বিশেষ নিবন্ধ
 

জলেই হাবুডুবু তবু জলের অভাব ঘোচে না হতভাগা সুন্দরবনের

সুব্রত চট্টোপাধ্যায়: জলে দেশ হাবুডুবু/ জলের অভাব ঘোচে না তবু। কোন সেই দেশ? ধরলাম এটা ধাঁধাই। তাহলে ধাঁধার উত্তরটা হবে ‘সুন্দরবন’। জলে জলে এখানে ছয়লাপ, আবার পাশাপাশি জল-সংকট। এখানে নদীবাঁধ ভাঙলে জল, অঢেল জল, নদী উপচে জল, বাঁধের গোড়ায় ঘোগ হয়ে জল, চোদ্দো গন্ডা নদী, নদী বোঝাই জল। ৩ ভাগ কেন, ৪ ভাগই জলের দখলে, মানুষ যেন এখানে জলচর প্রাণী। বাঁধ ভাঙলে এক তাল মাটিও খুঁজে পাওয়া যায় না। মিঠে জলের কলটাও তখন জলের তলে। নোনা এক উপসাগরের গা-জোয়ারি জলের অদ্ভুত এক পৃথিবী এই সুন্দরবন। কত সুজলা (?) বলুন তো। অথচ পৃথিবীর জল-আকালের অন্যতম সাক্ষী এই সুন্দরবন। মহারাষ্ট্রের থেকেও জলের আকাল এখানে? হয়তো।
যা হোক একটু চাষ আছে তো চাষের জলটা পর্যাপ্ত নেই, ঘরে দু’মুঠো ভাত আছে তো খাওয়ার জলের টানাটানি। বীজ, সার আছে তো শ্যালোর জল বড় কম, পর্যাপ্ত শ্যালো নেই। বৃষ্টির জল ধরে রাখার পাত্রও কম, খাল-কাটার হুজুগ গড়ে ওঠেনি। অতি বৃষ্টিতেও জল জমে থাকে ৩ দিন ৭ দিন। ডোবা-কনকনাগুলি খরোকালে শুকিয়ে কাঠ। পুকুর? বৈশাখ মাসে তাতে হাঁটুজল থাকে। সে জলে গা ভেজে না, কাক-চানটাই শুধু হয়। হাতে গোনা কটা টিউকল, দূর থেকে কলসি কলসি জল বইতে হয়, বউ-ঝিদের কাঁখ থাকে না, গায়ের জোরে কল টেনেও ফোঁটা ফোঁটা জল। এমন একটা সময় গিয়েছে—জলের কল নেই, পুকুরের জলই ভরসা, নদীর নোনা জলে তেঁতুল গুলে সেই জল খেয়েছে মানুষ। ষাটের দশকে গোসাবার বেলতলি, বটতলি, জেলেপাড়া, চণ্ডীপুর, পাঠানখালিতে মাটির নীচে জলের লেয়ার ছিল না, কল বসানো যায়নি, নৌকা করে জল আনতে হয়েছে মসজিদবাটি বাসন্তী থেকে। সমস্যা এখন ততটা নেই, তবে যেটুকু আছে মন্দ নয়। তবু বাঁচোয়া যে—এখানে কলকারখানা নেই। থাকলে ভোগান্তি আরও ছিল।
পৃথিবীতে নাকি একটা জলদিবস আছে। জলসচেতনতা বাড়াতে এই দিবস। সব কথাই এ দিবসে উঠুক। জলের অপচয়, জলের আকাল, নোনা জলের হাত থেকে পরিত্রাণ—সব কথাই। জল চাই, আবার জলের হাত থেকে বাঁচতে চাই। এখানে বাঁধ ভাঙলে এক গলা জলে দাঁড়িয়ে বলতে হয়—জল দাও। আয়লার কথা মনে নেই? জলে ডুবতে ডুবতে মানুষ এক ঢোক জল চেয়েছে। এতে জলদিবস পালনে লজ্জা লাগার কথা। সুন্দরবনে নদীবাঁধ নেই বলা যাবে না। তবে আছে পিঁপড়ের মতো সরু বাঁধ। ১৯৪৭-এর আগে যাচ্ছি না। ধরছি ওখান থেকেই। পিঁপড়েগুলো টিপলে মরে যায়, বাঁধগুলো টিপলেও ভচ করে ভাঙে। অথচ এখানে ইকো ট্যুরিজম হচ্ছে ফিশ ট্যুরিজম হচ্ছে। খুব ভালো এসব। বিদ্যুৎও যাচ্ছে একটু একটু