বিশেষ নিবন্ধ
 

আইনের মারপ্যাঁচ ও গরিবের কপাল

সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়: করবী ঘোষের কথাটা ঘুরেফিরে মনে পড়ছে। এবং কী আশ্চর্য, ঠিক একই সময় প্রায় একই রকম কথা শোনা গেল বিলকিস ইয়াকুব রসুলের কণ্ঠেও।
কলকাতায় করবী যে-কথাটা বললেন, একই কথা একই দিনে প্রতিধ্বনিত হল প্রায় দু’হাজার কিলোমিটার দূরে গুজরাতের দাহোদে। বিলকিস ইয়াকুব রসুলের সাকিন ওটাই।
কে করবী ঘোষ, কে-ই বা বিলকিস ইয়াকুব রসুল, হলফ করে বলতে পারি, খুব কম মানুষই তা বলতে পারবেন। খবরের কাগজে যাঁরা কাজ করেন অথবা নিত্য একাধিক কাগজ খুঁটিয়ে পড়েন, তাঁদের কেউ কেউ এই দুই নারীর পরিচয় দিলেও দিতে পারেন। কিন্তু বাকিরা ডাহা ফেল করে ঠোঁট ওলটাবেন।
এই বাকিদের জন্য বলি, করবী ঘোষের ছেলে অর্ণব, যিনি ‘দোহার’-এর প্রাণ কালিকাপ্রসাদের গাড়ির চালক ছিলেন, হয়তো যাঁর মুহূর্তের অসাবধানতায় দুর্গাপুর এক্সপ্রেসওয়ে থেকে গাড়িটা নয়ানজুলিতে পড়ে যায়, যে-দুর্ঘটনায় কালিকাপ্রসাদের মৃত্যু হয়।
আর বিলকিস ইয়াকুব রসুল? গুজরাতের দাহোদ জেলার এক গ্রামের বিবাহিতা নারী। পনেরো বছর আগে ২০০২ সালে যখন গোধরা-কাণ্ড হয়, তখন তাঁর বয়স ছিল ১৯। উন্মত্ত হিন্দুরা যখন খুঁজে খুঁজে মুসলমানদের হত্যা করছে, নারীদের ধর্ষণ করছে, সেই সময় পুরো পরিবার সহ বিলকিসেরা নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে বেরিয়ে পড়েছিলেন। যে-ট্রাকে চেপে তাঁরা পালাচ্ছিলেন, হিন্দুরা তা ধরে ফেলে। পরিবারের ১৪ জন সেদিন খুন হন। বিলকিস গণধর্ষিতা।
ধর্ষণের আগে বিলকিসের তিন বছরের কন্যাকে তাঁর চোখের সামনেই আছড়ে মেরে ফেলেছিল ধর্ষকেরা। বিলকিস
তখন পাঁচ মাসের গর্ভবতী। গণধর্ষণে অচৈতন্য বিলকিসকে দেখে ওরা
মৃত ভেবেছিল। ফলে তাঁর প্রাণে বাঁচা।
দিল্লিতে জ্যোতি নামের যে-মেয়েটি চলন্ত
বাসে ধর্ষিতা হন, যাঁকে বাস থেকে ফেলে দেওয়া হয়েছিল, পরে যিনি মারা যান, পরিচয় গোপন
করতে যাঁর নাম দেওয়া হয়েছিল ‘নির্ভয়া’,
তাঁর ধর্ষকদের ফাঁসির সাজা সুপ্রিম কোর্ট
বহাল রেখেছে। কেন? আদালতের মতে ওই
ঘটনা ছিল ‘বিরলের মধ্যে বিরলতম’। এই রায়ের
ঠিক আগের দিন বিলকিস ইয়াকুব রসুল, পনেরো বছর ধরে ধর্ষক ও পুলিশদের বিরুদ্ধে লড়াই
করে
যিনি গোটা দেশে ‘বিলকিস বানো’ নামে পরিচিত, তাঁর ধর্ষকদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ শোনায় বম্বে হাইকোর্ট। কেন তাদের মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হল না? কারণ, বিচারপতিরা মনে করেছেন, গোধরায় ট্রেনের কামরায় আগুন দেওয়ার প্রতিবাদে অপরাধীরা প্রতিশোধস্পৃহায় উন্মত্ত হয়েছিল। ওটা ছিল এক ঘটনার প্রতিক্রিয়া, যা কিনা উত্তেজনার বশে করা।
