Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

বছর শেষের ভাবনা
শুভা দত্ত

আবার একটা আনকোরা নতুন বছর এসে গেল। কাল মধ্যরাত পেরতেই শুরু হয়ে যাবে নতুন ইংরেজি বছর ২০১৯। কীভাবে যে আজকাল সময় চলে যায়! একটা গোটা বছর যেন চোখের কয়েকটা পলক মাত্র! তাই বুঝি আজ বছর শেষের দোরগোড়ায় এসে মনে হচ্ছে—এই তো সেদিন ২০১৮ এল! ডিসেম্বরের শেষ রাতে ঘড়ির কাঁটা বারোটা ছুঁতেই কত বাজি পুড়ল, গির্জায় ঘণ্টা বাজল, প্রার্থনার রব উঠল, মানুষ রাতের ঘুম ভুলে পার্ক স্ট্রিট থেকে বউবাজারের বো-ব্যারাক, কাকদ্বীপ থেকে কালিম্পং গোটা রাজ্য মাতিয়ে বেড়ালো, খানাপিনা হইহুল্লোড় আর আলোর রোশনাইতে ঝলমলে রাতের মহানগরী ইংরেজি নববর্ষকে স্বাগত জানাতে ভোর অব্দি ভেসে গেল উৎসবমুখর মানুষের স্রোতে। আর টিভির চ্যানেলগুলোতে দেশ রাজ্যের সঙ্গে লন্ডন শিকাগো প্যারিস নিউইয়র্ক ভ্যাটিকান বেইজিং— সারা পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তের বর্ষবরণের রঙিন উন্মাদনার অজস্র টুকরো ছবি বর্ষবরণের সেই আনন্দকে যেন রূপকথার মতো মায়াবী মোহময় করে দিয়ে গেল। তারপর এক দুই করে কেটে বারোটা মাস পার! ঘটনা-দুর্ঘটনা, ক্ষোভ-বিক্ষোভ, অশান্তি-উত্তেজনা, সংশয়-চিন্তায় ঠাসা বারো মাস! কিন্তু, কী আশ্চর্য— মনে হচ্ছে এই তো সেদিন গেল পয়লা জানুয়ারি!
এ কেবল কথার কথা নয়। অনেকেই আজকাল এই আক্ষেপ করেন— সময় হারানোর আক্ষেপ! সময় পাচ্ছি না ভাই, কোথা দিয়ে যে সময় যাচ্ছে বুঝতেই পারছি না, কাজকর্ম ডাঁই হয়ে আছে, সময় বেঁধে শুরু করলাম কিন্তু কাজের মাঝপথেই দেখি সময় হাওয়া! পথেঘাটে অফিস-কাছারিতে মায় ঘরসংসারের অন্দরেও এই আক্ষেপ অহরহ বাজছে, একটু কান পাতলেই শোনা যায়! কিন্তু, এমনটা হচ্ছে কেন? সত্যিই কি সময়ের গতি বেড়ে গেছে? এসব নিয়ে যাঁরা চর্চা করেন সেই বিশেষজ্ঞরা অনেকে বলছেন, সময়ের গতি বাড়েনি, বেড়েছে মানুষের কাজের মাত্রা, চাপের বহর আর সাধ্যের তুলনায় অনেক বেশি ব্যাপারে যুক্ত থাকার প্রবণতা। সারাদিন সবদিক সামাল দিতে মানুষকে এখন চড়কিপাক খেতে হয়। আর সেই পাকের সঙ্গে তাল রাখতে অনেক ক্ষেত্রেই এক ঘণ্টার কাজ আধ ঘণ্টায় সারতে হচ্ছে। তা করতে গিয়ে যখন কাজ ফুরোচ্ছে না, তখনই মনে হচ্ছে সময় পালিয়ে গেল! ব্যস্ততাই আমাদের জীবনে সময়কে ক্রমশ ধরাছোঁয়ার বাইরে নিয়ে যাচ্ছে। আর তাই দশ বারো দিন কি বারো মাস আগের ঘটনাও অনেক সময় মনে হচ্ছে এই তো সেদিন! হয়তো তাই, কিন্তু মনে যে হচ্ছে তাতে সন্দেহ নেই।
তবে সময়ের গতি যাই হোক কাল রাত পোহাতেই আর একটা নববর্ষ। ইংরেজি ২০১৯ শুরু। শুধু তাই নয়, দেশ রাজ্যের ভবিষ্যতের বিচারে এই নববর্ষের গুরুত্ব এবার বিগতের তুলনায় কিছু বেশিই বলা চলে। কারণ এটা ভোটবছর, দেশের ক্ষমতার মসনদ দখলের রাজনৈতিক মহাসংগ্রামের বছর। এবছরের মাঝামাঝি লোকসভার ভোটযুদ্ধে সেই মসনদ দখলের ফয়সালা হবে। তার জন্য অবশ্য ইতিমধ্যেই শাসক বিজেপি থেকে শুরু করে কংগ্রেস তৃণমূল সমেত বিরোধী শিবিরের