Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

লোকসভা ২০১৯: বাংলার ভোটে
মমতাভক্তি ঠেকানো যাবে?
শুভা দত্ত

যুদ্ধ শুরু হয়ে গেল। ভোটযুদ্ধ ২০১৯। আগামী লোকসভার দখল কে নেবেন, আগামী পাঁচ বছর কার হাতে থাকবে দেশ-শাসনের ভার তার ফয়সালা হবে এই যুদ্ধের ময়দানে। গত বৃহস্পতিবার এ রাজ্যের সঙ্গে সারা দেশে শুরু হয়ে গেল সেই যুদ্ধ। আমাদের রাজ্যে আলিপুরদুয়ার এবং কোচবিহার—উত্তরবঙ্গের এই দুই রণাঙ্গনে টানটান উত্তেজনার মধ্যে যুযুধান পক্ষের নেতামন্ত্রী, সেনাসামন্ত, কেন্দ্রীয় প্যারামিলিটারি, রাজ্য পুলিস বাহিনী এবং অবশ্যই ভোট কমিশনের কর্তাব্যক্তিদের উপস্থিতিতে জমজমাট উদ্বোধন হল লোকসভা যুদ্ধের। এবং এই যুদ্ধে জয়-পরাজয়ের যাঁরা আসল বিচারক, ভোট মেশিনের বোতামে যাঁদের আঙুলের একটি হালকা চাপ ঠিক করে দেবে আমাদের দেশের আগামী পাঁচ বছরের হত্তাকত্তা-বিধাতাকে— সেই আমজনতা সার বেঁধে সকাল থেকে সন্ধে লাইনে দাঁড়িয়ে রইলেন সুশৃঙ্খলভাবে এবং প্রয়োগ করলেন তাঁদের নির্বাচনী ক্ষমতা। তাঁদের আনুকূল্যে ওই দুই রণাঙ্গনে ভোট পড়ল আশি শতাংশেরও বেশি। তার চেয়েও বড় কথা, ভোট পড়ল একেবারে যাকে বলে নির্বিঘ্নেই।
কিন্তু, আশঙ্কা যথেষ্টই ছিল। ওই দুই যুদ্ধের ময়দানে বহিরাগতদের দিয়ে বড় গোলমাল পাকানোর চেষ্টা হতে পারে বলে রাজ্যের সংশ্লিষ্ট মহলে খবর ছিল বলেও শুনেছিলাম। কিন্তু, শেষঅব্দি কিছু যে ঘটেনি তার জন্য কেন্দ্রীয় বাহিনীর পাশাপাশি রাজ্য পুলিসেরও বিশেষ ধন্যবাদ প্রাপ্য হতে পারে। তার কারণ, উত্তেজনাপ্রবণ এলাকাগুলো নিয়ন্ত্রণে বা ভিন রাজ্য থেকে দুষ্কৃতী ঢোকার রাস্তা বন্ধ করার ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় বাহিনীর চেয়ে রাজ্য পুলিসের ভূমিকা ও কৃতিত্ব কোনও অংশে কম ছিল না। অথচ, এই পুলিস বাহিনীকে নিয়ে ভোটের আগে কত কথা! পুলিস নাকি শাসকদলের হুকুম মেনে চলে, তাদের হয়ে কাজ করে! তা যদি হতো তাহলে কি এমন নির্বিঘ্ন শান্তিপূর্ণ নির্বাচন আমরা দেখতে পেতাম? আলিপুরদুয়ারে তো গোটা দিনে কোথাও একটা চড়া গলাও শোনা গেল না। কোচবিহারে যেটুকু টিভিতে দেখাল অত বড় লোকসভা ক্ষেত্রের নিরিখে সেটা কিছুই নয় বলা যায়! তবে, জেলাশাসকের অফিসে ধর্না নিয়ে একটি দলের প্রার্থীর দেহরক্ষী ও কেন্দ্রীয় বাহিনীর কয়েকজন জওয়ান যে অতিসক্রিয়তা দেখালেন এবং রাজ্য পুলিসের সঙ্গে প্রায় হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়লেন