বিশেষ নিবন্ধ
 

গ্যাসে ভরতুকি ছাড়ার অনুরোধ আসলে ধান্ধা
মৃন্ময় চন্দ

সরকারি অর্থনীতির চলন বোঝাতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রেগন একবার বলেছিলেন—‘‘If it moves, tax it. If it keeps moving, regulate it. And if it stops moving, subsidize it.’’ ৫৭.৫ লাখ এলপিজি গ্রাহক ভরতুকি ছেড়ে দিয়েছেন। দেশে এলপিজি গ্রাহকের সংখ্যা এই মুহূর্তে ১৪.৭০ কোটি। গত এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বরে সরকারকে এলপিজি ভরতুকি বাবদ খরচ করতে হয়েছে মাত্র ৮,৮১৪ কোটি টাকা, পূর্ববর্তী বছরে যা ছিল ৪০,৫৯১ কোটি টাকা। ব্যাপক মূল্য হ্রাসের কারণ—বিশ্ববাজারে অশোধিত তেলের দামের অভূতপূর্ব পতন। আইএমএফ রিপোর্ট বলছে বিশ্বের ১৭৬টি দেশে বহাল তবিয়তে বিরাজমান জ্বালানি ভরতুকি; পূর্ব, মধ্য ইউরোপ ও সিআইএস বা ভাঙন পূর্ববর্তী রাশিয়া বিশ্বের ১৫ শতাংশ জ্বালানি ভরতুকি দেয়। প্রাকৃতিক গ্যাসে সর্বোচ্চ ৩৬ শতাংশ ভরতুকিও তাদের। কিরজিগ, তুর্কমেনিস্তান, ইউক্রেন ও উজবেকিস্তান তাদের জিডিপি-র ৫ শতাংশ (বিশ্বের সর্বাধিক) ব্যয় করে জ্বালানির ভরতুকিতে। ভরতুকি ছাড়ার মরমি আবেদন তাহলে কোনও ধান্ধায়?
রান্নার গ্যাস বা এলপিজি ভরতুকি ও সরকারি ধান্ধাবাজি: উদারীকরণের সোপান হিসেবে ২০০২ সালে তুলে দেওয়া হল অ্যাডমিনিস্টারড প্রাইস মেকানিজম বা এপিএম-কে। এপিএম তুলে দেওয়ার পর পেট্রোপণ্যের মূল্য নির্ধারণে চালু হল ‘ইমপোর্ট’ প্যারিটি প্রাইসিং বা আইপিপি। এলপিজি ও কেরোসিন বিক্রি হয় পাবলিক ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম বা পিডিএস মারফত। ভারত, পেট্রোপণ্যের সবটাই প্রায় আমদানি করে। ফলে আইপিপির সূত্র মোতাবেক দেশীয় উৎপাদকরা চাইবেন পুরো পেট্রোপণ্যটাই আমদানি করতে। কারণ, আমদানিতে কোনও শুল্ক নেই, নেই কোনও উৎপাদন খরচ।
