Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

পরিবারতান্ত্রিক সঙ্কট 
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ছবিটা খুব পরিচিত। নিজের দলের বিরুদ্ধেই ধর্নায় বসেছেন ইন্দিরা গান্ধী। ভাঙতে চলেছে কংগ্রেস। আর তার নেপথ্যে ক্ষমতার ভারসাম্য বজায় রাখার সংঘাত। একদিকে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা। অন্যদিকে কামরাজ, মোরারজি দেশাই, তৎকালীন কংগ্রেস সভাপতি নিজলিঙ্গাপ্পা। ইন্দিরার উত্থান থেকে যে চাপা টেনশন তৈরি হয়েছিল, সেই চাপানউতোরের আগুনে ঘি ছড়ানোর কাজটা করেছিল রাষ্ট্রপতি নির্বাচন। ইন্দিরার পছন্দ ছিলেন উপ-রাষ্ট্রপতি ভি ভি গিরি। অন্যদিকে কংগ্রেস চালানেওয়ালা, অর্থাৎ কামরাজ, নিজলিঙ্গাপ্পা, মোরারজি দেশাইদের প্রার্থী স্পিকার সঞ্জীব রেড্ডি। ইন্দিরা গান্ধী কখনওই চাননি সঞ্জীব রেড্ডি রাষ্ট্রপতি হোন। কারণ, সঞ্জীব রেড্ডি কংগ্রেস সভাপতি থাকার সময় থেকেই তাঁর সঙ্গে ইন্দিরার বরফ শীতল সম্পর্ক। প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হওয়ার সময় সঞ্জীব নেহরু-কন্যাকে দাঁড় করানোর সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রবল আপত্তিও তুলেছিলেন। আসলে সঞ্জীব রেড্ডি মনে করতেন, জওহরলাল নেহরুর মেয়ে হওয়ার সুবাদে ইন্দিরা অযাচিতভাবে তাঁর উপর খবরদারি করেন। এমন এক ব্যক্তিকে রাষ্ট্রপতি প্রজেক্ট করতে কখনওই চাননি ইন্দিরা। কিন্তু দলীয় চাপ এমন জায়গায় গিয়েছিল, প্রধানমন্ত্রী বাধ্য হয়েছিলেন সঞ্জীব রেড্ডির পক্ষে বিবৃতি জারি করতে। যদিও তলে তলে তিনি সমর্থন জুগিয়েছিলেন ভি ভি গিরিকে। শেষমেশ হয়েছিলও তাই। ইন্দিরার কলকাঠির জোরে হার স্বীকার করতে হয়েছিল সঞ্জীব রেড্ডিকে। আর সঙ্গে সঙ্গেই কংগ্রেসের অন্দরে ক্ষমতা প্রদর্শনের ইগোটা বেরিয়ে এল প্রকাশ্যে। আক্রমণ চলল খুল্লামখুল্লা। নিজলিঙ্গাপ্পার সভাপতিত্বে ইন্দিরা গান্ধীকে দল থেকে বহিষ্কার করল কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটি। ইন্দিরার অনুগামী কংগ্রেসিরাও পাল্টা সভা ডেকে দাবি তুললেন, আমাদের সঙ্গে অধিকাংশ আছেন। তাই আমরাই আসল কংগ্রেস। মানলেন না মোরারজি, কামরাজরা। সংসদীয় পার্টির নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হল প্রধানমন্ত্রীকে। দু’ভাগ হয়ে গেল কংগ্রেস। আদি কংগ্রেস এবং ইন্দিরা কংগ্রেস।
সেটা ছিল কংগ্রেসের আশাতীত এক সঙ্কট-মুহূর্ত। ভারতের শতাব্দীপ্রাচীন এই রাজনৈতিক দলটিতে তখনও তাও একজন সভাপতি ছিল। কিন্তু আজ যে পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে কংগ্রেস যাচ্ছে, তা অবশ্যই নজিরবিহীন। ইস্তফা দিয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। ওয়ার্কিং কমিটিকে তিনি জানিয়েছেন, আমার বদলি কাউকে খুঁজে বের করুন। দল অবশ্য প্রথমে দাবি করেছিল, সভাপতির ইস্তফা গ্রহণ করা হবে না। তাতে অবশ্য গোঁ ছাড়েননি রাহুল। লোকসভা নির্বাচনে শোচনীয় ফলাফলের দায় কাঁধে নিয়ে তিনি দায়িত্ব ছেড়েছেন। এবং সেটাও সোশ্যাল মিডিয়ায় দীর্ঘ এক পাতা লিখে।