করবী ও বিলকিস, দুই হতভাগ্য আজ বলতেই পারেন, আইন দু’ধরনের। একটা আইন দেশের বড়লোক ও ক্ষমতাধরদের জন্য, অন্যটা তাঁদের
মতো হতভাগ্যদের জন্য।
বিলকিস প্রায় বলেও ফেলেছিলেন তা। জ্যোতির ধর্ষণ ও হত্যা মামলার রায় বেরনোর পরের দিন। বিস্মিত বিলকিসের প্রশ্ন ছিল, জ্যোতির অপরাধীদের ফাঁসি হল অথচ তাঁর অপরাধীদের যাবজ্জীবন? বলেছিলেন, ‘আশা করি সুপ্রিম কোর্টে ন্যায়বিচার পাব।’
বিচার পেতে বিলকিস বানোকে যাঁরা সাহায্য করেছিলেন, সেই মানবাধিকার কর্মীরা তাঁকে দিল্লি নিয়ে আসেন। দিল্লি প্রেস ক্লাবে তাঁদের ঘেরাটোপে থাকা বিলকিস বানো ফাঁসির দাবি জানাতে পারেননি। শুধু বলেছিলেন, ‘আমি ন্যায়বিচার চাই।’
বিচারের সঙ্গে ‘ন্যায়’ শব্দটি সব সময় যে
মানানসই নয়, করবী ঘোষ এই মুহূর্তে তা হাড়ে
হাড়ে টের পাচ্ছেন। টের পাইয়েছে আরও
একটি মর্মান্তিক দুর্ঘটনা।
কালিকাপ্রসাদের গাড়ি দুর্ঘটনায় পড়েছিল হাইওয়েতে, তরুণ অভিনেতা বিক্রম চট্টোপাধ্যায়ের গাড়ি দুর্ঘটনা হয় খোদ কলকাতায়। গভীর রাতে। বিক্রম সামান্য আহত হলেও তাঁর সঙ্গী সোনিকা মারা যান। গাড়ির স্টিয়ারিংয়ে ছিলেন বিক্রমই। পুলিশ তাঁকে সঙ্গে সঙ্গেই জামিন দেয়। কালিকাপ্রসাদের গাড়ি চালাচ্ছিলেন করবীর ছেলে অর্ণব। তিনি এখনও জামিন পাননি!
একই ধরনের দুটি দুর্ঘটনা। একজন চালক পরিচিত এবং নিশ্চিতই প্রভাবশালী। অন্যজন ‘ম্যাঙ্গো পিপল’, মানে আম জনতা। একজন ধনী, অন্য জন গরিব। আইন অথচ একটাই।
করবীর কথায় ফিরে আসি। সংবাদপত্রে তাঁর খেদ, ‘আমার ছেলে গরিবের ঘরে জন্মেছে। এটাই কি ওর অপরাধ? তাই আজও ওকে জেলের ভেতরে দাগি অপরাধীদের সঙ্গে কাটাতে হচ্ছে। আর যারা সোনার চামচ মুখে দিয়ে জন্মেছে, তারা একই ধরনের অপরাধ করে বাইরে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এটা কেমন আইন? আমরা গরিব বলে আমাদের জন্য ৩০৪ নম্বর ধারা। আর বড়লোকদের জন্য ৩০৪-এ!’
করবীর কথা সারাদিন ধরে ভাবাল। সত্যিই তো! অপরাধের চরিত্র এক। তবে কেন দু’ধরনের শাস্তি? অর্ণব নেশা করেছিলেন, এমন অভিযোগ কেউ করেনি। বিক্রম কিন্তু সে রাতে নেশা করেছিলেন। কতটা নেশা, কতটা বেহুঁশ তিনি হয়ে পড়েছিলেন তা তদন্ত সাপেক্ষ। কিন্তু দুটি দুর্ঘটনাই তো একটি একটি দুটি অমূল্য প্রাণ কেড়ে নিয়েছে? তবে কেন আইনের রক্ষকদের এহেন ভিন্ন আচরণ?
