বিশেষ নিবন্ধ
 

পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের উদ্বেগ কাটাতে ‘নিট’ সংকটের দ্রুত সমাধান জরুরি

নিমাই দে: উদ্দেশ্যটা ছিল খুবই সহজ এবং এর মধ্যে আপাতভাবে জটিলতার তেমন নামগন্ধ ছিল না। সারা দেশজুড়ে সমমেধার চিকিৎসক তৈরি করতে পরীক্ষাটাও নেওয়া হবে সমমানের। অর্থাৎ প্রশ্নপত্র হবে একই, প্রবেশিকা পরীক্ষাও হবে একটাই। তার নামকরণ হল ন্যাশনাল এলিজিবিলিটি কাম এন্ট্রান্স টেস্ট বা সংক্ষেপে ‘নিট’। এর আরও একটি উল্লেখযোগ্য এবং চমকপ্রদ দিক হল, সারা দেশে ইংরেজিসহ নয় নয় করে দশটি ভাষায় প্রশ্নপত্র তৈরি হয়েছিল। উদ্দেশ্য, ভাষাগত দুর্বলতা এবং কোনও কোনও ক্ষেত্রে আড়ষ্ঠতা থেকে ছাত্রছাত্রীদের মুক্তি দেওয়া। তাই পশ্চিমবঙ্গে বাংলা মাধ্যমে পড়া হাজার হাজার ছাত্রছাত্রী অনেকটাই আশার আলো দেখেছিলেন। কিন্তু সেই আপাত নিরীহ ব্যাপারটাই যে শেষমেশ তাঁদের কাছে বিভীষিকা হয়ে দাঁড়াবে, তা বোধহয় কেউ কল্পনাতেও আনতে পারেননি।
গত ৭ মে দেশজুড়ে নেওয়া হল মেডিকেলে ভরতির জন্য ওই তথাকথিত অভিন্ন প্রবেশিকা পরীক্ষা। কিন্তু পরীক্ষা শেষ হতেই যে তথ্য মুহূর্তের মধ্যে চারদিক ছড়িয়ে পড়ল, তা হল, আদৌ অভিন্ন হয়নি ওই পরীক্ষা। প্রথমত, বাংলার ছাত্রছাত্রীদের মনে হয়েছে, প্রশ্নপত্র বেশ কঠিন হয়েছে। প্রশ্ন না হয় কারও কাছে কঠিন লাগতেই পারে। এ নিয়ে বড়জোড় বিতর্ক হতে পারে। কিন্তু আরও যে অভিযোগটি উঠে এল, তা এর চেয়েও মারাত্মক। তা হল, বাংলা ভাষায় যে প্রশ্নপত্র হয়েছে, তা ইংরেজি ভাষায় হওয়া প্রশ্নপত্রের চেয়ে একেবারে আলাদা। বাংলা মাধ্যমের হাজার হাজার ছেলেমেয়ে শুধু অশেষ ভোগান্তি এবং উদ্বেগের মধ্যে যেমন পড়লেন, পাশাপাশি এটি নতুন বিতর্কেরও জন্ম দিল। প্রশ্ন উঠে গেল, ইংরেজি এবং হিন্দিসহ যেখানে মোট দশটি ভাষায় এবার প্রশ্নপত্র তৈরি হল, সেখানে বাংলার প্রশ্নই আলাদা হয়ে গেল কীভাবে? এ কি নিছক ভুল, নাকি এর মধ্যে সেই পুরানো বিভেদ সৃষ্টির ছকই কাজ করেছে? নিট এই প্রথম হল, এমনটা নয়। এর আগে ২০১৩ এবং ২০১৬ সালে নিট হয়েছিল, তবে এতগুলি ভাষায় নয়। ২০১৬ তে কিন্তু এই সর্বভারতীয় পরীক্ষার আয়োজক সিবিএসই বোর্ডের তুলনায় বাংলা মাধ্যমের ছাত্রছাত্রীরা খুব একটা ভালো ফল করতে পারেননি। কিন্তু তা হলেও সেবার প্রশ্ন ছিল একটাই, অভিন্ন। অথচ এবার ইংরেজির থেকে বাংলায় শুধু প্রশ্নই আলাদা করা হয়নি, প্রশ্নের প্যাটার্নও সম্পূর্ণ আলাদা হয়েছে বলে বহু ছাত্রছাত্রী এবং তাঁদের শিক্ষকরা অভিযোগ করেছেন। মেডিকেলে ভরতি সংক্রান্ত পরীক্ষার প্রস্তুতির সঙ্গে যুক্ত অনেক শিক্ষকও একই অভিযোগ করেছেন। তাঁরাও হতাশ এটা শুনে যে অনেক ছেলেমেয়ে ফিজিক্স ও কেমিস্ট্রিতে ৪৫টি করে প্রশ্নের মধ্যে আট-দশটির বেশি উত্তর দিতে পারেননি। বায়োলজির ৯০টি প্রশ্নের ক্ষেত্রেও পরিস্থিতিটা ছিল কমবেশি একই। এক ছাত্র যেমন নিজের অভিজ্ঞতা শোনাতে গিয়ে বলেছিলেন, পরীক্ষা অভিন্ন হওয়ার কথা থাকলে কী হবে, এবার প্রশ্নও আলাদা ছিল, আলাদা ছিল প্রশ্নপত্রের ধরনও। সবচেয়ে বড় কথা প্রশ্নগুলির উত্তর বড় এবং সময়সাপেক্ষ। ফলে সীমিত সময়ের এই ধরনের পরীক্ষায় তাঁরা যথেষ্টই সমস্যায় পড়েছিলেন। ৭২০ নম্বরের মধ্যে বাংলা মাধ্যমের ছেলেদের অনেকেই বড়জোর ৩০০ নম্বরের উত্তর দিতে সমর্থ হন। সেখানে ইংরেজি মাধ্যমের বেশিরভাগ ছেলেমেয়েই হাসতে হাসতে ৪৫০ নম্বরের উত্তর দিয়েছেন। ফলে বহু অভিভাবকের মাথায় আকাশ ভেঙে পড়েছে। সেই দিনটি থেকেই অনেকের রাতের ঘুম উড়ে গিয়েছে। কারণ, অনেকেই তাঁদের ছেলেমেয়েকে ভবিষ্যতে ডাক্তার হিসাবে গড়ে তোলার স্বপ্নে বিভোর ছিলেন। তার জন্য কঠোর পরিশ্রম করেছেন। ভালো ভালো কোচিং সেন্টারে পড়িয়ে লাখ লাখ টাকা খরচ করতেও দু’বার ভাবেননি। কিন্তু একটা বোর্ডের স্রেফ ‘দ্বিচারিতা’র জেরে এতদিনের পরিশ্রম বিফলে চলে যাবে, এটা কেউই মন থেকে মেনে নিতে পারছেন না। কিন্তু অভিভাবকদের করারই বা কী আছে? তাঁরা তো আর সংঘবদ্ধ নন। ফলে এ নিয়ে ক্ষোভ-বিক্ষোভ থাকলেও তা সেভাবে দানা বাঁধেনি। ক্ষোভের আগুন জ্বলছে ধিকি ধিকি।
