বিশেষ নিবন্ধ
 

মহাকাশ-চর্চায় ভারতকে স্যালুট জানাচ্ছে গোটা দুনিয়া
মৃণালকান্তি দাস

দেশভাগের পর আরও একবার ধর্মীয় সংঘর্ষ দেখেছিল এই দেশ। শিখদাঙ্গায় জ্বলে উঠেছিল রাজধানী দিল্লি, পাঞ্জাব। শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদীদের শেষ করে দিতে ইন্দিরা গান্ধীর অভিযান। স্বর্ণমন্দির ছারখার করে দিয়েছিল ভারতীয় সেনাবাহিনী। আর তার প্রতিশোধ নিতে খুন হন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী। সবটাই ওই বছরে। বছর শেষ হওয়ার আগে বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর দুর্ঘটনার সাক্ষী থাকতে হয় এ দেশকে। ভোপাল গ্যাস দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান কয়েক হাজার মানুষ। আর একই বছরে এই ক্ষতবিক্ষত দেশে আশার আলো দেখিয়েছিলেন বায়ুসেনার এক পাইলট।
মহাকাশ জয় নিয়ে আমেরিকা ও তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের স্নায়ুযুদ্ধের মধ্যেই ইন্দিরা গান্ধী চেয়েছিলেন অন্তত একজন ভারতীয় মহাকাশে যাক। আর তার জন্য বন্ধু দেশ রাশিয়ার সাহায্য চেয়েছিলেন তিনি। ইতিহাস তৈরি হয়েছিল ১৯৮৪ সালের ২ এপ্রিল। সোভিয়েত রিপাবলিক অব কাজাখিস্তানের একটি স্পেসপোর্ট থেকে সয়ুজ টি-১১ রকেটে চেপে মহাশূন্যের পথে উড়ে গিয়েছিলেন ভারতের উইং কম্যান্ডার রাকেশ শর্মা। সঙ্গে দু’জন রুশ নভশ্চর। ইউরি মেলিশেভ এবং গেনাডি স্টেকালভ। রাকেশ শর্মা ও তাঁর সঙ্গে থাকা মহাকাশচারীরা মহাকাশে প্রায় ৮ ঘণ্টা সময় কাটান। রাকেশ যখন মহাকাশে, প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী তাঁকে প্রশ্ন করেছিলেন, উপর থেকে কেমন লাগছে ভারতকে? কসমোনট শর্মার জবাব ছিল, ‘সারে জাহাঁ সে আচ্ছা’। কোনও ভারতীয়ের মহাকাশ থেকে ভারত ভূখণ্ডকে দেখা সেই প্রথম। পরে রাকেশ শর্মা বলেছিলেন, ‘ভারতকে মহাকাশ থেকে অনেক সুন্দর দেখায়। এখানে রয়েছে বিশাল সমুদ্রতটরেখা। তিনদিকে বেষ্টিত অনন্যসুন্দর নীল মহাসাগর। আছে শুষ্ক মালভূমি, বন, নদীর সমতলভূমি, মরুভূমির সোনালি বালু। রাজকীয় হিমালয়কে গোলাপি দেখায়। কারণ, সূর্যালোক এর উপত্যকায় পৌঁছতে পারে না। রয়েছে তুষারশিখর পর্বতমালা। আমাদের তো সবকিছুই আছে।’
