Bartaman Patrika
রঙ্গভূমি
 

সভাগার থিয়েটার ফেস্টিভ্যাল

সংস্কৃতি সাগর ও সেন্টার স্টেজ ক্রিয়েশনের যৌথ উদ্যোগে ২২ থেকে ২৪ মার্চ বিড়লা সভাগৃহে হয়ে গেল সভাগার থিয়েটার ফেস্টিভ্যাল। ছিল তিনটি ভিন্নস্বাদের নাটক। পৌরাণিক, সামাজিক ও মনস্তাত্ত্বিক নাটকগুলির আলোচনায় কমলিনী চক্রবর্তী।

রাবণ কি রামায়ণ
নাটকের নামটা শুনে একটু ধন্দে পড়েছিলাম। রাবণ কি রামায়ণ! বাল্মীকির রামকে পালটে নাট্যকার কি রাবণকেই রামায়ণের নায়ক করে ফেললেন? নাটকটা দেখার আগ্রহ তখন থেকেই। নাটকের শুরুতেই রাবণরূপী পুনিত ইসার আর নাট্যকার অতুলসত্য কৌশিকের সঙ্গে আলাপ জমে উঠল। কথা প্রসঙ্গে প্রথম প্রশ্নটাই করে বসলাম, রাবণ কি রামায়ণে হিরো কে? একটু থমকে গেলেন নাট্যকার। কিন্তু পুনিত আমায় পালটা প্রশ্ন করলেন, আচ্ছা বলুন দেখি ইতিহাস কার দ্বারা রচিত হয়? এবার আমার থমকানোর পালা। পুনিত নিজেই উত্তর দিলেন, আবহমান কাল ধরেই ইতিহাস রচিত হয় বিজয়ীর কলম থেকে। এবার একটু পালটে দেখাই যাক না। যুদ্ধে যে হেরে গেল তারও তো একটা বক্তব্য থাকতে পারে। একবার না হয় সেই বক্তব্যটাকেই গুরুত্ব দেওয়া হোক। সেই গুরুত্ব দিতে গিয়েই দিল্লির নাট্যকার অতুল সত্য কৌশিক লিখলেন রাবণ কি রামায়ণ। তাই বলে রামায়ণের এই ভার্সানের হিরো রাবণ, এমনটা ভাবলে ভুল করবেন। রামই নায়ক। তবু রাবণ ভিলেন নন। না, রামায়ণের গল্পে কোনও বদল ঘটাননি নাট্যকার। শুধু দৃষ্টিভঙ্গিটা একটু পালটেছেন এই যা।
কৈলাশের একটি দৃশ্য দিয়ে নাটকটি শুরু হয়। শিবভক্ত রাবণ প্রভুর উপাসনা করতে হিমালয়ে উপস্থিত। নিজের রচিত মন্ত্র দিয়েই রাবণ উপাসনা করছেন শিবের। শিবের কাছে বর চাইছেন। বিজয়ী হওয়ার বর। অন্য অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ হওয়ার বর। শিব কি দেবেন সেই বর তাঁর প্রিয় ভক্তকে? চাইলেই কি সব পাওয়া যায়? কিছু পেতে গেলে কিছু ত্যাগ করাও কি আবশ্যিক নয়? এমন বিভিন্ন প্রশ্নের মধ্যে দিয়েই নাটকটি এগিয়ে নিয়ে গিয়েছেন অতুল। রাবণের মুখে কিছু সংলাপ এমন বসিয়েছেন যার ফলে রামায়ণের বিভিন্ন চরিত্র নিয়ে দর্শকের মন ভাবনায় মজে উঠেছে। একই সঙ্গে রাবণের পাণ্ডিত্যেও মুগ্ধ হয়েছে দর্শক। সংলাপেও নতুনত্ব রয়েছে। আর রাবণের ভূমিকায় পুনিত ইসার যে অনবদ্য তা তো বলাই বাহুল্য।
