বিশেষ নিবন্ধ
 

লম্বা লম্বা মূর্তি বানিয়ে কি ভাবমূর্তি ফেরানো যায়
মেরুনীল দাশগুপ্ত

মহাপুরুষদের আজ সত্যিই মহাবিপদ! এই নরলোকে যখন তাঁরা রক্তমাংসে জীবন্ত ছিলেন মনে হয় না তখন এই মহাবিপদের আঁচটি তাঁরা পেয়েছিলেন। জীবৎকালে তাঁরা নিশ্চয়ই ভাবতেও পারেননি, যে দেশমাটি মানুষের জন্য জীবনপাত করছেন, যাঁদের উন্নয়ন উন্নতির কথা ভেবে রাতের ঘুম বরবাদ করছেন, আনন্দ আতিশয্য পরিবারপ্রীতি বিসর্জন দিয়ে চলেছেন এবং পরিবর্তে যে কৃতজ্ঞচিত্ত জনমণ্ডলী তাদের শ্রদ্ধায় ভালোবাসায় মানুষ থেকে দেবতা মহামানব, পুরুষ থেকে যুগপুরুষ মহাপুরুষের মহিমান্বিত আসনে বরণ করে নিচ্ছেন—একদিন তাঁদের দিকে চাইতেই রীতিমতো ভয় করবে। এমনকী মাথা ঘুরে দেহের ভারসাম্য রক্ষা মুশকিল হয়ে পড়লেও আশ্চর্যের কিছু থাকবে না! কারণ পাঁচ-ছ’ফুটের স্বাভাবিক উচ্চতা থেকে দেখা আর পঞ্চান্ন-ষাট তলার রেলিংবিহীন বেদি থেকে দৃষ্টিপাত তো এক কথা নয়! আমাদের মতো ক্ষীণ-কলিজা আম-পাবলিক ছাড়, অত উঁচু থেকে ঝুঁকে দেখতে অনেক সিংহ-হৃদয়েরই বুক কাঁপবে। ভার্টিগো রোগ থাকলে তো কথাই নেই। একথা ঠিক, নিজ প্রতিভায় নিজ গুণে মহৎকর্মে তাঁরা সকলেই তাঁদের জীবৎকালে নিজেদের ওই ঐহিক উচ্চতা ছাড়িয়ে গিয়েছিলেন এবং আমাদের মুগ্ধ বিস্ময় কখনও তাঁদের সেই অসাধারণত্বের দিকে চেয়ে হয়তো বলেওছে—গগন নহিলে তোমারে ধরিবে কেবা!
কিন্তু, সে তো তাঁদের লৌকিক পুরুষত্ব নয়, অলৌকিক মহাপুরুষত্ব, বাস্তবের শারীরিক উচ্চতা নয় তাঁদের অনুগত ভক্তজনের মনে গড়ে ওঠা আকাশচুম্বী ভাবমূর্তি। একটা ভারচুয়াল অবয়ব। এমন এক অবয়ব যার দীর্ঘত্ব কেবল অনুভব করা যায়, চাইলে হয়তো মানসচক্ষে দেখাও যায় কিন্তু ছোঁয়া যায় না, বাস্তবের এই মাটিতে খুঁজেও পাওয়া যায় না! যাবে কী করে? সেটা তো মানুষের শ্রদ্ধা-বিস্ময়ে গড়া, মানুষের মনোরাজ্যের ব্যাপার। তাই, তাতে সঙ্গত কারণেই মহাপুরুষ যুগন্ধরেরা বিশেষ বিচলিত বোধ করেননি। আম-পাবলিকের এই শ্রদ্ধাভক্তির ভবিষ্যৎ বিপদ সম্পর্কে তাঁদের মস্তিষ্কে কোনও চিন্তার রেখাও প্রকটিত হয়নি। বরং, মানুষের প্রতি দায়বদ্ধতায় তাঁদের ভূমিকা আরও নিবিড় গভীর হয়েছে। এবং বলতে কী, মানুষের মনের ওই শ্রদ্ধামূর্তিকে বাস্তবে প্রতিষ্ঠার যে চল আমাদের এই গুরুবাদী পূজাপ্রবণ ভারত দেশে বহুযুগ প্রচলিত—তাতেও দেবতা মহাপুরুষ বা মহামানব-মানবীবৃন্দ বিশেষ বিপদের গন্ধ পাননি বলেই বিশ্বাস। কারণ, তাঁদের মূর্তির সাইজ মানবকদের স্বাভাবিক