সেদিন গোটা দেশকে স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন রাকেশ শর্মা। এর মাঝে ৩৪ বছরে ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো বহু মাইল পার করেছে। মঙ্গলে যান পাঠিয়েছে। গোটা দুনিয়াকে তাক লাগিয়ে মহাকাশে পাঠিয়েছে একের পর এক উপগ্রহ। নজরে সৌরজগতের আরও এক গ্রহ শুক্র। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে ২০২৩ সালেই শুক্রে মহাকাশযান পাঠাবে ভারত। কিন্তু এখনও অধরা নিজস্ব যানে মহাকাশে মানুষ পাঠানোর কৃতিত্ব। সেই অনন্ত অভিযানের স্বপ্নকে ফের চাগিয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। গত বছর ১৫ অগাস্ট লালকেল্লায় দাঁড়িয়ে তিনি বলেছিলেন, ভারতের স্বাধীনতার ৭৫তম বছর পূর্ণ হবে ২০২২ সালে। সেই বছরই ভারতের কোনও সন্তান ভারতের পতাকা নিয়ে যাবে মহাকাশে। এই ঘোষণায় সিলমোহর দিয়েছে ইসরো।
একটা সময় ছিল, যখন মহাকাশে মানুষ পাঠানো নিয়ে আমেরিকা-সোভিয়েতের সমানে সমানে লড়াই চলত। আমেরিকার নভোচরদের বলা হত অ্যাস্ট্রোনট, রাশিয়া নাম দিয়েছিল কসমোনট। এবার ইসরোর পাঠানো মহাকাশচারীকে বলা হবে ‘গগনট’। আর ভিনদেশের নয়, দেশের এবং দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি যানে মহাকাশে যাবে ভারত। জানিয়েছেন ইসরো চেয়ারম্যান কে শিভান। ‘গগনযান’ নামে সেই মিশনের জন্য কেন্দ্রীয় সরকার বরাদ্দ করেছে ১০ হাজার কোটি টাকা। জানা গিয়েছে, সাতদিনের ওই অভিযানে তিনজনকে পাঠানো হবে। শ্রীহরিকোটা মহাকাশ বন্দর থেকে রওনা হওয়ার ১৬ মিনিটের মধ্যে মহাকাশে পৌঁছে যাবেন তিন নভোশ্চর। ৩০০ থেকে ৪০০ কিলোমিটারের একটি কক্ষপথে অবস্থান করবে সেই স্পেসক্রাফট। অভিযাত্রীরা থাকবেন একটি ক্রু মডিউলে, যা একটি সার্ভিস মডিউলের সঙ্গে যুক্ত থাকবে। এই দুই মডিউল নিয়ে তৈরি অরবিটাল মডিউলটিকে মহাকাশে বয়ে নিয়ে যাবে ‘জিএসএলভি এমকে-থ্রি’ রকেটের অত্যাধুনিক সংস্করণ।
তবে মহাকাশে মানুষ পাঠানোর আগে ২০২০ ও ২০২১ সালে দুটি মানবহীন যানও পাঠাবে ইসরো। গোটা পথটা পরীক্ষা করে দেখতে। ২০২২-এর মধ্যে পুরো প্রোগ্রাম সম্পূর্ণ হবে বলে আশা করা হচ্ছে। গোটা বিশ্বে রাশিয়া, আমেরিকা ও চীনের পর ভারতই হবে চতুর্থ দেশ, যারা মহাকাশে মানুষ পাঠাবে। তবে, চাঁদে বা মঙ্গলে মহাকাশযান পাঠানোর তুলনাতেও এই প্রকল্প অনেক বেশি কঠিন। মহাকাশে মানুষ পাঠানোর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হল মহাকাশচারীদের পৃথিবীতে ফিরিয়ে আনা। পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে প্রবেশ করলেই মহাকাশযানগুলি বায়ুর সঙ্গে ঘর্ষণে প্রবল উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। এই তাপকে সহ্য করার মতো প্রযুক্তি তৈরিই মহাকাশে মানুষ পাঠানোর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। আর তা চ্যালেঞ্জ হিসেবেই নিয়েছে ইসরো।