সুখের কথা একটাই। নিট-এ এই প্রশ্নপত্রের বিভ্রাট নিয়ে শোরগোল পড়তেই রাজ্য সরকার সঙ্গে সঙ্গে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। খোদ শিক্ষামন্ত্রী নবান্নে দাঁড়িয়ে ইঙ্গিত দিয়েছেন, কৌশলে বিভাজন সৃষ্টির লক্ষেই এমনটা করা হয়েছে। এর পিছনে যে কেউ রয়েছে, এমন সম্ভাবনার কথাও তিনি সেদিন শুনিয়ে দিয়েছিলেন। তিনি সেদিন স্বীকার করেছিলেন, পরীক্ষার পর অসংখ্য ছাত্রছাত্রী এবং অভিভাবক-অভিভাবকা তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করে তাঁদের ক্ষোভ এবং উদ্বেগের কথা জানিয়েছেন। এমনকী অনেকে সরাসরি অভিযোগ জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রীকেও। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ ও ব্যথিত। তিনি সেদিনই স্বাস্থ্য দপ্তরের সঙ্গে কথা বলে দিল্লিতে চিঠি পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন।
সেইমতো রাজ্য সরকার সিবিএসই বোর্ডকে কড়া চিঠি পাঠিয়েও দিয়েছে। এই চিঠি পাঠানো হয়েছে স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফেই। কারণ, এ নিয়ে একটা সমস্যা তৈরি হয়েছিল। তা হল, পরীক্ষার্থীরা যেহেতু এখনও কোনও মেডিকেল কলেজে ভরতি হননি, তাই তাঁদের স্বার্থরক্ষায় চিঠি পাঠাবে কে, স্বাস্থ্য দপ্তর নাকি উচ্চশিক্ষা দপ্তর, এই প্রশ্নটা উঠেছিল। যদিও শেষমেশ স্বাস্থ্যসচিব আর এস শুক্লাই ওই কড়া চিঠিটি পাঠিয়েছেন বলে খবর। উল্লেখ্য, কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকও এই একই ইস্যুতে সিবিএসই বোর্ডের জবাবদিহি তলব করেছে। বিক্ষোভ যে শুধু এ রাজ্যেই সীমাবদ্ধ, তা কিন্তু নয়। গুজরাতেও একই ঘটনা ঘটছে।
এইরকম পরিস্থিতিতে সিবিএসই কী করবে, তা এখনও পরিষ্কার নয়। এমন একটি আপাত সহজবোধ্য কেলেঙ্কারির ঘটনায় তদন্ত করতে খুব বেশি সময় লাগারও কথা নয়। কারণ, পরীক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের অনেকেই বলেছেন, এই পরীক্ষা আসলে পরীক্ষার্থীর সঙ্গে আয়োজক সংস্থার এক ধরনের চুক্তি। যা কি না নিয়মাবলীতেই রয়েছে। সেই চুক্তি অনুযায়ী অভিন্ন পরীক্ষায় অভিন্ন প্রশ্নপত্রই হওয়ার কথা। অথচ বাস্তবে হল ভিন্ন প্রশ্নপত্র। কেন? প্রশ্ন এবং উত্তর সবই এই ছোট্ট বিষয়টির মধ্যেই সীমাবদ্ধ আছে। এর জন্য বিরাট তদন্ত কমিটি গঠন করে, মাসের পর মাস সময় নষ্ট করে এতগুলি ছাত্রছাত্রী এবং তাঁদের অভিভাবকদের চরম দুশ্চিন্তায় রাখার কি কোনও যৌক্তিকতা আছে? অথচ তদন্তের যা গতিপ্রকৃতি, তাতে অনেকেই খুব একটা আশান্বিত হওয়ার মতো কিছু খুঁজে পাচ্ছেন না। কারণ, এখনও পর্যন্ত কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের জবাবদিহি তলব এবং রাজ্য সরকারের কড়া চিঠি ছাড়া এই কাণ্ডের আর কোনও অগ্রগতি নেই।
মেডিকেল কাউন্সিল অব ইন্ডিয়ার যুক্তি ছিল, সারা দেশে একাধিক পরীক্ষার বদলে একটিমাত্র পরীক্ষা হলে দুর্নীতি এবং অনিয়মের অবসান ঘটবে। ইন্ডিয়ান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনও ডাক্তারির মতো পেশার পবিত্রতা বজায় রাখার ক্ষেত্রে এই ধরনের অভিন্ন প্রবেশিকা পরীক্ষাকে স্বাগত জানিয়েছিল। অন্যদিকে, ডাক্তারির প্রতি ছাত্রছাত্রীদের আগ্রহে যে বিন্দুমাত্র ভাটা পড়েনি, তার সবচেয়ে বড় প্রমাণ হল, এবার নিটে বসেছিলেন রেকর্ড সংখ্যক পরীক্ষার্থী। সারা দেশে সংখ্যাটা ছিল ১১ লক্ষ ৩৫ হাজার ১০৪ জন। গত বছরের তুলনায় যা ৩ লক্ষ ৩২ হাজার ৫১০ জন বেশি। ২০১৬ সালে নিটে বসেছিলেন ৮ লক্ষ ২ হাজার ৫৯৪ জন। রা঩জ্যে ডাক্তারদের নিগ্রহ, বিভিন্ন ক্ষেত্রে চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগে ডাক্তারদের কাঠগড়ায় তোলা প্রভৃতি ঘটনা নতুন প্রজন্মের ছেলেমেয়েদের যে ডাক্তার হওয়ার বাসনাকে বিন্দুমাত্র দমাতে পারেনি, তা উপরের পরিসংখ্যান থেকেই বোঝা যায়।
এরকম একটা প্রেক্ষাপটে অনেক আশা নিয়ে পরীক্ষায় বসা ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে যে কোনও ধরনের বিশ্বাসভঙ্গের কাজই চরম অপরাধের শামিল। কারণ, সিবিএসই’র ওই ভুলই (ইচ্ছাকৃত বা অনিচ্ছাকৃত) হাজার হাজার মানুষকে চরম হতাশার মধ্যে ফেলে দিয়েছে। শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় অভিযোগ করেছিলেন, এর পিছনে কারও হাত আছে। সেই হাত কার, তা তিনি খোলসা করেননি। কিন্তু পার্থবাবুর কথার মধ্যেই কেন্দ্র-রাজ্য দ্বন্দ্ব বা সংঘাতের সেই পুরানো ইঙ্গিত লুকিয়ে ছিল। হতে পারে এর পিছনেও হয়তো রাজনীতির খেলা আছে। থাকতে পারে রাজ্যকে বঞ্চনা করা বা রাজ্যের মেধাকে স্বীকৃতি না দেওয়ার কৌশল।
কিন্তু পিছনে যাই থাক না কেন, হাজার হাজার পরীক্ষার্থীর মানসিক যন্ত্রণা ও উদ্বেগকে সম্মান দিয়ে এই কেলেঙ্কারির রহস্য দ্রুত উন্মোচন হোক, এটাই সবার একমাত্র কামনা। এবং তা হোক রাজনীতির বাইরে থেকেই।
19th  May, 2017
গ্রেনেড দিয়ে মানুষ খুন করা যাবে, গোর্খাল্যান্ড হবে না
মেরুনীল দাশগুপ্ত

