Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

এক বাস্তববাদী রাজনীতিকের নাম শ্যামাপ্রসাদ
হারাধন চৌধুরী

নরেন্দ্র মোদির দ্বিতীয় সরকার নিয়ে বিজেপি তিন দফায় ভারত শাসনের দায়িত্ব পেল। কংগ্রেসকে বাদ দিলে ভারতের আর কোনও রাজনৈতিক দল এই কৃতিত্ব অর্জন করতে পারেনি। ২০১৯-এর লোকসভার ভোটে বিজেপি ক্ষমতা অনেকখানি বাড়িয়ে নিয়েছে। ২০১৪-র থেকে বেশি ভোট পেয়েছে এবং তিনশোর বেশি আসন দখল করেছে। ভোটপণ্ডিতদের অনেক ভবিষ্যদ্বাণী মিথ্যে প্রমাণিত হয়ে গিয়েছে এবার। কংগ্রেসসহ বিরোধীদের বস্তুত দিশেহারা অবস্থা। পরাজয়ের ধাক্কা কংগ্রেসে এতটাই লেগেছে যে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর এখন ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি অবস্থা। ভারতই পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্র। সেই হিসেবে বিজেপি পৃথিবীর বৃহত্তম গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক সংগঠন।
১৯৪৭ সালে ভারতভাগ হয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বাঙালির গর্ব করার অনেক কিছুই হারিয়ে গিয়েছে। যতটুকু বেঁচে আছে তার মধ্যে একটি নাম নিঃসন্দেহে এই বিজেপি। জওহরলাল নেহরুর সঙ্গে চরম মতপার্থক্যের পরিণামে ১৯৫১ সালে শ্যামাপ্রসাদ ভারতীয় জনসংঘ প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৫২ সালে দেশের প্রথম সাধারণ নির্বাচনে দলটি লোকসভায় তিনটি আসন পায়। ওই তিনজন এমপির একজন ছিলেন স্বয়ং তিনি। আর সেবার বিধানসভায় জনসংঘের ন’জন প্রার্থী জয়ী হন।
কিন্তু ১৯৫৩ সালে কাশ্মীরে তাঁর রহস্যমৃত্যুর পর জনসংঘ বস্তুত অনাথ হয়ে পড়ে। দীর্ঘদিন দলটির অস্তিত্ব দেশবাসীর নজর কাড়েনি। ১৯৭৭ সালে জরুরি অবস্থার অবসানের পর চরণ সিংয়ের লোক দল, মোরারজি দেশাইয়ের কংগ্রেস (ও) এবং অটলবিহারী বাজপেয়ি-লালকৃষ্ণ আদবানিদের জনসংঘ মিশে গিয়ে জনতা পার্টি নাম নেয়। মোরারজি সরকারের তিক্ত অভিজ্ঞতা থেকে সাবেক জনসংঘি অংশ বেরিয়ে গিয়ে ১৯৮০ সালে গড়ে তোলে ভারতীয় জনতা পার্টি। ১৯৯৬
সালে লোকসভায় একক বৃহত্তম দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে দলটি। দশম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন অটলজি। তারপরের ইতিহাস সারা দুনিয়া জানে।
সহজ করে বললে এটাই সত্য যে এক বঙ্গসন্তানের হাতে রোপণ করা চারাগাছ আজ এক বিস্ময় মহীরুহ হয়ে উঠেছে। বাংলামায়ের সেই বরেণ্য সন্তান শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের আজ জন্মদিন। ১৯০১ সালের ৬ জুলাই তাঁর জন্ম।
আমরা জানি ভারতকেশরী শ্যামাপ্রসাদের পিতা হলেন বাংলার বাঘ আশুতোষ মুখোপাধ্যায়। শিক্ষাজগতে আশুতোষ এক কিংবদন্তিপুরুষ। শ্যামাপ্রসাদ সর্বার্থেই ছিলেন তাঁর যোগ্য সন্তান ও উত্তরসূরি। সর্বভারতীয় রাজনীতিতে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর পাশে আর একজনমাত্র বঙ্গসন্তান বসার যোগ্যতা অর্জন করেছিলেন তাঁর নাম শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়। ১৯৩৯ সালে ৩৮ বছর বয়সে তাঁর রাজনৈতিক জীবন শুরু হলেও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে তিনি যুক্ত হয়ে পড়েন আরও অনেক আগে, তাঁর পিতার মৃত্যুর পরই। মাত্র ৩৩ বছর বয়সে তিনি সেখানে উপাচার্যের দায়িত্বভারও নেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্ব নেওয়ার পর তিনি প্রতিষ্ঠানটিকে নিছক ডিগ্রি বিতরণের একটি কারখানা হিসেবে দেখতে চাননি। