Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

সবার উপরে ভোট সত্য
হারাধন চৌধুরী 

সিকি শতক আগের কথা। কর্মসূত্রে মেদিনীপুর শহরে থাকি। গ্রীষ্মের সকাল। ভোটের দিন। ভোটের খবর নিতে বেরনোর আগে চায়ের ভাঁড়ে চুমুক দেব। পঞ্চুরচকে চায়ের দোকানে এসেছি। এক ফেরিওয়ালার সঙ্গে দেখা। বছর চল্লিশ বয়স। ঝাঁকা নামিয়ে রেখে চায়ের অর্ডার দিয়েছেন। জানলাম, বাড়ি তাঁর কেশপুর। বিস্ময়ের সঙ্গে জিগ্যেস করলাম, এত তাড়াতাড়ি ভোট দেওয়া হয়ে গেল! ম্লান মুখে তিনি বললেন, ‘‘ভোট দিইনি।’’ কেন ভোটার লিস্টে নাম নেই? —‘‘আছে। সব বারই থাকে জানি। কিন্তু কোনোদিন ভোট দিইনি। ভোট দিতে কেমন লাগে জানা হল না একবার! ভোট দিতে দেয় না। পার্টির ছেলেরা আগের দিন এসে বলে যায়, এবারও বলে গেছে, কেউ বুথে যাবে না। তোমরা তো সিপিএমকেই ভোট দেবে। সে আমরাই দিয়ে দেব। কাজ কামাই করে, রোদে পুড়ে তোমাদের যাওয়ার দরকার নেই। তোমরা সকাল সকাল যে যার কাজে বেরিয়ে পড়বে। ’’
এই মানুষটি যে কোনও বিচ্ছিন্ন চরিত্র নয়, পাঠক বয়স্ক হলে নিশ্চয় জানেন। অথচ রেজাল্ট বেরনোর পর আমরা অবাক হয়ে দেখতাম কেশপুরের সিপিএম প্রতীকের প্রার্থী রেকর্ড ভোটে জিতেছেন! প্রায় প্রতি ভোটে ভেঙে যেত তার পূর্ববর্তী ভোটের রেকর্ড! দীর্ঘদিন মাঠে ময়দানে নেমে রিপোর্টিং করার সুবাদে দেখেছি—কেশপুর কোনও বিচ্ছিন্ন দ্বীপ নয়, বাংলাজুড়ে তখন কেশপুর আর কেশপুর! যেখানে ভদ্র কথায়, এমনকী চোখ রাঙানিতেও কাজ হয়নি সেখানে সিপিএম রকমারি অত্যাচার নামিয়ে আনত। কোথাও সরাসরি ডান্ডা মারত। বাড়ির মেয়ে বউদের উপর অত্যাচার করত। বাবা মায়ের শ্রাদ্ধানুষ্ঠানে বাগড়া দিত। পুরনো পাকা চাকরি খেত। অত্যন্ত যোগ্য ছেলেমেয়েদের কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি এবং ন্যায্য চাকরি আটকে দিত। মাইনে, পেনশন বন্ধ হতো। কোথাও সবক শেখাত চাষিদের খেতমজুর বয়কট করে। ভূমি আইনের অপব্যাখ্যা করে অনেক সামান্য ব্যক্তির সামান্য জমিজমাও বেদখল করে নিত। ঘর জ্বালাত। মাছ ভরা পুকুরে, জলকরে বিষ ঢেলে দিত। এমনকী ‘হাত’-এ ভোট দেওয়ার অপরাধে হাত কেটে নেওয়ার মতো পৈশাচিক কাণ্ড ঘটিয়েছে সিপিএমের পাপীরা। কলকাতার অদূরে হাওড়ার কান্দুয়া গ্রামে এখনও ঘুরে বেড়াচ্ছেন এমন কয়েকজন জ্যান্ত দৃষ্টান্ত। সব দেখেও পুলিস-প্রশাসনের সব স্তর বোবা কালা অন্ধের ন্যায় আচরণ করত। বস্তুত, পার্টি আর প্রশাসন হরিহর আত্মা হয়ে উঠেছিল।