প্রথমে আসা যাক ওই খোলা চিঠি প্রসঙ্গে। রাহুল গান্ধী লিখেছেন, বিজেপি বা একটি নির্দিষ্ট কোনও রাজনৈতিক দলের বিরুদ্ধে তাঁর লড়াই ছিল না। তিনি এবং তাঁর দল যুদ্ধে নেমেছিলেন রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত মেশিনারির বিরুদ্ধে। যেখানে বিরোধীদের কোমর ভাঙতে সর্বোতভাবে সরকারি মেশিনারিকে কাজে লাগানো হয়েছিল। তিনি পাশাপাশি দায়ী করেছেন নির্বাচন কমিশনকে। প্রশ্ন তুলেছেন কমিশনের নিরপেক্ষতা, স্বচ্ছতা নিয়ে। এখানে বেশ কিছু প্রশ্ন আসে। বিজেপির বিরুদ্ধে না হলে রাহুল গান্ধীর লড়াই কার বিরুদ্ধে ছিল? তিনি বলেছেন, ভারতকে নরেন্দ্র মোদি যেভাবে প্রতিষ্ঠিত করতে চাইছেন, সেই ধারণার বিরুদ্ধে তাঁর লড়াই। গণতন্ত্রকে মোদি যেভাবে করায়ত্ত করছেন, দেশে জরুরি অবস্থার মতো পরিস্থিতি তৈরি করছেন, কংগ্রেসের লড়াই ছিল সেই প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে। কংগ্রেস যা মানে না। তাহলে ইন্দিরা গান্ধী ভারতে যে জরুরি অবস্থা জারি করেছিলেন, তা কি অন্য কোনও দলের প্রতিনিধি হিসেবে? কংগ্রেসের নয়? বছরের পর বছর কংগ্রেস তথা অন্য শাসক দল সরকারি মেশিনারি ব্যবহার করে ভোটে যে সব সুবিধা নিয়ে এসেছে, সেটা তাহলে কী? একটা কথা মনে রাখা খুব প্রয়োজন। নির্বাচনে অল্পবিস্তর সুবিধা সব শাসক দলই নিয়ে থাকে। কিন্তু তা কখনওই নির্ণায়ক হতে পারে না। রিগিং করে মার্জিনাল কিছু আসনের ভাগ্য ঘুরিয়ে দেওয়া যায়। কিন্তু ৩৫৩টি আসন দখল করা যায় না। আর বাকি রইল নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন। ভোটে দলীয় ব্যর্থতার জন্য কমিশনকে দায়ী করার অর্থই হল সংবিধানকে চ্যালেঞ্জ করা। যদি সরকারি মেশিনারি কাজে লাগিয়েই বিজেপি জয়ের ধারা বজায় রাখত, তাহলে কয়েক মাস আগে রাজস্থান, ছত্তিশগড়, মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস গেরুয়া শিবিরকে এমন ঝটকা দিয়ে ক্ষমতায় আসতে পারত না। সেই সময় তো ইভিএম বা নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন ওঠেনি? বা একটা সময় যখন নির্বাচন কমিশনের আধিকারিকরা কংগ্রেসি নেতা-মন্ত্রীদের গাড়িতে ঘুরতেন, সেই সময়ের প্রসঙ্গও তো টানা হয়নি! রাহুল গান্ধী বা কংগ্রেসের কেন এটা মেনে নিতে অসুবিধা হচ্ছে যে, নরেন্দ্র মোদির প্রতিপক্ষ হিসেবে সোনিয়া-তনয় মোটেই ধোপে টিকতে পারেননি। লোকসভা ভোট প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের। এই দু’জনের মধ্যে একজনকে যদি বেছে নেওয়ার দায়িত্ব ভোটারকে দেওয়া হয়, তাহলে নিঃসন্দেহে মোদি এগিয়ে যাবেন। কংগ্রেস তথা বিরোধীদের আশা-ভরসা ছিল প্রতিষ্ঠানবিরোধী ভোট। মোদির মিসঅ্যাডভেঞ্চারমূলক সংস্কারের বিরুদ্ধে মানুষ যদি ভোট দেন। যদিও তা হয়নি। এবং তারপর থেকেই রাহুল গান্ধী দায় স্বীকার করে পালাতে পারলে বাঁচেন। তিনি যে আগে আঁচ পাননি, সেই দাবিও করা যায় না! কারণ, অতটাই নিশ্চিত হলে রাহুল আমেথির পাশাপাশি ওয়ানাড় থেকেও প্রার্থী হতেন না। স্মৃতি ইরানির কাছে আমেথিতে পর্যুদস্ত হয়েছেন রাহুল। আর সার্বিক বিপর্যয়ের পর দায়িত্ব থেকে ছুটি চাইছেন তিনি। এমন একটা সময়ে, যখন কংগ্রেসের একজন সত্যিকারের নেতা প্রয়োজন। যিনি দলকে এই ভরাডুবির পর তুলে ধরতে পারবেন।