প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেছে। দেশের রাজনৈতিক মহলগুলোতে একটা সাজো সাজো রবও উঠেছে। এমন পরিস্থিতিতে বছরের শুরুটা, কেবল শুরুটা কেন সারা বছরটাই দেশ ও দশের জন্য যে বিশেষ মাহাত্ম্যপূর্ণ—তাতে সন্দেহ কী? দেশের লাখ কোটি মানুষের আশা ভরসা প্রত্যাশা পূরণের নতুন স্বপ্ন যাঁদের ঘিরে তৈরি হয়েছে জনাদেশ তাঁদের পক্ষেই যাবে। তাঁরাই আসন্ন ভোটযুদ্ধে জয়যুক্ত হবেন, দেশ চালানোর অধিকার দখল করবেন। কিন্তু, মসনদে বসার পর তাঁরা মানুষের সেই প্রত্যাশা পূরণে কতটা উদ্যোগী হবেন সেটাই তো বড় কথা। এই ভোটবছরে তার আঁচও মিলবে। সুশাসন, মূল্যবৃদ্ধি রোধ, বেকার সমস্যা সমাধান, দুর্নীতি দমন, কালো টাকা উদ্ধারের মতো উদ্যোগের পাশাপাশি দেশের সার্বিক উন্নয়নে তাঁরা কতটা উৎসাহী—বোঝা যাবে ভোটফল প্রকাশ ও নতুন মন্ত্রিসভার শপথ গ্রহণের পরবর্তী ছমাসেই। এবং সেজন্য, বলা বাহুল্য, আর পাঁচটা বছরের চেয়ে আসন্ন বছরটা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে।
শুধু কি তাই? দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতির বিচারে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের অনেকেই মনে করছেন দিল্লিতে পালাবদলের সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। তাঁদের বক্তব্য, ২০১৪ সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও তাঁর দল বিজেপির কার্যকলাপ দেশের আমজনতাকে সন্তুষ্ট করতে পারেনি। বরং, অনেক ক্ষেত্রেই গেরুয়া বাহিনীর ক্রিয়াকলাপ ও কেন্দ্রের সিদ্ধান্তে আশাহত হয়েছেন দেশজনতা। গোরক্ষা, জাতীয়তাবাদ নিয়ে খুনোখুনি ঝামেলা, নোটবন্দি, জিএসটি রূপায়ণে এক ধরনের দিশাহীনতা, রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা উধাও করা দুর্নীতির ব্যাপারে ধীরে চলার নীতি এবং সেইসঙ্গে লাগাতার মূল্যবৃদ্ধি দেশের মানুষের মধ্যে আশাভঙ্গের যে যন্ত্রণা তৈরি করেছে তার প্রভাব আসন্ন লোকসভা ভোটে ভালোই পড়বে বলেই মনে করছেন ওঁরা। তার ওপর দেশের গরিব কৃষক মজদুর শ্রেণীর মানুষজনের জীবনেও বিশেষ কোনও উন্নতি ঘটাতে পারেনি মোদিজির বিজেপি সরকার। সেখানেও বড় খামতি থেকে গেছে।
এখন এই ভোটের মুখে তাই কৃষক কল্যাণে কৃষিঋণ মকুবের জন্য তোড়জোড় শুরু হয়েছে দিল্লিতে। গরিবের অ্যাকাউন্টে কিছু টাকা ঢালার আয়োজনও হচ্ছে! কিন্তু, ভোটযুদ্ধের মুখে এইসব উদ্যোগ শেষ অব্দি ক্ষমতা দখলের লড়াইতে শাসককে কতটা সুফল দেবে তা নিয়ে যথেষ্ট ভাবিত শাসক বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব। পাঁচ রাজ্যের ভোটে বিজেপি পর্যুদস্ত হওয়ার পর এই ভাবনা যে আরও গাঢ়, আরও গভীর হয়েছে তাতে সন্দেহ কি?
