Bartaman Patrika
আমরা মেয়েরা
 

মাহেশে জগন্নাথদেবের মূর্তি প্রতিষ্ঠাতা 

চতুর্দশ শতাব্দীতে সন্ন্যাসী ধ্রুবানন্দ প্রতিষ্ঠিত তিনটি বিগ্রহ জগন্নাথ, সুভদ্রা, বলরামের পুজো আজও শ্রীরামপুরে মাহেশের মন্দিরে হয়ে আসছে। বলা বাহুল্য, ধ্রুবানন্দ ব্রহ্মচারী হলেন সেই সিদ্ধপুরুষ যিনি সর্বপ্রথম বঙ্গভূমিতে ভগবান শ্রীশ্রী জগন্নাথদেবের পুজোর প্রবর্তন করেন। তাঁর ভক্তি ও জগন্নাথ সাধনার কথা জগৎ বিখ্যাত। তিনিই মাহেশে জগন্নাথদেবের মূর্তি স্থাপন করেন। রথের মরশুমে সেই সাধনার আখ্যানই শুনিয়েছেন দীপক বসু।

বিপুলা এ পৃথিবীর কতটুকু জানি! সত্যি অনেক কিছুই জানি না। মাহেশের জগন্নাথদেবের মূর্তি প্রতিষ্ঠা কে করেছিলেন এবং কীভাবে করেছিলেন তাও কি জানতাম? জানা গেল শ্রীরামপুর বইমেলায় শ্রীমৎ ধ্রুবানন্দ ব্রহ্মচারীর শিষ্যদের দ্বারা প্রচারিত একটি লিফলেট হাতে পেয়ে। যেখানে ফলাও করে বলা হয়েছে চতুর্দশ শতকে ধর্মপ্রাণ ধ্রুবানন্দ ব্রহ্মচারী নামে এক গৃহত্যাগী সন্ন্যাসী শ্রীরামপুর মাহেশের জগন্নাথ ঘাটের দক্ষিণ দিকে একটি পর্ণকুঠীরে বাস করতেন। যদিও তাঁর অতীত জীবন সম্পর্কে কিছু জানা যায়নি। অর্থাৎ তাঁর আদি নিবাস কোথায় এবং তাঁর পিতা-মাতার নাম কী ছিল তাও সম্পূর্ণ অজ্ঞাত। যতদূর জানা যায়, সেই সন্ন্যাসী গঙ্গার তীরে নির্জনে একটি পর্ণকুঠীরে ঈশ্বরের আরাধনা করতেন। একনিষ্ঠ সাধক বলেই তিনি ঈশ্বরের সন্ধানে এক সময় বহু তীর্থ ভ্রমণ করে অবশেষে পুরীধামে গিয়ে উপস্থিত হন।
পুরীর মন্দিরে আরাধ্য দেবতা মহাপ্রভুকে দর্শন করে তিনি মহানন্দে বিস্ময়ে অভিভূত হয়ে বিগলিত হন। প্রাণের দেবতাকে কাছে পেয়ে সন্ন্যাসী ধ্রুবানন্দ আর স্থির থাকতে পারেন না। আনন্দে দু’চোখ বেয়ে তাঁর অশ্রু গড়িয়ে পড়ে। মনে তার মহাপ্রভু জগন্নাথদেবকে নিজের হাতে রান্না করা অন্নভোগ নিবেদনের বাসনা হয়। বাসনা চরিতার্থে তিনি পরদিন সযত্নে অন্নভোগ তৈরি করে এক বুক আশা নিয়ে মহাপ্রভুকে নিবেদনের উদ্দেশে মন্দিরে উপস্থিত হলে লাঞ্ছিত ও অপমানিত হন। চাল-চুলোহীন সন্ন্যাসী বলে মন্দিরের পুরোহিতরা তাঁকে অপমান করে মন্দির থেকে তাড়িয়ে দেয়। এই ঘটনায় মনে ব্যথা পেয়ে ধ্রুবানন্দ ঈশ্বরের মন্দির থেকে বিতাড়িত হয়ে চোখের জলে বুক ভাসিয়ে নিভৃত স্থানে বসে তিন দিন তিন রাত্রি অনাহারে অনিদ্রায় কাটান। তিনি ভাবলেন, ঈশ্বরের মন্দিরে যখন তাঁর ঠাঁই নেই তখন এ জীবন বৃথা। বৃথা মানব জনম। মনে মনে স্থির করলেন, আত্মহত্যা করে সকল জ্বালা জুড়োবেন। ভক্তের মনের কথা ভগবান ঠিক টের পান। ভগবানকে ঠিক মতো ভক্তিভরে ডাকতে পারলে তিনি স্বয়ং আবির্ভূত হয়ে ভক্তের মনের ইচ্ছা পূর্ণ করেন। তৃতীয় দিনের শেষে দয়ার অবতার শ্রী জগন্নাথদেব তাঁকে দর্শন দিয়ে বললেন, ‘ভক্ত ধ্রুবানন্দ চোখের জল