Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

পঞ্চায়েত নির্বাচন, ৩৭০ কিংবা ৩৫এ
শুভময় মৈত্র

পশ্চিমবঙ্গ ২০১৮, আর ত্রিপুরা ২০১৯। পঞ্চায়েত ভোটে ফলাফল একইরকম। ঠিক কত আসন সেটা গোনার দরকার নেই। সহজ অঙ্কে বিষয়টা এরকম। ধরা যাক, মোট আসন ১০০, শাসক দল বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী ৭০টি আসনে। বাকি তিরিশের মধ্যে তীব্র লড়াইয়ের শেষে শাসক দল ২০, বিরোধীরা দশ। পাটিগণিতের অঙ্ক একেবারে মিলে গেল। কোন রাজ্য সেটা বিচার্য বিষয় নয়, কোন রাজনৈতিক দল সেটাও জানার প্রয়োজন নেই।
মূল কথা হল, শাসক কে? সে কতটা দখলদারি রাখতে চাইছে? এই মুহূর্তে দেশে বিজেপির একচ্ছত্র আধিপত্য। সেই কারণেই সংসদে ফটাফট বিল পাশ, ভারতের মানচিত্রের মাথার দিকের রাজ্যে উল্লম্ব বক্ররেখা টেনে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল। একটায় বিধানসভা থাকবে, একটায় থাকবে না। কাশ্মীরে দীর্ঘ স্বায়ত্তশাসন সংক্রান্ত বেশ পুরনো কিছু ধারা এক খোঁচায় উড়িয়ে দিয়েছে বিজেপি। তাই শুধু অঙ্কের ৩৭০ কিংবা লেজে অক্ষর নিয়ে ৩৫এ, সবই বাতিলের পথে। সেই প্রেক্ষিতে পঞ্চায়েত নির্বাচন সংক্রান্ত আলোচনা তো তুচ্ছ। ত্রিপুরায় বিজেপিরই সরকার, এবং তারা ক্ষমতায় এসেছে বামেদের দীর্ঘ শাসনের অবসান ঘটিয়ে।
ফলে, সেখানকার পঞ্চায়েত নির্বাচনে জয়জয়কার নিয়ে খুব বেশি ভুরু কোঁচকানোর জায়গা নেই। এমনটাই হওয়া স্বাভাবিক। পশ্চিমবঙ্গ বা ত্রিপুরায় বাম শাসনের ইতিহাসের সঙ্গে এর পার্থক্য কতটা? তা হল, বাম আমলে বিভিন্ন পৌরসভা বা পঞ্চায়েত নির্বাচনে শাসক দলের দাদাগিরি বজায় থাকলেও, কিছু কিছু ক্ষেত্রে বিরোধীদেরও অস্তিত্ব ছিল। বাম শাসনের অবসানে বিরোধীদের চিহ্নটুকুও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। ত্রিপুরার ক্ষেত্রে আর একটি পর্যবেক্ষণ গুরুত্বপূর্ণ। তা হল ত্রিপুরা বিধানসভা নির্বাচনে পরাজয়ের পর বামেদের অবক্ষয় সাংঘাতিক গতিতে হচ্ছে। পশ্চিমবঙ্গের থেকেও দ্রুত। বিধানসভায় হারার সময়েও বামেরা যথেষ্ট বাহুবলী দ্বিতীয় শক্তি ছিল। তারপর গত লোকসভা নির্বাচনে ভোট শতাংশের হিসেবে বিজেপি ছিল প্রথম, কংগ্রেস দ্বিতীয় আর বামেরা তৃতীয়। এই পঞ্চায়েত নির্বাচনও সেই পরিসংখ্যানই পেশ করছে। অর্থাৎ বাম শক্তি ক্ষমতা থেকে সরে গেলে প্রধান বিরোধী পক্ষ হিসেবেও নিজেদের অবস্থান বজায় রাখতে পারছে না, চলে যাচ্ছে একেবারে তৃতীয় সারিতে।