করবীর ক্ষোভ কমার নয়। কেনই বা কমবে? অর্ণবের রোজগারে সংসার চলে। নিম্নবিত্ত পরিবারে সব সময়েই যা হয়, নুন আনতে পান্তা ফুরনোর হাল, করবীর পরিবারও তা থেকে মুক্ত নয়। আচমকা বিপর্যয়ে এইসব পরিবারের মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে। করবীর মাথাতেও ভেঙে পড়েছে আকাশ। হাঁড়ি না-চড়ার হাল যাঁর, তাঁকে এখন উকিলের ফি জোগাড় করতে হচ্ছে। কলকাতা থেকে ছুটতে হচ্ছে হুগলির কারাগারে, যেখানে অর্ণব আরও অনেক দাগি অপরাধীর সঙ্গে দিন কাটাচ্ছে। ছেলের জামিনের চিন্তা তাঁর দিনরাত এক করে দিয়েছে।
এই আমরা গণতন্ত্রের বড়াই করি। এই আমরা বিচার ব্যবস্থার প্রতি শ্রদ্ধাবনত থাকি। এই সেদিন অর্ণবের জামিন ফের অগ্রাহ্য হল। তারা এখন হাইকোর্টের দ্বারস্থ। বিক্রমকে অথচ কিছুই করতে হল না! এক দেশ, এক রাজ্য, এক আইন, এক পুলিশ, এক আদালত, অথচ কী বিপুল ফারাক!
মানবাধিকার আন্দোলনের সঙ্গে যাঁরা যুক্ত, তাঁরা জোরের সঙ্গে বলেন, এ দেশে আইন সবার জন্য সমান নয়। খুব একটা ভুল কি বলেন তাঁরা? হয়তো নয়। রাজনীতির মানুষজন আকছার বলেন, আইন আইনের পথে চলবে। সেই পথটা যে বেজায় ঘোরালো, সে কথা তাঁরা বলেন না। আইনের ব্যাখ্যা একেকজনের কাছে যে একেকরকম, তা-ও তো বিস্ময় জাগায়! না হলে জ্যোতির ধর্ষকদের মৃত্যুদণ্ড হয়, আর বিলকিস বানোর ধর্ষকদের যাবজ্জীবন? দিল্লির বুকে ঘটে যাওয়া ঘটনা নিয়ে মিডিয়া তোলপাড় তুলেছিল বলে মাত্র সাড়ে চার বছরের মধ্যে জ্যোতির হতভাগ্য মা-বাবা সুবিচার পান, আর সুদূর গুজরাতের অজ্ঞাতকুলশীল বিলকিস বানোদের বিচার পেতে অপেক্ষায় থাকতে হয় দীর্ঘ পনেরোটা বছর? বিক্রমকে একটা দিনের জন্যও হাজতবাস করতে হল না, অথচ অর্ণব পচে মরছেন কারাগারে।
হতভাগ্য করবীর কথা যত ভাবছি ততই মনে পড়ে যাচ্ছে আইন, আইনের মারপ্যাঁচ, তার ফাঁক ফোকর, তার ব্যাখ্যা, আইনের রক্ষকদের প্রভাবশালী তত্ত্ব ও তার প্রয়োগের কথা। মনে পড়ছে মানবাধিকার কর্মীদের বহু উচ্চারিত সেই অমোঘ বাক্য, এ দেশে শুধু ধনঞ্জয়দেরই ফাঁসি হয়। এ দেশে প্রভাব ও প্রতিপত্তিশালী এমন কারও ফাঁসি হয়েছে আমি অন্তত মনে করতে পারছি না। হাজার হাজার কোটি টাকা লুট করে বছরের পর বছর জেলের ঘানি টানছেন, এমন কোনও বাঘা শিল্পপতির নামও মনে করতে পারলাম না। অথচ এ দেশে নাকি আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত! এ দেশে আইন নাকি তার নিজের পথে নিজস্ব ধারায় বয়ে যায়!
বিলকিস বানো, করবী ঘোষ বা অর্ণবদের জন্য সহানুভূতি ছাড়া কীই বা দেখাতে পারি?
14th  May, 2017
বিশ্বচরাচরের আনন্দ
অমর মিত্র