মোছো। জেনে রাখো আত্মহত্যা মহাপাপ। তুমি এখন মাহেশে ফিরে যাও। সেখানে গঙ্গার তীরে গিয়ে বসলে দেখতে পাবে ভাসমান একটি নিমগাছের গুঁড়ি। সেই নিমকাঠ দিয়ে আমার বলরাম আর সুভদ্রার মূর্তি তৈরি করে পুজো করো। আমি সেখানে সদা জাগ্রত থাকব’। ভগবান জগন্নাথদেবের দর্শন আর তাঁর কথা শুনে ধ্রুবানন্দ সমস্ত দুঃখ ভুলে গিয়ে আনন্দে পুলকিত হয়ে পুরীধাম ত্যাগ করে শ্রীরামপুরে মাহেশে ফিরে আসেন।
মাহেশে ফিরে আসার পর আরাধ্য দেবতা জগন্নাথের কথা মতো গঙ্গার তীরে দিন-রাত বসে অপেক্ষা করতে থাকেন নিমগাছের গুঁড়ি পাওয়ার আশায়। নাওয়া নেই, খাওয়া নেই, তিনি সেখানে তীর্থের কাকের মতো ঠায় বসে থাকেন। তাঁর বিশ্বাস ছিল, ঈশ্বরের বাণী কখনও মিথ্যে হয় না। সে কারণে বহুদিন অপেক্ষা করেও তিনি কখনওই হতাশ হননি। তাই তো কথায় বলে, বিশ্বাসে মিলায় বস্তু তর্কে বহুদূর।
অবশেষে তাঁর মনোবাসনা পূর্ণ হল। এক দুর্যোগপূর্ণ রাতে বিদ্যুৎ ঝলকের আলোয় ধ্রুবানন্দ দেখলেন, গঙ্গার জলে একটি বিরাট কাঠের গুঁড়ি ভাসছে। আনন্দে আত্মহারা হয়ে পাগলের মতো তিনি গঙ্গার জলে ঝাঁপ দিয়ে নিজের জীবন বিপন্ন করে অনেক কষ্টে নিমগাছের গুঁড়িটিকে পারে তুলে আনেন। পরদিন সকালে অভ্যাসবশত স্নান ও পূজাপর্ব সেরে কুটিরের বাইরে আসতেই তিনি অবাক বিস্ময়ে জগন্নাথদেব প্রেরিত তিনজন কাঠের মিস্ত্রির দেখা পেলেন। তিনি ইষ্টদেবতাকে করজোড়ে প্রণাম করে তাদের তাঁর পর্ণকুঠীরে নিয়ে এসে বসান। তারপর তিনি সেই তিনজন কাঠের মিস্ত্রির দ্বারা নিমগাছের গুঁড়ির কাঠ দিয়ে জগন্নাথ, সুভদ্রা ও বলরামের মূর্তি তৈরি করে ভক্তিভরে মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন।
চতুর্দশ শতাব্দীতে সন্ন্যাসী ধ্রুবানন্দর প্রতিষ্ঠিত সেই তিনটি বিগ্রহ জগন্নাথ, সুভদ্রা, বলরামের পুজো আজও শ্রীরামপুরে মাহেশের মন্দিরে হয়ে আসছে। বহুযুগ ধরেই ওই একই বিগ্রহ পুজো হয়। বলা বাহুল্য, ধ্রুবানন্দ ব্রহ্মচারী হলেন সেই সিদ্ধপুরুষ যিনি সর্বপ্রথম বঙ্গভূমিতে ভগবান শ্রীশ্রী জগন্নাথদেবের পুজোর প্রবর্তন করেন।
মাহেশের জগন্নাথদেবের অলৌকিক কাহিনী শুনে ১৫৪১ খ্রিস্টাব্দে নবদ্বীপের মহাপ্রভু শ্রীচৈতন্যদেব পুরী যাত্রার আগে ধ্রুবানন্দের প্রতিষ্ঠিত মন্দির দর্শনে আসেন। তিনি মাহেশের মন্দিরের ইষ্টদেবতা জগন্নাথদেবকে দেখে জ্ঞান হারান এবং তৎক্ষণাৎ গভীর সমাধিতে নিমগ্ন হন। সমাধি ভঙ্গ হওয়ার পর তিনি উপলব্ধি করেন মাহেশের মন্দিরের শ্রীশ্রী জগন্নাথদেব খুবই জাগ্রত। তাই তিনি এই পুণ্যভূমিতে ধ্রুবানন্দ ব্রহ্মচারী প্রতিষ্ঠিত মন্দিরের নামকরণ করেন— নব নীলাচল।
ইতিহাস প্রসিদ্ধ মাহেশের রথের মেলায় প্রতি বছর বহু দুর থেকে হাজার হাজার ভক্ত আসে জগন্নাথদেব দর্শন করে নিজেদের জীবন সার্থক করতে। 
06th  July, 2019
মহাষ্টমী পুজো