পেট্রোপণ্যের মধ্যে প্রথমেই থাকবে পেট্রল ও ডিজেল। কারণ, যাবতীয় পেট্রোপণ্য বিক্রির ৪১.৭৩ শতাংশ রয়েছে পেট্রল ও ডিজেলের দখলে। আন্তর্জাতিক বাজারে অশোধিত তেলের দামের ওঠা-পড়ার সঙ্গে সামঞ্জস্য বিধান করে অয়েল মার্কেটিং কোম্পানি বা ওএমসি স্বাধীনভাবে ঠিক করবে পেট্রল, ডিজেল ও গ্যাসের দাম। কার্যত তা কিন্তু হল না। ২০০৪-র ১ আগস্ট সরকার এক প্রাইস ব্যান্ড বা ‘মূল্য পটি’ চালু করল। আন্তর্জাতিক বাজারে গত ১৫ দিনের মূল্যমানের হিসেবে ওএমসি দেশীয় বাজারে আইপিপি সূত্র মোতাবেক ঠিক করবে পেট্রল-ডিজেলের খুচরো মূল্য। ‘ব্যান্ড প্রাইসের’ সঙ্গে জুড়বে সি অ্যান্ড এফ (কস্ট অ্যান্ড ফ্রেইট) যা আন্তর্জাতিক বাজারে গত তিনমাসের পেট্রোপণ্যের দামের চক্রাকার হ্রাসবৃদ্ধির গড়ের ১০ শতাংশ বেশি বা কম হবে। আর যা অবশ্যই হবে গত একবছরের দামের সঙ্গে সুসামঞ্জস্যপূর্ণ।
পেট্রোপণ্যের দাম নির্ধারণে আম আদমির কোনও অংশীদারিত্ব নেই, সরকার যা বলবে তাই আমজনতা মানতে বাধ্য। ২০০৫-র ৪ আগস্ট স্ট্যান্ডিং কমিটি অফ পেট্রোলিয়াম অ্যান্ড ন্যাচারাল গ্যাস লোকসভায় যে ‘ষষ্ঠ রিপোর্ট’ পেশ করেছিল তাতে পরিষ্কার উল্লিখিত পেট্রোপণ্যের বর্তমান দামের ৫০ শতাংশেরও বেশি কেবল কর। বর্তমানে ২৩% কেন্দ্রীয় সরকারি কর আর ৩৪% ভ্যাট রাজ্য সরকারি। শতাংশের হিসেবে করের পরিমাণ মুম্বই, চেন্নাই, কলকাতা ও দিল্লিতে যথাক্রমে ১৪৬ শতাংশ, ১৩৮ শতাংশ, ১৩২ শতাংশ ও ১১২ শতাংশ।
আইপিপি সূত্র অনুযায়ী, সারা পৃথিবীর রিফাইনারি বা পরিশোধনাগারগুলোকে নানারকম চার্জ দিতে হয়, যেমন ফ্রি অন বোর্ড প্রাইস, লোড পোর্ট চার্জেস, ফ্রেইট, ওসেন লস, ল্যান্ডিং চার্জেস, নেভিগেশন চার্জেস, পাইলটেজ অ্যান্ড টাওয়েজ, মুরিং চার্জেস, হোয়ারফেজ, টারমিনেটিং চার্জেস, ইনসিওরেন্স প্রভৃতি। এই সমস্ত চার্জ Ad valorem বা মূল্যানুসারী, খানিকটা বায়বীয়। আন্তর্জাতিক বাজারে অশোধিত তেলের দাম ব্যারেল পিছু ৪৫ ডলার হলে এই ধরনের বিমূর্ত চার্জ বাবদ ভারতবাসীর ঘাড়ে অতিরিক্ত ৩ টাকা লিটার পিছু চাপবে। ভারতীয় রিফাইনরা কিন্তু উপরোক্ত কোনও চার্জই দেয় না। অথচ ভারতবাসীর ঘাড় ভেঙে এই সমস্ত চার্জই আদায় করে। এই ধরনের বিমূর্ত নানারকম চার্জ যেহেতু নিক্তি-মেপে খাতায় কলমে হিসেব রাখা অসম্ভব তাই এরা পরিচিত Notional Margin