বিশেষ নিবন্ধ
 

অনেক সংশয় আমাদের নিজেদের মধ্যেই, তাই এই স্পর্ধা সীমা ছাড়াচ্ছে

শাঁওলী মিত্র: আমরা বড় অদ্ভুত প্রাণী। আমাদের স্বভাবে বৈপরীত্যের কোনও সীমানা নেই। আমরা Social media ব্যবহার করি, smart phone, laptop, chat, internet ইত্যাদি ব্যাপারে আমরা খুবই আধুনিক। আবার বিপত্তারিণী পুজো, মানত, দরগা ইত্যাদি অন্ধ বিশ্বাসে আমরা মধ্যযুগীয়। অর্থাৎ বিজ্ঞান যতই উন্নতি করুক, যুক্তিনির্ভর করে তোলেনি মানুষকে। মানুষের ভিতরে এক অন্ধত্ব লালিত হচ্ছে অতি যত্নে।
আজ একটি ধর্মকে সামনে রেখে ভারতের ঐক্যকে ছারখার করে দেবার চেষ্টা করছে কিছু রাজনৈতিক গোষ্ঠী। আমরা, যারা যথেষ্ট সচেতন হয়ে উঠছি না, এর ভয়ংকরতায় তারাও কিন্তু সমানভাবে দায়ী। মানুষ যে মানুষ—একথা যদি ভুলে যাই তাহলে কি ‘মানুষ’ নামের যোগ্য থাকি আমরা? এই বিপদ আজকের নয়। যুগ যুগ ধরে লালন করেছি এ পাপ আমাদের মনের মধ্যে। ইংরেজ বিভেদ ঘটাতে সমর্থ হয়েছিল, কারণ আমাদের সংস্কারবিজড়িত মনকে তারা চালনা করতে পেরেছিল। আমরা যদি রুখে দাঁড়াতাম, তাহলে কি এমন বিভেদ ঘটত? রবীন্দ্রনাথের কথায়—‘আমার দেশ যদি ভারতবর্ষ হয়, তার মধ্যে হিন্দুও আছে, মুসলমানও আছে।’
মুসলিম আক্রমণ এবং সাম্রাজ্য বিস্তারের পর আজ কয়েক শতক পেরিয়ে গিয়েছে। আজ একুশ শতকের দ্বিতীয় দশকে দাঁড়িয়ে যখন ‘উচ্চজাত-ছোটজাত’, ‘হিন্দু-মুসলমান’ ইত্যাদি বিভেদের গণ্ডি টানা এত বাড়াবাড়ির পর্যায়ে পৌঁছায় তখন আশ্চর্য লাগে আমাদের। ‘গোরক্ষা’র নামে যে তাণ্ডব শুরু হয়েছে দেশজুড়ে, যেখানে সাধারণ গুন্ডার দল হাতে তুলে নিচ্ছে আইন, তা তারা পারছে কী করে? ক্ষমতার প্রচ্ছন্ন কিংবা সরাসরি প্রশ্রয় আছে বলেই তো! রাস্তা দিয়ে একজন গোরু নিয়ে যাচ্ছে, সে ধর্মে মুসলমান, অতএব তাকে মারো! একটি গ্রামের একজন দুধের ব্যবসায়ী—তার গাভি বার্ধক্যে গত হয়েছে—তাকে ভাগাড়ে ফেলা হয়েছে। এ তো কোনও নতুন ঘটনা নয়! বহু বছরের সামাজিক প্রথা। সে দুধ-ব্যবসায়ী ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসী বলেই কি এত ক্ষোভ হল যে তার বাড়ি পুড়িয়ে দিতে হল! মারের চোটে তাকে হাসপাতালে ভরতি হতে হল? তার গ্রামে তো এ নিয়ে কোনও ঝঞ্ঝাট ছিল না এতকাল। হিন্দু মুসলমান নির্বিশেষে তার কাছ থেকে দুধ কিনেছে।
যাঁরা মার খাচ্ছেন তাঁরা বলছেন, ‘এরা গ্রামের নয়। এরা বাইরের গুন্ডা।’—খবর এসেছে, উত্তরবঙ্গে ভিন্‌ প্রদেশের কিছু অপরিচিত মুখ দাঙ্গা বাধাবার চেষ্টায় প্রবেশ করেছে। এ-অনুপ্রবেশ ঘটল কী করে? তাহলে কি রক্ষকের ভূমিকায় যে প্রহরীরা আছেন তাঁরাও এই নিধনের ভূমিকায় বিশ্বাসী? এই হিংসাকে অধুনা ভয়ংকর ভাবে প্ররোচনা দেওয়া হচ্ছে। এই ভারতবর্ষকে হিন্দুরাজ্য বানানোর প্রয়াসে দাঙ্গাপ্রেমীদের তৎপরতা ধিক্কারের ভাষা জোগায় না।