বিজেপির যে ভাবনা, তাতে রাজনৈতিকভাবে বামেরাই সবথেকে বড় শত্রু। সুতরাং তাদের মূল লক্ষ্য সংসদীয় গণতন্ত্রে বামেদের নিশ্চিহ্ন করে দেওয়া। সেই কাজে অবশ্যই সফল বিজেপি। পশ্চিমবঙ্গ এবং ত্রিপুরায় ভোট শতাংশে অনেকটা পিছিয়ে পড়েছে বামফ্রন্ট। বাকি শুধু কেরল। সেখানেও এবারের লোকসভা নির্বাচনে আসনের হিসেবে বামেরা শূন্যের কাছাকাছি। লোকসভায় প্রতিনিধিত্বের নিরিখে সারা দেশে এক অঙ্ক পার করতে পারে নি এই জোট।
এখানে প্রশ্ন উঠবেই যে বিজেপি কি সামরিক শক্তি ব্যবহার করে বামেদের নিশ্চিহ্ন করেছে? মোটেই তা নয়। একেবারে সংসদীয় ব্যবস্থার মধ্যে থেকে বামেদের বিরুদ্ধে ঘুঁটি সাজিয়েছে তারা। রণে আর প্রণয়ে নীতির বালাই কখনওই থাকে না। সেটুকু গোলমালের সুযোগ বামেরা তাদের সুসময়ে নিয়েছে। আর সেই হিসেব কড়ায়গণ্ডায় নয়, একেবারে কয়েকগুণ বাড়িয়ে ক্ষমতা দখল করছে বিজেপি। সংসদীয় গণতন্ত্রের পরিধিতে বিজেপির যে আগ্রাসী মনোভাব, তা সামলানোর জন্যে এই সময় প্রস্তুত নয় ভারতের অন্যান্য রাজনৈতিক দল।
এই বিজেপি বাজপেয়ি আমলের বিজেপি নয়। যেখানে বিরোধীদের জন্যে কিছুটা জায়গা রাখা থাকত। নরেন্দ্র মোদি আর অমিত শাহের নেতৃত্বে বিজেপি এখন পুরোপুরি ডানপন্থী। মোটামুটিভাবে সংবিধানের আওতায় থেকে যে কোনও উপায়ে ক্ষমতা দখল তাদের কর্মসূচি। সেই পথেই চলছে তারা। কর্ণাটক দখল হয়ে গেছে বিধায়ক সরিয়ে। মধ্যপ্রদেশও টলোমলো। পশ্চিমবঙ্গে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির ফল ভালো হওয়ার সম্ভাবনা দেখতে পাচ্ছেন অনেকে। সামনের দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে আম আদমি পার্টি বিজেপির কাছে হেরে গেলে অবাক হওয়ার কিছু নেই। দুহাজার কুড়ির শেষের দিকে গোটা দেশে বিজেপি কিংবা বিজেপির বন্ধু সরকার থাকবে প্রায় সব জায়গাতেই। বড়জোর চার পাঁচটি রাজ্যে থাকতে পারে বিরোধী পক্ষ। সেই হিসেবে ছোট্ট ত্রিপুরার পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিজেপি তার বিরোধী দলগুলোকে আসন পেতে দুপুরের ভাত মাছের ঝোল সাজিয়ে দেবে এরকমটা ভাবার কোনও কারণ নেই।
বরং বিজেপি এখন এমন একটা ক্ষমতার জায়গায় এসে গেছে যে তারা ঠিক করে নিতে পারে যে কোন রাজ্যে তাদের বিরোধী কে হবে। অবশ্যই সারা দেশের নিরিখে বিজেপির সবথেকে পছন্দের বিরোধী দল কংগ্রেস। দুর্বল নেতৃত্ব সমেত একটি সর্বভারতীয় বিরোধী দলকে খাড়া করে রাখতে পারলে বিভিন্ন নির্বাচনে আঞ্চলিক দলগুলোর ভোট কেটে দেওয়া যায় সঠিক অঙ্কে। ফলে কংগ্রেসকে দ্বিতীয় স্থানে রাখার দায় বিজেপির আছে।
