বিশেষ নিবন্ধ
 

রাজ্যপাল পদে দলীয় নেতা পাঠানো বন্ধ হোক
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

বাদুড়িয়া কাণ্ডে প্রশাসনিক ভূমিকা নিয়ে রাজভবন এবং নবান্নের মধ্যে সংঘাত যে স্তরে পৌঁছেছিল, রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠী সুর নরম করে রাজ্য সরকারের উদ্যোগে খুশি প্রকাশ করার মধ্য দিয়ে আপাতত মুখ্যমন্ত্রী ও রাজ্যপালের বিতর্কের মধুরেণ সমাপয়েৎ হল বলা চলে। এই বিতর্ক পর্বে রাজ্যপালের ভূমিকা নিয়ে নতুন করে বিরূপ প্রশ্ন উঠেছে। আজকের পরিপ্রেক্ষিতে রাজ্যপাল পদের প্রয়োজন-অপ্রয়োজনের বিষয়টি নতুন করে পর্যালোচনা করা যায়।
ভারতীয় সংবিধানে কেন্দ্রের মতো রাজ্যস্তরেও সংসদীয় ব্যবস্থা গড়ে উঠেছে, যা প্রকৃতপক্ষে ব্রিটেনের সংসদীয় ব্যবস্থার অনুকরণ মাত্র। সংসদীয় ব্যবস্থায় সংবিধান প্রধানের নামে রাজ্য শাসনের কথা বলা হলেও রাজ্যস্তরে মুখ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে মন্ত্রীপরিষদই চূড়ান্ত ক্ষমতার অধিকারী। তাই বলে রাজ্যপালের কি মুখ্যমন্ত্রীকে কোনও পরামর্শ দেওয়ার অধিকার নেই? তিনি কি পারেন না রাজ্য সরকারের থেকে প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করতে? তিনি কি প্রয়োজনে রাজ্যের অভিভাবক হিসাবে সরকারকে সাবধানী হওয়ার জন্য পরামর্শ দিতে পারেন না?
গত কয়েক দিন এই প্রশ্নগুলিই সংবাদমাধ্যমে ঘুরেফিরে এসেছে বারবার। বহু ক্ষেত্রেই উপযুক্ত সংবিধান অনুধাবনের অভাবে কেউ কেউ বিভ্রান্তিও ছড়িয়েছেন। প্রকৃতপক্ষে রাজ্যপাল সাংবিধানিক প্রধান হিসাবে যে-কোনও বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর মন্ত্রিপরিষদকে পরামর্শ দিতে পারেন। তবে, সেই পরামর্শ মুখ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বের মন্ত্রিপরিষদ নেবে কি না সেই বিষয়ে চূড়ান্ত ক্ষমতা মন্ত্রিপরিষদের হাতেই রয়েছে। অর্থাৎ, বাদুড়িয়া কাণ্ডে রাজ্যপাল যদি কোনও পরামর্শ মুখ্যমন্ত্রীকে দিয়ে থাকেন, তবে সেই পরামর্শ মুখ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে মন্ত্রিপরিষদ নেবে কি না তা একান্ত তাদের বিষয়।
সংবিধান অনুসারে কেন্দ্রের প্রতিনিধি হিসাবে রাজ্যপালকে রাজ্যের বিষয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকে পাক্ষিক রিপোর্ট পাঠাতে হয়। ওই রিপোর্টে তৈরি করার সময় মুখ্যমন্ত্রী বা তাঁর মন্ত্রিপরিষদের যে-কোনও সদস্যের সঙ্গে তিনি কথা বলতে পারেন বা তথ্য সংগ্রহ করতে পারেন।
রাজ্যের অভিভাবক হিসাবে সমাজের বিভিন্ন অংশের সঙ্গে রাজ্যপালের যে সম্পর্ক থাকে, সেই সূত্রে কোনও বিষয় এলে তা সরকারের কানে পৌঁছে দেওয়া, গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সরকারকে প্রয়োজনে সাবধান করার ভূমিকা তাঁর রয়েছে। তবে এক্ষেত্রেও সাবধান বাণী মন্ত্রিপরিষদ গ্রহণ অথবা বর্জন করতে পারে। রাজ্যপালের পরামর্শ গ্রহণ করা মন্ত্রিপরিষদের কাছে বাধ্যতামূলক নয়।
