Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

ইয়ং ইন্ডিয়া
সমৃদ্ধ দত্ত

প্রায় বছর দশেক হয়ে গেল এই পিতাপুত্রের সঙ্গে তাঁর পরিচয়। যা ক্রমেই অত্যন্ত ঘনিষ্ঠতায় পর্যবসিত। রাউলাট বিলের প্রতিবাদ করে মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে সভা করে বেড়াচ্ছিলেন। সেই সময় একটি সভা হয়েছিল এলাহাবাদে। মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধীকে বলা হয়েছিল স্থানীয় একজন আইনজীবীর বাড়িতে থাকতে। সেই আইনজীবী কংগ্রেসের সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে যুক্ত। তাঁর নাম মতিলাল নেহরু। তবে তাঁর পাশাপাশি কেমব্রিজ থেকে সায়েন্স এবং পরে আইনের ডিগ্রি নিয়ে আসা পুত্রকেও মোহনদাসের খুব ভালো লেগেছিল। ঝকঝকে যুবক এবং বুদ্ধিমান। জওহরলাল। গান্ধীর ভক্ত হয়ে সত্যাগ্রহে নাম লেখাতে উৎসুক হয়। সেই থেকে ঘনিষ্ঠতা। তাঁরাও তাঁকে এতটাই বিশ্বাস করেন যে পারিবারিক সমস্যার কথাও গান্ধীজিকে না বললে চলে না। এই তো মতিলাল নেহরুর কন্যা স্বরূপ রানি এক সাংবাদিকের প্রেমে পড়ে তাঁকেই বিয়ে করার জন্য জেদ ধরেছেন। যুবকটি মুসলিম। তাই মতিলাল রাজি নয়। গান্ধীজিকে বললেনও সেকথা। গান্ধীজি ডেকে স্বরূপরানিকে বোঝালেন। গান্ধীজির কথা অমান্য করলেন না সেই কন্যা। তিনি পিছিয়ে এলেন। এবং মহারাষ্ট্রের এক হিন্দু পাত্রকে বিবাহ করলেন। বিয়ের দিন যে শাড়ি তিনি পরলেন, সেটি কস্তুরবা গান্ধী নিজে হাতে তৈরি করেন সবরমতী আশ্রমে বসে। এমনই সম্পর্ক পরিবারটির সঙ্গে।
১৯২৮ সাল থেকেই গান্ধীজি বুঝতে পারছিলেন সময় বদলাচ্ছে। এখনই কংগ্রেসকে আরও বেশি করে শক্তিশালী ও জনপ্রিয় করতে হবে। ব্রিটিশদের উপর চাপ সৃষ্টি করতে আরও তীব্র আন্দোলন দরকার। আর যে কোনও রাজনৈতিক আন্দোলন নির্ভর করে সেই আন্দোলনে কত বেশি সংখ্যক যুব সম্প্রদায় যুক্ত হচ্ছেন। তাই কংগ্রেসের মধ্যে দ্রুত যুব রক্তের সঞ্চার হওয়া জরুরি। বেঙ্গলে চিত্তরঞ্জন দাশ অকস্মাৎ চলে যাওয়ার পর তাঁর ভাবশিষ্য সুভাষ চন্দ্র বসু আছেন। তরুণ, মেধাবী, সুদর্শন, সুবক্তা, শিক্ষিত ও সুসংগঠক। আর কী চাই! তাই বেঙ্গলে কংগ্রেসের যে কোনও মুভমেন্ট সর্বদাই দারুণ কার্যকরী। দিল্লিতে জওহর। কংগ্রেসের যুব সম্প্রদায় চাইছিল ডোমিনিয়ন স্ট্যাটাসের পরিবর্তে এখনই পূর্ণ স্বরাজের দাবি তোলা হোক। ১২ বছর আগেই রাশিয়ায় বলশেভিক বিপ্লব হয়েছে। তাই আরও বাড়ছে সেই প্রভাব। জওহর আর সুভাষ দু’জনেই তো বেশ বামপন্থী। আবার যুব সম্প্রদায় আকৃষ্ট হচ্ছে চরমপন্থার দিকে। তাঁদের যদি কংগ্রেসের নীতিনির্ধারণ থেকে দূরে রাখা হয় তাঁরা যে ধীরে ধীরে চলে যেতেই পারে কমিউনিস্ট পার্টিতে কিংবা হিন্দুস্তান সোশ্যালিস্ট রিপাবলিক আর্মি নামক একটি সংগঠনে। যাঁরা সম্প্রতি লাহোরে পুলিস অফিসার সন্ডার্সকে হত্যা করেছে আর দিল্লি অ্যাসেম্বলিতে বোমা ছুঁড়েছে। তাই জওহরললালকে কংগ্রেস সভাপতি করা হল। কংগ্রেসে এল সেই প্রথম এক যুব স্রোত। নেহরু ও সুভাষচন্দ্র প্রধানত এই দুই গ্ল্যামারাস নেতা কংগ্রেসের যুবসম্প্রদায়কে আচ্ছন্ন করে রাখলেন। যদিও ওই ঘটনার আর মাত্র কয়েকবছর পর সুভাষের জনপ্রিয়তা ছাপিয়ে যাবে অনেক বেশি।
