অন্দরমহল
 

মহিলা বিজ্ঞানী অর্চনা শর্মা 

ভারতে এমন কয়েকজন বিশিষ্ট মহিলা রয়েছেন, যাঁরা তাঁদের গবেষণা বৈজ্ঞানিক অনুসন্ধানের দ্বারা পুরুষ প্রধান বিশিষ্ট জগতে নিজেদের আলোচলনার কেন্দ্রবিন্দুতে নিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছেন ড. অর্চনা শর্মা তাঁদের মধ্যে একজন।
তিনি ১৯৩২ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন।
তাঁর পিতা ও পিতামহ উভয়েই শিক্ষক ছিলেন। মা’ও স্কুলে শিক্ষকতা করতেন। তাঁর জন্মের পর সন্তান পালনকেই প্রাধান্য দিয়ে তাঁর মা জীবিকা ত্যাগ করেন।
অর্চনা শর্মা স্কুলে গিয়ে শিক্ষা গ্রহণের পরিবর্তে বাড়িতেই মা’র কাছে পড়াশুনা করতেন। সেই সময় রাজস্থানের পরিবেশ অত্যন্ত রক্ষণশীল ছিল। মেয়েরা বাইরে গিয়ে পরীক্ষা দেবে, সেটা সম্ভব ছিল না। তাই তিনি মা’র কাছে পড়াশোনা করে পাটনা থেকে ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষা দিয়ে পাশ করেন। পরে অবশ্য রাজস্থান থেকেই আইএসসি ও বিএসসি পাশ করার পর, কলকাতায় এসে উদ্ভিদবিদ্যা নিয়ে ১৯৫১ সালে এমএসসি পাশ করেন। ১৯৫৫ সালে তিনি পিএইচডি ও ১৯৬১ সালে ডিএসসি ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিএসসি প্রাপক দ্বিতীয় মহিলা ছিলেন। সারাজীবন ধরেই তিনি শিক্ষা ক্ষেত্রে অসামান্য প্রতিভার সাক্ষর রেখেছেন।
কর্মজীবনের প্রথমে তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের রিসার্চ স্কলার এবং ফেলো হিসেবে পার্টটাইম ক্লাস নিতেন। পরে পুরোপুরি যোগ দিয়েছিলেন ১৯৭১ সালে।
১৯৭২ সালে তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের অন্তর্গত সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড স্টাডি ইন সেল অ্যান্ড ক্রোমোজোম রিসার্চের জেনেটিক্সের প্রফেসর হিসেবে যোগ দেন। ১৯৮০ সালে তিনি উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান নিযুক্ত হন।
কর্মজীবনে তিনি পুরুষ প্রধান জগতে বিভিন্ন বাধার সম্মুখীন হলেও, নিজস্ব বুদ্ধিবলে অতি সহজে সকল বাধাকে অতিক্রম করেছেন।
কর্মজীবনে তিনি নিবেদিত প্রাণ শিক্ষক ছিলেন। গবেষক হিসেবেও তিনি আন্তর্জাতিক খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। ক্রোমোজোমের গঠন-সম্পর্কিত তাঁর গবেষণা বর্তমান বিশ্বেও ব্যবহৃত হচ্ছে। এই বিষয়ে তাঁর বহু গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়।
স্বাভাবিকভাবেই সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তাঁর গবেষণার ক্ষেত্রেও নতুন নতুন বিষয় এসেছে। পরিবেশ দূষণের যে ক্ষেত্রগুলি মানুষের স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর তিনি নানাভাবে সেগুলি বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করেছেন।
সাইটোজেনেটিক্স, হিউম্যান জেনেটিক্স এবং এনভায়রনমেন্টাল মিউটোজেনেসিস সংক্রান্ত গবেষণার কাজে তাঁর ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। ৫০জন গবেষকের গবেষণার কাজে তিনি সুপারভাইজার ছিলেন। তাঁর গবেষণা সংক্রান্ত ও রিভিউ সংক্রান্ত পত্রের সংখ্যা ৩০০-র উপরে। তিনি আটটি বইয়ের রচয়িতা এবং ১৫টি আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন সাময়িক পত্রের বিশেষ সংখ্যা তিনি সম্পাদনা করেছেন।
