বিশেষ নিবন্ধ
 

বাজেট অন্তর্বর্তী হলেও চ্যালেঞ্জ আছে সর্বক্ষেত্রে
সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়

শেষ বারের মতো  মোদি সরকারে যে বাজেট পেশ হচ্ছে সেটি কার্যত ভোট অন অ্যাকাউন্ট,অর্থাৎ নতুন সরকার না আসা পর্যন্ত সব বিষয়ে কাজ চালানোর মতো কিছু বরাদ্দ করা। এর মধ্যে দিয়ে দেশের বিকাশ বা অর্থনীতির মেরামতে দীর্ঘ মেয়াদি কোনও ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব নয়। সেটা জেনেই আগামী ভোটের দিকে তাকিয়ে আম জনতাকে খুশি করতে এবং  একই সঙ্গে মধবিত্ত ও  শিল্প মহলকে খুশি করতে এমন কিছু প্রস্তাব এই ধরনের অন্তর্বর্তী বাজেট রাখা হয় যেগুলি আদতে কার্যকর করা সম্ভব নয়, কিন্তু ভোটে বৈতরণী পার হতে নির্বাচনী ইস্তাহারের মতো কাজে লাগানোর লক্ষ্যে জনদরদি কিছু ঘোষণা রাখা  হয়। দলের পক্ষে ভোটের প্রচারে বলা যাবে, যে ক্ষমতায় ফিরলে তারা এগুলিই করতে চায়। তাই এই বাজেট বা ভোট অন অ্যাকাউন্ট কার্যত একটা ভোটমুখী রাজনৈতিক ইস্তেহার।  এছাড়া  একে অন্য ভাবে ভাববার কারণ নেই। এত কিছু সত্ত্বেও  বর্তমান পরিস্থিতিতে এবারে বাজেট বেশ কিছু কারণে গুরুত্বপূর্ণ। কেন, সেটিই প্রথম আলোচ্য।
প্রথমত, এই ভোট অন অ্যাকাউন্ট থেকেই মোদিকে বোঝাতে হবে যে তিনি নিজের ইচ্ছে মতো আর অর্থনীতি চালাতে চান না, তাঁকে যাঁরা ক্ষমতায় আনছেন শুধু তাঁদের প্রতি তিনি দায়বদ্ধ নন। দেশের সকল শ্রেণীর মানুষকে ভুলে যাবেন না তিনি। গত পাঁচ বছর ধরে নরেন্দ্র মোদির ব্যক্তিগত হস্তক্ষেপে অর্থমন্ত্রী জেটলির সিদ্ধান্তও অর্থ মন্ত্রকের রিপোর্ট বা রিজার্ভ ব্যাঙ্কের সুপারিশ অগ্রাহ্য করে দেশের অর্থনীতিকে ত্রিমুখী ভাবনায় পরিচালিত করেছেন। এক, নোট বাতিলের মত হঠকারী সিদ্ধান্ত নিয়ে এবং অপ্রস্তুত অবস্থায় জিএসটি চালু করে রাতারাতি অর্থনীতির খোল নলচে বদলের চেষ্টা করেছেন, যা সর্বস্তরে একটি জোর ধাক্কা দিয়ে অর্থনীতির বৃদ্ধি কমিয়ে দিয়েছে। দ্বিতীয়ত, দেশের ক্ষুদ্র, মাঝারি, এমনকী বৃহৎশিল্প চাঙ্গা করতে ব্যর্থ হয়ে কেবলমাত্র আম্বানি-আদনি-পেটিএম-এর মতো কিছু নির্দিষ্ট দেশি-বিদেশি পুঁজিনির্ভর লগ্নির নামে দেশের অর্থে পছন্দের শিল্পপতির বিকাশ ঘটিয়েছেন,তার জন্য ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থায় রিজার্ভ ব্যাঙ্কের উপর নিয়ন্ত্রণ চাপিয়ে তাদের রিজার্ভ অর্থে দেউলিয়া পুঁজির ক্ষত মেরামত করার চেষ্টা করছেন। তাতে যে দেশের ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থা আরও দুর্বল হবে, বিপন্ন হবে আম জনতা, সেটা জেনেও তিনি তা-ই করতে চেয়েছেন। ক্ষমতায় মোদি সরকার ফিরলে যে দেশের আপামর জনতা শুধু এই কারণেই চোখে সর্ষে ফুল দেখবে, নির্বাচনের ময়দানেও সেটা মোদিজির পক্ষে অশনিসংকেত হিসেবেই স্পষ্ট। তৃতীয়ত, দেশের স্বয়ম্ভর খাদ্য উৎপাদন ব্যবস্থার বদলে কৃষি অর্থনীতিকে পশ্চিমি বাজারমুখী উন্নয়নের