অতীতের দিকে নজর দিলে আমরা দেখব, ধর্মীয় রাজনীতি আমাদের দেশে নতুন নয়। মুসলমান-ক্রিশ্চানের ‘ক্রুসেড’ও বিভীষিকা রচনা করেছে এ বিশ্বে অনেক যুগ আগেই। ভয়—এই বর্তমান সময়ে আমেরিকা থেকে শুরু করে বহু দেশ এই ভেদাভেদকে গুরুত্ব দিচ্ছেন বলে। দাড়ি, বিশেষ টুপি বা লুঙ্গি জাতীয় পোশাক দেখলেই তারা সন্দেহের গণ্ডিতে চলে আসবে। কে ঠিক করে দিল এই নীতি? যিশু? আল্লাহ্‌? তেত্রিশ কোটি? যাঁরা কুসংস্কার ত্যাগ করে আমাদের বাঁচতে শিখিয়েছেন তাঁরা কি এতই ব্রাত্য আমাদের সমাজে? তাঁদের মধ্যে অনেকেই মহাপুরুষের মর্যাদা পেয়েছেন। তাঁরা ধর্মবিভেদের বিষাক্ত পরিবেশ থেকে দূরে থাকতে শিখিয়েছেন দেশের মানুষকে। আজ তাঁদের অমান্য করে স্পর্ধা দেখাবার মতো সাহস আমাদের হল কী করে?
আমাদের নিজেদের মধ্যেই যে অনেক সংশয় আছে এবং সেই জন্যই যে এই স্পর্ধা সীমা ছাড়াচ্ছে তাতে কোনও সন্দেহ নেই আমার। এবং আমাদের অনেকেরই। একথা প্রথম টের পেয়েছিলাম বাবরি মসজিদ নিয়ে গোলমালের সময়ে। আমাদের শহরের শিক্ষিত সম্প্রদায়ের অনেকেই সেদিন মসজিদ ভাঙাকে সমর্থন করছেন দেখে অবাক মেনে ছিলাম। অবাক হয়ে দেখেছিলাম দাঙ্গা সংযত করতে শেষাবধি সক্ষম হলেও তদানীন্তন বামপন্থী সরকার বারোয়া঩রি পূজার সংখ্যা বাড়াতে দ্বিধা করেননি। আমাদের পূজনীয় সাহিত্য সৃষ্টিকারেরা তাকে সমর্থন করেছিলেন।
আর আমাদের কারওর কারওর স্মরণ থাকতে পারে এর পর থেকেই পাড়ায় শনি পুজো কীরকম বৃদ্ধি পেয়েছিল। স্মরণে থাকতে পারে ধর্মীয় উৎসবে লাউড স্পিকারের ব্যবহার কবে থেকে অবধারিত হয়ে উঠল। আমরা ভুলে গেলাম ঈশ্বর বা আল্লাহ্‌ ব঩ধির নন। মনে মনে তাঁর আরাধনা করলেও তাঁর শোনবার হলে তিনি শুনবেন। স্পিকারে পাড়া অতিষ্ঠ করে ফিল্মি গান বাজিয়ে নেশাগ্রস্ত হয়ে কোমর বাঁকিয়ে নৃত্য করলে তবে তিনি সন্তুষ্ট হবেন এমন কিন্তু নয়।
কী ভয়ংকর সেই অবস্থা যখন এই ভারতবর্ষ ‘হিন্দুর দেশ’ প্রমাণ করবার জন্য ‘হিন্দু’ নামের উৎসের অদ্ভুত ব্যাখ্যা শোনা যায় ক্ষমতার অলিন্দ থেকে। দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠের মুখে কিন্তু প্রতিবাদের ভাষা জোরালো হয়ে ওঠে না। কেউ বলেন না—‘হিন্দু’ শব্দের উৎপত্তির ইতিহাসটি একটু পড়ে দেখলে হয় না?—কে বলবে? কাকে বলবে? মধ্যবিত্তের সংসারে স্বকর্ণে আলোচনা শুনেছি—মুসলমানেরা এত সংখ্যায় সন্তানের জন্ম দিচ্ছে যে হিন্দুর সংখ্যা অচিরেই লুপ্ত হবে। আর সেই জন্যেই তারা শত্রুপক্ষ এমনই ভাব সবাকার। —এসব আলোচনা কাছের মানুষের মুখে শুনলে ধিক্কার দিতে ইচ্ছে করবে না?
