Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

হৃদয় গিয়েছে চুরি
অতনু বিশ্বাস

ছেলেবেলায় যখন পঞ্চতন্ত্রের সেই কুমির আর বাঁদরের গল্পটা পড়েছিলাম, বেশ অদ্ভুত লেগেছিল। সেই যে, বাঁদরটা থাকত এক জামগাছে, আর বন্ধু কুমিরকে আদর করে জাম খাওয়াত। কুমির সেই জাম নিয়ে তার কুমিরনীকে দিলে, জামের স্বাদে মজে কুমিরনী সেই জাম-খাওয়া বাঁদরের হৃদপিণ্ড খেতে চায়। তারপর কুমির বাঁদরকে ভুলিয়ে ভালিয়ে পিঠে করে নিয়ে রওনা দেয় তার বাসস্থানের দিকে। পথে আবেগের বশে সত্যি কথাটা বলে দিলে বাঁদর বুদ্ধি করে বলে যে সে তার হৃদপিণ্ডটা জামগাছে ফেলে এসেছে। বোকা কুমির বাঁদরকে নিয়ে আসে সেই জামগাছের কাছে, হৃদপিণ্ডের জন্যে।
আচ্ছা, হৃদয়টাকে (হৃদপিণ্ড মানে হৃদয় ধরে নিয়ে) সত্যি সত্যিই কি কোথাও ফেলে আসা যায় না? যদি সত্যিই না যায়, কুমিরটা সেটা বিশ্বাস করল কী করে? উপকথার কুমিররা হয়তো বোকা হয়, তবে তার তথাকথিত বোকামিকে অনেক ক্ষেত্রেই আমার নেহাতই সরলতা বলে মনে হয়েছে। আর এত বড় বয়স্ক একটা কুমির জানে না যে হৃদয়খানা আদপে শরীরেরই এক অচ্ছেদ্য অঙ্গমাত্র! একটু বড় হতে হতে আমার নিজের সে সন্দেহটা কিন্তু দৃঢ় হয়েছে। আমরা আমাদের হৃদয়কে অনেক ক্ষেত্রেই হারিয়ে ফেলি, কখনও বা চুরি হয়ে যায় হৃদয়খানা। ওই কুমিরটার হৃদয়খানার খানিক অংশও নির্ঘাৎ বাঁধা পড়েছিল তার কুমিরনীর কাছে। তাই তো সে কুমিরনীর অন্যায় আবদারে বাঁদরের হৃদয় আনতে ছুটেছিল। আর কুমিরনীর হৃদয়ের একটা টুকরো সেই সুস্বাদু জামের জালে জড়িয়ে গিয়েছিল কি না, তা অবশ্য ভিন্ন প্রসঙ্গ। তবু, হৃদয় চুরি তো হতে পারে নানাভাবেই। কবি যতীন্দ্রমোহন বাগচীর 'জন্মভূমি' কবিতায় যেমন দেখেছি, ‘‘ঐটি আমার গ্রাম—আমার স্বর্গপুরী,/ ঐখানেতে হৃদয় আমার গেছে চুরি!”
হৃদয় চুরির প্রসঙ্গ নিয়ে এত আলোচনা কেন, তা এবার একটু খোলসা করা যাক। নাগপুরের এক পুলিস স্টেশনের এক চমকপ্রদ ঘটনা সর্বভারতীয় খবরে এসেছে সম্প্রতি। এক তরুণ থানায় ঢুকে অভিযোগ জানায় যে তার হৃদয় গিয়েছে চুরি। তার অভিযোগ একটি মেয়ের প্রতি, যে নাকি চুরি করেছে তার হৃদয়খানা। পুলিসের কাছে তার আবেদন, চুরি