উচ্চতা ছাড়ালেও কখনওই অদ্ভুত অস্বাভাবিক মাত্রা স্পর্শ করেনি। হতে পারে, শিল্পীর নৈপুণ্যে কদাচিৎ কখনও তাঁদের কাউকে আটার বস্তার উপর উল্টানো হাঁড়ি কি কুঁজো বামন কি একটু গাবলুগুবলু মনে হয়েছে—তাঁদের অতি পরিচিত মুখে একেবারে বিষদৃশ ভঙ্গি আমাদের দৃষ্টির নান্দনিকতাকে হাস্যরসাত্মক করে তুলেছে কিন্তু, একথা কিছুতেই বলা যাবে না যে তাঁদের মূর্তিগুলি কিংকং, গর্জিলার পাষাণ প্রতিরূপ হয়ে আমাদের ভক্তিকে ভীতবিভ্রান্ত করেছে। মূর্তির সাইজ নিয়ে কম্পিটিশন! বিশ্বজুড়ে শত-কোটি নানা তরিকার কম্পিটিশন কণ্টকিত বাজারে—না, কখনও সে কম্পিটিশন দেখেননি কেউ, ভাবেনওনি—এটা হলফ করেই বলা যায়।
পৃথিবীর অন্যত্র জানি না, একবিংশের ভারত কিন্তু দুটোই দেখছে—একদিকে প্রকৃত অর্থে শত শত ফুট উচ্চতার পাথুরে মহামূর্তি এবং সেই উচ্চতা নিয়ে ‘কম্পিটিশন’! তা দেখে আমরা একইসঙ্গে কেউ পুলকিত কেউ বিস্ময়ে হতবাক! যে রাজ্য মূর্তি কম্পিটিশনে শিরোপা পাচ্ছে তাদের মহানন্দ আর বাদবাকি দেশ বিহ্বল হতচকিত! আর অন্যদিকে দরিদ্র ভারতবাসী অজ্ঞ ভারতবাসীর অনাহারক্লিষ্ট বা আধপেটা ভাতের হাতগুলি, নানা অপমান অসম্মান অত্যাচার লাঞ্ছনায় বিপর্যস্ত অসহায় চোখগুলি এবং চারপাশের রাষ্ট্রীয় পেষণে দিশেহারা, সন্ত্রাসশঙ্কায় বিপন্ন ক্ষুব্ধ মনগুলিতে প্রতিফলিত হচ্ছে একটিই কথা, এসব হচ্ছেটা কী! অন্তরীক্ষে প্রয়াত মহাপুরুষেরাও হয়তো মৃদু শ্লেষ মাখা ঠোঁটে এমনটাই ভাবছেন। ভয় পাচ্ছেন। কিন্তু, মূর্তিবাদীরা ভয় পাবেন কেন? তাঁরা তো একবিংশের হাই-টেক গেরুয়া রাজনীতির পিতৃপুরুষ, দেশের কর্ণধার, মোদিজির স্বচ্ছ ভারত, ডিজিটাল ইন্ডিয়া, মেক ইন ইন্ডিয়ার শ্রীরামচন্দ্র থেকে শিবাজী মহারাজ থেকে সর্দার প্যাটেল—যাবতীয় মনপসন্দ মহাপুরুষবৃন্দের মহারাজকীয় পুনর্বাসনে অঙ্গীকারবদ্ধ! তাঁদের ঠেকাবে সাধ্য কার! গুজরাটে সর্দার সরোবরের বুকে টন টন পাষাণের পিণ্ড বসিয়ে তাই খাড়া হয়ে গেছেন ১৮২ মিটারের সর্দার বল্লভভাই প্যাটেল! পরিবেশকর্মীরা প্যাটেলের বিরোধিতা না করলেও পরিবেশের স্বার্থ রক্ষার কথাটা তুলে ধরতে চেয়েছিলেন আম গুজরাটি তথা দেশ বিশ্বের যাবতীয় মানুষের ভালোর কথা ভেবে। শুনল কেউ? নাহ্‌! শুনব কেন? প্যাটেলের মতো মহাপুরুষের মূর্তি আগে না দেশ-পরিবেশ? ঠিক ঠিক, স্যার, মূর্তি আগে, মূর্তি আগে কারণ পাবলিক ধরতে মূর্তি লাগে। গুজরাটে প্যাটেল তো মহারাষ্ট্রে শিবাজী মহারাজ আর অযোধ্যায় (আপাতত যোগীজির রাজ্য হলেও) একমেবাদ্বিতীয়ম্‌ শ্রীরামচন্দ্র! অতএব মূর্তি বানাতে হবে—এক সে বড়কর এক! শিবাজী মহারাজ দুশো হলে শ্রীরামচন্দ্র হবেন দুশোবিশ মিটার—ওয়ার্ল্ডে হাইয়েস্ট—সবার উপরে, সবচেয়ে উঁচু! শ্রীরামচন্দ্র ভগবান না? শিবাজী মহারাজ যত বড় ফাইটারই হোন মর্তমানুষ। তাঁর চেয়ে রামচন্দ্রের হাইট তো য্যাদা হোনাহি চাহিয়ে!