তার ওপর আছে বিরোধীদের ক্রমশ শক্তিশালী হয়ে ওঠার ইঙ্গিত। পাঁচ রাজ্যের সাম্প্রতিক ভোটফলে কংগ্রেসের জয়জয়কার হয়েছে ঠিকই, তবে দেশের বাকি ২৪ রাজ্যের কটাতে রাহুল গান্ধীর কংগ্রেস এখনও সেই জয়জয়কার ধরে রাখার সামর্থ্য অর্জন করেছে তা নিয়ে রাজনৈতিক ভাষ্যকারদের একটা বড় অংশেরই সন্দেহ আছে। ২০১৪ সালের ভোট বিপর্যয়ের পর সবে তো ঘুরে দাঁড়ানোর প্রাথমিক লক্ষণটুকু দেখা গেছে মধ্যপ্রদেশ ছত্তিশগড় রাজস্থানে। ওই তিন রাজ্য তো আর গোটা ভারত নয়, বাংলার মতো রাজ্যও সেখানে আছে। সুতরাং, বিজেপি হটাতে জোট ছাড়া গতি নেই। আর নেই যে সেটা কংগ্রেসও জানে। তাই জোটের নেতা বা প্রধানমন্ত্রী মুখ বাছতে কংগ্রেসের অগ্রাধিকারও ছেড়েছে কংগ্রেস। তবে, রাজনৈতিক হাওয়া যা তাতে অকংগ্রেসি অবিজেপি মহাজোটের সম্ভাবনাই প্রকট হচ্ছে। সেক্ষেত্রে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে মধ্যমণি করে তেলেঙ্গানার চন্দ্রশেখর রাও বা অন্ধ্রের চন্দ্রবাবু নাইডুর মতো নেতারা যে ফেডারেল ফ্রন্ট তৈরি করেছেন তার দাপট আসন্ন লোকসভা ভোটে বহুগুণ বেশি হয়ে ধরা পড়বে বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। সে জন্যই নাকি মোদিজি ও তাঁর বিজেপি রাহুল কংগ্রেসের চেয়ে মমতার ফেডারেল ফ্রন্টকে অধিকতর সমীহ করতে শুরু করেছে। সেটাই স্বাভাবিক।
কংগ্রেস বিজেপিকে শাসক বাছলে তাঁরা কী করতে পারে, না পারে তা দেশের মানুষ দেখে নিয়েছেন। পাশাপাশি তাঁরা দেখছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর কী করে প্রায় একক চেষ্টায় সিপিএমের ফেলে যাওয়া রুগ্ন মুমূর্ষু হতশ্রী পশ্চিমবঙ্গকে সার্বিক উন্নয়নের আলোয় মাত্র কয়েক বছরের মধ্যে বিশ্ববাংলায় রূপান্তরিত করেছেন। মমতার সততা নিষ্ঠা আর অক্লান্ত পরিশ্রমী ভাবমূর্তিতে তাই আজ দেশের লাখ কোটি মানুষের পরম শ্রদ্ধা ও আস্থা। সেই শ্রদ্ধা আর আস্থার ওপর ভরসা করেই দিল্লিতে প্রথম বাঙালি প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন দেখছে বাংলা, দেখছে দেশের মানুষ। ২০১৯ সেই স্বপ্ন সার্থক হওয়ার বছর।
স্বপ্ন সফল হবে কি হবে না তা সময়ই বলবে। তবে, দেশের পরিস্থিতি যা, তাতে এই স্বপ্ন অসম্ভব বলে মনে করছেন না কেউই। কেন নয় সে কথা আগের অনেক কলমেই কমবেশি আলোচনা হয়েছে। আজ
এই উৎসবের দিনে রাজনীতির সেই জটিল অঙ্ক ফিরে না দেখে শুধু এটুকুই বলছি আমরা— মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্য দিল্লি আজ আর খুব বেশি
দূর নয়। এ রাজ্যের বিরোধীরা, বিশেষত সিপিএম কংগ্রেস এ কথা শুনে হয়তো টিপ্পনী কাটবে।
তবে, ২০১১ সালে ‘দোর্দণ্ডপ্রতাপ’, ‘৩৪ বছরের অজেয়’ সিপিএম লালদুর্গের মর্মান্তিক পতনের ইতিহাস স্মরণ করলে সে টিপ্পনী উধাও হয়ে তাঁদের নেতানেত্রীদের কপালে চিন্তার ভাঁজটাই মোটা হয়ে উঠবে—তা হলফ করেই বলা যায়। আসলে গ্রহণযোগ্যতা—মমতার গ্রহণযোগ্যতা আজ রাজ্যে যেমন সর্বাত্মক, ঠিক তেমনি ভিন রাজ্যেও। সুতরাং, এখানে বিরোধীরা তাঁকে লক্ষ্য করে যে কুৎসা কটুকাটব্যই করুন, যত বিদ্বেষই ছড়ান তাঁর বিরুদ্ধে—রাজ্যে তো বটেই, জাতীয় স্তরেও মমতার ওই গ্রহণযোগ্যতা স্পর্শ করতে পারবেন না! কারণ, দেশের জনদরবারে এই মমতা-বিরোধীদের গ্রহণযোগ্যতাই তো আজ প্রায় তলানিতে—কে বিশ্বাস করবে ওঁদের! এখন তাই দেখার—নববর্ষে লোকসভা ২০১৯ কী বলে। শুভ নববর্ষ।
30th  December, 2018
মোদিজির বালাকোট স্বপ্ন 

