চারুপমা
 

 অক্ষয় হোক স্ত্রীধন

আজ অক্ষয় তৃতীয়া। এই পূণ্য তিথিতে স্বর্ণালংকার ক্রয় করলে শুভফল লাভ হয়। স্বর্ণালংকার স্ত্রীধনও বটে। আলোচনায় শ্যামলী বসু।

সেকালে মেয়েদের নিজস্ব সম্পত্তি বা স্ত্রীধন বলতে বোঝাতো পরিবারের গিন্নি, মেয়ে, বউদের গয়নাপত্র। তাই সচ্ছল সম্পন্ন পরিবার থেকে সাধারণ মধ্যবিত্ত পরিবারেও বিয়ের সময় বউ-মেয়েদের সাধ্যমতো গয়না দেওয়া হত। গা ভরা সোনা-জড়োয়ার গয়নায় মেয়ে-বউদের রূপের জৌলুস বাড়বে। আবার ভবিষ্যতে নিতান্ত প্রয়োজন হলে ওই গয়নাই কত কাজে আসবে। কতরকমের গয়না—মুকুট, সিঁথি, ঝাপটা, চিক, নেকলেস, সীতাহার, বীরবৌলি, কানপাশা, ঝুমকো, চুড়ি, চূড়, বালা, ব্রেসলেট কত বলা যায়? এছাড়াও ছিল দুটি সুন্দর গয়না— নথ আর ব্রোচ।
বিয়ে, বউভাত, পুজো বা অন্যান্য উৎসবে, নিজের বাড়ি বা কুটুম্ব-আত্মীয়বাড়িতে গা ভরা গয়নায় সেজে মেয়ে-বউরা পালকি বা জুড়িগাড়ি থেকে নামত আশপাশের সকলের চোখ ঝলসে দিয়ে। আর এই গয়না পরা নিয়ে বিভিন্ন পরিবারের মধ্যে চলত একটা অলিখিত প্রতিযোগিতা বা রেষারেষি। তেমনই একটি স্মৃতির ছবি দেখতে পাই দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরের এক পুত্রবধূ, প্রফুল্লময়ীর আত্মকথায়। ‘উৎসবের সময় আমাদিগকে নানারকম গহনা পরিয়া সাজিতে হইত। বাড়ির যে নতুন বউ.... তাহাকে আরও বেশি গহনার উৎপাত সহ্য করিতে হইত। গহনার ভারে কোনওরকমে বাঁকিয়া চুরিয়া চলিতাম, তাহাতে বাহিরের লোকেরা মনে করিত যে আমি গহনার জাঁকে ও গুমরে ঐরূপভাবে চলিতেছি।’ গয়নার ভারে তন্বী ত্রয়োদশী বধূটির অবস্থা আজকের যুগে মনে হবে গল্পকথা!
তবে গল্পকথা নয়, এমন গয়নাই সেকালের সচ্ছল পরিবারের রীতি ছিল সেকথা জানা যায় সেকালের আর এক গরবিনী সীমন্তিনী-কৈলাসবাসিনীর নিজের কথায়। ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট কিশোরীচাঁদ মিত্রের স্ত্রী কৈলাসবাসিনী লিখে গিয়েছেন তাঁর অলংকার ঐশ্বর্যের কথা আজ থেকে একশো বাষট্টি বছর আগে। ‘কোমরে দুই ছড়া চন্দ্রহার আর গোট চাবিশিকলি। হাতে দমদম মিচরি তিনজোড়া। পিনখাড়ু তিনজোড়া। ঘোড়োয়া পঁইছা। হাতাহার জাল ও হাতের মুকুতা। হাতে চালদানা, সরদানা। নঙ্গ (লবঙ্গ) কলি, নঙ্গফুল নারিকেল ফুল, মাদুলি, সোনার পঁইছা, বাউটি ও হাতমাদুলি। ওপর হাতে