অর্থাৎ এই ঘটনার পর অদ্ভুত একটা সঙ্কট তৈরি হয়েছে দলে। ওয়ার্কিং কমিটি থাকলেও যেহেতু কংগ্রেসে সভাপতি বলে এখন কেউ নেই, অনেক কিছুই এই জাঁতাকলে আটকে গিয়েছে। জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া, সোমেন মিত্ররা পদত্যাগ করার ইচ্ছে জানিয়ে চিঠি দিয়েছেন। কিন্তু কাকে উদ্দেশ করে? সভাপতি? তাঁর চেয়ারই তো ফাঁকা! তাহলে সেই পদত্যাগপত্র গ্রহণ করবে কে? ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক যতদিন না বসছে, ততদিন রাহুল গান্ধীকে সামনে রেখেই বিভিন্ন প্রদেশ কমিটি গঠন কিংবা নিয়োগ চালিয়ে যাচ্ছে কংগ্রেস। অবশ্যই তার প্রধান কারণ হল, উত্তরসূরির খোঁজ নেই। সোনিয়া গান্ধী অসুস্থতার জন্য আর দায়িত্ব নেবেন না। প্রিয়াঙ্কা উত্তরপ্রদেশে ভরাডুবির পর দায়িত্ব থেকে পালাতে পারলে বাঁচেন। আর তাই রাহুল গান্ধী নিজে বলছেন গান্ধী পরিবারের বাইরে কাউকে কংগ্রেস সভাপতি করার কথা। অর্থাৎ নরেন্দ্র মোদি কিছুটা হলেও উল্লসিত হতে পারেন, কংগ্রেস পরিবারতন্ত্রের হাত থেকে বেরচ্ছে। রাহুল গান্ধী বলেছেন, রীতিমতো নির্বাচন করে যেন সভাপতি ঠিক করা হয়। কেমন নির্বাচন? যেমন ১৯৩৮ সালে হরিপুরা কংগ্রেসে হয়েছিল?
এখানেও কিন্তু একটা প্রশ্নচিহ্ন রয়েছে। সেই সময় মহাত্মা গান্ধী নিজেকে কংগ্রেসের অন্তর্বর্তী রাজনীতি থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে নিয়েছিলেন। মন দিয়েছিলেন হরিজনদের উন্নতি সাধনে। আর কংগ্রেস ভাগ হয়ে গিয়েছিল নেহরুপন্থী এবং সুভাষপন্থীতে। জওহরলাল নেহরু রক্ষণশীল এবং সুভাষচন্দ্র বসু কট্টরপন্থী। কিন্তু সুভাষচন্দ্র বসু তাঁর জনপ্রিয়তায় ভর করেই কংগ্রেস সভাপতি পদে নির্বাচিত হন। আর তারপরই সরাসরি ব্রিটিশ রাজত্বের বিরুদ্ধে আক্রমণে নেমে পড়েন। ব্রিটেন যেভাবে ভারতকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের মধ্যে টেনে আনছিল, সুভাষ ছিলেন তার ঘোর বিরোধী। তিনি চেয়েছিলেন, ব্রিটেনে যে রাজনৈতিক অস্থিরতা শুরু হয়েছে, তার সুযোগ নিতে। সেই কারণে ভারতকে স্বাধীনতা দেওয়ার ব্যাপারে ব্রিটেনকে ছ’মাসের চূড়ান্ত সময়সীমা দিয়ে তিনি একটি রেজল্যুশন পাশ করিয়েছিলেন। যা গান্ধীজির পছন্দ হয়নি। এরপর ছিল ত্রিপুরি কংগ্রেস। সেখানে গান্ধীজি সুভাষ বসুর বিরুদ্ধে পট্টভি সীতারামাইয়াকে প্রার্থী দাঁড় করান। তার আগে গান্ধীজি অবশ্য জওহরলাল এবং মৌলানা আবুল কালাম আজাদকে সভাপতি পদের নির্বাচনে প্রার্থী হতে বলেছিলেন। দু’জনেই গান্ধীজির সেই প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন। এতকিছু সত্ত্বেও সুভাষেরই জয় হয়। কিন্তু তারপরই গান্ধীজি বিবৃতি দেন, এই হার পট্টভি সীতারামাইয়ার নয়। এই পরাজয় তাঁর নিজের। এমনকী নিজের লোক দিয়ে যাতে সুভাষ বসু ওয়ার্কিং কমিটি গঠন করেন, সেই পরামর্শও দেন গান্ধীজি। কংগ্রেস দ্বিধাবিভক্ত হয়ে যায়।
সুভাষ সভাপতি হয়তো হয়েছিলেন, কিন্তু সেই অর্থে তাঁর ক্ষমতা ছিল না। প্রবল সমালোচনা সহ্য করে যখন অসুস্থ সুভাষকে স্ট্রেচারে চেপে ত্রিপুরি অধিবেশনে আসতে হয়েছিল, তখন পাশ থেকে মন্তব্য ভেসে আসে... ‘বগলের নীচে পেঁয়াজ রেখে জ্বর বাধাননি তো?’ খুব বেশিদিন আর সভাপতি থাকেননি সুভাষ। পদত্যাগ করেছিলেন। বা ইস্তফা দিতে বাধ্য হয়েছিলেন।