পৌরাণিক কাহিনী বলেই হয়তো সেটের আতিশয্য থাকবে ধরেই নিয়েছিলাম। সেই চিন্তায় একটু ঠোক্কোর লাগল প্রথমেই। বেশ ম্যাড়ম্যাড়ে সেট ডিজাইন। রাজসিক রাজমহলও চোখে পড়ল না, আবার পঞ্চবটির নিস্তরঙ্গ বনবাসও মুগ্ধ করল না। আর সোনার হরিণের দাপাদাপিযকে ঘিরে এতকাণ্ড তা স্টেজে দেখানোর ঝক্কিই নেননি নাট্য‌কার। পুরো ঘটনাটাই সূর্পনখার বয়ানে শোনানো হয়েছে। তবে সেট ডিজাইন ম্যাড়ম্যাড়ে হলেও লাইটিং বেশ উল্লেখযোগ্য। আলোআঁধারির জাঁকজমকে রীতিমতো একটা আবহাওয়া তৈরি হয়েছে স্টেজের ওপর।
পুনিত ইসার ছাড়া মন্দোদরীর চরিত্রে নিষ্ঠা পালিওয়াল উল্লেখযোগ্য। কিন্তু সীতাকে দেখে বেশ হতাশ লাগল। সেই কবে যে রামায়ণ সিরিয়ালে সীতাকে কাঁদিয়ে দিয়ে গিয়েছেন দীপিকা চিকলিয়া, সীতা এখনও কেঁদেই চলেছেন। তাই অতুল সত্য কৌশিকের নাটকেও সীতার ভূমিকায় লতিকা জৈন বড্ড কাঁদুনে। সীতার চারিত্রক দৃঢ়তা মোটেও ধরা পড়েনি তাঁর অভিনয়ে। যেখানে যুক্তির ওপর যুক্তি সাজিয়ে রাবণের সঙ্গে টক্কর নিচ্ছেন সীতা, সেখানেও তিনি নাকে কাঁদতে ভুলছেন না। আর রাম! তিনি যেন অতিরিক্ত নরম ও সরল চরিত্রের হয়ে উঠেছেন। কোথায় সেই হরধনু ভঙ্গ করা তেজ? কোথায়ই বা তাঁর বীরত্ব? রাবণকে হাইলাইট করার জন্য নাট্যকার কি ইচ্ছাকৃতভাবে রামকে একটু নরম করে রেখেছেন? রামের ভূমিকায় গৌরব জাখুর অভিনয় দেখে এমন প্রশ্নও যে দর্শকের মনে একবারও উঁকি মারে না তা নয়। তুলনায় সূপর্নখা, লক্ষ্মণ ও মেঘনাদ বেশ ভালো। মেঘনাদের চরিত্রে তরুণ দাং বেশ দাপুটে, কয়েকটি দৃশ্যে রীতিমতো চমক লাগিয়েছেন। শেষকালে রাবণ ও রামায়ণে তাঁর প্রয়োজনীয়তা বিষয়ে সামান্য একটু দর্শন রয়েছে। অতটা না হলেও মন্দ হত না। একটু অতিরঞ্জিত দর্শন খানিকটা জ্ঞানের মতো শুনিয়েছে। সব শেষে সংলাপ বিষয়ে একটু না বললেই নয়। গোটা নাটকটাই কবিতার আকারে লেখা এবং অন্তমিল দেওয়া সংলাপ যথাযথভাবে পাঠ করেছেন সব অভিনেতাই।