ব্যক্তিগত জীবনে তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক অরুণকুমার শর্মাকে বিবাহ করেন। তাঁদের মিলিত অধ্যবসায় ও গবেষণার ফল, তাঁদের অন্যতম খ্যাতিসম্পন্ন গ্রন্থ ক্রোমোজোম টেকনিক্স—থিয়োরি অ্যান্ড প্রাকটিস। গ্রন্থটি ১৯৬৫ সালে লন্ডন থেকে প্রকাশিত হয়েছিল।
অর্চনা শর্মার নিজের ক্ষেত্রে বইটিকে একটি ক্লাসিক আখ্যা দেওয়া যায়। ১৯৬৫, ১৯৭২ ও ১৯৮০ সালে এর তিনটি সংস্করণের প্রকাশই তা প্রমাণ করে।
সারাজীবন ধরে তিনি অসংখ্য পুরস্কার পেয়েছেন। বহু গুরুত্বপূর্ণ সংস্থা তাঁকে বহুবিধ পদ ও উপাধি দিয়ে সম্মানিত করেছে। ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল সায়েন্স একাডেমি (ইনসা), ইন্ডিয়ান অ্যাকাডেমি অফ সায়েন্সেস (ইন্ডিয়া)-এর তিনি ফেলো হয়েছেন।
১৯৮৬-৮৭ সালে তিনি ইন্ডিয়ান সায়েন্স কংগ্রেসের সাধারণ সভাপতি হিসেবে নিযুক্ত হন। এছাড়াও তিনি ইন্টারন্যাশনাল অ্যাকাডেমি অফ সায়েন্স (জার্মানি ১৯৯০)-এর এবং ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল সায়েন্স অ্যাকাডেমি কাউন্সিলের সদস্য ছিলেন।
১৯৭৪ সালে অধ্যাপক অরুণকুমার শর্মার সঙ্গে যুগ্মভাবে ইউনিভার্সিটি গ্রান্ট কমিশনের জীববিজ্ঞানের প্রথম জে.সি. বোস পুরস্কার পান। ১৯৭৬ সালে তিনি শান্তিস্বরূপ ভাটনগর পুরস্কার পান। ১৯৮০ সালে ইউ.জি.সি-র জাতীয় অধ্যাপকের সম্মান তিনি লাভ করেন। ১৯৮৩-তে এফ.আই.সি.সি.আই পুরস্কার পান। ১৯৮৪-তে ইন্ডিয়ান বোটানিক্যাল সোসাইটি দ্বারা প্রদত্ত বীরবল সাহানি পদক পান। এই সময়ই তিনি পদ্মভূষণ পান। ১৯৯১ সালে ইন্ডিয়ান সায়েন্স কংগ্রেস অ্যাসোসিয়েশন দ্বারা প্রদত্ত আশুতোষ মুখার্জি পদক পান।
শুধুমাত্র গবেষণা বা শিক্ষকতাই নয়, বিজ্ঞান সম্পর্কিত বহু প্রতিষ্ঠানের প্রশাসনিক কাজকর্মের সঙ্গেও তিনি সক্রিয়ভাবে যুক্ত ছিলেন। সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং রিসার্চ কাউন্সিল (ডি.এস.টি) এবং এনভায়রনমেন্টাল রিসার্চ কাউন্সিল (মিনিস্ট্রি অফ এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড ফরেস্ট)-এর নীতি ও সিদ্ধান্ত পরিচালনা করার গোষ্ঠীর তিনি অন্যতম সদস্য ছিলেন। ইউনেসকো-র ভারত সরকারের বিজ্ঞান সংক্রান্ত গবেষণায় যোগাযোগ এবং পারস্পরিক সমঝোতার ক্ষেত্রেও তিনি যুক্ত ছিলেন। এগুলি ছাড়াও বিজ্ঞান ও কারিগরি সংক্রান্ত ইউ.জি.সি.ডি.এস. টি.ডি.বি.টি এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ কমিটির সঙ্গেও তিনি যুক্ত ছিলেন।
ডঃ অর্চনা শর্মার খ্যাতিমান জীবনের চির অবসান ঘটে ২০০৮ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি। তিনি শিক্ষকতার ক্ষেত্রে, গবেষণার ক্ষেত্রে, অন্যান্য যে সকল প্রতিষ্ঠানের তথা কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন—সকল বিষয়েই একনিষ্ঠ ছিলেন।
ছাত্রছাত্রীদের কাছ থেকে তিনি অসম্ভব ভালোবাসা ও প্রশংসা পেয়েছিলেন।
তিনি বাড়িতে পড়াশুনার ফাঁকে ফাঁকে ভজন শুনতেন। অত্যন্ত ধার্মিক ও মানবিকগুণসম্পন্ন ছিলেন অর্চনা।
বিজ্ঞান জগতে তাঁর অবদান বৈজ্ঞানিক দিক থেকে তো বটেই, সামাজিক ক্ষেত্রেও স্বীকৃতির দাবি রাখে। সফল নারী হিসেবে তাঁর ভূমিকা বিশেষভাবেই উল্লেখযোগ্য।
প্রীতি বসু 
18th  March, 2017
 পিকাডিলি স্কোয়্যার রেস্তরাঁয়
ধোসার নানা স্টাইল