এই জনবিচ্ছিন্নতাই গোর্খাল্যান্ডের নামে আন্দোলনকে আরও বেশি হিংসা ও কূট কৌশলের দিকে ঠেলে দিচ্ছে না তো? নিজেদের সামর্থ্যে কুলোচ্ছে না বলে দার্জিলিঙ পাহাড়কে বাইরের বিচ্ছিন্নতাবাদী সন্ত্রাসীদের গ্রেনেড আইইইডি চাঁদমারি করে তোলায় মদত দিচ্ছে না তো? এসবের পিছনে রাজনীতির হাত তো আছেই। নাহলে কোনও এক গেরুয়া নেতা বলেন, দার্জিলিঙ একদিন বাংলার কাশ্মীর হবে! আরে সেটা বোঝেনই যদি তো তার প্রতিকারে ব্যবস্থা নিচ্ছেন না কেন? জানেন না, দার্জিলিঙের ভৌগোলিক অবস্থান আন্তর্জাতিক নিরাপত্তার দিক থেকেও যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ? সেই অবস্থান দুর্বল হলে কেবল তো বাংলা নয়, গোটা দেশের নিরাপত্তাই বিঘ্নিত হওয়ার আশঙ্কা। তা সত্ত্বেও চুপ কেন দিল্লি?
বিশদ