তাবিজ ও বাজ। তাগা, জমন (জসম) ঝাঁপা ও নবরত্ন। গলায় ডামন (ডায়মন্ড) কাটা চিক ও গোপহার ও ছড়িহার ও হেঁসো (হাঁসুয়া) হার। ন-নর গোলমালা। সাত নরদানা। পাচনর পানহার, ন-নর মুকুতা। দো-নর মুকুতা। মুকুতার কন্টি ও আরেক ছড়া কন্টি (কণ্ঠি)। কানে তিনজোড়া চউদানি, দু’জোড়া কানবালা, মুকুতার গোচা ও কান, ঝোমকা (ঝুমকা)। মাতায় সিঁতি ও ফুলকাঁটা ও গোট। গলায় চাপকলি ও ধুকধুক। এছাড়া পায়ে ছ’গাছা মল ছিল আশি ভরির। জড়োয়া নথও ছিল কয়েকটি। আরও গয়না নানা উপলক্ষে পেয়েছিলেন বাবা, স্বামী ও শাশুড়ির কাছ থেকে’।
সেকালে গয়নাগাটি মেয়েদের এমনই ছিল। ভারী গয়না। অবনীন্দ্রনাথ দেখেছেন তাঁর সুন্দরী পিতামহীর কিছু গয়না ছিল মায়ের কাছে। ‘হীরে মুক্তো দেওয়া কান, ঝাপটা। ....একটি সাতনরীহার ছিল কী সুন্দর। দুগগো প্রতিমার গলায় যেমন থাকে। সেই ধরনের।’ সেকালেও পুরনো দিনের ভারী জমকালো গয়নার কদর ছিল বেশি। গগনেন্দ্রনাথের মেজ মেয়ে পূর্ণিমা লিখেছেন সেকথা। তাঁর দাদার বিয়েতে বউ আনতে যাওয়ার সময় পিতামহী সৌদামিনী তাঁর নিজের সেকেলে সব গয়না বের করে দিলেন। বললেন, ‘তোমাদের নতুন গয়না যৌতুক কর। ভারী গয়না না হলে কি বউ মানায়।’ সেইসব ভারী সেকেলে গয়নার কথাও বলেছেন পূর্ণিমা। ‘হীরের কণ্ঠা, কঙ্কন, বাউটি, কানবালা, হীরের কান।’
লেখিকা জ্যোতির্ময়ীদেবী লিখেছেন তাঁর বিয়ের গয়নার কথা। জয়পুর রাজ্যের প্রধানমন্ত্রী সংসারচন্দ্র সেনের পৌত্রী ছিলেন তিনি। তাঁর বিয়েতে বাপের বাড়ি থেকে দেওয়া হয়েছিল ‘মুকুট নয় ভরি, কান ছয় ভরি। সাতলহরী চোদ্দো ভরি চূড় চোদ্দো ভরি। বালা পাঁচ ভরি, তাবিজ সাত ভরি বাঁক পাঁচ ভরি, গোট দশ ভরি।’ আর ছিল হাতভরা চুড়ি, খোঁপার ফুল চিরুনি চার ভরি, জড়োয়া মুক্তো মিনার সরস্বতীহার, নেকলেস, রুপোর মল ছিল ত্রিশ ভরি, পাঁয়জোর কুড়ি/পঁচিশ ভরি।’
উত্তরবাংলার হরিপুরের জমিদারবাড়ির মেয়ে কবি প্রসন্নময়ী লিখেছেন—বাড়ির মেয়ে-বউদের বারোমাসের আটপৌরে গয়না ছিল ‘হাতে বেঁকি চুড়ি, নারকেল ফুল, পৈঁচে, গলায় চাঁপকলি, তুলসীদানা, কানে কদমফুল, পিপুলপাতা, নাকে বেশর, কোমরে গোট।’— এই সামান্য বারোমেসে গয়না হলে জমিদারবাড়ির আভিজাত্যের ঠাঁট বজায় রাখা যেত না।