 মহাষ্টমী পুজোর দিন সকালে পুরোহিত আচমন করে মায়ের পুজো শুরু করেন। আসনশুদ্ধি, ভূতশুদ্ধি, মাতৃকান্যাস, প্রাণায়াম, পীঠন্যাস সমাপ্ত করে মাকে দন্তকাষ্ঠ নিবেদন করেন। তারপর শুরু হয় মায়ের মহাস্নান।
বিশদ

মহাপূজার আঙিনায়
বলিদান

 মহাপূজার অন্যতম অঙ্গ বলিদান। বলি শব্দের অর্থ উপহার। দেবীভাগবতের মতে, একমাত্র দেবী পূজাতেই বলিদান সম্মত। অন্যত্র নয়। কারণ ব্রহ্মবিদ্যাস্বরূপিণী দেবী আমাদের স্বরূপনিরোধক এই ঘোর জীববুদ্ধি নাশ করে ব্রহ্মকারা বৃত্তিতে প্রকাশমান হন। তাই মহাদেবী বলিপ্রিয়া।
বিশদ

সেকাল একালের
আগমনী আড্ডা

দুর্গা পুজো মানেই নতুন পোশাক, খাওয়া-দাওয়া, রাত জেগে ঠাকুর দেখা আর নির্ভেজাল আড্ডা। আড্ডা পরিকল্পনাও থাকে নানারকম। আড্ডাবাজ বাঙালির আড্ডার আসর বসে পাড়ার পুজো, বাড়ির পুজো, বা আবাসনের পুজোমণ্ডপে। নব্য প্রজন্মের কেউ বা পছন্দ করে ঘুরে বেড়িয়ে আড্ডা দিতে। বিশদ

মহিলা মৃৎশিল্পী
ঠাকুর গড়েন চায়না পাল

 ছোটবেলায় আঁকতে ভীষণ ভালোবাসতেন চায়না। পেন বা পেন্সিল দিয়ে পাতার পর পাতা ঠাকুর দেবতার ছবি আঁকতেন তিনি। টানা টানা চোখওয়ালা সাবেকি ঠাকুরের মুখ ভরে যেত তাঁর খাতার পাতায়। বাবা যখন ঠাকুর গড়তেন সেটাও হাঁ করে দেখতেন চায়না। বিশদ

উৎসবের ভোজ, ভোজের উৎসব 

ভোরের প্রথম আলোয় শিউলি ফুলের মন মাতানো মিষ্টি গন্ধই শুধু নয়, ভোরের বাতাসেও অকারণ পুলকের স্পন্দন। পাড়ায় পাড়ায় বাঁশ আর কাপড়ের স্তূপ। যেন উৎসবের আর উৎসাহের জোয়ার। মায়ের আগমনী বার্তা বয়ে নিয়ে আসে এইসব খুঁটিনাটির অনুষঙ্গগুলো।   বিশদ

