বিশেষ নিবন্ধ
 

 বৈশাখী ভাবনায় অশনি সংকেত

সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়: দু’তিন বছর ধরে এই নতুন উপদ্রবটা শুরু হয়েছে। একটু-আধটু কথা, ছোটখাট দাবি উঠেছিল। কিন্তু বিশেষ কেউ খুব একটা পাত্তা দেয়নি। এবার ব্যাপারটা একটু বেশিই পেকে গিয়েছে। দাবিটা এবার আরও জোরালোভাবে উঠেছে। কেউ কেউ এর মধ্য দিয়ে অশনি সংকেতের আভাস পাচ্ছে।
আমি বাংলাদেশের কথা বলছি। সেখানে বাংলা নববর্ষ উদ্‌যাপন এবারেও ধুমধামের সঙ্গে পালিত হয়েছে। কিন্তু গলায় একটা কাঁটা খচখচ করছে তো করছেই। একটা সংশয় মনের মধ্যে চাগিয়ে উঠছে। বাঙালির একান্ত এই প্রাণের উৎসব, যা কিনা আদ্যন্ত অসাম্প্রদায়িক, আগামীদিনে তা নিরুপদ্রবে পালন করা যাবে তো?
এমন আশঙ্কার কারণ অনেক। বছর দুয়েক আগে উগ্র ধর্মীয় সংগঠনগুলি জিগির তোলে, পয়লা বৈশাখ আদ্যন্ত হিন্দু বাঙালিদের উৎসব। এর সঙ্গে ইসলামের কোনও সম্পর্ক নেই। সম্পর্ক তো দূরের কথা, পয়লা বৈশাখ উদ্‌যাপন নাকি ইসলাম বিরোধী। দাবিটাকে সে সময় বিশেষ কেউ আমল দেয়নি। বরং গোটা বাংলাদেশ ১৪ এপ্রিলের ভোর থেকে রাজপথে নেমে এসেছিল।
বর্ণাঢ্য রঙিন শোভাযাত্রায় ঝলমল করে উঠেছিল দেশের প্রতিটি নগর প্রান্তর। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইয়া বড় বড় মুখোশ নিয়ে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়। এবারেও হল। পয়লা বৈশাখের মঙ্গল শোভাযাত্রাকে ইউনেসকো বিশ্ব ঐতিহ্য হিসাবে স্বীকৃতি দিয়েছে। এ এক অনন্য সম্মান। সুন্দরবন ও মঙ্গল শোভাযাত্রা দুই বিশ্ব ঐতিহ্য আজ বিপন্নতার মুখোমুখি। সন্দেহ নেই বড় সংকট। বড় দুশ্চিন্তা।
বাংলাদেশে বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী কউমি মাদ্রাসায় পড়ে। এই কউমি মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠানই হেফাজতে ইসলাম। তারা মনে করে (এবং বিশ্বাসও), পয়লা বৈশাখ উদ্‌যাপন ইসলামি সংস্কৃতির সঙ্গে মেলে না। শুধু তাই নয়, তাদের মতে, এটি একটি আদ্যন্ত হিন্দু উদ্‌যাপন। হেফাজতে ইসলামের সঙ্গে জামাত ইসলামের সম্পর্ক কিছু কিছু ক্ষেত্রে আম ও দুধের মতো। জামাত ইসলামির নায়েব আমিরের একটা বিবৃতি কাগজে পড়লাম। তিনি বলেছেন, ‘মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয় হিন্দু সমাজে শ্রীকৃষ্ণের জন্মদিনে। তারা তাদের বিশ্বাস অনুযায়ী মঙ্গলের প্রতীক হিসেবে পেঁচা, রামের বাহক হিসেবে হনুমান, দুর্গার বাহক হিসেবে সিংহ, দেবতা হিসেবে সূর্য এবং অন্যান্য প্রাণী ও পশুর মুখোশ নিয়ে ওই দিন শোভাযাত্রা করে। ওঁর মতে, এর সঙ্গে বাংলা নববর্ষের কোনও সম্পর্ক নেই।’