সেটা সত্যিই দুর্ভাগ্যজনক। বাহিনী, সে রাজ্যের হোক কী কেন্দ্রের— পারস্পরিক মর্যাদা রক্ষা করতে হবে না! রাজ্যে পুলিস তো অন্যায্য হস্তক্ষেপ করতে যায়নি। ভোটে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব তো তাঁদেরও কিছু কম নয়। ভোটের সময় জেলাশাসকের অফিসের গুরুত্ব কে না বোঝেন? তো সেই অফিসে গোলমাল হলে তা থামাতে বা নিয়ন্ত্রণে রাখতে তাঁদের তো উদ্যোগ নিতেই হবে। সেখানে তাঁদের কাজে ভোট নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা বাহিনীর কেউ কেউ বা প্রার্থীর দেহরক্ষী যদি প্রতিবন্ধক হয়ে দাঁড়ায়, তবে কি সেটা শোভন সঙ্গত হয়? আশা করা যায়, নির্বাচন কমিশন ব্যাপারটা গুরুত্ব দিয়ে দেখবেন। এমন অনভিপ্রেত ঘটনা যাতে ভোটযুদ্ধের আগামী দিনগুলোতে না ঘটে তার ব্যবস্থা করবেন। আসলে, সংঘর্ষের বড় ঘটনা না ঘটলেও যুযুধান পক্ষগুলোর মধ্যে, বিশেষত, তৃণমূল বিজেপি শিবিরের মধ্যে, একটা চড়া লড়াইয়ের মেজাজ আছেই। একটা সময় পর্যন্ত এ রাজ্যে প্রধান যুযুধান ছিল সিপিএম নেতৃত্বাধীন বাম ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল। রাজ্যে কংগ্রেসের রাজনৈতিক ভূমিকা সেই আশির দশকের পর থেকে ক্রমশ দুর্বল হয়েছে। মমতার তৃণমূলের উত্থানের পর সেই দুর্বলতা আরও প্রকট হয়েছে। পরবর্তীতে দেশে কংগ্রেসের সরকার হলেও রাজ্যে কংগ্রেসের স্বাস্থ্য ফেরেনি বরং রাজনৈতিক দিক থেকে জনমহলে তাঁদের গ্রহণযোগ্যতা তলানিতে গিয়েছে। ফলে, তৃণমূলের জন্মের পর থেকে ভোটযুদ্ধই হোক কি দৈনন্দিন রাজনৈতিক সংঘাত— মূল লড়াইটা গিয়ে দাঁড়িয়েছিল একা মমতা বনাম তৎকালের শাসক সিপিএম নেতৃত্বাধীন বামেদের। নানা সময়ে কংগ্রেস সহ আরও অনেকেই এই মমতা-বিরোধী শিবিরের দোসর হয়েছিল, সেটাও অনস্বীকার্য। এই পর্বতপ্রমাণ প্রতিকূলতা ঠেলেই মমতাকে এগতে হয়েছে দিনের পর দিন, প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে অবিচল থাকতে হয়েছে তাঁর মা-মাটি-মানুষের সেবায়। শারীরিক লাঞ্ছনা থেকে প্রায় প্রাণঘাতী আঘাত সহ্য করতে হয়েছে তাঁকে। এবং তাঁর এই বিদ্রোহিণী জননেত্রী ভাবমূর্তিতেই মজেছে বাংলার মানুষ, আর তার জেরেই ২০১১ সালে অজেয় বলে কথিত সিপিএমের লালদুর্গ ধূলিসাৎ হয়েছে, মা-মাটি-মানুষের নেত্রী অভূতপূর্ব জনজোয়ার তুলে সিপিএম ও তার শরিকদের কেবল ক্ষমতাচ্যুতই করেননি, প্রথম মহিলা মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে রচনা