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যুক্ত করাটা তাঁর এক বিরাট অবদান। চিকিৎসা বিজ্ঞানী রোনাল্ড রস, পদার্থ বিজ্ঞানী সি ভি রমন-সহ সে-যুগের অনেক প্রণম্য পণ্ডিতের সঙ্গে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের যে নিবিড় সম্পর্ক গড়ে উঠেছিলে তার নেপথ্য কারিগর ছিলেন শ্যামাপ্রসাদ।
বাংলা এবং বাঙালির স্বার্থে তিনি ছিলেন আপসহীন। পঞ্চাশের মন্বন্তর (১৯৪৩) নিয়ে ইংরেজ সরকারের বিরুদ্ধে সবচেয়ে সরব ছিলেন শ্যামাপ্রসাদ। ১৯৪৬-এ কলকাতায় ও নোয়াখালিতে অশান্তি এবং ১৯৫০ সালে পূর্ব পাকিস্তানে সংখ্যালঘুদের উপর সঙ্কীর্ণমনাদের নিপীড়ন তাঁকে বিশেষভাবে প্রতিবাদী করে তুলেছিল। ১৯৪৭ সালে নেহরু মন্ত্রিসভার গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হিসেবে বাংলা গঠনে বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেন। দামোদর ভ্যালি কর্পোরেশন (ডিভিসি), চিত্তরঞ্জন রেল ইঞ্জিন কারখানা (সিএলডব্লু), খড়্গপুরে আইআইটি, কলকাতায় ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান (আইআইএসডব্লুবিএম) প্রভৃতি প্রতিষ্ঠার পিছনে তাঁর বিরাট ভূমিকা ছিল। ভারতের প্রথম শিল্পনীতি প্রণয়ন এবং শিল্প উন্নয়ন নিগম প্রতিষ্ঠা তাঁরই কীর্তি।
শ্যামাপ্রসাদের রাজনীতির কালটি ছিল অত্যন্ত গোলমেলে এবং স্পর্শকাতর। আমরা জানি, হিন্দু-মুসলিম বিরোধের আবহে দেশভাগ হয়েছিল। হিন্দুদের উপর অত্যাচারের প্রতিবাদে তিনি সরব ছিলেন। এমনকী হিন্দু মহাসভার মতো সংগঠনে যোগ দিয়ে তার সভাপতির পদও অলংকৃত করেছেন। এই কারণে অনেকে তাঁকে সঙ্কীর্ণ হিন্দুত্ববাদী নেতা বলে চিহ্নিত করে থাকেন। ফজলুল হকের মতো নেতা, কাজী নজরুল ইসলামের মতো কবিরা কিন্তু এই অভিযোগ কোনোদিন আমল দেননি। তাঁরা বরং শ্যামাপ্রসাদকে যথেষ্ট উদার এবং নিরপেক্ষ মানুষ হিসেবেই প্রশংসা করেছেন। তাঁর বাস্তবজ্ঞান ছিল সর্বজনবিদিত।
শ্যামাপ্রসাদ ভারতভাগের বিরোধী ছিলেন। কিন্তু ভারতভাগ অনিবার্য হয়ে উঠলে তিনি বাংলাভাগের দাবিতে সোচ্চার হন। কারণ, তিনি মনে করতেন অখণ্ড বাংলা পাকিস্তানে চলে গেলে বাঙালি হিন্দু ঘোর দুর্দশায় পড়ে যাবে। পশ্চিমবঙ্গ যে স্বাধীন ভারতের অন্তর্ভুক্ত—এটা বস্তুত শ্যামাপ্রসাদের ইচ্ছাই ফলবতী হওয়া।
ভারতের অন্যতম বৃহৎ সমস্যা হল কাশ্মীর সমস্যা। সাড়ে ছয় দশক আগেই এটা নির্ভুলভাবে অনুমান করেছিলেন যিনি তাঁর নাম শ্যামাপ্রসাদ। তাই এই সমস্যার মূল শুরুতেই উপড়ে ফেলার প্রতিজ্ঞা নিয়ে ১৯৫৩ সালে তিনি কাশ্মীর অভিযান করেন। তাঁর সেই অভিযানের অন্তরায় হয়ে উঠেছিল খোদ স্বাধীন দেশের রাষ্ট্রশক্তি। কে বলতে পারে, যদি শ্যামাপ্রসাদ সেদিন জয়ী হতেন তবে ভারতে কাশ্মীর সমস্যা বলে আজ কিছুই হয়তো অবশিষ্ট থাকত না। ভারতের অখণ্ডতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার ব্যয়ভার এতটা গুরু হতো না আমাদের পক্ষে।
06th  July, 2019
অ্যাপোলো ৫০: গো ফর দ্য মুন
মৃণালকান্তি দাস