সেই কারণেই বাম-বিদায়ের পর ত্রিপুরায় কংগ্রেসের উত্থান প্রধান বিরোধী দল হিসেবে। যেখানে বিজেপির জিততে কিছুটা সময় লাগবে, সেখানে বাম দলগুলোর তুলনায় কংগ্রেস ক্ষমতায় থাকা বিজেপির পক্ষে মঙ্গলের। কেরলের লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল সেই ইঙ্গিতই দিচ্ছে। বামেরা নিশ্চিহ্ন, আর প্রায় সব আসন পেয়েছে কংগ্রেস। কিন্তু বিজেপির অগ্রগতি সেখানে লক্ষণীয়। সামনের বিধানসভা নির্বাচনে কেরল অবশ্যই দেখবে ত্রিমুখী প্রতিদ্বন্দ্বিতা। সেখানে বামেরা তিন নম্বরে নেমে গেলে খুব অবাক হওয়ার কিছু নেই। তবে শক্তিশালী আঞ্চলিক দলও তো একেবারে বিনা যুদ্ধে লড়াই ছাড়বে না। সেই হিসেবে আলোচনা করতে হবে তৃণমূলের কথা। তাদের সঙ্গে বিজেপির গোপন আঁতাঁতের তত্ত্ব অবশ্যই বামেদের নির্বাচনী ইস্তাহারে থাকবে।
কিন্তু সেটা না-মেনে যদি সত্যিই বিজেপি এবং তৃণমূলকে প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে ধরা যায়, তাহলে সেখানেও লড়াইটা নিজেদের এক-দুই-এ রেখে বাকিদের অনেকটা পেছনে ফেলে দেওয়া। লক্ষ করলে দেখবেন, ২০১৬ বিধানসভা নির্বাচনে বাম-কংগ্রেস জোট যথেষ্ট ভোট পেয়ে প্রধান বিরোধী জোট হলেও তারপর থেকে বিজেপির প্রকৃত উত্থান শুরু। পশ্চিমবঙ্গের পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূল গায়ের জোর দেখালেও বিজেপি সেখানে দ্বিতীয় স্থান দখল করেছিল বেশ ভালোভাবেই। এখানেও সেই একই তত্ত্ব লাগানো যায়, যে রাজ্যের হিসেবে বামফ্রন্ট কিংবা বামঘেঁষা কংগ্রেসের তুলনায় তৃণমূল এবং বিজেপির নিজেদের এক আর দুই-এ রাখাটা অনেক বেশি যুক্তিযুক্ত। যথাক্রমটা তারাই ঠিক করবে।
লোকসভা নির্বাচনেও কংগ্রেস শেষমেশ কোনওভাবে দুটি আসন জোটালেও বামেরা এই রাজ্যে একেবারে শূন্য। অর্থাৎ ২০১৮ এবং ২০১৯-এ ভারতের ক্ষুদ্রতম (পঞ্চায়েত) থেকে বৃহত্তম (লোকসভা) নির্বাচনের সবকটাতেই বামেরা বিপর্যস্ত এবং ভ্যানিশ। বিজেপি রাজনীতির এখানেই চূড়ান্ত সফলতা।
আপাতত যা পরিস্থিতি তাতে বামেদের পক্ষে নতুন করে ক্ষমতায় ফেরা প্রায় অসম্ভব। ‘প্রায়’ শব্দটি যোগ করতে হল কারণ রাজনীতিতে কখনও কখনও অবাক করার মতো কিছু ঘটনা ঘটে। যদিও তার সম্ভাবনা কম। তাহলে বামেরা করবেনটা কি?
একটা সহজ সমাধান দলে দলে বিজেপিতে যোগ দেওয়া, এবং সেই দলের মধ্যে ঢুকে নিজেদের বাম মতামত প্রকাশের চেষ্টা করা। আরএসএস-এর বেশ কিছু কর্মসূচিতে দেশের পিছিয়ে-পড়া মানুষের উন্নয়নের কথা আছে। সেই সমস্ত কাজে যোগ দিতে পারেন বাম নেতৃত্ব। বিজেপিরও এ ব্যাপারে বিশেষ ছুঁতমার্গ নেই। যে-কোনও দল থেকেই লোক নিতে তারা আগ্রহী। আর এর মধ্যেই পশ্চিমবঙ্গের বেশ কিছু বাম জনপ্রতিনিধি তৃণমূল কিংবা বিজেপিতে ঢুকে আবার ভোটে জিতেছেন।
