Bartaman Patrika
আমরা মেয়েরা
 

 বাঁধাধরা ভাবনার প্রতিবন্ধকতা আজও রয়ে গিয়েছে

 ঘটনা এক: মিঠি পড়াশোনায় চৌখস। বিশ্ববিদ্যালয়ের গণ্ডি পেরবার পরে খুব বেশিদিন আর অপেক্ষা করতে হয়নি। নিজের পছন্দমতোই পেশা নির্বাচন করেছিল সে। ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক হয়ে হাতে বুম নিয়ে শহরের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে ছুটে বেড়াবে এ তার দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্ন। স্বপ্নপূরণও হয়েছে। কিন্তু অফিসে ছোটার কিছুদিন পর থেকে অভিভাবকদের মুখ ভার। কী চাকরির ছিরি! সময় নেই, অসময় নেই ফোন এলেই দৌড়। একটা মেয়ের বাড়ি ফেরার নির্দিষ্ট সময় নেই। শুধু অভিভাবকই বা কেন? মাঝরাতে বাড়ি ফিরতে গিয়ে বারান্দা, জানলায় উৎসাহী পড়শির কৌতূহলী প্রশ্নের জবাব দিতে দিতে জেরবার মিঠি। একটু ভিন্নতর পেশা হলেই সমাজ ভ্রু কোঁচকায় এখনও।
 ঘটনা দুই: রেশমি আর রণিত দুজনেই আইটি প্রফেশনাল। ফুটফুটে একটা তিন বছরের কন্যাসন্তান রয়েছে তাঁদের। রণিত আর রেশমির সংসারের কাজ একদম ভাগ করা আছে। রণিত মেয়েকে সামলালে রেশমি সে সময় রান্না সেরে নেয়। ছুটির দিনে রণিত ঘর ডাস্টিং সহ মেশিনে কাচাকুচি করে। রেশমির দায়িত্ব তখন মেয়ের। রেশমি অফিস ট্যুর গেলে বাচ্চা রণিতের জিম্মায়। প্রতিবেশী, আত্মীয়স্বজনদের কাছে অবশ্য এ নিয়ে রেশমিকে নানা টিকাটিপ্পনী শুনতে হয়। রেশমি এই নিয়ে একটু লজ্জিত আর কুণ্ঠিত।
 ঘটনা তিন: প্রতিবেশী মহিলা বন্ধুরা সবাই মিলে ঠিক করেছে বেড়াতে যাওয়া হবে শহর ছেড়ে দূরে। অমনি গেল গেল রব বাকিদের। ওমা! তোমরা একা একা যাবে? যা দিনকাল পড়েছে। পাড়ার আহ্লাদী বউদি হয়তো বলে ওঠেন, ‘আমার কর্তামশাই আমায় ছাড়বেনই না। আর মেয়েদের এত সাহসও ভালো না বাবা।’
আমরা আজকের প্রযুক্তি অধ্যুষিত সময়ে দাঁড়িয়ে অত্যাধুনিক শপিংমল আর মাল্টিপ্লেক্সে ঘুরে বেড়িয়ে সেজেগুজে মৌখিকভাবে যতই নারী স্বাধীনতার বুলি আওড়াই আসলে এই উত্তর আধুনিক সময়েও মেয়েদের সম্পর্কে একঘেয়ে বস্তাপচা মনোভাব থেকে বেরিয়ে আসতে পারিনি। একজন পুরুষের সঙ্গে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই একজন মহিলার ধ্যানধারণা হাত ধরাধরি করেই চলে এই সব বিষয়ে। একজন নারী, সে স্বনির্ভর, আত্মপ্রত্যয়ী। নিজের সুরক্ষা সম্বন্ধে সচেতন তবু তার বিয়ে না হলে একটা বয়েসের পর অভিভাবকেরা চিন্তায় জেরবার হয়ে পড়েন। মেয়েটিকে উপযুক্ত পাত্রের হাতে তুলে দিতে পারলেই দায়িত্ব শেষ। যেন কেল্লাফতে। বিয়ের পরে স্বামী-স্ত্রী দুজনেই চাকরিরতা হলেও সংসারের মূল দায়িত্ব যেন কেবল একজন পুরুষেরই। নাহলে পাত্রপাত্রী বিজ্ঞাপনে এই একবিংশ শতাব্দীতেও আমরা দেখি একজন উচ্চশিক্ষিতা, নামীদামি পেশায় কর্মরতা নারী হলেও সে খোঁজ করে সুউপায়ী পাত্রের। আবার পুরুষটির কর্মরতা নারীটিও সংসারে সামান্য ত্রুটিবিচ্যুতি হলে সঙ্গে সঙ্গে নিজেকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করান বেশিরভাগ সময়ে। সংসারের কাজ হয়তো দুজনে ভাগাভাগি করেই করছে তবু কাজের তাড়ায় পাউরুটি সামান্য পুড়লে মেয়েটি অপরাধ বোধে কুণ্ঠিত থাকে। আর বাড়ির পুরুষটি সামান্য গৃহকর্ম করে গর্বিত হন। ফলে আমরা নারী স্বাধীনতার বক্তৃতা যতই দিই, সেমিনার করি তাতে কিছু লাভ হয় না। গতানুগতিক মনোভাব থেকে বেরতে না পারলে মেয়েরা আর স্বাধীন হল কই?