চলতি বিতর্কে রাজ্যের পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় রাজ্যপালকে কটাক্ষ করে বলেছিলেন ‘রাজ্যপাল বিজেপির তোতা পাখি’। সুব্রতবাবুর বক্তব্যের রাজনৈতিক তাৎপর্য রয়েছে। আর এই কারণেই রাজ্যের সাংবিধানিক পদ নিয়ে স্বাধীনতার পর থেকে বারবার বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। উত্তরপ্রদেশের রাজ্যপাল ছিলেন সরোজিনী নাইডু। তিনি দুঃখ করে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুকে একটি চিঠিতে অভিযোগ করেছিলেন, রাজ্যপালের অবস্থা অনেকটা ‘সোনার খাঁচায় আবদ্ধ পাখির মতো’। তাঁর আরও অভিমত ছিল, কেন্দ্রকে একটি করে পাক্ষিক রিপোর্ট পাঠানো ছাড়া রাজ্যপালের কোনও কাজই নেই। রাজ্যপালের এইরকম পরিস্থিতি ১৯৬৭ সালের পর দ্রুত পরিবর্তন হতে দেখা যায়। ১৯৬৭ সালের নির্বাচনে কয়েকটি রাজ্যে অকংগ্রেসি সরকার প্রতিষ্ঠা হয়। তখন রাজ্যপালের ভূমিকায় কেন্দ্রের শাসক দলের রাজনৈতিক প্রভাব বারবার লক্ষ করা গিয়েছে। বিভিন্ন সময় রাজ্যপালের পদটিকে ব্যবহার করা হয়েছে রাজনৈতিক স্বার্থ সিদ্ধির জন্য।
সংবিধান অনুসারে রাজ্যপালের মূলত দুটি ভূমিকা—
(ক) রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধান এবং (খ) কেন্দ্রের প্রতিনিধি। রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধান হিসাবে রাজ্যপালের ভূমিকা সংবিধানে যেমন নির্দিষ্ট করে বলা হয়েছে তেমনি উদ্ভূত রাজনৈতিক পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে তিনি স্ববিবেচনায় কাজ করতে পারেন। সংবিধানে বিধিবদ্ধ ক্ষমতার মধ্যে ১৬৩ ধারায় স্বেচ্ছাধীন ক্ষমতাকেও (Discretionary Power) সংবিধানে নির্দিষ্ট করে উল্লেখ করা হয়েছে। তবে সাংবিধানিক প্রধান হিসাবে স্ববিবেচনায় কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়ার সুযোগ পান তিনি। বিধানসভা নির্বাচনের মধ্য দিয়ে কোনও রাজনৈতিক দল বা জোট এককভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে ব্যর্থ হলে রাজ্যপাল সেক্ষেত্রে স্ববিবেচনায় ঠিক করেন কোন দল বা জোটকে মন্ত্রিসভা গঠনের জন্য তিনি ডাকবেন। আবার রাজ্যের বিধানসভায় কোনও বিল পাশ হওয়ার পর তিনি স্ববিবেচনা প্রয়োগ করতে পারেন। এক্ষেত্রে তিনি তিন ধরনের অবস্থান গ্রহণ করতে পারেন।
(ক) বিধানসভায় পাশ হওয়া বিল তৎক্ষণাৎ সই করতে পারেন। (খ) বিধানসভায় পাশ হওয়া বিল সই না করে ফেলে রাখতে পারেন। কারণ, সংবিধানে বলা হয়নি বিল পাশ হওয়ার পর কতদিনের মধ্যে রাজ্যপালকে সম্মতি জ্ঞাপন করতে হবে। (গ) সংবিধানের ২০১ ধারা অনুসারে রাজ্যপাল আইনসভায় গৃহীত বিলটিকে রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের জন্য সংরক্ষণ করতে পারেন। এক্ষেত্রে তিনি রাজ্যের মন্ত্রিসভার পরামর্শ গ্রহণ না-করে স্ববিবেচনা অনুসারে কাজ করতে পারেন।
এছাড়া কেন্দ্রকে যে রিপোর্ট তিনি পাঠান সেই রিপোর্টও স্ববিবেচনায় পাঠিয়ে থাকেন। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, কেন্দ্রের সাংবিধানিক প্রধান হিসাবে রাষ্ট্রপতির ক্ষমতা ৪২তম সংবিধান সংশোধনের মাধ্যমে যেভাবে বেঁধে দেওয়া হয়েছে, রাজ্যপালের নিয়মতান্ত্রিক ক্ষমতাটিকে কিন্তু সেভাবে বাঁধা হয়নি। ৪২তম সংবিধান সংশোধনীর মাধ্যমে স্পষ্ট বলা হয়েছে, রাষ্ট্রপতি মন্ত্রিপরিষদের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার জন্য অনুরোধ করতে পারেন। কিন্তু