গান্ধী-নেহরু পরিবারের বাইরের কেউ আজ যদি সভাপতি হন, তাহলে তাঁর অবস্থা সুভাষ বসুর মতো হবে না তো? এটাই হল লাখ টাকার প্রশ্ন। ইতিহাস বলছে, কংগ্রেসের যে সভাপতি গান্ধী-নেহরু পরিবারের ঘনিষ্ঠ নন, দলে তাঁর ক্ষমতার বহিঃপ্রকাশ অনায়াস হয়নি। বরং তাঁকে সরাসরি ‘যুদ্ধে’ অবতীর্ণ হতে হয়েছে। এবার প্রশ্ন হল, ‘পরিবারের’ বাইরে থেকে আসা সভাপতিকে পূর্ণ স্বাধীনতা দিলেই কি কংগ্রেস তার হৃত গৌরব ফিরে পাবে?
মোরারজি দেশাই, নিজলিঙ্গাপ্পা, কামরাজকে হার স্বীকার করতে হয়েছিল ইন্দিরা কংগ্রেসের কাছে। ইন্দিরা গান্ধী যে দাপট নিয়ে একের পর এক নির্বাচনে জয় পেয়েছিলেন, তা নিশ্চিহ্ন হয়ে যাওয়ার দিকে ঠেলে দিয়েছিল আদি কংগ্রেসকে। ১৯৭১ সালের লোকসভা নির্বাচনে ‘সিন্ডিকেটের’ আদি কংগ্রেস পেয়েছিল মাত্র ১০ শতাংশ ভোট। আর ১৬টি আসন। সেখানে ইন্দিরা কংগ্রেসের দখলে ৩৫২টি আসন এবং ৪৪ শতাংশ ভোট। ’৭৭ সালের নির্বাচনে আদি কংগ্রেসের ভোট শতাংশ অর্ধেক হয়ে গিয়েছিল। শেষ পর্যন্ত বছর তিনেকের মধ্যেই ইন্দিরা কংগ্রেস হয়ে উঠেছিল ‘আসল’ কংগ্রেস। এর দু’টি অর্থ। প্রথমত, কংগ্রেস নয়, নেহরু-গান্ধী পরিবারে আস্থা রেখেছিলেন ভোটাররা। এবং দ্বিতীয়ত, কংগ্রেসের যাঁরা পূর্ণ কর্মী এবং সমর্থক, তাঁরাও নেতৃত্বে এমন কাউকে চেয়েছিলেন, যাঁর ক্যারিশমায় মানুষ ভোটবাক্সে নিজেদের মতামত উজাড় করে দেবে। নয়ের দশকে যে সঙ্কটের মধ্যে দিয়ে দল যাচ্ছিল, সোনিয়া গান্ধী দায়িত্ব নেওয়ার পরই কিন্তু ধীরে ধীরে তার থেকে বেরিয়ে আসতে শুরু করে কংগ্রেস। ধীরে ধীরে কেন? বিদেশিনী সহ আরও বহু ইস্যুতে সেই মুহূর্তে বিদ্ধ ছিলেন সোনিয়া। তাঁকেও এই দেশের রাজনীতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে সবকিছু গুছিয়ে নিতে হয়েছে। সেই সময়টুকু নিয়েছিলেন সোনিয়া। তারপর অটলবিহারী বাজপেয়ির বিজেপি সরকারকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে ক্ষমতায় এসেছিল ইউপিএ। ২০০৪ সালে। তখন কংগ্রেসের আসন সংখ্যা ছিল ১৪৫। শরিকদের ম্যানেজ করে ১০ বছর শাসন করেছিল কংগ্রেস।
নরেন্দ্র মোদি বিলক্ষণ জানেন, কংগ্রেসের জিয়নকাঠি লুকিয়ে আছে ওই পরিবারেরই অন্দরে। কাজেই যদি কংগ্রেস-মুক্ত ভারত গঠন করতে হয়, তাহলে সবার আগে শেষ করতে হবে ‘পরিবার’কে। রাহুল গান্ধী নিজেকে নেতৃত্বের সেই স্তরে নিয়ে যেতে পারেননি। মোদি তাই গুরুত্ব দিচ্ছেন নরসিমহা রাও, মনমোহন সিংদের। আজ বাদে কাল যদি মনমোহন সিংকে তিনি ভারতরত্নের জন্য মনোনীত করেন, তাহলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। অর্থাৎ শতাব্দীপ্রাচীন দলের ভিতে ভাঙন ধরানোর চেষ্টা। কংগ্রেস কিন্তু এরপরও নেতা খুঁজবে সেই পরিবারের মধ্যে থেকেই। এবং কোনওদিন হয়তো ঘুরেও দাঁড়াবে। কারণ, কংগ্রেস কোনও সাদামাটা রাজনৈতিক দল নয়। কংগ্রেস একটা ব্র্যান্ড। যার কোনও বিজ্ঞাপনের প্রয়োজন আজও নেই। 
16th  July, 2019
আত্মশক্তি ও আমরা
সমৃদ্ধ দত্ত