১৯৫৩ সালে জনসংঘ শুরু করল সত্যাগ্রহ। জম্মু ও কাশ্মীরের ইস্যুতে। গোটা অভিযানটি পরিচালনা করলেন শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়। প্রধানত পার্লামেন্ট হাউস থেকে। কিন্তু সেই অফিস ছেড়ে তাঁকে গোটা দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যেতে হয়। আর তাছাড়া এরকম একটি সত্যাগ্রহ আন্দোলন চালাতে হলে দরকার বেশি করে ইয়ং মুখ। সেরকম যোগ্য ছেলেমেয়ে কোথায়? অনেক খুঁজে একটি ২৯ বছরের যুবক পাওয়া গেল। ফাইল দিয়ে, সংবাদপত্রের ক্লিপিংস দিয়ে, বিভিন্ন ইতিহাস গ্রন্থের রেফারেন্স নিয়ে সাহায্য করবে সে। একবার জম্মুতে গিয়ে শ্যামাপ্রসাদ যখন আর ফিরলেন না, শ্রীনগরের জেলে তাঁর রহস্যময় মৃত্যু হল, তখন এই যুবক আরও বেশি জায়গা করে নিলেন জনসংঘে। তাঁর নাম অটলবিহারী বাজপেয়ি। দলে বিশেষ দায়িত্ব নিয়ে এসেছেন আরও এক যুবক। যিনি সংগঠন দারুণ ভালোভাবে পরিচালনা করতে দক্ষ। তিনি দীনদয়াল উপাধ্যায়। ক্রমেই এই দু’জন কংগ্রেসের প্রতিপক্ষ হিসেবে রীতিমতো প্রবল শক্তিশালী রাজনৈতিক শক্তিতে পরিণত হলেন। যুবশক্তিই জনসংঘকে দিয়েছিল নতুন এক রাজনীতির স্বাক্ষর রাখার বৈশিষ্ট্য।
১৯৫৭ সাল। লোকসভা ভোটে কংগ্রেস জয়ী হল বটে। কিন্তু দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যেন কংগ্রেস বিরোধী মনোভাব অনেক বেশি করে আঁচ পাওয়া যাচ্ছে। এমনকী সেই আগের মতো তুমুল জনপ্রিয়তাও যেন নেই জওহরলাল নেহরুর। তাঁকে ইদানীং কেমন ক্লান্তও দেখায়। বেশি বৃদ্ধ হয়ে যাচ্ছেন দ্রুত। এরকম হলে বিপদ। কারণ জনমোহিনী শক্তি একমাত্র তাঁরই আছে। তাঁকে সামনে রেখেই সেই কবে থেকে এই দলটি একের পর এক বড় প্রাচীর পেরিয়ে যাচ্ছে। এর আগে আর একজনই তো ছিলেন সংগঠনকে চাঙ্গা করার জন্য। সেই সর্দার প্যাটেল আচমকা চলে গেলেন অপ্রত্যাশিতভাবে। স্বাধীনতার পর ভারতকে সম্মানজনকভাবে শক্তিশালী করেছেন এই সেরা রাজনৈতিক জুটি। সর্দার প্যাটেল-পণ্ডিত নেহরু। সুতরাং এখনই দরকার কোনও নতুন মুখ। কংগ্রেসকে সাধারণ মানুষের মধ্যে টিকিয়ে রাখতে সর্বাগ্রে দরকার যুবক যুবতীদের আকর্ষণ করা। অথচ ইদানীং দেখা যাচ্ছে যুবসম্প্রদায় ক্রমেই ক্ষুব্ধ হচ্ছে। তাই বদল চাই। ১৯৫৯ সালে কিছুতেই স্থির করা যাচ্ছিল না কাকে করা যায় কংগ্রেসের সভাপতি। সবেমাত্র সভাপতি পদের মেয়াদ সমাপ্ত হয়েছে ইউ এন ধেবরের। তিনি গুজরাতের মানুষ। একটা মৃদু চাপ আছে দক্ষিণ ভারত থেকে। কিন্তু কাকে? সি সুব্রহ্মনিয়ামকে? না। রাজি হচ্ছেন না কামরাজ। তাহলে? ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে আচমকা একটি অপ্রত্যাশিত নাম উঠে এল। ২ ফেব্রুয়ারি তিনিই হলেন নতুন কংগ্রেস সভাপতি। মাত্র ৪২ বছর বয়সের এক যুবতী। ইন্দিরা গান্ধী। পরবর্তীকালে ধীরে ধীরে তাঁর নেতৃত্বে কংগ্রেসে যুবশক্তির একটি বিকাশ ঘটবে।
এসব অতীত স্মৃতিচারণের প্রকৃত উদ্দেশ্য কী? ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটের আগে একটা বিষয় অত্যন্ত সূক্ষ্মভাবে টের পাওয়া যাচ্ছে। সেটি হল ভারত এখন ইয়ং ইণ্ডিয়ার প্রত্যাশী। দেশের ৬৫ শতাংশ মানুষের বয়স ৩৫ বছরের নীচে। এই দেশের ধ্রুবপদ যতটা নীতি আর মূল্যবোধ, তার তুলনায় বেশি বীজমন্ত্র হল ডাউনলোড আর গুগল নামক আধুনিক দুটি প্রণোদনা। ২০১৯ সাল হতে চলেছে ভারতীয় রাজনীতির নতুন একটি ট্রান্সফরমেশনের বছর। আগামীদিনে এই পরিবর্তনকে সঙ্গে নিয়েই এগবে নয়া ভারত। সেটি হল রাজ্যে রাজ্যে রাজনৈতিক পরিসরে নতুন একঝাঁক ফ্রেশ যুব মুখের আগমন । স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে যেসব দলের কাছে কমবয়সি যোগ্য এবং গ্রহণযোগ্য, জেনারেশন নেক্সট রেডি আছে, সেইসব দলই আগামীদিনে দৌড়ে টিকে থাকবে। নেহাত নীতি, আদর্শ, ইজম অথবা অ্যাজেন্ডা দিয়ে আর নতুন প্রজন্মকে কাছে টানা যায় না। তাদের মন জয় করতে হলে সর্বাগ্রে তাদের মন বুঝতে হবে! তাদের মতো করে ভাবতে হবে। অভিজ্ঞতার একটি মূল্য আছে। কোনও সন্দেহ নেই। কিন্তু শুধুই অভিজ্ঞতা দিয়ে চরিত্র নতুন যুগের চরিত্র অন্বেষণ তথা নয়া সমাজের পোস্ট মর্টেম করা সম্ভব নয়। তার জন্য নিজেকেও হতে হবে ওই সমাজেরই একজন। এই কারণেই আমরা লক্ষ্য করছি হঠাৎ গত দু’বছরে একসঙ্গে বহু যুব সম্প্রদায়ের রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব উঠে আসছেন। ৪৯ বছরের রাহুল ছিলেনই, তাঁর সঙ্গে আবার যুক্ত হলেন ৪৭ বছরের প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। শুধু তাঁরাই নয়। কংগ্রেসের বাড়তি সুবিধা হল জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া, শচীন পাইলট, দীপেন্দর সিং হুদা, গৌরব গগৈ, সুস্মিতা দেবদের মতো একঝাঁক নতুন প্রজন্মের ইয়ুথ ব্রিগেড দলে ক্রমেই বড়সড় জায়গা করে নিচ্ছেন। শচীন পাইলট আর সিন্ধিয়া সম্প্রতি তাঁদের রাজ্যে দলকে জিতিয়ে এনেছেন প্রায় একক ক্যারিশমায়।
বিহারে লালুপ্রসাদ যাদবের জেলযাত্রা একটি নতুন নেতার জন্ম দিয়েছে। তাঁর পুত্র তেজস্বী যাদব। শুধুই পিতার আলোয় আলোকিত? বোধহয় না। কারণ পুত্রের নেতৃত্বে লালুপ্রসাদের দল জোকিহাট বিধানসভা ও আরারিয়া লোকসভা আসনের উপনির্বাচনের হারিয়ে দিয়েছে মহাশক্তিধর বিজেপি জোটকে। এখন আর নীতীশ কুমারের প্রতিপক্ষ লালুপ্রসাদ যাদব নন। মাত্র ৩০ বছর বয়সি তেজস্বী প্রধান চ্যালেঞ্জার মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার। উত্তরপ্রদেশে অস্ত গিয়েছে মুলায়ম সিং যাদবের প্রবল প্রতিপত্তি। তাঁকে সামনে রেখে মুলায়ম পুত্র অখিলেশ যাদবের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করেছিলেন কাকা শিবপাল যাদব। কিন্তু সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়ে বিস্ফারিত নেত্রে তিনি দেখলেন, যে দলকে তিনি ও দাদা মুলায়ম এত বছর ধরে একটি শক্তিশালী ভিতের উপর দাঁড় করিয়েছেন, সেই ওবিসি, যাদব, মুসলিম ভোটব্যাঙ্কের সমাজবাদী পার্টি আজ সম্পূর্ণ অখিলেশ যাদবের দখলে। গুজরাতে শুধুমাত্র প্যাটেলদের সংরক্ষণের দাবি তুলেই হার্দিক প্যাটেল এক প্রথম সারির যুবনেতায় পর্যবসিত। তাঁকে মহাজোটের মহামঞ্চে ডাকা হয়। কারণ তাঁর প্রভাব বিপুল। সেই রাজ্যেই দুই যুবক জিগনেস মেহানি এবং অল্পেশ ঠাকোর আচমকা একটি করে বৃহৎ ভোটব্যাঙ্কের নেতা হয়ে গিয়েছেন। স্রেফ আজকের যুবক-যুবতী তাঁদের নিজেদের সঙ্গে রিলেট করতে পারছে বলে। তেলেঙ্গানায় কে চন্দ্রশেখর রাও এককভাবে জেতালেন এই সাম্প্রতিক বিপুল জয়? একেবারেই নয়। তাঁর দলের সর্ববৃহৎ ক্যাম্পেনার তথা ক্যারিশমাটিক নেতা এখন কে টি রামা রাও। তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রীর পুত্র। এই ঝকঝকে ৪২ বছরের যুবক যেখানেই প্রচার করেছেন এবার তেলেঙ্গানার সমাবেশগুলি ভেসে গিয়েছে জনসমুদ্রে।