করে, বিশ গন্ডা স্কুল হয়েছে, কলেজও। হয়তো ৩টে ছিল, এখন ৫টা। সে হোক। কিন্তু জলটাও চাই। মিঠে জল এবং যথেষ্ট জল। কী খাওয়ার, কী চাষের, কী স্নানের। কটা শ্যালো এখানে? হাতে গোনা যায়। চাষের জন্য আরও চাই। বোরো চাষ আর কমজোরি থাকবে কতদিন। মাঘে-ফাল্গুনে লংকা-শসা-ঝিঙের চারা ডগমগিয়ে ওঠে, বৈশাখে ঝিমুতে থাকে। জল নেই ছ্যামোত টেনে টেনে কাঁহাতক পারা যায়। ম্যাঘ দে পানি দে বললেই কি আর পানি হয়! অতএব খরায় ডোবে ফসল। অথবা দিন কতক পর হল ঝমঝমিয়ে বর্ষা। জমল জল, বেরুবার পথ নেই, মার খেল ফসল। এখানে জল জীবন নয়, জল এখানে মরণ। নোনা জল এখানে চাপ চাপ মাটি ভাঙে, ঘর ভাঙে, দ্বীপ ভাঙে। দেখছেন না ঘোড়ামারার অবস্থাটা কী হয়েছে, এই জলের ভয়েই মানুষ ঘর-সংসার বগলদাবা করে মুম্বই-চেন্নাই-গুজরাতে। জলের গুণে এখানে মাটিও নোনা, বাতাসও নোনা।
বছরে গড়ে এখানে ১৩০০ থেকে ১৯০০ মিমি বৃষ্টি। কিন্তু এ জলটা কোথায় যায়? জলটা নোনা নদীতে মিশে নোনাই হয়ে যায়। জল ধরার খাল দরকার। জলটা ধরতে পারলে মানুষের হাতে কনকচুড়, দুধের সর, রূপশালী ধান এনে দিতে পারে এই জলই। জল তখন এখানে জীবন। জলই হিরো। বড় একটা ক্যারেক্টার। কী না পারে সে! মানুষের মুখে হাসি ফোটাতেও পারে। শুধু তার নোনাটা কি একটু কাটানো যায় না? ইচ্ছে করলে চেষ্টা করলে কাটানো যায়। কিন্তু তখন পয়সার টানাটানির কথা ওঠে। অত পয়সা কোথায়! সুন্দরবনের তাই কিছু অভিমান আছে—১) সবার বেলায় পয়সা হয়, তার বেলায় হয় না। শহরে কোটি কোটি টাকার প্রকল্প হয়। তার বেলায়? তার বেলায় পয়সা নেই, ২) গতবারের ভোটপ্রচারে কত কথা হল। পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষা নিয়ে, স্বাস্থ্য নিয়ে, যাতায়াত নিয়ে, আর সেই সঙ্গে কত পিএনপিসি। এখানকার জলের কথা নেই। ওঠেনি। অথচ সুন্দরবন জলকষ্টে হিমশিম। জলের মতো গড়িয়ে যাচ্ছে সময়, কত কত কাজে জলের মতো বেরিয়ে যাচ্ছে পয়সা, নোনা জল নিয়ে মানুষের ঘর-সংসার এখনও কতদিন? পৃথিবীতে জলদিবস, পরিবেশ দিবস, জলবায়ু দিবস সবই আছে। পরিবেশ বিজ্ঞানীরা নানা সময়ে নানা বিপদের ঘণ্টা বাজিয়ে চলেছেন। তাই জল নিয়ে স্বচ্ছ একটা ভাবনা দরকার। পৃথিবীর মানুষের ভাগে যে মোট জলটা আছে, তার মধ্যে এখানকার ৫০ লাখ মানুষের জলের অনুপাতটাই বা কত? একটু হিসাব হোক। শুধু শহরে জল থাকলেই পশ্চিমবঙ্গ সুখী? কয়েকটা জেলাও নাকি খাওয়ার জলে চাষের জলে দিব্যি আছে। আর সুন্দরবন? মরুভূমির উটের মতোই কি তাকে অভিযোজনের পথ ধরতে হবে?
18th  April, 2017
 লালবাজার অভিযান: মমতার চালে বিজেপি মাত!

