বিশেষ নিবন্ধ
 

আইনের মারপ্যাঁচ ও গরিবের কপাল

সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়: করবী ঘোষের কথাটা ঘুরেফিরে মনে পড়ছে। এবং কী আশ্চর্য, ঠিক একই সময় প্রায় একই রকম কথা শোনা গেল বিলকিস ইয়াকুব রসুলের কণ্ঠেও।
কলকাতায় করবী যে-কথাটা বললেন, একই কথা একই দিনে প্রতিধ্বনিত হল প্রায় দু’হাজার কিলোমিটার দূরে গুজরাতের দাহোদে। বিলকিস ইয়াকুব রসুলের সাকিন ওটাই।
কে করবী ঘোষ, কে-ই বা বিলকিস ইয়াকুব রসুল, হলফ করে বলতে পারি, খুব কম মানুষই তা বলতে পারবেন। খবরের কাগজে যাঁরা কাজ করেন অথবা নিত্য একাধিক কাগজ খুঁটিয়ে পড়েন, তাঁদের কেউ কেউ এই দুই নারীর পরিচয় দিলেও দিতে পারেন। কিন্তু বাকিরা ডাহা ফেল করে ঠোঁট ওলটাবেন।
এই বাকিদের জন্য বলি, করবী ঘোষের ছেলে অর্ণব, যিনি ‘দোহার’-এর প্রাণ কালিকাপ্রসাদের গাড়ির চালক ছিলেন, হয়তো যাঁর মুহূর্তের অসাবধানতায় দুর্গাপুর এক্সপ্রেসওয়ে থেকে গাড়িটা নয়ানজুলিতে পড়ে যায়, যে-দুর্ঘটনায় কালিকাপ্রসাদের মৃত্যু হয়।
আর বিলকিস ইয়াকুব রসুল? গুজরাতের দাহোদ জেলার এক গ্রামের বিবাহিতা নারী। পনেরো বছর আগে ২০০২ সালে যখন গোধরা-কাণ্ড হয়, তখন তাঁর বয়স ছিল ১৯। উন্মত্ত হিন্দুরা যখন খুঁজে খুঁজে মুসলমানদের হত্যা করছে, নারীদের ধর্ষণ করছে, সেই সময় পুরো পরিবার সহ বিলকিসেরা নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে বেরিয়ে পড়েছিলেন। যে-ট্রাকে চেপে তাঁরা পালাচ্ছিলেন, হিন্দুরা তা ধরে ফেলে। পরিবারের ১৪ জন সেদিন খুন হন। বিলকিস গণধর্ষিতা।
ধর্ষণের আগে বিলকিসের তিন বছরের কন্যাকে তাঁর চোখের সামনেই আছড়ে মেরে ফেলেছিল ধর্ষকেরা। বিলকিস
তখন পাঁচ মাসের গর্ভবতী। গণধর্ষণে অচৈতন্য বিলকিসকে দেখে ওরা
মৃত ভেবেছিল। ফলে তাঁর প্রাণে বাঁচা।
দিল্লিতে জ্যোতি নামের যে-মেয়েটি চলন্ত
বাসে ধর্ষিতা হন, যাঁকে বাস থেকে ফেলে দেওয়া হয়েছিল, পরে যিনি মারা যান, পরিচয় গোপন
করতে যাঁর নাম দেওয়া হয়েছিল ‘নির্ভয়া’,
তাঁর ধর্ষকদের ফাঁসির সাজা সুপ্রিম কোর্ট
বহাল রেখেছে। কেন? আদালতের মতে ওই
ঘটনা ছিল ‘বিরলের মধ্যে বিরলতম’। এই রায়ের
ঠিক আগের দিন বিলকিস ইয়াকুব রসুল, পনেরো বছর ধরে ধর্ষক ও পুলিশদের বিরুদ্ধে লড়াই
করে
যিনি গোটা দেশে ‘বিলকিস বানো’ নামে পরিচিত, তাঁর ধর্ষকদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ শোনায় বম্বে হাইকোর্ট। কেন তাদের মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হল না? কারণ, বিচারপতিরা মনে করেছেন, গোধরায় ট্রেনের কামরায় আগুন দেওয়ার প্রতিবাদে অপরাধীরা প্রতিশোধস্পৃহায় উন্মত্ত হয়েছিল। ওটা ছিল এক ঘটনার প্রতিক্রিয়া, যা কিনা উত্তেজনার বশে করা।