 মই বেয়ে লুনার মডিউল ঈগল থেকে চাঁদের বুকে নামতে নামতে নিল আর্মস্ট্রং বলেছিলেন, ‘একজন মানুষের এই একটি পদক্ষেপ হবে মানবজাতির জন্য এক বিরাট অগ্রযাত্রা।’ সেই ছিল চাঁদের বুকে মানুষের প্রথম পদচিহ্ন আর মানবজাতির সেদিনের প্রমিথিউস ছিলেন নিল আর্মস্ট্রং। চাঁদের বুকে নিলের পা ফেলার মাধ্যমে মানুষ চাঁদকে জয় করেছিল।
বিশদ

বাঙালির যে সংস্কৃতি হারিয়ে গেল
জিষ্ণু বসু

ইদানীং রাজ্যে একটা গেল গেল রব শোনা যাচ্ছে। বাঙালি তার সংস্কৃতি হারাচ্ছে। বিজেপি ও আরএসএসের দৌরাত্ম্যে বাংলা যে চেহারা নিচ্ছে সেটা এ রাজ্যের সংস্কৃতির পরিপন্থী। বাঙালি বড়জোর ‘জয়দুর্গা’ বলতে পারে, কিন্তু ‘জয় শ্রীরাম’ বলার প্রশ্নই ওঠে না।
বিশদ

18th  July, 2019
পরিবারতান্ত্রিক সঙ্কট 
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ছবিটা খুব পরিচিত। নিজের দলের বিরুদ্ধেই ধর্নায় বসেছেন ইন্দিরা গান্ধী। ভাঙতে চলেছে কংগ্রেস। আর তার নেপথ্যে ক্ষমতার ভারসাম্য বজায় রাখার সংঘাত। একদিকে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা। অন্যদিকে কামরাজ, মোরারজি দেশাই, তৎকালীন কংগ্রেস সভাপতি নিজলিঙ্গাপ্পা। 
বিশদ

16th  July, 2019
মোদি সরকারের নতুন জাতীয় শিক্ষানীতি দেশকে কোন দিকে নিয়ে চলেছে
তরুণকান্তি নস্কর

নয়া শিক্ষানীতির কেন্দ্রবিন্দুই হল এই ভারতীয়ত্বের নাম করে মধ্যযুগীয় বাতিল চিন্তা ভাবনার জাবর কাটার প্রচেষ্টা। পঞ্চতন্ত্র, জাতক, হিতোপদেশের গল্পকে তাঁরা স্কুল পাঠ্য করতে চাইছেন, সংস্কৃত শিক্ষাকে গুরুত্ব দিচ্ছেন অথচ ইংরেজি ভাষা শিক্ষাকে গুরুত্বহীন করে দেখানোর চেষ্টা করেছেন। পাঠ্যতালিকায় বহু ব্যক্তির জীবনীচর্চার উল্লেখ আছে, কিন্তু সেই তালিকায় ভারতীয় নবজাগরণের পথিকৃৎ রামমোহন ও বিদ্যাসাগরের নাম সযত্নে বাদ দেওয়া হয়েছে। রামমোহন-বিদ্যাসাগরই যে এদেশে প্রথম ধর্মীয় কুসংস্কারাচ্ছন্ন শিক্ষা ব্যবস্থাকে বাতিল করে আধুনিক শিক্ষা প্রচলনের জন্য লড়াই করেছিলেন তা কারোর অজানা নয়। ভারতীয় নবজাগরণের এই মনীষীরা যে আরএসএস-বিজেপির চক্ষুশূল তা আজ জলের মতো পরিষ্কার।
বিশদ