দ্বিতীয়বার একই সিদ্ধান্ত এলে তিনি তা মেনে নিতে বাধ্য। সংবিধানে ক্ষেত্রবিশেষ রাজ্যপালদের স্বেচ্ছাধীন ক্ষমতা দিলেও রাষ্ট্রপতিকে কিন্তু সামান্যতম স্বেচ্ছাধীন ক্ষমতা দেওয়া হয়নি। কিন্তু, কেন্দ্র এবং রাজ্য উভয় ক্ষেত্রে প্রকৃত ক্ষমতা নির্বাচিত মন্ত্রিপরিষদের হাতে ন্যস্ত। প্রকৃতপক্ষে যে পদ্ধতিতে রাজ্যপাল পদে নিয়োগ হচ্ছে তার মধ্যেই লুকিয়ে আছে রাজ্যপাল এবং মুখ্যমন্ত্রীর সম্পর্কের বিতর্ক। অভিজ্ঞতার নিরিখে বলা যায়, সমস্ত ক্ষেত্রে রাজ্যপালের নিয়োগ রাজনৈতিক সিদ্ধান্তের ফল।
প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সংবিধান সভায় আমাদের তৎকালীন জাতীয় নেতৃবর্গ রাজ্যপাল নিয়োগের প্রশ্নে কিন্তু বিভক্ত ছিলেন। সংবিধান সভায় রাজ্যপাল নিয়োগের প্রশ্নে চার ধরনের প্রস্তাব এসেছিল—(ক) মার্কিন ব্যবস্থার অনুকরণে রাজ্যপালকে প্রত্যক্ষভাবে নির্বাচিত করা। (খ) রাজ্যের বিধানমণ্ডলী বা বিধানসভার দ্বারা রাজ্যপালকে নির্বাচিত করা। (গ) সংবিধান সভায় কেউ কেউ আবার বলেছিলেন বিধানসভা কর্তৃক নির্বাচিত চারজনের তালিকার মধ্যে থেকে রাষ্ট্রপতি একজনকে রাজ্যপাল হিসাবে মনোনীত করুন। (ঘ) মন্ত্রিসভার পরামর্শ অনুসারেই রাষ্ট্রপতি কর্তৃক রাজ্যপাল মনোনীত হবেন।
বলা বাহুল্য, সংবিধান সভার শেষ প্রস্তাবটি গৃহীত হয়েছিল। এতে চিরস্থায়ীভাবে ভারতীয় সংসদীয় ব্যবস্থায় রাজ্যপালের ভূমিকাকে কেন্দ্র করে বিতর্কও থেকে যায়।
ক্রমবর্ধমানভাবে রাজ্যপালের ভূমিকা যখন রাজনৈতিক প্রাধান্য পাচ্ছিল সেই সময়ে রাজ্যপাল পদে নিয়োগ নিয়ে নতুন ভাবনা উঠে আসতে দেখা গিয়েছে। ১৯৯১-এর ডিসেম্বরে আন্তঃরাজ্য পরিষদের বৈঠকে রাজ্যপাল নিয়োগের প্রশ্নে যেসব উল্লেখযোগ্য প্রস্তাব গৃহীত হয় তার মধ্যে ছিল—(ক) মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে আলোচনা সাপেক্ষে রাজ্যপাল নিয়োগ করতে হবে। (খ) কেন্দ্র এবং রাজ্যে পৃথক দলের সরকার থাকলে সংশ্লিষ্ট দুটি দলের সঙ্গে সম্পর্কহীন ব্যক্তিকে রাজ্যপাল পদে আনতে হবে।
১৯৯৪ সালে এস আর বোম্মাই মামলার পর কেন্দ্রের শাসকদল রাজ্যপালকে দিয়ে মন্ত্রিসভা ভাঙার বিষয়ে সংযত হতে বাধ্য হয়েছে। সংবিধানের ৩৫৬ নং ধারা জারি করে মন্ত্রিপরিষদ ভাঙার ঘটনাও এখন কদাচিৎ ঘটে। এই অবস্থায় দলীয় নেতাদের রাজভবনে পাঠানোর উদ্যোগ বন্ধ হলেই রাজ্যপাল এবং রাজ্য মন্ত্রিসভার দ্বন্দ্ব আরও কমে আসার সম্ভাবনা থাকবে। রাজ্যপাল নিয়োগের জন্য বিধানসভায় পাঁচজনের একটি তালিকা প্রস্তুত করে রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানো যেতে পারে। রাষ্ট্রপতি ওই তালিকা থেকে সংশ্লিষ্ট রাজ্যের জন্য রাজ্যপাল নিয়োগ করতে পারেন। সংসদীয় গণতন্ত্রকে সুচারুভাবে পরিচালনার জন্য রাজ্যপালের নিয়োগের পদ্ধতিতে পরিবর্তন জরুরি। বন্ধ হোক দলীয় নেতাকে রাজভবনে পাঠানোর দীর্ঘদিনের প্রথা। সংবিধান রচয়িতাদের ভাবনা অনুসারে রাজ্যপাল পদে অরাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের উপস্থিতিই কাম্য।
 লেখক রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক
11th  July, 2017
নিরপেক্ষতাই হল আইনসভার প্রাণ, কিন্তু তা রক্ষিত হচ্ছে কই?
বরুণ গান্ধী