শ্রীহরিকোটা মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্রে জোর কদমে চলছে লক্ষ্যে পৌঁছনোর প্রস্তুতি। হাতে সময় ৪০ মাস। ইসরোর তরফে জানানো হয়েছে, ৪০ মাসের মধ্যে হবে প্রথম অভিযান। মহাকাশ-যাত্রার যাবতীয় প্রশিক্ষণও দেওয়া হবে এই সময়ের মধ্যেই। ইসরোর দাবি, ২০০৮-এর পরিকল্পনা মোতাবেক উৎক্ষেপণ যান ‘জিএসএলভি এমকে-থ্রি’ অনেকটাই তৈরি হয়ে গিয়েছে। ১৭৩ কোটি টাকা খরচ করেও আর্থিক কারণে মাঝে খানিকটা থমকে যায়। কেউ কেউ বলেছেন, টাকার অভাব। কিন্তু ইসরোর অবসরপ্রাপ্ত বিজ্ঞানীদের অনেকেই বলছেন, টাকা নয়, আসল অভাবটা প্রযুক্তির। এ দেশের মহাকাশ বিজ্ঞানীরা গোঁ ধরে বসেছিলেন, তাঁরাই প্রযুক্তির উদ্ভাবন করবেন। সেই প্রযুক্তিই বিশ্ব-সেরা হবে বলে তাঁদের ধারণা। তাই তাঁরা আউটসোর্সিংয়ের ভাবনাটাকে বরাবরই দূরে সরিয়ে রাখতে চেয়েছেন।
২০১৮ সালের জুলাই মাসেই প্রায় ১৩ টনের ক্রু মডিউল প্যাড অ্যাবোর্ট পরীক্ষা করা হয়। যাতে উৎক্ষেপণের সময় দুর্ঘটনার কবলে পড়লে বাঁচানো সম্ভব হয় তিন মহাকাশচারীকে। এ ব্যাপারে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল, এমন একটা মহাকাশযান তৈরি, যা মহাশূন্যে অনেকটা ওজন বহনে সক্ষম। মানববহনকারী মহাকাশযানকে অতিরিক্ত ৫ থেকে ৬ টন ওজন বহন করতে হবে। ইসরোর প্রধান উৎক্ষেপণযান পিএসএলভি, যা চন্দ্রযান ও মঙ্গলযান মিশনে ব্যবহৃত হয়েছিল, তা খুব বেশি হলে ২ টন ওজন বহনে সক্ষম, এবং তাও পৃথিবীর ৬০০ কিলোমিটারের মধ্যে। সেই কারণেই প্রস্তুতি চলছে ‘জিএসএলভি এমকে-থ্রি’- এর। যে উৎক্ষেপণযান মহাকাশের বেশি গভীরে, বেশি ওজনের মহাকাশযান উৎক্ষেপণ করতে পারবে। ইসরোর দাবি, এই অভিযান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে দেশকে নতুন দিশা দেবে। কৃষি থেকে শুরু করে ওষুধ তৈরি কিংবা দূষণ নিয়ন্ত্রণেও এই অভিযান থেকে বিপুল তথ্য পাওয়া যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।
সামরিক ও মহাকাশ প্রযুক্তিতে আজকের দুনিয়ায় নিজেদের অবস্থান জানান দেওয়া গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হয়ে উঠেছে। আগে আমেরিকা ও রাশিয়া এক্ষেত্রে নিজেদের অগ্রগতি দেখালেও এখন চীনও অনেক এগিয়েছে। ভারতও হাত গুটিয়ে বসে নেই। শুধু ২০১৮-র কথাই ধরুন। ৩০টি সহযাত্রী উপগ্রহ-সহ গত বছর ১২ জানুয়ারি ইসরোর ৭১০ কেজির কার্টোস্যাট-২ রিমোট সেন্সিং উপগ্রহ সফলভাবে উৎক্ষেপণ করা হয়। ২০১৮-র ২৯ মার্চ জিস্যাট-৬এ উপগ্রহ জিওসিনক্রোনাস ট্রান্সফার কক্ষে উৎক্ষেপণ করা হয়। জিস্যাট-৬এ একটি সংযোগমূলক উপগ্রহ, যেটি মোবাইল সংযোগ পরিষেবায় সাহায্য করে থাকে। ১২ এপ্রিল ১,৪২৫ কেজির আইআরএনএসএস-২ উপগ্রহ সফলভাবে উৎক্ষেপণ করা হয়। ১৬ সেপ্টেম্বর উৎক্ষেপণ করা হয় দুটি উপগ্রহ নোভাসার এবং এস১-৪। ২৯ নভেম্বর ভূ-পর্যবেক্ষণের জন্য দেশের একটি শক্তিশালী উপগ্রহ ‘হাইসিস’-সহ ৩০টি বিদেশি উপগ্রহকে মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হয়। ৫ ডিসেম্বর ইসরোর সবথেকে ভারী এবং প্রযুক্তিগতভাবে সবচেয়ে উন্নত সংযোগমূলক উপগ্রহ জিস্যাট-১১টি উৎক্ষেপণ করা হয়। ১৯ ডিসেম্বর সংযোগমূলক উপগ্রহ জিস্যাট-৭এ সফলভাবে উৎক্ষেপণ করে ইসরো। যাকে বলা হচ্ছে ইসরোর ‘অ্যাংরি বার্ড’। ভারতীয় বায়ু সেনার হাতে থাকা অত্যাধুনিক ক্ষেপণাস্ত্র, ড্রোন ও যুদ্ধ বিমানের নিয়ন্ত্রণে বিশেষভাবে সাহায্য করবে এই উপগ্রহ। একে সাফল্য বলবেন না? শুধু তাই-ই নয়! চলতি বছরে আরও ৩২টি মহাকাশ অভিযান চালাবে বলে জানিয়েছে ইসরো। ‘২০১৯ সাল ইসরোর কাছে একটা চ্যালেঞ্জিং বছর।’ সহকর্মীদের নতুন বছরের বার্তায় বলেছেন ইসরো প্রধান কে শিভান। কারণ, এ বছরই রয়েছে ‘চন্দ্রযান-২’-এর মতো গুরুত্বপূর্ণ অভিযান।
মহাকাশ-চর্চায় ভারতের সাফল্যে স্যালুট জানাচ্ছে গোটা দুনিয়া। ইউরোপ, আমেরিকা থেকে প্রতিবেশী চীন—বিশ্বের প্রধান শক্তিধর রাষ্ট্রগুলোর সংবাদমাধ্যমে এখন ইসরোর সাফল্যের চর্চা। ২০১৭-র ফেব্রুয়ারিতে রেকর্ড সৃষ্টি করে একসঙ্গে ১০৪টি স্যাটেলাইট মহাকাশে পাঠায় ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো। যেভাবে ভারত মহাকাশভিত্তিক নজরদারি ও যোগাযোগ স্থাপনের বাণিজ্যিক ক্ষেত্র দখল করছে, তা প্রশংসার দাবিদার বলে জানিয়েছে বিশ্বের সবক’টি প্রধান সংবাদমাধ্যম। মহাকাশ চর্চায় বাণিজ্যিক ক্ষেত্রের দখল এখন ভারতের হাতে। তুলনামূলক অনেক কম খরচে অন্য দেশের স্যাটেলাইট মহাকাশে পাঠানোর ভূমিকায় ভারত উল্লেখযোগ্য স্থান দখল করেছে বলে লিখেছে ওয়াশিংটন পোস্ট। নিউ ইয়র্ক টাইমসের কথায়, একবারেই আগের রেকর্ডের তিনগুণ বেশি সংখ্যক স্যাটেলাইট মহাকাশে পাঠিয়ে ভারত যে রেকর্ড গড়েছে, তাতে তার ভূমিকাকে অস্বীকার করা যায় না। সিএনএন-এর মতে, ‘আমেরিকা বনাম রাশিয়ার মহাকাশ যুদ্ধ এখন অতীত। মহাকাশের আসল লড়াই চলছে এশিয়াতেই।’ ভারত এখন মহাকাশ গবেষণার এলিট গ্রুপে ঢুকে পড়েছে বলে জানিয়েছে লন্ডনের টাইমস পত্রিকা। একই কথা বলতে বাধ্য হচ্ছে চীনের সংবাদমাধ্যমও।
আর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলছেন, ‘ঘুমন্ত হাতি’ ভারত এখন দৌড়াচ্ছে, গোটা বিশ্ব সেই দৌড় দেখছে।
11th  January, 2019
নেতাজির জন্যই ভারত ছেড়েছিল ইংরেজ
পিনাকী ভাদুড়ী