বালিগঞ্জ ১৯৯০
ইংরেজ কবি রবার্ট ব্রাউনিং তাঁর আন্দ্রিয়া ডেল সার্তো কবিতায় লিখেছেন ‘A man’s reach should exeed its grasp or what is heaven for?’ লাইনটি আবারও মনে পড়ে গেল অতুল সত্য কৌশিকের নাটক বালিগঞ্জ ১৯৯০ দেখতে গিয়ে। সামাজিক অবক্ষয়, একাকীত্ব, প্রেমকাহিনী, নাকি নিছক থ্রিলার? গোটা নব্বুই মিনিট পার করে থিয়েটার হল থেকে বেরতে বেরতেও এই প্রশ্নটাই বারবার মনে কড়া নাড়ছিল। একেবারেই সামাজিক একটি গল্প। প্রেমের প্লট। তবু তারই মধ্যে রয়েছে রহস্য। তারই মধ্যে রয়েছে সম্পর্ক। আবার তারই মধ্যে রয়েছে অধরা প্রেম, অপূর্ণ সাধ। সূপ্ত একটা বাসনাও কি নেই? আছে বোধহয়। তবে এই সব কিছু ছাপিয়ে গিয়েছে অপূর্ণ প্রেমের প্লট। দশ বছর আগে ঘটে যাওয়া ঘটনার জের টেনে ধরে রাখা হয়েছে গোটা গল্পে। কার্তিক আর বাসুকীর প্রেমের ঘটনা। যে প্রেমে দশ বছর আগেই ইতি পড়েছে। তবু সম্পর্কে আগুন নিভে যায়নি পুরোপরি। দশ দশটা বছর ধরে ধিকি ধিকি আগুন জ্বলেছে। তাই বলে কি আর জীবন থেমে থাকে? থাকে না। বাসুকী বা কার্তিকেরও থামেনি। দশ বছর পর বাসুকী এখন বিবাহিত। আর কার্তিক? সেও জীবনে মোটামুটি দাঁড়িয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে দু’জনের আবার দেখা হয়। কার্তিককে বাড়িতে ডাকে বাসুকী। আর তারপর? রহস্যের জাল বোনার সেই শুরু। আর সেই রহস্যের জালে এমন জড়িয়ে যায় দর্শক যে আগু পিছু জ্ঞান থাকে না। সত্য মিথ্যার বিভেদ থাকে না। বাসুকীর কোন কথাটা সত্য বলে ধরবেন? কোনটাই বা মিথ্যা? সে কি আদৌ খুন করেছে কাউকে? নাকি পুরোটাই ভাওতা? এমন নানা প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে খুঁজতেই ৯০ মিনিট কখন যে পেরিয়ে যাবে টেরই পাবেন না। অদ্ভুত একটা ধন্দ টেনে নিয়ে যাবে গোটা নাটকটাকে। আর সেই সঙ্গে দর্শকও স্টেজের এপ্রান্ত থেকে ওপ্রান্থে হানা দেবে চরিত্রগুলোর সঙ্গে।
রহস্য অথচ চরিত্র মাত্র তিনটি। কার্তিক আর বাসুকীর সঙ্গে তো পরিচয় ঘটেই গেছে, বাকি আর একজন, বাড়ির বুড়ো চাকর। কার্তিকের চরিত্রে অনুপ সোনি যথাযথ। একটু হয়তো স্টিফ। কিন্তু বাসুকীর চরিত্রে নিষ্ঠা পালিওয়াল তোমার অনবদ্য। অসম্ভব প্রাণবন্ত আবার একই সঙ্গে গভীর চরিত্রটি দুর্দান্ত ফলটিয়ে তুলেছেন নিষ্ঠা। চাকরের চরিত্রে কুণাল কৌশিক ততটা বিশ্বাসযোগ্য হয়ে উঠতে পারেননি। অবশ্য তিনি সময়ও ততটা পাননি চরিত্রটিকে প্রমাণ করার। সেটটি উল্লেখযোগ্য না হলেও মন্দ নয়। বড়লোক বাড়ির অন্দরমহল হিসেবে ভালোই মানিয়ে গিয়েছে আসবাবপত্র। কিন্তু লাইটিংয়ে ধোঁয়ার ব্যবহার অযথা ও অতিরিক্ত মনে হয়েছে। অন্ধকারের ব্যবহার অবশ্য বেশ উল্লেখযোগ্য। বাড়ির অন্ধকারটাই চরিত্রের মনের কোণে জমাটবাঁধা অন্ধকারের প্রতীক হয়ে দেখা দিয়েছে।