 ১৯৭৫ সালের ঘটনা। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী পঞ্চম লোকসভার স্পিকার ড. জি এস ধীলনকে পদত্যাগ করার নির্দেশ দেন। অতঃপর ড. ধীলনকে কেন্দ্রের জাহাজ মন্ত্রী করা হল। এটি নজিরই সৃষ্টি করলেন ইন্দিরা গান্ধী। আর এই নজিরটি আ‌ইনসভার পরবর্তী উচ্চ পদাধিকারীদেরও রাজনৈতিক উচ্চাশাপূরণের কথা ভাববার অবকাশ এনে দিয়েছিল।
বিশদ

পদ্মাবতীর মুণ্ডচ্ছেদ ফতোয়া: অন্ধকারের শক্তিসাধনা আর কতদিন
মেরুনীল দাশগুপ্ত

সত্যের জন্য ইতিহাস পড়ো, আনন্দের জন্য আইভ্যানহো পড়ো। একটি প্রবন্ধে এমনই পরামর্শ দিয়েছিলেন রবীন্দ্রনাথ। অনেক বছর আগে, এক শতাব্দীরও বেশি আগে। ইতিহাসভিত্তিক উপন্যাস ও ইতিহাসের তফাৎ বোঝাতেই ছিল তাঁর এই পরামর্শ। তাতে উদাহরণ হিসেবে তিনি বিশ্ববিশ্রুত ঔপন্যাসিক স্যার ওয়াল্টার স্কটের ইতিহাসভিত্তিক উপন্যাস ‘আইভ্যানহো’র উল্লেখ করেছিলেন।
বিশদ