২০১১ সালে বাংলা হল সিপিএমের ‘শেষপুর’। তার আগে বাম জমানার একটা বড় সময়জুড়ে এটাই চলেছে। অথচ, ১৯৭৭ সালে ক্ষমতাসীন হওয়ার আগে সিপিএম গগনভেদী চিৎকার করে তার পূর্বসূরি কংগ্রেসের ২৭ বছরব্যাপী দুঃশাসনের সাতকাহন শুনিয়েছিল, মানুষকে পাশে নিতে। তাদের মূল বক্তব্য ছিল, ১৯৭২-৭৬ পর্বে বাংলায় আধা-ফ্যাসিবাদ চলেছিল। ১১০০ বামপন্থী কর্মী-সমর্থক নিহত হয়েছিলেন কংগ্রেসি গুন্ডাদের হাতে। অথচ, একজনও অপরাধীর বিরুদ্ধে সরকার ব্যবস্থা নেয়নি। জ্যোতি বসু তাঁর ভাষণে এবং লেখাপত্রে কংগ্রেসকে ‘মানুষের শত্রু’ বলে উল্লেখ করেছেন বার বার। কংগ্রেস সম্পর্কে সজাগ করতে গিয়ে ১৯৭২ সালে নির্বিচারে ভোট লুটের কথা স্মরণ করিয়ে দিতেন। পরিস্থিতি সেবার এমন হয়েছিল যে রাস্তায় মিলিটারি পর্যন্ত নামাতে হয়েছিল। প্রতিবাদে বামেরা পাঁচ বছর বিধানসভা বয়কট করেছিলেন। ১৯৭২-৭৫ সালে দেশজুড়ে জরুরি অবস্থা ঘোষণার কালটি গণতন্ত্রের ইতিহাসে সবচেয়ে অন্ধকার এক অধ্যায়।
স্বাধীনতার ভগীরথ হল কংগ্রেস। কংগ্রেসের সঙ্গে সেঁটে রয়েছে গান্ধীজিসহ বহু সংগ্রামী নায়কের নাম। তাঁদের নামের সঙ্গে সমার্থক ঠেকত ‘স্বাধীনতা’ এবং ‘গণতন্ত্র’ শব্দ দুটি। এই পরিচয় ভাঙিয়েই স্বাধীন ভারতের বেশিরভাগটাই কব্জায় এনেছিল কংগ্রেস। কিন্তু, মানুষ দেখেছিল সবটাই ভণ্ডামিমাত্র! কংগ্রেসের এই জনবিরোধী মূর্তি চুরমার করেই জ্যোতি বসু বাংলায় বামফ্রন্ট জমানার সূচনা করেছিলেন।
১৯৭৭ সালের ২৫ আগস্ট বামফ্রন্ট সরকারের প্রথম বাজেট ভাষণে অর্থমন্ত্রী অশোক মিত্র বলেছিলেন, ‘‘আমরা এটাই চাই যে গ্রামের এবং শহরের দরিদ্রতম মানুষটিও যেন এই উপলব্ধিতে স্থিত হতে পারেন যে, এবার ব্যবস্থা পাল্টে গেছে, এখন থেকে সম্পদই সব নয়, তাঁদের যদি সহায়-সম্পদ নাও থাকে তা হ’লেও তাঁরা আর্থিক উন্নতির সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবেন না। ... যে সাধারণ মানুষ গত তিরিশ বছর ধ’রে বঞ্চিত ও প্রতারিত হয়ে এসেছেন, আমরা এমন এক পরিবেশ সৃষ্টি করতে চেষ্টা ক’রে যাবো যাতে তিনি বুঝতে পারেন আর ভয় নেই, যা তাঁর প্রাপ্য এখন থেকে তা তাঁকে পৌঁছে দেওয়া হবে। ’’