পি চিদম্বরম: গত ১০ মার্চ, রবিবার নির্বাচন কমিশন রণতূর্য বাজিয়ে দিল। সরকারকে শেষবারের মতো ‘ফেভার’ও করল তারা। নির্বাচন ঘোষণাটিকে সাধারণ মানুষ মুক্তির শ্বাসের মতো গ্রহণ করল: আর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের ঘটা নেই, আর অর্ডিন‌্যান্স নেই এবং নেই কিছু নড়বড়ে সরকারি স্কিমের বেপরোয়া সূচনা।  বিশদ

আধাসেনা নামিয়ে কি ভোটযুদ্ধে
মমতাকে ঘায়েল করা যাবে?

শুভা দত্ত 

রাজ্যে ভোটের হাওয়া গরম হচ্ছে। জেলায় জেলায় শাসক এবং বিরোধী—দুই শিবিরের প্রচারও একটু একটু করে গতি পাচ্ছে। মন্দিরে পুজো দিয়ে প্রার্থীদের অনেকেই নেমে পড়েছেন জনসংযোগে। দেওয়াল লেখাও চলছে জোরকদমে। ভোটপ্রার্থীদের সমর্থনে পোস্টার ব্যানার দলীয় পতাকাও দেখা দিতে শুরু করেছে চারপাশে।  
বিশদ

17th  March, 2019
তীব্র জলসঙ্কট হয় মানুষের কারণে
খেসারত দিতে হবে মানুষকেই 
মৃন্ময় চন্দ

নদী বিক্রি? আজব কথা, তাও কি হয় সত্যি? ছত্তিশগড় তখনও নয় স্বয়ংসম্পূর্ণ রাজ্য, কুলকুল করে বয়ে চলেছে ‘শেওনাথ’ নদী। ১৯৯৮ সালে মধ্যপ্রদেশ সরকার ২৩ কিমি দীর্ঘ ‘শেওনাথ’ নদীটিকে ৩০ বছরের লিজে হস্তান্তর করল স্থানীয় এক ব্যবসায়ীর কাছে।  বিশদ