নো প্রবলেম। হচ্ছে এবং হবে। শিবাজী মহারাজ হবেন, রামচন্দ্র হবেন অদূর ভবিষ্যতে বারাণসীর বাবা বিশ্বনাথ সপার্ষৎ এই তালিকায় যুক্ত হলেও বলার কিছু নেই। বারাণসী বলছে, ন্যায্য দাবি। বারাণসী বলছে, বাবা বিশ্বনাথের ভুবনবিখ্যাত গলিগালার আর দরকার নেই। ভক্তজনের সুবিধাঁ কে লিয়ে তোড়ফোড় করে মন্দিরের আশপাশ সব খালি করে দিতে হবে। তাই, ঐতিহ্যপ্রাচীন গলিপথ চিরতরে মুছে বিশ্বনাথ মন্দিরের যাত্রাপথ প্রশস্ত করার পরিকল্পনা শুরু হয়ে গেছে। কারা থাকেন ওখানে? কারা সেই অনাদি অনন্তকাল ধরে ওই এলাকার বাসিন্দা? না, ধর্মের কথা জাতপাতের কথা গরিব খেটে-খাওয়া ওসব তুলবেন না। এটা একটা গ্লোরিয়াস কর্ম, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিজি বেনারসকে একটা আধুনিক ডিজিটাল রূপ দিতে চাইছেন, বাবা বিশ্বনাথের মন্দিরকে প্রশস্ত জমকালো আড়ম্বরে গরিয়ান একটা টুয়েন্টি ফার্স্ট সেঞ্চুরি লুক দিতে চাইছেন—হোয়াটস রং! শোনেননি, প্রতিদিন শ্রীরামচন্দ্রের প্রস্তাবিত মূর্তির পাদস্পর্শ করে চলার জন্য সরযূর গতিপথ বদল করা হচ্ছে! ভালো ভালো খুব ভালো। কিন্তু...! কী কিন্তু? বাবার বাহন বেনারসি ষাঁড়েরা থাকবেন কোথায়? তাদের জন্যও কি পুনর্বাসনের ব্যবস্থার মানে সর্বসুবিধাযুক্ত বসত হবে? আমার মেয়ে ছোটবেলায় গোয়ালঘর দেখে বলেছিল, অ্যাই, ওগুলো কি গোরুদের ফ্ল্যাট! তো তেমন কিছু কি পরিকল্পনায় আছে?
ভদ্রলোক আর সহ্য করতে পারলেন না। চটেমটে উঠে পড়লেন। এবং পাদানি থেকে উপস্থিত সকলকে অবাক করে দেশ উচ্চনাদেই বলে গেলেন, যতই যা বলুন, ২০১৯-এ আমরাই আসছি। বাসে যাঁরা এতক্ষণ ভদ্রলোকের কথা শুনছিলেন তাঁদের কেউ মুখ মটকে হাসলেন। একজন আবার নাতিউচ্চে ফুট কাটলেন, আসুন আসুন। কে আটকাচ্ছে? তবে বেঙ্গল বাদে—এখানে রয়্যাল বেঙ্গল বাঘিনী আছে, সাবধান। মুখে পড়লে, ঘুরে দাঁড়ানোর ফুরসত মিলবে না! তাঁর বলার ভঙ্গিতে হাসির রোল উঠল। যাঁকে উদ্দেশ্য করে বলা তিনি অবশ্য ততক্ষণে হাতিবাগানের ভিড়ে মিশে গেছেন। কিন্তু কথা হল, হঠাৎ দেশ জুড়ে দেবতা মহাপুরুষদের মূর্তি পোঁতার এমন উৎসাহ উদ্দীপনা জাগল কেন? কেউ কেউ একে বলছেন মূর্তি-রাজনীতি। মহাপুরুষদের বিশাল বিশাল মূর্তি সামনে বসিয়ে সংশ্লিষ্ট মহাজনের প্রতি দেশের সাধারণ মানুষের ভাবাবেগকে খুঁচিয়ে তোলা এবং শাসক বা শাসকদল হিসেবে দুর্বলতাগুলো আড়াল করা। উদ্দেশ্য একটাই, ভোটবাক্সে জনতা জনার্দনের কৃপালাভ।