কৌশলের অপর নাম অমিত শাহ
জি ভি এল নরসিমা রাও

জোট রাজনীতির ক্ষেত্রেও রয়েছে তাঁর অনন্য দর্শন। যেকোনও কারও হাত ধরতে আপত্তি নেই অমিতের। তবে, এই ধরনের জোট কখনওই দলের (বিজেপি) দীর্ঘমেয়াদি স্বার্থে নয়। তাই মহারাষ্ট্র, হরিয়ানা, জম্মু ও কাশ্মীরের মতো রাজ্য জয়ের পর অমিতের এখন লক্ষ্য ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচন। একজন কৃষক পরিবারের ছেলে হয়ে তিনি জানেন, কীভাবে নতুন জমিকে শস্যশ্যামলা গড়ে তুলতে হয়। আর সে লক্ষ্যেই আগামী দিনে ভোটে করমণ্ডল রাজ্যগুলিকে পাখির চোখ করেছেন অমিত। ভোট জয়ের একজন ‘মাস্টারব্ল্যাস্টার’ হিসাবে কীভাবে সাফল্য আসে তা নয়, অমিত ভালোভাবেই জানেন কেন সাফল্য আসে। যদিও, তাঁর উত্তরপ্রদেশ জয়কে কখনওই তিনি বড় করে দেখাননি। উলটে বলেছেন, বিজেপির জয়ে পরাস্ত হয়েছে দুর্নীতির রাজনীতি, জাতপাতের রাজনীতি ও স্বজনপোষণ। কিন্তু তার থেকেও যেটা উল্লেখযোগ্য তা হল, অমিত যেমন পিছন দিকে ফিরে তাকিয়ে বিলাপ করেন না, তেমনই জয়েতেও উৎফুল্ল হন না।
বিশদ