স্বাধীনতার পূর্বে এবং পরে বিভেদ সৃষ্টিকারীরা ঘটিয়েছিল এই ভেদাভেদ। যার ফলে দেশবিভাগের সিদ্ধান্ত অনিবার্য হয়ে উঠল। এবং এই বিভাজনে যে কত মানুষের সর্বনাশ হল আজও বুঝি তার সঠিক গণনা হয়নি। তারপরে স্বাধীনতার পরে যখন নির্বাচন শুরু হল তখন একটি পাড়ায় সংখ্যাগরিষ্ঠ কোন ধর্মের তার বিচারে পাড়ায় প্রার্থী দাঁড় করানোই রীতি হয়ে উঠল। আমাদের সমাজও তো একেই ‘স্বাভাবিক নিয়ম’ হিসাবে স্বীকার করে নিয়েছে। আমরা যাকে civil society বলি, তাঁদের মধ্যে থেকে, আমার জ্ঞানে অন্তত, আমি কেউ এর প্রতিবাদ করেছেন বলে শুনিনি। বামপন্থীরাও তো ভোটে জেতার জন্য একই নিদান অনুসরণ করেছেন। শুরু থেকেই।
আজ, এই ২০১৭-তে, আমাদের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ‘দলিত’ পরিচয় ব্যবহার করে রাজনীতি ক্ষেত্রে লড়াই চলেছে। যিনি আমাদের রাষ্ট্রপ্রধান হবেন তাঁর পরিচয় কি কেবল তাঁর জন্মকুণ্ডলী অনুসরণ করে? তাঁর গুণাগুণের চেয়ে বেশি বিচার্য তাঁর জাতধর্ম? আজ সকলে এই ‘রাজনীতির খেল’ ঩নিয়ে হাসাহাসি করছেন! কই, কোনও বিদ্বজ্জন দৃঢ়স্বরে তো বলছেন না, পাণ্ডিত্য তথা প্রজ্ঞাকে অবজ্ঞা করে এ এক বড় নোংরা খেলা রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের? দেশের মানুষের এই পথে সায় আছে কি না তাও কি খেয়াল করা হচ্ছে? তাই লজ্জায় মাথা হেঁট হয়।
মুসলিম ধর্মাবলম্বী হলে যে একটি মানুষ তাঁর ইচ্ছানুসারে যে-কোনও পাড়ায় বসবাস করতে পারেন না, তাকে বাড়ি ভাড়া দেওয়া হয় না—এসব তো অনেক দিনের পাপ। আমাদের এই কলকাতা শহরেই। তাই স্বামী-স্ত্রী ভিন্ন ধর্মাবলম্বী হলে হোটেলে তাঁদের ঘরভাড়া দেওয়া হচ্ছে না—এ খবরে আমরা খুব চমকিত হই কি? উদার কলকাতাই কি দেখে আসেনি বছরের পর বছর অনুরূপ ছবি? নাগরিক অধিকার লঙ্ঘনের এই ছবি নিয়ে ক’জন প্রতিবাদ করেছি আমরা? তারই সুযোগ গ্রহণ করছে আজকের কট্টর পন্থীরা। যাঁরা সর্বধর্মকে সম্মান দেওয়ার চেষ্টা করছেন তাঁরা হয়ে উঠছেন আক্রমণের লক্ষ্য। তাঁরা ‘ভণ্ড’, ‘ন্যাকা’ এবং ‘বিধর্মী’! যাঁরা এসব কথা বলেন তাঁরা তবে প্রকাশ করুন সত্যিই ভারতবর্ষ নামক এই দেশটিকে তাঁরা কী উপায়ে সম্মান জানাতে চান।
এ নিবন্ধ যখন লেখা হচ্ছে তখন রাজ্য রাজনীতি এই বিষয় নিয়ে উত্তপ্ত। যখন এ লেখা প্রকাশিত হবে তখন ঘটনা কোন দিকে বাঁক নেবে আমরা জানি না। কোন কথার টিকেয় কোন চালে আগুন লাগাবে তা তো বুঝতে পারি না। তবে আমাদের জীবনযাপনে যে অন্ধকার বাস করছে তাকে আলোতে উদ্‌ঘা঩টিত করে নির্মূল করার কথাটি বোধহয় প্রাসঙ্গিক থেকেই যাবে।
13th  July, 2017
নিরপেক্ষতাই হল আইনসভার প্রাণ, কিন্তু তা রক্ষিত হচ্ছে কই?
বরুণ গান্ধী