গত অক্টোবরে আজাদ হিন্দ সরকারের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠানে এই প্রথম কোনও প্রধানমন্ত্রী লালকেল্লায় ইতিহাসকে স্মরণ করে আজাদ হিন্দ সরকারকে সম্মানিত করেছেন। এর প্রতিক্রিয়া দু’রকম। কেউ বলেছেন, বিষয়টা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত, সম্ভবত আসন্ন নির্বাচনী প্রচারের প্রস্তুতি।
বিশদ

নেতাজির তুলনা একমাত্র নেতাজি সুভাষ
জয়ন্ত চৌধুরী 

তাঁর জীবনরহস্য সমুদ্রের মতোই গভীর, অর্ধগোলক ব্যাপী কর্মকাণ্ডের উত্তাল সংগ্রাম মুক্তিচেতনায় ঋদ্ধ। এমন নক্ষত্রসম মহাজীবনের সান্নিধ্য পাওয়া যে কোনও জাতির পক্ষেই দুর্লভ ও চিরকালীন গৌরবের উত্তরাধিকার।
বিশদ

22nd  January, 2019
বছরের গোড়ায় পরিস্থিতি বিচার
পি চিদম্বরম

বড়দিন-ইংরেজি নববর্ষ-পোঙ্গল-মকরসংক্রান্তির ছুটি এবং উৎসব অনুষ্ঠান কঠোর পরিশ্রমী ভারতবাসীকে অবশ্যই চাঙ্গা করেছে (ব্যতিক্রম সংসদ সদস্যগণ, যাঁদেরকে ওইরকম কিছুদিনেও কাজে ব্যস্ত থাকতে হয়েছে)। নতুন বছরটা কার্যকরীভাবে শুরু হয়েছে ১৫ জানুয়ারি থেকে।
বিশদ

21st  January, 2019
মমতার মহাজোট: শনিবারের ব্রিগেড কি মোদিজির চিন্তা বাড়িয়ে দিল? 
শুভা দত্ত

যাকে বলে একেবারে নক্ষত্র সমাবেশ। জনপ্লাবনে উদ্বেল শনিবারের ব্রিগেড ছিল প্রকৃত অর্থেই তারায় তারায় খচিত। আর সেই তারা ভরা ব্রিগেডে অবিসংবাদিতভাবেই মধ্যমণি ছিলেন মহাতারকা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বাংলার মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতার ডাকেই দেশের উত্তর দক্ষিণ পূর্ব পশ্চিম থেকে মোদি-বিরোধী নেতানেত্রীরা শনিবার সমবেত হয়েছিলেন কলকাতার ব্রিগেড সভায়। 
বিশদ

20th  January, 2019
রাফাল নিয়ে বিতণ্ডা ভারতের জন্য সুখকর নয়
মৃণালকান্তি দাস

মঞ্চে ১৪টি বিরোধী দলের কর্মীদের সঙ্গে কংগ্রেসের তাবড় তাবড় নেতারা। হাত ধরে প্রতিবাদে ফেটে পড়ছেন প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে। তারই মাঝে উড়ছে রাফাল। তাতে সওয়ার নরেন্দ্র মোদি ও অমিত শাহ। দিল্লির জনসভা থেকে দাবি উঠল, ‘রাফালে ১ লক্ষ ৩০ হাজার কোটি টাকার দুর্নীতির পর সংসদ ভবনে বসার অধিকার হারিয়েছে মোদি সরকার।’
বিশদ

19th  January, 2019
গরিবের সন্ধানে
সমৃদ্ধ দত্ত

 ভারতের প্রতিটি সরকার গরিব খোঁ‌জার চেষ্টা করে। স্বাধীনতার পর ৭০ বছর ধরে সবথেকে কঠিন যে অঙ্ক প্রতিটি সরকার কষে চলেছে সেটি হল গরিবের সংজ্ঞা কী? কাকে বলে গরিব? এটাই জানা যাচ্ছে না। বিশদ

18th  January, 2019
পরিবেশের আনুকূল্যেই কেবল সফল হতে পারে জিন এডিটিং
মৃন্ময় চন্দ

বিশ্বে প্রথম ‘জিন এডিটিং’ করে জন্মানো দুই যমজ কন্যাসন্তান—লুলু-নানা। চীনের শেনঝেন শহরের সাদার্ন ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানী ‘হে জিয়ানকুই’ জিন সম্পাদনা করে দুই যমজ সন্তানকে পৃথিবীর আলো দেখিয়েছেন। বাবা-মার সূত্রে দু সন্তানের নাকি সম্ভাবনা ছিল এইডসে আক্রান্ত হওয়ার।
বিশদ

17th  January, 2019
নলজাতক কৌরব ও চিকিৎসক সুভাষ মুখোপাধ্যায়
শুভময় মৈত্র

শুরুতেই বলে নেওয়া ভালো যে প্রতি ইংরেজি বছরের শুরুতে ভারতে যে জাতীয় বিজ্ঞান সম্মেলন (ইন্ডিয়ান সায়েন্স কংগ্রেস) হয় তা আজকের দিনে অত্যন্ত সাধারণ মানের। ‘সম্পূর্ণ নিম্নমানের’ কথাটা ব্যবহার করা ঠিক হবে না।  
বিশদ

15th  January, 2019
‘প্রায় সব ভারতবাসীই গরিব’
পি চিদম্বরম

 কাউন্টডাউন শুরু হয়ে গিয়েছে। আপাতভাবে, ওটাই নরেন্দ্র মোদির সরকারের মত। এই মতের পক্ষে সমর্থনের স্পষ্টতা রোজ বাড়ছে। সেই স্পষ্টতার সর্বশেষ নিদর্শন পাওয়া গেল তড়িঘড়ি সংবিধান (১২৪তম সংশোধন) বিলের খসড়া তৈরি (৭ জানুয়ারি) এবং তা সংসদে পাশ (৯ জানুয়ারি) হয়ে যাওয়ার মধ্যে।
বিশদ