 এসব থাকলে যেটা হবে তা হল সর্বদা সরকারের উপর নির্ভর করে থাকতে হবে না। আমার কাছে সবথেকে আদর্শ হল গ্রামবাসীরা যদি নিজেদের ভালোর জন্য পারস্পরিক সহায়তায় নিজেরাই জোট বাঁধে। ভেদাভেদ ভুলে কী করলে গোটা গ্রামের উন্নতি ও মঙ্গল হবে, সেটা উপলব্ধি করে নিজেরাই পরিশ্রম করলে দেখা যাবে উন্নতির আলো। বিশদ

অ্যাট দ্য হোয়াইট হাউস কলাম থেকেই
খবরের কেন্দ্রে মার্কিন প্রেসিডেন্টের বাড়ি
মৃণালকান্তি দাস

 ১৮৯৬ সাল। উইলিয়াম ‘ফ্যাটি’ প্রাইস ওয়াশিংটন ইভিনিং স্টার পত্রিকায় কাজ করার একটা সুযোগ খুঁজছিলেন। পত্রিকার সিটি এডিটর হ্যারি গডউইন প্রাইসকে স্থায়ী চাকরি দেওয়ার আগে হোয়াইট হাউসে পাঠালেন একটি সংবাদ তৈরি করার জন্য। ওই সময় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ছিলেন গ্রোভার ক্লিভল্যান্ড। বিশদ

ন্যাশনাল মেডিক্যাল কমিশন বিল: কিছু আশঙ্কা
বিষাণ বসু

চারদিকে বড় হইচই। বিষয় ন্যাশনাল মেডিক্যাল কমিশন বিল। স্বাধীনতার পর থেকেই দেশের মেডিক্যাল শিক্ষার ব্যাপারটা দেখছিলেন এমসিআই, অর্থাৎ মেডিক্যাল কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া। এমসিআই নিয়ে অভিযোগ ছিল বিস্তর—বিশেষত, তাঁদের কিছু কর্তাব্যক্তিকে নিয়ে। বিশদ

22nd  August, 2019
চক্রব্যূহে জাতীয় কংগ্রেস:
সোনিয়ার প্রত্যাবর্তন
প্রণবকুমার চট্টোপাধ্যায়