 ১৯৭৫ সালের ঘটনা। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী পঞ্চম লোকসভার স্পিকার ড. জি এস ধীলনকে পদত্যাগ করার নির্দেশ দেন। অতঃপর ড. ধীলনকে কেন্দ্রের জাহাজ মন্ত্রী করা হল। এটি নজিরই সৃষ্টি করলেন ইন্দিরা গান্ধী। আর এই নজিরটি আ‌ইনসভার পরবর্তী উচ্চ পদাধিকারীদেরও রাজনৈতিক উচ্চাশাপূরণের কথা ভাববার অবকাশ এনে দিয়েছিল।
বিশদ

পদ্মাবতীর মুণ্ডচ্ছেদ ফতোয়া: অন্ধকারের শক্তিসাধনা আর কতদিন
মেরুনীল দাশগুপ্ত

সত্যের জন্য ইতিহাস পড়ো, আনন্দের জন্য আইভ্যানহো পড়ো। একটি প্রবন্ধে এমনই পরামর্শ দিয়েছিলেন রবীন্দ্রনাথ। অনেক বছর আগে, এক শতাব্দীরও বেশি আগে। ইতিহাসভিত্তিক উপন্যাস ও ইতিহাসের তফাৎ বোঝাতেই ছিল তাঁর এই পরামর্শ। তাতে উদাহরণ হিসেবে তিনি বিশ্ববিশ্রুত ঔপন্যাসিক স্যার ওয়াল্টার স্কটের ইতিহাসভিত্তিক উপন্যাস ‘আইভ্যানহো’র উল্লেখ করেছিলেন।
বিশদ