এই মনোভাব এবার পয়লা বৈশাখের আগে বাংলাদেশের একাংশকে বেশ প্রভাবিত করেছে। বাংলাদেশের সুন্দরতম অঞ্চল চট্টগ্রামে চৈত্র সংক্রান্তির দিন একটা ঘটনা ঘটল। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা বর্ষবরণের জন্য রাস্তার ধারে দেওয়ালচিত্র এঁকেছিলেন। রাতের অন্ধকারে ইসলামি মৌলবাদী শক্তি সেই অনুপম শিল্পের ওপর পোড়া মোবিলের কালো পোঁচ লেপে দেয়। প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা ফের হাতে তুলে নেন রং-তুলি। নতুন করে তাঁরা রাঙিয়েই শুধু তোলেননি নতুন দেওয়াল, সেই সঙ্গে দেশজোড়া প্রতিবাদে কণ্ঠও মেলান। পালিত হয় নববর্ষ, মৌলবাদীদের ধিক্কার জানানোর মধ্য দিয়ে।
প্রগতিশীল ও শুভ চিন্তার মানুষজন এই মনোভাবকেই আগামী দিনের বড় বিপদ হিসাবে দেখছেন। এই ভাবনাচিন্তার কারণও আছে।
সামরিক শাসক হুসনে মোবারক এরশাদ বাংলাদেশের সাপ্তাহিক ছুটির দিন রবিবার থেকে সরিয়ে শুক্রবার করে দেন। কী কারণে এটা তিনি করেছিলেন, কাদের সন্তুষ্ট করতে তা বলে না দিলেও চলে। তাঁরই আমলে পয়লা বৈশাখের দিনটি ১৪ এপ্রিল নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়। গত আট বছরেরও বেশি সময় ধরে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিকাশ ঘটানোর মধ্য দিয়ে শেখ হাসিনা দেশটাকে এগিয়ে নিয়ে চলেছেন। স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি যারা যুদ্ধ অপরাধের সঙ্গে জড়িত ছিল, তাদের বিচার শেষে সাজা দিচ্ছেন। কিন্তু এই হাসিনাকেই সমালোচিত হতে হচ্ছে সচেতন নাগরিক সমাজের কাছে, যাঁরা রাজনৈতিকভাবে তাঁর সমর্থক। সমালোচিত হচ্ছেন, কারণ দেশের মৌলবাদীদের চাপে পড়ে তিনি এমন কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যা এই সংকীর্ণ চেতনার বিকাশের সহায়ক এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পরিপন্থী। ভোটের চিন্তাই এমন সিদ্ধান্তের কারণ বলে যাঁরা মনে করেন, তাঁদের ব্যাখ্যায় খুব একটা ভুল আছে বলে হাসিনার একনিষ্ঠ সমর্থকেরাও মনে করেন না। বস্তুত, হাসিনার এই আত্মসমর্পণ তাঁদের কাছে রহস্যময়।