তবে শিক্ষিত বাম নেতৃত্ব তো এরকম সহজ সমাধান মেনে নেবেন না। সুতরাং জটিল হিসেবে দলটা থাকবে। সেখানে অন্য দলগুলোর তুলনায় হয়তো শিক্ষিত এবং সৎ নেতাকর্মীর ঘনত্ব চূড়ান্ত অবক্ষয় সত্ত্বেও কিছুটা বেশিই হবে। সিপিএমের স্বেচ্ছাসেবক হওয়ার জন্যে অন্তর্জালে নাম লেখানোর সাম্প্রতিক আহ্বানে অবশ্যই সাড়া দেবেন গুটিকয়েক যুক্তিবাদী যুবক-যুবতী। তবে তাতে আজকের পরিস্থিতিতে ভোট আসবে না। সংবাদমাধ্যমে প্রায় হারিয়ে যাবে এই দলের উপস্থিতি। বড়জোর দু-একটি বাক্যে খবর হবে যে কাশ্মীরে সিপিএম বিধায়ক তারিগামিকেও গ্রেপ্তার করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। সারা দেশের বাম ভোট ধীরে ধীরে শতাংশের হিসেবে দশমিকের ডানদিকের অঙ্কেও হারিয়ে যাবে। অন্তত আজকে সামনে তাকিয়ে তেমনটাই মনে হচ্ছে। গত বছরে পশ্চিমবঙ্গের পঞ্চায়েত নির্বাচন তাই তৃণমূলের দেখানো পথ, যেটা বছর বদলানোর পর ত্রিপুরায় রূপায়ণ করেছে বিজেপি।
কিন্তু, বিজেপির মতো উন্নত সাংগাঠনিক শক্তির অভাবে তৃণমূলের পক্ষে সে ধারা ধরে রাখা শক্ত। আর একটি মাত্র রাজ্যে ক্ষমতায় থেকে গোটা দেশের শাসকের বিরুদ্ধে লড়াই করা কঠিন, যদি না ভেতরে ভেতরে কিছুটা বোঝাপড়া করা যায়। ফলে, সামনের দিনগুলোতে রাজ্য কিংবা দেশের আসন-বিন্যাস ত্রিপুরার পঞ্চায়েত নির্বাচনের ফলাফলের মতোই হবে। বিজেপিই ঠিক করবে কোথায় তারা জিতবে, কোথায় তারা বিরোধীদের ক’টা আসন দেবে। গোপনে বা প্রকাশ্যে বিজেপির বিরোধিতা করে তাদের গাল দেওয়া যেতে পারে, কিন্তু ফলাফল বদলানো কঠিন।
সেই কারণেই বোধহয় কাশ্মীর সংক্রান্ত বিষয়ে ভোট না-দিয়েই সংসদ ছেড়েছে তৃণমূল। পাড়ার ক্লাবের সভাসদ নির্বাচন তাই কাগজের ব্যালটেই হোক কিংবা বৈদ্যুতিন ভোটযন্ত্রে, দুর্গাপুজোয় এবার এরাজ্যের অনেকটা দখল নেবে বিজেপি। সামনের দু’বছর বিজেপিই স্থির করবে পশ্চিমবঙ্গে তারা কী চায়। থুড়ি, সারা ভারতেই—ত্রিবান্দ্রম থেকে ত্রিপুরা, কন্যাকুমারিকা থেকে কাশ্মীর।
 লেখক ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিস্টিক্যাল ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক। মতামত ব্যক্তিগত
10th  August, 2019
তিন বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচন: মিলবে লোকসভা-উত্তর রাজ্য-রাজনীতির মতিগতি
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