আগামীদিনে চন্দ্রবাবু নাইডু নয়। অন্ধ্রপ্রদেশের নতুন তারকা হয়ে উঠে আসছেন জগনমোহন রেড্ডি। তাঁর দল ওয়াই সি কংগ্রেসকে এখন থেকেই পাশে পেতে চাইছে বিজেপি। কারণ তাঁর ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তা। উত্তরপ্রদেশে দলিত আইকন কে? এক ও একমাত্র মায়াবতী? ভুল। এতদিন তিনি একা ছিলেন। কিন্তু এবার আগমন হয়েছে নতুন চরিত্র। ইংরেজি জানা স্মার্ট যুবক চন্দ্রশেখর আজাদ রাবণ। ওই রাবণ নামটি তিনি যোগ করেছেন নামের সঙ্গে। নিজের গ্রামের বাইরে একটি বোর্ড বসিয়েছিলেন চন্দ্রশেখর। সেখানে লেখা ছিল ‘গ্রেট চামার অফ ধাড়কুলি ওয়েলকামস ইউ’। অর্থাৎ চামার সম্প্রদায় নিজেরা মোটেই লজ্জিত নয় অনগ্রসর জাতি হিসেবে। বরং দৃপ্তভাবে ঘোষণা করছে তাঁরা, যে তাঁদের ওই গ্রাম চামার সম্প্রদায়ের। এই দলিত গর্বের আত্মবিশ্বাসী ঘোষণা থেকে তাঁর খ্যাতির শুরু। চন্দ্রশেখর আজাদ রাবণের নতুন দলের নাম ভীম আর্মি। উত্তরপ্রদেশে তাঁর প্রভাব প্রবলভাবে বাড়ছে। নতুন প্রজন্মের নতুন দলিত নেতা হিসেবে। সুতরাং মায়াবতীর একক দলিত সাম্রাজ্য টলমল করছে।
যে কোনও কুশলী রাজনৈতিক নেতা এই সূক্ষ্ম যুগ পরিবর্তনটি স্পষ্ট বুঝতে পারছেন। তাঁরা প্রস্তুতও হচ্ছেন পরোক্ষে। যাঁরা মাটির রাজনীতির সঙ্গে নিজেদের মিশিয়ে দিয়ে এতবছর ধরে জনতার পালস নিখুঁতভাবে ধরে অবিশ্বাস্য সাফল্য পাচ্ছেন তাঁরা তো সবার আগে টের পেয়েছেন। প্রমাণ? হাতের কাছে। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ক্রমোত্থান। যা সম্পূর্ণ প্ল্যানমাফিক করা হচ্ছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তীব্র বুদ্ধিদীপ্ত এক রাজনীতিক। তিনি তাঁর দলের সফটওয়্যারকে আউটডেটেড হতে দিতে রাজি নয়। তাই অভিষেকের মাধ্যমে তরুণ প্রজন্মকে আকর্ষণ করার সূক্ষ্ম প্রয়াস।
নরেন্দ্র মোদি বিজেপির সম্পদ। নরেন্দ্র মোদি বিজেপির শক্তি। কিন্তু অত্যন্ত গোপনে নতুন যুগটি বিজেপির কাছে এই বার্তাও দিচ্ছে যে, নরেন্দ্র মোদির ওই উজ্জ্বল আলো আটকে রেখেছে নতুন প্রজন্মের ঝকঝকে যুব-নেতা-নেত্রীর পথ। তাই বিজেপিতে এখনও এক এবং একশো নম্বর স্থানেও সেই নরেন্দ্র মোদির ক্যারিশমাই ভরসা। অনেক যুব রাজনীতিক আছেন বটে। কিন্তু সেই উচ্চতায় কেউই উঠতে পারেননি এখনও। অথচ একদা বিজেপির সবথেকে তীব্র গতির উত্থান হয়েছিল এই তরুণ শক্তির জন্যই। আশির দশক থেকেই লালকৃষ্ণ আদবানি ও অটলবিহারী বাজপেয়ির আড়ালে বেড়ে উঠেছিলেন অরুণ জেটলি, বেঙ্কাইয়া নাইডু, সুষমা স্বরাজ, প্রমোদ মহাজন, উমা ভারতী, গোবিন্দচারিয়া এবং নরেন্দ্র মোদি। তরুণ তুর্কির দল। আজ তাই বিজেপি সকলকে ছাপিয়ে গিয়েছে প্রভাবে। আজও যে কোনও যুবকের থেকেও মমতা ও মোদির প্রাণশক্তি নিশ্চয় অনেক বেশি। কিন্তু রিজার্ভ বেঞ্চ স্ট্রং না হলে খেলা কিংবা রাজনীতি, চ্যাম্পিয়ন টাইটেল দীর্ঘকাল বজায় রাখা অনিশ্চিত হয়ে যায়। মোদিকে সাহায্য করার জন্য বিজেপিকে যুবশক্তি আনতেই হবে।
নতুন ভারতের তীব্র স্পিডের চালিকাশক্তির নাম হতে চলেছে—ইয়ং ইন্ডিয়া!
01st  February, 2019
আসনের হিসেবে সবথেকে দুর্দশা বামেদের
শুভময় মৈত্র