15th  July, 2019
সাত শতাংশ বৃদ্ধির ফাঁদে
পি চিদম্বরম

 কেন্দ্রীয় সরকারের বাজেটগুলির মধ্যে ২০১৯-২০ সালের বাজেট স্বাভাবিকের তুলনায় দ্রুত জট খুলল। মানুষের মধ্যে এই বাজেট নিয়ে কিংবা আগের বাজেট প্রস্তাবটি নিয়ে কোনও আলোচনা নেই। অতিশয় ধনীরা (সুপার রিচ ৬৪৬৭) বিরক্ত, তবুও ভয়ে স্পিকটি নট। ধনীদের স্বস্তি এখানেই যে তাঁদের রেয়াত করা হয়ে থাকে।
বিশদ

15th  July, 2019
একটু ভাবুন
শুভা দত্ত

 বিশ্বের চারদিক থেকে পানীয় জল নিয়ে গুরুতর অশনিসংকেত আসার পরও আমাদের এই কলকাতা শহরে তো বটেই, গোটা রাজ্যেই প্রতিদিন বিশাল পরিমাণ জল অপচয় হয়। আপাতত বেশিরভাগ জায়গায় জলের জোগান স্বাভাবিক আছে বলে সেটা গায়ে লাগছে না। তাই এখনও আসন্ন মহাবিপদের কথাটা ভাবছেন খুব সামান্যজনই। বাদবাকিরা এখনও নির্বিকার, ভয়ডরহীন—দু’জনের সংসারে আড়াই-তিন হাজার লিটার শেষ করে দিচ্ছে দিনে, বাড়ি গাড়ি ধোয়া চালাচ্ছে কর্পোরেশনের পানীয় জলে! আহাম্মক আর কাকে বলে।
বিশদ

14th  July, 2019
বেনোজলের রাজনীতি
তন্ময় মল্লিক

জেলায় জেলায় নব্যদের নিয়ে বিজেপির আদিদের ক্ষোভ রয়েছে। আর এই ক্ষোভের অন্যতম কারণ যোগদানকারীদের বেশিরভাগই এক সময় হয় সিপিএমের হার্মাদ বাহিনীর সদস্য ছিলেন, অথবা তৃণমূলের ‘কাটমানি নেতা’। তাই এই সব নেতাকে নিয়ে স্বচ্ছ রাজনীতির স্লোগান মানুষ বিশ্বাস করবে না। উল্টে লোকসভা ভোটে যাঁরা নীরবে সমর্থন করেছিলেন, তাঁরা ফের নিঃশব্দেই মুখ ফিরিয়ে নেবেন।‘ফ্লোটিং ভোট’ যে মুখ ঘুরিয়ে নিতে পারে, সেটা বিজেপির পোড়খাওয়া নেতারা বুঝতে পারছেন। তাঁরা বলছেন, ভোটের ফল প্রকাশের পর যাঁরা আসছেন তাঁরা কেউই বিজেপির আদর্শের জন্য আসছেন না, আসছেন বাঁচার তাগিদে। কেউ কেউ লুটেপুটে খাওয়ার অভ্যাস বজায় রাখার আশায়।
বিশদ

13th  July, 2019
ঘোষণা ও বাস্তব
সমৃদ্ধ দত্ত

ভারত সরকারের অন্যতম প্রধান একটি প্রকল্পই হল নদী সংযোগ প্রকল্প। দেশের বিভিন্ন নদীকে পরস্পরের সঙ্গে যুক্ত করে দেওয়া হবে। যাতে উদ্বৃত্ত জলসম্পন্ন নদী থেকে বাড়তি জল শুকনো নদীতে যেতে পারে। প্রধানমন্ত্রী বারংবার এই প্রকল্পের প্রয়োজনীয়তার কথা বলেন। গোটা প্রকল্প রূপায়ণ করতে অন্তত ১ লক্ষ কোটি টাকা দরকার। এদিকে আবার বুলেট ট্রেন করতেও ১ লক্ষ ৮০ হাজার কোটি টাকা খরচ হচ্ছে! আধুনিক রাষ্ট্রে অবশ্যই দুটোই চাই। কিন্তু বাস্তব প্রয়োজনের ভিত্তিতে বিচার করলে? কোনটা বেশি জরুরি? বিশদ