শুভা দত্ত: সিপিএমের নবান্ন অভিযানের ধাঁচে লালবাজার অভিযান করে রাজ্যবাসীকে চমকে দিতে চেয়েছিল রাজ্য বিজেপি। সেই মতো অভিযানের অনেক আগে থেকে তোড়জোড় প্রস্তুতিও চলেছিল জোরকদমে। রাজ্যের দায়িত্বপ্রাপ্ত দিল্লি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয় থেকে দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এই অভিযানের প্রচারে গত কয়েকদিন ধরে যে মনোভাব ব্যক্ত করেছিলেন তার মোদ্দা কথা ছিল, লড়কে লেঙ্গে ধাঁচের। বিশদ

 হুট বলতে ফুট কাটার অসুখ

 সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়: আমার এক বন্ধু প্রায়ই ভারী অদ্ভুত অদ্ভুত কথা বলে। যেমন, জ্বর-জ্বালা, বুক ধড়ফড়ানি, হাঁপানি বা এই ধরনের নানান ব্যামোই শুধু অসুখ বা রোগ নয়। অপ্রয়োজনে মিথ্যে কথা বলা কিংবা আমরা যাকে চলতি ভাষায় ‘গুল’ মারা বলি সেগুলোও নাকি অসুখ। এবং এই সব ধরনের অসুখেরও নাকি ওষুধ আছে।
বিশদ

নদী তুমি কার

বিশ্বজিৎ মুখোপাধ্যায়: ১৯৪৭ সালে দ্বিখণ্ডিত স্বাধীনতা কেবলমাত্র মানুষকে ভাগ করেনি, প্রাকৃতিক সম্পদেও ভাঙনের সাতকাহন সূচিত করে দেয়। অবশ্য দ্বিখণ্ডিত স্বাধীনতা পাবার আগে ব্রিটিশ শাসকদের সঙ্গে ভারতবর্ষের নেতৃত্ব যখন আলোচনা আরম্ভ করেন তখনই ভারতবর্ষ দ্বিখণ্ডিত হলে প্রাকৃতিক সম্পদ বিশেষ করে জলবণ্টনের নীতি কীভাবে স্থিরীকৃত হবে সে ব্যাপারে কয়েকজন আলোচনাকারী উত্থাপন করলেও, দ্বিখণ্ডিত স্বাধীনতা লাভ করার দুরন্ত আশা তদানীন্তন রাজনৈতিক নেতাদের মোহাচ্ছন্ন করে রেখেছিল।
বিশদ

27th  May, 2017
চীন, পাকিস্তান বেজিংয়ে ফাঁকা মাঠ পেয়ে গেল ভারতের কূটনৈতিক ভুলের কারণে

কুমারেশ চক্রবর্তী: মাত্র কিছু দিন আগে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থা আইসিসি’র এক ভোটে ৯-১ ভোটে হেরে প্রমাণ করল ক্রিকেট বিশ্বে ভারত কতটা বন্ধুহীন। যেসব দেশকে ভারত হাতে করে জাতে তুলেছে তারাও ভারতের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছে।
বিশদ

27th  May, 2017
ভুলে যাওয়ার রাজনীতি

 সমৃদ্ধ দত্ত: আমাদের প্রিয় গুণ হল ভুলে যাওয়া। রাজনৈতিক নেতানেত্রীরা সেটা জানেন। তাই তাঁদের খুব সুবিধা হয় আমাদের বোকা বানাতে। এই তো মার্চ মাসে সংগীতশিল্পী কালিকাপ্রসাদের মর্মান্তিক মৃত্যুর পর সোশ্যাল মিডিয়া এবং ব্যক্তিগত আলাপচারিতায় বাংলা সংগীতজগতের অপূরণীয় ক্ষতির জন্য যথার্থ শোকজ্ঞাপন করা হয়েছিল।
বিশদ