প্রথম সিদ্ধান্তটি এই বছরের একেবারে গোড়ায় নেওয়া। মৌলবাদীরা প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরে স্কুল শিক্ষার টেক্সট বইয়ে বেশ কিছু পরিবর্তনের দাবি জানায়, যা নাকি ‘ইসলাম বিরোধী’। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে আঁকড়ে বেড়ে ওঠা বিস্মিত নাগরিক সমাজ দেখল, বাংলা টেক্সট বই থেকে একটার পর একটা কবিতা, গল্প ছেঁটে দেওয়া হল। ক্লাস ওয়ানের ছেলেমেয়েরা আজন্মকাল ধরে যেখানে ‘অ’-এ অজগর আসছে তেড়ে শিখে আসছে, এই প্রথম তারা ‘ও’-এর ক্ষেত্রে ওল খেয়ো না ধরবে গলা আর পড়বে না। ‘ও’-এ ওল-এর স্থান নিয়েছে ‘ওড়না’, যা মুসলমান মেয়েদের কাছে ‘মাস্ট’। তারা পড়বে ‘ও’-তে ওড়না চাই। প্রশ্ন উঠেছিল, ক্লাস ওয়ানে ওড়নার প্রয়োজনীয়তা কোথায়? তাছাড়া ওড়না তো শুধু মেয়েদের। ছেলেদের সঙ্গে এর কী সম্পর্ক? হেফাজতের জবাব ছিল, ওড়না মুসলমান সংস্কৃতির সঙ্গে সংগতিপূর্ণ। অতএব বিতর্কের অবকাশ থাকা উচিত নয়।
ক্লাস সিক্সের ছেলেমেয়েদের উত্তর ভারত ঘুরে একটা লেখার বিষয় বহুকাল ধরে চালু ছিল। সেটা বদলে গেল। ফিরে এসেছে সৈয়দ মুজতবা আলির ‘নীলনদ আর পিরামিডের দেশে’। নবম ও দশম শ্রেণিতে বাদ গিয়েছে মঙ্গলকাব্যের ‘আমার সন্তান’, সঞ্জীবচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ‘পালামৌ’, বাউলের ওপর লেখা ‘সময় গেলে সাধন হবে না’। পঞ্চম শ্রেণিতে বদলানো হয় হুমায়ুন আজাদের ‘বই’ ও গোলাম মোস্তাফার ‘প্রার্থনা’ কবিতা। হেফাজতের অভিযোগ, হুমায়ুন আজাদ ‘স্বঘোষিত নাস্তিক’। এই হুমায়ুন আজাদই আক্রান্ত হয়েছিলেন উগ্রবাদীদের হাতে। অষ্টম শ্রেণির পাঠ্যপুস্তক থেকে বাদ দেওয়া হয় উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরীর লেখা ‘রামায়ণ কাহিনি’র আদিকাণ্ড ও শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ‘লালু’ গল্প। কেন? না, রামায়ণের সঙ্গে ইসলামের কোনও সম্পর্ক নেই, আর, ‘লালু’ গল্পে পাঁঠা বলির নিয়ম-কানুন শেখানো হয়েছে। হেফাজতের ২১ জন কেন্দ্রীয় নেতা যৌথ বিবৃতিতে বলেছিলেন, ‘স্কুল পাঠ্যপুস্তকে মুসলিম ছাত্রছাত্রীদের নাস্তিক্যবাদ ও হিন্দুতত্ত্বের পাঠ দেওয়া হচ্ছে। তাদের পড়ানো হয় গোরুকে মায়ের সসম্মান দিয়ে ভক্তি করতে, পাঁঠাবলির নিয়মকানুন, হিন্দু বীরদের কাহিনি, দেব-দেবীর নামে প্রার্থনা, হিন্দু তীর্থস্থান ভ্রমণ করার বিষয়।’
এই দাবির নিট রেজাল্ট? এই বছরের স্কুল পাঠ্যবইয়ের আমূল পরিবর্তন। সপ্তম ও অষ্টম শ্রেণির ১৫ লাখ পাঠ্যপুস্তক ছেপে বেরনোর পর দেখা গেল ‘রামায়ণ কাহিনি’ ও ‘লালু’ তাতে রয়ে গিয়েছে। সোয়া চার কোটি টাকা খরচে ছাপা ১৫ লাখ বই জলাঞ্জলি দিয়ে নতুন করে ফের বই ছাপানো হল। হেফাজতে দেখা দিল যুদ্ধজয়ের উন্মাদনা। শেখ হাসিনার নামে তারা জয়ধ্বনি দিল!