করবী ও বিলকিস, দুই হতভাগ্য আজ বলতেই পারেন, আইন দু’ধরনের। একটা আইন দেশের বড়লোক ও ক্ষমতাধরদের জন্য, অন্যটা তাঁদের
মতো হতভাগ্যদের জন্য।
বিলকিস প্রায় বলেও ফেলেছিলেন তা। জ্যোতির ধর্ষণ ও হত্যা মামলার রায় বেরনোর পরের দিন। বিস্মিত বিলকিসের প্রশ্ন ছিল, জ্যোতির অপরাধীদের ফাঁসি হল অথচ তাঁর অপরাধীদের যাবজ্জীবন? বলেছিলেন, ‘আশা করি সুপ্রিম কোর্টে ন্যায়বিচার পাব।’
বিচার পেতে বিলকিস বানোকে যাঁরা সাহায্য করেছিলেন, সেই মানবাধিকার কর্মীরা তাঁকে দিল্লি নিয়ে আসেন। দিল্লি প্রেস ক্লাবে তাঁদের ঘেরাটোপে থাকা বিলকিস বানো ফাঁসির দাবি জানাতে পারেননি। শুধু বলেছিলেন, ‘আমি ন্যায়বিচার চাই।’
বিচারের সঙ্গে ‘ন্যায়’ শব্দটি সব সময় যে
মানানসই নয়, করবী ঘোষ এই মুহূর্তে তা হাড়ে
হাড়ে টের পাচ্ছেন। টের পাইয়েছে আরও
একটি মর্মান্তিক দুর্ঘটনা।
কালিকাপ্রসাদের গাড়ি দুর্ঘটনায় পড়েছিল হাইওয়েতে, তরুণ অভিনেতা বিক্রম চট্টোপাধ্যায়ের গাড়ি দুর্ঘটনা হয় খোদ কলকাতায়। গভীর রাতে। বিক্রম সামান্য আহত হলেও তাঁর সঙ্গী সোনিকা মারা যান। গাড়ির স্টিয়ারিংয়ে ছিলেন বিক্রমই। পুলিশ তাঁকে সঙ্গে সঙ্গেই জামিন দেয়। কালিকাপ্রসাদের গাড়ি চালাচ্ছিলেন করবীর ছেলে অর্ণব। তিনি এখনও জামিন পাননি!
একই ধরনের দুটি দুর্ঘটনা। একজন চালক পরিচিত এবং নিশ্চিতই প্রভাবশালী। অন্যজন ‘ম্যাঙ্গো পিপল’, মানে আম জনতা। একজন ধনী, অন্য জন গরিব। আইন অথচ একটাই।
করবীর কথায় ফিরে আসি। সংবাদপত্রে তাঁর খেদ, ‘আমার ছেলে গরিবের ঘরে জন্মেছে। এটাই কি ওর অপরাধ? তাই আজও ওকে জেলের ভেতরে দাগি অপরাধীদের সঙ্গে কাটাতে হচ্ছে। আর যারা সোনার চামচ মুখে দিয়ে জন্মেছে, তারা একই ধরনের অপরাধ করে বাইরে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এটা কেমন আইন? আমরা গরিব বলে আমাদের জন্য ৩০৪ নম্বর ধারা। আর বড়লোকদের জন্য ৩০৪-এ!’
করবীর কথা সারাদিন ধরে ভাবাল। সত্যিই তো! অপরাধের চরিত্র এক। তবে কেন দু’ধরনের শাস্তি? অর্ণব নেশা করেছিলেন, এমন অভিযোগ কেউ করেনি। বিক্রম কিন্তু সে রাতে নেশা করেছিলেন। কতটা নেশা, কতটা বেহুঁশ তিনি হয়ে পড়েছিলেন তা তদন্ত সাপেক্ষ। কিন্তু দুটি দুর্ঘটনাই তো একটি একটি দুটি অমূল্য প্রাণ কেড়ে নিয়েছে? তবে কেন আইনের রক্ষকদের এহেন ভিন্ন আচরণ?