‘পশ্চিমবঙ্গ সরকারের নয় বছর’ বইয়ের ভূমিকায় ১৯৮৬ সালের ২১ জুন জ্যোতি বসু লিখেছিলেন, ‘‘আমাদের রাজ্যের সব শ্রেণীর মানুষের ক্ষেত্রেই গণতান্ত্রিক অধিকার ও নাগরিক স্বাধীনতা সুনিশ্চিত করার প্রতি আমরা বিশেষ নজর দিয়েছি। এ সব অধিকার ও স্বাধীনতা গণতন্ত্রের মৌলিক শর্ত, অথচ কংগ্রেস আমলে এগুলি নির্দয়ভাবে অপহৃত হয়েছিল।’’
আর এই সরকারেরই বিরুদ্ধে ভূতপূর্ব কংগ্রেসি প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর অভিযোগ ছিল—বাংলার গ্রামের উন্নতির জন্য যেখানে এক টাকা খরচ করার কথা বাম রাজত্বে সেখানে সম্ভবত দশ পয়সার বেশি খরচ হয় না। বাকিটা অবৈধ লেনদেনে হাপিস হয়ে যায়। রাজীব গান্ধী যে একটুও ভুল বলেননি তার প্রমাণ, বিদায়কালে বামেরা একটি অত্যন্ত বেহাল বাংলা রেখে গিয়েছিল। দারিদ্রসীমার নীচে বিপুল সংখ্যক মানুষ, শিল্প-ব্যবসা-বাণিজ্য ক্ষেত্রে অলক্ষ্মীর দবদবা, বেকার যুবক-যুবতীদের হাহাকার আর রাস্তাঘাট থেকে শুরু করে সর্বক্ষেত্রের ক্ষয়াটে চেহারা। হয়তো একটু ভুল বলা হল। ব্যতিক্রম ছিল সিপিএম পার্টির কিছু নেতার চেহারা। তাঁদের এককালের চিমড়ে চেহারা অতীত, তাঁরা বিজ্ঞাপনের নাদুস-নুদুস বেবিদের মতো চকচকে। টালির ঘরের জায়গায় দোতলা-তিনতলা বাড়ি তাঁদের। বিড়ি ফেলে দামি সিগারেটে সুখটান দেন। ছেলেমেয়েরা নামী ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে পড়ে। তাদের অনেকে বড় পাশ দিয়ে বিদেশে গবেষণা অথবা চাকরি করে। স্কুল পাঠশালার সবচেয়ে কমা সার্টিফিকেট হাতে নিয়েও সরকারি দপ্তর আলো করা পরিবার নেহাত কম নয়। রাজকোষ খালি করে ক্যাডার পোষার কারবারটি বাম জমানার এক বিরাট আবিষ্কার।
সিপিএম সার বুঝেছিল—কাজ করে, উন্নয়ন করে বার বার ক্ষমতায় ফেরা যায় না। কিছুদিন বাদেই মানুষের চাহিদা বাড়বে, টেস্ট বদলে যাবে। ভোট দেওয়ার সুযোগ পেলেই মানুষ তার সদ্ব্যবহার করতে মরিয়া হয়ে উঠবে। ক্ষমতার মধুভাণ্ড অনন্তকাল অক্ষত রাখতে হলে মুষ্টিমেয় কিছু লোককে পাইয়ে দেওয়ার রাজনীতিটাকেই জাগ্রত রাখতে হবে। এরাই ভোটলুটের সব দায় সামলাবে। ভোটার তালিকা তৈরি থেকে ভোট পূর্ববর্তী সন্ত্রাস এবং ভোটের দিন নানা রঙের ধুন্ধুমার কাণ্ড ঘটানো সবই তারা করবে। মোদ্দা কথা হল, মানুষকে ভোটের লাইনে দাঁড়াতে দেওয়া যাবে না। ভোটের লাইন আলো করে থাকবে শুধু রিগিং আর্টিস্টরা।