নামে। অশোধিত তেলের দাম আন্তর্জাতিক বাজারে ব্যারেল পিছু ৪৫ ডলার থেকে বেড়ে ৬৫ ডলার হলে ন্যাশনাল প্রাইস বাড়বে ৩৩ শতাংশ। ৩২ মিলিয়ন টন অশোধিত তেল পরিশোধন করলেই এক লাফে ন্যাশনাল প্রাইস বাবদ ফোকটে রিফাইনারের পকেটে অঙ্কের সোজা হিসেবে ৪০০০০ কোটি টাকা ঢুকে যাচ্ছে। ঠিক সেই কারণেই সব শেয়ারের পতন হলেও রিলায়েন্স পেটোর বা ইন্ডিয়ান অয়েলের বা হিন্দুস্থান পেট্রোলিয়ামের শেয়ারের দর কখনও পড়ে না। পরিশোধনাগারগুলো যে চার্জ কখনওই দিচ্ছে না পেট্রল-ডিজেল কিনতে আপামর ভারতবাসী কেন তার মূল্য চোকাবে?
রান্নার গ্যাস ও ভরতুকিনামা: নীচের সারণি দেখাচ্ছে রান্নার গ্যাস বা এলপিজির ঘাড়ে চাপা নানারকম ‘ন্যাশনাল প্রাইসের’ অদ্ভুতুড়ে বিন্যাস ও সরকারি ভরতুকির বর্ণিল কারিকুরি।
ক্রমিক নং এলিমেন্ট বা উপাদান ইউনিট বা একক মূল্য
১. আরবসাগরে ফ্রি অন বোর্ড প্রাইস ডলার/ মে. টন ৪১৪.০৫
২. সমুদ্রের খরচ (আরব থেকে জামনগর) ডলার/ মে. টন ২৯.৪৫
৩. সি অ্যান্ড এফ ডলার/ মে. টন ৪৪৩.৫০
৪. ইমপোর্ট চার্জেস (ইনসিওরেন্স, ওসেন লস, এলসি চার্জ, পোর্টি ডিউস) টা./ সিলি. ৪.৪১
৫. ইমপোর্ট প্যারিটি প্রাইস টা./ সিলি. ৪১৯.৬৬
৬. আরটিপি-পরিশোধনাগারকে তেল
বিপণনকারী সংস্থার দেয় মূল্য টা./ সিলি. ৪১৯.৬৮
৭. স্টোরেজ/ ডিস্ট্রিবিউশন ও জমার ওপর ফেরত টা./ সিলি. ৯.৯৬
৮. বটলিং চার্জেস টা./ সিলি. ২০.৫৮
৯. চার্জেস ফর সিলিন্ডার কস্ট টা./ সিলি. ১৮.১১
১০. অন্তর্দেশীয় জাহাজ ভাড়া টা./ সিলি. ৩৩.২০
১১. কস্ট অফ ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল টা./ সিলি. ২.২৬
১২. কেনা দাম, এলপিজি বটলিং প্ল্যান্টে টা./ সিলি. ৫০৩.৭৯
১৩. ডেলিভারি চার্জেস টা./ সিলি. ১০.০০
১৪. আনকমপেনসেটেড কস্ট টা./ সিলি. ৪৮.২৫
১৫. ডিস্ট্রিবিউটর বা বিতরণকারীর কমিশন টা./ সিলি. ৪৬.০৯
১৬. খুচরো বিক্রয়মূল্য- দিল্লিতে টা./ সিলি. ৬০৮.১৪
১৭. সরকারি ভরতুকি টা./ সিলি. ১৪০.৪৮
১৮. গ্রাহককে তেল বিপণনকারী সংস্থার দেয় অনুদান টা./ সিলি. ৪৮.২৬
১৯. ভরতুকির পর কার্যকর মূল্য দিল্লিতে টা./সিলি. ৪১৯.২৫