 ২০১৯ সালে লোকসভা নির্বাচনের পর রাজ্যে প্রথম তিনটি বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনের জন্য ভোটগ্রহণ আগামী ২৫ নভেম্বর,ফলাফল ২৮ নভেম্বর। খড়্গপুর সদর করিমপুর এবং কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনের ফলাফল থেকে বিবাদমান রাজ্য-রাজনীতির একাধিক প্রশ্নের উত্তর মিলতে পারে। বিশদ

ভারত-মার্কিন সহযোগিতাই ঠেকাতে পারবে
অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহারের বিপদ 
কেনেথ আই জাস্টার

কেউ কি ভাবতে পেরেছিল, সামান্য একটি ছাতাপড়া ‘মেলন’ জাতীয় ফলের ভিতর লুকিয়ে রয়েছে অগণিত মানুষের জিয়নকাঠি? হ্যাঁ, পেনিসিলিন—এটাই হল সর্বপ্রথম অ্যান্টিবায়োটিক।   বিশদ

20th  November, 2019
শিবসেনা ও একটি পরম্পরার অপমৃত্যু
শান্তনু দত্তগুপ্ত

শিবাজি পার্কের জনসভায় তির-ধনুকটা নামিয়ে বক্তৃতা শুরু করতে গিয়েও থমকে গেলেন বাল থ্যাকারে। শব্দবাজির দাপট কানের যাবতীয় সহ্যক্ষমতা অতিক্রম করছে। সঙ্গে চিৎকার... উল্লাস। অপেক্ষা করছেন শিবসেনা ‘প্রমুখ’। তির-ধনুক তাঁর দলের প্রতীক। পৌরুষের প্রতীক। তিনি নিজেও তাই। ১৯৯৫ সালের বিধানসভা ভোটের শেষ পর্বের প্রচার।  
বিশদ

19th  November, 2019
প্রচলিত ছকে মৌসুমি বায়ু চরিত্র বোঝা যাচ্ছে না
শান্তনু বসু

২০১৯-এর এই উদ্বৃত্ত বৃষ্টিপাত আবহাওয়াবিদদের হিসেবেই ছিল না। উদ্বৃত্ত বৃষ্টিপাত ভূগর্ভস্থ জলস্তরকে পুনরুজ্জীবিত করবে সন্দেহ নেই, কিন্তু আগামী বছর যদি আরও দেরিতে কেরলে মৌসুমি বায়ু প্রবেশ করে, ভারতের কৃষি আবার অনিশ্চয়তায় চলে যাবে। চলতি বছরের উদ্বৃত্ত জলকে ধরে রাখা হয়েছে—এমন সুখবর কিন্তু নেই।
বিশদ

18th  November, 2019
একটি কাল্পনিক স্মরণসভা
সন্দীপন বিশ্বাস

সাদা কাপড়ে মোড়া মঞ্চজুড়ে সারি সারি চেয়ার-টেবিল। টেবিলের উপরে ফুলদানিতে সাদা ফুল। মঞ্চের একপাশে বড় একটি ছবি। তাতে সাদা মালা দেওয়া। শোকস্তব্ধ পরিবেশ। আজ এখানে প্রাক্তন নির্বাচন কমিশনার টি এন সেশনের স্মরণসভার আয়োজন করা হয়েছে। সেখানে সমাজের গণ্যমান্য সকলকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। অনেকেই এসেছেন।  
বিশদ

18th  November, 2019
মূল্যবোধের রাজনীতি ও
মহারাষ্ট্রের কুর্সির লড়াই
হিমাংশু সিংহ