গণতন্ত্রের এই গৌড়ীয় মার্কসবাদী মডেল অক্ষত রাখতে জ্যোতি বসু স্বয়ং নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে কদর্য লড়াইতে নেমেছিলেন। মুখ্য নির্বাচন কমিশনার টি এন সেশনকে অসংসদীয় ভাষায় আক্রমণ করতে তিনি কুণ্ঠিত হননি। পার্টির অন্যায় স্বার্থকে সামনে রেখে দেশবাসীর সামনে তিনি যেন এটাই প্রমাণে মরিয়া হয়ে উঠেছিলেন, নির্বাচন কমিশন নামক সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি আসলে গণতন্ত্রের এক শত্রু!
জ্যোতিবাবুর পার্টির ৩৪ বছরের শাসন প্রমাণ করেছিল, ক্ষমতার আসন আসলেই একটি ‘লঙ্কা’—সেটা যিনিই স্পর্শ করেন তিনিই একটি ‘রাবণ’-এ রূপান্তরিত হয়ে যান—অদ্ভুত কিম্ভুত এক জাদুর নাম ক্ষমতা! আর বৃহত্তর অর্থে ভারতের সমস্ত প্রদেশ ও কেন্দ্রীয় শাসন এবং সমস্ত রাজনৈতিক দল সম্পর্কেই এই প্রবচনটি প্রযোজ্য। কারণ, সব দলই বড় আশা জাগিয়ে মানুষের বিপুল সমর্থন জোগাড় করে একবার ক্ষমতায় আসে। আর সরকারি ক্ষমতা দখল হওয়ার পর থেকে মানুষের মোহভঙ্গের ব্যবধানটা দীর্ঘ হয় না। খুব দ্রুত টের পাওয়া যায় সবাই আসলে মুখোশধারী।
১৯৫১-২০১১। বাংলায় নির্বাচনী গণতন্ত্র অনুশীলনের ছয় দশক খুব উজ্জ্বল নয়। ২০১১ সালে বাংলায় যে ‘পরিবর্তন’ এসেছিল তার মূল সুর ছিল গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার। ২০১১ সালের ২ জুন মহাকরণ থেকে ‘মমতা ব্যানার্জি’র সই করা ‘পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সহকর্মীদের জন্য মুখ্যমন্ত্রীর আবেদন’ শিরোনামে একটি লিফলেট বিলি করা হয়েছিল। তার শেষ লাইনটি ছিল এইরকম—‘‘আমরা যেন সংঘবদ্ধ প্রয়াসের মাধ্যমে পশ্চিম বাংলার ভাবমূর্তি উন্নততর করার কাজে ব্রতী হই।’’ সপ্তদশ লোকসভার ভোট শেষ হচ্ছে আগামী ১৯ মে। ইতিমধ্যেই হয়ে গিয়েছে ছয় দফা। প্রচার পর্বে অশান্তি থেকে নানা কায়দায় ভোট লুট, এমনকী খুন জখম পর্যন্ত সমস্ত অশান্তিই হয়ে গিয়েছে। এই মাটিতে তার আগে রয়েছে পঞ্চায়েত এবং পুরভোটের তিক্ত অভিজ্ঞতা। মার্কসবাদী গণতন্ত্রের ছায়া যেন দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে। অতীত, বর্তমানকে সামনে রেখে রাজ্যবাসী ভাবতে বসেছেন বাংলার ভোটের ভবিষ্যৎ নিয়ে—‘ভাবমূর্তি উন্নততর’ করার আর কোনও উপায় কি আমরা সন্ধান করতে পারি না?  
14th  May, 2019
একশো পঁচিশে সংসদের বাঙালি পণ্ডিত
হারাধন চৌধুরী