দ্বারকানাথ ঠাকুরের পরিবারের ছ’বছর বয়সের গৌরাঙ্গী সারদা পুত্রবধূ হয়ে আসার পর সংসারে নানা শ্রীবৃদ্ধি ঘটল। তাতে পরম সন্তুষ্ট দ্বারকানাথ পুত্রবধূকে কিনে দিয়েছিলেন— লক্ষ টাকা দামের জড়োয়া খেলনা। দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরকে খুব খুশি করেছিলেন বিদুষী দৌহিত্রী সরলা, মাতামহের প্রিয় কবি হাফেজের কবিতায় সুর বসিয়ে, গান গেয়ে শুনিয়ে। দেবেন্দ্রনাথ দৌহিত্রীকে উপহার দিয়েছিলেন চুনি ও হীরে বসানো নেকলেস আর ব্রেসলেট। মামাবাবু দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাশকে গান শুনিয়ে সন্তুষ্ট করে সুগায়িকা ভাগনি সাহানা উপহার পেয়েছিলেন— হীরের আংটি আর বড় বড় মুক্তো বসানো নেকলেস। অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কাছে ছিল একটি দুর্লভ মোহর। যার একপিঠে জাহাঙ্গির অন্য দিকে ছিল নূরজাহানের ছবি। আর ছিল একটি বড় পান্না। নিজের জহুরিকে ডেকে সেই মোহর ও পান্না দিয়ে অবনীন্দ্রনাথ স্ত্রী সুহাসিনীকে একটি সুন্দর ব্রোচ তৈরি করিয়ে দিয়েছিলেন। ইন্দিরা দেবীচৌধুরানির বিয়ের সময় বাবা মা তাঁকে দিয়েছিলেন একটি ‘প্ল্যাটিনামের উপর হীরে বসানো বেশ বড় একটি ফুলপাতা নকশার ব্রোচ। তার বড় ফুলটা কাঁপত।’ লীলা মজুমদার লিখেছেন তাঁর ছোট পিসিমার মেয়ে মালতীর ব্রোচে ‘মস্ত মুক্তোর ভিতরে আলো জ্বলত।’
প্রাক বিবাহ পর্বে ইন্দিরা ভাবী স্বামী প্রমথনাথের কাছ থেকে উপহার পেয়েছিলেন এক চেন ব্রেসলেট যা সেকালে বিদেশিনী মেমদের হাতে দেখা যেত।
গয়না নিয়ে চিরদিনই সংসারে, পরিবারে অনেক কথা! অনেক বিবাদ। ঈর্ষা, পরশ্রীকাতরতা। অনেক দম্ভ, লোভ, মান অভিমান, এমনকী মামলা-মোকদ্দমাও হয়েছে। গয়নার সঙ্গে জড়িয়ে থাকে কত রোমান্স, রোমাঞ্চ আর ভালোবাসা, আবার দুঃখ ও চোখের জলও। তবুও সংসারে মেয়েদের গয়নার প্রতি দুর্বলতা থাকবেই।
একালেও মেয়েরা গয়না পরে সাজতে ভালোবাসে। তবে সেকালের মতো একশো/দেড়শো ভরির সোনার গয়না এখন গল্পকথা। মেয়ের বিয়েতে পনেরো-বিশ ভরির গয়না দিতেই গৃহস্থের অবস্থা কাহিল হয়ে পড়ছে।
যুগের প্রয়োজনে স্বর্ণব্যবসায়ী, স্বর্ণকাররাও নতুন ধরনের গয়না করার চেষ্টা করছেন। সেকালের ভারী ভারী গয়নার বদলে নান্দনিক নকশার হালকা গয়না তৈরি করছেন। মধ্যবিত্ত মানুষের কেনার ক্ষমতার দিকে নজর রেখেই।
29th  April, 2017
চরিত্র যেমন সাজ তেমন