ভাবনায় ঢেলে সাজাতে চাইছেন। তাতে ক্ষুদ্র চাষিদের লাঙ্গল ছেড়ে মাল্টি ন্যাশনাল ফুড কর্পোরেটদের কাছে নিজের জমি লিজ দিয়ে সেই জমিতেই চাষ করতে হবে। দেশের কৃষি সমস্যা না মিটিয়ে বাজেটে কৃষি বরাদ্দ বাড়িয়ে বৃহৎ পুঁজির এগ্রি-কর্পোরেট ভেঞ্চারগুলির স্বার্থে বরাদ্দ হচ্ছে কৃষি ও গ্রামীণ বিকাশের নামে। সেটি বুঝে গিয়েছে দেশের কৃষক শ্রেণী। এমনকী, বিজেপি অনুমোদিত কৃষক সংগঠনগুলিও তাই গত দু’বছর মোদি সরকার বিরোধী আন্দোলনে। বস্তুত, কৃষি ও সাধারণ কৃষকের কল্যাণে মোদি সরকারের বাজেটে বিশেষ কিছু থাকে না, যা কিছু থাকে তা কৃষি পণ্যের বিপণন, কৃষি বাণিজ্যকরণ, কৃষিক্ষেত্রের ভর্তুকি ও সুযোগ-সুবিধা যার সিংহভাগ পায় বৃহৎ চাষিদের একাংশ। কৃষি মন্ত্রকের সরকারি তথ্য বলছে, মোদির চার বছরে কৃষিঋণের বেশিরভাগ অর্থ জমা হয়েছে মাত্র ৬৭০টি অ্যাকাউন্টে। ভাবুন, এই হল বাজেটের বাস্তব-দর্শন! স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী বলছেন, ছোট কৃষকরা চাষের খরচ তুলতে না-পারলে ফসল ফলায় যেসব কোম্পানি তাদের কাছে জমি দিয়ে দিক, তাদের কাছে কাজ করুক! এই প্রধানমন্ত্রীর শেষ বাজেটে কৃষকের আয় দ্বিগুণের প্রতিশ্রুতি দিয়ে যদি লক্ষ কোটি টাকাও ক্ষুদ্র কৃষকের জন্য বরাদ্দ হয়, তাকে নির্বাচনী চমক ছাড়া আর কীই-বা ভাবা যেতে পারে? সারা ভারতকে আধপেটা খাইয়ে শুধু ৪০কোটি উচ্চ আয়ের বাজার ধরার বাজেট না-করে যদি প্রকৃত একটি জনস্বার্থের বাজেট হয়, তাতে সব পক্ষেরই মঙ্গল।
ঘটনা যা-ই হোক, মোদিকে ক্ষমতায় ফেরার জন্য একটা স্থায়ী ও স্থির সিদ্ধান্তে আসতে হবে। কোনও দেশ, অর্থনীতি বা দেশের মানুষের কল্যাণ কোনওদিন দুমদাম সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও বিনা প্রস্তুতিতে তা কার্যকর করার জন্য ঘোষণার মধ্যে দিয়ে হতে পারে না। এবারে ভোট অন অ্যাকাউন্টে মোদিকে বোঝাতে হবে যে তিনি  রাজনৈতিক প্রয়োজনে অর্থনৈতিক সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন না, অর্থনীতির প্রয়োজন বুঝলেই বরং তো সকলের পক্ষে মঙ্গল, নইলে  বাজেটে ঘোষিত হলেই যে কার্যকর হয় না তার দৃষ্টান্ত অজস্র। নির্বাচনের বছরে বাজেট পেশ করতে গিয়ে মোদিজি যেন গতবারের  মতো বিদেশ থেকে কালো টাকা উদ্ধার করে প্রত্যেক নাগরিকের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ১৫ লাখ করে দেওয়ার মতো প্রতিশ্রুতি না দেন, তাতে মোদিজির বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়েই প্রশ্ন ওঠে।