করেছেন এক নতুন ইতিহাস। অতঃপর সিপিএমের ছেড়ে যাওয়া মৃত্যুপথযাত্রী পশ্চিমবঙ্গের বুকে মাত্র কয়েক বছরের ঐকান্তিক চেষ্টায় নতুন প্রাণসঞ্চার করেছেন, উন্নয়নের বিপুল উদ্যোগে বাংলার পাহাড়-জঙ্গল থেকে সাগর সাজিয়ে দিয়েছেন অভাবনীয় রঙে, গরিব সাধারণের ঘরে ঘরে নানান সরকারি প্রকল্পের সুযোগ সুবিধা পৌঁছে দিয়ে ফুটিয়ে তুলেছেন হাসি এবং বিশ্বের দরবার থেকে আদায় করে নিয়েছেন সম্মান স্বীকৃতি। কন্যাশ্রী সবুজসাথীর মতো সরকারি প্রকল্প আজ বিশ্ববন্দিত। আমাদের পশ্চিমবঙ্গ আজ বিশ্ববাংলা।
এই বদলে যাওয়া বাংলায় আজ সিপিএম কোথায়! কংগ্রেসই বা কোথায়? দূরবিনে দেখতে হয়। কিন্তু, প্রকৃতির নিয়মে কোনও শূন্যস্থানই শূন্য থাকে না। বাংলার রাজনীতিতেও থাকেনি। সিপিএম কংগ্রেসের দুর্বলতা এবং জনসমর্থন হারানোর পথ ধরে শূন্যস্থান ভরাতে একটু একটু করে উঠে এসেছে বিজেপির গেরুয়া বাহিনী। আজ এই ২০১৯ সালের ভোটযুদ্ধের সময় সকলেই স্বীকার করবেন—এ রাজ্যের প্রধান যুযুধান মমতার তৃণমূল এবং বিজেপির পদ্মশিবির। বিজেপি নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে দেশ শাসনের এক টার্ম শেষ করে পরের টার্ম দখলের জন্য ঝাঁপিয়েছে। ভোটপূর্ব জনসমীক্ষাগুলোর প্রায় প্রত্যেকটিতেই মোদিজির ক্ষমতায় ফিরে আসার আভাস মিলেছে। কিন্তু নানান ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ও শেষ পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের ফলের চেহারা চরিত্র দেখে উত্তরপ্রদেশ মধ্যপ্রদেশ দক্ষিণ ভারত এবং পশ্চিম ভারতের কিছু রাজ্যে এবার কতটা কী মিলবে তা নিয়ে মোদিজি শিবিরে কিছু চিন্তা জেগেছেই। সেই ঘাটতি মেটাতে এবার বাড়তি নজরে পূর্বাঞ্চল ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলে। ফলে, বাংলায় পদ্মবাহিনীর সঙ্গে এ রাজ্যে মমতার তৃণমূলের টক্করে যে বাড়তি তাপ ছড়াবে তাতে সন্দেহ কি? এবার রাজ্যে ভোটযুদ্ধের ময়দানে নিরাপত্তা জোরালো করতে আধা সেনার বহর বৃদ্ধি তার ইঙ্গিত দিয়েই রেখেছে। তার সঙ্গে বিজেপির রাজ্য নেতাদের গরম গরম বক্তৃতা এবং এমনকী রাজ্যের সভাগুলোতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিজির মমতামুখী আক্রমণে অতিরিক্ত ধার সেই ইঙ্গিতকে যে আরও স্পষ্ট করে তুলেছে তাতেই বা সন্দেহ কি?