যাওয়া তার হৃদয়টা খুঁজে দেবার জন্যে। চুরি যাওয়া জিনিসের তালিকা-সহ অনেক অভিযোগ পেয়েছে পুলিসরা। কিন্তু এমন অভিযোগ যে কস্মিনকালেও পায়নি, সে কথা বলাই বাহুল্য। স্বভাবতই নাগপুরের থানার এই পুলিসকর্মীরা যোগাযোগ করে তাদের উপরওয়ালার সঙ্গে। তারপর নিজেদের মধ্যে বিস্তর আলোচনা করে তারা ঠিক করে যে, ভারতের আইনের কোনও ধারাতেই এমন অভিযোগের অবকাশ নেই। তারা তাদের অক্ষমতার কথা জানিয়ে দেয় তরুণটিকে। ব্যস।
ঘটনাটি ছোট্ট। আমি কিন্তু এ বিষয়ে আমার কল্পনা বিলাসিতার লাটাইয়ের সুতো একটু ছাড়তে চাই। বিষয়টি নিয়ে একটু ভেবে দেখা যেতে পারে অবশ্যই। সর্বভারতীয় মিডিয়াতে প্রকাশিত খবর অনুসারে পুলিস জানিয়েছে, এমন অভিযোগের কোন অবকাশ নেই। তাই হৃদয় চুরি যেতে পারে না, এমন কথা কিন্তু বলা হয়নি একবারও।
বলা হবেই-বা কী করে? যুগ যুগ ধরে হৃদয়খানা চুরি গিয়েছে বলেই তো গড়ে উঠেছে মহৎ শিল্প, যুগোত্তীর্ণ সাহিত্য। সামাজিক, অর্থনৈতিক শ্রেণীভেদ না মেনেই। কোনও নগরনটীকে হৃদয় দিয়ে ফেলেন নৃপতি। এক নগণ্য নটীর প্রেমে হাবুডুবু খায় বৌদ্ধ সন্ন্যাসী। চুরি যাওয়া হৃদয়খানার সঙ্গে বিরহের তীর্থগামী ভাষা মিলিয়েই তো গড়ে ওঠে আষাঢ়ের প্রথম দিনের গান! রোমিও-জুলিয়েট, লায়লা-মজনু, সেলিম-আনারকলির গল্প তো ইতিহাস আর ভূগোলের গণ্ডি পার করে ফেলে। তবে কে যে কার হৃদয় চুরি করেছিল—রোমিও জুলিয়েটের, নাকি জুলিয়েট রোমিওর, না দুজনে দুজনের—বলা কঠিন বইকি। প্যারিস আর হেলেনের প্রেম ধ্বংস করে দিল ট্রয়। তার কতটা হৃদয়ের সত্যিকারের চুরি যাওয়া, আর কতটা সেই চুরির বিলাসিতা মাত্র, তা বলা কঠিন। তাজমহল তো সম্রাট কবির হৃদয়ের ছবি বলেই জানিয়েছেন রবি ঠাকুর। সম্রাট তাঁর যে হৃদয়ের ছবিকে অমর করে রাখতে চেয়েছেন, তাকে কি সত্যিই চুরি করতে পেরেছিলেন মমতাজ? দেসদোমিনা কি চুরি করতে পেরেছিল ভেনিসের মুরের হৃদয়?