23rd  November, 2017
মুডিজের মুড—ভারতের ক্রেডিট রেটিংয়ের উত্তরণ
অতনু বিশ্বাস

২০১৫-র একদম শেষের হলিউড ম্যুভি ‘দ্য বিগ শর্ট’। অভিনয়ে রায়ান গোসলিং, ব্র্যাড পিট, ক্রিশ্চিয়ান বালে, স্টিভ ক্যারেল। অ্যাডাপ্টেড স্ক্রিন প্লে-র জন্যে অস্কারও পেয়েছিল ম্যুভিটি। নিউ ইয়র্ক টাইমস এই ম্যুভিটিকে বলেছে বিশ্বব্যাপী আর্থিক সংকটের সব চাইতে জোরদার ফিল্মি ব্যাখ্যা। তিনটি সহগামী গল্পকে এক সুতোয় বেঁধে ২০০৭-০৯-এর গৃহঋণ আর বন্ধক নিয়ে মার্কিন অর্থনীতিতে ধ্বস আর তার কার্য-কারণের বিশ্লেষণই এই ছবিটির প্রতিপাদ্য। আর সেই সঙ্গে মুডিজ, এস অ্যান্ড পি বা ফিচ-এর মতো ক্রেডিট রেটিং সংস্থাগুলি সম্পর্কে আমাদেরও হয়ে যায় এক সহজ পাঠ।
বিশদ

23rd  November, 2017
লুক ইস্ট থেকে অ্যাক্ট ইস্ট: কী পেলাম
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

২০১৪ সালে ক্ষমতায় এসে ওই বছরই ১২ নভেম্বর আসিয়ান-ভারত যৌথ সম্মেলনের বক্তৃতায় নরেন্দ্র মোদি উল্লেখ করেছিলেন দেশের অভ্যন্তরে অর্থনৈতিক বিকাশ, শিল্পায়ন এবং বাণিজ্যের ক্ষেত্রে যেমন নতুন জোয়ার এসেছে তেমনি ভারতের বিদেশনীতিতে ‘লুক ইস্ট’ পলিসি ‘অ্যাক্ট ইস্ট’ পলিসিতে রূপান্তরিত হয়েছে।
বিশদ

21st  November, 2017
বাংলার রসগোল্লা—মেড ইন চায়না
হারাধন চৌধুরী

আলী সাহেব বাঙালিকে শুনিয়েছিলেন তাঁর ঝান্ডুদার গল্প। পাঠক জানেন, ঝান্ডুদা মস্ত ব্যবসায়ী। যাচ্ছিলেন লন্ডন। বিলেতবাসী এক বন্ধুকন্যার জন্য সঙ্গে এনেছিলেন বাংলার টিনজাত কিছু রসগোল্লা। পথে ইতালির ভেনিস বন্দরে নামতে হয়। এরপর সেখানকার কাস্টমস অফিসে চেকিংয়ের সময় সেই কয়েক পাউন্ড রসগোল্লার জন্য যে আক্কেলগুড়ুম হবে তা তাঁর কল্পনায় ছিল না।
বিশদ

21st  November, 2017
গুম-নিখোঁজ ও পরমানন্দ মন্ত্রণালয়
সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়

বাংলাদেশে ‘লিট ফেস্ট’ শুরু ও শেষ হল। সেই কারণে কি না জানি না, অরুন্ধতী রায়ের দ্বিতীয় উপন্যাস ‘দ্য মিনিস্ট্রি অব আটমোস্ট হ্যাপিনেস’ হুট করে সংবাদপত্রে চর্চার কেন্দ্রে উঠে এল। এই মুহূর্তে বাংলাদেশের অত্যন্ত জনপ্রিয় সাহিত্যিক ও সাংবাদিক, আমার অতি ঘনিষ্ঠ ও প্রিয় আনিসুল হক এই উপন্যাসের বাংলা নাম দিয়েছেন ‘পরমানন্দ মন্ত্রণালয়’।
বিশদ