 বাঙালির কাছে ধোসা মানেই চালের গুঁড়োর ব্যাটার আর মশলাদার আলুর পুর। এর সঙ্গে বড়জোর সাম্বারের ডাল আর নারকেলের চাটনি। দক্ষিণ ভারতে কিন্তু ধোসা মোটেও এইটুকুতে সীমাবদ্ধ নয়। সেখানে ধোসার নানারকম। চালের সঙ্গে কোথাও ডালও মেশানো হয়।  বিশদ

19th  August, 2017
 বর্ষায় মুচমুচে ভাজাভুজি

 আলুর পকোড়া
উপকরণ: আলু ডুমো করে কাটা ১টি (অল্প ভাপিয়ে নেওয়া), কাঁচালংকা কুচি ২ চামচ, ধনেপাতা কুচি সামান্য, নুন স্বাদমতো, হলুদগুঁড়ো অল্প, জিরেগুঁড়ো  চামচ, গরমমশলা গুঁড়ো  চামচ, সরষের তেল পরিমাণমতো, বেসন প্রয়োজনমতো। বিশদ

19th  August, 2017
 রেস্তরাঁর খবর

  মেক ইয়োর কেক
রেস্তরাঁয় গিয়ে আপনিই শেফ। অবাক লাগছে? কিন্তু এমন সুযোগ আপনার হাতের নাগালে এনে দিচ্ছে ফ্লুরিজ। পার্ক স্ট্রিটের ফ্লুরিজে পাবেন ‘মেক ইয়োর ওন কেক’ রেসিপি। অর্থাৎ নানা ধরনের কেক বেস বা স্পাঞ্জ ও কিছু উপকরণ আপনার সামনে সাজানো থাকবে, সেগুলি মিক্স অ্যান্ড ম্যাচ করে নিজের কেক নিজেই বানাতে পারবেন আপনি। বিশদ

19th  August, 2017
কাবাবের কয়েক রকম 

সয়া শিক কাবাব
উপকরণ: সয়া নাগেট ১০০ গ্রাম, ছোলার ডাল ৫০ গ্রাম, কাঁচালংকা কুচানো ১ চা চামচ, ধনেপাতা কুচি ২ চা চামচ, বিস্কুটের গুঁড়ো ৪ চা চামচ, কর্নফ্লাওয়ার ৩ চা চামচ, লাল লংকার গুঁড়ো ১ চা চামচ, আমচুর পাউডার ১ চা চামচ, নুন স্বাদমতো, মাখন ১ টেবিল চামচ, সাদা তেল প্রয়োজনমতো, পনির গ্রেট করা ৫০ গ্রাম, গোটা ধনে ১ চামচ, জিরে  চা চামচ, আমন্ড বাদাম ১০ টা, লবঙ্গ ৪টে, গোলমরিচ ৮টা, ছোট এলাচ ৪টে, স্টারএনিস ১টা, শুকনো গোলাপের পাপড়ি ৬টা।
বিশদ