 সারা বছর কায়ক্লেশে বেঁচে থাকি, উৎসব নিয়ে আসে তা থেকে মুক্তি। বাঙালির জীবনে বারো মাসে তেরো পার্বণ। এর ভিতরেই বড় উৎসব হিন্দুর দুর্গোৎসব আর মুসলমানের ইদুল ফিতর, খুশির ইদ, আর খ্রিস্টানের বড় দিন। তিন মহা উৎসব বাদ দিয়ে ধর্মীয় এবং লোকপুরাণের সঙ্গে যুক্ত আরো কত যে উৎসব, টুসু, ভাদু, নবান্ন, থেকে নানা ব্রত শবে বরাত, পীর ফকিরের উরস—সব। সমস্ত উৎসবই আনন্দের, সমস্ত উৎসবই আত্মীয় বান্ধব, অবান্ধবে মিলনের।
বিশদ

কোনও বিঘ্নই বাঙালির পুজোর আনন্দ পণ্ড করতে পারবে না
শুভা দত্ত

পুজো এসে গেল। মহাপূজা। ঝড়বৃষ্টি, বানবন্যার ভ্রুকুটি উপেক্ষা করে শেষপর্যন্ত আমাদের সংবৎসরের আনন্দের দিনগুলো এসে পড়ল দোরগোড়ায়। গত মঙ্গলবার মহালয়ায় দেবীপক্ষের সূচনা হতেই মহামায়া বন্দনার শেষমুহূর্তের তোড়জোড় শুরু হয়ে গিয়েছিল আসমুদ্রহিমাচল বাংলায়। বিশদ

24th  September, 2017
ডায়নেস্টি চালচিত্র ও মাছরাঙা
সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়

রাহুল গান্ধী খুব সত্যি দুটো কথা বলেছেন। কিছুদিন ধরে উনি প্রবাসী। আমেরিকায় রয়েছেন। বিভিন্ন নামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের সঙ্গে কথা বলছেন। ভাব বিনিময় করছেন। সেলফি তুলছেন। এইসব অনুষ্ঠানে প্রায় প্রতিদিনই তিনি ওই কথা দুটি বলেছেন। এ নিয়ে ভারতের রাজনীতিও বেশ সরগরম।
বিশদ

24th  September, 2017
আমেরিকায় শারদোৎসব
আলোলিকা মুখোপাধ্যায়

 প্রবাসে দীর্ঘকাল এক সমান্তরাল জীবনযাপনে অভ্যস্ত বাঙালির দুর্গাপুজোর ছুটি বলে কিছু নেই। দেশে যখন পুজোর ছুটি, এখানে তখন গ্রীষ্ম অবকাশের শেষে স্কুল, কলেজ ইউনিভার্সিটি খুলে গিয়েছে। তবু পুজোর সময় আসে কাছে। মহালয়ার পরে দেবীপক্ষে নির্ধারিত দিনে পুজো হয় রামকৃষ্ণ মিশন, ভারত সেবাশ্রম সংঘ, আদ্যাপীঠ আর আমেরিকার কয়েকটি শহরে বাঙালি প্রতিষ্ঠিত মন্দিরে।
বিশদ

23rd  September, 2017
রীতিনীতি-আচরণে দুর্গাপূজার সেকাল ও একাল
গৌরী দে

 পুরাণ-উপপুরাণ অনুসারে শরৎকালে রামচন্দ্র রাবণ বধের আশায় যে পূজা করেছিলেন সেটাই অকাল বোধন। দক্ষিণায়নে দেবতারা ঘুমিয়ে থাকেন। শরৎকালে শ্রাবণ থেকে পৌষ পর্যন্ত এই কাল। তাই দেবীকে জাগ্রত করতে রামচন্দ্রকে অকাল বোধন করতে হয়। জয়লাভের জন্য তিনি দেবী দুর্গার শরণাপন্ন হন।
বিশদ