কিন্তু, কথা হল—ভোটটা তো দেবে পশ্চিমবঙ্গের মানুষ। তাঁদের সিংহভাগ যে এখনও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিকল্প হিসেবে কাউকে ভাবছেন না সেটাও তো ভোটপূর্ব সমীক্ষাগুলোতে উঠে এসেছে। এ রাজ্যে ভোটযুদ্ধের ফল তৃণমূলের পক্ষে ৪২-এ ৪২ হবে কি না জানা নেই, তবে হলেও আশ্চর্য হবেন কি কেউ? আমার এক বন্ধু বলছিলেন, মমতা ৪২-এ ৪২ ডাক দেওয়ার পরও কিন্তু ব্যাপারটা নিয়ে পথেঘাটে সাধারণের মধ্যে হালকা কোনও প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি। বরং, তাঁদের কথা শুনলে মনে হয়েছে এমন ফল হতেও পারে। ৪২-এ ৪২ না হোক ৪০ কি ৩৬ হলেও কি কম? রাজ্যে যে মাত্রায় উন্নয়ন হয়েছে, গ্রাম শহরের প্রান্তিক গরিব থেকে সাধারণ মধ্যবিত্ত যেভাবে সেই উন্নয়নের সুযোগ সুবিধা পেয়েছে তাতে মমতা ছাড়া অন্য কিছু তাঁরা কেন ভাববেন! তাছাড়া বিজেপি শাসিত উত্তরপ্রদেশ ত্রিপুরা ইত্যাদি থেকে মাঝেমধ্যেই যেসব খবর এসেছে বা আসছে তাতে মুখ্যমন্ত্রী মমতার প্রতি ভক্তি বিশ্বাস আরও জোরদারই হচ্ছে। শান্তি সম্প্রীতির ক্ষেত্রেও তো পশ্চিমবঙ্গ গত সাত বছরে একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। এখন প্রশ্ন হল, বাংলার আজকের পরিস্থিতিতে মানুষের মনে মুখ্যমন্ত্রী মমতার যে ভাবমূর্তি তাকে কেবল কথা দিয়ে আর অভিযোগ ব্যঙ্গবিদ্রুপের হুল ফুটিয়ে কিছুমাত্র বিচলিত করা কি সম্ভব?! বাংলার ভোটে বঙ্গজনতার এই মমতাভক্তি ঠেকানো যাবে? এই প্রশ্ন যতদূর জানি রাজ্য বিজেপির অন্দরমহলেও উঠেছে। এ রাজ্যের পদ্মশিবিরে মমতার সঙ্গে সমানে সমানে টক্কর দিতে পারেন এমন নেতা বা নেত্রীর অভাবও যে আছে সেটাও কি অস্বীকার করতে পারছেন দলের শীর্ষস্তরের কর্তারা? কিন্তু তা বলে তো যুদ্ধের আগেই বসে পড়া যায় না। তাই যুদ্ধক্ষেত্রে সর্বশক্তি দিয়েই লড়তে নেমেছে বিজেপি। আর সেই আক্রমণ ঠেকিয়ে একাধিপত্য বজায় রাখতে নেমেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। প্রথম দফার লড়াই শেষ। দ্বিতীয় দফাও আসন্ন। প্রথম দফা নির্বিঘ্ন হওয়ায় মানুষ যে বুকে বাড়তি বল পেয়েছেন এবং ভোট ব্যাপারে তাঁদের উৎসাহও যে বেড়েছে তা সংশ্লিষ্ট মহলের প্রায় সকলেই স্বীকার করছেন। এখন দেখার শেষদফার লড়াই অব্দি এই শান্তি-আমন বজায় থাকে কি না, নানা প্ররোচনা রুখে ভোটশান্তি বজায় রেখে মমতার বিশ্ববাংলা সম্প্রীতির বাংলা দেশে নতুন নজির গড়তে পারে কি না—ভোটফলের পাশাপাশি তা নিয়েও কিন্তু বাংলার জনমহলে কৌতূহল বাড়ছে।
14th  April, 2019
বিধানসভা ভোট কিন্তু হবে মমতাকে দেখেই
শান্তনু দত্তগুপ্ত 