শাহরুখ খান অভিনীত হিন্দি ছবি ‘অঞ্জাম’-এর কথা মনে পড়তে পারে। তাতে ছিল একটি জনপ্রিয় গান—‘‘বড়ি মুশকিল হ্যায়, খোয়া মেরা দিল হ্যায়...যাকে কঁহা মে রপট লিখাউ কোই বাতলায়ে না!’’ নাগপুরের যুবকটি সেই কাজেই তবে পৌঁছেছে পুলিস স্টেশনে। নাগপুরের এই ছোট্ট ঘটনাটার সূত্র ধরে তবে কি আইন-কানুন বদলাতে হবে? হৃদয় চুরির অভিযোগ পেলেই ‘ধরে আন চোর’ বলে ছুটবে পাইক বরকন্দাজ? আচ্ছা, তাহলে এমন অভিযোগের বন্যা বয়ে যাবে নাতো? সমস্ত পুলিস স্টেশনে। কেউ এসে বলল, পাশের বাড়ির ‘খেঁদি’ তার হৃদয় চুরি করেছে। তাকে হয়তো তখন প্রশ্ন করা হতে পারে, কত শতাংশ হৃদয় চুরি গিয়েছে। হয়তো পুরোটা হৃদয়, হয়তো আধখানা, কখনও-বা এক টুকরো। অভিযোগটা জটিল হয়ে উঠবে যদি হৃদয়ের খানিকটা ‘খেঁদি’, খানিকটা ‘বুঁচকি’, আর কিছুটা ‘সোনা’ চুরি করে নেয়। অভিযোগগুলো উল্টোদিক থেকেও আসতে পারে। ‘খেঁদি’ এসে ‘খোকন’ বা ‘দুলাল’-এর বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ জানাতে পারে। পুলিস স্টেশনগুলিতে কি তবে ঢাকঢোল পিটিয়ে হার্ট ডিপার্টমেন্ট খোলা হবে? তাতে থাকবে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত অফিসাররা। হৃদয়ের চুরি এবং চোর ধরায় বিশেষ ট্রেনিং পাওয়া। আচ্ছা, সোশ্যাল মিডিয়ায় অদেখা বন্ধু বা বন্ধুনী হৃদয় চুরি করলে কী হবে, সেটাও ঠিক করতে হবে বইকি। ভার্চুয়াল মাধ্যমে হৃদয় চুরি গেলে সেটা চুরি নয়, তেমনটা তো নয়। (আগেকার যুগ হলে না হয় টেলিফোনের ক্রস কানেকশনের ফলে হৃদয় চুরির বিষয়টাকেও হিসেবে রাখতে হতো।) আবার, এমনটাও তো সম্ভব যে, হৃদয় যে চুরি করেছে সে জানেই না যে সে চোর। কানু যে ঠিক কত গোপিনীর মন চুরি করেছে, কানু নিজেই কি তা জানত? তাই হৃদয় চুরিকে পেনাল কোডে ঢোকাতে গেলে বিস্তর সমস্যা রয়েছে বইকি। তাহলে উপায়? আচ্ছা, পুলিস ফোর্স কি তবে চুরি-ডাকাতি-রাহাজানি, খুন-জখম, রাজনৈতিক ঝগড়া-ঝঞ্ঝাট, ইত্যাদি আইনশৃঙ্খলার অন্যান্য বিষয় না দেখে শেষে মন-দেওয়া-নেওয়ার কীর্তন গাইতে বসবে?
আচ্ছা, তাও নাহয় হল। পুলিস নাহয় শকুন্তলার অভিযোগটা নিল—দুষ্মন্ত তাঁর হৃদয় চুরি করে ফিরে গিয়ে বেমালুম ভুলে গিয়েছে বলে। অর্থাৎ হৃদয় চুরিটা ঠিক অপরাধ নয়, চুরি করে পালানো কিংবা ভুলে যাওয়াটাই কিন্তু এক্ষেত্রে আসল অপরাধ। আপাতদৃষ্টিতে যেমন নাগপুরের যুবকটির অভিযোগ তার হৃদয় চুরি গিয়েছে বলে নয়, চুরি করে চোর পালিয়েছে বলে। কোনও এক দুষ্মন্ত যদি