আগামী লোকসভা ভোটে লড়াই মোদি বনাম মমতার
মোশারফ হোসেন

 দেখতে দেখতে দেশে মোদি জমানার তিন বছরেরও বেশি সময় কেটে গেল। ফের দরজায় কড়া নাড়ছে পরবর্তী লোকসভা ভোট। ২০১৪ র ভোটে দেশের মানুষ সংসদ সদস্যদের পাঁচ বছরের জন্য নির্বাচিত করেছিলেন। তাই সাধারণ হিসাব অনুযায়ী পরবর্তী লোকসভা ভোট হওয়ার কথা আগামী ২০১৯ সালের মে মাস নাগাদ।
বিশদ

22nd  August, 2017
তিমি থেকে তিমিঙ্গিল: ইন্টারনেট আজ নয়া চ্যালেঞ্জার
অতনু বিশ্বাস

 “দৈত্যাকৃতি মস্তিষ্কের সঙ্গে যেমন থাকে নিউরন, আমরা এখন ইন্টারনেটের সঙ্গে তেমনই সংযুক্ত।”—স্টিফেন হকিং। তবু ইন্টারনেট আমাদের জীবনকে কতটা আষ্টেপৃষ্টে বেঁধে রেখেছে তা আমরা অনেক সময়ই ঠিক ঠাহর করে উঠতে পারি না। মাঝে মাঝে তন্দ্রা ভাঙে যখন পেল্লাই একটা রাক্ষুসে নীল তিমি মস্ত বড় হা করে গিলতে আসে আমাদের।
বিশদ

22nd  August, 2017
রাজ্যের উদ্বেগজনক বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে কেন্দ্র এত উদাসীন কেন?
শুভা দত্ত

 ‘কেন্দ্রের বিমাতৃসুলভ আচরণ’ বলে একটা কথা একসময় খুব শোনা যেত। ইন্দিরা গান্ধীর আমলে তো বটেই, তার পরে তাঁর পুত্র রাজীব গান্ধী বা তাঁর পরের প্রধানমন্ত্রীদের আমলেও এ রাজ্যে ওই ‘বিমাতৃসুলভ আচরণ’ নিয়ে রাজনৈতিক হইচই যথেষ্ট হয়েছে।
বিশদ

20th  August, 2017
আহা, সেই নতুন ভারত ভয়মুক্ত হোক
সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়

 স্বাধীনতা দিবসে লাল কেল্লা থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির চতুর্থ ভাষণ বেশ মন দিয়েই শুনলাম। স্বচ্ছ ভারত, স্মার্ট সিটি, মেক ইন ইন্ডিয়া, স্টার্ট আপ ইন্ডিয়া, জন ধন প্রকল্প, নমামি গঙ্গে, বেটি বাঁচাও বেটি পড়াও, ডিজিটাল ইন্ডিয়া, কংগ্রেস মুক্ত ভারত, কালো টাকা ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে কোমর-কষা লড়াই ইত্যাদি ইত্যাদি প্রতিজ্ঞা ও স্বপ্নের জাল গত চারটি ভাষণে শোনানোর পর সেদিন তিনি ‘নিউ ইন্ডিয়া’ বা নতুন ভারত গড়ার কথা শোনালেন।
বিশদ

20th  August, 2017
সফলতা বনাম সফলতা
অভিজিৎ তরফদার

 সংবাদপত্রের প্রথম পাতা আলো করে কোন ব্যক্তিরা শোভা পান? তাঁরা জনপ্রতিনিধি। তাঁরা দেশের আইনও প্রণয়ন করেন। দুর্জনে বলে তাঁদের এক চতুর্থাংশ বা তারও বেশিজনের নামে ফৌজদারি মামলা আছে। খুন-ধর্ষণ-ডাকাতি ইত্যাদি ভয়ানক সব অভিযোগে তাঁরা অভিযুক্ত। কিন্তু আমরা, আম জনতা, তাঁদের ফুল্লবিকশিত মুখশোভা সংবাদপত্রে দেখতেই অভ্যস্ত হয়ে গিয়েছি।
বিশদ