তারা কিন্তু ওখানেই থেমে থাকেনি। এই সেদিন তারা দাবি তোলে, সুপ্রিম কোর্টের সামনে যে-ভাস্কর্য সম্প্রতি স্থাপিত হয়েছে, তা তুলে দিতে হবে।
এই সেদিন আমি ভাস্কর্যটা দেখতে গেলাম। শাড়ি পরা চোখ বাঁধা দণ্ডায়মান এলোকেশী এক নারী। বাঁ হাঁটু সামান্য ভাঙা, সামনের দিকে এগনোর ভঙ্গি। তার ডান হাতে খোলা তরোয়াল, বাঁ হাতে দাঁড়িপাল্লা। দুটি পাল্লা সমান সমান। একচুলও ঝুঁকে নেই কোনওটা। মৌলবাদীদের দাবি গ্রিক দেবীর আদলে ভাস্কর্যটি গড়া এবং তা ইসলাম বিরোধী। অতএব অবিলম্বে তা সরিয়ে ফেলা হোক।
হাসিনা দাবিটি শুনলেন এবং পত্রপাঠ তা খারিজ করলেন না। বরং তাঁর কণ্ঠস্বরে সমর্থনের আভাস একটু যেন পাওয়া গেল। হেফাজতের প্রধান শাহ আমেদ শফির সঙ্গে দেখা করে তাঁকে পাশে বসিয়ে হাসিনা বললেন, ‘আমি নিজেও ওই ভাস্কর্য পছন্দ করিনি। ওটা নাকি গ্রিক ভাস্কর্য। তাই যদি হবে তাহলে শাড়ি কেন? আর গ্রিক ভাস্কর্যই বা এখানে কেন? হাস্যকর। যা হোক, আমি প্রধান বিচারপতির সঙ্গে আলোচনা করব। ধৈর্য ধরুন। এ নিয়ে অযথা হইচই করবেন না।’
কেন হাসিনা পাঠ্যপুস্তকে পরিবর্তন আনলেন? কেন ভাস্কর্য নিয়ে এমন কথা বললেন? ভোট বড় বালাই বলে? কই তিনি তো সংস্কৃতিমন্ত্রী নাট্যব্যক্তিত্ব আসাদুজ্জামান নুরের মতো বলতে পারতেন, ‘হেফাজত যেভাবে একটার পর একটা দাবি জানাচ্ছে তাতে মনে হচ্ছে বাংলাদেশ যেন ইসলামি গণতন্ত্র, গণপ্রজাতন্ত্রী দেশ নয়!’ পয়লা বৈশাখ পালন না-করার দাবি হাসিনার সরকার খারিজ করেছেন। এটা যদি আপাতত সুখের কথা হয়, পাঠ্যপুস্তকের বদল তাহলে চিন্তার কথা। একবার যা ও দেশে বদলায় তা আর কখনও ঘুরে আসে না। দেশের রফতানিকারকেরা চাইলেও শুক্রবারের বদলে রবিবার ছুটির দিন হিসেবে ফেরানো যাবে না। স্থাপত্য প্রত্যাহারের দাবিটা যে মানা হবে না, তাও জোর দিয়ে বলা যাবে না। কে জানে, এইভাবে কোনও এক দিন মৌলবাদীদের চাপে পয়লা বৈশাখ, পয়লা ফাল্গুন উদ্‌যাপনও চৌপাট হয়ে যায় কি না? গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ হয়ে ওঠে ইসলামি প্রজাতন্ত্র? প্রতিষ্ঠিত হয় শরিয়তি আইন?
আরশিনগরের পড়শিরা ১৪২৪-এর প্রথম প্রভাত দুশ্চিন্তামুক্ত রাখতে পারল না।
16th  April, 2017
 বাজেট হাসপাতাল তৈরি দূরদর্শী সিদ্ধান্ত, আগামীদিনে অগ্রাধিকার পাক জেলাও