14th  September, 2019
মহিলা মৃৎশিল্পী 

সুস্মিতা রুদ্রপাল মিত্র: এক দশক মানে প্রায় বারো বছর হয়ে গেল সুস্মিতা রুদ্রপাল মিত্র প্রতিমা তৈরি করা শুরু করেছেন। সুস্মিতার বেড়ে ওঠা কুমোরটুলির এক মৃৎশিল্পীর পরিবারে। বাড়িতে বাবা-দাদাদের কাজ দেখতে দেখতে বড় হয়েছেন সুস্মিতা।  বিশদ

14th  September, 2019
মহাসপ্তমী পুজোর রীতি ও আচার 

দুর্গাপুজোর মহাসপ্তমী। এই দিন প্রথমে গৃহকর্তা পুরোহিতকে কাপড় ও নানা দ্রব্য দিয়ে বরণ করে নেবেন। তারপর নবপত্রিকা স্নান। গঙ্গা বা কোনও জলাশয়ে নবপত্রিকাকে স্নান করিয়ে নতুন কাপড় পরিয়ে যথাযথ মন্ত্র উচ্চারণ করে দুর্গামণ্ডপে প্রতিষ্ঠা করা হয়।   বিশদ

14th  September, 2019
মহাপূজার আঙিনায় 

মহাস্নানের পর আরম্ভ হয় দেবীর পুজো। আরাধনার প্রথম ধাপ সুস্থ দেহ ও স্থির মন। সর্বাগ্রে এটি করা প্রয়োজন, না করলে দেবতার অধিষ্ঠান হতে পারে না। শ্রীরামকৃষ্ণদেব বলতেন, ‘প্রতিমায় আবির্ভাব হতে গেলে তিনটি জিনিসের দরকার— প্রথম পূজারীর ভক্তি, দ্বিতীয় প্রতিমার সৌন্দর্য, তৃতীয় গৃহস্বামীর ভক্তি।’  বিশদ

14th  September, 2019
 শহর জুড়ে আজ পুজোর মরশুম

নরম শিউলি ফুলের মতো মিষ্টি রোদ ছেয়ে আছে শহর জুড়ে। চাঁদার বই হাতে উদ্যোক্তাদের ইতিউতি উপস্থিতি, বেমক্কা জ্যাম, শপিং মল থেকে ফুটপাতে উপচানো ভিড় দেখেই অনুমান করা যায় শহর জুড়ে আজ পুজোর মরশুম। উচ্ছ্বাসে মেতে ওঠা শহরবাসী এখন কেনাকাটা করেন চুটিয়ে।
বিশদ

07th  September, 2019
 বোধনে মহাষষ্ঠী

মহাষষ্ঠীতে হয় মা দুর্গার বোধন। সকালবেলায় তিথি দেখে ষষ্ঠীপুজো হয়ে থাকলেও তিথি অনুযায়ী সন্ধেবেলায় বিল্ববৃক্ষতলে হয় দেবীর বোধন। তখন শুদ্ধাচারে, শুদ্ধাসনে, শুদ্ধবস্ত্র পরিধান করে স্বস্তিবাচন ও পাপাপনোদন করেন পুরোহিত। তিনি ঊর্ধ্ব, অধঃ পার্শ্বদ্বয় ভালো করে দেখেন ও শান্ত চিত্তে কুশ, তিল, ফল, পুষ্প দিয়ে জলপূর্ণ তাম্রপাত্র গ্রহণ করেন।
বিশদ

07th  September, 2019
মহিলা মৃৎশিল্পী কাকলি পাল

দু’ হাজার তিন সাল। কালীপুজোর ঠিক আগের ঘটনা। মৃৎশিল্পী কাকলি পালের স্বামী ঠাকুর তৈরির বায়না নিয়ে আসার পরের পরের দিন হঠাৎ ব্রেন স্ট্রোকে মারা যান। তখন কাকলির বড় মেয়ের বয়স সাত এবং ছোট মেয়ের এক। দুটো মেয়েকে নিয়ে কাকলি অথৈ জলে পড়েছিল।
বিশদ