কিন্তু, পঞ্চাশ-ষাটতলা বাড়ি সাইজের মূর্তি দেখে জনতা জনার্দনের মনোভাব কি সত্যিই কিছু বদলাবে? অযোধ্যার বিতর্কিত জমিতে রামমন্দির গড়ার দাবির প্রতি নরম মনোভাব হয়তো রামভক্তদের খানিক উৎসাহিত করতে পারে কিন্তু মহাপুরুষদের ওই দৈত্যাকার মূর্তিগুলি কি পারবে? একথা অস্বীকার করার উপায় নেই, কিছু ভালো কাজের পাশাপাশি নরেন্দ্র মোদি সরকার শুরু থেকেই নোটবন্দির মতো এমন বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যা তাঁদের সরকারের ভাবমূর্তির প্রতি মানুষের আস্থা টলিয়ে দিয়েছে। দেশের অর্থনীতিকে দুর্বল করেছে, অর্থনৈতিক উন্নয়নের পথ দীর্ঘতর করেছে—অন্তত অর্থনীতির দিকপালেদের অনেকেই এমন অভিমত দিয়েছেন। অন্যদিকে, নীরব-চোকসি-মালিয়ার মতো ‘মহাজনে’র মহাকীর্তি, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক কর্তার সঙ্গে দিল্লির দ্বৈরথ বা কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার শীর্ষস্তরে দুর্নীতিসংক্রান্ত অভিযোগে সংঘাত ‘স্বচ্ছ ভারতে’র দিশারী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভাবমূর্তিকেও যে সরাসরি যথেষ্ট ক্ষতিগ্রস্ত করেছে তাতেও সন্দেহ নেই। পথেঘাটে মানুষের প্রতিক্রিয়ায় আজ তার আভাস পেতে বিশেষ অপেক্ষা করতে হয় না। নির্বাচন পূর্ববর্তী জনমত সমীক্ষার রিপোর্টগুলিতেও তার প্রমাণ মিলেছে। রাজনৈতিক তথ্যভিজ্ঞজনেদের অনেকেই তাই মনে করছেন, রামমূর্তি-প্যাটেল-শিবাজী সবকিছুই সেই ভাবমূর্তি পুনরুদ্ধারের চটজলদি কৌশল, এ রাজ্যে ‘গণতন্ত্র উদ্ধারে’র রামরথও তাই। মানুষকে ধর্ম সমেত নানান আবেগে ভুলিয়ে কার্যসিদ্ধির চেষ্টা। কিন্তু, প্রশ্ন হল, এভাবে লম্বা লম্বা মূর্তি বানিয়ে কি শাসকের ভাবমূর্তি ফেরানো যায়? বাংলাদেশের বিশিষ্ট মনীষা আবুল ফজলের একটি মন্তব্য মনে পড়ছে, ‘যা পরকালের সঙ্গে জড়িত, অর্থাৎ ধর্ম, তার ওপর জোর না দিয়ে যা এ জীবনের সঙ্গে জড়িত, অর্থাৎ মানবতার ওপর জোর দেওয়া উচিত। মানুষের কল্যাণ এ দৃষ্টিভঙ্গির সঙ্গে জড়িত।’ (মানবতন্ত্র) দেশ-রাজনীতির মূর্তিবাদী সুধীজনেরা কি একবার ভাববেন?
পরিচ্ছন্নতাকে নির্বাচনী ইস্যু করার সাহস জরুরি
হারাধন চৌধুরী