26th  May, 2017
রোমান্টিক বিপ্লবের ৫০ বছর নকশালবাড়ি

অভিজিৎ দাশগুপ্ত: আগে কোনওদিন এই স্টেশনটা আমি দেখিনি। শহরের রাস্তা থেকে সরাসরি উঠে গিয়েছে ওভারব্রিজ। কয়েকটা রেললাইনের পরে সারি সারি ওয়াগনের পাশে শান্টিং করছে একটা ডিজেল ইঞ্জিন। এই স্টেশনটা আমি বা আমার মতো অনেকেই হয়তো আগে চোখে দেখিনি।
বিশদ

25th  May, 2017
 ভারতীয় সেনাবাহিনী ভালোভাবেই জানে কীভাবে শিক্ষা দেওয়া যায়

অরুণ রায়: পাকিস্তান আমাদের সৈন্যকে মেরেছে। তাই যুদ্ধ চাই। যুদ্ধ করেই পাকিস্তানকে উচিত শিক্ষা দেওয়া যাবে। এই ভাবনা এখন সবথেকে বেশি চর্চিত। কিন্তু এটা মাথায় রাখতে হবে যুদ্ধ কখনওই কাম্য নয়। যুদ্ধ কোনও দেশই চায় না। সবচেয়ে বড় কথা, আমার মনে হয় যুদ্ধের জন্য পাকিস্তান বা আমরা কেউই তেমন তৈরি নয়।
বিশদ

25th  May, 2017
লোকসভার ভোট যখনই হোক এবার
মমতাই হবেন মোদির প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী

হিমাংশু সিংহ : অধীরবাবুরা এতদিন রাজনীতি করছেন, এত দীর্ঘ সময় সংসদীয় রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত এখনও কংগ্রেস নেতৃত্বের মেজাজটাই বুঝতে পারেন না। গত বিধানসভা ভোটে এ রাজ্যে সিপিএমের সঙ্গে জোট করে, খুলে আম বুদ্ধদেববাবুর সঙ্গে মালাবদল করে কংগ্রেসের কোন লাভটা হয়েছে? 
বিশদ

24th  May, 2017



একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: মাধ্যমিকে কলকাতার ফল এবার কিছুটা মিশ্র। পাশের হার কমলেও প্রথম ১০টি স্থানের মেধাতালিকায় (মোট ৬৮ জন) কলকাতা থেকে রয়েছে পাঁচজন। আর কলকাতার এই কৃতিত্বের সিংহভাগ দাবিদার যাদবপুর বিদ্যাপীঠ। এই স্কুল থেকেই রয়েছে তিনজন ছাত্র। ...

  নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: রবীন্দ্র সরোবর স্টেডিয়ামে রাতে ম্যাচ করা নিয়ে জট আরও বাড়ল। কয়েক মাস আগে গ্রিন ট্রাইব্যুনাল রবীন্দ্র সরোবরের বিপন্ন পরিবেশ ও ইকো সিস্টেম বজায় রাখতে একটি কমিটি গঠন করে। সেই ঘোষাল কমিটি সুপারিশ করেছে সন্ধ্যা সাতটার পর ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: রাজ্যে কারখানা খুলতে ২৫০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করছে আমূল। হাওড়ার সাঁকরাইলের ফুডপার্কে ওই বিনিয়োগ হচ্ছে। ইতিমধ্যেই সরকারের থেকে তারা জমি কিনেছে বলে জানিয়েছে আমূল। তাদের বক্তব্য, নতুন প্রসেসিং কারখানায় দিনে ১০ লক্ষ লিটার দুধ প্রসেস করার ক্ষমতা ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ফের কলকাতাকে পিছনে ফেলে দিল জেলার সরকারি স্কুলগুলি। জেলার সরকারি স্কুল থেকেই ১৪ জন পড়ুয়া প্রথম ১০টি স্থানের মধ্যে জায়গা করে নিয়েছে। কলকাতার ভাগ্যে জোটেনি একজনও। তবে সরকারি স্কুলের গৌরব এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে বাঁকুড়া জেলা স্কুল। ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মপ্রার্থীদের ক্ষেত্রে শুভ। যোগাযোগ রক্ষা করে চললে কর্মলাভের সম্ভাবনা। ব্যাবসা শুরু করলে ভালোই হবে। উচ্চতর ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৮৩- স্বাধীনতা সংগ্রামী বিনায়ক দামোদর সাভারকারের জন্ম
১৯২৩- রাজনীতিক ও তেলুগু দেশম পার্টির প্রতিষ্ঠাতা এনটি রামা রাওয়ের জন্ম
২০১০- পশ্চিমবঙ্গে জ্ঞানশ্বেরী এক্সপ্রেস দুর্ঘটনায় অন্তত ১৪১জনের মৃত্যু




ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৩.৭৪ টাকা ৬৫.৪২ টাকা
পাউন্ড ৮১.৭৫ টাকা ৮৪.৭২ টাকা
ইউরো ৭১.০৭ টাকা ৭৩.৬০ টাকা
27th  May, 2017
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ২৯,৩৪৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৭,৮৪০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৮,২৬০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,৪০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,৫০০ টাকা

দিন পঞ্জিকা

১৪ জ্যৈষ্ঠ, ২৮ মে, রবিবার, তৃতীয়া দিবা ২/৫, আর্দ্রানক্ষত্র দিবা ৩/৩১, সূ উ ৪/৫৬/১২, অ ৬/১১/২০, অমৃতযোগ দিবা ৬/৪২-৯/২১ পুনঃ ১২/০-২/৩৮ রাত্রি ৭/৩৬ পুনঃ ১০/২৮-১২/৩৮, বারবেলা ৯/৫৪-১/১৩, কালরাত্রি ১২/৫৪-২/১৫।
১৩ জ্যৈষ্ঠ, ২৮ মে, রবিবার, তৃতীয়া সন্ধ্যা ৬/২৭/২৫, আর্দ্রানক্ষত্র রাত্রি ৭/৫৮/৯, সূ উ ৪/৫৪/৫৬, অ ৬/১১/৫৫, অমৃতযোগ দিবা ৬/৪১/১২-৯/২০/৩৬, ১২/০/০-২/৩৯/২৩ রাত্রি ৭/৩৭/৩৯, ১০/২৯/৭-১২/৩৭/৪৩, বারবেলা ৯/৫৩/৪৮-১১/৩৩/২৬, কালবেলা ১১/৩৩/২৬-১/১৩/৩, কালরাত্রি ১২/৫৩/৪৮-২/১৪/১১।
১ রমজান
ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের মাসব্যাপী রোজা আরম্ভ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
শ্রীলঙ্কায় বন্যা: ত্রাণসামগ্রী নিয়ে কলম্বো পৌঁছাল ভারতীয় নৌসেনা জাহাজ আইএনএস শার্দূল

03:21:58 PM

পার্কস্ট্রিটে কর্পোরেশন ব্যাংকে আগুন, ঘটনাস্থলে ৪টি দমকলের ইঞ্জিন
রবিবার দুপুরে পার্কস্ট্রিটে কর্পোরেশন ব্যাংকে আগুন। ঘটনাস্থলে ৪টি দমকলের ইঞ্জিন। এখনও আগুন জ্বলছে ব্যাংকে ভিতরে। এলাকায় ব্যাপক ধোঁয়া। প্রায় ৪০ মিনিট ধরে আগুন জ্বলছে। দমকল ও পুলিশ কর্মীরা ব্যাংকের শাটার খোলার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ঘটনাস্থলে কলকাতা পুলিশের ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট টিমের আধিকারিকরা। যদিও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে দমকলের পক্ষ থেকে। দমকল কর্মীদের অনুমান কর্পোরেশন ব্যাংকের সার্ভার রুম থেকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটেছে।