23rd  September, 2017
ছেলেবেলার দুর্গাপূজা—কিছু স্মৃতি কিছু বেদনা
ভগীরথ মিশ্র

 ছেলেবেলায় আমাদের গাঁয়ে কোনও বারোয়ারি দুর্গাপুজো হ’ত না। গোটা এলাকা জুড়ে কেবল আমাদের গাঁয়ের জমিদারবাড়িতেই হ’ত পারিবারিক দুর্গাপুজো। সত্যি কথা বলতে কী, দুর্গাপূজাটা গাঁয়ের অধিকাংশ মানুষের কাছেই কোনও সুখকর অভিজ্ঞতা ছিল না।
বিশদ

22nd  September, 2017
বদলে যাচ্ছি আমরা?
সমৃদ্ধ দত্ত

 থিমের পুজো করলেই তো পুরস্কার পাওয়া যায়। স্পনসর পাওয়া যায়। মিডিয়ায় ছবি বেরোয়। কিন্তু কই! তা তো সকলে করে না? কেন করে না? তাহলে সেই লোকগুলোর কী হবে? যাঁরা থিমের পুজো দেখতে মোটেই আগ্রহী নয়।
বিশদ

22nd  September, 2017
অভিযুক্তের গায়ে নারীঘটিত অপবাদের কাদা না ছেটালে কি শাস্তি অসম্পূর্ণ থাকত!
মেরুনীল দাশগুপ্ত

সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়, ব্রতীন সেনগুপ্ত, লক্ষ্মণ শেঠ, রেজ্জাক মোল্লা, সইফুদ্দিন চৌধুরির মতো অনেক তাবড় নেতাকেই নানা সময় দল ছাড়তে হয়েছে। বহিষ্কারের অপমান বইতে হয়েছে। কিন্তু, কারও গায়ে এত কালি লাগাবার দরকার কি পড়েছিল? পড়েনি। বাদবাকি সকলের ক্ষেত্রেই শাস্তির ব্যাপারটা দলীয় নীতি-নৈতিকতার দ্বান্দ্বিক পরিসরেই সীমাবদ্ধ ছিল।
বিশদ

21st  September, 2017
একনজরে
বার্লিন, ২৫ সেপ্টেম্বর: বুথ ফেরত সমীক্ষায় পাওয়া আভাসই শেষমেশ সত্য হল। চতুর্থবার জার্মানির চ্যান্সেলর নির্বাচিত হলেন অ্যাঞ্জেলা মার্কেলই। ৩২.৯ শতাংশ ভোট পেয়েছে মার্কেলের দল। আর ...

বিএনএ, শিলিগুড়ি ও সংবাদদাতা দার্জিলিং: সোমবার দার্জিলিংয়ের লালকুঠিতে জিটিএ’র প্রশাসক পর্ষদের চেয়ারম্যান হিসাবে কাজে যোগ দিলেন মোর্চা নেতা বিনয় তামাং। সোমবার আধিকারিকদের নিয়ে প্রথম বৈঠকেই ...

 বাংলা নিউজ এজেন্সি: মহাপঞ্চমীতে বাঁকুড়া, পুরুলিয়া ও আরামবাগে বহু পুজোর উদ্বোধন হয়ে গেল। এদিন বিকাল থেকেই জেলার মণ্ডপগুলিতে দর্শনার্থীদের ঢল নামতে শুরু করে। তবে, এদিনও কয়েকটি পুজোর প্যান্ডেলে শিল্পীদের শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি সারতে দেখা যায়। ...