ইন্দিরা গান্ধীর টার্গেট ছিল একটাই। যেভাবে হোক সিপিএমের কোমর ভেঙে দিতে হবে। তিনি মনে করতেন, সিপিএম আসলে সিআইএ’র মদতপুষ্ট। ঠিকঠাক সুযোগ পেলে পূর্ববঙ্গ এবং পশ্চিমবঙ্গে সশস্ত্র আন্দোলন করিয়ে বৃহত্তর বাংলা গঠন করে ফেলবে। কাজেই বাংলা কংগ্রেস এবং সিপিআই পছন্দের তালিকায় থাকলেও সিপিএমকে মোটে বরদাস্ত করতে পারতেন না ইন্দিরা।
বিশদ

18th  June, 2019
ডাক্তারবাবুদের গণ-ইস্তফা নজিরবিহীন,
কিন্তু তাতে কি হাসপাতাল সমস্যা মিটবে?

 এ-কথাও তো সত্যি যে, হাসপাতালের পরিকাঠামোগত উন্নয়নে বা ডাক্তারবাবুদের যথাযথ নিরাপত্তা বিধানে তাঁর সদিচ্ছা আছে এবং ইতিমধ্যেই তার যথেষ্ট প্রমাণ মিলেছে। এই অচলাবস্থা কাটাতে প্রবীণদের বৈঠকে ডেকে মুখ্যমন্ত্রী সমাধানসূত্র খুঁজছেন— সেটাও কি ওই সদিচ্ছারই নামান্তর নয়? বিশদ

16th  June, 2019
নরেন্দ্র মোদির মালদ্বীপ সফর এবং ভারত মহাসাগরে ভারতের নতুন রণনীতি
গৌরীশঙ্কর নাগ

 মোদিজির এই দ্বীপপুঞ্জ-সফর কেবলমাত্র হাসি বিনিময় ও করমর্দনের রাজনীতি হবে না, বরং এর প্রধান অ্যাজেন্ডাই হল প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে মজবুত করা। তবে সেটা করতে গিয়ে ভারত যেন দ্বীপপুঞ্জের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে অযথা হস্তক্ষেপ না করে বসে। কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে, ভারত মালদ্বীপকে সন্ত্রাসবাদের নয়া ‘আঁতুড়ঘর’ হতে দেবে। কারণ ইতিমধ্যেই আমরা দেখেছি পাকিস্তান, আফগানিস্তান এমনকী মধ্যপ্রাচ্য থেকেও জেহাদি নেটওয়ার্কের কারবার মালদ্বীপেও পৌঁছে গিয়েছে। এই র‌্যাডিক্যালিজমের একমাত্র দাওয়াই হল অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও তার সহায়ক শক্তি হিসেবে রাজনৈতিক স্থিরতা।
বিশদ

15th  June, 2019
সতর্কতার সময়
সমৃদ্ধ দত্ত

 ভারতীয় সংস্কৃতির সনাতন ধারাটি হল দিবে আর নিবে, মিলিবে মেলাবে। কিন্তু সেই সংস্কৃতি থেকে আমাদের সরিয়ে এনেছে অসহিষ্ণুতা আর স্বল্পবিদ্যা। আর সবথেকে বেশি জায়গা করে নিয়েছে বিদ্বেষ। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের প্রতি বিদ্বেষ।
বিশদ

14th  June, 2019
ক্ষমতার ‘হিন্দি’ মিডিয়াম
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 উত্তর ভারতের সঙ্গে দক্ষিণের সীমারেখা। আর তার কারিগর আমরাই। আমাদের কাছে সাউথ ইন্ডিয়ান মানে মাদ্রাজি। দক্ষিণ ভারতের লোকজন নারকেল তেল খায়, অদ্ভুত ওদের উচ্চারণ, লুঙ্গি পরে বিয়েবাড়ি যায়... হাজারো আলোচনা। উত্তর ভারত মানে বিষম একটা নাক উঁচু ব্যাপার। আর দক্ষিণ মানেই রসিকতার খোরাক। তাই ওদের একটু ‘মানুষ’ করা দরকার। কীভাবে সেটা সম্ভব? হিন্দি শেখাতে হবে। বিশদ