কাটমানি আর ব্ল্যাকমানির তরজায় দেশের রাজনীতি আজ বিপন্নপ্রায়। রাজনীতির প্রতি শ্রদ্ধা ও আগ্রহ নষ্ট হচ্ছে সাধারণ মানুষের, বিশেষত শিক্ষিত যুব সম্প্রদায়ের। এ লক্ষণ সুখের নয়—মানুষের জন্য, রাষ্ট্রের জন্য—কারও জন্যই নয়।
বিশদ

23rd  July, 2019
৫, ১০, ২০ ট্রিলিয়ন ডলার অর্থনীতির পথে
পি চিদম্বরম

রাজ্যসভায় ২০১৯-২০ বাজেট নিয়ে বক্তব্য রাখার সময় বলেছিলাম, ‘‘যদি জিডিপির স্বাভাবিক বৃদ্ধির হার ১২ শতাংশ হয় তবে প্রতি ছ’বছরে জিডিপির আকারটা দ্বিগুণ হয়ে যাবে। আর বৃদ্ধির হারটা যদি নমিনাল ১১ শতাংশ হয় তবে জিডিপি দ্বিগুণ হতে সময় নেবে সাত বছর।
বিশদ

22nd  July, 2019
২১ জুলাই সমাবেশ: মমতা কী বার্তা দেন জানতে উৎসুক বাংলা
শুভা দত্ত

ওই মর্মান্তিক ঘটনার পর থেকে প্রতিবছর মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই দিনটিতে বড়সড় সমাবেশের আয়োজন করে তাঁর প্রয়াত সহযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন।
বিশদ

21st  July, 2019
ছোটদের বড় করতে হলে আগে শুধরাতে হবে নিজেকে
পার্থজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়

সব থেকে ভালো হয়, যদি আপনার ‘বাছা’কে নিজের মতো বেড়ে উঠতে দেন। আনন্দে বেড়ে উঠুক। আলো চিনিয়ে দিন, অন্ধকার চিনিয়ে দিন। লক্ষ্য রাখুন, ঠিকঠাক এগচ্ছে কি না! সামনে পিছনে কত ফাঁদ, চোরাবালি। আপনিই ঈশ্বর, ওকে রক্ষা করুন। ছোটদের ‘বড়’ করতে হলে আগে শুধরাতে হবে নিজেকে। দয়া করে ওর উপর মাতব্বরি করবেন না, হ্যাঁ আমরা মাতব্বরিই করি।
বিশদ

20th  July, 2019
জন্ম এবং মৃত্যুর দ্বান্দ্বিক বস্তুবাদ
শুভময় মৈত্র

সম্প্রতি অকস্মাৎ আমার একটি বন্ধুর মৃত্যু হয়েছে। এই উপলক্ষে জগতে সকলের চেয়ে পরিচিত যে মৃত্যু তার সঙ্গে আর-একবার নূতন পরিচয় হল। জগৎটা গায়ের চামড়ার মতো আঁকড়ে ধরেছিল, মাঝখানে কোনো ফাঁক ছিল না। মৃত্যু যখন প্রত্যক্ষ হল তখন সেই জগৎটা যেন কিছু দূরে চলে গেল, আমার সঙ্গে আর যেন সে অত্যন্ত সংলগ্ন হয়ে রইল না।
——— রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
বিশদ

20th  July, 2019
অ্যাপোলো ৫০: গো ফর দ্য মুন
মৃণালকান্তি দাস

 মই বেয়ে লুনার মডিউল ঈগল থেকে চাঁদের বুকে নামতে নামতে নিল আর্মস্ট্রং বলেছিলেন, ‘একজন মানুষের এই একটি পদক্ষেপ হবে মানবজাতির জন্য এক বিরাট অগ্রযাত্রা।’ সেই ছিল চাঁদের বুকে মানুষের প্রথম পদচিহ্ন আর মানবজাতির সেদিনের প্রমিথিউস ছিলেন নিল আর্মস্ট্রং। চাঁদের বুকে নিলের পা ফেলার মাধ্যমে মানুষ চাঁদকে জয় করেছিল।
বিশদ