সবার আগে প্রয়োজন এই বাঁধাধরা মনোভাব থেকে বেরিয়ে এসে মানসিকভাবে স্বাধীন হওয়া। মেয়েদের পেশার ক্ষেত্রেও একই মনোভাব সমাজ আর সংসারের। আজও আইটি, সাংবাদিকতা, পাবলিক রিলেশন পেশা হলে নানা মন্দ কথা, আলোচনা, সমালোচনার ঝড় ওঠে। যদিও অনেক মেয়েই এই ঝড়কে তুচ্ছ করে একলা লড়াইয়ের সাহস দেখাচ্ছে তবু আজকের এই গতির যুগেও দেখার চোখ আর খুঁত ধরবার ছল আর বদলালো কই? দেখা যাক এ বিষয়টা সমাজতত্ত্ববিদ আর মনরোগের চিকিৎসকেরা কীভাবে দেখেছেন?
ক্যালকাটা উইমেন্স কলেজের সমাজতত্ত্বের অধ্যাপক উজ্জ্বলকুমার দাসের মতে, ভারতবর্ষের সমাজ সংস্কারকের ভূমিকা যাঁরা পালন করেছিলেন তাঁরা বেশিরভাগই ইংরেজি শিক্ষায় শিক্ষিত। ধীরে ধীরে আধুনিকতার প্রকাশ ঘটেছে। তবে এখানে আরও একটা বিষয় রয়েছে লক্ষ করার মতো, শুধু ভারতবর্ষেই নয়, গোটা বিশ্বের বেশিরভাগ সমাজ ব্যবস্থাই মূলত পুরুষতান্ত্রিক। এই পুরুষতান্ত্রিকতার বিরুদ্ধে মেয়েদের একটা আন্দোলন শুরু হয়েছিল। স্বাধীনতার জন্য, সমানাধিকারের জন্য। ভারতবর্ষেও শুরু হয়েছিল এই আন্দোলন। তবে ভারতবর্ষের যে আধুনিকতা তা ইংরেজদের ঔপনিবেশিক শাসনের হাত ধরেই আসে। যদিও সেটা খুব স্বাভাবিকভাবে হয়নি। ফলত যে সমস্যাটা মূলে রয়ে গেল তা হল বস্তুগত সংস্কৃতির যত তাড়াতাড়ি উন্নতি ঘটেছে, শিক্ষার উন্নতি ও প্রসার যত দ্রুত হয়েছে মানসিকতার বদল কিন্তু সেভাবে ঘটেনি। সেই কারণেই আমরা যতই বাহ্যিকভাবে আধুনিকতার প্রকাশ করি দৃষ্টিভঙ্গি কিন্তু মধ্যযুগীয়ই রয়ে গিয়েছে।
কলকাতার সুপ্রসিদ্ধ মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তার প্রথমা চৌধুরির মতে, নারীমুক্তি ও শিক্ষা অনেকটা এগলেও এখনও অনেকটা পথ বাকি। নারী পুরুষ নির্বিশেষে এ সমাজের মানসিক দৈন্যতা রয়ে গিয়েছে। সমাজ তো ভাববেই, সমালোচনাও চলবে কিন্তু সব থেকে আশ্চর্যের মেয়েরাও সেভাবে সচেতন নন। নতুন প্রজন্মের মেয়েরা রোজগার করলেও তারা ধরেই নেয় তাদের টাকাটা সেকেন্ডারি। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তারা মনে করে সংসারের ব্রেড আর্নার একজন পুরুষই হবেন। ফলত সমাজেও এই দৃষ্টিভঙ্গি চালু রয়েছে। বাড়ির কাজ সুন্দরভাবে সামলানো পুরুষটিকে যখন পরিজন বা প্রতিবেশীরা মেয়েলি বলে বিদ্রূপ করে তখন মেয়েটিও কিন্তু মনে মনে লজ্জিত হয়। এর থেকে বেরিয়ে আসতে হলে সর্বপ্রথম মহিলাদের অর্থনৈতিক স্বাধীনতার সঙ্গে সঙ্গে মানসিকতার সর্বাঙ্গীণ বিকাশ ভীষণ জরুরি। সেখানে পরিবর্তন না হলে সমাজ বদলাবে না কোনও দিন। তাই সমাজ বদলানোর জন্য পুরুষের পাশাপাশি মেয়েদের মানসিকতারও বদল দরকার।
তনুশ্রী কাঞ্জিলাল মাশ্চরক
27th  April, 2019
বিয়ের পর মেয়েদের গুরুত্ব কি কমে যায়?