07th  September, 2019
মহাপূজার আঙিনায়

মা আনন্দময়ীর আগমন। বর্ষে বর্ষে আসেন তিনি। আমাদের ঘরে-বাইরে তাঁর ছড়ানো সংসারে। শারদীয়া দেবীর আবির্ভাবের মধ্য দিয়েই জাতির আত্মশক্তির উদ্বোধন। ব্রত-পার্বণ উৎসবময় ভাবালোকে মাতৃমূর্তির এই আবির্ভাব।   বিশদ

07th  September, 2019
 ঋণ নিয়ে রোজগেরে মেয়েরা

গ্রামের মহিলাদের ঋণ দিয়ে রোজগেরে করে তুলছে ভিলেজ ফিনানসিয়াল সার্ভিস। কীভাবে এই পথে ঋণ নিয়ে রোজগেরে হয়ে ওঠা যায় তারই উপায় জানালেন সংস্থার কর্ণধার। প্রতিবেদনে কমলিনী চক্রবর্তী।
বিশদ

31st  August, 2019
কুড়ির তারুণ্যে ভরা ল্যা ক মে

পাঁচদিনের ‘ল্যাকমে ফ্যাশন উইক উইন্টার-ফেস্টিভ ২০১৯’-র এবারের আসরও ছিল জমজমাট। এবছর কুড়িতে পা দিল ল্যাকমে ফ্যাশন উইক। কুড়ির অভিজ্ঞতা গায়ে মেখে তারুণ্যে ভরা ল্যাকমের আসর থেকে নতুন নতুন ফ্যাশনধারার সন্ধান দিলেন আমাদের মুম্বই প্রতিনিধি দেবারতি ভট্টাচার্য।
বিশদ

31st  August, 2019
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি, ২০ সেপ্টেম্বর: চলতি ২০১৯-২০ আর্থিক বছরে দেশের মাইক্রো-ফিনান্স ইন্ডাস্ট্রি ২ লক্ষ ৫০ হাজার কোটি টাকার গণ্ডি অতিক্রম করবে। স্ব-ধন ‘ভারত মাইক্রো-ফিনান্স রিপোর্ট, ২০১৯’-এ প্রকাশ পেয়েছে এই তথ্য। ...

 ওয়াশিংটন, ২০ সেপ্টেম্বর (পিটিআই): আমেরিকার রাস্তায় ফের প্রকাশ্যে বন্দুকবাজের তাণ্ডব। গুলিতে একজন প্রাণ হারিয়েছেন এবং আরও পাঁচজন জখম হয়েছেন। পুলিস জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার রাত ১০টা নাগাদ কলম্বিয়া হাইটস এলাকায় ওই ঘটনা ঘটেছে। জায়গাটি হোয়াইট হাউস থেকে খুব বেশি দূরে নয় বলেও ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া: শুক্রবার সকালে সাঁকরাইলের ডেল্টা জুটমিলের পরিত্যক্ত ক্যান্টিন থেকে নিখোঁজ থাকা এক শ্রমিকের মৃতদেহ উদ্বার হল। তাঁর নাম সুভাষ রায় (৪৫)। তাঁকে খুন করা হয়েছে বলে পরিবারের লোকজন অভিযোগ করেছেন। ...

 দিব্যেন্দু বিশ্বাস, নয়াদিল্লি, ২০ সেপ্টেম্বর: যাদবপুর-কাণ্ডে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে রিপোর্ট দেবে বঙ্গ বিজেপি। আজ এ কথা জানিয়েছেন বিজেপির অন্যতম কেন্দ্রীয় সম্পাদক তথা পশ্চিমবঙ্গের দায়িত্বপ্রাপ্ত দলের সহনেতা সুরেশ পূজারি। তিনি বলেছেন, ‘যে রাজ্যে একজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরই কোনও নিরাপত্তা নেই, সেই ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শরীর ভালো যাবে না। সাংসারিক কলহবৃদ্ধি। প্রেমে সফলতা। শত্রুর সঙ্গে সন্তোষজনক সমঝোতা। সন্তানের সাফল্যে মানসিক ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস
১৮৬৬: ব্রিটিশ সাংবাদিক, ঐতিহাসিক ও লেখক এইচ জি ওয়েলসের জন্ম
১৯৩৪: জাপানের হনসুতে টাইফুনের তাণ্ডব, মৃত ৩ হাজার ৩৬ জন
১৯৪৭: মার্কিন লেখক স্টিফেন কিংয়ের জন্ম
১৯৭৯: ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটার ক্রিস গেইলের জন্ম
১৯৮০: অভিনেত্রী করিনা কাপুর খানের জন্ম
১৯৮১: অভিনেত্রী রিমি সেনের জন্ম
১৯৯৩: সংবিধানকে অস্বীকার করে রাশিয়ায় সাংবিধানিক সংকট তৈরি করলেন তৎকালীন প্রেসিডেন্ট বরিস ইয়েলৎসিন
২০০৭: রিজওয়ানুর রহমানের মৃত্যু
২০১৩: কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবিতে ওয়েস্ট গেট শপিং মলে জঙ্গি হামলা, নিহত কমপক্ষে ৬৭