13th  June, 2019
বারুদের স্তূপের উপর পশ্চিমবঙ্গ
হিমাংশু সিংহ

সংসদীয় রাজনীতিতে কিছুই চিরস্থায়ী নয়। কারও মৌরসিপাট্টাই গণতন্ত্রে বেশিদিন টেকে না। সব সাজানো বাগানই একদিন শুকিয়ে যায় কালের নিয়মে। ইতিহাস কয়েক বছর অন্তর ফিরে ফিরে আসে আর ধুরন্ধর শাসককে চরম শিক্ষা দিয়ে তাঁকে, তাঁর ক্ষমতাকে ধুলোয় লুটিয়ে দিয়ে আবার ফকির করে দিয়ে যায়। সব ক্ষমতা এক ভোটে বিলীন। ধূলিসাৎ। আর এখানেই মহান গণতন্ত্রের জিত আর চমৎকারিত্ব। আর সেই দিক দিয়ে ২৩ মে-র ফল এই পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিকেও আবার এক মহান সন্ধিক্ষণের দিকেই যেন ঠেলে দিয়েছে। ‘বিয়াল্লিশে বিয়াল্লিশ’ হয়নি, ‘২০১৯ বিজেপি ফিনিশ’—তাও হয়নি। উল্টে সারাদেশে বিজেপি থ্রি-নট-থ্রি (অর্থাৎ ৩০৩টি) আসন জিতে তাক লাগিয়ে দিয়েছে ভোট-পণ্ডিতদের।
বিশদ

11th  June, 2019
মোদিজি কি ‘সবকা বিশ্বাস’ অর্জন করতে পারবেন?
পি চিদম্বরম

 নরেন্দ্র মোদি এবার যে জনাদেশ পেয়েছেন তা অনস্বীকার্যভাবে বিপুল। যদিও, অতীতে লোকসভা নির্বাচনে একটি পার্টি ৩০৩-এর বেশি আসন জেতার একাধিক দৃষ্টান্ত আছে। যেমন ১৯৮০ সালে ইন্দিরা গান্ধী ৩৫৩ এবং ১৯৮৪ সালে রাজীব গান্ধী ৪১৫ পেয়েছিলেন।
বিশদ

10th  June, 2019
 বিজেপি এ রাজ্যের বিধানসভা ভোটকে
কঠিন চ্যালেঞ্জ মনে করছে কেন?
শুভা দত্ত

 কয়েকদিনের মধ্যে বেশ কয়েকটি মর্মান্তিক খুনের ঘটনা ঘটে গেল রাজ্যের উত্তর থেকে দক্ষিণে। তাই আজও একই প্রসঙ্গ দিয়ে এই নিবন্ধ শুরু করতে হচ্ছে। গত সপ্তাহেই লিখেছিলাম, ভোটফল প্রকাশের পর রাজ্যের বেশ কিছু এলাকায় যেন একটা হিংসার বাতাবরণ তৈরি হয়েছে।
বিশদ

09th  June, 2019
ইচ্ছে-ডানায় নাচের তালে
অতনু বিশ্বাস

এ বছরের সিবিএসই পরীক্ষার ফল বেরতে দেখা গেল, প্রথম হয়েছে দু’টি মেয়ে। একসঙ্গে। ৫০০-র মধ্যে তারা পেয়েছে ৪৯৯ করে। দু’জনেই আবার আর্টসের ছাত্রী। না, পরীক্ষায় আজকাল এত এত নম্বর উঠছে, কিংবা আর্টস বিষয় নিয়েও প্রচুর নম্বর তুলে বোর্ডের পরীক্ষায় র‍্যাঙ্ক করা যায় আজকাল—এগুলোর কোনওটাই আমার আলোচনার বিষয়বস্তু নয়।
বিশদ