14th  January, 2019
মমতার নেতৃত্ব ছাড়া বিরোধীদের
লোকসভা জয়ের স্বপ্ন সফল হবে?
শুভা দত্ত

তিন রাজ্যের ভোটে ভালো ফল করার পর যে জাতীয় স্তরে কংগ্রেস ফের খানিকটা চাঙ্গা হয়ে উঠেছে তাতে সন্দেহ নেই। লোকসভার ভিতরে বাইরে তাদের নেতা রাহুল গান্ধীর কথাবার্তা ও শরীরী ভাষাতেও সেটা পরিষ্কার। বিশেষ করে রাফাল যুদ্ধবিমানের বরাত নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারামনের সঙ্গে তাঁর বাগ্‌যুদ্ধ এবং উভয়পক্ষের মধ্যে ব্যঙ্গ-বিদ্রুপের তরজায় এখন কংগ্রেস সভাপতি রাহুলকেই যেন অপেক্ষাকৃত ধারালো, তরতাজা দেখাচ্ছে!
বিশদ

13th  January, 2019
তিন তালাক বিল অমানবিক ও বৈষম্যমূলক
শামিম আহমেদ

রাজ্যসভার শীতকালীন অধিবেশন ৯ জানুয়ারি শেষ হল, তিন তালাক বিল লোকসভায় পাশ হলেও রাজ্যসভায় হল না। বিরোধীরা বিলটিকে সিলেক্ট কমিটিতে পাঠানোর দাবিতে অনড় রইল।
বিশদ

12th  January, 2019
মমতার ব্রিগেডে মিলতে পারে
অনেক রাজনৈতিক প্রশ্নের উত্তর
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

১৯ জানুয়ারি তৃণমূলের ব্রিগেড সমাবেশের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে এ-রাজ্যে লোকসভা নির্বাচনের প্রচার শুরু হয়ে যাবে। এরপর ৩ ফেব্রুয়ারিতে বামেদের সমাবেশ রয়েছে ব্রিগেডে। বিজেপি ৭ ফেব্রুয়ারি ব্রিগেড সমাবেশের কথা ঘোষণা করলেও, ‘গণতন্ত্র বাঁচাও যাত্রা’ আটকে পড়ায়, ২৯ জানুয়ারি নরেন্দ্র মোদিকে সামনে রেখে ব্রিগেডে সমাবেশ করার কথা নতুন করে ভাবছে।
বিশদ

10th  January, 2019
একনজরে
সংবাদদাতা, ঝাড়গ্রাম: গোরু চরানো নিয়ে বচসার জেরে এক ব্যক্তিকে কুড়ুল দিয়ে মেরে খুন করার অভিযোগ উঠেছে। সোমবার সাঁকরাইল থানার রগড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের শিমুলিয়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় পুলিস অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে।  ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: হাজরা মোড়ের চিত্তরঞ্জন ন্যাশনাল ক্যান্সার ইনস্টিটিউট (সিএনসিআই)-এর কাছ থেকে যাবতীয় খরচের ইউটিলাইজেশন সার্টিফিকেট (ইউসি) চেয়ে পাঠাল রাজ্য সরকার। সম্প্রতি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিল সেখানকার কাজকর্মের নজরদারিতে তৈরি রাজ্য সরকারের কমিটি। ...

লখনউ, ২২ জানুয়ারি: ভোটের অঙ্ক ঠিক রাখতেই কংগ্রেসকে বাইরে রেখে উত্তরপ্রদেশে জোট বেঁধেছে সমাজবাদী পার্টি (এসপি) এবং মায়াবতীর বহুজন সমাজপার্টি (বিএসপি)। এক সাক্ষাৎকারে এমনটাই জানিয়েছেন সমাজবাদী পার্টির প্রধান অখিলেশ যাদব।  ...