বিবাহ মেয়েদের জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়। আমাদের পুরুষতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় একটা সময় পর্যন্ত মেয়ে মাত্রই ছিল নগণ্য। বৈদিক যুগের শেষদিক থেকে নারীর অবমূল্যায়ন শুরু হয়। এক সময় অশিক্ষিত অসূর্যম্পশ্যা নারী হয়ে পড়েছিল পুরুষের হাতের পুতুল। নানা নিষেধের গণ্ডিতে আবদ্ধ কুসংস্কারে আচ্ছন্ন নারীর গুরুত্ব বলে কিছু ছিল না।
বিশদ

25th  May, 2019
নারী বিশেষণ

 পুরুষশাসিত সমাজে নারী কখনওই সেভাবে সম্মান, মর্যাদার সঙ্গে নানা চটকদার আলঙ্কারিক শব্দে বিশেষিত হয়নি। নারী বিশেষণগুলিও তাই অত্যন্ত কুরুচিপূর্ণ, অবমাননাকর ও অসম্মানজনক। বাংলা ভাষায় সামান্য ‘আকার’ যোগ করলেই লিঙ্গান্তর ঘটে যায় নারী বিশেষণ শব্দগুলির।
বিশদ

25th  May, 2019
 মুসলিম পরিবারের বহু মহিলা ভোট দেন না

রাজ্য জুড়ে দফায় দফায় ভোট। উক্ত জেলাগুলিতে প্রচণ্ড উত্তেজনা। বিক্ষিপ্ত হিংসা। গণতন্ত্র বাঁচাও কিংবা গণতন্ত্র লুটের ধান্দাবাজি। চারদিকে ফ্ল্যাগ প্রচার হইহই শব্দ। এর মাঝে এক শ্রেণী ছিল নিষ্ক্রিয়। আর পাঁচটা সাধারণ দিনের মতোই এলানো সময় এদের। কী একনায়কতন্ত্র! কী গণতন্ত্র! এসব কিছুতে কী যায় আসে ওদের! ভারত একটা স্বাধীন দেশ।
বিশদ