অনেকবার আলোচনা হয়েছে এই পরিসংখ্যান, তবুও এবারের লোকসভা নির্বাচনের ফল জানতে উদগ্রীব ভোটপিপাসুদের সামনে ২০১৪-তে বিজেপি ঠিক কীভাবে ক্ষমতায় এসেছিল সে হিসেব অবশ্যই আকর্ষণীয়। সেই পরিসংখ্যানে দু’ভাগে ভাগ করা যায় ভারতকে। এক ভাগে তারা আসন পেয়েছিল আশি শতাংশ, আর অন্য ভাগে তাদের আসনের সংখ্যা ভীষণ কম।
বিশদ

ভোটবাংলা: তৃতীয় পর্ব শেষে দু’-একটি জিজ্ঞাসা
মেরুনীল দাশগুপ্ত

বাংলার ভোটে হিংসা কোনও নতুন ব্যাপার তো নয়। কিন্তু, এবার প্রথম থেকেই ভোটের পরিবেশ পরিস্থিতি একটু আলাদা বলেই মনে হয়েছে। একদিকে কেন্দ্রীয় বাহিনীর ব্যাপক টহলদারি, নির্বাচন কমিশনের পর্যবেক্ষকদের নজরদারি এবং অন্যদিকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পুলিস প্রশাসনের সক্রিয়তা সহযোগিতায় সাধারণ মানুষজনের মনের ভোটভীতিও অনেকটাই প্রশমিত দেখিয়েছে। ফলে, ভোট প্রচারে যুযুধান পক্ষের নেতানেত্রীর তরজায় উত্তেজনার পারদ যতই চড়ুক, একটা সৌহার্দের পরিবেশে ভোট শেষ হবে এমন প্রত্যাশা বেড়ে উঠছিল মানুষের মধ্যে। মঙ্গলবারের মর্মান্তিক ঘটনা তাতে একটা ধাক্কা দিয়েছে।
বিশদ

সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে ভোট
শুভা দত্ত

 সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে দু’টি দফার ভোটগ্রহণ ইতিমধ্যে সমাপ্ত। এই নির্বাচনে সাত দফায় ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন ৯০ কোটি মানুষ। এক্ষেত্রে একটি প্রাসঙ্গিক তথ্য হল, এখন দেশে ৫৬ কোটি মানুষ ইন্টারনেটের সঙ্গে যুক্ত। তাদের সিংহভাগ তরুণ-তরুণী। তারা নিয়মিত ফেসবুক, ট্যুইটার আর হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে খবর দেওয়া নেওয়া করে।
বিশদ

23rd  April, 2019
মোদিজি বনাম ইস্তাহার
পি চিদম্বরম

ভারতে প্রতিটি লোকসভার নির্বাচনই অনন‌্য, এমনকী যদি প্রধান দুই প্রতিপক্ষ পুরনোও থাকে। একটি কারণ হল, দুটি নির্বাচনের মাঝে প্রধান দুই প্রতিপক্ষ বাদে বাকি রাজনৈতিক দলগুলি তাদের অবস্থান বদলে ফেলে।
বিশদ

22nd  April, 2019
জনতার এখন একটাই জিজ্ঞাসা: এই
শান্তি শেষপর্যন্ত বজায় থাকবে তো?
শুভা দত্ত

 দ্বিতীয় দফাও শেষ। লোকসভা ভোটযুদ্ধের দ্বিতীয় পর্বও মোটের ওপর শান্তিতেই মিটল। গত বৃহস্পতিবার উত্তরবঙ্গের দার্জিলিং জলপাইগুড়ি ও রায়গঞ্জ—এই তিন আসনে ভোটের লড়াইতে একমাত্র ব্যতিক্রম হয়ে রইল উত্তর দিনাজপুরের চোপড়া! বাংলার ভোটে রক্তারক্তি, মারামারি, বোমাগুলি, খুনোখুনি কোনও নতুন কথা নয়।
বিশদ

21st  April, 2019
কংগ্রেস তো পরিবারকেন্দ্রিক দল, বাকিরা?
মৃণালকান্তি দাস

‘কংগ্রে একটি পরিবারকেন্দ্রিক দল। কংগ্রেসের বেশিরভাগ সভাপতিই নেহরু-গান্ধী পরিবার থেকে এসেছেন। এটা থেকেই বোঝা যায়, এই দলে গণতন্ত্র নেই, একটা বিশেষ পরিবারই এই দল চালায়। বছরের পর বছর ধরে এই পরিবার শুধু নিজেদের উন্নতির কথা ভেবেছে, দেশের উন্নতির কথা ভাবেনি।’
বিশদ

21st  April, 2019
প্রতিবেশীর চোখে ভারতের নির্বাচন
গৌরীশঙ্কর নাগ

বস্তুত আশ্চর্যজনক হলেও পাকিস্তানের তরফে ভারতের নির্বাচনকে সর্বদাই দেখা হয়েছে তাদের জাতীয় স্বার্থের নিরিখে, বিশেষত কাশ্মীরকে কেন্দ্র করে ঘুঁটি সাজানোর ‘গেম প্ল্যান’ হিসেবে। প্রসঙ্গত স্মরণীয়, ১৯৬২ সালের সীমান্ত-সংঘাতের পর থেকে কাশ্মীরের ৩৮,০০০ বর্গকিমি চীনের দখলে রয়েছে। তদুপরি ১৯৬৩ সালে চীনের সঙ্গে সীমান্ত-বোঝাপড়ার মাধ্যমে পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরের ৫,১৮০ বর্গ কিমি চীনকে ছেড়ে দেয়। এখন ভারতের হাতে থাকা অবশিষ্টাংশও পাকিস্তান কব্জা করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। তাই ভারতের লোকসভা নির্বাচন পাকিস্তানের কাছে মুসলিমপক্ষীয় বা মুসলিম-বিরোধী এমন অক্ষ গঠনের তাৎপর্যের নিরিখে নয়; পাকিস্তান এ ব্যাপারে অবহিত যে, ভারতে মুসলিম জনসংখ্যা ১৭.২২ কোটি (২০১১ সেনসাস অনুযায়ী)। সেক্ষেত্রে পাক হামলায় মুসলিম জনগোষ্ঠীর নিরাপত্তাও ক্ষুণ্ণ হতে পারে।
বিশদ