সূত্র: তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাস মন্ত্রক, ভারত সরকার; কার্যকর ১ ডিসেম্বর ২০১৫ থেকে
ভারতীয় রিফাইনাররা যে টাকা কস্মিনকালেও আইপিপি অনুযায়ী দেয় না, গ্রাহককে সেই টাকা কড়ায়গন্ডায় মেটাতে হচ্ছে! তার পরেও ভরতুকি ছাড়ার বাহানা।
পেট্রল ডিজেল থেকে সরকারের কর বাবদ গগনচুম্বী আয়: পরিশোধনাগারে ১ লিটার পেট্রল তৈরিতে খরচ হচ্ছে ২৪.৭৫ টাকা, দিল্লিতে ‘ন্যাশনাল প্রাইস’ যোগ করে পেট্রল পাম্প ডিলারের কাছে যখন তা পৌঁছাচ্ছে তখন দাম পড়ছে প্রতি লিটার ২৭.৫১ টাকা। এক্সাইজ ডিউটি বাবদ জুড়ছে ২১.৪৮ টাকা, ডিলার কমিশন প্রতি লিটার ২.৫৭ টাকা। গোটাটাই কেন্দ্রীয় সরকারের ঘরে যাচ্ছে। রাজ্য সরকার ভ্যাট বা সেলস ট্যাক্স বাবদ নিচ্ছে ১৩.৯২ (২৭%) টাকা দিল্লিতে। অর্থাৎ ২৭.৫১ টাকার পেট্রল দিল্লিতে বিকচ্ছে ৬৫.৪৮ টাকায় (২৭ জুন, ২০১৭)। পশ্চিমবঙ্গে ৬৫.২০ টাকায়। একইভাবে দিল্লিতে ১ লিটার ডিজেলের দাম পড়ছে ৫৪.৪৯ টাকা। এক্সাইজ ডিউটি ১৭.৩৩ টাকা, ডিলার কমিশন ১.৬৫ টাকা, ভ্যাট দিল্লিতে ৮.১৮ টাকা। ফলে ২৭.৪৮ টাকার ডিজেল দিল্লিতে বিক্রি হচ্ছে ৫৪.৪৯ টাকায়। আরও ২৫ পয়সা প্রতি লিটারে জুড়ছে পলিউশন সেস ও সারচার্জ হিসাবে। কেন পেট্রল/ডিজেলে জিএসটি কার্যকর হবে না? এক দেশ, এক কর—একমেবাদ্বিতীয়ম জিএসটি শুধু পেট্রপদার্থের ক্ষেত্রেই ব্রাত্য! জিএসটি চালু হলে পেট্রল ডিজেলের দাম অঙ্কের সোজা হিসাবে অর্ধেক হয়ে যাবে (৫৭% থেকে ২৮%)। ২০১৪-১৫-তে সরকার শুধু পেট্রোলিয়াম ক্ষেত্র থেকে কর বাবদ আদায় করেছে ৯৯১৮৪ কোটি টাকা। পাহাড়প্রমাণ রোজগারের পরও সরকার কোন মুখে ভরতুকি ছাড়ার কথা বলে।
ভরতুকির এক চরম লজ্জাজনক আখ্যান: সারা বছর ১২টা সিলিন্ডারে সরকারের ভরতুকি বাবদ খরচ মাত্র ২২৮৮ টাকা। একদিন সংসদ অচল বা মুলতুবি থাকলে নষ্ট হয় ৯৫,৪০,০০০ টাকা। সামান্য যোগবিয়োগের হিসেবে সহজেই মালুম হবে ভরতুকি ছাড়ার নিবেদন আসলে ‘খায়েঙ্গে আউর খানে দেঙ্গের’ পরিকল্পিত পরিশীলিত রাজনীতি। যে সরকার ২০০ কোটি টাকা ব্যয়ে সর্দার প্যাটেলের মূর্তি বসায়, যোগ দিবস উপলক্ষে কোষাগার থেকে নিশ্চিন্তে কোটি কোটি টাকা নিয়োগ করে অথচ ঋণগ্রস্ত চাষিদের এমএসপি বা ন্যূনতম সহায়ক মূল্য দিতে পারে না সেই লুটেপুটে খাওয়া সরকারের কাছে ভরতুকি ছেড়ে দেওয়ার প্রণোদনা এক বৃহত্তর চক্রান্তের ফন্দি।
অতঃ কিম্‌: রঙ্গরাজন কমিটির সুপারিশ বলছে শহরে ৪৭ টাকার বেশি রোজগার করলেই তার আর ভরতুকি পাওয়া উচিত নয়। অর্থাৎ তার অবস্থান আর দারিদ্রসীমার ঩নীচে নয়। স্মর্তব্য, আপনি রান্নার গ্যাসে ভরতুকি ছাড়লেই তা কিন্তু একজন গরিবের ঘরে চুলা জ্বালাতে পারবে না। কারণ, ৮০ শতাংশ এলপিজি ভরতুকি ভারতের মোট জনসংখ্যর ৬.৭৫ শতাংশ শুষে নিচ্ছে। সেই ৬.৭৫ শতাংশ শহুরে উচ্চবিত্ত বা মধ্যবিত্ত, যারা তাদের মোট মাসিক খরচের মাত্র ২ শতাংশ ব্যয় করেন রান্নার গ্যাস কিনতে। চুলা তখনই জ্বলবে যখন এমপিরা তাঁদের বিলাস ব্যসনে কিঞ্চিৎ লাগাম পরাবেন আর সরকার খুব সহজে পেট্রোপণ্যে কর আদায়ের আয়েশি বদভ্যাসটি ত্যাগ করবে। নাহলে কবি শঙ্খ ঘোষের ভাষা ধার করে বলতে হয়—‘‘জ্বালানিই নেই যখন আগুনের কিবা প্রয়োজন।’’
11th  August, 2017
গুম-নিখোঁজ ও পরমানন্দ মন্ত্রণালয়
সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়