 চেন্নাই, ২৫ সেপ্টেম্বর (পিটিআই): জয়ললিতার মৃত্যুর কারণ নিয়ে শশীকলা শিবিরের উপর চাপ আরও বাড়াতে সোমবার তদন্ত কমিশন গঠন করল তামিলনাড়ু সরকার। তদন্তে কমিশনের নেতৃত্ব দেবেন হাইকোর্টের একজন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি। ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

গুপ্ত শত্রুতা বৃদ্ধি। কর্মে উন্নতি। ব্যবসায় অতিরিক্ত সতর্কতার প্রয়োজন। উচ্চশিক্ষায় সাফল্য। শরীর-স্বাস্থ্য ভালো যাবে।প্রতিকার: বট ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮২০: মনীষী ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের জন্ম
১৯২৩: অভিনেতা দেব আনন্দের জন্ম
১৯৩২: ভারতের চতুর্দশ প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের জন্ম
১৯৭৭: নৃত্যশিল্পী উদয়শংকরের মৃত্যু
১৯৮৯: সঙ্গীতশিল্পী হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৪.০১ টাকা ৬৫.৬৯ টাকা
পাউন্ড ৮৬.২৫ টাকা ৮৯.১৭ টাকা
ইউরো ৭৬.০১ টাকা ৭৮.৬৬ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩০,২৫৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৮,৭০৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৯,১৩৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৯,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৯,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৯ আশ্বিন, ২৬ সেপ্টেম্বর, মঙ্গলবার, ষষ্ঠী, নক্ষত্র-অনুরাধা দং ৩/৫১ দিবা ঘ ৭/৩, সূ উ ৫/৩০/২, অ ৫/২৬/১২, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৬/১৭ মধ্যে পুনঃ ৭/৫ গতে ১১/৪ মধ্যে। রাত্রি ঘ ৭/৪৯ গতে ৮/৩৯ মধ্যে পুনঃ ৯/২৭ গতে ১১/৫২ মধ্যে পুনঃ ১/২৯ গতে ৩/৬ মধ্যে পুনঃ ৪/৪১ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৬/৫৯ গতে ৮/২৯ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৮ গতে ২/২৮ মধ্যে, কালরাত্রি ৬/৫৯ গতে ৮/২৮ মধ্যে।
৯ আশ্বিন, ২৬ সেপ্টেম্বর, মঙ্গলবার, ষষ্ঠী, অনুরাধানক্ষত্র ৭/৯/৪, সূ উ ৫/২৮/৩৬, অ ৫/২৭/১৩, অমৃতযোগ দিবা ৬/১৬/৩০, ৭/৪/২৫-১১/৩/৫৭, রাত্রি ৭/৫১/৩০-৮/৩৯/৩৫, ৯/২৭/৪১-১১/৫১/৫৭, ১/২৮/৮-৩/৪/১৯, ৪/৪০/৩০-৫/২৮/৫৬, বারবেলা ৬/৫৭/২৬-৮/২৮/১৫, কালবেলা ১২/৫৭/৪৪-২/২৭/৩৪, কালরাত্রি ৬/৫৭/২৩-৮/২৭/৩৪।
 ৫ মহরম

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ভিড়ের জেরে আজও বাড়ানো হল রাতের শেষ মেট্রোর সময় 
ষষ্ঠীর রাতে কলকাতা শহরে জনজোয়ারের জেরে এদিনও রাতের ...বিশদ

09:42:56 PM

সল্টলেকের ইসি ব্লকের কাছে অটো উলটে চালক-সহ জখম ৪

02:37:00 PM

বড়সড় রেল দুর্ঘটনায় হাত থেকে রক্ষা, একই লাইনে চলে এল ৩টি ট্রেন
বড়সড় রেল দুর্ঘটনায় হাত থেকে রক্ষা। এলাহাবাদের কাছে ...বিশদ

01:44:46 PM

গাজিয়াবাদে ব্যবসায়ীকে খুন, মৃতের নাম রাজেন্দ্র আগরওয়াল (৭৫)

01:24:00 PM

আজ দিল্লি আদালতে দুপুর ২টো নাগাদ হানিপ্রীতের আগাম জামিনের শুনানি

01:19:00 PM

দার্জিলিংয়ে খুলল অধিকাংশ দোকানপাট

01:08:00 PM

ঝাড়গ্রামে ২টি বাড়িতে দুঃসাহসিক চুরি
সোমবার রাতে ঝাড়গ্রাম শহরের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের বামদা এলাকায় চুরির ...বিশদ

01:01:00 PM