ছবি সম্পর্কে পরিচালক সৌরভ চক্রবর্তী জানান, ‘শুধুমাত্র গল্পের নায়িকা অরণি-র জন্যই ছবির নামকরণ হয়নি। মূলত ছবিটি মিউজিক্যাল প্রেমের গল্প যার প্রেক্ষাপটে রয়েছে বাবরি মসজিদ এবং গুজরাতের গোধরার ঘটনা। সবার্ণী মুখোপাধ্যায়ের লেখা কামড় উপন্যাসের গল্পাংশ তুলে নিয়ে ওই ছবির কাহিনি গড়ে উঠেছে। সময় ১৯৯০-২০০২।
বিশদ

27th  May, 2017
 চোখের আরাম রোদচশমা

 এই প্রখর রোদ্দুরে চোখকে আরাম দিতে বেছে নিন স্টাইলিশ রোদচশমা। হালফ্যাশনের নিত্যনতুন রোদচশমার খোঁজ দিচ্ছেন স্নেহাশিস সাউ। বিশদ

27th  May, 2017
 প্রবাসে মেয়ে-জামাই

 মুম্বইতেই সংসার পেতেছেন কলকাতার মেয়ে অভিনেত্রী মৌলি গঙ্গোপাধ্যায়। অভিনেতা মজহরের সঙ্গে। আন্ধেরির লোখন্ডওয়ালায় তাঁদের সাজানো সংসারে হাজির আমরা। জামাইষষ্ঠীর সাজে সাজলেন দু’জনে। তাঁদের সঙ্গে গল্প করলেন সোমা লাহিড়ী। বিশদ

27th  May, 2017
 কেতায় থাকুন পুরুষগণ

 পুরুষ পোশাকেও এখন ফ্যাশনের জোয়ার। সেই জোয়ারের স্রোত থেকে সামার কালেকশনের খবর সংগ্রহ করলেন স্নেহাশিস সাউ। বিশদ

20th  May, 2017
তপ্ত দিনে পশ্চিমি হাওয়া

 পশ্চিমি হাওয়ায় উথাল-পাতাল এবার সামার ফ্যাশন দুনিয়া। কেমন সে ফ্যাশন, লিখেছেন সোমা লাহিড়ী। বিশদ

20th  May, 2017
কোটা কয়েকরকম 

এই গরমে ভারী শাড়ি পরতে মন চায় না। চাই হালকা ফুরফুরে কোটা। পাঁচ ডিজাইনার কোটাকে সাজিয়েছেন পাঁচ রূপে। সাজানো কোটার সন্ধান দিচ্ছেন সোমা লাহিড়ী। 
বিশদ

13th  May, 2017
চরিত্র যেমন সাজ তেমন 

গতকাল মুক্তি পেয়েছে পরিচালক শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় ও নন্দিতা রায়ের ছবি পোস্ত। ছবির পোশাক পরিকল্পনায় ডিজাইনার রুমা সেনগুপ্ত। খবরে চৈতালি দত্ত।  ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্রদের সাজপোশাক সম্পর্কে ডিজাইনার রুমার থেকে জানা গেল যে, প্রত্যেকের পোশাক সিচ্যুয়েশনাল। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় ছবিতে দাদু দীনেন লাহিড়ি। 
বিশদ

13th  May, 2017
ফ্যাশনে স্কার্ট

রংবাহারি রকমারি স্কার্ট-টপের খবরে চৈতালি দত্ত।
বিশদ

06th  May, 2017
 শহরে গহর

 ইন্ডিয়ান ফ্যাশন লিগের আনুষ্ঠানিক ঘোষণায় কলকাতায় এসেছিলেন বলিউডের অভিনেত্রী গহর খান। কথা বললেন আমাদের প্রতিনিধির সঙ্গে। বিশদ