 আগস্ট মাস জাতীয় কংগ্রেস ও ভারতীয় রাজনীতিতে স্মরণীয় মাস। ১৯৪২ সালের ৮ আগস্ট ভারত ছাড়ো আন্দোলনের সূচনা হয়, আবার ১৯৪৭ সালের ১৫ আগস্ট ভারত স্বাধীনতা অর্জন করে। মজার কথা, বিগত ১০ আগস্ট মধ্যরাত্রে কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটি নতুন কংগ্রেস সভাপতির নাম স্থির করার জন্য পাঁচটি কমিটি শলা-পরামর্শে বসে।
বিশদ

22nd  August, 2019
ন্যাশনাল মেডিক্যাল কমিশন বিল: কিছু আশঙ্কা 
বিষাণ বসু

চারদিকে বড় হইচই। বিষয় ন্যাশনাল মেডিক্যাল কমিশন বিল। স্বাধীনতার পর থেকেই দেশের মেডিক্যাল শিক্ষার ব্যাপারটা দেখছিলেন এমসিআই, অর্থাৎ মেডিক্যাল কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া। এমসিআই নিয়ে অভিযোগ ছিল বিস্তর—বিশেষত, তাঁদের কিছু কর্তাব্যক্তিকে নিয়ে। 
বিশদ

20th  August, 2019
জম্মু-কাশ্মীর: উন্নয়ন ও অন্তর্ভুক্তির নতুন প্রভাত
রবিশঙ্কর প্রসাদ
 

জম্মু-কাশ্মীরের সাধারণ মানুষের কল্যাণে সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করা হয়েছে। এর ফলে, ৭০ বছরের পুরনো একটা সমস্যার নতুন সরকারের ক্ষমতা গ্রহণের ৭০ দিনেরও কম সময়ে সমাধান হল। এই কারণে আমাদের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সাহস ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের ইচ্ছাশক্তিকে প্রশংসা করা উচিত।
 
বিশদ

20th  August, 2019
নিস্তেজ অর্থনীতির সত্যটা সরকার ভুলে যাচ্ছে 
পি চিদম্বরম

রাষ্ট্রপতি ভবন হল সরকারের ক্ষমতার আসনের প্রতীক। এক কিলো মিটার ব্যাসার্ধের মধ্যে সংসদ ভবন, প্রধানমন্ত্রীর অফিস (পিএমও), নর্থ ব্লক ও সাউথ ব্লক—মানে স্বরাষ্ট্র, অর্থ, প্রতিরক্ষা ও বিদেশ-এর মতো উচ্চ মন্ত্রকগুলি রয়েছে।   বিশদ

19th  August, 2019
সভাপতি পদে সোনিয়াজির প্রত্যাবর্তনে কংগ্রেস কি ছন্দ ফিরে পাবে
শুভা দত্ত

ছন্দ তো হারিয়েছে বহুদিন। ছন্দে ফেরার চেষ্টা—সেও শুরু হয়েছে বহুদিন। কিন্তু কিছুতেই যেন সেই পুরনো দমদার ছন্দে ফিরতে পারছে না জাতীয় কংগ্রেস! নেহরু-ইন্দিরার আমল থেকে গান্ধী পরিবারের ছত্রচ্ছায়ায় এবং নেতৃত্বে দলের যে অপ্রতিরোধ্য ছন্দ গোটা দেশকে কংগ্রেসি তেরঙ্গায় বেঁধে রেখেছিল, যে ছন্দ কংগ্রেস প্রতীক ইন্দিরার পাঞ্জার উপর বছরের পর বছর দেশের মানুষের আস্থা বিশ্বাস ও আবেগ ধরে রেখেছিল, জরুরি অবস্থা, নাসবন্দির মতো কাণ্ডের পরও যে ছন্দ ক্ষমতার কেন্দ্রে ফিরিয়ে এনেছিল কংগ্রেসকে, ইন্দিরা এবং ইন্ডিয়া হয়ে উঠেছিলেন সমার্থক—জাতীয় কংগ্রেসের সেই অমিত শক্তি রাজনৈতিক ছন্দ অনেক কাল আগেই ইতিহাসের পাতায় ঠাঁই নিয়েছে।
বিশদ