25th  May, 2019
কোটিপতি ভারতীয় ব্যবসায়ীদের সফল কন্যারা

বাবা-মা কোটিপতি বললেও ভুল হবে। এঁরা আসলে কোটি কোটিপতি। অর্থাৎ বিলিওনেয়ার। তবে পারিবারিক সূত্রে পাওয়া অর্থ হাতে পেয়ে থেমে যাননি এঁরা। বরং নিজেদের উচ্চশিক্ষিত করে তুলেছেন। নিজেদের চেষ্টাতেই সাফল্য পেয়েছেন। এঁদের বাবা-মায়েরা বহু বহু কোটি টাকার মালিক হলেও এঁরা সবাই উচ্চশিক্ষিত। ভারতীয় কোটিপতিদের সুন্দরী-শিক্ষিতা কন্যা। জেনে নেওয়া যাক এমনই কয়েকজনের কথা।
বিশদ

25th  May, 2019
মাদার টেরেজা
আর্তের সেবায় এক মহীয়সী নারী

অ্যাগনেস গনহ্যাজ বোজাহিও তাঁর জন্মভূমি যুগোস্লাভিয়ার স্কপজি শহর ছেড়ে ১৯২৮ সালে কলকাতায় আসেন। আসা মাত্র নিবেদিতার মতোই ভালোবেসে ফেলেন কলকাতার মানুষজনকে। স্থির করলেন সন্ন্যাসিনী হয়ে গরিব-দুঃস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াবেন, আর্তের সেবা করবেন।   বিশদ

18th  May, 2019
মা সারদার স্নেহধন্যা নটী নীরদা সুন্দরী 

প্রেমের ঠাকুর রামকৃষ্ণ নটী বিনোদিনীর শ্রীচৈতন্যলীলা দেখে মুগ্ধ হয়েছিলেন এবং নটী বিনোদিনী ধন্য হয়েছিলেন ঠাকুরের আশীর্বাদ পেয়ে। একইভাবে ধন্য হয়েছিলেন এই বাংলারই আর এক নটী নীরদা সুন্দরী। তাঁর অভিনয় দেখে মা সারদা তাঁকে আশীর্বাদ করেছিলেন।  বিশদ

18th  May, 2019
বুদ্ধ পূর্ণিমা ও শান্তির বার্তা 

বিশ্ববাসীর মাঝে শান্তির বার্তা ছড়িয়ে দিতে চান সুলতা মিত্র সরকার। এমনই অভিপ্রায় নিয়ে সম্প্রতি কাম্বোডিয়ার মন্দির নগরী আঙ্করভাটে একটি বুদ্ধমূর্তি তিনি স্থাপন করেছেন। বুদ্ধ পূর্ণিমার পুণ্যতিথিতে মূর্তি স্থাপনের কথায় কমলিনী চক্রবর্তী।  বিশদ

18th  May, 2019
বেশি বয়সেও পেতে পারেন মাতৃত্বের স্বাদ

পরামর্শে ঘোষ দস্তিদার ইনস্টিটিউট ফর ফার্টিলিটি রিসার্চের কর্ণধার ডাঃ সুদর্শন ঘোষ দস্তিদার। বিশদ

12th  May, 2019
সিঙ্গল মাদারের ডায়েরি

একা মা হওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া মুখের কথা নয়। তবে সব চাইতে কঠিন বোধহয় সন্তানকে বড় করে তোলা। কেমন আছেন তিনি? কেমনভাবে মানুষ করে তুলছেন সন্তানকে, একা মা’দের মুখ মুখার্জি ফার্টিলিটি সেন্টারের কর্ণধার ডাঃ শিউলি মুখোপাধ্যায়?
বিশদ

12th  May, 2019
ইতিহাসে মাদার্স ডে

বিদেশে তো বটেই এমন কি দেশেও এখন মাদার্স ডে রীতিমতো জনপ্রিয়। তবে ঘটা করে মাদার্স ডে পালন করলেও আমরা দিনটির ইতিহাস সম্বন্ধে ততটা ওয়াকিবহাল নই। ইতিহাস ঘেঁটে মাদার্স ডের তাৎপর্যের কাহিনী শোনাচ্ছেন কমলিনী চক্রবর্তী।
বিশদ