23rd  November, 2017
মুডিজের মুড—ভারতের ক্রেডিট রেটিংয়ের উত্তরণ
অতনু বিশ্বাস

২০১৫-র একদম শেষের হলিউড ম্যুভি ‘দ্য বিগ শর্ট’। অভিনয়ে রায়ান গোসলিং, ব্র্যাড পিট, ক্রিশ্চিয়ান বালে, স্টিভ ক্যারেল। অ্যাডাপ্টেড স্ক্রিন প্লে-র জন্যে অস্কারও পেয়েছিল ম্যুভিটি। নিউ ইয়র্ক টাইমস এই ম্যুভিটিকে বলেছে বিশ্বব্যাপী আর্থিক সংকটের সব চাইতে জোরদার ফিল্মি ব্যাখ্যা। তিনটি সহগামী গল্পকে এক সুতোয় বেঁধে ২০০৭-০৯-এর গৃহঋণ আর বন্ধক নিয়ে মার্কিন অর্থনীতিতে ধ্বস আর তার কার্য-কারণের বিশ্লেষণই এই ছবিটির প্রতিপাদ্য। আর সেই সঙ্গে মুডিজ, এস অ্যান্ড পি বা ফিচ-এর মতো ক্রেডিট রেটিং সংস্থাগুলি সম্পর্কে আমাদেরও হয়ে যায় এক সহজ পাঠ।
বিশদ

23rd  November, 2017
লুক ইস্ট থেকে অ্যাক্ট ইস্ট: কী পেলাম
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

২০১৪ সালে ক্ষমতায় এসে ওই বছরই ১২ নভেম্বর আসিয়ান-ভারত যৌথ সম্মেলনের বক্তৃতায় নরেন্দ্র মোদি উল্লেখ করেছিলেন দেশের অভ্যন্তরে অর্থনৈতিক বিকাশ, শিল্পায়ন এবং বাণিজ্যের ক্ষেত্রে যেমন নতুন জোয়ার এসেছে তেমনি ভারতের বিদেশনীতিতে ‘লুক ইস্ট’ পলিসি ‘অ্যাক্ট ইস্ট’ পলিসিতে রূপান্তরিত হয়েছে।
বিশদ

21st  November, 2017
বাংলার রসগোল্লা—মেড ইন চায়না
হারাধন চৌধুরী

আলী সাহেব বাঙালিকে শুনিয়েছিলেন তাঁর ঝান্ডুদার গল্প। পাঠক জানেন, ঝান্ডুদা মস্ত ব্যবসায়ী। যাচ্ছিলেন লন্ডন। বিলেতবাসী এক বন্ধুকন্যার জন্য সঙ্গে এনেছিলেন বাংলার টিনজাত কিছু রসগোল্লা। পথে ইতালির ভেনিস বন্দরে নামতে হয়। এরপর সেখানকার কাস্টমস অফিসে চেকিংয়ের সময় সেই কয়েক পাউন্ড রসগোল্লার জন্য যে আক্কেলগুড়ুম হবে তা তাঁর কল্পনায় ছিল না।
বিশদ

21st  November, 2017
গুম-নিখোঁজ ও পরমানন্দ মন্ত্রণালয়
সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়

বাংলাদেশে ‘লিট ফেস্ট’ শুরু ও শেষ হল। সেই কারণে কি না জানি না, অরুন্ধতী রায়ের দ্বিতীয় উপন্যাস ‘দ্য মিনিস্ট্রি অব আটমোস্ট হ্যাপিনেস’ হুট করে সংবাদপত্রে চর্চার কেন্দ্রে উঠে এল। এই মুহূর্তে বাংলাদেশের অত্যন্ত জনপ্রিয় সাহিত্যিক ও সাংবাদিক, আমার অতি ঘনিষ্ঠ ও প্রিয় আনিসুল হক এই উপন্যাসের বাংলা নাম দিয়েছেন ‘পরমানন্দ মন্ত্রণালয়’।
বিশদ