19th  July, 2019
বাঙালির যে সংস্কৃতি হারিয়ে গেল
জিষ্ণু বসু

ইদানীং রাজ্যে একটা গেল গেল রব শোনা যাচ্ছে। বাঙালি তার সংস্কৃতি হারাচ্ছে। বিজেপি ও আরএসএসের দৌরাত্ম্যে বাংলা যে চেহারা নিচ্ছে সেটা এ রাজ্যের সংস্কৃতির পরিপন্থী। বাঙালি বড়জোর ‘জয়দুর্গা’ বলতে পারে, কিন্তু ‘জয় শ্রীরাম’ বলার প্রশ্নই ওঠে না।
বিশদ

18th  July, 2019
পরিবারতান্ত্রিক সঙ্কট 
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ছবিটা খুব পরিচিত। নিজের দলের বিরুদ্ধেই ধর্নায় বসেছেন ইন্দিরা গান্ধী। ভাঙতে চলেছে কংগ্রেস। আর তার নেপথ্যে ক্ষমতার ভারসাম্য বজায় রাখার সংঘাত। একদিকে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা। অন্যদিকে কামরাজ, মোরারজি দেশাই, তৎকালীন কংগ্রেস সভাপতি নিজলিঙ্গাপ্পা। 
বিশদ

16th  July, 2019
মোদি সরকারের নতুন জাতীয় শিক্ষানীতি দেশকে কোন দিকে নিয়ে চলেছে
তরুণকান্তি নস্কর

নয়া শিক্ষানীতির কেন্দ্রবিন্দুই হল এই ভারতীয়ত্বের নাম করে মধ্যযুগীয় বাতিল চিন্তা ভাবনার জাবর কাটার প্রচেষ্টা। পঞ্চতন্ত্র, জাতক, হিতোপদেশের গল্পকে তাঁরা স্কুল পাঠ্য করতে চাইছেন, সংস্কৃত শিক্ষাকে গুরুত্ব দিচ্ছেন অথচ ইংরেজি ভাষা শিক্ষাকে গুরুত্বহীন করে দেখানোর চেষ্টা করেছেন। পাঠ্যতালিকায় বহু ব্যক্তির জীবনীচর্চার উল্লেখ আছে, কিন্তু সেই তালিকায় ভারতীয় নবজাগরণের পথিকৃৎ রামমোহন ও বিদ্যাসাগরের নাম সযত্নে বাদ দেওয়া হয়েছে। রামমোহন-বিদ্যাসাগরই যে এদেশে প্রথম ধর্মীয় কুসংস্কারাচ্ছন্ন শিক্ষা ব্যবস্থাকে বাতিল করে আধুনিক শিক্ষা প্রচলনের জন্য লড়াই করেছিলেন তা কারোর অজানা নয়। ভারতীয় নবজাগরণের এই মনীষীরা যে আরএসএস-বিজেপির চক্ষুশূল তা আজ জলের মতো পরিষ্কার।
বিশদ

15th  July, 2019
সাত শতাংশ বৃদ্ধির ফাঁদে
পি চিদম্বরম

 কেন্দ্রীয় সরকারের বাজেটগুলির মধ্যে ২০১৯-২০ সালের বাজেট স্বাভাবিকের তুলনায় দ্রুত জট খুলল। মানুষের মধ্যে এই বাজেট নিয়ে কিংবা আগের বাজেট প্রস্তাবটি নিয়ে কোনও আলোচনা নেই। অতিশয় ধনীরা (সুপার রিচ ৬৪৬৭) বিরক্ত, তবুও ভয়ে স্পিকটি নট। ধনীদের স্বস্তি এখানেই যে তাঁদের রেয়াত করা হয়ে থাকে।
বিশদ