16th  March, 2019
সংরক্ষণের রাজনীতি, রাজনীতির সংরক্ষণ 
রঞ্জন সেন

আগে ব্যাপারটা বেশ সহজ ছিল, সিপিএম, সিপিআই মানেই শ্রমিক-কৃষক- মধ্যবিত্তদের দল, কংগ্রেস উচ্চবিত্তদের দল, বিজেপি অবাঙালি ব্যবসায়ী শ্রেণীর দল। এই সরল শ্রেণীবিভাগ এখন অচল। বাম আমলে আমরা দেখেছি, টাটাদের মতো শিল্পপতিরাও বামেদের বেশ বন্ধু হয়ে গেছেন।   বিশদ

16th  March, 2019
সন্ত্রাসবাদীদের চক্রব্যূহে ফেঁসে
রয়েছেন ইমরান খান
মৃণালকান্তি দাস

২০১৩ সালে মার্কিন বাহিনীর ড্রোন হামলায় নিহত হয়েছিলেন পাকিস্তানি তালিবান কম্যান্ডার ওয়ালি-উর-রেহমান। প্রতিবাদে ফেটে পড়েছিলেন ইমরান খান। সেদিন ট্যুইট করে বলেছিলেন, ‘ড্রোন হামলায় শান্তিকামী নেতা ওয়ালি-উর-রেহমানকে হত্যার মাধ্যমে প্রতিশোধ, যুদ্ধ ও মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেওয়া হল যোদ্ধাদের। একদমই মানতে পারছি না।’
বিশদ

15th  March, 2019
অথ শ্রীমহাভারত কথা
গৌরী বন্দ্যোপাধ্যায়

আবার এক মহাভারত যুদ্ধ সমাগত। রণবাদ্য বাজিয়ে যুদ্ধের দিনক্ষণ ঘোষিত হয়েছে, আকাশে-বাতাসে সেই যুদ্ধের বার্তা ভাসছে, প্রস্তুতি চলছে নানা স্তরে, সর্বত্র সাজ সাজ রব উঠে গেছে। বাদী, সম্বাদী, বিবাদী সব দলই নানা উপায়ে নিজেদের শক্তি বৃদ্ধি করে চলেছে। সাম, দান, দণ্ড, ভেদাদি প্রতিটি উপায়ই সমাজের নানা স্তরে নানাভাবে পরীক্ষিত হচ্ছে।
বিশদ

14th  March, 2019
ভোটজয়ে যুদ্ধের ভাবাবেগের একাল সেকাল
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

 পুলওয়ামার ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ভারতীয় বিমান বাহিনীর প্রত্যাঘাত এবং পাকিস্তানের এফ-১৬ বিমানের আক্রমণ প্রতিহত করা, কোনও শর্ত ছাড়াই উইং কমান্ডার অভিনন্দনকে পাকিস্তানের খপ্পর থেকে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে মুক্ত করে এনে ভারত যে শৌর্যের প্রদর্শন করেছে তা বিরাট গর্বের।
বিশদ

12th  March, 2019
গোঁফ দিয়ে যায় চেনা?
অতনু বিশ্বাস

 উইং কম্যান্ডার অভিনন্দনের অকুতোভয় সাহসিকতা আর কর্তব্যনিষ্ঠায় মোহিত ভারতবাসী। তারা খুঁজতে চায় সেই রসায়নের গূঢ় তত্ত্ব। সুকুমারী দুনিয়ার হেড অফিসের বড়বাবু তো সেই কবেই বলেছেন, গোঁফ দিয়েই নাকি চেনা যায় আমাদের সব্বাইকে। তবু, ছেলেবেলা থেকে এনিয়ে সন্দেহ আমার পুরোদস্তুর।
বিশদ

12th  March, 2019
যুদ্ধ বনাম শান্তি এবং বাঙালি মগজের অবস্থান
 

শুভময় মৈত্র: সকালবেলা দুধের ডিপোয় গভীর আলোচনা। পলিথিনবন্দি দুশো গ্রাম দই আর পাঁচশো মিলিলিটার গুঁড়ো গোলা দুধ কিনতে গিয়ে মহা বিপদে পড়তে হল। একটু আধটু লিখি সেকথা যাঁরা জানেন তাঁরা ঘিরে ধরে বললেন যে যুদ্ধ নিয়ে লিখুন যত খুশি, তবে নিজের মাথা বিক্রি করে নয়। অর্থাৎ বক্তব্য খুব পরিষ্কার। যুদ্ধের পক্ষে বা বিপক্ষে যাই লিখুন না কেন, সেটার পিছনে যেন নিজের ধান্দা না থাকে।   বিশদ

11th  March, 2019
জাতীয়তা-বিরোধী সংবাদপত্র! 