শকুন্তলার হৃদয়খানা চুরি করেই ফেলে, তারপর তাকে তার ক্ষতিপূরণ পেতে কতটা পরিশ্রম করতে হয়, সে গল্প বলতে মহাকবিকে একখানা আস্ত কাব্যই লিখে ফেলতে হল। তাই প্রতিকারটা খুব সহজ হয়তো নয়। পুলিস চোর ধরে আনতে পারলেও ঠিক কী করে চুরি যাওয়া হৃদয়খানা ফেরত দেবার ব্যবস্থা করবে, সেটা সহজবোধ্য নয়।
বিষয়টা মজার হতে পারে। হতে পারে শিল্পীতও। দাঁড়ান, দাঁড়ান, আগে নাহয় দেখা যাক সত্যি সত্যিই হৃদয় চুরি হয়েছে কি না। এত বড় দুনিয়াতে, সহস্র সহস্র বছর ধরে সত্যিকারের হৃদয় চুরির ক’টা ঘটনা ঘটেছে? তাই এই সিদ্ধান্ত করাটাও সহজ নয় নিঃসন্দেহে। দক্ষ হৃদয় বিশেষজ্ঞদের কাজ। এ-কাজ করার জন্যে তৈরি হয়ে যেতে পারে নতুন ধরনের প্রফেশনাল হার্ট স্পেশালিস্টরা। তবে সিদ্ধান্তটা কোনওভাবে ঠিকঠাক নিতে পারলে হয়তো দেখা যাবে যে, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই হৃদয় চুরি মরীচিকার মতো ভ্রম মাত্র। তাই পুলিসের এই চুরি যাওয়া হৃদয় খোঁজার কাজটাও কিন্তু হয়ে যেতে পারে বিরল ব্যতিক্রমী কাজ—কোটিতে গুটিক মাত্র।
আচ্ছা, অমিত রায়ের হৃদয় কি লাবণ্য চুরি করেই নিয়েছিল? নাকি অমিত নিজেই উজাড় করে লাবণ্যকে দিতে চেয়েছে নিজের হৃদয় উৎসারিত কথকতা আর কল-কাকলি? লাবণ্যকে হৃদয় দিয়ে অমিতের হৃদয়ের কি সমৃদ্ধি ঘটে না? তার পরিধিও কি ব্যাপ্ত হয় না কুঁজো থেকে দিঘিতে? তবে কিনা অমিতের পরিণতি তো পরিণত রবীন্দ্রনাথের উপলব্ধি। সাধারণ জনতার পক্ষে তার তল খুঁজে পাওয়া দুষ্কর বইকি। গ্রহণ করার সঙ্গে যে ঋণী করে ফেলা যায়, সে তো এক গভীর স্নিগ্ধ অনুভূতি।
ভেবে দেখি যে, হৃদয় চুরি হলে সেটাই কি লাবণ্যে প্রাণের পূর্ণ হয়ে ওঠা নয়? আমার হৃদয়ের এমনকী একটা টুকরোও কেউ চুরি করতে পারলে, সেটা শুধু তার নয়, আমারও যে মহত্তম সাফল্য। নিঃসন্দেহে। চুরি যাওয়া হৃদয়ের টুকরোর সঙ্গে সঙ্গে সে চোরেকে যে অনায়াসে দিয়ে ফেলতে পারি এক পৃথিবী।
 ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিস্টিক্যাল ইনস্টিটিউট, কলকাতার রাশিবিজ্ঞানের অধ্যাপক
09th  February, 2019
২১ জুলাই সমাবেশ: মমতা কী বার্তা দেন জানতে উৎসুক বাংলা
শুভা দত্ত