নিমাই দে: এমন একটা প্রতিযোগিতার বাজারে, যেখানে সরকার বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মৌচাকে ঢিল মারতে নামছে, সেখানে সরকারি হাসপাতাল চত্বরে বাজেট হাসপাতালই হোক, হোক পলিক্লিনিক বা পে ক্লিনিক, একটা জিনিস অবশ্যই নজর রাখতে হবে, তা যেন বেসরকারি ক্ষেত্রের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করার মতো জায়গায় থাকে। কারণ, বিগত দিনের অভিজ্ঞতাই বলছে, পে ক্লিনিকগুলি কিন্তু সাফল্যের মুখ দেখেনি। যদিও হাসপাতালে কান পাতলে শোনা যায়, এর পিছনে রয়েছে বাম আমলের লাগামছাড়া দুর্নীতি। ...বহু টাকা নাকি কর্মীরা নয়ছয় করেছেন স্রেফ ইউনিয়ন নামক দাদাগিরি করে। তার ফলে মাসের পর মাস রোগী দেখেও টাকা না পেয়ে ডাক্তাররা নিরাশ হয়ে কেউ হাসপাতাল ছেড়েছেন, কেউবা পলিক্লিনিকের ধার মাড়াননি।
বিশদ

 অরুণাচলে চীনকে ঠেকাতে তৎপর সতর্ক ভারত

গৌরীশঙ্কর নাগ: আমরা ধরে নিয়েছিলাম তিব্বতের ওপর চীনের অধিকার যদি আমরা স্বীকার করে নিই, তাহলে হয়তো সমস্যার আশু সমাধান হবে। কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় এই যে, চীনের তরফ থেকে অনুরূপ আন্তরিকতা আমরা পাইনি। বরং সম্প্রতি হংকং ও ম্যাকাওকে সংযুক্তিকরণে সফল হওয়ায়, অরুণাচল নিয়ে চীন যে অত্যুৎসাহী হয়ে পড়েছে। সুতরাং ভারতের অত্যন্ত সাবধানী পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন। ইতিমধ্যে চীনের শান্তিপূর্ণ উত্থানের তত্ত্ব অনেকে খারিজ করে দিয়েছেন। সেই সঙ্গে চীনের সঙ্গে দরকষাকষির ক্ষেত্রে ভারতের অভ্যন্তরে মোদি সরকারের প্রতি রাজনৈতিক সমর্থনের পাল্লা কতটা ভারী—তাও খতিয়ে দেখা প্রয়োজন। বিশদ

তোর্সা নদীই কি জলবণ্টনের স্থায়ী সমাধান?

গিরিজাশঙ্কর চট্টোপাধ্যায়: তিস্তা জলবণ্টন চুক্তি নিয়ে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে নানাবিধ কূটনৈতিক আলোচনা হয়ে গেল কিছুদিন আগেই। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেই আলোচনায় উপস্থিত ছিলেন।
বিশদ

27th  April, 2017
ভারত-বাংলাদেশ অভিন্ন নদীগুলির জলপ্রবাহ সমস্যা ও সমাধান

মোঃ তারিকুজ্জামান রেজা: বাংলাদেশ ও ভারত দুটি বন্ধু প্রতিবেশী রাষ্ট্র। এ দুই রাষ্ট্রের সম্পর্ক রক্তের বাঁধনে বাঁধা। ১৯৪৭ সালে দুটি ধর্মের ভিত্তিতে ভারত ভেঙে অপরিকল্পিতভাবে হয় পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তান। কিন্তু, বিশেষ করে বাঙালি মুসলমানদের সেই পাকিস্তানের ঘোর কাটতে সময় লাগেনি। বিশদ

27th  April, 2017
কেন্দ্রকে বাদ দিয়ে তাজপুরে বন্দর নির্মাণ হবে অসার ও অযৌক্তিক

উৎপল চৌধুরি : এটা সত্যি যে, একদিন কলকাতা বন্দরের সামগ্রিক পণ্য খালাস বাড়ানো ও বন্দরের অস্তিত্ব রক্ষার প্রয়োজনে তৈরি হয়েছিল হলদিয়া ডক কমপ্লেক্স। আবার এ কথাও সত্যি যে, কেন্দ্র-রাজ্য দু’তরফেই বহুদিন আগে থেকে বলে আসছে এ রাজ্যে কলকাতা বন্দরের পরিপূরক একটি গভীর জলের (ডিপ ড্রাফ্‌টেড) বন্দরের কথা। কারণটা অল্পবিস্তর সবারই জানা।
বিশদ

25th  April, 2017
এরাজ্যে বিজেপি বৃদ্ধির পরিণাম

হিমাংশু সিংহ: উত্তরপ্রদেশের বিধানসভা ভোটের ফল গত ৫০ বছরের ইতিহাসে এভাবে আর কোনওদিন পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিকে এতটা প্রভাবিত, আলোড়িত ও আন্দোলিত করেছে বলে মনে পড়ে না। দেশের সর্ববৃহৎ ৪০৩ বিধানসভা আসন বিশিষ্ট রাজ্যের নির্বাচনী পরিণাম যে এরাজ্যেও মাত্র এক-দেড় মাসের মধ্যে মেরুকরণের একটা শীতল স্রোত বইয়ে দেবে, শাসক দলকে এভাবে জুজু দেখাবে তা কে জানত?
বিশদ

25th  April, 2017
 ভয় দেখিয়ে মমতার বাংলায় কি ভক্তি আদায় করা যাবে

 শুভা দত্ত: পঞ্চায়েত ভোটের এখনও ঢের দেরি। কিন্তু, লড়াইটা শুরু হয়ে গেল। গত মঙ্গলবার বীরভূমের পাড়ুইতে এলাকা দখলের রাজনৈতিক লড়াইকে কেন্দ্র করে তৃণমূল-বিজেপির সংঘাতে রক্ত ঝরল। দেদার বোমা গুলি চলল। কমবেশি আহত হলেন বেশ কয়েকজন।
বিশদ