তিতলি কি মউত
নাটকটি মনস্তাত্ত্বিক। মানুষের অন্তরের বিবেক নিয়েই গল্প। বিবেক ছাড়াও দ্বন্দ্ব আর টানাপোড়েন নাটকটির ষোলোআনা জুড়ে। রহস্য, অথচ খুনটা ঘটল সর্বসমক্ষে, প্রথমেই। খুন নাকি আত্মহত্যা? প্রশ্নটা ঘুরছে গল্প জুড়ে। চরিত্রগুলো সবাই তার স্বপক্ষে বা বিপক্ষে নিজের মত জানাচ্ছেন। সেই মতামতই সংলাপ হয়ে ফিরছে চরিত্রের মুখে মুখে।
তিতলি কি মউত নাটকটি চৈতি ঘোষালের পরিচালনা মিলেনিয়াম ম্যাম গ্রুপের একটি নাটক। মিলেনিয়াম ম্যাম কোনও পেশাদার নাট্যদল নয়। একদল গৃহবধূকে নিয়ে একটা সংগঠন। একেবারেই অ্যামেচার প্রোডাকশন। আর সেই অ্যামেচারিশ হাবভাব বেশ স্পষ্টভাবেই ফুটে উঠেছে এঁদের অভিনয়ে। দিদিমা, মা, তিন দিদি, বাড়ির পরিচারিকা আর তিতলি। এই নিয়েই তিতলিদের পরিবার। বাবা মারা গিয়েছেন বহু আগে। আর এবার তিতলিও আর বাঁচবে না। বন্দুক নিয়ে নিজেই নিজের মাথায় ঠেকিয়ে মৃত্যুকে বরণ করল সে। ভাবছেন প্রথমেই আত্মহত্যার রহস্যটা ফাঁস করে দিলাম কেন? দর্শকের সামনেই এইভাবেই আত্মহত্যাটা ঘটে নাটকের প্রায় গোড়াতেই। আর তারপর শুরু হয় নাটকের বিচার। কিন্তু আশ্চর্য এই যে প্রথমেই আত্মহত্যার ঘটনাটা দর্শকের সামনে ঘটতে দেখা গেলেও বারবার আত্মহত্যা না খুন এই প্রশ্ন নিয়ে জেরবার হতে হয় নাটকের অন্যান্য চরিত্রদের। নাটকটি খানিক দূর এগলে দর্শকের একটু শঙ্কা হয়, সত্যিই আত্মহত্যা তো? নাকি খুনই বটে?
শ্যামা শ্রীবাস্তব গোয়েন্দা বিভাগের মহিলা সেলে কর্মরত। তিনিই খুন বা আত্মহত্যার তদন্ত করতে ব্যস্ত। আর সেই তদন্তের জন্য প্রয়োজনীয় প্রশ্ন থেকে উঠে আসে একেকটি চরিত্রের অন্তর্দ্বন্দ্ব। নাটকটা দেখতে দেখতে বারবার উত্তমকুমার অভিনীত থানা থেকে আসছি ছবির কথা মনে পড়ছিল। এত প্রকট ছাপ যে তা এড়িয়ে যাওয়ার উপায় নেই। পাঠক কি এতক্ষণে ধরে ফেলেছেন ছাপটি কিসের? যদি না ধরে থাকেন তাহলে একটা সামান্য ক্লু দিই আপনাদের। কে শ্যামা শ্রীবাস্তব? তিনি কি সত্যিই গোয়েন্দা? নাকি তিনি মনস্তাত্ত্বিক? না হলে হঠাৎ তাঁর প্রশ্নে চরিত্রের অন্তর্দ্বন্দ্ব প্রকাশ পাবে কেন?
তিতলির চরিত্রেআভা গোলছা সাহারিয়ার অভিনয় খুব একটা মনে ধরল না। বড্ড অতি অভিনয়। সব সংলাপেই মুখে একটা আতঙ্ক মিশ্রিত অভিব্যক্তি। যখন সে প্রাণোচ্ছ্বল তরুণী তখনও তার চোখে প্রাণবন্ত হাসি ফুটে উঠছে না। আর শ্যামা শ্রীবাস্তবের অভিনয় তো বীররসে ভরা। কেউ যেন তাঁর হাতে রাজদণ্ড ধরিয়ে হুকুম জারি করার অধিকার দিয়েছে তাঁকে। এমনই হুমকির বার্তার তাঁর সংলাপ বলার ধরনে যে দর্শক আসনে বসেও একটু ভয় লাগে। সামান্য নড়াচড়া করলেও হয়তো শ্যামা শ্রীবাস্তবের রোষের মুখে পড়তে হবে। এইসব খামতিই ঢাকা পড়ে যেত গল্পের টান প্রবল হলে। সেখানেও ফাঁকি এড়ানো গেল না। গোটা নাটকেই তাই অন্য একটা গল্পের মোড়ক স্পষ্ট হয়ে উঠল।
20th  April, 2019
নকশাল আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে মনোগ্রাহী প্রযোজনা 