ওই মর্মান্তিক ঘটনার পর থেকে প্রতিবছর মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই দিনটিতে বড়সড় সমাবেশের আয়োজন করে তাঁর প্রয়াত সহযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন।
বিশদ

ছোটদের বড় করতে হলে আগে শুধরাতে হবে নিজেকে
পার্থজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়

সব থেকে ভালো হয়, যদি আপনার ‘বাছা’কে নিজের মতো বেড়ে উঠতে দেন। আনন্দে বেড়ে উঠুক। আলো চিনিয়ে দিন, অন্ধকার চিনিয়ে দিন। লক্ষ্য রাখুন, ঠিকঠাক এগচ্ছে কি না! সামনে পিছনে কত ফাঁদ, চোরাবালি। আপনিই ঈশ্বর, ওকে রক্ষা করুন। ছোটদের ‘বড়’ করতে হলে আগে শুধরাতে হবে নিজেকে। দয়া করে ওর উপর মাতব্বরি করবেন না, হ্যাঁ আমরা মাতব্বরিই করি।
বিশদ

20th  July, 2019
জন্ম এবং মৃত্যুর দ্বান্দ্বিক বস্তুবাদ
শুভময় মৈত্র

সম্প্রতি অকস্মাৎ আমার একটি বন্ধুর মৃত্যু হয়েছে। এই উপলক্ষে জগতে সকলের চেয়ে পরিচিত যে মৃত্যু তার সঙ্গে আর-একবার নূতন পরিচয় হল। জগৎটা গায়ের চামড়ার মতো আঁকড়ে ধরেছিল, মাঝখানে কোনো ফাঁক ছিল না। মৃত্যু যখন প্রত্যক্ষ হল তখন সেই জগৎটা যেন কিছু দূরে চলে গেল, আমার সঙ্গে আর যেন সে অত্যন্ত সংলগ্ন হয়ে রইল না।
——— রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
বিশদ

20th  July, 2019
অ্যাপোলো ৫০: গো ফর দ্য মুন
মৃণালকান্তি দাস

 মই বেয়ে লুনার মডিউল ঈগল থেকে চাঁদের বুকে নামতে নামতে নিল আর্মস্ট্রং বলেছিলেন, ‘একজন মানুষের এই একটি পদক্ষেপ হবে মানবজাতির জন্য এক বিরাট অগ্রযাত্রা।’ সেই ছিল চাঁদের বুকে মানুষের প্রথম পদচিহ্ন আর মানবজাতির সেদিনের প্রমিথিউস ছিলেন নিল আর্মস্ট্রং। চাঁদের বুকে নিলের পা ফেলার মাধ্যমে মানুষ চাঁদকে জয় করেছিল।
বিশদ

19th  July, 2019
বাঙালির যে সংস্কৃতি হারিয়ে গেল
জিষ্ণু বসু

ইদানীং রাজ্যে একটা গেল গেল রব শোনা যাচ্ছে। বাঙালি তার সংস্কৃতি হারাচ্ছে। বিজেপি ও আরএসএসের দৌরাত্ম্যে বাংলা যে চেহারা নিচ্ছে সেটা এ রাজ্যের সংস্কৃতির পরিপন্থী। বাঙালি বড়জোর ‘জয়দুর্গা’ বলতে পারে, কিন্তু ‘জয় শ্রীরাম’ বলার প্রশ্নই ওঠে না।
বিশদ

18th  July, 2019
পরিবারতান্ত্রিক সঙ্কট 
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ছবিটা খুব পরিচিত। নিজের দলের বিরুদ্ধেই ধর্নায় বসেছেন ইন্দিরা গান্ধী। ভাঙতে চলেছে কংগ্রেস। আর তার নেপথ্যে ক্ষমতার ভারসাম্য বজায় রাখার সংঘাত। একদিকে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা। অন্যদিকে কামরাজ, মোরারজি দেশাই, তৎকালীন কংগ্রেস সভাপতি নিজলিঙ্গাপ্পা। 
বিশদ

16th  July, 2019
মোদি সরকারের নতুন জাতীয় শিক্ষানীতি দেশকে কোন দিকে নিয়ে চলেছে
তরুণকান্তি নস্কর