08th  June, 2019
ভারতের রাজনীতিতে ‘গেম মেকার’
মৃণালকান্তি দাস

মেধাবী হলেই যে পড়ুয়ার জন্য মোটা বেতনের চাকরি নিশ্চিত, তার কোনও গ্যারান্টি নেই। শুধু প্রতিভা থাকলে আর পরিশ্রমী হলেই হবে না, উপযুক্ত প্রশিক্ষণ এবং ঠিকঠাক ‘গাইড’ না পাওয়ায় পড়ুয়ারা আজ আর সরকারি চাকরির লক্ষ্যভেদ করতে পারেন না।
বিশদ

07th  June, 2019
অবিজেপি ভোটে বাজিমাত
বিজেপির, এবং তারপর...
মেরুনীল দাশগুপ্ত

আলোড়ন! নিঃসন্দেহে একটা জবরদস্ত আলোড়ন উঠেছে। লোকসভা ভোটফল প্রকাশ হওয়া ইস্তক সেই আলোড়নের দাপটে রাজ্য-রাজনীতি থেকে সাধারণের অন্দরমহল জল্পনা-কল্পনা, বিবাদ-বিতর্ক, আশা-আশঙ্কায় যাকে বলে রীতিমতো সরগরম! পথেঘাটে আকাশে বাতাসে যেখানে সেখানে ছিটকে উঠছে উৎকণ্ঠা নানান জিজ্ঞাসা।
বিশদ

06th  June, 2019
কর্ণাটক পুরনির্বাচন: আবার উল্টালো ভোটফল
শুভময় মৈত্র 

নির্বাচনে ভোটফল নিয়ে কখন যে কী ঘটছে তার ব্যাখ্যা পাওয়া যাচ্ছে না মোটেই। মানুষ অবশ্যই মত বদলাবেন। সে স্বাধীনতা তাঁদের আছে। সে জন্যেই তো ভোটফল বদলায়। নাহলে সংসদীয় গণতন্ত্রের কোনও অর্থই থাকে না।  
বিশদ

04th  June, 2019
একনজরে
বিএনএ, সিউড়ি: মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে জুনিয়র ডাক্তারদের বৈঠকে স্বাস্থ্য পরিষেবা নিয়ে দীর্ঘ জটিলতা কেটে যাওয়ায় খুশি বীরভূম জেলার রোগী ও তাঁদের আত্মীয়রা। মঙ্গলবার সকাল থেকেই সিউড়ি, বোলপুর, রামপুরহাটে বড় হাসপাতালগুলিতে ভিড় জমান জেলার বহু মানুষজন।  ...

  নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: বিজেপি ‘জয় শ্রীরাম’ লেখা কয়েক লক্ষ পোস্টকার্ড মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে পাঠাবে। পাল্টা পদক্ষেপ হিসেবে তৃণমূল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে লক্ষাধিক ‘জয় হিন্দ, জয় বাংলা’ লেখা পোস্টকার্ড পাঠানোর কথা ঘোষণা করেছে। ...

  শ্রীনগর, ১৮ জুন (পিটিআই): মঙ্গলবার জম্মু-কাশ্মীরের অনন্তনাগে এনকাউন্টারে খতম দুই জয়েশ-ই-মহম্মদের জঙ্গি। হত দুই জঙ্গির মধ্যে একজন পুলওয়ামায় হামলার সঙ্গে জড়িত ছিল বলে স্থানীয় পুলিস জানিয়েছে। আর এই গুলির লড়াইয়ে এক জওয়ান গুরুতর জখম হন। তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে ...