এবারের বাজেটে মোদিজি মানুষের জন্য অনেক জনহিতকর প্রতিশ্রুতি দেওয়ার মতো অনুকূল অবস্থায় আছেন। গত চারবছরে মোদি জমানার সব চাইতে বিতর্কিত যে নোট বাতিল কাণ্ড, তা পরোক্ষে রাজকোষের অভূতপূর্ব উন্নতি ঘটিয়েছে। গত চারবছরে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে আয়কর সংগ্রহ বেড়েছে ৪০ শতাংশ, এবং এর ফলে রাজকোষ ঘাটতি কমানোয় দারুণভাবে সাফল্য এসেছে। এই বিষয়টিকে যে ‘ট্যাক্স টু জিডিপি’ অনুপাতের হিসেবে বিবেচনা করা হয়, তাতে ৫৬% উন্নতি হয়েছে। এর ফলে বাজেট ঘাটতি রয়েছে লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী জিডিপি সাড়ে তিন শতাংশের মধ্যেই। ফলে মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে। এতে লগ্নির পরিবেশ অনুকূল, তার উপর আশানুরূপ বিদেশি লগ্নি আসছে,  বিদেশে তেলের দাম বা টাকার দামে ক্ষেত্রে চাপ থাকলেও চলতি খাতের ভারসাম্য লগ্নি ও বিদেশি মুদ্রা আগমনের নিরিখে সন্তোষজনক। সব মিলিয়ে এখন কোষাগারীয় পরিস্থিতি অনুকূলে। এই অবস্থায়  তাই যে-কোনও সরকার চাইলে আম জনতার জন্য কিছু ভালো প্রস্তাব রাখতেই পারে, এটাই স্বাভাবিক প্রত্যাশা। অরুণ জেটলির অসুস্থতায় এখন বাজেট পেশ করতে এসে সকল মহলের জন্য কতখানি দায় ও ঝুঁকি নিতে পারেন পীযূষ গোয়েল, সেটাই দেখার।
অন্তর্বর্তী হলেও এই বাজেটেই সত্যিই কিছু করতে হবে মোদি সরকারকে, এমন বিষয়টা রাজনৈতিক নয় শুধু, অর্থনৈতিক বাধ্যবাধকতাও রয়েছে। দেশের বৃদ্ধির হার ৭ শতাংশের উপরে হলেও ‘জব লেস গ্রোথ’। কর্মসংস্থান বাড়ছে না আশানুরূপ হারে, এটাই মোদির সামনে সব থেকে বড় চ্যালেঞ্জ। ভোটের রায়ে ক্ষমতায় যেই আসুক, আগে দেশ ও জনতার স্বার্থে কর্মসংস্থান সমস্যার গুরুত্ব অগ্রাধিকার দিয়ে মোকাবিলা করতে হবে। এই বাজেটে তাই পরিকাঠামো, হাউজিং, রিয়াল এস্টেটে বাজেট বরাদ্দ বাড়াতে হবে। কর্মসংস্থান বাড়াতে হলে ‘স্টার্ট আপ বিজনেসে’ কর ছাড় দিতে হবে, মাঝারি ও ক্ষুদ্র শিল্পের বাজার ফিরিয়ে দিতে হবে চীনাপণ্যের সঙ্গে লড়াইয়ে, তার জন্য মাশুল সংস্কার করতে হবে, জিএসটি কমানো খুব জরুরি, নইলে দেশের বাজার আরো নিয়ে নেবে চীনারা। দেশ কখনও বিদেশি লগ্নির উপর চলতে পারে না, দেশীয় পুঁজিকে শক্তিশালী করে দেশের বাজার তাদের হাতে রাখাটা খুব জরুরি। ব্যাঙ্কিং ও কর সংস্কারের লক্ষ্য হওয়া উচিত সেটাই। কিন্তু হচ্ছে উল্টো। ফলে সীমিত ও নির্দিষ্ট কিছু কর্পোরেটের বাইরে দেশীয় শিল্পের বিকাশ শ্লথ।
এই বাজেটে সাধারণ আম জনতার জন্য আশা করা যায় করমুক্ত আয়ের ঊর্ধ্বসীমা আরও বাড়িয়ে তিন লাখ করা হবে। তাতে অর্থনীতির লাভ, কিছুটা হলেও চাহিদা বাড়িয়ে বৃদ্ধির হার ত্বরান্বিত হবে।  বৃদ্ধির হার আরও ২ শতাংশ বাড়াতে গেলে অবিলম্বে চাই একটি গ্রামীণ বিকাশভিত্তিক সত্যিকারের গণমুখী বাজেট, যাতে সাধারণের ক্রয় ক্ষমতা বাড়ে, কৃষকের আয় বাড়ে,  ক্ষুদ্র ও মাঝরি শিল্পের বাজার বাড়ে, চাকরির পাশাপাশি লগ্নির পরিবেশ চাঙ্গা হয়। এইসব একটি অন্তর্বর্তী বাজেটের কাজ নয়, কিন্তু এই লক্ষ্যেই আগামী দিনের পদক্ষেপের জন্য এবারের অন্তর্বর্তী বাজেট সাজাতে হবে, সেটাই চ্যালেঞ্জ। নইলে জবাবদিহির দায় এড়ানো কঠিন হবে ভোটের বছরেই।
30th  January, 2019
যুগজাগরণে যুগাচার্য স্বামী প্রণবানন্দজি মহারাজ
স্বামী নীলেশ্বরানন্দ