19th  November, 2017
লন্ডন, এডিনবরা এবং মমতা
শুভা দত্ত

দুর্গাপুজোর দিন যত এগিয়ে আসে, আনন্দটা তার সঙ্গে সমানুপাতিক হারে বাড়ে। এ আমাদের বাঙালি সংস্কৃতির চিরন্তন সত্য। আর মা দুর্গাকে ঘিরে সেই উৎসবের রামধনু রং ফিকে হতে শুরু করে নবমীর সন্ধ্যা থেকেই। আজ বাদে কাল দশমী। মায়ের ফিরে যাওয়ার পালা।
বিশদ

19th  November, 2017
চীনের প্রেসিডেন্ট বনাম ভারতের ডিফেন্স রিসার্চ
প্রশান্ত দাস

জিনপিং দেশের বিখ্যাত বিজ্ঞানীদের বললেন—আমাদের সমাজতন্ত্র দেশকে তরতর করে এগিয়ে নিয়ে চলেছে। এগিয়ে চলেছে আমাদের অর্থনীতি। কিন্তু গত পাঁচ বছরে আপনারা ক’টি অবিশ্বাস্য অস্ত্র দিতে পেরেছেন সেনাদের? ভারতের ডিআরডিও কী করে পৃথিবীতে দু’নম্বর রিসার্চ সেন্টার হল? কী নেই আপনাদের? যা যা চাই, তালিকা পাঠান। যতদিন না আমরা ডিআরডিও-কে ছাপিয়ে যেতে পারছি, ততদিন আমরা নিজেদের এশিয়ার মধ্যে এক নং বলতে পারব না।
বিশদ

18th  November, 2017
রাজ্যের লাইব্রেরিগুলিকে বাঁচাতেই হবে
পার্থজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়

মনে পড়ছে গত ডিসেম্বরের কথা। বীরভূম জেলার সরকারি বইমেলার আয়োজন হয়েছিল সিউড়িতে, ইরিগেশন কলোনির মাঠে। আমি উদ্বোধক, মঞ্চে জেলার মন্ত্রীরা, সঙ্গত কারণেই উপস্থিত ছিলেন গ্রন্থাগারমন্ত্রীও। মঞ্চে বসেই সিদ্দিকুল্লা চৌধুরীর সঙ্গে পরিচয়, আলাপচারিতা।
বিশদ

18th  November, 2017
মোদির আমলে শিশুদের খিদের যন্ত্রণা তীব্র, কারণ শিশু ও মহিলা উন্নয়নে গুরুত্ব কম
দেবনারায়ণ সরকার

কেন্দ্রীয় সরকারের গত ৩ বছরের বাজেটের তথ্য সার্বিকভাবে বিচার করলে দেখা যাচ্ছে কেন্দ্রীয় বাজেটে মোট ব্যয় যেখানে ২১ শতাংশের বেশি বেড়েছে (টাকার অঙ্কে অতিরিক্ত প্রায় ৩ লক্ষ ৫১ হাজার কোটি টাকা), সেখানে মহিলা ও শিশু উন্নয়নে ব্যয় কপর্দকও বাড়েনি, বরং প্রায় ১ শতাংশ কমেছে। একইভাবে মহিলা ও শিশু উন্নয়ন ব্যয় বাজেটের মোট ব্যয়ের ১ শতাংশের অনেক নীচে নেমেছে। মোদ্দা কথা হল, যে দেশের কেন্দ্রীয় বাজেটে মহিলা ও শিশু উন্নয়নের ব্যয় বাজেটে মোট ব্যয়ের ১ শতাংশেরও কম এবং এই ব্যয় মোদির জমানায় যেহেতু আরও কমছে, সেই দেশে রোজ রাতে খালি পেটে শুতে যাওয়া শিশুদের সংখ্যা ক্রমশ বৃদ্ধিটাই স্বাভাবিক। তাই ভারতে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে অপুষ্টিও।
বিশদ