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.১৯ টাকা ৭২.৭০ টাকা
পাউন্ড ৮৬.৪৪ টাকা ৯১.১২ টাকা
ইউরো ৭৬.২৬ টাকা ৮০.৩৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৭,৯৯০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,০৪৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৬,৫৮৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫,৯০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৬,০০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৪ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার, সপ্তমী ৩৭/১২ রাত্রি ৮/২১। রোহিণী ১৪/৪৩ দিবা ১১/২২। সূ উ ৫/২৮/২৩, অ ৫/৩১/৪০, অমৃতযোগ দিবা ৬/১৬ মধ্যে পুনঃ ৭/৪ গতে ৯/২৯ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৪ গতে ৩/৬ মধ্যে পুনঃ ৩/৫৫ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ১২/৪১ গতে ২/১৭ মধ্যে, বারবেলা ৬/৫৯ মধ্যে পুনঃ ১/০ গতে ২/৩০ মধ্যে পুনঃ ৪/০ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ৭/১ মধ্যে পুনঃ ৩/৫৯ গতে উদয়াবধি।
৩ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার, সপ্তমী ২৫/২২/২১ দিবা ৩/৩৭/৫। রোহিণী ৭/১/২৪ দিবা ৮/১৬/৪৩, সূ উ ৫/২৮/৯, অ ৫/৩৩/২৯, অমৃতযোগ দিবা ৬/২০ মধ্যে ও ৭/৭ গতে ৯/২৯ মধ্যে ও ১১/৪৮ গতে ২/৫৫ মধ্যে ও ৩/৪২ গতে ৫/৩৩ মধ্যে এবং রাত্রি ১২/৩৮ গতে ২/১৭ মধ্যে, বারবেলা ১/১/২৯ গতে ২/৩২/৯ মধ্যে, কালবেলা ৬/৫৮/৪৯ মধ্যে ও ৪/২/৪৯ গতে ৫/৩৩/২৯ মধ্যে, কালরাত্রি ৭/২/৪৯ মধ্যে ও ৩/৫৮/৪৯ গতে ৫/২৮/২৮ মধ্যে।
২১ মহরম

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
রাজীব কুমারের আগাম জামিনের আবেদন খারিজ
আজ রাজীব কুমারের আগাম জামিনের আবেদন খারিজ করে দিল আলিপুর ...বিশদ

08:21:33 PM

ফের সিএবি প্রেসিডেন্ট সৌরভ
আরও একবার সিএবি-র প্রেসিডেন্ট হলেন সৌরভ গঙ্গোপাধধ্যায়। আজ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ...বিশদ

07:39:27 PM

অস্কারে মনোনীত ছবি-গালি বয়

06:03:00 PM

ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় যুবককে মারধর
স্কুলের ছাত্রীদের উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় এক যুবককে লাঠি-রড দিয়ে ...বিশদ

05:22:00 PM

মুর্শিদাবাদে আগ্নেয়াস্ত্র সহ গ্রেপ্তার ১ 
আজ সকালে মুর্শিদাবাদের পাহাড়ঘাটি মোড় থেকে আগ্নেয়াস্ত্র সহ সফিকুল ইসলাম ...বিশদ

05:13:00 PM

দীঘায় ডুবন্ত ব্যক্তিকে উদ্ধার করল নুলিয়া
 

দীঘার সমুদ্রে তলিয়ে যাওয়ার মুখে এক পর্যটককে উদ্ধার করল নুলিয়া। ...বিশদ

05:05:00 PM