12th  August, 2017
রেস্তরাঁর খবর 

আওয়াধের নতুন আউটলেট
আওয়াধি খানার রেস্তরাঁ অাওয়াধ ১৫৯০ তাদের নতুন আউটলেট খুলল সাদার্ন অ্যাভিনিউয়ের বিবেকানন্দ পার্কের কাছে।
বিশদ

11th  August, 2017
মামা মিয়া রেস্তরাঁয়
ফ্রোজেন ডেজার্ট

ইতালিতে আইসক্রিমকে জিলাটো বলে। মামা মিয়ার জিলাটো ফ্রেশ ও ন্যাচারাল। এটি বিভিন্ন ধরনের ফল দিয়ে তৈরি বলে ৯৬% ফ্যাট ফ্রি। কলকাতায় মামা মিয়ার জিলাটোর বিভিন্ন আউটলেট। সেখানে শুধু জিলাটোই নয়, ফ্রোজেন কেকও পাওয়া যায়। মামা মিয়ার ফ্রোজেন কেক ও জিলাটোর রেসিপি সংকলনে কমলিনী চক্রবর্তী।
বিশদ

05th  August, 2017
 রেস্তরাঁর খবর

 ধোসা উৎসব: ধোসা মানেই চালের গুঁড়োর ব্যাটার আর আলুর পুর এই ধারণা ভ্রান্ত। ধোসার নানারকম নতুনত্ব পাবেন দক্ষিণ ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে। সেই নতুনত্বে ভরা ধোসাই এবার কলকাতার পিকাডিলি স্কোয়্যার রেস্তরাঁয় হাজির। রেস্তরাঁর কর্ণধার পূজা জানালেন, তিনি নানারকম গবেষণার পর ধোসার বিভিন্ন ধরন তৈরি করতে শুরু করেছেন। বিশদ

05th  August, 2017
 খিচুড়ির রকমারি

সবজি খিচুড়ি : উপকরণ: গোবিন্দভোগ চাল  কাপ, মুগের ডাল ১ কাপ, আলু ২টি, পটল ৪টি, ফুলকপি ১টি ছোট সাইজের, মটরশুঁটি  কাপ, নারকেল কুচি ২ টেবিল চামচ, টমেটো ১টি, তেজপাতা ২টি, কাঁচা লংকা ৪টি, গরম মশলা গুঁড়ো ১ চা চামচ, গোটা গরম মশলা ফোড়নের মতো, সাদা তেল, নুন, মিষ্টি ও হলুদ আন্দাজমতো, ধনে, জিরে গুঁড়ো ২ চা চামচ করে, ঘি ২ টেবিল চামচ, আদাবাটা ২ টেবিল চামচ। প্রণালী: চাল ধুয়ে, ডাল ভেজে ধুয়ে শুকোতে দিন।
বিশদ

05th  August, 2017
 রেস্তরাঁর খবর

 রাখির সঙ্গে রলিক: এবার রাখিতে আর ট্র্যাডিশনাল মিষ্টিমুখ নয়। বরং ‘বনবন মুখ’ হয়ে যাক। বনবন রলিকের ছোট্ট ছোট্ট আইসক্রিম। বাইরে চকোলেট, ভেতরে ভ্যানিলা। বলের মতো এই আইসক্রিম এবার রাখিতে পাবেন বিশেষ গিফট প্যাকে। ১৬টার গিফট প্যাক দাম ৮০ টাকা। নতুন প্রজন্ম এবার রাখি পালন করুন বনবনের সঙ্গে। রলিকের এটাই স্লোগান।
বিশদ

29th  July, 2017
 সরষের সাত পাঁচ

 খাট্টা সরষে পারসে: উপকরণ: পারসে মাছ বড় সাইজের ২টো, টমেটো ২টো বড়, নুন স্বাদমতো, হলুদগুঁড়ো ১ চা চামচ, কালো সরষে ১ চা চামচ, সাদা সরষে ২ চা চামচ, কাঁচালংকা ৪টে, পোস্তবাটা ২ চা চামচ, কালোজিরে সামান্য, সরষের তেল প্রয়োজনমতো।
বিশদ