বাংলাদেশে ‘লিট ফেস্ট’ শুরু ও শেষ হল। সেই কারণে কি না জানি না, অরুন্ধতী রায়ের দ্বিতীয় উপন্যাস ‘দ্য মিনিস্ট্রি অব আটমোস্ট হ্যাপিনেস’ হুট করে সংবাদপত্রে চর্চার কেন্দ্রে উঠে এল। এই মুহূর্তে বাংলাদেশের অত্যন্ত জনপ্রিয় সাহিত্যিক ও সাংবাদিক, আমার অতি ঘনিষ্ঠ ও প্রিয় আনিসুল হক এই উপন্যাসের বাংলা নাম দিয়েছেন ‘পরমানন্দ মন্ত্রণালয়’।
বিশদ

লন্ডন, এডিনবরা এবং মমতা
শুভা দত্ত

দুর্গাপুজোর দিন যত এগিয়ে আসে, আনন্দটা তার সঙ্গে সমানুপাতিক হারে বাড়ে। এ আমাদের বাঙালি সংস্কৃতির চিরন্তন সত্য। আর মা দুর্গাকে ঘিরে সেই উৎসবের রামধনু রং ফিকে হতে শুরু করে নবমীর সন্ধ্যা থেকেই। আজ বাদে কাল দশমী। মায়ের ফিরে যাওয়ার পালা।
বিশদ

চীনের প্রেসিডেন্ট বনাম ভারতের ডিফেন্স রিসার্চ
প্রশান্ত দাস

জিনপিং দেশের বিখ্যাত বিজ্ঞানীদের বললেন—আমাদের সমাজতন্ত্র দেশকে তরতর করে এগিয়ে নিয়ে চলেছে। এগিয়ে চলেছে আমাদের অর্থনীতি। কিন্তু গত পাঁচ বছরে আপনারা ক’টি অবিশ্বাস্য অস্ত্র দিতে পেরেছেন সেনাদের? ভারতের ডিআরডিও কী করে পৃথিবীতে দু’নম্বর রিসার্চ সেন্টার হল? কী নেই আপনাদের? যা যা চাই, তালিকা পাঠান। যতদিন না আমরা ডিআরডিও-কে ছাপিয়ে যেতে পারছি, ততদিন আমরা নিজেদের এশিয়ার মধ্যে এক নং বলতে পারব না।
বিশদ

18th  November, 2017
রাজ্যের লাইব্রেরিগুলিকে বাঁচাতেই হবে
পার্থজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়

মনে পড়ছে গত ডিসেম্বরের কথা। বীরভূম জেলার সরকারি বইমেলার আয়োজন হয়েছিল সিউড়িতে, ইরিগেশন কলোনির মাঠে। আমি উদ্বোধক, মঞ্চে জেলার মন্ত্রীরা, সঙ্গত কারণেই উপস্থিত ছিলেন গ্রন্থাগারমন্ত্রীও। মঞ্চে বসেই সিদ্দিকুল্লা চৌধুরীর সঙ্গে পরিচয়, আলাপচারিতা।
বিশদ

18th  November, 2017
মোদির আমলে শিশুদের খিদের যন্ত্রণা তীব্র, কারণ শিশু ও মহিলা উন্নয়নে গুরুত্ব কম
দেবনারায়ণ সরকার

কেন্দ্রীয় সরকারের গত ৩ বছরের বাজেটের তথ্য সার্বিকভাবে বিচার করলে দেখা যাচ্ছে কেন্দ্রীয় বাজেটে মোট ব্যয় যেখানে ২১ শতাংশের বেশি বেড়েছে (টাকার অঙ্কে অতিরিক্ত প্রায় ৩ লক্ষ ৫১ হাজার কোটি টাকা), সেখানে মহিলা ও শিশু উন্নয়নে ব্যয় কপর্দকও বাড়েনি, বরং প্রায় ১ শতাংশ কমেছে। একইভাবে মহিলা ও শিশু উন্নয়ন ব্যয় বাজেটের মোট ব্যয়ের ১ শতাংশের অনেক নীচে নেমেছে। মোদ্দা কথা হল, যে দেশের কেন্দ্রীয় বাজেটে মহিলা ও শিশু উন্নয়নের ব্যয় বাজেটে মোট ব্যয়ের ১ শতাংশেরও কম এবং এই ব্যয় মোদির জমানায় যেহেতু আরও কমছে, সেই দেশে রোজ রাতে খালি পেটে শুতে যাওয়া শিশুদের সংখ্যা ক্রমশ বৃদ্ধিটাই স্বাভাবিক। তাই ভারতে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে অপুষ্টিও।
বিশদ