11th  May, 2019
 আধুনিক নার্সিংয়ের অগ্রদূত ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেল

 আগামীকাল ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেলের জন্মদিন। দিনটি আন্তর্জাতিক নার্স ডে হিসেবে পালন করা হয় গোটা বিশ্বে। বিশদ

11th  May, 2019
শিশুর বেড়ে ওঠায়
মায়ের ভূমিকা

শিশু ভূমিষ্ঠ হবার আগে থেকেই শুরু হয় বাবা-মায়ের চিন্তা, নানান জল্পনা কল্পনা। এই সমাজে সুস্থ সুন্দরভাবে শিশুকে মানুষ করবেন কী করে? সত্যিই বিষয়টা চিন্তার। তবে অমূলক ভয় পাওয়ারও কিছু নেই। গবেষণাসূত্রে জানা গিয়েছে মা যদি গর্ভাবস্থাকালীন হাসি-খুশি প্রাণোচ্ছল থাকেন তবে শিশুও ইতিবাচক মানসিকতার অধিকারী হবে। তাই গর্ভাবস্থায় মাকে সব সময় হাসিখুশি থাকতে বলা হয়।
বিশদ

11th  May, 2019
 স্বামী ও স্ত্রী একই পেশায় থাকলে...

এক পেশাতে কাজ করছেন স্বামী স্ত্রী। পেশাদারিত্ব বজায় রেখেই ঠিক রাখুন সম্পর্ক। পরামর্শ দিলেন সাইকিয়াট্রিস্ট ডঃ রীমা মুখোপাধ্যায় বিশদ

04th  May, 2019
জনমতের বিচারে সবচেয়ে প্রভাবশালী
দীপিকা পাড়ুকোন

কেবল পর্দা বা বলিউডে নয়, বাস্তব জীবনের নানা ক্ষেত্রে প্রভাব রাখেন বলিউডের বহু তারকা। সম্প্রতি আমাদের দেশে সবচেয়ে প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বের তালিকায় উঠে এসেছে বলিউড তারকা দীপিকা পাড়ুকোন ও অমিতাভ বচ্চনের নাম। এক সমীক্ষা থেকে জানা গেছে, ভারতীয়দের জীবনের নানা ক্ষেত্রে এই তারকাদের রয়েছে বিশাল প্রভাব।
বিশদ

04th  May, 2019
একনজরে
 ব্যাঙ্কক, ২৬ মে (এপি): ৯৮ বছর বয়সে প্রয়াত হলেন থাইল্যান্ডের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী প্রেম তিনসুলানোন্ডা। রবিবার সকালে ব্যাঙ্ককের একটি হাসপাতালে তাঁর মৃত্যু হয়েছে বলে সরকারের তরফে জানানো হয়।  ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ১১ জন ভুয়ো চিকিৎসকের বিরুদ্ধে পাবলিক নোটিস ইস্যু করল দেশের অ্যালোপ্যাথিক চিকিৎসার শীর্ষ সংস্থা মেডিক্যাল কাউন্সিল অব ইন্ডিয়া (এমসিআই)। তারা জানিয়েছে, এর মধ্যে তিনজনের নামে নোটিস ইস্যু করা হয়েছে জাল কাগজপত্র দাখিল করার জন্য। ...

 লন্ডন, ২৬ মে: ভারতের বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচে সাড়া জাগানো বোলিং করেছেন নিউজিল্যান্ডের পেসার ট্রেন্ট বোল্ট। মূলত তাঁর আগুনে পেস ও স্যুইংয়ের ছোবলে ভারতের একের পর এক টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান মুখ থুবড়ে পড়েছেন। বোল্ট ৩৩ রান দিয়ে তুলে নেন ৪টি উইকেট। ...