18th  August, 2019
ওয়াল স্ট্রিটের ‘নেকড়ে’-র গল্প!
মৃণালকান্তি দাস

ওয়াশিংটনের অপরিচিত কোনও এক পথে হাঁটতে হাঁটতে গল্পটা শুনিয়েছিলেন এমিলি ব্রাউন। গল্প বলতে, এক অপরাধীর ঘুরে দাঁড়ানোর কাহিনী। জর্ডন বেলফোর্টের গল্প। যিনি জীবনে অপরাধের নেশায় পড়ে সবকিছু হারিয়েছিলেন। কে এই জর্ডন বেলফোর্ট, জানেন? যাঁর জীবন কাহিনী শুনলে মনে হবে, এ এই মার্কিন মুলুকেই সম্ভব! বিশদ

17th  August, 2019
স্বাধীনতা ৭৩ এবং ভূস্বর্গের মুক্তি
মেরুনীল দাশগুপ্ত

গরিবি যতদিন না যাবে ততদিন এই উপত্যকায় শান্তি আসবে না। কারণ, কাশ্মীরি মানুষের গরিবিই ওদের একটা বড় হাতিয়ার। গরিব মানুষজনের অনেকেই ক’টা টাকার লোভে পড়ে সীমান্তর ওপার থেকে আসা লোকজনকে আশ্রয় দিয়ে, লুকিয়ে রেখে, খাবারদাবারের ব্যবস্থা করে ভ্যালির বিপদ বাড়িয়ে তুলছে।
বিশদ

15th  August, 2019
বনে থাকে বাঘ 
অতনু বিশ্বাস

ছেলেবেলায় ‘সহজ পাঠ’-এ পড়েছিলাম ‘বনে থাকে বাঘ’। যদিও এই পাঠটা যে খুব সহজ আর স্বাভাবিক নাও হতে পারে, অর্থাৎ বনে বাঘ নাও থাকতে পারে, সেটা বুঝতে বেশ বড় হতে হল। ছোটবেলায় অবশ্য মনে বদ্ধমূল ধারণা ছিল, বন-জঙ্গল গিজগিজ করে বাঘে। 
বিশদ

13th  August, 2019
রক্ষক আইন যেন ভক্ষক না হয়
শান্তনু দত্তগুপ্ত 

ভিক্টরি ম্যানসনে ঢুকলেন উইনস্টন স্মিথ। বহুতলে ঢুকেই নজরে আসবে দো’তলা সমান আখাম্বা ছবিটা। শুধু একটা মুখ। নীচে ক্যাপশন করা, বিগ ব্রাদার কিন্তু তোমাকে দেখছে। জর্জ অরওয়েলের কালজয়ী উপন্যাস ১৯৮৪-এর শুরুতেই উল্লেখ এই ছবির। আর এই নভেলের সারমর্মও লুকিয়ে এই ছবিতে—বিগ ব্রাদার দেখছে, তাই সাবধান। সাবধান হও সবাই... সরকারি কর্মচারী, ব্যবসায়ী, সাফাইকর্মী, বেসরকারি চাকুরে... মোদ্দা কথা নারী-পুরুষ নির্বিশেষে। সবসময় নজরদারি।  
বিশদ

13th  August, 2019
একনজরে
সংবাদদাতা, লালবাগ: জিয়াগঞ্জ শহরের ভট্টপাড়ায় ভাগীরথীর পাশে সবুজে ঘেরা পরিবেশে ভবঘুরেদের জন্য চারতলা ঝাঁ চকচকে আবাসন তৈরি হলেও তা এখন ফাঁকা পড়ে। ৫০শয্যার ‘ভালোবাসা’য় চলতি বছরের প্রথম থেকেই শহর বা পুরসভা এলাকার ভবঘুরেদের নিয়মিত থাকা-খাওয়ার কথা থাকলেও তাঁদের দেখা নেই। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: চার বছরের বি টেক করতে করতে মাঝপথে কোর্স ছেড়ে দিতে পারবেন ছাত্রছাত্রীরা। সেরকম সংস্থান রাখা হবে। সেই পড়ুয়া যে ক’বছর পড়বেন, তার স্বীকৃতি দেওয়া হবে। পরে অবশ্য নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পুরো কোর্স শেষ করার সুযোগ থাকবে তাঁর। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: দীর্ঘ ১৯ বছর পর মোহন বাগান ঐতিহাসিক ডুরান্ড কাপ জয়ের সামনে দাঁড়িয়ে। মোহন বাগান শেষবার ডুরান্ডে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ২০০০ সালে। সেবার দিল্লির ...