আজকের নির্বাচনী রাজনীতি যে কতটা পঙ্কিল ও নোংরা তারই জ্বলন্ত প্রমাণ আজকের মহারাষ্ট্র। সঙ্কীর্ণ স্বার্থসর্বস্ব রাজনীতিতে ক্ষমতা দখলের নেশায় ছোটবড় প্রতিটি রাজনৈতিক দলই আজ মরিয়া। মহারাষ্ট্রের ফল বেরনোর পর গত তিন সপ্তাহের রাজনীতির নাটকীয় ওঠাপড়া সেই অন্ধকার দিকটাকেই বড় প্রকট করে তুলেছে। ভোটের ফল ও কে মুখ্যমন্ত্রীর কুর্সিতে বসবেন তা নিয়ে দুই পুরনো জোট শরিকের দ্বন্দ্ব যে দেশের বাণিজ্য পীঠস্থান মুম্বই তথা মহারাষ্ট্রকে এমন নজিরবিহীন সঙ্কটে ফেলবে, তা কে জানত? যে জোট পাঁচ বছর ধরে রাজ্য শাসন করল এবং এবারও গরিষ্ঠতা পেল, সেই জোটই ভেঙে খান খান!
বিশদ

17th  November, 2019
ঘর ওয়াপসি ও কিছু প্রশ্ন
তন্ময় মল্লিক

 ঘর ওয়াপসি। ঘরে ফেরা। ‘ভাইজান’ সিনেমার ছোট্ট মুন্নির ঘরে ফেরার কাহিনীর দৌলতে ‘ঘর ওয়াপসি’ এখন আমবাঙালির অতি পরিচিত শব্দ। সেই পরিচিত শব্দটি অতি পরিচিতির মর্যাদা পেয়েছে সাম্প্রতিক রাজনৈতিক নেতাদের একাংশের ঘন ঘন জার্সি বদলের দৌলতে।
বিশদ

16th  November, 2019
জল বেড়েছে, বোধ বাড়েনি
রঞ্জন সেন

 সমুদ্রের জলস্তর বাড়ার ফলে পৃথিবীর বহু উপকূলবর্তী দেশ ও দ্বীপ বিপন্ন হবে বলে পরিবেশবিজ্ঞানীরা আশঙ্কা প্রকাশ করছেন। তাঁরা এটাও বলছেন আমরা সবাই মিলে এবং রাষ্ট্রনায়কেরা চাইলে গ্রিনহাউস গ্যাস নিঃসরণ কমিয়ে এই অবস্থার মোকাবিলা করতে পারি। বিশদ

16th  November, 2019
সংবিধানই পথ
সমৃদ্ধ দত্ত

 তিন বছর ধরে সংবিধান রচনার কাজ অবশেষে যখন সমাপ্ত হল, তখন ১৯৪৯ সালের ২৫ নভেম্বর ভারতীয় সংবিধানের চূড়ান্ত খসড়া পেশ করে সংবিধান-সভায় তাঁর সর্বশেষ বক্তৃতায় সংবিধান রচনা কমিটির চেয়ারম্যান ড.ভীমরাও আম্বেদকর আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন, ভারতের এই সংবিধানের মূল সুর এবং গণতন্ত্র কি আদৌ শেষ পর্যন্ত আগামী দিনে রক্ষা করা সম্ভব হবে? বিশদ

15th  November, 2019
পঞ্চাশোর্ধ্বে বানপ্রস্থ?
অতনু বিশ্বাস

পঞ্চাশ ছুঁই-ছুঁই হয়ে একটা প্রায় বৃদ্ধ-বৃদ্ধ ভাব এসেছে আমার মধ্যে। সেটা খুব অস্বাভাবিক হয়তো নয়। এমনিতেই চারপাশের দুনিয়াটা বদলে গিয়েছে অনেক। চেনা-পরিচিত বাচ্চা বাচ্চা ছেলেমেয়েগুলো হঠাৎ যেন বড় হয়ে গিয়েছে। আমাকে ডাকনাম ধরে ডাকার লোকের সংখ্যাও কমে যাচ্ছে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে। বুড়ো হবার সব লক্ষণ একেবারে স্পষ্ট। 
বিশদ