06th  May, 2017
চরিত্র যেমন সাজ তেমন

নিজের লেখা গল্প নিয়ে বিশিষ্ট লেখক ও সাংবাদিক শঙ্করলাল ভট্টাচার্য তাঁর পরিচালিত প্রথম ছবি পরকীয়া-র শ্যুটিং শেষ করলেন। ছবির পোশাক পরিকল্পনায় কসটিউম ডিজাইনার রাজর্ষি মুখোপাধ্যায়। লিখেছেন চৈতালি দত্ত।
বিশদ

06th  May, 2017



একনজরে
 মুম্বই, ২৯ মে (পিটিআই): শেয়ার বাজারের ঊর্ধ্বগতি চলছেই। এদিন মুম্বই শেয়ার বাজারের সূচক সেনসেক্স ৩১ হাজার ১০৯ পয়েন্টে শেষ হয়েছে। গত তিন দিন ধরেই সেনসেক্স ঊর্ধ্বমুখী। তিনদিনে ৮০০ পয়েন্টেরও বেশি উঠেছে সূচক। ...

সংবাদদাতা, রামপুরহাট: ময়ূরেশ্বরের বড়তুড়িগ্রামে তৃণমূল কর্মী খুনের ঘটনায় নয়া মোড়। শুধুমাত্র গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব, জমি সংক্রান্ত বিবাদের জেরেই নয়, খুনের পিছনে কাজ করেছে পুরানো আক্রোশও। ধৃতদের জেরা করে এমনটাই পুলিশ জানতে পেরেছে। উল্লেখ্য, শনিবার সকালে বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে আসগর আলি নামে ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: দক্ষিণ কলকাতার নেতাজিনগরে তোলাবাজির অভিযোগে এক যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ধৃতের নাম সুশান্ত মাহাত। অভিযোগ, সে নেতাজিনগর থানার ৮বি, নাকতলা রোডে গত ২৬ মে সকাল ১১টা নাগাদ একটি বহুতলে কাজ চলার সময় কলকাতা পুরসভার স্বীকৃত ‘প্লাম্বার’ নিলয় ...

সংবাদদাতা, শিলিগুড়ি: শিলিগুড়িতে এবছর মাধ্যমিক পরীক্ষায় ৭৫ শতাংশের বেশি নম্বর পাওয়া ছাত্রছাত্রীদের সংখ্যা অন্য বছরগুলির তুলনায় অনেকটাই বেশি বলে মধ্যশিক্ষা পর্ষদের উত্তরবঙ্গ আঞ্চলিক কার্যলয় সূত্রে জানা গিয়েছে। ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ব্যাবসাসূত্রে উপার্জন বৃদ্ধি। বিদ্যায় মানসিক চঞ্চলতা বাধার কারণ হতে পারে। গুরুজনদের শরীর স্বাস্থ্য ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৭৪৪: ইংরেজ লেখক আলেক্সজান্ডার পোপের মৃত্যু
১৭৭৮: ফ্রান্সের লেখক এবং দার্শনিক ভলতেয়ারের মৃত্যু
১৯১২: বিমান আবিষ্কারক উইলবার রাইটের মৃত্যু
১৯১৯: জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘নাইট’ উপাধি ত্যাগ
১৯৪৫: অভিনেতা ধৃতিমান চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৫০: অভিনেতা পরেশ রাওয়ালের জন্ম
২০১৩: চিত্র পরিচালক ঋতুপর্ণ ঘোষের মৃত্যু




ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৩.৭০ টাকা ৬৫.৩৮ টাকা
পাউন্ড ৮১.৩৮ টাকা ৮৪.১৮ টাকা
ইউরো ৭০.৮৭ টাকা ৭৩.২৩ টাকা
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ২৯,৩৪৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৭,৮৪০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৮,২৬০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,৩০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,৪০০ টাকা