নয়া শিক্ষানীতির কেন্দ্রবিন্দুই হল এই ভারতীয়ত্বের নাম করে মধ্যযুগীয় বাতিল চিন্তা ভাবনার জাবর কাটার প্রচেষ্টা। পঞ্চতন্ত্র, জাতক, হিতোপদেশের গল্পকে তাঁরা স্কুল পাঠ্য করতে চাইছেন, সংস্কৃত শিক্ষাকে গুরুত্ব দিচ্ছেন অথচ ইংরেজি ভাষা শিক্ষাকে গুরুত্বহীন করে দেখানোর চেষ্টা করেছেন। পাঠ্যতালিকায় বহু ব্যক্তির জীবনীচর্চার উল্লেখ আছে, কিন্তু সেই তালিকায় ভারতীয় নবজাগরণের পথিকৃৎ রামমোহন ও বিদ্যাসাগরের নাম সযত্নে বাদ দেওয়া হয়েছে। রামমোহন-বিদ্যাসাগরই যে এদেশে প্রথম ধর্মীয় কুসংস্কারাচ্ছন্ন শিক্ষা ব্যবস্থাকে বাতিল করে আধুনিক শিক্ষা প্রচলনের জন্য লড়াই করেছিলেন তা কারোর অজানা নয়। ভারতীয় নবজাগরণের এই মনীষীরা যে আরএসএস-বিজেপির চক্ষুশূল তা আজ জলের মতো পরিষ্কার।
বিশদ

15th  July, 2019
সাত শতাংশ বৃদ্ধির ফাঁদে
পি চিদম্বরম

 কেন্দ্রীয় সরকারের বাজেটগুলির মধ্যে ২০১৯-২০ সালের বাজেট স্বাভাবিকের তুলনায় দ্রুত জট খুলল। মানুষের মধ্যে এই বাজেট নিয়ে কিংবা আগের বাজেট প্রস্তাবটি নিয়ে কোনও আলোচনা নেই। অতিশয় ধনীরা (সুপার রিচ ৬৪৬৭) বিরক্ত, তবুও ভয়ে স্পিকটি নট। ধনীদের স্বস্তি এখানেই যে তাঁদের রেয়াত করা হয়ে থাকে।
বিশদ

15th  July, 2019
একটু ভাবুন
শুভা দত্ত

 বিশ্বের চারদিক থেকে পানীয় জল নিয়ে গুরুতর অশনিসংকেত আসার পরও আমাদের এই কলকাতা শহরে তো বটেই, গোটা রাজ্যেই প্রতিদিন বিশাল পরিমাণ জল অপচয় হয়। আপাতত বেশিরভাগ জায়গায় জলের জোগান স্বাভাবিক আছে বলে সেটা গায়ে লাগছে না। তাই এখনও আসন্ন মহাবিপদের কথাটা ভাবছেন খুব সামান্যজনই। বাদবাকিরা এখনও নির্বিকার, ভয়ডরহীন—দু’জনের সংসারে আড়াই-তিন হাজার লিটার শেষ করে দিচ্ছে দিনে, বাড়ি গাড়ি ধোয়া চালাচ্ছে কর্পোরেশনের পানীয় জলে! আহাম্মক আর কাকে বলে।
বিশদ

14th  July, 2019
বেনোজলের রাজনীতি
তন্ময় মল্লিক

জেলায় জেলায় নব্যদের নিয়ে বিজেপির আদিদের ক্ষোভ রয়েছে। আর এই ক্ষোভের অন্যতম কারণ যোগদানকারীদের বেশিরভাগই এক সময় হয় সিপিএমের হার্মাদ বাহিনীর সদস্য ছিলেন, অথবা তৃণমূলের ‘কাটমানি নেতা’। তাই এই সব নেতাকে নিয়ে স্বচ্ছ রাজনীতির স্লোগান মানুষ বিশ্বাস করবে না। উল্টে লোকসভা ভোটে যাঁরা নীরবে সমর্থন করেছিলেন, তাঁরা ফের নিঃশব্দেই মুখ ফিরিয়ে নেবেন।‘ফ্লোটিং ভোট’ যে মুখ ঘুরিয়ে নিতে পারে, সেটা বিজেপির পোড়খাওয়া নেতারা বুঝতে পারছেন। তাঁরা বলছেন, ভোটের ফল প্রকাশের পর যাঁরা আসছেন তাঁরা কেউই বিজেপির আদর্শের জন্য আসছেন না, আসছেন বাঁচার তাগিদে। কেউ কেউ লুটেপুটে খাওয়ার অভ্যাস বজায় রাখার আশায়।
বিশদ