যুগজাগরণ এক যুগাচার্যের সাধনসিদ্ধির প্রাক্কালীন শ্রীমুখ নিঃসৃত যুগমহাবাণী। এ জাগরণ মানব জীবনের উন্নয়ন উদ্বোধনের আকাশবার্তা। ১৯১৬ সনের পুণ্যময়ী মাঘী পূর্ণিমার শুভ লগ্নে এক সাধক সাধন সমাহিত অবস্থা থেকে উত্থিত হয়েই জগৎবাসীর কল্যাণে উৎসর্গ করলেন এক মহাআশ্বাস বাণী—এ যুগ মহাজাগরণের তথা মহাসমন্বয়ের।
বিশদ

19th  February, 2019
ইসলামাবাদের ইসলামি ঐক্যের ফাঁদে কাশ্মীর
হারাধন চৌধুরী

ঘটনাটিকে বাসি বলার সময় এখনও হয়নি। বলিউডের নামজাদা অভিনেতা নাসিরউদ্দিন শাহের এক সংকীর্ণ মন্তব‌্যে উৎসাহিত হয়ে পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান দাবি করে বসলেন, ‘‘সংখ‌্যালঘুদের সঙ্গে কেমন আচরণ করতে হয় তা মোদি সরকারকে দেখিয়ে দেবে পাকিস্তান।’’
বিশদ

19th  February, 2019
বধ্যভূমি কাশ্মীর: আমরা কি
কেবল মার খেতেই থাকব!

শুভা দত্ত

 গত বৃহস্পতিবার আবার জঙ্গি তাণ্ডবে কেঁপে উঠল ভূস্বর্গ, দেশপ্রেমিক জওয়ানদের রক্তে ভিজে গেল কাশ্মীর উপত্যকার মাটি। পুলওয়ামার অবন্তীপোরায় জয়েশ জঙ্গিদের আত্মঘাতী হামলায় সিআরপিএফের ৪৪ জন জওয়ান শহিদ হলেন।
বিশদ

17th  February, 2019
শিশুদের বাজেট
শুভময় মৈত্র

 একশো ত্রিশ কোটির দেশে আশি কোটি প্রাপ্তবয়স্ক ভোটার, বাকি পঞ্চাশ কোটি বয়সে ছোট। যার ভোট নেই তার জন্যে লোকসভা নির্বাচনের মাস তিনেক আগে ভাবার সময় থাকে না শাসকদলের। সেই জন্যেই বাজেট বক্তৃতায় শিশুদের কথা খুঁজতে গেলে দূরবিন প্রয়োজন। তবে চশমা ছাড়াই দেখতে পাওয়া যাচ্ছে এবারের বাজেটের বিশালাকার অক্ষরের ভীষণ চমক ‘ভিশন ২০৩০’। আজ থেকে এগারো বছর পর দেশ ঠিক কোথায় পৌঁছবে তার চালচিত্র। কোথাও কিন্তু আজকের শিশুদের কথা নেই।
বিশদ