17th  November, 2017
ডেঙ্গু: রাজনীতি ছেড়ে হাত মিলিয়ে কাজের সময়
অনিরুদ্ধ কর

অবিলম্বে একটা স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিওর বা নিয়মাবলী প্রকাশ করতে হবে সরকারের তরফে। সরকারি নির্দেশ মানতে বাধ্য সকল সরকারি বেসরকারি ও প্রাইভেট চিকিৎসা কেন্দ্র। অতীতের দিকে নজর দিলে দেখা যাবে বার্ড ফ্লু বা সোয়াইন ফ্লু-র সময় সরকারের তরফে এমন নিয়মাবলী প্রকাশ করা হয়েছিল। চিকিৎসাব্যবস্থায় কী কী থাকতে হবে এবং কোথায় থাকবে তাও বলে দেওয়া হয়েছিল। ফ্লু-র ওষুধ একমাত্র সরকার দিত। খোলাবাজারে মিলত না সেই ওষুধ। কারণ সেক্ষেত্রে ওষুধ নিয়ে কালোবাজারি এবং চড়া দামে ওষুধ বিক্রি হওয়ার আশঙ্কা থেকে যেত। এছাড়া একটি রাজ্যস্তরের কমিটি ছিল পর্যালোচনার জন্য।
বিশদ

17th  November, 2017
প্যারিস, পরিবেশ এবং উচ্চাকাঙ্ক্ষী ভারত
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 পরিবেশ মানে হল যেখানে সেখানে থুতু না ফেলা। মন্তব্যটি আমারই এক ঘনিষ্ঠ বন্ধুর। এবং কী ভয়ঙ্কর সাবলীল স্বীকারোক্তি। যে দেশে ৩০ কোটি মানুষ এখনও দারিদ্রসীমার নীচে বসবাস করেন, যেখানে সাক্ষরতা বলতে বোঝানো হয় নিজের নাম সই করতে পারা, সেখানে সচেতনতার প্রাথমিক পাঠটা এমন একটা মন্তব্য দিয়ে শুরু করলে মন্দ কী!
বিশদ

16th  November, 2017
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: লেবার ওয়েলফেয়ার ফান্ডে অনুদান কমবেশি করতে আর আইন পরিবর্তনের দরকার নেই। এই তহবিল পরিচালনার দায়িত্ব থাকা লেবার ওয়েলফেয়ার বোর্ডই সরাসরি সিদ্ধান্ত নিতে পারবে। বৃহস্পতিবার বিরোধীশূন্য বিধানসভায় এ সংক্রান্ত সংশোধনী পাশ হয়ে গেল। ...

 মুম্বই, ২৩ নভেম্বর (পিটিআই): লিঙ্গ পরিবর্তনের জন্য ছুটির দরখাস্ত নিয়ে বম্বে হাইকোর্টে আবেদন করলেন ২৮ বছরের এক মহিলা কনস্টেবল। তাঁর আবেদন, লিঙ্গ পরিবর্তনের জন্য মহারাষ্ট্র পুলিশের ডিরেক্টর জেনারেলকে ছুটি মঞ্জুর করার নির্দেশ দিক আদালত। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: প্রতারণার ঘটনায় ধৃত বিএসএনএলের মহিলা ইঞ্জিনিয়ার। কলকাতার একটি বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ভরতি করিয়ে দেওয়ার নাম করে ২০ লক্ষ টাকা প্রতারণার অভিযোগে বুধবার যাদবপুর থানার পুলিশ অভিযুক্ত মহুয়া চক্রবর্তীকে গ্রেপ্তার করেছে। ...