17th  November, 2017
ডেঙ্গু: রাজনীতি ছেড়ে হাত মিলিয়ে কাজের সময়
অনিরুদ্ধ কর

অবিলম্বে একটা স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিওর বা নিয়মাবলী প্রকাশ করতে হবে সরকারের তরফে। সরকারি নির্দেশ মানতে বাধ্য সকল সরকারি বেসরকারি ও প্রাইভেট চিকিৎসা কেন্দ্র। অতীতের দিকে নজর দিলে দেখা যাবে বার্ড ফ্লু বা সোয়াইন ফ্লু-র সময় সরকারের তরফে এমন নিয়মাবলী প্রকাশ করা হয়েছিল। চিকিৎসাব্যবস্থায় কী কী থাকতে হবে এবং কোথায় থাকবে তাও বলে দেওয়া হয়েছিল। ফ্লু-র ওষুধ একমাত্র সরকার দিত। খোলাবাজারে মিলত না সেই ওষুধ। কারণ সেক্ষেত্রে ওষুধ নিয়ে কালোবাজারি এবং চড়া দামে ওষুধ বিক্রি হওয়ার আশঙ্কা থেকে যেত। এছাড়া একটি রাজ্যস্তরের কমিটি ছিল পর্যালোচনার জন্য।
বিশদ

17th  November, 2017
প্যারিস, পরিবেশ এবং উচ্চাকাঙ্ক্ষী ভারত
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 পরিবেশ মানে হল যেখানে সেখানে থুতু না ফেলা। মন্তব্যটি আমারই এক ঘনিষ্ঠ বন্ধুর। এবং কী ভয়ঙ্কর সাবলীল স্বীকারোক্তি। যে দেশে ৩০ কোটি মানুষ এখনও দারিদ্রসীমার নীচে বসবাস করেন, যেখানে সাক্ষরতা বলতে বোঝানো হয় নিজের নাম সই করতে পারা, সেখানে সচেতনতার প্রাথমিক পাঠটা এমন একটা মন্তব্য দিয়ে শুরু করলে মন্দ কী!
বিশদ

16th  November, 2017
সার্ধশতবর্ষের শ্রদ্ধাঞ্জলি টেম্‌স থেকে গঙ্গা: ভগিনী নিবেদিতার দার্শনিক যাত্রা
জয়ন্ত কুশারী

 আয়ারল্যান্ডের স্বল্প জনবসতি শহর ডুং গানন। স্যামুয়েল রিচমন্ড নোবেল নামে এক ধর্মযাজক ও তাঁর ভক্তিমতী স্ত্রী মেরি ইসাবেল হ্যামিলটন বাস করেন এই শহরে। এঁরা সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের কাছে করজোড়ে প্রার্থনা করেন সুখপ্রসবে প্রথম সন্তানটি হলে তাঁরা ঈশ্বরের চরণেই সদ্যোজাতকে সমর্পণ করবেন।
বিশদ

16th  November, 2017
নোট বাতিল: উত্তরপ্রদেশের ভোট, রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক এবং চে গুয়েভারা
শুভময় মৈত্র

নোট বাতিলের কারণ এবং ফল সংক্রান্ত আলোচনা দেখে, শুনে এবং পড়ে জনগণ এই বিষয়ে যথেষ্ট অবহিত, হয়তো বা কিছুটা ক্লান্তও বটে। বিজেপি সরকার কেন এই সিদ্ধান্ত নিলেন, এর কী কী ভুল ভ্রান্তি আছে, দেশের কী ক্ষতি হল, সাধারণ মানুষ ঠিক কতটা ভুগলেন এই নিয়ে আমরা যতটা আলোচনা করেছি সেই পরিমাণটা সময় এবং সম্পদের হিসেবে পাঁচশো আর হাজার টাকার মোট বাতিল নোটের মূল্যের থেকে বেশিও হয়ে যেতে পারে।
বিশদ

14th  November, 2017
বুকে লাল গোলাপের সেই মানুষটির কথা আজ খুব মনে পড়ছে
মোশারফ হোসেন