19th  November, 2017
লন্ডন, এডিনবরা এবং মমতা
শুভা দত্ত

দুর্গাপুজোর দিন যত এগিয়ে আসে, আনন্দটা তার সঙ্গে সমানুপাতিক হারে বাড়ে। এ আমাদের বাঙালি সংস্কৃতির চিরন্তন সত্য। আর মা দুর্গাকে ঘিরে সেই উৎসবের রামধনু রং ফিকে হতে শুরু করে নবমীর সন্ধ্যা থেকেই। আজ বাদে কাল দশমী। মায়ের ফিরে যাওয়ার পালা।
বিশদ

19th  November, 2017
চীনের প্রেসিডেন্ট বনাম ভারতের ডিফেন্স রিসার্চ
প্রশান্ত দাস

জিনপিং দেশের বিখ্যাত বিজ্ঞানীদের বললেন—আমাদের সমাজতন্ত্র দেশকে তরতর করে এগিয়ে নিয়ে চলেছে। এগিয়ে চলেছে আমাদের অর্থনীতি। কিন্তু গত পাঁচ বছরে আপনারা ক’টি অবিশ্বাস্য অস্ত্র দিতে পেরেছেন সেনাদের? ভারতের ডিআরডিও কী করে পৃথিবীতে দু’নম্বর রিসার্চ সেন্টার হল? কী নেই আপনাদের? যা যা চাই, তালিকা পাঠান। যতদিন না আমরা ডিআরডিও-কে ছাপিয়ে যেতে পারছি, ততদিন আমরা নিজেদের এশিয়ার মধ্যে এক নং বলতে পারব না।
বিশদ

18th  November, 2017
রাজ্যের লাইব্রেরিগুলিকে বাঁচাতেই হবে
পার্থজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়

মনে পড়ছে গত ডিসেম্বরের কথা। বীরভূম জেলার সরকারি বইমেলার আয়োজন হয়েছিল সিউড়িতে, ইরিগেশন কলোনির মাঠে। আমি উদ্বোধক, মঞ্চে জেলার মন্ত্রীরা, সঙ্গত কারণেই উপস্থিত ছিলেন গ্রন্থাগারমন্ত্রীও। মঞ্চে বসেই সিদ্দিকুল্লা চৌধুরীর সঙ্গে পরিচয়, আলাপচারিতা।
বিশদ

18th  November, 2017
মোদির আমলে শিশুদের খিদের যন্ত্রণা তীব্র, কারণ শিশু ও মহিলা উন্নয়নে গুরুত্ব কম
দেবনারায়ণ সরকার

কেন্দ্রীয় সরকারের গত ৩ বছরের বাজেটের তথ্য সার্বিকভাবে বিচার করলে দেখা যাচ্ছে কেন্দ্রীয় বাজেটে মোট ব্যয় যেখানে ২১ শতাংশের বেশি বেড়েছে (টাকার অঙ্কে অতিরিক্ত প্রায় ৩ লক্ষ ৫১ হাজার কোটি টাকা), সেখানে মহিলা ও শিশু উন্নয়নে ব্যয় কপর্দকও বাড়েনি, বরং প্রায় ১ শতাংশ কমেছে। একইভাবে মহিলা ও শিশু উন্নয়ন ব্যয় বাজেটের মোট ব্যয়ের ১ শতাংশের অনেক নীচে নেমেছে। মোদ্দা কথা হল, যে দেশের কেন্দ্রীয় বাজেটে মহিলা ও শিশু উন্নয়নের ব্যয় বাজেটে মোট ব্যয়ের ১ শতাংশেরও কম এবং এই ব্যয় মোদির জমানায় যেহেতু আরও কমছে, সেই দেশে রোজ রাতে খালি পেটে শুতে যাওয়া শিশুদের সংখ্যা ক্রমশ বৃদ্ধিটাই স্বাভাবিক। তাই ভারতে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে অপুষ্টিও।
বিশদ