12th  July, 2019
মোদি সরকারের নতুন জাতীয় শিক্ষানীতি দেশকে কোন দিকে নিয়ে চলেছে
তরুণকান্তি নস্কর

 কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন দপ্তর থেকে সম্প্রতি জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১৯-এর যে খসড়া প্রকাশিত হয়েছে তার যে অংশ নিয়ে সংবাদ মাধ্যমে হই চই পড়েছিল তা হল বিদ্যালয় স্তরে ত্রি-ভাষা নীতির মাধ্যমে অ-হিন্দিভাষী রাজ্যে জোর করে হিন্দি চাপানোর বিষয়টি। তামিলনাড়ুর মানুষের প্রবল আপত্তিতে তা কেন্দ্রীয় সরকার প্রত্যাহার করে নিয়েছে।
বিশদ

11th  July, 2019
কেন তেরোজন অর্থনীতিবিদ অখুশি হবেন?
পি চিদম্বরম

প্রধান অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. অরবিন্দ সুব্রামনিয়ন পাঁচ বছর আগে তাঁর প্রথম অর্থনৈতিক সমীক্ষা (ইকনমিক সার্ভে ২০১৪-১৫) পেশ করে বলেছিলেন, ‘‘ভারত একটা সুন্দর জায়গায় (সুইট স্পট) পৌঁছে গিয়েছে—জাতির ইতিহাসে এটা বিরল—এইভাবে শেষমেশ দুই সংখ্যার মধ্যমেয়াদি বৃদ্ধির কৌশলে ভর করে এগনো যাবে।’’
বিশদ

08th  July, 2019
জলের জন্য হাহাকার আমাদের কি একটুও ভাবাচ্ছে!
শুভা দত্ত

আমাদের এখনও তেমন অসুবিধে হচ্ছে না। কারণ, কলকাতা মহানগরীতে এখনও পানীয় হোক কি সাধারণ কাজকর্ম সারার জলের অভাব ঘটেনি। ঘটেনি কারণ আমাদের জল জোগান যে মা গঙ্গা, তিনি এখনও বহমান এবং তাঁর বুকের ঘোলা জলে এখনও নিয়ম করে বান ডাকে, জোয়ার-ভাটা খেলে।
বিশদ

07th  July, 2019
চাকরি ও পরিকাঠামো উন্নয়নে প্রত্যাশিত দিশা দেখাতে পারল না নির্মলা সীতারামনেরও বাজেট
দেবনারায়ণ সরকার

 লোকসভা নির্বাচনের আগে গত ফেব্রুয়ারিতে বর্তমান বছরের (২০১৯-২০) অন্তর্বর্তী বাজেট পেশ করা হয়েছিল। নির্বাচনে বিপুল জয়ের পরে বর্তমান অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন দ্বিতীয় মোদি সরকারের বর্তমান অর্থবর্ষের পূর্ণাঙ্গ বাজেট পেশ করলেন। এই বাজেটে আয় ও ব্যয় অন্তর্বর্তী বাজেটে যা ধরা হয়েছিল সেটাই অপরিবর্তিত রইল।
বিশদ

06th  July, 2019
একনজরে
 সুমন তেওয়ারি, আসানসোল, বিএনএ: কাটমানি, স্বজনপোষণ, পঞ্চায়েতের কাজের টেন্ডারের অনিয়ম এবং নিম্নমানের কাজে যুক্ত পঞ্চায়েত প্রধান ও নির্মাণ সহায়ক। এমনই গুরুতর অভিযোগ মুখ্যমন্ত্রীর দপ্তরে জানানোর সাতদিনের মধ্যে প্রাথমিক তদন্ত করে অভিযুক্ত প্রধান ও নির্মাণ সহায়ককে শোকজ করল প্রশাসন। ...

 ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...