29th  July, 2017
 ইলিশের আহ্লাদ

 লেবুপাতার দই ইলিশ: উপকরণ: ইলিশ মাছ ৪ পিস, টকদই ১০০ গ্রাম, সরষেবাটা ১ টেবিল চামচ, লেবুপাতা ৩-৪টে, নুন, চিনি স্বাদমতো, হলুদগুঁড়ো  চা চামচ, কাঁচালংকা ৫টা, কালোজিরে  চা চামচ, সরষের তেল পরিমাণমতো। প্রণালী: ইলিশ মাছ, নুন, হলুদ মাখিয়ে হালকা ভেজে নিন। টকদই, নুন, চিনি, হলুদগুঁড়ো দিয়ে ভালো করে ফেটিয়ে নিন। সরষে নুন কাঁচালংকা দিয়ে বেটে নিন। বিশদ

29th  July, 2017



একনজরে
বার্মিংহ্যাম, ২০ আগস্ট: তিন দিনেই প্রথম দিন-রাতের টেস্ট জিতে নিল ইংল্যান্ড। এজবাস্টনে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে চুরমার করে ইনিংস ও ২০৯ রানের বিশাল জয় পেয়েছে জো রুটের দল। প্রথম ইনিংসে ৮ উইকেটে ৫১৪ রানের বিশাল স্কোর খাড়া করেছিল ইংল্যান্ড। ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ইতিমধ্যেই দক্ষিণ দমদম পুরসভা এলাকায় ডেঙ্গুতে আটজনের মৃত্যু হয়েছে, আক্রান্তের সংখ্যা ৫০০ ছাড়িয়েছে। অবশেষে নড়েচড়ে বসল দক্ষিণ দমদম পুরসভা। পুরসভার যে সমস্ত ওয়ার্ডে ডেঙ্গুর প্রকোপ বেশি, সেখানে গাপ্পি মাছ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ...

সংবাদদাতা, খড়্গপুর: দাঁতন বালিকা বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির দুই নিখোঁজ ছাত্রীর খোঁজ মিলল মুম্বইয়ে। তাদের খোঁজে রবিবারই পুলিশের একটি দল মুম্বই ঩গিয়েছে। দাঁতন থানার পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, নিখোঁজ দুই ছাত্রীর মোবাইলের সূত্র ধরে তাদের খোঁজ পাওয়া যায়। ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: মিষ্টির উপর পাঁচ শতাংশ হারে জিএসটি চালু করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। এর প্রতিবাদে আজ সোমবার রাজ্যজুড়ে মিষ্টির দোকানগুলিতে ধর্মঘট ডাকল পশ্চিমবঙ্গ মিষ্টান্ন ব্যবসায়ী সমিতি। ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের ক্ষেত্রে ভাবনা-চিন্তা করে বিষয় নির্বাচন করলে ভালো হবে। প্রেম-প্রণয়ে বাধাবিঘ্ন থাকবে। কারও সঙ্গে মতবিরোধ ... বিশদ



ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৭৮- ভিনু মানকড়ের মৃত্যু
১৯৮৬- উসেইন বোল্টের জন্ম
১৯৯৫- সুব্রহ্মণ্যম চন্দ্রশেখরের মৃত্যু
২০০৬- ওস্তাদ বিসমিল্লা খানের মৃত্যু
১৯৭২- বন সংরক্ষণ আইন চালু


ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৩.৩৫ টাকা ৬৫.০৩ টাকা
পাউন্ড ৮১.২৫ টাকা ৮৪.২১ টাকা
ইউরো ৭৩.৯৬ টাকা ৭৬.৫৭ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
19th  August, 2017
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) 29465
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) 27955
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) 28375
রূপার বাট (প্রতি কেজি) 39100
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) 39200
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
20th  August, 2017