করবীর ক্ষোভ কমার নয়। কেনই বা কমবে? অর্ণবের রোজগারে সংসার চলে। নিম্নবিত্ত পরিবারে সব সময়েই যা হয়, নুন আনতে পান্তা ফুরনোর হাল, করবীর পরিবারও তা থেকে মুক্ত নয়। আচমকা বিপর্যয়ে এইসব পরিবারের মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে। করবীর মাথাতেও ভেঙে পড়েছে আকাশ। হাঁড়ি না-চড়ার হাল যাঁর, তাঁকে এখন উকিলের ফি জোগাড় করতে হচ্ছে। কলকাতা থেকে ছুটতে হচ্ছে হুগলির কারাগারে, যেখানে অর্ণব আরও অনেক দাগি অপরাধীর সঙ্গে দিন কাটাচ্ছে। ছেলের জামিনের চিন্তা তাঁর দিনরাত এক করে দিয়েছে।
এই আমরা গণতন্ত্রের বড়াই করি। এই আমরা বিচার ব্যবস্থার প্রতি শ্রদ্ধাবনত থাকি। এই সেদিন অর্ণবের জামিন ফের অগ্রাহ্য হল। তারা এখন হাইকোর্টের দ্বারস্থ। বিক্রমকে অথচ কিছুই করতে হল না! এক দেশ, এক রাজ্য, এক আইন, এক পুলিশ, এক আদালত, অথচ কী বিপুল ফারাক!
মানবাধিকার আন্দোলনের সঙ্গে যাঁরা যুক্ত, তাঁরা জোরের সঙ্গে বলেন, এ দেশে আইন সবার জন্য সমান নয়। খুব একটা ভুল কি বলেন তাঁরা? হয়তো নয়। রাজনীতির মানুষজন আকছার বলেন, আইন আইনের পথে চলবে। সেই পথটা যে বেজায় ঘোরালো, সে কথা তাঁরা বলেন না। আইনের ব্যাখ্যা একেকজনের কাছে যে একেকরকম, তা-ও তো বিস্ময় জাগায়! না হলে জ্যোতির ধর্ষকদের মৃত্যুদণ্ড হয়, আর বিলকিস বানোর ধর্ষকদের যাবজ্জীবন? দিল্লির বুকে ঘটে যাওয়া ঘটনা নিয়ে মিডিয়া তোলপাড় তুলেছিল বলে মাত্র সাড়ে চার বছরের মধ্যে জ্যোতির হতভাগ্য মা-বাবা সুবিচার পান, আর সুদূর গুজরাতের অজ্ঞাতকুলশীল বিলকিস বানোদের বিচার পেতে অপেক্ষায় থাকতে হয় দীর্ঘ পনেরোটা বছর? বিক্রমকে একটা দিনের জন্যও হাজতবাস করতে হল না, অথচ অর্ণব পচে মরছেন কারাগারে।
হতভাগ্য করবীর কথা যত ভাবছি ততই মনে পড়ে যাচ্ছে আইন, আইনের মারপ্যাঁচ, তার ফাঁক ফোকর, তার ব্যাখ্যা, আইনের রক্ষকদের প্রভাবশালী তত্ত্ব ও তার প্রয়োগের কথা। মনে পড়ছে মানবাধিকার কর্মীদের বহু উচ্চারিত সেই অমোঘ বাক্য, এ দেশে শুধু ধনঞ্জয়দেরই ফাঁসি হয়। এ দেশে প্রভাব ও প্রতিপত্তিশালী এমন কারও ফাঁসি হয়েছে আমি অন্তত মনে করতে পারছি না। হাজার হাজার কোটি টাকা লুট করে বছরের পর বছর জেলের ঘানি টানছেন, এমন কোনও বাঘা শিল্পপতির নামও মনে করতে পারলাম না। অথচ এ দেশে নাকি আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত! এ দেশে আইন নাকি তার নিজের পথে নিজস্ব ধারায় বয়ে যায়!
বিলকিস বানো, করবী ঘোষ বা অর্ণবদের জন্য সহানুভূতি ছাড়া কীই বা দেখাতে পারি?
14th  May, 2017
রূপা-কাহিনি, সিনেমার মতো

সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায় : কথায় বলে, লঙ্কায় যে যায় সে-ই হয় রাবণ। এই কথাটাই একটু ঘুরিয়ে হয়তো বলা যায়, দেশের সব রাজ্যেই শাসক দলের চরিত্র সম্ভবত এক ও অভিন্ন। না হলে কর্ণাটকের ‘ডিআইজি প্রিজন’ ডি রূপার হাল এমন হত না। সুদর্শনা ও নির্ভয়া তরুণী রূপাকে কারা বিভাগের দায়িত্ব থেকে রাজ্যের কংগ্রেসি মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধারামাইয়া সরিয়ে দিয়েছেন।
বিশদ

শহিদ দিবসের মঞ্চ থেকে ২০১৯ যুদ্ধের রণদামামা বাজিয়ে দিলেন মমতা

শুভা দত্ত : কৌতূহল ছিল সকলেরই। বিপুল কৌতূহল। ২১ জুলাইয়ের মঞ্চ থেকে কী বলবেন তিনি, কী বার্তা দেবেন—তা নিয়ে আসমুদ্র হিমাচল বাংলায় আগ্রহের অন্ত ছিল না। তাঁর পূর্ববর্তী বক্তাদের কারও কারও কথাতেও রাজ্যবাসী মানুষজনের সেই আগ্রহ কৌতূহলের আভাস মিলেছিল। 
বিশদ

যুদ্ধ নয়, স্থিতাবস্থা চাই ডোকালায়
প্রশান্ত দাস

 চীনের কথা উঠলেই সুবেদার মেজর হামিদ সাহেব বলতেন—বাঁদরের যত বাঁদরামি গাছের ডালে। ডাঙায় এলেই লেজ তোলে। লেজ তোলার অর্থ, লেজ তুলে পালায়। চীনের অবস্থা ওই বাঁদরের মতন। দাদাগিরি দেখাবে পাহাড়ের মাথায়। সমতলে নয়। সমতলের যুদ্ধে ভারতীয় সেনারা এখনও আনপ্যারালেলড। বিশদ

22nd  July, 2017
মানুষই এবার দাঙ্গা রুখেছে
পার্থজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়

 ওদের আমি চিনতাম। অমিত আর ফারুক। একই স্কুলে একই ক্লাসে পড়ত। সেকসনও এক। ফলে সারাক্ষণ স্কুলের বেঞ্চে কাছাকাছি, পাশাপাশি। দু’জনে খুব ভাবসাব, বন্ধুত্ব। ফারুক ইদে নেমন্তন্ন করেছিল অমিতকে। অমিত গিয়েওছিল। ফারুকদের বাড়িতে গিয়ে হয় এক অন্যরকম অভিজ্ঞতা।
বিশদ

21st  July, 2017
দলিত, কৃষক ক্ষোভ এত বাড়ছে কেন?
সমৃদ্ধ দত্ত

 একটা বাড়ি করার পর খুব স্বাভাবিকভাবেই মনে ইচ্ছা থাকে সেই বাড়ির গেটের পাশে অথবা বোগেনভিলিয়া ঢাকা আর্চ প্যাটার্নের বারান্দার উপরের দেওয়ালে লেখা হবে একটা নাম। নিজের বাড়ির নাম।
বিশদ

21st  July, 2017
 সব বিরোধ মেটাতেই চান নরেন্দ্র মোদি, তবে মোটেই চীনের আগ্রাসন মেনে নয়
গৌরীশঙ্কর নাগ