17th  November, 2017
ডেঙ্গু: রাজনীতি ছেড়ে হাত মিলিয়ে কাজের সময়
অনিরুদ্ধ কর

অবিলম্বে একটা স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিওর বা নিয়মাবলী প্রকাশ করতে হবে সরকারের তরফে। সরকারি নির্দেশ মানতে বাধ্য সকল সরকারি বেসরকারি ও প্রাইভেট চিকিৎসা কেন্দ্র। অতীতের দিকে নজর দিলে দেখা যাবে বার্ড ফ্লু বা সোয়াইন ফ্লু-র সময় সরকারের তরফে এমন নিয়মাবলী প্রকাশ করা হয়েছিল। চিকিৎসাব্যবস্থায় কী কী থাকতে হবে এবং কোথায় থাকবে তাও বলে দেওয়া হয়েছিল। ফ্লু-র ওষুধ একমাত্র সরকার দিত। খোলাবাজারে মিলত না সেই ওষুধ। কারণ সেক্ষেত্রে ওষুধ নিয়ে কালোবাজারি এবং চড়া দামে ওষুধ বিক্রি হওয়ার আশঙ্কা থেকে যেত। এছাড়া একটি রাজ্যস্তরের কমিটি ছিল পর্যালোচনার জন্য।
বিশদ

17th  November, 2017
প্যারিস, পরিবেশ এবং উচ্চাকাঙ্ক্ষী ভারত
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 পরিবেশ মানে হল যেখানে সেখানে থুতু না ফেলা। মন্তব্যটি আমারই এক ঘনিষ্ঠ বন্ধুর। এবং কী ভয়ঙ্কর সাবলীল স্বীকারোক্তি। যে দেশে ৩০ কোটি মানুষ এখনও দারিদ্রসীমার নীচে বসবাস করেন, যেখানে সাক্ষরতা বলতে বোঝানো হয় নিজের নাম সই করতে পারা, সেখানে সচেতনতার প্রাথমিক পাঠটা এমন একটা মন্তব্য দিয়ে শুরু করলে মন্দ কী!
বিশদ

16th  November, 2017
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ইউনান-কলকাতার ব্যবসায়িক-বাণিজ্যিক সম্পর্ক বাড়াতে আগ্রহী দুই শহরের চেম্বার অব কমার্স। বৃহস্পতিবার কলকাতার মার্চেন্ট চেম্বার অব কমার্সে চীনের ইউনান প্রদেশের জেনারেল চেম্বার অব ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: লেবার ওয়েলফেয়ার ফান্ডে অনুদান কমবেশি করতে আর আইন পরিবর্তনের দরকার নেই। এই তহবিল পরিচালনার দায়িত্ব থাকা লেবার ওয়েলফেয়ার বোর্ডই সরাসরি সিদ্ধান্ত নিতে পারবে। বৃহস্পতিবার বিরোধীশূন্য বিধানসভায় এ সংক্রান্ত সংশোধনী পাশ হয়ে গেল। ...

বিএনএ, মালদহ ও রায়গঞ্জ: বৃহস্পতিবার রাজ্যের স্বাস্থ্য সচিব অনিল ভর্মা গৌড়বঙ্গের তিন জেলার স্বাস্থ্য পরিষেবা খতিয়ে দেখলেন। এদিন রায়গঞ্জে মেডিক্যাল কলেজের কাজের অগ্রগতি খতিয়ে দেখার পর হাসপাতালও ঘুরে দেখেন। পরে কর্ণজোড়ায় দুই দিনাজপুরের স্বাস্থ্য আধিকারিকদের নিয়ে বৈঠক করেন। ...

বাগদাদ, ২৩ নভেম্বর (এএফপি): সিরিয়া সীমান্তে ইসলামিক স্টেট (আইএস) জঙ্গিদের শেষ ঘাঁটি উৎখাতে নামল ইরাকি সেনা। ইরাকের টাইগ্রিস ও ইউফ্রেটিস নদীর মধ্যবর্তী অঞ্চলে জঙ্গিদের অস্তিত্ব টের পেয়ে অভিযানের কথা ঘোষণা করে দেয় সেনা। ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