পি চিদম্বরম: রাফাল বিতর্ক থামবে না! পুলওয়ামায় জঙ্গিহামলা এবং অতঃপর ভারতীয় বায়ুসেনার প্রত‌্যাঘাতের কারণে বিতর্কটা যদি যবনিকার আড়ালে চলে গিয়ে থাকে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিই সেটাকে মঞ্চের মাঝখানে এনে ফেলেছেন প্ররোচনামূলক মন্তব‌্য করে—‘‘আমাদের যদি রাফাল যুদ্ধবিমান থাকত ...।’’  বিশদ

11th  March, 2019
মমতার নামে কুৎসা করে
বাংলার ভোট জেতা যাবে?
শুভা দত্ত

 কুৎসা ছাড়া কী? মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দেশপ্রেমিক নন! তিনি সেনার মর্যাদা গৌরব বোঝেন না! তিনি পাকিস্তানের হয়ে কথা বলছেন! এসব কুৎসা ছাড়া কী? আমাদের রাজ্যে তো বটেই, গোটা দেশেও কি কেউ এক মুহূর্তের জন্য বিশ্বাস করবে এইসব? এমনকী মমতার অন্ধ বিরোধীরাও কি এমন কথা মানবে?! অসম্ভব।
বিশদ

10th  March, 2019
মিথ্যা‌ই সত্য
সমৃদ্ধ দত্ত

 এই যে কোনও আধুনিক সভ্যতার উপকরণ নির্মাণেই আমরা পশ্চিমি দেশের সঙ্গে পাল্লা দিতে পারছি না এটাই কি শেষ কথা? ভারত কি সত্যিই কোনও আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ডিং-এই এক নম্বর নয়? এটা ভুল ধারণা। আমরা এক নম্বর স্থান পেয়েছি একটি আন্তর্জাতিক ইস্যুতে। সেটি হল ফেক নিউজ।
বিশদ

08th  March, 2019
একনজরে
 বাপ্পাদিত্য রায়চৌধুরী, কলকাতা: কেন্দ্রীয় বাণিজ্য মন্ত্রক গোটা দেশের প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগের তথ্য প্রকাশ করেছে। তাতে দেখা যাচ্ছে, দু’বছরেরও কম সময়ে বিদেশি বিনিয়োগের অঙ্ক ২৫ গুণ বাড়িয়ে নিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ। ...

সংবাদদাতা, রানাঘাট: ভোটার তালিকায় অবৈধভাবে দু’জনের নাম তোলার অভিযোগে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে হাঁসখালি থানার শিবচন্দ্রপুর এলাকায়। পঞ্চায়েত প্রধানের দেওয়া শংসাপত্র নকল করে ও ভুয়ো বাবা সাজিয়ে ভারতীয় নাগরিকত্বের প্রমাণপত্র বানিয়ে দেওয়ারও অভিযোগ উঠেছে খোদ বিএলও-র (বুথ লেভেল অফিসার) বিরুদ্ধে।   ...

 তিরুপতি, ১৭ মার্চ (পিটিআই): রবিবার ভোরে তিরুমালার বেঙ্কটেশ্বর মন্দির চত্বর থেকে এক দম্পতির তিন মাসের বাচ্চা চুরি হয়েছে। তামিলনাড়ুর ভিল্লুপুরমের বাসিন্দা এই দম্পতি যখন ঘুমিয়ে ছিলেন, তখনই তাঁদের শিশুটি চুরি হয়। গত তিন বছর ধরেই এই দম্পতি এখানে গলার হার, ...