 নয়াদিল্লি, ২২ আগস্ট (পিটিআই): বুধবার রাতে নাটকীয় পরিস্থিতিতে গ্রেপ্তারের পর জেলে রাত কাটানো ভিআইপি তালিকায় ঢুকে পড়লেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরম। আইএনএক্স মিডিয়ায় ৩০৫ কোটি ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উচ্চপদস্থ ব্যক্তির সহায়তায় কর্মস্থলে জটিলতার সমাধান। বাতজ বেদনায় কষ্ট পাবার সম্ভাবনা। প্রেম-প্রণয়ে সাফল্য। পরশ্রীকাতর ব্যক্তির ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৯৮-কথা সাহিত্যিক তারাশংকর বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৪৪- অভিনেত্রী সায়রাবানুর জন্ম
১৯৯৪- ইংলিশ চ্যানেল অতিক্রমকারী সাঁতারু আরতি গুপ্তর (সাহা) মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৭৯ টাকা ৭২.৪৯ টাকা
পাউন্ড ৮৫.৩৪ টাকা ৮৮.৫১ টাকা
ইউরো ৭৭.৯৮ টাকা ৮০.৯৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,২৮৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৩২৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৬,৮৭০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৪,০৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৪,১৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৬ ভাদ্র ১৪২৬, ২৩ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার, সপ্তমী ৭/৪ দিবা ৮/৯। কৃত্তিকা ৫৬/৯ রাত্রি ৩/৪৭। সূ উ ৫/১৯/৪১, অ ৫/৫৯/১৩, অমৃতযোগ দিবা ৭/০ মধ্যে পুনঃ ৭/৫১ গতে ১০/২৩ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৬ গতে ২/৩৭ মধ্যে পুনঃ ৪/১৮ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৭/৩০ গতে ৯/১ মধ্যে পুনঃ ৩/৩ গতে ৩/৪৮ মধ্যে, বারবেলা ৮/২৯ গতে ১১/৩৯ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/৪৯ গতে ১০/১৪ মধ্যে।
৫ ভাদ্র ১৪২৬, ২৩ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার, অষ্টমী ৫৫/৩০/৩৯ রাত্রি ৩/৩১/১। কৃত্তিকানক্ষত্র ৪৭/২৮/৩০ রাত্রি ১২/১৮/৯, সূ উ ৫/১৮/৪৫, অ ৬/২/১৩, অমৃতযোগ দিবা ৭/২ মধ্যে ও ৭/৫২ গতে ১০/২০ মধ্যে ও ১২/৪৮ গতে ২/২৭ মধ্যে ও ৪/৬ গতে ৬/২ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/১২ গতে ৮/৫১ মধ্যে ও ৩/৪ গতে ৩/৫১ মধ্যে, বারবেলা ৮/২৯/৩৭ গতে ১০/৫/৩ মধ্যে, কালবেলা ১০/৫/৩ গতে ১১/৪০/২৯ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/৫১/২১ গতে ১০/১৫/৫৫ মধ্যে।
২১ জেলহজ্জ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
চন্দ্রযান ২-এর তোলা চাঁদের প্রথম ছবি 
চন্দ্রযান ২-এর তোলা চাঁদের প্রথম ছবি প্রকাশ করল ইসরো ...বিশদ

22-08-2019 - 08:25:16 PM

২৬ আগস্ট পর্যন্ত চিদম্বরমের সিবিআই হেফাজত 
পি চিদম্বরমের ৫ দিনের সিবিআই হেফাজতের নির্দেশ দিল আজ সিবিআই঩য়ের ...বিশদ

22-08-2019 - 06:50:00 PM

ফের আক্রান্ত পুলিস, এবার আমতায়
ফের একবার পুলিসকে মারধর করে উদি ছিঁড়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠল। ...বিশদ

22-08-2019 - 04:49:07 PM

রায়গঞ্জে বিজেপি সমর্থকের কান কাটার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে 
রায়গঞ্জের পূর্বপাড়া এলাকায় হাঁসুয়া দিয়ে এক মহিলার কান কেটে নেওয়ার ...বিশদ

22-08-2019 - 04:21:05 PM

তারকেশ্বর ডিগ্রি কলেজে গোলমাল, জখম ১ 
তারকেশ্বর ডিগ্রি কলেজে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সদস্য এবং অখিল ভারতীয় ...বিশদ

22-08-2019 - 04:03:52 PM

চিদম্বরমকে ৫ দিনের হেফাজতে চাইল সিবিআই
সিবিআইয়ের বিশেষ আদালতে পি চিদম্বরমকে ৫ দিনের হেফাজতে চাইল সিবিআই। ...বিশদ

22-08-2019 - 04:03:00 PM