13th  July, 2019
ঘোষণা ও বাস্তব
সমৃদ্ধ দত্ত

ভারত সরকারের অন্যতম প্রধান একটি প্রকল্পই হল নদী সংযোগ প্রকল্প। দেশের বিভিন্ন নদীকে পরস্পরের সঙ্গে যুক্ত করে দেওয়া হবে। যাতে উদ্বৃত্ত জলসম্পন্ন নদী থেকে বাড়তি জল শুকনো নদীতে যেতে পারে। প্রধানমন্ত্রী বারংবার এই প্রকল্পের প্রয়োজনীয়তার কথা বলেন। গোটা প্রকল্প রূপায়ণ করতে অন্তত ১ লক্ষ কোটি টাকা দরকার। এদিকে আবার বুলেট ট্রেন করতেও ১ লক্ষ ৮০ হাজার কোটি টাকা খরচ হচ্ছে! আধুনিক রাষ্ট্রে অবশ্যই দুটোই চাই। কিন্তু বাস্তব প্রয়োজনের ভিত্তিতে বিচার করলে? কোনটা বেশি জরুরি? বিশদ

12th  July, 2019
মোদি সরকারের নতুন জাতীয় শিক্ষানীতি দেশকে কোন দিকে নিয়ে চলেছে
তরুণকান্তি নস্কর

 কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন দপ্তর থেকে সম্প্রতি জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১৯-এর যে খসড়া প্রকাশিত হয়েছে তার যে অংশ নিয়ে সংবাদ মাধ্যমে হই চই পড়েছিল তা হল বিদ্যালয় স্তরে ত্রি-ভাষা নীতির মাধ্যমে অ-হিন্দিভাষী রাজ্যে জোর করে হিন্দি চাপানোর বিষয়টি। তামিলনাড়ুর মানুষের প্রবল আপত্তিতে তা কেন্দ্রীয় সরকার প্রত্যাহার করে নিয়েছে।
বিশদ

11th  July, 2019
একনজরে
 বিএনএ, চুঁচুড়া: প্রায় ২৪ ঘণ্টা পরে হুগলির চাঁপদানির ডালহৌসি জুটমিলে কাজ শুরু হল। শুক্রবার বিকেলে একাংশের কর্মী কাজ বন্ধ করে দেন। তারপর রাতে কারখানার সমস্ত কর্মী কাজ বন্ধ করে দিয়েছিলেন। কর্মীদের অভিযোগ, কারখানার উৎপাদন বাড়ানোর জন্য বেশি সময় ধরে কাজের ...

পল্লব চট্টোপাধ্যায়, কলকাতা: তিনিই যোগ্যতম। বাণিজ্য শাখার স্কুল শিক্ষক হিসেবে চাকরিতে যোগ দেন ২০০১ সালের ৩০ জুলাই। কিন্তু, কম যোগ্যতাসম্পন্নদের স্কুলে শিক্ষক পদে রেখে দেওয়া হলেও তাঁর চাকরি বিগত ১৮ বছরেও অনুমোদিত হয়নি। তাঁর মামলা সূত্রে দেওয়া কলকাতা হাইকোর্টের একাধিক ...

 ওয়াশিংটন, ২০ জুলাই (পিটিআই): আন্তর্জাতিক চাপের মুখে মুম্বই হামলার মূলচক্রী হাফিজ সইদকে গ্রেপ্তার করেছে পাকিস্তান। এরপরেও পাকিস্তানের উপর থেকে সন্দেহ যাচ্ছে না আমেরিকার। ট্রাম্প প্রশাসনের প্রবীণ এক কর্তাব্যক্তি শুক্রবার জানিয়েছেন, আগেও হাফিজকে গ্রেপ্তার করেছিল ইসলামাবাদ। ...