15th  July, 2019
একটু ভাবুন
শুভা দত্ত

 বিশ্বের চারদিক থেকে পানীয় জল নিয়ে গুরুতর অশনিসংকেত আসার পরও আমাদের এই কলকাতা শহরে তো বটেই, গোটা রাজ্যেই প্রতিদিন বিশাল পরিমাণ জল অপচয় হয়। আপাতত বেশিরভাগ জায়গায় জলের জোগান স্বাভাবিক আছে বলে সেটা গায়ে লাগছে না। তাই এখনও আসন্ন মহাবিপদের কথাটা ভাবছেন খুব সামান্যজনই। বাদবাকিরা এখনও নির্বিকার, ভয়ডরহীন—দু’জনের সংসারে আড়াই-তিন হাজার লিটার শেষ করে দিচ্ছে দিনে, বাড়ি গাড়ি ধোয়া চালাচ্ছে কর্পোরেশনের পানীয় জলে! আহাম্মক আর কাকে বলে।
বিশদ

14th  July, 2019
বেনোজলের রাজনীতি
তন্ময় মল্লিক

জেলায় জেলায় নব্যদের নিয়ে বিজেপির আদিদের ক্ষোভ রয়েছে। আর এই ক্ষোভের অন্যতম কারণ যোগদানকারীদের বেশিরভাগই এক সময় হয় সিপিএমের হার্মাদ বাহিনীর সদস্য ছিলেন, অথবা তৃণমূলের ‘কাটমানি নেতা’। তাই এই সব নেতাকে নিয়ে স্বচ্ছ রাজনীতির স্লোগান মানুষ বিশ্বাস করবে না। উল্টে লোকসভা ভোটে যাঁরা নীরবে সমর্থন করেছিলেন, তাঁরা ফের নিঃশব্দেই মুখ ফিরিয়ে নেবেন।‘ফ্লোটিং ভোট’ যে মুখ ঘুরিয়ে নিতে পারে, সেটা বিজেপির পোড়খাওয়া নেতারা বুঝতে পারছেন। তাঁরা বলছেন, ভোটের ফল প্রকাশের পর যাঁরা আসছেন তাঁরা কেউই বিজেপির আদর্শের জন্য আসছেন না, আসছেন বাঁচার তাগিদে। কেউ কেউ লুটেপুটে খাওয়ার অভ্যাস বজায় রাখার আশায়।
বিশদ

13th  July, 2019
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ঝড়ের আভাস দেবে, এমন যন্ত্র বসবে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের হরিণঘাটা ক্যাম্পাসে। যার নাম ‘এসটি রেডার’। তবে এই যন্ত্র বসানো এবং এর সঙ্গে যুক্ত প্রকল্পটি নিয়ে নানা প্রশ্ন তুলেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাংশ। ...

বিএনএ, সাঁততোড়িয়া(দিসেরগড়): ইসিএলের বর্তমান ও প্রাক্তন কর্মী এবং কয়লা খনি এলাকার মানুষের সামনে নিজেদের স্বাস্থ্য পরিষেবা সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য হাতের মুঠোয় এনে দিতে ইসিএল কর্তৃপক্ষ প্রস্তুত করেছে একটি বিশেষ অ্যাপ।  ...

 ওয়াশিংটন, ২৩ জুলাই: প্রাক্তন আল-কায়েদা প্রধান ওসামা বিন লাদেনকে খতম করা নিয়ে নতুন দাবি করলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। লাদেন যে পাকিস্তানে ছিল, তার খতমের ...