গত ১৭ই এপ্রিল গিরিশ মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল গড়িয়া কৃষ্টি প্রযোজিত নাটক ‘কালপুরুষ’। সাতের দশকের বামপন্থী আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে রচিত সমরেশ মজুমদারের কাহিনী অবলম্বনে এই নাটক।  বিশদ

18th  May, 2019
রহস্য, রোমাঞ্চ, উত্তেজনায় টানটান নাটক
 

ঝিনুকের জন্মদিনে সকলেই এসেছে। নাচ,গান পার্টি সবই হচ্ছে। তবুও ঝিনুকের মন পড়ে আছে তাঁর বাবার পথের দিকে।আজ কী উপহার আনবে তার বাবা? সকলের যখন চলে যাওয়ার সময় তখন তার বাবা, দিগন্ত পত্রনবিশ ঝিনুকের জন্য ইয়া বড় এক বাঘ নিয়ে ঢুকলেন। ঝিনুকের সে কী আনন্দ বাঘ পেয়ে!  বিশদ

18th  May, 2019
শান্তিগোপাল
হাততালির পিছনে এক যন্ত্রণার জীবন 

অভিনয়ের তাগিদে যাত্রায় এলেও শুরুটা কিন্তু একেবারেই ভালো হল না তাঁর। যাত্রায় হাতেখড়ি রয়েল বীণাপাণি অপেরায় হলেও বীরেন্দ্রনাথ পালের অভিনয়ের হাতেখড়ি আরও অনেক আগেই। যদিও এ নামে তিনি বিখ্যাত নন।   বিশদ

18th  May, 2019
আমি চপল ভাদুড়ী
না চপলরানি!

একসময় নারী চরিত্রে পুরুষদের অভিনয় করাটাই ছিল রেওয়াজ। সেই যুগের শেষ জীবিত প্রতিনিধি চপল ভাদুড়ীর সঙ্গে কথা বললেন সঞ্জীব বসু। বিশদ

04th  May, 2019
যাত্রাসম্রাজ্ঞী জ্যোৎস্না দত্ত

 মান্না দে বললেন, জ্যোৎস্না তুমি হারমোনিয়ামকেও হারিয়ে দিয়েছ...। জ্যোৎস্না দত্তকে নিয়ে লিখেছেন সন্দীপন বিশ্বাস। বিশদ

04th  May, 2019
হাল্কাচালের হাসির নাটক

গত ১৯শে মার্চ বেহালার শরৎ সদনে অনুষ্ঠিত হল ‘ক্রিয়েটিভ বেহালা’ অয়োজিত নাটক ‘সোনার মাদুলি’। নাটকটি রচনা করেছেন বিমল বন্দোপাধ্যায়। পরিচালনায় সুদীপ বন্দোপাধ্যায়। সুদীপ ব্যানার্জী ক্রিয়েশনের সহযোগিতায় বেহালার এই দলটি আগামীদিনে নাট্য জগতে বিশেষভাবে এগিয়ে আসছে।
বিশদ

04th  May, 2019
ঐহিকের নাট্য আসর

গতবারের মতো এবারেও ‘ঐহিক সৃষ্টি সুখের উল্লাসী’ আয়োজন করেছিল সারাদিনব্যাপী এক নাটকের আসরের। যার শিরোনাম ‘বাংলার নটনটী—অভিনয়ের অঙ্গনে নটনটীর দক্ষতা’। তপন থিয়েটারে ৩ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হয় এই নাট্য আসর।
বিশদ

04th  May, 2019
আজও প্রাসঙ্গিক বিসর্জন

আজ আর কোনও দেশের সঙ্গে কোনও দেশ সরাসরি যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে না। এখন হয় যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা, যার গালভারি নাম ছায়া যুদ্ধ। যুদ্ধ হচ্ছে না অথচ যুদ্ধের প্রস্তুতি চলছে সব দেশেই। কেনা হচ্ছে অস্ত্রশস্ত্রের সম্ভার। বাড়ছে সামরিক খাতে ব্যয় বরাদ্দ। তাছাড়া রয়েছে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ।
বিশদ

04th  May, 2019
বহুরূপীর নাট্যোৎসব 

বাংলার সবথেকে পুরনো নাট্যদল বহুরূপী ৭১ বছর পূর্ণ করল। আগামী ১ মে তারা ৭২ বছরে পদার্পণ করবে। এই উপলক্ষে প্রতিবছরের মতো এবারেও অ্যাকাডেমি অব ফাইন আর্টসের মঞ্চে তারা আয়োজন করেছে নাট্যোৎসবের। উৎসবের শুরু ৩০ এপ্রিল। চলবে ২ মে পর্যন্ত। 
বিশদ