দিন পঞ্জিকা

 ১৬ জ্যৈষ্ঠ, ৩০ মে, মঙ্গলবার, পঞ্চমী দিবা ৮/৪৭, পুষ্যানক্ষত্র দিবা ১১/৫৭, সূ উ ৪/৫৫/৪৯, অ ৬/১২/১৩, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৪ পুনঃ ৯/২১-১২/০ পুনঃ ৩/৩১-৪/২৫, বারবেলা ৬/৩৬-৮/১৫ পুনঃ ১/১৩-২/৫৩, কালরাত্রি ৭/৩২-৮/৫৩।
১৫ জ্যৈষ্ঠ, ৩০ মে, মঙ্গলবার, পঞ্চমী ২/১৯/৫, পুষ্যানক্ষত্র অপরাহ্ণ ৫/২৮/৪৩, সূ উ ৪/৫৪/৪৫, অ ৬/১২/৩৬, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৪/১৯, ৯/২০/৪২-১২/০/১৬, ৩/৩৩/২-৪/২৬/১৩ রাত্রি ৬/৫৫/২৫, ১১/৫৫/৫-২/৩/৩১, বারবেলা ৬/৩৪/২৯-৮/১৪/১৩, কালবেলা ১/১৩/২৪-২/৫৩/৮, কালরাত্রি ৭/৩২/৫২-৮/৫৩/৮।
৩ রমজান

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
উচ্চ মাধ্যমিকে তৃতীয় (৯৭.৮%) শুভম সিংহ ও সুরজিৎ লোহার (বাঁকুড়া জেলা স্কুল) 

10:49:32 AM

উচ্চ মাধ্যমিকে প্রথম অর্চিষ্মাণ পানিগ্রাহি ( হুগলি কলেজিয়েট স্কুল) 

10:45:00 AM

উচ্চ মাধ্যমিকে দ্বিতীয় (৯৮.৪%) ময়াঙ্ক চট্টোপাধ্যায় (মাহেশ শ্রীরামকৃষ্ণ বিদ্যাভবন), উপমন্যু চক্রবর্তী (নরেন্দ্রপুর রামকৃষ্ণ মিশন) 

10:39:06 AM

সাফল্যের নিরিখে শীর্ষে পূর্ব মেদিনীপুর 

10:15:00 AM

সংসদের ওয়েবসাইটে এবার জেলাওয়াড়ি সেরাদের নাম ও স্কুলের নাম প্রকাশিত হবে 

10:13:00 AM

উচ্চ মাধ্যমিকে পাশের হার ৮৪.২০% 

10:11:00 AM






বিশেষ নিবন্ধ
এবারই প্রথম নয়, ’৯৯-এ কারগিল যুদ্ধেও পাক সেনারা নৃশংসতার নজির রেখেছিল
সীমান্তরক্ষায় অনেকদিন কাটানো পোড়খাওয়া এক ক্যাপ্টেন একদিন দার্শনিকের ঢঙে বললেন, আমরা এটুকুই বুঝি—যুদ্ধক্ষেত্রে জীবন মানে ...
 লালবাজার অভিযান: মমতার চালে বিজেপি মাত!
শুভা দত্ত: সিপিএমের নবান্ন অভিযানের ধাঁচে লালবাজার অভিযান করে রাজ্যবাসীকে চমকে দিতে চেয়েছিল রাজ্য বিজেপি। ...
 হুট বলতে ফুট কাটার অসুখ
 সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়: আমার এক বন্ধু প্রায়ই ভারী অদ্ভুত অদ্ভুত কথা বলে। যেমন, জ্বর-জ্বালা, বুক ধড়ফড়ানি, ...
নদী তুমি কার
বিশ্বজিৎ মুখোপাধ্যায়: ১৯৪৭ সালে দ্বিখণ্ডিত স্বাধীনতা কেবলমাত্র মানুষকে ভাগ করেনি, প্রাকৃতিক সম্পদেও ভাঙনের সাতকাহন সূচিত ...
চীন, পাকিস্তান বেজিংয়ে ফাঁকা মাঠ পেয়ে গেল ভারতের কূটনৈতিক ভুলের কারণে
কুমারেশ চক্রবর্তী: মাত্র কিছু দিন আগে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থা আইসিসি’র এক ভোটে ৯-১ ভোটে ...