স্বপনদা বলত, পচার চাই। বুঝলে ভায়া, পচারটাই আসল। বাঁকুড়া মানুষ স্বপনদা র-ফলা উচ্চারণ করতে পারত না। তার মুখে ‘প্রচার’ শব্দটা ‘পচার’ হয়েই বেরত। আগ্রার ভঁপু চক্কোত্তিও একই কথা বলেছিলেন। ভঁপুবাবুর সঙ্গে আমার আলাপ হয়েছিল ১৯৯৩ সালে। এরকমই এক নভেম্বরে। উত্তরপ্রদেশের বিধানসভা ভোটের খবর করতে গিয়ে।
বিশদ

14th  November, 2017
ফাইলের ভয় দেখিয়ে মুকুল কি রাজ্য রাজনীতিতে জায়গা করতে পারবেন?
শুভা দত্ত

ভয় দেখাচ্ছেন মুকুল রায়, ফাইলের ভয়। মারাত্মক তথ্য ঠাসা গোপন সব ফাইল নাকি সদ্য গেরুয়াধারী মুকুল রায়ের হাতে! সেসব ফাইলের তথ্য প্রকাশ পেলেই নাকি ধরাশায়ী হবে তৃণমূল! মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজত্ব চলে যাবে! আর সেই সুযোগে ড্যাং ড্যাং করে মুকুল রায়ের বিজেপি পশ্চিমবঙ্গের দখল নেবে। মমতা ভুলে বাংলার জনতাও মোদিজি অমিতজির বন্দনায় আত্মহারা হবে।
বিশদ

12th  November, 2017
ভারতের স্বাস্থ্য পরিষেবা ব্যবস্থাকে আরও জনকল্যাণমুখী ও সংগঠিত করা প্রয়োজন
বরুণ গান্ধী

 এবারে আমার আলোচনার বিষয়বস্তু হল, আমাদের দেশের সামগ্রিক স্বাস্থ্য পরিষেবা নিয়ে। খুব বেশিদিন নয়, মাত্র মাসদুয়েক আগের কথা। গোরখপুরের বি আর ডি হাসপাতালে ৬০ জন ছোট ছেলে-মেয়ে পাঁচ দিনের মধ্যে প্রায় বিনা চিকিৎসায় মারা গেল। এর থেকে দুঃখের ঘটনা আর কিছু হয় না। খবরে প্রকাশ, প্রতিদিন এই হাসপাতালে গড়ে ২০০/২৫০ জন এনসেফ্যালাইটিস রোগে আক্রান্ত রোগী ভরতি হচ্ছিলেন। রোগীর এহেন ভিড়ে এখানকার চিকিৎসার পরিকাঠামো একরকম ভেঙে পড়ে। বিশদ

12th  November, 2017
একনজরে
নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ভারতীয় ব্যাটিংয়ের অন্যতম ভরসা চেতেশ্বর পূজারা বলেছেন, কাউন্টি ক্রিকেট খেলার সুবিধা পাচ্ছেন তিনি। তিনি এই প্রসঙ্গে আরও বলেন, ‘এই মরশুমে আমি আটটি কাউন্টি ম্যাচ খেলেছি। ফলে ইডেনের উইকেটে ব্যাট করতে খুব বেশি সমস্যা হয়নি। ...

 প্রসেনজিৎ কোলে, কলকাতা: একদিকে বিদ্যুৎ চুরি, অন্যদিকে ঝড়-বৃষ্টিতে তার ছিঁড়ে পরিষেবা ব্যাহত হওয়ার মতো ঘটনা এড়াতে এবার কোচবিহার এবং নবদ্বীপ শহরের গোটা বিদ্যুৎ বণ্টনের পরিকাঠামো ...

বিএনএ, কোচবিহার: পঞ্চায়েত নির্বাচনকে পাখির চোখ করে আজ, রবিবার থেকে আদাজল খেয়ে ময়দানে নামছে কোচবিহার জেলা বিজেপি। নভেম্বরের মধ্যেই তৃণমূল স্তরে সংগঠনের বুথস্তরের কমিটি তৈরির কাজ শেষ করে ভিতকে আরও মজবুত করার ব্যাপারে রাজ্য থেকে জেলাতে নির্দেশ পাঠানো হয়েছে। ...