16th  February, 2019
মার্কিন মুলুকে (-) ৬০,
সন্ধিক্ষণ কিন্তু পরিবর্তনেরই
শান্তনু দত্তগুপ্ত

পোলার ভর্টেক্সের প্রভাব কি ভারতেও পড়েছে? এবার উত্তর ভারতের দীর্ঘস্থায়ী ঠান্ডার জন্য আবহাওয়াবিদরা কিছুটা হলেও পোলার ভর্টেক্সকে দায়ী করছেন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পোলার ভর্টেক্স দুর্বল হয়ে ঠান্ডাটাকে আমেরিকা ও ইউরোপের উত্তরভাগে প্রবেশ করিয়ে দিয়েছে। আর তার ধাক্কায় দক্ষিণের দিকে চলে এসেছে পশ্চিমী ঝঞ্ঝা। এমনিতে বছরে চার থেকে ছ’টি পশ্চিমী ঝঞ্ঝা ভারতীয় উপমহাদেশে এসে ধাক্কা খায়। চলতি বছর সেই সংখ্যাটা সাত। যার জন্য শীতের প্রকোপ বেড়েছে ভারতে। মূলত হিমালয় এবং তার সংলগ্ন রাজ্যগুলিতে।
বিশদ

16th  February, 2019
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন এগিয়ে?
সমৃদ্ধ দত্ত

গত পাঁচ বছরে সিপিএম একবারও কি রেলমন্ত্রীর ইস্তফা দাবি করে রাস্তায় নেমেছে? পশ্চিমবঙ্গ কেন বঞ্চিত হচ্ছে, এই প্রশ্ন তুলে কখনও সিপিএমকে প্রেস কনফারেন্স করতে দেখেছে কেউ? কেন কিছু করেনি সিপিএম? কারণ এখন আর রেলমন্ত্রীর নাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নয়। বিশদ

15th  February, 2019
রাফাল না সিবিআই, মোদি-বিরোধিতায় সবচেয়ে শক্তিশালী ইস্যু কোনটি?
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

 রাফাল ইস্যুকে সামনে রেখে পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারে নরেন্দ্র মোদির ভাবমূর্তির ওপর প্রশ্ন তুলে দিয়েছিলেন রাহুল গান্ধী। ধারাবাহিকভাবে রাফাল ইস্যু প্রচারের কেন্দ্রে রাখতে পেরেছিলেন রাহুল। হিন্দি বলয়ে তিন রাজ্য—মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান ও ছত্তিশগড়-এ বিজেপি’র পরাজয়ের পিছনে অন্য সমস্ত কারণের মধ্যে রাহুল গান্ধীর তোলা রাফাল যুদ্ধ বিমান দুর্নীতির প্রচার বিজেপি’র বিরুদ্ধে গিয়েছিল বলে অনেকে মনে করেন।
বিশদ

14th  February, 2019
স্মার্ট সিটি এবং সুশাসন
রঞ্জন সেন

স্মার্ট হওয়া ভালো, কিন্তু আরও ভালো হল সুশাসিত হওয়া। আর এটা হয় না বলেই রাতারাতি স্মার্ট বলে দেগে দেশের স্মার্ট সিটিগুলিতে হঠাৎ প্রয়োজনে জরুরি পরিষেবা পাওয়া কঠিন হয়ে পড়ে। অন্যদিকে তার প্রশস্ত রাজপথে চরে বেড়ায় গোরু। তার পরিণতিতে মানুষের প্রাণও যায়।
বিশদ

12th  February, 2019
ভোটের কৈফিয়ত
পি চিদম্বরম

একটা আত্মবিশ্বাসী সরকার স্বাভাবিক অন্তর্বর্তী বাজেট পেশ করত আর এটাই করা উচিত, কিন্তু আত্মবিশ্বাসের মতো জিনিসটার ঘাটতি রয়েছে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকারের মধ্যে। শুধু বিজেপি এমপিদের বিষণ্ণ মুখগুলোর দিকে তাকান বিশেষত যাঁরা রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, ছত্তিশগড় ও উত্তরপ্রদেশ থেকে এসেছেন এবং আপনি আমার সঙ্গে একমত হবেন।
বিশদ

11th  February, 2019
ফাঁকা অভিযোগ করে বা সিবিআই জুজু দেখিয়ে কি মমতার গতিরোধ করা যাবে?
শুভা দত্ত