সংবাদদাতা, কুমারগ্রাম: ভারী বর্ষণের কারণে আলিপুরদুয়ার পুরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সূর্যনগরের ম্যাকউইলিয়াম আর আর প্রাইমারি ইংরেজি মাধ্যম স্কুল জলমগ্ন হয়ে আছে। ক্লাস রুমের ভেতরেও হাঁটু ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ব্যয় বৃদ্ধি পাবে। কর্মক্ষেত্রে কোনও বিরূপ অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে। বিদ্যার্থীর শুভ ফল লাভ হবে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮০২- ফরাসি লেখক আলেকজান্দার দুমার জন্ম
১৮৭০- সাহিত্যিক কালীপ্রসন্ন সিংহের মৃত্যু
১৮৮৪- ‘হিন্দু পেট্রিয়টে’-র সম্পাদক কৃষ্ণদাস পালের মৃত্যু
১৮৯৮- সাহিত্যিক তারাশংকর বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৩৭- অভিনেতা মনোজ কুমারের জন্ম
১৯৪৫- উইপ্রোর কর্ণধার আজিম প্রেমজির জন্ম
১৯৬৯- আমেরিকান অভিনেত্রী ও সঙ্গীতশিল্পী জেনিফার লোপেজের জন্ম
১৯৮০- মহানায়ক উত্তম কুমারের মৃত্যু
২০০৩- অভিনেতা শমিত ভঞ্জের মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৮.২০ টাকা ৬৯.৮৯ টাকা
পাউন্ড ৮৪.৪০ টাকা ৮৭.৫৪ টাকা
ইউরো ৭৫.৮৭ টাকা ৭৮.৮০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৫,৪২৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৩,৬১০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৪,১১৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪১,১৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪১,২৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৭ শ্রাবণ ১৪২৬, ২৪ জুলাই ২০১৯, বুধবার, সপ্তমী ৩২/২৩ অপঃ ৬/৫। রেবতী ২৬/২৪ দিবা ৩/৪২। সূ উ ৫/৮/৯, অ ৬/১৭/৫৩, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৩ মধ্যে পুনঃ ৯/৩১ গতে ১১/১৭ মধ্যে পুনঃ ৩/৪০ গতে ৫/২৬ মধ্যে। রাত্রি ৭/১ গতে ৯/১১ মধ্যে পুনঃ ১/৩১ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৮/২৫ গতে ১০/৪ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৩ গতে ১/২২ মধ্যে, কালরাত্রি ২/২৬ গতে ৩/৪৭ মধ্যে।
৭ শ্রাবণ ১৪২৬, ২৪ জুলাই ২০১৯, বুধবার, সপ্তমী ২২/২১/১৭ দিবা ২/২/৫৯। রেবতীনক্ষত্র ১৯/৪২/৮ দিবা ১২/৫৯/১৯, সূ উ ৫/৬/২৮, অ ৬/২১/১৮, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৭ মধ্যে ও ৯/৩২ গতে ১১/১৬ মধ্যে ও ৩/৩৫ গতে ৫/১৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৫৫ গতে ৯/৭ মধ্যে ও ১/৩২ গতে ৫/৭ মধ্যে, বারবেলা ১১/৪৩/৫৩ গতে ১/২৩/১৪ মধ্যে, কালবেলা ৮/২৫/১০ গতে ১০/৪/৩২ মধ্যে, কালরাত্রি ১/২৫/১০ গতে ৩/৪৫/৪৯ মধ্যে।
 ২০ জেল্কদ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
কর্ণাটক: আস্থা ভোটে হার কংগ্রেস-জেডি(এস) জোটের 

23-07-2019 - 07:47:35 PM

কর্ণাটক বিধানসভায় আস্থাভোট শুরু হল 

23-07-2019 - 07:22:00 PM

রাজাবাজারে গুলি চালানোর ঘটনায় ধৃত ২ 

23-07-2019 - 06:24:00 PM

আজ ও কাল বেঙ্গালুরু শহরে জারি ১৪৪ ধারা, বন্ধ সব পানশালা 

23-07-2019 - 06:04:22 PM

১২৮৩৯ হাওড়া-চেন্নাই মেল আজ রাত ১১:৪৫ মিনিটের বদলে রাত ২টোর সময় হাওড়া স্টেশন থেকে ছাড়বে 

23-07-2019 - 05:37:05 PM

মধ্য কলকাতায় নগদ ৭৮ লক্ষ টাকা সহ ২ ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করল এসটিএফ

23-07-2019 - 05:00:00 PM