নাগপুর, ২৩ নভেম্বর: দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের প্রস্তুতির জন্য পর্যাপ্ত সময় না পেয়ে বিসিসিআইয়ের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। তিনি বলেছেন, ‘শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

গুপ্ত শত্রুতা বৃদ্ধি। কর্মে উন্নতি। ব্যবসায় অতিরিক্ত সতর্কতার প্রয়োজন। উচ্চশিক্ষায় সাফল্য। শরীর-স্বাস্থ্য ভালো যাবে। প্রতিকার: ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৫৯: চার্লস ডারউইনের লেখা ‘অন দ্য অরিজিন অব স্পিসিস’ প্রকাশিত হল।
১৮৮৮: মার্কিন সাহিত্যিক ডেল কার্নেগির জন্ম
১৯৫৫: ইংল্যান্ডের ক্রিকেটার ‌ইয়ান বথামের জন্ম
১৯৬১: লেখিকা এবং সমাজকর্মী অরুন্ধতী রায়ের জন্ম।

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৪.০০ টাকা ৬৫.৬৮ টাকা
পাউন্ড ৮৪.৯৬ টাকা ৮৭.৮৫ টাকা
ইউরো ৭৫.৩৬ টাকা ৭৮.০০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ২৯,৯৬০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৮,৪২৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৮,৮৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৯,৭০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৯,৮০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৮ অগ্রহায়ণ, ২৪ নভেম্বর, শুক্রবার, ষষ্ঠী অহোরাত্র, নক্ষত্র-উত্তরষা‌ঢ়া দিবা ১০/৩, সূ উ ৫/৫৯/৫, অ ৪/৪৭/২৭, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৬/৪১ মধ্যে পুনঃ ৭/২৪ গতে ৯/৩৫ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৪ গতে ২/৩৮ মধ্যে পুনঃ ৩/২১ গতে অস্তাবধি, রাত্রি ঘ ৫/৪০ গতে ৯/১১ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৯ গতে ৩/২০ মধ্যে পুনঃ ৪/১৪ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৮/৪১ গতে ১১/২৩ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৫ গতে ৯/৪৪ মধ্যে।
৭ অগ্রহায়ণ, ২৪ নভেম্বর, শুক্রবার, ষষ্ঠী রাত্রি ৩/৩৭/৪১, উত্তরষা‌ঢ়ানক্ষত্র ৭/৩১/৩৪, সূ উ ৬/০/১৩, অ ৪/৪৫/৪৯, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৬/৪৩/১৫ মধ্যে, ৭/২৬/১৭-৯/৩৫/২৫, ১১/৪৫/৩২-২/৩৭/৪২, ৩/২০/৪৫-৪/৪৫/৪৯, রাত্রি ৫/৩৮/৪৭-৯/১০/৩৭, ১১/৪৯/৩০-৩/২১/২০, ৪/১৪/১৮-৬/০/৪৫, বারবেলা ৮/৪১/৩৭-১০/২/১৯, কালবেলা ১০/২/১৯-১১/২৩/১, কালরাত্রি ৮/৪/২৫-৯/৪৩/৪৩।
 ৪ রবিঃ আউঃ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
  আইএসএলে আজ চেন্নাইয়ান এফসি ৩ : ০ গোলে হারাল নর্থইস্ট ইউনাইটেডকে

23-11-2017 - 10:01:16 PM

  আইএসএল: চেন্নাইয়ান এফসি:৩ নর্থইস্ট ইউনাইটেড: ০ (৮৪ মিনিট)

23-11-2017 - 09:50:28 PM

 আইএসএল: চেন্নাইয়ান এফসি:২ নর্থইস্ট ইউনাইটেড: ০ ( ৩৫ মিনিট)

23-11-2017 - 08:42:04 PM

সৌরভের বাড়িতে মশার আঁতুড়ঘর, আজ নোটিস দেবে পুরসভা

সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের বাড়িতেই সন্ধান মিলল ডেঙ্গু বাহক মশার আঁতুড়ঘরের। আগামীকাল ...বিশদ

23-11-2017 - 07:09:00 PM

ভদ্রেশ্বর পুরপ্রধান খুন: এবার নাম জড়াল নির্দল কাউন্সিলার রাজু সাউয়ের 

ভদ্রেশ্বরে পুরপ্রধান মনোজ উপাধ্যায়ের মৃত্যুর ঘটনায় এবার নাম জড়াল নির্দল ...বিশদ

23-11-2017 - 05:42:00 PM