দিন পঞ্জিকা

৪ ভাদ্র, ২১ আগস্ট, সোমবার, অমাবস্যা রাত্রি ১২/০, অশ্লেষানক্ষত্র দিবা ৩/৫১, সূ উ ৫/১৯/১৪, অ ৬/০/২৬, অমৃতযোগ দিবা ৭/০ পুনঃ ১০/২৩-১২/৫৬ রাত্রি ৬/৪৫-৯/১ পুনঃ ১১/১৭-২/১৮, বারবেলা ৬/৫৪-৮/২৯ পুনঃ ২/৫১-৪/২৬, কালরাত্রি ১০/১৫-১১/৪০। পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ (ভারতে অদৃশ্য)
৪ ভাদ্র, ২১ আগস্ট, সোমবার, অমাবস্যা রাত্রি ১২/৮/৯, অশ্লেষানক্ষত্র অপরাহ্ণ ৪/৫৪/৪০, সূ উ ৫/১৬/৪৮, অ ৬/২/২৪, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৮/৫৩, ১০/২৩/২-১২/৫৬/১০ রাত্রি ৬/৪৭/২২-৯/২/২০, ১১/১৭/১৭-২/১৭/১২, বারবেলা ২/৫১/০-৪/২৬/৪২, কালবেলা ৬/৫২/৩০-৮/২৮/১২, কালরাত্রি ১০/১৫/১৮-১১/৩৯/৩৬। পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ (ভারতে অদৃশ্য)
২৮ জেল্কদ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
বন্যায় ৭ লক্ষ হেষ্টর চাষের জমি ক্ষতিগ্রস্থ: কৃষিমন্ত্রী

 বন্যায়য় উত্তর ও দক্ষিণবঙ্গ মিলিয়ে ৭ লক্ষ হেক্টর চাষের জমি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। যার মধ্যেো ৪ লক্ষ জমি উত্তরের। কৃষিতে প্রাথমিক হিসেবে মোট ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৮০০ কোটি টাকা। যার মধ্যে উত্তরে ৫৩৪ কোটি ৫১ লক্ষ টাকাো জানালেন কৃষি মন্ত্রী পূর্ণেন্দু বসু।

05:24:00 PM

 তামিলনাড়ুর উপ মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ পনিরসেলভামের

 এআএিডিএমকে-র দুই শিবিরের সংযুক্তিকরণের পর তামিলনাড়ুর উপ মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ নিলেন পনিরসেলভাম

04:49:00 PM

বন্যার জন্য কেন্দ্রে কাছে উপযুক্ত প্যাকেজ চাইব: মমতা

কেন্দ্রের কাছে উপযুক্ত প্যাকেজের দাবি করতে চলেছে বলে জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জানান গোটা রাজ্যে এবছর বন্যায় ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে ১৪ হাজার কোটি টাকা। কেবলমাত্র উত্তরবঙ্গেই মৃত্যু হয়েছে ৪৫ জনের। আর গোটা রাজ্যে ১৫২জনের। রাজ্যে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের সংখ্যা দেড় কোটি ছাড়িয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেন, ত্রাণ নিয়ে কোনও সমস্যা নেই। পর্যাপ্ত পরিমাণে রয়েছে। তাই যতটা প্রয়োজন ততটাই ত্রাণ মিলবে। মুখ্যমন্ত্রী আরও জানান, অনেক সড়ক থেকেই জল নামতে শুরু করেছে, তাই যে সমস্ত সড়ক থেকে জল নেমে যাবে, সেখান দিয়েই ধীরে ধীরে ট্রাক পাঠানো হবে। কারণ অনেক ট্রাক পচনশীল দ্রব্য নিয়ে আটকে রয়েছে। পাশাপাশি এই বন্যার নামে যে সমস্ত অসাধু ব্যবসায়ী দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি করতে চেষ্টা করছেন তাদের বিরুদ্ধেও নজরদারি চালানো হবে বলে তিনি নির্দেশ দিয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, জল নামলেই  বন্যা সংক্রান্ত রোগব্যাধির প্রতিষেধক এবং পানীয় জলের পথগুলিকে পরিশ্রুত করার ব্যবস্থাও নেওয়া হচ্ছে।

04:47:00 PM

সিলেবাস কমিটির প্রস্তাবে সিলমোহর রাজ্য সরকারের, সব ক্লাসে পড়তে হবে কন্যাশ্রী স্বীকৃতি, আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে প্রথম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত পাঠ্যক্রমে কন্যাশ্রী

04:12:00 PM

বন্যায় দেড় কোটি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত: মুখ্যমন্ত্রী

04:10:07 PM

রাজ্যে যথেষ্ট পরিমানে ত্রান সামগ্রী মজুত রয়েছে: মুখ্যমন্ত্রী

04:10:06 PM