23rd  April, 2017
 ধুনুচির ধোঁয়ায় চাতুরীর ঘেরাটোপ

সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়: ধুনুচিতে ধুনো ঢেলেছেন লালুপ্রসাদ, তাতে হাওয়া দিলেন বিনয় কাটিয়ার। ধোঁয়াটা পাক খেতে খেতেছড়িয়ে যাচ্ছে। লালুপ্রসাদের সঙ্গে বিনয় কাটিয়ারের দারুণ সখ্য, এমন কথা কেউ কোনও দিন শোনেনি। দু’জনের রাজনীতির রাস্তাও দু’দিকে। কিন্তু এই বোলনি-কথনির ক্ষেত্রে লালু যদি রাম হন, বিনয় কাটিয়ার তাহলে তাঁর সুগ্রীব দোসর।
বিশদ

23rd  April, 2017


একনজরে
 নয়াদিল্লি, ২৭ এপ্রিল: ভারতীয় রেলকে বেসরকারি হাতে তুলে দেওয়ার প্রস্তাব উড়িয়ে দিলেন রেলমন্ত্রী সুরেশ প্রভু। বুধবার তিনি সাফ জানিয়ে দিলেন, ভারতের সাধারণ মানুষ রেলের উপরে নির্ভরশীল। তা কোনও পরিস্থিতিতেই অগ্রাহ্য করা সম্ভব নয়। তাই রেলের কাঁধে ৩০-৩৫ হাজার কোটি টাকার ...

বিএনএ, কৃষ্ণনগর: বৃহস্পতিবার সকালে কৃষ্ণনগর কোতোয়ালি থানার জালালখালিতে ট্রাক্টরের ধাক্কায় এক ছাত্রের মৃত্যুকে ঘিরে উত্তেজনা ছড়ায়। উত্তেজিত জনতা ট্রাক্টরটিতে ভাঙচুর চালিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পুলিশ জানিয়েছে, ঘাতক ট্রাক্টরের চালককে আটক করা হয়েছে। পুলিশ সূত্রে জানা ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আলিপুরে একটি বেসরকারি হাসপাতাল ভাঙচুরের ঘটনায় মূল অভিযুক্তও জামিন পেয়ে গেল। তার নাম মহম্মদ সাকিলউদ্দিন। বৃহস্পতিবার আলিপুরের মুখ্য বিচার বিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেট সৌগত ...

 সংবাদদাতা, রামপুরহাট: মদমুক্ত রাজ্য গড়ার দাবি তুলল জনতা দল (ইউনাইটেড)। বৃহস্পতিবার রামপুরহাটের একটি বেসরকারি অনুষ্ঠান ভবনে সংগঠনের জেলা কমিটির বৈঠক শেষে এমনই দাবি তুললেন রাজ্য কনভেনর অশোক দাস। উপস্থিত ছিলেন রাজ্য সম্পাদক নুরুল ইসলাম, বীরভূম জেলা সভাপতি দুখু রাউত প্রমুখ। ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মক্ষেত্রে পদোন্নতির সূচনা। ব্যবসায়ীদের উন্নতির আশা রয়েছে। বিদ্যার্থীদের সাফল্যযোগ আছে। আত্মীয়দের সঙ্গে মনোমালিন্য দেখা দেবে। ... বিশদ



ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৪৫: ইতালির রাষ্ট্রপ্রধান মুসোলিনিকে হত্যা করা হল
১৯৪৭: বাংলাদেশের লেখক হুমায়ুন আজাদের জন্ম
১৯৮২: অভিনেত্রী কোয়েল মল্লিকের জন্ম



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৩.২৫ টাকা ৬৪.৯৩ টাকা
পাউন্ড ৮১.১২ টাকা ৮৩.৯২ টাকা
ইউরো ৬৮.৬৩ টাকা ৭১.১০ টাকা
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ২৯,২৯৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৭,৭৯৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৮,২১০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,৯০০ টাকা