দীপ্তিমান মুখোপাধ্যায়, হাওড়া: প্রবল মোদি হাওয়ায় শুধু সিপিএমের ভোট ব্যাঙ্কে ধ্বস নামেনি, তৃণমূলেরও একটি বড় অংশের ভোট বিজেপির বাক্সে গিয়েছে। আর তার ফলেই উলুবেড়িয়া লোকসভা এলাকায় তৃণমূলের জয়ের মার্জিন কমেছে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের বিষয় নির্বাচন সঠিক হওয়া দরকার। কর্মপ্রার্থীরা কোনও শুভ সংবাদ পেতে পারেন। কারও সঙ্গে সম্পর্ক ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৬৪: স্বাধীনতা সংগ্রামী ও ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুর মৃত্যু
১৯৬২: ভারতীয় ক্রিকেটার রবি শাস্ত্রীর জন্ম
১৯৭৭: শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটার মাহেলা জয়বর্ধনের জন্ম

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৮.৬৫ টাকা ৭০.৩৪ টাকা
পাউন্ড ৮৬.২৯ টাকা ৮৯.৫১ টাকা
ইউরো ৭৬.০৩ টাকা ৭৮.৯৬ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
25th  May, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩২, ১৭৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩০, ৫২৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩০, ৯৮৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৬, ৪০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৬, ৫০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
26th  May, 2019

দিন পঞ্জিকা

১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২৭ মে ২০১৯, সোমবার, অষ্টমী ১৫/৫০ দিবা ১১/১৬। শতভিষা ২৮/১১ দিবা ৪/১৩। সূ উ ৪/৫৬/৩৩, অ ৬/১০/৪২, অমৃতযোগ দিবা ৮/২৮ গতে ১০/১৪ মধ্যে। রাত্রি ৯/২ গতে ১১/৫৫ মধ্যে পুনঃ ১/২১ গতে ২/৪৭ মধ্যে, বারবেলা ৬/৩৬ গতে ৮/১৫ মধ্যে পুনঃ ২/৫২ গতে ৮/৩২ মধ্যে, কালরাত্রি ১০/১৩ গতে ১১/৩৪ মধ্যে।
১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২৭ মে ২০১৯, সোমবার, অষ্টমী ১২/৭/৫০ দিবা ৯/৪৭/৩১। শতভিষানক্ষত্র ২৫/৩৫/২১ দিবা ৩/১০/৩১, সূ উ ৪/৫৬/২৩, অ ৬/১২/৩৪, অমৃতযোগ দিবা ৮/৩০ গতে ১০/১৬ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/৮ গতে ১১/৫৮ মধ্যে ও ১/২২ গতে ২/৫০ মধ্যে, বারবেলা ২/৫৩/৩১ গতে ৪/৩৩/২ মধ্যে, কালবেলা ৬/৩৫/৫৪ গতে ৮/১৫/২৬ মধ্যে, কালরাত্রি ১০/১৪/০ গতে ১১/৩৪/২৯ মধ্যে। 
২১ রমজান

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ময়নাগুড়িতে তৃণমূলের জেলা সভাপতি সৌরভ চক্রবর্তীর গাড়িতে হামলার অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে 

26-05-2019 - 08:56:39 PM

রাজীব কুমারকে আগামীকাল সিজিও কমপ্লেক্সে হাজিরার নোটিস দিল সিবিআই 

26-05-2019 - 08:21:15 PM

বাগনানে দামোদরে স্নান করতে নেমে নিখোঁজ যুবক 

26-05-2019 - 08:16:00 PM

আদর্শ আচরণবিধি উঠতেই বদলি হওয়া পুলিস কর্তাদের পুরনো পদে ফেরার নির্দেশ
আদর্শ আচরণবিধি উঠতেই নির্বাচন কমিশন দ্বারা বদলি হওয়া একাধিক পুলিস ...বিশদ

26-05-2019 - 08:13:25 PM

কলকাতার প্রাক্তন পুলিস কমিশনার রাজীব কুমারের বাড়িতে সিবিআইয়ের দল 

26-05-2019 - 07:49:53 PM

বিমান উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি ফোন, চাঞ্চল্য 
বাগডোগরা থেকে কলকাতামুখী এয়ার এশিয়ার বিমান মাঝ আকাশে উড়িয়ে দেওয়ার ...বিশদ

26-05-2019 - 07:36:28 PM