27th  April, 2019
শৌভনিক ৬৩ 

আগামী ১ মে ৬৩ বছরে পা দিতে চলেছে শৌভনিক নাট্যদল। বিগত ৬২ বছরে বহু স্বল্পদৈর্ঘ্য ও পূর্ণাঙ্গ নাটক প্রযোজনা করেছে শৌভনিক। যার মধ্যে অধিকাংশই মঞ্চসফল। শুধু নাট্য প্রযোজনাই নয়।  
বিশদ

27th  April, 2019
দেখতে ভালো লাগে অভিনয় ও কোরিওগ্রাফির জন্য 

সম্প্রতি ‘তৃপ্তি মিত্র নাট্যগৃহে’ এক অন্তরঙ্গ নাট্য উৎসবের আয়োজন করে ছিল ‘সিমলা এ-বং পজিটিভ’ নাট্যদল। প্রথমেই তাদের উপস্থাপনা ছিল, বাংলাদেশের কবি কালপুরুষের ‘ঈশ্বর ও তুমি’ কবিতার নাট্যরূপ।
বিশদ

27th  April, 2019
মঞ্চে মার্ক টোয়েনের কথা 

শুধুমাত্র উপস্থাপনার গুণে কীভাবে নিছক কিছু কথা, বর্ণনা আর সংলাপক্ষেপণ শরীরীভাষার সঙ্গে মিলেমিশে দর্শককে নাটক দেখার আনন্দ দেয় তা বোঝা গেল বিনয় শর্মার অভিনয় দেখে। সম্প্রতি পদাতিকের নিজস্ব মঞ্চে অভিনীত হল ‘মার্ক টোয়েন-লাইভ ইন বোম্বে’। 
বিশদ

27th  April, 2019
আটেশ্বরতলার নাট্যোৎসব
যথার্থই মানুষের উৎসব 

নাট্যোৎসব তো কতই হয়। কিন্তু সেটা সত্যি সত্যি উৎসবের চেহারা নেয় ক’টা জায়গায়? বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তো নিমন্ত্রিত বিশিষ্ট অতিথিদের সমাগমে প্রেক্ষাগৃহ ভরে ওঠে। সাধারণ মানুষের স্বতস্ফূর্ত অংশগ্রহণ দেখা যায় ক’টা ক্ষেত্রে? একসময় কয়েকটা ক্ষেত্রে হলেও এখন বোধহয় একটি ক্ষেত্রেও তা চোখে পড়ে না।  
বিশদ

27th  April, 2019
গানের আসরেই অসুস্থ হয়ে পড়ে গেলেন দাশু রায় 

অকাবাঈয়ের দলে যে গান দাশরথী বাঁধতেন, তা খুব উচ্চমানের ছিল না। কেননা তার শ্রোতারা ছিলেন যথেষ্ট নিম্নরুচি সম্পন্ন। তাই দাশরথী রায় তৃপ্তি পাচ্ছিলেন না। শুধু অকাবাঈকে ভালোবেসে তিনি পড়েছিলেন সেই দলে। অকাবাঈয়ের সংসর্গ কাটানোর জন্য তাঁর মামা অন্যত্র একটা চাকরির ব্যবস্থা করে দিলেন।  
বিশদ

27th  April, 2019
একনজরে
নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: এবছর মাধ্যমিকের প্রথম দশে জায়গা করে নিল ৫১ জন পরীক্ষার্থী। ৬৯৪ নম্বর পেয়ে রাজ্যে প্রথম হয়েছে পূর্ব মেদিনীপুরের মহম্মদপুর দেশপ্রাণ বিদ্যাপীঠের সৌগত ...

বিএনএ, চুঁচুড়া: ভাড়াবাড়ির বাথরুম থেকে বুবাই ঘোষ (৩৬) নামে এক যুবকের গলার নলিকাটা দেহ উদ্ধার করল পুলিস। বাড়ির মালিকের কাছ থেকে খবর পেয়ে সোমবার রাতে ...

 ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...