 অমরনাথের সাম্প্রতিক হামলার যে বিভীষিকা, তার আগে থেকেই ভুটানের ডোকলা মালভূমি ও ভারতের সিকিম সীমান্তে চীনা-ড্রাগনের শ্যেনদৃষ্টিকে কেন্দ্র করে ভারত-চীন সামরিক দামামা নতুন করে দক্ষিণ এশিয়ার আবহাওয়াকে উত্তপ্ত করে তুলেছে। বিশদ

20th  July, 2017
সেচ ও জলপথ দপ্তরের কাজে বামেদের কার্যত দশ গোল দিয়েছে মমতার সরকার
দেবনারায়ণ সরকার

উচ্চতর সেচ ব্যবস্থার উন্নয়ন বলতে বোঝায় ব্যারেজ, চেক ড্যাম পদ্ধতি থেকে শুরু করে নদীপাড় ও নদীবাঁধ নির্মাণ ইত্যাদি পদ্ধতিতে অতিরিক্ত সেচের জমি চাষের আওতায় আনা। পশ্চিমবঙ্গে সেচ ও জলপথ দপ্তরের অধীনেই রাজ্যে উচ্চতর সেচ ব্যবস্থার উন্নয়নের সামগ্রিক কর্মসূচি বাস্তবায়িত হয়ে থাকে।
বিশদ

20th  July, 2017
২১ জুলাই: গণতন্ত্র ফেরানোর মস্ত সুযোগ
হারাধন চৌধুরী

 রাজ্যে গণতন্ত্র ফেরানোর প্রশ্নে তৃণমূল ও তার প্রশাসন কতটা আন্তরিক ১৩ আগস্ট‌ই হতে পারে তার প্রথম পরীক্ষা। এই ভোটপর্বটিকে হালকাভাবে দেখার সুযোগ নেই। ওইদিন যে রেকর্ড সৃষ্টি হবে সেটাই কিন্তু বাজবে রাজ্যজুড়ে পরবর্তী পঞ্চায়েত ভোটে। এই অনুমান অসংগত নয় যে, গত সাত বছরে বিভিন্ন দফায় নানা কৌশলে বাংলায় কংগ্রেস, কমিউনিস্ট প্রভৃতিকে অপ্রাসঙ্গিক করে ফেলার কারণেই বিজেপি ও তাদের দোসরদের অভাবনীয় উত্থান ঘটেছে। এখন সেই ম্যাও সামলানো দুষ্কর হয়ে পড়েছে। এবার সম্মানের সঙ্গে ঘুরে দাঁড়ানোর মঞ্চ হয়ে উঠুক একুশে জুলাই। এ স্বার্থ শুধু তৃণমূলের নয়—সব দলের, সার্বিকভাবে সারা বাংলার ও গণতন্ত্রের।
বিশদ

18th  July, 2017
মোদির দৃঢ় সংকল্পের অঙ্গীকার জিএসটি
অনিল বালুনি

  ইতিহাসের সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে সেদিন দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভাষণে আমরা পেয়েছিলাম এক অপরিমেয় উদ্যম। মধ্যরাতের সেই ঐতিহাসিক ভাষণে প্রধানমন্ত্রী জানিয়ে দিয়েছিলেন, জিএসটি চালু করা ছাড়া অন্য কোনও পথ ছিল না।
বিশদ

18th  July, 2017



একনজরে
বিএনএ, রায়গঞ্জ: রায়গঞ্জ পুর বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন স্থানে গত ৯ জুলাই আদিবাসী নাবালিকাদের ধর্ষণ এবং ঘটনার প্রতিবাদে ১৪ জুলাই শহরে আদিবাসীদের তাণ্ডবের পর শনিবার রায়গঞ্জে এসে বৈঠক করলেন আদিবাসী উন্নয়নমন্ত্রী জেমস কুজুর। এদিন কর্ণজোড়ায় সার্কিট হাউসে এই বৈঠক হয়েছে। ...