২০১৯ যুদ্ধের দামামা বেশ ভালোমতোই বেজে উঠেছে। বোঝাই যাচ্ছে লোকসভা ভোট আর দূরে নেই। মাঝে বড়জোর মাস দুই-আড়াই। তারপরই এসে পড়বে সেই বহু প্রতীক্ষিত মহাসংগ্রামের দিন। দেশের শাসনক্ষমতার মসনদ দখলের যুদ্ধে মুখোমুখি হবে শাসক এবং বিরোধী শিবিরের রথী-মহারথীবৃন্দ।
বিশদ

10th  February, 2019
হৃদয় গিয়েছে চুরি
অতনু বিশ্বাস

আচ্ছা, হৃদয়টাকে (হৃদপিণ্ড মানে হৃদয় ধরে নিয়ে) সত্যি সত্যিই কি কোথাও ফেলে আসা যায় না? যদি সত্যিই না যায়, কুমিরটা সেটা বিশ্বাস করল কী করে? উপকথার কুমিররা হয়তো বোকা হয়, তবে তার তথাকথিত বোকামিকে অনেক ক্ষেত্রেই আমার নেহাতই সরলতা বলে মনে হয়েছে।
বিশদ

09th  February, 2019
ন্যানো, একটি স্বপ্নের অকাল মৃত্যু
মৃণালকান্তি দাস

ভক্সওয়াগেন বিটল। যে বছর ভারতে ন্যানোর আবির্ভাব, তার ঠিক ৭০ বছর আগে বাজারে এসেছিল এই ‘পিপলস কার’। গোটা জার্মানি জুড়ে শুধু রোড নেটওয়ার্ক বাড়ানোই নয়, দেশের মানুষকে সস্তায় গাড়ি চড়ানোর স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন অ্যাডলফ হিটলার। কে না জানে, ভক্সওয়াগেন মানেই তো ‘জনতার গাড়ি’।
বিশদ

08th  February, 2019
একনজরে
 বিএনএ, শিলিগুড়ি: রাজ্য সরকারের কাছে শিলিগুড়ি পুরসভার পাওনা টাকা চাইতে ১ মার্চ কলকাতার মেট্রো চ্যানেলে ধর্নায় বসছেন মেয়র অশোক ভট্টাচার্য। তাঁর নেতৃত্বে পুরসভার ২২ জন বাম কাউন্সিলর ওইদিন বেলা ১২ টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত মেট্রো চ্যানেলে ধর্নায় বসবেন। ...

 নয়াদিল্লি, ১৯ ফেব্রুয়ারি: আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে আপাতত দু’সপ্তাহের জন্য দ্বাদশ আইপিএলের ক্রীড়াসূচি ঘোষণা করল বিসিসিআই। ২৩ মার্চ চিপকে উদ্বোধনী ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে ...

 সংবাদদাতা, কাটোয়া: বাবা ভারতীয় সেনাবাহিনীতে কর্মরত। ছোট থেকেই মেধাবী ছাত্র হিসেবে পরিচিত কাটোয়ার কৈথন গ্রামের শাহবাজ মণ্ডল কীভাবে মাধ্যমিকের প্রশ্নফাঁস কাণ্ডে জড়িয়ে পড়ল তা ভেবে পাচ্ছেন না পরিবারের লোকজন থেকে প্রতিবেশীরা। ...

 বেজিং, ১৯ ফেব্রুয়ারি (পিটিআই): ভারত ও পাকিস্তানকে সংযম দেখাতে অনুরোধ করল চীন। পুলওয়ামা হামলার প্রেক্ষিতে দু’দেশের মধ্যেকার উত্তেজনা কমাতে উদ্যোগ নিতে বলেছে বেজিং। শান্তিপূর্ণভাবে দু’পক্ষের বিবদমান ইস্যুগুলির সমাধান চেয়ে বেজিং বলেছে, যত দ্রুত সম্ভব ভারত ও পাকিস্তানের আলোচনায় বসা উচিত। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মরতদের সহকর্মীদের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো থাকবে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথাও ব্যবহারে সংযত থাকা দরকার। ব্যবসায় ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