 ভোপাল, ২০ জুলাই (পিটিআই): ভেজাল দুধের বড়সড় চক্রের পর্দা ফাঁস করল মধ্যপ্রদেশ পুলিস। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে অভিযান চালিয়ে শনিবার এই চক্রে জড়িত থাকার অভিযোগে মোট ৬২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিস। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উচ্চবিদ্যার ক্ষেত্রে ভালো ফল হবে। ব্যবসায় যুক্ত হলে খুব একটা ভালো হবে না। প্রেমপ্রীতিতে বাধাবিঘ্ন। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯২০: মা সারদার মৃত্যু
১৮৬৩: কবি, গীতিকার ও নাট্যকার দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের জন্ম
১৮৯৯: লেখক বনফুল তথা বলাইচাঁদ মুখোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৫৫: প্রাক্তন ক্রিকেটার রজার বিনির জন্ম
২০১২: বাংলাদেশের লেখক হুমায়ুন আহমেদের মূত্যু 

20th  July, 2019
ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৭.৯৫ টাকা ৬৯.৬৪ টাকা
পাউন্ড ৮৪.৭৭ টাকা ৮৭.৯২ টাকা
ইউরো ৭৬.১০ টাকা ৭৯.০৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
20th  July, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৫,৫২৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৩,৭০৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৪,২১০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,৫৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,৬৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ২১ জুলাই ২০১৯, রবিবার, চতুর্থী ১৬/২২ দিবা ১১/৪০। শতভিষা ৫/৪৫ দিবা ৭/২৫। সূ উ ৫/৬/৫২, অ ৬/১৮/১৬, অমৃতযোগ প্রাতঃ ৫/৫৯ গতে ৯/৩১ মধ্যে। রাত্রি ৭/৪৫ গতে ৯/১১ মধ্যে, বারবেলা ১০/৪ গতে ১/২২ মধ্যে, কালরাত্রি ১/৩ গতে ২/২৪ মধ্যে।
৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ২১ জুলাই ২০১৯, রবিবার, চতুর্থী ৯/২৬/৩১ দিবা ৮/৫২/১৬। শতভিষানক্ষত্র ২/০/৪৮ প্রাতঃ ৫/৫৩/৫৯, সূ উ ৫/৫/৪০, অ ৬/২১/৪৭, অমৃতযোগ দিবা ৬/৪ গতে ৯/৩২ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৪১ গতে ৯/৮ মধ্যে, বারবেলা ১০/৪/১৩ গতে ১১/৪৩/৪৪ মধ্যে, কালবেলা ১১/৪৩/৪৪ গতে ১/২৩/১৪ মধ্যে, কালরাত্রি ১/৪/১২ গতে ২/২৪/৪২ মধ্যে।
১৭ জেল্কদ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
মুম্বইয়ের কোলাবায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় একজনের মৃত্যু, জখম ১ 

03:50:12 PM

তৃণমূলের ২১ জুলাইয়ের সভা মেগা ফ্লপ শো: দিলীপ ঘোষ 

03:47:10 PM

টাকা দিয়েও তৃণমূল সভা সফল করতে পারেনি: দিলীপ ঘোষ 

03:42:00 PM

ইন্দোনেশিয়া ওপেনের ফাইনালে হারলেন পি ভি সিন্ধু 
ইন্দোনেশিয়া ওপেনের ফাইনালে জাপানের আকেন ইয়ামাগুচির কাছে ১৫-২১, ১৬-২১ পয়েন্টে ...বিশদ

02:57:15 PM

ওঃ ইন্ডিজ সফরে তিন ফরম্যাটের ভারতীয় দল ঘোষণা
ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের জন্য ঘোষণা করা হল ভারতীয় টেস্ট, ওয়ান ...বিশদ

02:34:49 PM

সভা শেষ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় 

01:53:19 PM