  সংবাদদাতা, বসিরহাট: লেভেল ক্রসিংয়ের সমস্যায় জেরবার বসিরহাটের মানুষ। লেভেল ক্রসিংয়ে আটকে দুর্ভোগে পড়তে হয় নিত্যযাত্রী থেকে স্কুল পড়ুয়া সকলকেই। নাজেহাল হতে হয় রোগী ও রোগীর পরিবারকেও। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মপ্রার্থীদের ক্ষেত্রে শুভ। যোগাযোগ রক্ষা করে চললে কর্মলাভের সম্ভাবনা। ব্যবসা শুরু করলে ভালোই হবে। উচ্চতর ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৩৭- প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট গ্রোভার ক্লিভল্যান্ডের জন্ম
১৯০১- সাহিত্যিক ও পরিচালক শৈলজানন্দ মুখোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৩৯- প্রাক্তন ইংরেজ ফুটবলার রন অ্যাটকিনসনের জন্ম
১৯৭৪- কবি বুদ্ধদেব বসুর মৃত্যু 

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৮.৪৮ টাকা ৭০.১৭ টাকা
পাউন্ড ৯০.২২ টাকা ৯৩.৫০ টাকা
ইউরো ৭৭.৪০ টাকা ৭৯.৯৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
16th  March, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩২, ৪৭০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩০, ৮০৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩১, ২৬৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮, ০৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮, ১৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
17th  March, 2019

দিন পঞ্জিকা

৩ চৈত্র ১৪২৫, ১৮ মার্চ ২০১৯, সোমবার, দ্বাদশী ২৯/৫১ সন্ধ্যা ৫/৪৪। অশ্লেষা ৩৯/৫৭ রাত্রি ৯/৪৬। সূ উ ৫/৪৭/৫, অ ৫/৪২/৫২, অমৃতযোগ দিবা ৭/২১ মধ্যে পুনঃ ১০/৩৩ গতে ১২/৫৬ মধ্যে। রাত্রি ৬/৩১ গতে ৮/৫৬ মধ্যে পুনঃ ১১/২১ গতে ২/৩৩ মধ্যে, বারবেলা ৭/১৬ গতে ৮/৪৬ মধ্যে পুনঃ ২/৪৪ গতে ৪/১৩ মধ্যে, কালরাত্রি ১০/১৫ গতে ১১/৪৫ মধ্যে। 
৩ চৈত্র ১৪২৫, ১৮ মার্চ ২০১৯, সোমবার, দ্বাদশী ২/২৬/৫০। অশ্লেষানক্ষত্র রাত্রি ৭/৩/২৪, সূ উ ৫/৪৭/৩২, অ ৫/৪২/১, অমৃতযোগ দিবা ৭/২২/৪৮ মধ্যে ও ১০/৩৩/২০ থেকে ১২/৫৬/১৫ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৩০/২৩ থেকে ৮/৫৫/২৯ মধ্যে ও ১১/২৯/৩৫ থেকে ২/৩৪/৪ মধ্যে, বারবেলা ২/৪৩/২৪ থেকে ৪/১২/৪৩ মধ্যে, কালবেলা ৭/২৬/৫১ থেকে ৮/৪৬/৯ মধ্যে, কালরাত্রি ১০/১৪/৫ থেকে ১১/৪৪/৪৬ মধ্যে। 
১০ রজব 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ছত্তিশগড়ের দান্তেওয়াড়ায় আইইডি বিস্ফোরণ, জখম ৫ সিআরপিএফ জওয়ান 

06:48:58 PM

কলকাতা বিমানবন্দরে ২ জন রোহিঙ্গা সহ গ্রেপ্তার ৩ 

06:24:00 PM

অনুব্রতর মন্তব্য নিয়ে রিপোর্ট তলব কমিশনের  
অনুব্রত মণ্ডলের মন্তব্য নিয়ে বীরভূমের জেলাশাসক মৌমিতা গোধারা বসুর কাছে ...বিশদ

05:35:12 PM

সল্টলেকে গাড়ির ধাক্কায় জখম এক সাইকেল আরোহী  

05:00:00 PM

নেদারল্যান্ডসের উৎরেষ্ট শহরে বন্দুকবাজের হামলা, হত ১, জখম বেশ কয়েকজন

04:11:00 PM

৭১ পয়েন্ট উঠল সেনসেক্স 

03:54:21 PM