গজনি, ২২ জানুয়ারি (এএফপি): তালিবান আক্রমণে আফগানিস্তানে মৃত্যু হল ৬৫ জনের। সোমবার আফগানিস্তানের গোয়েন্দা ঘাঁটিতে আক্রমণ চালায় জঙ্গিরা। প্রাথমিকভাবে ১২ জনের মৃত্যুর কথা জানানো হয়।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

আত্মীয়স্বজন, বন্ধু-বান্ধব সমাগমে আনন্দ বৃদ্ধি। চারুকলা শিল্পে উপার্জনের শুভ সূচনা। উচ্চশিক্ষায় সুযোগ। কর্মক্ষেত্রে অযথা হয়রানি। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৯৪- সাহিত্যিক জ্যোতির্ময়ীদেবীর জন্ম
১৮৯৭- মহাবিপ্লবী নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্ম
১৯২৬- শিবসেনার প্রতিষ্ঠাতা বাল থ্যাকারের জন্ম
১৯৩৪- সাংবাদিক তথা ‘বর্তমান’ এর প্রাণপুরুষ বরুণ সেনগুপ্তর জন্ম
১৯৭৬- গায়ক পল রোবসনের মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৩৯ টাকা ৭২.০৯ টাকা
পাউন্ড ৯০.১০ টাকা ৯৩.৫৪ টাকা
ইউরো ৭৯.৫৪ টাকা ৮২.৫৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩২,৯০৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩১,২২০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩১,৬৯০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৯,০০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৯,১০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৯ মাঘ ১৪২৫, ২৩ জানুয়ারি ২০১৯, বুধবার, তৃতীয়া ৪৪/২ রাত্রি ১১/৫৯। নক্ষত্র- মঘা ৩৬/০ রাত্রি ৮/৪৭, সূ উ ৬/২২/২৭, অ ৫/১৪/১৭, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৮ মধ্যে পুনঃ ১০/০ গতে ১১/২৬ মধ্যে পুনঃ ৩/৪ গতে ৪/৩০ মধ্যে। রাত্রি ৬/৭ গতে ৮/৪৫ মধ্যে পুনঃ ২/০ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ঘ ৯/৫ গতে ১০/২৬ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৭ গতে ১/৯ মধ্যে, কালরাত্রি ঘ ৩/৬ গতে ৪/৪৪ মধ্যে।
৮ মাঘ ১৪২৫, ২৩ জানুয়ারি ২০১৯, বুধবার, দ্বিতীয়া প্রাতঃ ৬/৫৪/১৬ পরে তৃতীয়া রাত্রিশেষ ৪/৩৪/৪৮। মঘানক্ষত্র রাত্রি ১/১৫/৩৪। সূ উ ৬/২৪/৫০, অ ৫/১১/৩৪, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৭/৫১/৪ মধ্যে ও ঘ ১০/০/২৫ থেকে ১১/২৬/৩৯ মধ্যে ও ৩/২/১৪ থেকে ৪/২৮/২৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৪/২৭ থেকে ৮/৪৩/৬ মধ্যে ও ২/০/২৪ থেকে ৬/২৪/৩১ মধ্যে। বারবেলা ১১/৪৮/১২ থেকে ১/৯/৩ মধ্যে, কালবেলা ৯/৬/৩১ থেকে ১০/২৭/২২ মধ্যে, কালরাত্রি ৩/৬/৩১ থেকে ঘ ৪/৪৫/৪০ মধ্যে। আজ নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর ১২৩তম জন্মদিবস
 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ডালখোলায় তৃণমূল কর্মী খুন 
উত্তর দিনাজপুরের ডালখোলার হাসান এলাকায় দুষ্কৃতীদের গুলিতে প্রাণ গেল এক ...বিশদ

10:41:54 AM

প্রথম ওয়ান ডে: ১৫৭ রানে অল আউট নিউজিল্যান্ড 

10:24:23 AM

শহরে ট্রাফিকের হাল 
আজ, বুধবার সকালে শহরের রাস্তাঘাটে যান চলাচল মোটের উপর স্বাভাবিক। ...বিশদ

10:08:36 AM

প্রথম ওয়ান ডে: নিউজিল্যান্ড ১৪৬/৬ (৩২ ওভার) 

09:59:49 AM

নির্বাচকদের ২০ লক্ষ টাকা বোনাস দেবে বিসিসিআই
বিসিসিআই ভারতীয় সিনিয়র ক্রিকেট দলের তিন নির্বাচককে সফল দল চয়নের ...বিশদ

09:42:28 AM

  ফের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে চান অশোক
ফের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করতে চান শিলিগুড়ি পুরসভার ...বিশদ

09:40:00 AM