03:20:24 PM

শ্রীলঙ্কায় বন্যা: মৃতের সংখ্যা ১২৬

03:17:49 PM

বাঁকুড়ার ধলডাঙ্গার কাছে উলটে গেল যাত্রীবাহী বাস, জখম ৮
বাইক আরোহীকে বাঁচাতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে উলটে গেল বাঁকুড়া-বিষ্ণুপুর রুটের একটি যাত্রীবাহী বাস। বাঁকুড়ায় ৬০ নম্বর জাতীয় সড়ক সংলগ্ন ধলডাঙ্গার কাছে ওই দুর্ঘটনা ঘটে। পুলিশ সূত্রে খবর, এক অন্তঃসত্বা মহিলা-সহ জখম আট বাসযাত্রীকে বাঁকুড়া মেডিকেলে ভরতি করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে দু'জনের চোট গুরুতর।

01:17:00 PM

মুর্শিদাবাদে ট্রাক্টর ও বাইকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, মৃত ১
ট্রাক্টর ও বাইকের মুখোমুখি সংঘর্ষে মৃত্যু হল এক বাইক আরোহীর। রবিবার বেলা সাড়ে ১১টা নাগাদ ঘটনাটি ঘটে মুর্শিদাবাদের ভরতপুর থানার সিজগ্রাম এলাকার দরগাতলার কাছে। পুলিশ সূত্রে খবর মৃতের নাম আশারুল শেখ(২৬)। তাঁর বাড়ি ভরতপুর থানার ভালুইপাড়া গ্রামে।

01:07:00 PM

লালবাজার অভিযানে হাঙ্গামা: পুলিশ ও প্রশাসনের বিরুদ্ধে মামলা করবে বিজেপি, মুর্শিদাবাদের সাংবাদিক সম্মেলনে জানালেন রাহুল সিনহা
লালবাজার অভিযানের হাঙ্গামা নিয়ে পুলিশ ও প্রশাসনের বিরুদ্ধে পালটা মামলা ঠুকবে বিজেপি। রবিবার মুর্শিদাবাদ জেলার বহরমপুরে সাংবাদিক সম্মেলনে একথা বললেন বিজেপির কেন্দ্রীয় কমিটির সম্পাদক রাহুল সিনহা। তিনি বলেন, বিজেপির লালবাজার অভিযানে তৃণমূল গুন্ডাদের নিয়ে পুলিশ লাঠি চার্জ করেছে। বেমো ফাটিয়েছে। এ ব্যাপারে আমরা পুলিশ ও প্রশাসনের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা করব। বিষয়টি নিয়ে আইনজীবীদের সঙ্গে পরামর্শও করা হচ্ছে। পাশাপাশি ওই ঘটনা নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারকের নেতৃত্ত্বে বিচারবিভাগীয় তদন্ত চান বলেও দাবি করেন তিনি।

01:02:00 PM






বিশেষ নিবন্ধ
 লালবাজার অভিযান: মমতার চালে বিজেপি মাত!
শুভা দত্ত: সিপিএমের নবান্ন অভিযানের ধাঁচে লালবাজার অভিযান করে রাজ্যবাসীকে চমকে দিতে চেয়েছিল রাজ্য বিজেপি। ...
 হুট বলতে ফুট কাটার অসুখ
 সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়: আমার এক বন্ধু প্রায়ই ভারী অদ্ভুত অদ্ভুত কথা বলে। যেমন, জ্বর-জ্বালা, বুক ধড়ফড়ানি, ...
নদী তুমি কার
বিশ্বজিৎ মুখোপাধ্যায়: ১৯৪৭ সালে দ্বিখণ্ডিত স্বাধীনতা কেবলমাত্র মানুষকে ভাগ করেনি, প্রাকৃতিক সম্পদেও ভাঙনের সাতকাহন সূচিত ...
চীন, পাকিস্তান বেজিংয়ে ফাঁকা মাঠ পেয়ে গেল ভারতের কূটনৈতিক ভুলের কারণে
কুমারেশ চক্রবর্তী: মাত্র কিছু দিন আগে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থা আইসিসি’র এক ভোটে ৯-১ ভোটে ...
ভুলে যাওয়ার রাজনীতি
 সমৃদ্ধ দত্ত: আমাদের প্রিয় গুণ হল ভুলে যাওয়া। রাজনৈতিক নেতানেত্রীরা সেটা জানেন। তাই তাঁদের খুব ...