আন্তর্জাতিক সামাজিক ন্যায় দিবস
১৯৪৭- ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ক্লিমেন্ট অ্যাটলি ঘোষণা করলেন, ১৯৪৮-এর জুন মাসের মধ্যে ইংরেজরা ভারত ত্যাগ করে চলে যাবে
১৯৫০- স্বাধীনতা সংগ্রামী শরৎচন্দ্র বসুর মৃত্যু
১৯৭১- স্বাধীনতা সংগ্রামী ও ফব নেতা হেমন্ত বসু শহরের রাজপথে প্রকাশ্যে খুন হলেন

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৫৯ টাকা ৭২.২৯ টাকা
পাউন্ড ৯০.৭১ টাকা ৯৩.৯৮ টাকা
ইউরো ৭৯.৪১ টাকা ৮২.৪১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৪,১০৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩২,৩৫৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩২,৮৪০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,৫৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,৬৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৭ ফাল্গুন ১৪২৫, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, বুধবার, প্রতিপদ ২৮/৩৯ সন্ধ্যা ৫/৩৭। মঘা ৪/৩৬ দিবা ৮/০ পরে পূর্বফাল্গুনী ৫৫/১৬ শেষ রাত্রি ৫/৪। সূ উ ৬/৯/২২, অ ৫/৩১/৪২, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪০ মধ্যে পুনঃ ৯/৫৭ গতে ১১/২৮ মধ্যে পুনঃ ৩/১৫ গতে ৪/৪৬ মধ্যে। রাত্রি ৬/২২ গতে ৮/৫৪ মধ্যে পুনঃ ১/৫৭ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৯/০ গতে ১০/২৪ মধ্যে পুনঃ ১১/৫০ গতে ১/১৫ মধ্যে, কালরাত্রি ৩/০ গতে ৪/৩৫ মধ্যে।
৭ ফাল্গুন ১৪২৫, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, বুধবার, প্রতিপদ রাত্রি ৭/২৯/৩৮। মঘানক্ষত্র ৯/২১/১৬, সূ উ ৬/১১/০, অ ৫/২৯/৪০, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪১/২৯ মধ্যে ও ৯/৫৭/১৩ থেকে ১১/২৭/৪৩ মধ্যে ও ৩/১৩/৫৬ থেকে ৪/৪৪/২৫ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/২০/২৫ থেকে ৮/৫২/১ মধ্যে ও ১/৫৭/১৩ থেকে ৬/১০/১২ মধ্যে, বারবেলা ১১/৫০/২০ থেকে ১/১৫/১০ মধ্যে, কালবেলা ৯/০/৪০ থেকে ১০/২৫/৩০ মধ্যে, কালরাত্রি ৩/০/৪০ থেকে ৪/৩৫/৫০ মধ্যে।
১৪ জমাদিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
শহরে ট্রাফিকের হাল 
আজ, বুধবার সকালে শহরের রাস্তাঘাটে যান চলাচল বেশ প্রভাবিত। ট্রাফিকের ...বিশদ

10:08:32 AM

তেরা টাইম আয়েগা, বিনা টিকিটের যাত্রীদের জন্য অভিনব সতর্কবার্তা রেলের
 ‘তেরা টাইম আয়েগা’। বিনা টিকিটের যাত্রীদের জন্য এভাবেই সতর্কবার্তা দিলেন ...বিশদ

09:52:50 AM

পড়ে থাকা ফ্ল্যাট বিক্রিতে
ব্যাপক সাড়া পেল রাজ্য

প্রায় এক দশক ধরে পড়ে থাক ফ্ল্যাট বিক্রিতে ব্যাপক সাড়া ...বিশদ

09:30:00 AM

‘বই ধরো, বই পড়ো’ প্রকল্প চালু করছে গ্রন্থাগার দপ্তর
নিখরচায় গ্রন্থাগারের সদস্যপদ নেওয়া যাবে। এমনই প্রকল্প চালু করছে রাজ্যের ...বিশদ

09:09:30 AM

অবসরের কয়েক বছর পর
পদোন্নতি নয় সার্ভেয়ারের

অবসরের বেশ কয়েক বছর পর পদোন্নতি হল সেচ দপ্তরের ন’জন ...বিশদ

09:00:00 AM

শীতের আমেজও বিদায়ের পথে
গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ থেকে শীতের আমেজও এবার বিদায়ের পথে। আবহাওয়াবিদরা বলছেন, ...বিশদ

08:55:41 AM