20th  April, 2019
তিনটি ক্ষেপণাস্ত্র ও
বিরোধীদের অনৈক্য
রঞ্জন সেন

এবারের ভোটে ফিরে এসেছে এক পুরনো বিতর্ক। তা হল কোনটা ঠিক—একদলীয় শাসন না বহুদলীয় সরকার? আমাদের দেশ দুরকম অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়েই গিয়েছে। দুরকম শাসনেরই স্বপক্ষে ও বিপক্ষে বলার মত নানা কথা আছে। তাই এককথায় এর উত্তর দেওয়া কঠিন। কারণ মানুষ দুরকম সরকারেরই ভালো-খারাপ দুটি দিকই দেখেছেন।
বিশদ

20th  April, 2019
মধ্যবিত্তের ভোটচর্চা 

সমৃদ্ধ দত্ত: ভোট নিয়ে সবথেকে বেশি গল্প কারা করে? মধ্যবিত্ত। ভোট নিয়ে সারাদিন বন্ধুবান্ধব আর পরিচিতদের সঙ্গে ঝগড়া কারা করে? মধ্যবিত্ত। যে নেতানেত্রীরা তাঁদের চেনেনই না, তাঁদের হয়ে জানপ্রাণ দিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে ছোটবেলার বন্ধু কিংবা আত্মীয়স্বজন অথবা পরিচিত ফ্যামিলি ফ্রেণ্ডকে আক্রমণ করে কারা? মধ্যবিত্ত।  বিশদ

19th  April, 2019
কংগ্রেসের নির্বাচনী প্রচার নিয়ে কিছু সহজ প্রশ্ন
শুভময় মৈত্র

সপ্তদশ লোকসভা গঠনের লক্ষ্যে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে গেল ১১ এপ্রিল, বৃহস্পতিবার। সাত দফায় চলবে এই ভোট, ১৯ মে পর্যন্ত। তারপর ২৩ তারিখ ভোটফল। মোদি সরকার আবার ক্ষমতায় ফিরে আসবে কিনা সেটাই এবারের মূল প্রশ্ন। আপাতত বিভিন্ন সমীক্ষা যা খবর দিয়েছে তাতে সেই আশা একেবারে অলীক নয়।
বিশদ

18th  April, 2019
সেই প্রশ্নগুলির জবাব মিলছে না কেন?
মোশারফ হোসেন 

দেশজুড়ে রাজনীতির ময়দানে এই মুহূর্তে গনগনে আঁচ। রাজনীতির মাটি গরম। রাজনীতির বাতাস গরম। কারণ দেশে ভোট যে শুরু হয়ে গিয়েছে! ভোটগ্রহণ সব মিলিয়ে সম্পন্ন হবে সাত দফায়।  
বিশদ

16th  April, 2019
দুটি ইস্তাহারের গল্প
পি চিদম্বরম

গত ৮ এপ্রিল বিজেপির নির্বাচনী ইস্তাহার প্রকাশ হল কোনও প্রকার তূর্যনিনাদ ছাড়াই। বিজেপির পক্ষে এই যে নম্রতা একেবারে অস্বাভাবিক! বিজেপির নরম হওয়ার অনেক কারণ ছিল। 
বিশদ

15th  April, 2019
একনজরে
 বাপ্পাদিত্য রায়চৌধুরী, কলকাতা: বিদেশি পর্যটক টানার ক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গের অবস্থা মোটেই খারাপ নয়। কেন্দ্রীয় পর্যটন মন্ত্রকের সর্বশেষ হিসেব বলছে, দেশে যত বিদেশি পর্যটক পা রাখেন, তার মধ্যে পশ্চিমবঙ্গ ষষ্ঠ স্থানে। এমনকী কেরল বা গোয়া— পর্যটন সংক্রান্ত আলোচনায় যে অঙ্গরাজ্যগুলির নাম আগে ...

 ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...

সুব্রত ধর  বহরমপুর, বিএনএ: ভোট মেটার পরও মুর্শিদাবাদ ও জঙ্গিপুর লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থীদের একাংশের ব্যস্ততা কাটেনি। বুধবার সকালে মুর্শিদাবাদ কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী আবু তাহের ...

  সংবাদদাতা, আলিপুরদুয়ার: ফালাকাটায় আলিপুরদুয়ার জেলার প্রথম স্টেডিয়াম নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। ফালাকাটার টাউন ক্লাবের মাঠে এই স্টেডিয়াম তৈরি হচ্ছে। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে স্টেডিয়ামের কাজ শুরু হওয়ায় ফালাকাটা সহ জেলার ক্রীড়া মহলে খুশির হাওয়া ছড়িয়েছে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

অতিরিক্ত পরিশ্রমে শারীরিক ক্লান্তি। প্রিয়জনের বিপথগামিতায় অশান্তি ও মানহানির আশঙ্কা। সাংসারিক ক্ষেত্রে মতানৈক্য এড়িয়ে চলা ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৪০: মার্কিন অভিনেতা আল পাচিনোর জন্ম
১৯৬৮: গায়ক ওস্তাদ বড়ে গুলাম আলি খানের মৃত্যু
১৯৬৯: ফুটবলার আই এম বিজয়নের জন্ম
১৯৮৭: সঙ্গীতশিল্পী অরিজিৎ সিংয়ের জন্ম

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৮.৯৮ টাকা ৭০.৬৭ টাকা
পাউন্ড ৮৮.৭১ টাকা ৯১.৯৮ টাকা
ইউরো ৭৬.৮৪ টাকা ৭৯.৭৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩২,০৭৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩০,৪৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩০,৮৮৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৭,২৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৭,৩৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১১ বৈশাখ ১৪২৬, ২৫ এপ্রিল ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ষষ্ঠী ১৮/৫৫ দিবা ১২/৪৭। পূর্বাষাঢ়া ৩৮/৩১ রাত্রি ৮/৩৭। সূ উ ৫/১২/৪৮, অ ৫/৫৬/৪০, অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪২ গতে ২/৫৭ মধ্যে, বারবেলা ২/২৪ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ১১/৩৪ গতে ১২/৫৮ মধ্যে।
১১ বৈশাখ ১৪২৬, ২৫ এপ্রিল ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ষষ্ঠী ২৩/২৪/২৫ দিবা ২/৩৫/৭। পূর্বাষাঢ়ানক্ষত্র ৪২/৫৩/২ রাত্রি ১০/২২/৩৪, সূ উ ৫/১৩/২১, অ ৫/৫৭/৫৩, অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪০ গতে ২/৫৩ মধ্যে, বারবেলা ৪/২২/১৯ গতে ৫/৫৭/৪৯ মধ্যে, কালবেলা ২/৪৬/৪৫ গতে ৪/২২/১৯ মধ্যে, কালরাত্রি ১১/৩৫/৩৭ গতে ১/০/৪ মধ্যে।
১৯ শাবান

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
অশীতিপর বৃদ্ধাকে অ্যাসিড ছুঁড়ে গ্রেপ্তার ৭৫ বছরের বৃদ্ধ
৮০ বছরের বৃদ্ধার উপর অ্যাসিড হামলার অভিযোগ উঠল এক ৭৫ ...বিশদ

08:00:00 AM

ইতিহাসে আজকের দিনে
১৯৪০: মার্কিন অভিনেতা আল পাচিনোর জন্ম১৯৬৮: গায়ক ওস্তাদ বড়ে গুলাম ...বিশদ

07:50:00 AM

আজকের রাশিফল
মেষ: অতিরিক্ত পরিশ্রমে শারীরিক ক্লান্তি। বৃষ: সাংসারিক সমস্যার সমাধানসূত্র পাওয়ার ইঙ্গিত। ...বিশদ

07:45:00 AM

কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবেকে ২০৩ রানের টার্গেট দিল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর 

24-04-2019 - 09:47:04 PM

সিউড়িতে পথ অবরোধ বিজেপির
দলীয় কর্মীকে মারধর ও অপহরণের অভিযোগে সিউড়ি ডিএম অফিসের সামনে ...বিশদ

24-04-2019 - 09:44:24 PM

আরসিবি ১২২/৪ (১৫ ওভার) 

24-04-2019 - 09:21:25 PM