14th  November, 2019
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দৃঢ় নীতির
কাছে ভারতের স্বার্থটাই সবার উপরে
অমিত শাহ

 মোদিজির নেতৃত্বাধীন উন্নতশির ভারতের কথা বিবেচনা করে আরসিইপি সদস্য রাষ্ট্রগুলি বেশিদিন আমাদের এড়িয়ে থাকতে পারবে না। তারা আমাদের শর্তে ভারতের সঙ্গে বাণিজ্যে রাজি হবে। এর মধ্যে আমরা এফটিএ মারফত আসিয়ান রাষ্ট্রগুলির সঙ্গে অর্থনৈতিক সম্পর্করক্ষায় সফল হয়েছি। আরসিইপি প্রত্যাখ্যান করে চীনের সম্ভাব্য গ্রাস থেকে আমাদের শিল্পকে আমরা দৃঢ়তার সঙ্গে সুরক্ষা দিতে পেরেছি। আমাদের জন্য ভারতের স্বার্থটাই সবার আগে। বিশদ

13th  November, 2019
ভাষা বিতর্কে জেইই মেনস
শুভময় মৈত্র

পশ্চিমবঙ্গের যে সমস্ত ছাত্রছাত্রী এই ধরনের প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় বসেন, তাঁরা মোটামুটি ভালোভাবেই ইংরেজি পড়তে পারেন। তার জন্যে কংগ্রেস, সিপিএম, তৃণমূল বা বিজেপির কোনও কৃতিত্ব নেই। সারা দেশের মধ্যে বাঙালিরা যে শিক্ষা সংস্কৃতিতে বেশ এগিয়ে আছে সেটা বোঝার জন্যে প্রচুর পরিসংখ্যান আছে, যেগুলো জায়গামতো ছাপা হয় না। বিশেষ করে বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে এরাজ্যের ছেলেমেয়েরা ঐতিহ্যগতভাবে ভালো, ঔপনিবেশিক কারণে ইংরেজিতেও। সেখানে জেইই মেনসের মতো পরীক্ষার প্রশ্ন বাংলায় করতে হবে বলে বাংলার পরীক্ষার্থীদের না গুলিয়ে দেওয়াই মঙ্গল। বিশদ

13th  November, 2019
একনজরে
বিএনএ, কোচবিহার: এই প্রথম কলকাতার সল্টলেকে পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের উদ্যোগে প্রাথমিক শিক্ষকদের খেলাধুলোর বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে। কোচবিহার জেলার পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি সূত্রে জানা গিয়েছে, কোচবিহার থেকে পাঁচজন প্রাথমিক শিক্ষক এই প্রশিক্ষণ নিতে গিয়েছেন।  ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: শীতের মরশুমের আগেই আলিপুর চিড়িয়াখানায় হাজির নতুন অতিথি। ভাইজাগ চিড়িয়াখানা থেকে মঙ্গলবার রাতে কলকাতায় এল চারটি জঙ্গলি কুকুর বা ঢোল, দু’টি রিং টেলড লেমুর (বাঁদরের এক প্রজাতি) এবং দু’টি স্পুনবিল পেলিকান। ...

সংবাদদাতা, রামপুরহাট: মল্লারপুরের মাঝিপাড়া গ্রামের ঘটনায় অভিযুক্ত সিভিক ভলান্টিয়ারকে গ্রেপ্তার করা হল। মঙ্গলবার রাতে তাঁকে বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিস। বুধবার ধৃতকে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩২৬ সহ একাধিক ধারা যুক্ত করে রামপুরহাট আদালতে তোলা হয়।  ...

