব্রিটেনের সাধারণ করদাতাদের টাকা। মঙ্গলবার রাজকোষাগারের পক্ষ থেকে এই হিসেব প্রকাশ ...

হায়দরাবাদ, ২৫ জুন: অন্ধ্রপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নাইডুর নিরাপত্তায় আগেই কাঁটছাঁট করা হয়েছিল। এবার তাঁর ছেলে এবং পরিবারের জেড ক্যাটাগরির নিরাপত্তাও কমিয়ে দিল জগন্মোহন রেড্ডির সরকার। নির্বাচনে ভরাডুবির পর চলতি মাসের প্রথমে সপরিবারে ইউরোপ বেড়াতে গিয়েছিলেন চন্দ্রবাবু। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, দক্ষিণ ২৪ পরগনা: রাজপুর-সোনারপুর পুরসভায় জমা পড়ে থাকা সমস্ত ট্রেড লাইসেন্স চলতি মাসেই দিয়ে দেওয়া হবে। মঙ্গলবার এ কথা জানিয়েছেন চেয়ারম্যান পল্লব দাস। তিনি বলেন, নতুন ট্রেড লাইসেন্স এবং নবীকরণের জন্য যাঁরা পুরসভার স্থানীয় ও প্রধান অফিসে ফিসহ ...

  নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আসন্ন মরশুমের জন্য মঙ্গলবার ৩৪ সদস্যের সম্ভাব্য বাংলা দল ঘোষিত হল। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যায় অধিক পরিশ্রম করতে হবে। ব্যবসায় যুক্ত ব্যক্তির পক্ষে দিনটি শুভ। প্রেম-প্রীতিতে আগ্রহ বাড়বে। নতুন ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব মাদক বিরোধী দিবস
১৯৬৮: ইতালির ফুটবলার পাওলো মালদিনির জন্ম
২০০৫: ক্রিকেটার একনাথ সোলকারের মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৮.৪৮ টাকা ৭০.১৭ টাকা
পাউন্ড ৮৬.৭৩ টাকা ৮৯.৯৬ টাকা
ইউরো ৭৭.৫৫ টাকা ৮০.৫২ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৫,০৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৩,২৮০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৩,৭৮০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,২০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৩০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১১ আষা‌ঢ় ১৪২৬, ২৬ জুন ২০১৯, বুধবার, নবমী অহোরাত্র। উত্তরভাদ্রপদ ১/৩৯ প্রাতঃ ৫/৩৭। সূ উ ৪/৫৭/৪৩, অ ৬/২০/৩৭, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৮ গতে ১১/১১ মধ্যে পুনঃ ১/৫২ গতে ৫/২৭ মধ্যে। রাত্রি ৯/৫৩ মধ্যে পুনঃ ১২/০ গতে ১/২৫ মধ্যে, বারবেলা ৮/১৯ গতে ৯/৫৯ মধ্যে পুনঃ ১১/৩৯ গতে ১/২০ মধ্যে, কালরাত্রি ২/১৯ গতে ৩/৩৮ মধ্যে।
১০ আষাঢ় ১৪২৬, ২৬ জুন ২০১৯, বুধবার, নবমী ৫৪/৩/১৫ রাত্রি ২/৩৪/৪। রেবতীনক্ষত্র ৬০/০/০ অহোরাত্র, সূ উ ৪/৫৬/৪৫, অ ৬/২৩/৩৯, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪২ গতে ১১/১৫ মধ্যে ও ১/৫৫ গতে ৫/২৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/৫৫ মধ্যে ও ১২/৩ গতে ১/২৯ মধ্যে, বারবেলা ১১/৪০/১৩ গতে ১/২১/৪ মধ্যে, কালবেলা ৮/১৮/২৯ গতে ৯/৫৯/২১ মধ্যে, কালরাত্রি ২/১১/২৯ গতে ৩/৩৭/৩৭ মধ্যে।
২২ শওয়াল

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
বিশ্বকাপ: পাকিস্তানকে ২৩৮ রানের টার্গেট দিল নিউজিল্যান্ড

07:55:05 PM

জামিন বাতিল বিজয়বর্গীর ছেলের
পুরসভার আধিকারিকদের মারধরের মামলায় বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়র ছেলে আকাশ ...বিশদ

07:46:40 PM

বিশ্বকাপ: নিউজিল্যান্ড ১৫৫ /৫ (৪১ ওভার) 

07:08:38 PM

জোড়াসাঁকোয় চলন্ত মিনিবাসে আগুন
আজ কলকাতায় চলন্ত অবস্থায় একটি মিনিবাসের বামদিকের চাকায় আগুন লেগে ...বিশদ

06:42:52 PM

তারকেশ্বরে জনসংযোগ যাত্রা তৃণমূলের
তারকেশ্বরে জনসংযোগ যাত্রা করল তৃণমূল কংগ্রেস।পদযাত্রা অংশগ্রহণ করেন মন্ত্রী ফিরহাদ ...বিশদ

06:31:00 PM

 বিশ্বকাপ: নিউজিল্যান্ড ৯৪ /৫ (৩০ ওভার)

06:24:25 PM