বাংলা নিউজ এজেন্সি: মাধ্যমিকে সম্ভাব্য মেধা তালিকায় পূর্ব বর্ধমান জেলার চারজন এবং পশ্চিম বর্ধমানের এক পড়ুয়া জায়গা করে নিল। বর্ধমান বিদ্যার্থীভবন বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্র সাহিত্যিকা ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

গোপন প্রেম, গোপন থাকবে না। ব্যবসায়ীদের জন্য সময়টি ভালো, বয়স্করা একটু সাবধানী হবেন। ঠান্ডা লাগা ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৫৪৫: সম্রাট শেরশাহের মৃত্যু
১৭৭২: রাজা রামমোহন রায়ের জন্ম
১৮৫৯: গোয়েন্দা শার্লক হোমসের স্রস্টা স্টটিশ সাহিত্যিক আর্থার কোনান ডয়েলের জন্ম
১৮৮৫: ফরাসি সাহিত্যিক ভিক্টর হুগোর মৃত্যু
১৯৪০: ক্রিকেটার এরাপল্লি প্রসন্নর জন্ম
১৯৪৬: আইরিশ ফুটবলার জর্জ বেস্টের জন্ম
২০০৪: ১৭তম প্রধানমন্ত্রী হিসাবে ডঃ মনমোহন সিংয়ের শপথ গ্রহণ

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৮.৯২ টাকা ৭০.৬১ টাকা
পাউন্ড ৮৭.১৮ টাকা ৯০.৩৮ টাকা
ইউরো ৭৬.৫০ টাকা ৭৯.৪৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩২,০৯৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩০,৪৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩০,৯০৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৬,২৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৬,৩৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২২ মে ২০১৯, বুধবার, চতুর্থী ৫৮/১৮ রাত্রি ২/৪১। পূর্বাষাঢ়া অহোরাত্র। সূ উ ৪/৫৭/৫৩, অ ৬/৮/৩০, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৭ গতে ১১/৭ মধ্যে পুনঃ ১/৪৪ গতে ৫/১৫ মধ্যে। রাত্রি ৯/৪৫ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৫ গতে ১/২১ মধ্যে, বারবেলা ৮/১৬ গতে ৯/৫৪ মধ্যে পুনঃ ১১/৩৩ গতে ১/১২ মধ্যে, কালরাত্রি ২/১৫ গতে ৩/৩৭ মধ্যে।
৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২২ মে ২০১৯, বুধবার, চতুর্থী ৫৪/৪৯/৫ রাত্রি ২/৫২/৫৯। পূর্বাষা‌ঢ়ানক্ষত্র ৬০/০/০ অহোরাত্র, সূ উ ৪/৫৭/২১, অ ৬/১০/৪১, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৬ গতে ১১/১০ মধ্যে ও ১/৫০ গতে ৫/২৩ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/৫০ মধ্যে ও ১১/৫৮ গতে ১/২২ মধ্যে, বারবেলা ১১/৩৪/১ গতে ১/১৩/১১ মধ্যে, কালবেলা ৮/১৫/৪১ গতে ৯/৫৪/৫১ মধ্যে, কালরাত্রি ২/১৫/৪১ গতে ৩/৩৬/৩১ মধ্যে।
১৬ রমজান

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ঘেরাও মুক্ত হলেন বিশ্বভারতীর উপাচার্য 

04:21:49 PM

১৪০ পয়েন্ট উঠল সেনসেক্স 

03:52:18 PM

ধূপগুড়ির বিএমওএইচ-এর বিরুদ্ধে এফআইআর করার অভিযোগে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হল স্বাস্থ্য দপ্তরের এক চুক্তিভিত্তিক কর্মীকে 

03:03:00 PM

জম্মু ও কাশ্মীরের পুঞ্চে আইইডি বিস্ফোরণ, শহিদ ১ জওয়ান, জখম ৭ 

01:31:14 PM

২১ ঘণ্টা ধরে অবরুদ্ধ বিশ্বভারতীর উপাচার্য এবং অধ্যাপকরা 
ফি বৃদ্ধির প্রতিবাদে ছাত্র আন্দোলনে জেরে ২১ ঘণ্টা ধরে অবরুদ্ধ ...বিশদ

01:27:28 PM

বর্ধমানের শাঁখারিপুকুর এলাকায় গাড়ি-লরির মুখোমুখি সংঘর্ষ, মৃত ২ 

01:23:08 PM