 বাপ্পাদিত্য রায়চৌধুরী, কলকাতা: দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি প্রাণিসম্পদ ও ডেয়ারি সংক্রান্ত নতুন একটি মন্ত্রক চালু করেছেন। সেই মন্ত্রক গোড়াতেই পাখির চোখ করছে ...

 নয়াদিল্লি, ১৮ জুলাই (পিটিআই): অযোধ্যার রাম জন্মভূমি-বাবরি মসজিদ জমি বিতর্ক মামলায় মধ্যস্থতার প্রক্রিয়া জারি রাখার অনুমতি দিল সুপ্রিম কোর্ট। পাশাপাশি মধ্যস্থতার ফলাফল কী দাঁড়াল, তা নিয়ে ১ আগস্ট রিপোর্ট পেশ করতে বলল শীর্ষ আদালত। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কারও কথায় মর্মাহত হতে হবে। বিবাহের যোগ আছে। কর্মে সুনাম বাড়বে। পাওনা অর্থ আদায় হবে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৬৩: কবি, গীতিকার ও নাট্যকার দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের জন্ম
১৮৯৯: লেখক বনফুল তথা বলাইচাঁদ মুখোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৫৫: প্রাক্তন ক্রিকেটার রজার বিনির জন্ম
২০১২: বাংলাদেশের লেখক হুমায়ুন আহমেদের মূত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৭.৯৫ টাকা ৬৯.৬৪ টাকা
পাউন্ড ৮৪.০৯ টাকা ৮৭.২২ টাকা
ইউরো ৭৫.৯৩ টাকা ৭৮.৮৭ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৫,৩৫০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৩,৫৪০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৪,০৪৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,২৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,৩৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৯ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, দ্বিতীয়া ৪/৩৩ দিবা ৬/৫৫। ধনিষ্ঠা ৫৮/১৮ রাত্রি ৪/২৫। সূ উ ৫/৬/৩, অ ৬/১৯/৩১, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫২ মধ্যে পুনঃ ৭/৪৫ গতে ১০/২৪ মধ্যে পুনঃ ১/২ গতে ২/৪৮ মধ্যে পুনঃ ৪/৩৩ গতে অস্তাবধি, বারবেলা ৮/২৪ গতে ১১/৪৩ মধ্যে, কালরাত্রি ৯/১ গতে ১০/২২ মধ্যে।
২ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৯ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, তৃতীয়া ৬০/০/০ অহোরাত্র। ধনিষ্ঠানক্ষত্র ৫৫/৩১/৩৩ রাত্রি ৩/১৭/৪৩, সূ উ ৫/৫/৬, অ ৬/২২/৫, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৬ মধ্যে ও ৭/৪৮ গতে ১০/২৪ মধ্যে ও ১/১ গতে ২/৪৫ মধ্যে ও ৪/৩০ গতে ৬/২২ মধ্যে। রাত্রি ৭/৪২ গতে ৯/৯ মধ্যে ও ৩/০ গতে ৩/৪৪ মধ্যে, বারবেলা ৮/২৪/২২ গতে ১০/৩/৫৯ মধ্যে, কালবেলা ১০/৩/৫৯ গতে ১১/৪৩/৩৭ মধ্যে, কালরাত্রি ৯/২/৫১ গতে ১০/২৩/১৪ মধ্যে।
১৫ জেল্কদ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
২২ জুলাই কর্ণাটক বিধানসভায় আস্থাভোট 

08:37:08 PM

গড়িয়াহাট রোডে গাড়িতে আগুন, হতাহত নেই 

06:58:00 PM

উত্তরপ্রদেশে দলিত হত্যার প্রতিবাদে গান্ধী মূর্তির পাদদেশে মহিলা তৃণমূলের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ মিছিল 

06:05:00 PM

শিলিগুড়িতে ভূমিকম্প 
পরপর দু’টি ভূমিকম্পে কাঁপল শিলিগুড়ি সহ দার্জিলিংয়ের বিস্তীর্ণ এলাকা। রিখটার ...বিশদ

04:13:49 PM

কর্ণাটক: আজ সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে বিধানসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠতার প্রমাণ দিতে হবে, কুমারস্বামীকে চিঠি পাঠিয়ে নির্দেশ রাজ্যপালের 

04:05:11 PM

৫৬০ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স 

04:04:38 PM