ইসলামাবাদ, ২২ জুলাই (পিটিআই): পানামা পেপার ফাঁস কেলেঙ্কারিতে শেষ পর্যন্ত গদি খোয়াতে হতে পারে নওয়াজ শরিফকে। এমন আশঙ্কায় শরিফের উত্তরসূরি হিসাবে বেছে নেওয়া হল তাঁর ভাইকেই। শাহবাজ শরিফ এখন পাঞ্জাব প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী এবং নওয়াজের ছোট ভাই। তবে শাহবাজ শরিফ পাক ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ফের শহরে তোলাবাজির অভিযোগ। পাঁচ লক্ষ টাকা তোলা চেয়ে হুমকি দেওয়ায় কলকাতার বেনিয়াপুকুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন এক প্রোমোটার। মহম্মদ ওমর ফারুখ নামে ওই প্রোমোটারের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ তিন অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে। লালবাজার সূত্রে এই ...

 সংবাদদাতা, ঘাটাল: দুই দেশের খেলা দেখার জন্য ভিড় উপচে পড়ল দাসপুর-১ ব্লকের কলোড়াতে। শনিবার পশ্চিম মেদিনীপুর ফুটি অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে কলোড়া স্কুল ফুটবল মাঠে ভারতের জাতীয় ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ব্যাবসা সূত্রে উপার্জন বৃদ্ধি। বিদ্যায় মানসিক চঞ্চলতা বাধার কারণ হতে পারে। গুরুজনদের শরীর স্বাস্থ্য নিয়ে ... বিশদ



ইতিহাসে আজকের দিন

 ১৮৫৬- স্বাধীনতা সংগ্রামী বাল গঙ্গাধর তিলকের জন্ম
 ১৮৯৫ – চিত্রশিল্পী মুকুল দের জন্ম
 ২০০৪- অভিনেতা মেহমুদের মৃত্যু
 ২০১২- আই এন এ’ যোদ্ধা লক্ষ্মী সায়গলের মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৩.৫৫ টাকা ৬৬.২৩ টাকা
পাউন্ড ৮১.৯৮ টাকা ৮৪.৯৬ টাকা
ইউরো ৭৩.৫৬ টাকা ৭৬.১৬ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
22nd  July, 2017
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ২৯,০৭০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৭,৫৮০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৭,৯৯৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৫০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৬০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

 ৭ শ্রাবণ, ২৩ জুলাই, রবিবার, অমাবস্যা দিবা ৩/১৬, পুনর্বসুনক্ষত্র দিবা ৯/৫৩, সূ উ ৫/৭/৫৭, অ ৬/১৮/৫, অমৃতযোগ প্রাতঃ ৬/১-৯/৩১ রাত্রি ৭/৪৫-৯/১১, বারবেলা ১০/৪-১/২২, কালরাত্রি ১/৪-২/২৬।
৬ শ্রাবণ, ২৩ জুলাই, রবিবার, অমাবস্যা ৩/৫২/৫৯, পুনর্বসুনক্ষত্র ১১/৫/৩৬, সূ উ ৫/৪/৫০, অ ৬/২০/৬, অমৃতযোগ দিবা ৫/৫৭/৫১-৯/২৯/৫৫, বারবেলা ১০/৩/৩-১১/৪২/২৮, কালবেলা ১১/৪২/২৮-১/২১/৫২, কালরাত্রি ১/৩/৪-২/২৩/৩৯।
 ২৮ শওয়াল

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ভারতের জয়ের জন্য ৬ ওভারে ৩১ রান প্রয়োজন 

09:47:31 PM

ভারত ১৪৫/৩ (৩৫ ওভার) 

09:08:03 PM

ভারত ১২০/২ (৩০ ওভার) 

08:45:54 PM

ভারত ৬৯/২ (২০ ওভারে)

08:10:29 PM

ভারত ৪৩/২ (১২ ওভারে)

07:41:49 PM

ভারত ৩১/১ (৮ ওভারে)

07:26:26 PM