 ম্যাঞ্চেস্টার, ১৮ জুন: পাঁচ ম্যাচে মাত্র তিন পয়েন্ট। লিগ তালিকায় এই মুহূর্তে নবম স্থানে রয়েছে পাকিস্তান। শেষ ম্যাচে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের কাছে ৮৯ রানে চূর্ণ হওয়ার পর ঘরে-বাইরে প্রচণ্ড সমালোচিত হয়েছেন পাক ক্রিকেটাররা। পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম এবং প্রাক্তনীরা সরফরাজ-ব্রিগেডের উপর তোপের পর ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মপ্রার্থীদের কোনও চুক্তিবদ্ধ কাজে যুক্ত হওয়ার যোগ আছে। ব্যবসা শুরু করা যেতে পারে। বিবাহের যোগাযোগ ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৪৭- লেখক সলমন রুশদির জন্ম,
১৯৭০- রাজনীতিক রাহুল গান্ধীর জন্ম,
১৯৮১- ভারতে টেস্ট টিউব বেবির জনক সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যু,
২০০৮- বর্তমানের প্রতিষ্ঠাতা-সম্পাদক বরুণ সেনগুপ্তের মৃত্যু 

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.০৩ টাকা ৭০.৭২ টাকা
পাউন্ড ৮৫.৯৪ টাকা ৮৯.১১ টাকা
ইউরো ৭৭.০০ টাকা ৭৯.৯৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৩,৪৬৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩১,৭৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩২,২২৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৭,১৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৭,২৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৪ আষা‌ঢ় ১৪২৬, ১৯ জুন ২০১৯, বুধবার, দ্বিতীয়া ২৬/৩৫ দিবা ৩/৩৪। পূর্বাষাঢ়া ২১/২৩ দিবা ১/৩০। সূ উ ৪/৫৯/৯, অ ৬/১৯/১২, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৭ গতে ১১/১১ মধ্যে পুনঃ ১/৫১ গতে ৫/২৫ মধ্যে। রাত্রি ৯/৫২ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৯ গতে ১/২৪ মধ্যে, বারবেলা ৮/১৭ গতে ৯/৫৭ মধ্যে পুনঃ ১১/৩৮ গতে ১/১৮ মধ্যে, কালরাত্রি ২/১৭ গতে ৩/৩৭ মধ্যে। 
৩ আষাঢ় ১৪২৬, ১৯ জুন ২০১৯, বুধবার, দ্বিতীয়া ২৪/১৯/০ দিবা ২/৩৯/৬। পূর্বাষাঢ়ানক্ষত্র ২০/৫৮/৩৭ দিবা ১/১৮/৫৭, সূ উ ৪/৫৫/৩০, অ ৬/২১/৫৪, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪০ গতে ১১/১৪ মধ্যে ও ১/৫৫ গতে ৫/২৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/৫৫ মধ্যে ও ১২/২ গতে ১/২৭ মধ্যে, বারবেলা ১১/৩৮/৪৩ গতে ১/১৯/২১ মধ্যে, কালবেলা ৮/১৭/৭ গতে ৯/৫৭/৫৫ মধ্যে, কালরাত্রি ২/১৭/৩ গতে ৩/৩৬/১৯ মধ্যে। 
১৫ শওয়াল 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
বিশ্বকাপ: নিউজিল্যান্ডকে ২৪২ রানের টার্গেট দিল দঃ আফ্রিকা 

08:11:28 PM

বিশ্বকাপ: দঃ আফ্রিকা ১৬৯/৪ (৪০ ওভার) 

07:25:26 PM

হলদিয়া হাসপাতালে রোগী মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার
 

হলদিয়া হাসপাতালে রোগিনীর মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার। হাসপাতাল চত্বরে ...বিশদ

06:59:53 PM

বিশ্বকাপ: দঃ আফ্রিকা ১২৩/৩ (৩০ ওভার) 

06:36:33 PM

কলকাতা সহ দুই পরগনায় ঝড়-বৃষ্টির সম্ভাবনা

06:01:32 PM

বিশ্বকাপ: দঃ আফ্রিকা ৭৩/২ (২০ ওভার) 

05:59:15 PM