সংবাদদাতা, ইটাহার: ব্লক কৃষি দপ্তরের ‘সুধা’ (সুনিশ্চিত ধান) পদ্ধতিতে চাষ করে বিশেষ সফলতা পেলেন উত্তর দিনাজপুর জেলার হেমতাবাদ ব্লকের বিষ্ণুপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের কলুয়া গ্রামের চাষি আবু শাহেদ। এঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই এলাকার অন্যান্য চাষিদের মধ্যে সুধা পদ্ধতিতে ধান চাষের ব্যাপারে উৎসাহ দেখা ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উপার্জন বেশ ভালো হলেও ব্যয়বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে সঞ্চয় তেমন একটা হবে না। শরীর খুব একটা ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব টেলিভিশন দিবস
১৬৯৪: ফরাসি দার্শনিক ভলতেয়ারের জন্ম
১৮৭৭: ফোনোগ্রাফ আবিষ্কারের কথা জানালেন থমাস এডিসন
১৯৭০: নোবেলজয়ী পদার্থবিদ চন্দ্রশেখর বেঙ্কটরামনের মৃত্যু
১৯৭৪ - শিশু সাহিত্যিক পুণ্যলতা চক্রবর্তীর মৃত্যু





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.১৭ টাকা ৭৩.৩৩ টাকা
পাউন্ড ৯০.৪৯ টাকা ৯৪.৮৫ টাকা
ইউরো ৭৭.৬২ টাকা ৮১.৩৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৯৭৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৯৮০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,৫৩৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫,১০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৫,২০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২১ নভেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, নবমী ১৩/৫০ দিবা ১১/২৯। পূর্বফাল্গুনী ৩১/২২ রাত্রি ৬/২৯। সূ উ ৫/৫৬/৪২, অ ৪/৪৮/০০, অমৃতযোগ দিবা ৭/২৩ মধ্যে পুনঃ ১/১১ গতে ২/৩৮ মধ্যে। রাত্রি ৫/৪১ গতে ৯/১১ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৯ গতে ৩/১৯ মধ্যে পুনঃ ৪/১২ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ২/৫ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ১১/২২ গতে ১/০ মধ্যে।
৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২১ নভেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, নবমী ৮/১৫/৩৯ দিবা ৯/১৭/৩। পূর্বফাল্গুনী ২৮/৯/৬ সন্ধ্যা ৫/১৪/২৫, সূ উ ৫/৫৮/৪৭, অ ৪/৪৭/৪৮, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৪ মধ্যে ও ১/১৫ গতে ২/৪০ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৪৩ গতে ৯/১৫ মধ্যে ও ১১/৫৫ গতে ৩/২৯ মধ্যে ও ৪/২২ গতে ৬/০ মধ্যে, বারবেলা ৩/২৬/৪১ গতে ৪/৪৭/৪৮ মধ্যে, কালবেলা ২/৫/৩৩ গতে ৩/২৬/৪১ মধ্যে, কালরাত্রি ১১/২৩/১৭ গতে ১/২/১২ মধ্যে।
২৩ রবিয়ল আউয়ল

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
৭৬ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স 

03:56:31 PM

চোর সন্দেহে গণপিটুনি, মৃত ২ 
কোচবিহারের পাইটকাপাড়া গ্রামে চোর সন্দেহে দুই ব্যক্তিকে গণপিটুনির অভিযোগ। বুধবার ...বিশদ

03:24:52 PM

রায়গঞ্জের মারাইকুড়া গ্রামে চোর সন্দেহে ৪ জনকে গণপিটুনি গ্রামবাসীদের 

03:22:00 PM

হুগলির পাণ্ডুয়াতে প্রেমিকাকে খুন করে আত্মঘাতী যুবক 
হুগলির পাণ্ডুয়াতে প্রেমিকাকে খুন করে আত্মঘাতী হলেন এক যুবক। বৃহস্পতিবার ...বিশদ

02:43:32 PM

চারদিনের জেলা সফর শেষে কলকাতায় ফিরলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় 

02:39:00 PM

ডুয়ার্সে প্যাঙ্গোলিন সহ ধৃত ৫ 
পাচারের আগেই প্যাঙ্গোলিন উদ্ধার করল বৈকন্ঠপুর বনবিভাগের উত্তরবঙ্গের স্পেশাল ফোর্স। ...বিশদ

02:26:05 PM