দিন পঞ্জিকা

১৪ বৈশাখ, ২৮ এপ্রিল, শুক্রবার, দ্বিতীয়া দিবা ১০/২৯, কৃত্তিকানক্ষত্র দিবা ১/৩৯, সূ উ ৫/১০/১৪, অ ৫/৫৮/৮, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৪ পুনঃ ৭/৪৪-১০/১৮ পুনঃ ১২/৫১-২/৩২ পুনঃ ৪/১৫-অস্তাবধি রাত্রি ৭/২৮-৮/৫৭ পুনঃ ২/৫৭-৩/৪১, বারবেলা ৮/২২-১১/৩৪, কালরাত্রি ৮/৪৫-১০/১০।
১৪ বৈশাখ, ২৮ এপ্রিল, শুক্রবার, দ্বিতীয়া ১/২০/৬, কৃত্তিকানক্ষত্র অপরাহ্ণ ৪/৩৮/৩১, সূ উ ৫/৯/২৯, অ ৫/৫৮/১৭, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫১/৫৯, ৭/৪৩/১৫-১০/১৭/০, ১২/৫০/৪৬-২/৩৩/১৬, ৪/১৫/৪৭-৫/৫৮/১৭, রাত্রি ৭/২৭/২৭-৮/৫৭/১৬, ২/৫৫/১৫-৩/৩৯/৫৯, বারবেলা ৮/২১/৪১-৯/৫৭/৪৭, কালবেলা ৯/৫৭/৪৭-১১/৩৩/৫৩, কালরাত্রি ৮/৪৬/৫-১০/৯/৫৯।
১ শাবান

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ভদ্রেশ্বরে জেটি ভাঙার ঘটনায় গঙ্গা থেকে আরও ২জনের দেহ উদ্ধার 

12:58:47 PM

সিআরপিএফের ডিজি পদে দায়িত্বভার গ্রহণ করলেন রাজীব রাই ভটনাগর 

12:03:00 PM

সিবিআই'র পর নারদ তদন্তে এবার ইডি 

11:59:23 AM

সেতু নির্মাণের দাবিতে শালবনীতে পথ অবরোধ, ভাদুতলা-লালগড় সড়কে যান চলাচল বন্ধ 

11:54:00 AM

চিকিৎসার গাফিলতিতে প্রসূতি মৃত্যুর অভিযোগ, ফের কাঠগড়ায় মেদিনীপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল 

11:38:53 AM

দুর্গাপুরে বেসরকারি স্কুলে বিক্ষোভ 
ফি বৃদ্ধির প্রতিবাদে ফের স্কুলের সামনে বিক্ষোভ। কলকাতার পর এবারের ঘটনাস্থল দুর্গাপুর। শুক্রবার সকালে দুর্গাপুরের একটি বেসরকারি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের বাইরে বিক্ষোভ দেখান পড়ুয়াদের অভিভাবকরা।  

11:04:39 AM






বিশেষ নিবন্ধ
 বাজেট হাসপাতাল তৈরি দূরদর্শী সিদ্ধান্ত, আগামীদিনে অগ্রাধিকার পাক জেলাও
নিমাই দে: এমন একটা প্রতিযোগিতার বাজারে, যেখানে সরকার বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মৌচাকে ঢিল মারতে নামছে, সেখানে ...
 অরুণাচলে চীনকে ঠেকাতে তৎপর সতর্ক ভারত
গৌরীশঙ্কর নাগ: আমরা ধরে নিয়েছিলাম তিব্বতের ওপর চীনের অধিকার যদি আমরা স্বীকার করে নিই, তাহলে ...
তোর্সা নদীই কি জলবণ্টনের স্থায়ী সমাধান?
গিরিজাশঙ্কর চট্টোপাধ্যায়: তিস্তা জলবণ্টন চুক্তি নিয়ে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে নানাবিধ কূটনৈতিক আলোচনা হয়ে গেল ...
ভারত-বাংলাদেশ অভিন্ন নদীগুলির জলপ্রবাহ সমস্যা ও সমাধান
মোঃ তারিকুজ্জামান রেজা: বাংলাদেশ ও ভারত দুটি বন্ধু প্রতিবেশী রাষ্ট্র। এ দুই রাষ্ট্রের সম্পর্ক রক্তের ...
কেন্দ্রকে বাদ দিয়ে তাজপুরে বন্দর নির্মাণ হবে অসার ও অযৌক্তিক
উৎপল চৌধুরি : এটা সত্যি যে, একদিন কলকাতা বন্দরের সামগ্রিক পণ্য খালাস বাড়ানো ও বন্দরের ...