গুপ্ত শত্রুতা বৃদ্ধি। কর্মে উন্নতি। ব্যবসায় অতিরিক্ত সতর্কতার প্রয়োজন। উচ্চশিক্ষায় সাফল্য। শরীর-স্বাস্থ্য ভালো যাবে। প্রতিকার: ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৫৯: চার্লস ডারউইনের লেখা ‘অন দ্য অরিজিন অব স্পিসিস’ প্রকাশিত হল।
১৮৮৮: মার্কিন সাহিত্যিক ডেল কার্নেগির জন্ম
১৯৫৫: ইংল্যান্ডের ক্রিকেটার ‌ইয়ান বথামের জন্ম
১৯৬১: লেখিকা এবং সমাজকর্মী অরুন্ধতী রায়ের জন্ম।

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৪.০০ টাকা ৬৫.৬৮ টাকা
পাউন্ড ৮৪.৯৬ টাকা ৮৭.৮৫ টাকা
ইউরো ৭৫.৩৬ টাকা ৭৮.০০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ২৯,৯৬০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৮,৪২৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৮,৮৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৯,৭০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৯,৮০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৮ অগ্রহায়ণ, ২৪ নভেম্বর, শুক্রবার, ষষ্ঠী অহোরাত্র, নক্ষত্র-উত্তরষা‌ঢ়া দিবা ১০/৩, সূ উ ৫/৫৯/৫, অ ৪/৪৭/২৭, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৬/৪১ মধ্যে পুনঃ ৭/২৪ গতে ৯/৩৫ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৪ গতে ২/৩৮ মধ্যে পুনঃ ৩/২১ গতে অস্তাবধি, রাত্রি ঘ ৫/৪০ গতে ৯/১১ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৯ গতে ৩/২০ মধ্যে পুনঃ ৪/১৪ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৮/৪১ গতে ১১/২৩ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/৫ গতে ৯/৪৪ মধ্যে।
৭ অগ্রহায়ণ, ২৪ নভেম্বর, শুক্রবার, ষষ্ঠী রাত্রি ৩/৩৭/৪১, উত্তরষা‌ঢ়ানক্ষত্র ৭/৩১/৩৪, সূ উ ৬/০/১৩, অ ৪/৪৫/৪৯, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৬/৪৩/১৫ মধ্যে, ৭/২৬/১৭-৯/৩৫/২৫, ১১/৪৫/৩২-২/৩৭/৪২, ৩/২০/৪৫-৪/৪৫/৪৯, রাত্রি ৫/৩৮/৪৭-৯/১০/৩৭, ১১/৪৯/৩০-৩/২১/২০, ৪/১৪/১৮-৬/০/৪৫, বারবেলা ৮/৪১/৩৭-১০/২/১৯, কালবেলা ১০/২/১৯-১১/২৩/১, কালরাত্রি ৮/৪/২৫-৯/৪৩/৪৩।
 ৪ রবিঃ আউঃ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
  আইএসএলে আজ চেন্নাইয়ান এফসি ৩ : ০ গোলে হারাল নর্থইস্ট ইউনাইটেডকে

23-11-2017 - 10:01:16 PM

  আইএসএল: চেন্নাইয়ান এফসি:৩ নর্থইস্ট ইউনাইটেড: ০ (৮৪ মিনিট)

23-11-2017 - 09:50:28 PM

 আইএসএল: চেন্নাইয়ান এফসি:২ নর্থইস্ট ইউনাইটেড: ০ ( ৩৫ মিনিট)

23-11-2017 - 08:42:04 PM

সৌরভের বাড়িতে মশার আঁতুড়ঘর, আজ নোটিস দেবে পুরসভা

সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের বাড়িতেই সন্ধান মিলল ডেঙ্গু বাহক মশার আঁতুড়ঘরের। আগামীকাল ...বিশদ

23-11-2017 - 07:09:00 PM

ভদ্রেশ্বর পুরপ্রধান খুন: এবার নাম জড়াল নির্দল কাউন্সিলার রাজু সাউয়ের 

ভদ্রেশ্বরে পুরপ্রধান মনোজ উপাধ্যায়ের মৃত্যুর ঘটনায় এবার নাম জড়াল নির্দল ...বিশদ

23-11-2017 - 05:42:00 PM