সংবাদদাতা, রামপুরহাট: মাড়গ্রাম থানার কালিদহ গ্রামে শনিবার অগ্নিদগ্ধ হয়ে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। পুলিস জানিয়েছে, মৃতার নাম আফরোজা বিবি(২১)। শুক্রবার রাতে শ্বশুরবাড়িতে অগ্নিদগ্ধ হন আফরোজা। তাঁকে রামপুরহাট স্বাস্থ্য জেলা হাসপাতালে ভরতি করেন পরিবারের সদস্যরা। ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের বিষয় নির্বাচন সঠিক হওয়া দরকার। কর্মপ্রার্থীরা কোন শুভ সংবাদ পেতে পারেন। কারও সঙ্গে সম্পর্কহানি ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৩৮: সমাজ সংস্কারক কেশবচন্দ্র সেনের জন্ম
১৮৭৭: কবি করুণানিধান বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯১৭: ভারতের তৃতীয় প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর জন্ম
১৯২২: সঙ্গীতকার সলিল চৌধুরির জন্ম
১৯২৮: কুস্তিগীর ও অভিনেতা দারা সিংয়ের জন্ম
১৯৫১: অভিনেত্রী জিনাত আমনের জন্ম

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৪.০০ টাকা ৬৫.৬৮ টাকা
পাউন্ড ৮৪.৩২ টাকা ৮৭.১৯ টাকা
ইউরো ৭৫.২০ টাকা ৭৭.৮৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
18th  November, 2017
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩০,১৯৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৮,৬৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৯,০৮০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,২০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,৩০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৩ অগ্রহায়ণ, ১৯ নভেম্বর, রবিবার, প্রতিপদ রাত্রি ৭/১৫, নক্ষত্র-অনুরাধা রাত্রি ৯/৫৭, সূ উ ৫/৫৫/৪৩, অ ৪/৪৮/১৭, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৬/৪০ গতে ৮/৫০ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৪ গতে ২/৩৮ মধ্যে। রাত্রি ঘ ৭/২৩ গতে ৯/১১ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৯ গতে ১/৩৪ মধ্যে পুনঃ ২/২৭ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ১০/০ গতে ১২/৪০ মধ্যে, কালরাত্রি ১২/৫৯ গতে ২/৩৯ মধ্যে।
ইতু পূজা।
 
২ অগ্রহায়ণ, ১৯ নভেম্বর, রবিবার, প্রতিপদ রাত্রি ৫/৪৫/৪১, অনুরাধানক্ষত্র ৯/২৭/৫২, সূ উ ৫/৫৬/১২, অ ৪/৪৭/১৯, অমৃতযোগ দিবা ৬/৩৯/৩৬-৮/৪৯/৩৮, ১১/৪৩/০-২/৩৬/২১, রাত্রি ৭/২৫/৬-৯/১০/১৬, ১১/৪৮/৩-১/৩৩/১৪, ২/২৫/৫০-৫/৫৬/৫৮, বারবেলা ১০/০/২২-১১/২১/৪৫, কালবেলা ১১/২১/৪৫-১২/৪৩/৯, কালরাত্রি ৯/৪৩/১৩-১১/২১/৫৮।
ইতু পূজা।

২৯ শফর

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আই এস এল: নর্থইস্ট ইউনাইটেড :০ জামশেদপুর এফ সি :০
আজ গুয়াহাটির ইন্দিরা গান্ধী অ্যাথেলেটিক স্টেডিয়ামে আই এস এল-এ মুখোমুখি ...বিশদ

18-11-2017 - 10:04:08 PM

আই এস এল: নর্থইস্ট ইউনাইটেড :০ জামশেদপুর এফ সি :০ (প্রথমার্ধ)

18-11-2017 - 08:54:58 PM

 মিস ওয়ার্ল্ড ২০১৭ হলেন মনুষী ছিল্লর

18-11-2017 - 08:23:20 PM

আই এস এল: নর্থইস্ট ইউনাইটেড:০ জামশেদপুর এফ সি:০
আজ গুয়াহাটির ইন্দিরা গান্ধী অ্যাথেলেটিক স্টেডিয়ামে আই এস এল-এ মুখোমুখি ...বিশদ

18-11-2017 - 08:11:51 PM

ট্রেনের সময়সূচি বদল
ডাউন ট্রেন দেরিতে আসার জন্য

১২৩৩১ আপ হাওড়া-জাট ...বিশদ

18-11-2017 - 07:16:00 PM