19th  August, 2017
ভারত চীন যুদ্ধ হলে চীন পরাজিত হবে
প্রশান্ত দাস

 সারা ভারতজুড়ে এখন একটাই আলোচনা ঝড় তুলেছে—ডোকালাম নিয়ে চীন ভারতকে আক্রমণ করবে কি? চীন অনবরত ভারতকে চমকে চলেছে। মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের মুখপত্র গ্যারিরস বলেছেন—কোনও দেশ যেন নিজেকে সর্বশক্তিমান না ভাবে। চীন এবং ভারত মুখোমুখি আলোচনায় বসে ব্যাপারটি মিটিয়ে নেয়।
বিশদ

19th  August, 2017
শুধুই প্রচার, রেজাল্ট কই!
সমৃদ্ধ দত্ত

 গোরখপুর থেকে ৪৩ কিলোমিটার দূরের জৈনপুর গ্রামের লক্ষ্মী আর শৈলেন্দ্র তিন সপ্তাহ বয়সি মেয়ের মৃতদেহ নিয়ে অনেক দেরি করে বাড়িতে ফিরতে পেরেছিল। গোরখপুরের হাসপাতালে অক্সিজেনের অভাবে শ্বাসরুদ্ধ হয়ে মেয়ে মারা যাওয়ার পর হাসপাতালের বাবুদের কাছে বারংবার ধমক খেতে হয়েছে তাঁদের।
বিশদ

18th  August, 2017



একনজরে
 টোকিও, ২৩ আগস্ট (এএফপি): সিঙ্গাপুরে যুদ্ধজাহাজের দুর্ঘটনার জেরে এক কমান্ডারকে বরখাস্ত করল মার্কিন নৌবাহিনী। এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ভাইস অ্যাডমিরাল জোসেফ অকয়েনকে দুর্ঘটনার জন্য তাঁর গাফিলতিকে দায়ী করে বরখাস্ত করা হল। ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই অধ্যাপিকা দীর্ঘিদিন ধরে হেনস্তা হচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠল। এক অধ্যাপিকাকে হেনস্তা করার অভিযোগ উঠেছে পিওনের বিরুদ্ধে। অন্যদিকে অপর অধ্যাপিকাকে কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে বিভাগেরই এক অধ্যাপকের বিরুদ্ধে। ...

 নয়াদিল্লি, ২৩ আগস্ট (পিটিআই): নন্দন নিলেকানিকেই ইনফোসিসের চেয়ারম্যান হিসাবে ফিরিয়ে আনা হোক। এই দাবি সংস্থার প্রাক্তন-সিএফও বালাকৃষ্ণনের। তাঁর মতে, ইনফোসিসের বর্তমান পরিস্থিতিতে একটি ‘ভালো মুখে’র খুব দরকার। ...

 নয়াদিল্লি, ২৩ আগস্ট (পিটিআই): মণিপুরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী রিসাং কেইসিংয়ের মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মঙ্গলবার ইম্ফলে শারীরিক অসুস্থতার কারণে কেইসিংয়ের মৃত্যু হয়। ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

পরীক্ষার ফলাফল ভালো হবে। কোনও চুক্তিবদ্ধ কাজে যুক্ত হবার যোগ আছে। প্রেম-প্রণয়ে বাধাবিঘ্ন থাকবে। বুঝে ... বিশদ



ইতিহাসে আজকের দিন

১৬৯০: ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির হয়ে কলকাতায় পা রাখলেন জোব চার্নক
১৯০৮: বিপ্লবী শিবরাম রাজগুরুর জন্মদিন
১৯৯১: সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের কমিউনিস্ট পার্টির প্রধানের পদ থেকে ইস্তফা দিলেন মিখাইল গর্বাচভ


ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৩.২৬ টাকা ৬৪.৯৪ টাকা
পাউন্ড ৮০.৮১ টাকা ৮৩.৬১ টাকা
ইউরো ৭৪.০১ টাকা ৭৬.৬৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ২৯,৪১৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৭,৯০৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৮,৩২৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৯,১০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৯,২০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৭ ভাদ্র, ২৪ আগস্ট, বৃহস্পতিবার, তৃতীয়া রাত্রি ৮/২৭, উত্তরফাল্গুনীনক্ষত্র দিবা ২/০, সূ উ ৫/২০/১২, অ ৫/৫৭/৫৬, অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪৬-৩/৩, বারবেলা ২/৪৯-অস্তাবধি, কালরাত্রি ১১/৩৯-১/৪।
৭ ভাদ্র, ২৪ আগস্ট, বৃহস্পতিবার, তৃতীয়া রাত্রি ৯/৩১/১, উত্তরফাল্গুনীনক্ষত্র অপরাহ্ণ ৪/৬/০, সূ উ ৫/১৭/৩৮, অ ৬/০/২, অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪৬/৩৬-৩/২/৭, বারবেলা ৪/২৪/৪৪-৬/০/২, কালবেলা ২/৪৯/২৬-৪/২৪/৪৪, কালরাত্রি ১১/৩৮/৫০-১/৩/৩২।
 ১ জেলহজ্জ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ব্যক্তিগত গোপনীয়তা মৌলিক অধিকারে অন্তর্ভুক্ত, রায় সুপ্রিম কোর্টের 

10:47:01 AM

লেক টাউনে বাসের ধাক্কায় যুবকের মৃত্যু 
ফের শহরে বেপরোয়া বাসের বলি এক। এদিন সকালে লেক টাউনে ২১৭ডি রুটের একটি বাস ধর্মেন্দ্র জৈন (৩৪) নামে ওই যুবককে ধাক্কা মারে। ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান তিনি। প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, রাস্তার ধারে বাইক নিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন ওই যুবক। বাসটি বেপরোয়া গতিতে এসে তাঁকে ধাক্কা মারে। বাসের চালক পলাতক। 

10:30:14 AM

শহরে ট্রাফিকের হাল
আজ, বৃহস্পতিবার সকালে শহরের রাস্তাঘাটে যান চলাচল মোটের উপর স্বাভাবিক। অফিস টাইমের চাপ রয়েছে এজেসি বসু রোড, ইএম বাইপাস, মা উড়ালপুল, সৈয়দ আমির আলি এভিনিউর মতো গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাগুলিতে। এদিন সকালে দ্বিতীয় হুগলি সেতুতে একটি কন্টেনার বিকল হয়ে পড়ায় যানজট হয়েছিল। তবে এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক। অন্যদিকে, দুপুর ১টার সময় রানি রাসমণি এভিনিউ ও ওয়াই রোডে দু'টি পৃথক সমাবেশ রয়েছে। তার জেরে বেলার দিকে ধর্মতলা চত্বরে যানজট হতে পারে। ট্রাফিক সংক্রান্ত যে কোনও খবরের জন্য কলকাতা পুলিশের টোল ফ্রি নম্বর ১০৭৩-তে ফোন করুন। 

10:04:00 AM

আরামবাগের মায়াপুরে পথ দুর্ঘটনায় মৃত ৩ 

09:39:00 AM

  ট্যাক্সি ধর্মঘটের ডাক
ভাড়াবৃদ্ধি, পুলিশি জুলুম বন্ধসহ একাধিক দাবিতে পুজোর পরই আন্দোলন তীব্র করার ইঙ্গিত দিল চালকদের একাংশ। এআইটিইউসি অনুমোদিত কলকাতা ট্যাক্সি অপারেটর্স ইউনিয়ন এবং ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্যাক্সি অপারেটর্স কো-অর্ডিনেশন কমিটি আগামী ৯ অক্টোবর ট্যাক্সি ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে। ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্যাক্সি অপারেটর্স কো-অর্ডিনেশন কমিটির আহ্বায়ক নওলকিশোর শ্রীবাস্তব বলেন, ধর্মঘটের সমর্থনে পুজোর আগে এক মাস ধরে প্রচার চালানো হবে।

09:34:43 AM

দার্জিলিংয়ে ফের বিস্ফোরণ 
ফের বিস্ফোরণে কাঁপল দার্জিলিং। গতকাল রাত ২টো নাগাদ দার্জিলিংয়ের সুকিয়া বাজারে বিস্কোরণ হয়। ঘটনায় কোনও হতাহতের খবর নেই। তবে বেশ কয়েকটি গাড়ির কাঁচ ভেঙেছে। 

08:47:27 AM