গত দশকের কথা। কলকাতা থেকে দূরে দক্ষিণবঙ্গের এক জেলায় গিয়েছিলাম পঞ্চায়েত ভোটের খবর সংগ্রহের জন্য। জেলা সদরকে কেন্দ্র করে কয়েকটি ব্লকে যাতায়াতের জন্য মূলত গণপরিবহণের উপরেই ভরসা রেখেছিলাম। বলা বাহুল্য, তখন গরম কাল। একটু বাড়তি হাওয়া বাতাসের লোভে জানালার ধারের একটা সিট দখল করার জন্য কসরতও করেছি।
বিশদ

04th  December, 2018
ঢাকের সুপরিচিত শব্দ
পি চিদম্বরম

নরেন্দ্র মোদি ২০১৩-১৪ সাল থেকে দীর্ঘ পথ পেরিয়ে এসেছেন। প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী মোদি নিজেকে পরিচিত করেছিলেন বিকাশপুরুষ হিসেবে। মানে তিনি উন্নয়নের মুখ হয়ে উঠেছিলেন। ২০১৪-র মে মাসে যে ৩১ শতাংশ মানুষ বিজেপিকে ভোট দিয়েছিল তাদের একটা বড় অংশ ‘সবকা সাথ, সবকা বিকাশ’ (সবার সঙ্গে, সবার উন্নয়ন) স্লোগানে আন্দোলিত হয়েছিলেন।
বিশদ

03rd  December, 2018
মমতা মায়াবতী নিয়ে মোদিজির সুর হঠাৎ এত নরম হয়ে এল কেন?
শুভা দত্ত

গেরুয়া শিবির এবার কি সত্যিই বিপদের আঁচ পাচ্ছে? দিল্লির দরবারে কি দেশের মানুষের মতিগতি নিয়ে কোনও অশনিসংকেত পৌঁছল! দেশের পাঁচ গুরুত্বপূর্ণ রাজ্যে এখন ভোট চলছে। যখন এই লেখা লিখছি তখন মধ্যপ্রদেশ, ছত্তিশগড়ে ভোট হয়ে গেছে। রাজস্থান, মিজোরাম, তেলেঙ্গানায় হবে। সেজন্য রাজ্যগুলিতে ভোটপ্রস্তুতি ও রাজনৈতিক প্রচার তুঙ্গে।
বিশদ

02nd  December, 2018
উইঙ্কল টুইঙ্কল: ২০৩৮ কি এক মূর্তিস্থানের গল্প?
অতনু বিশ্বাস

 পরের পুজোয় গুজরাত বেড়াতে যাবেন অমলকান্তি। ঠিক করে ফেলেছেন এখনই। আমেদাবাদ, গির, দ্বারকা, ঢোলাবিরা, ইত্যাদি। আর সেইসঙ্গে অবশ্যই যেতে হবে বরোদার ১০০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে, নর্মদা বাঁধ থেকে সাড়ে তিন কিলোমিটার দূরে, ‘সাধু বেত’ নামে নদীর দ্বীপে। যেখানে রয়েছে সর্দার বল্লভভাই প্যাটেলের সুবিশাল মূর্তিখানা।
বিশদ

01st  December, 2018
Loading...
আঞ্চলিক রাজনীতি বনাম মোদি, নির্ধারক কিন্তু পাঁচ রাজ্যই
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মাসখানেক আগেও চারমিনার চত্বর ছাড়া গোটা হায়দরাবাদে একটাও রাজনৈতিক পোস্টার বা ফ্লেক্স চোখে আসেনি। যাও বা নজরে এসেছে, মেরেকেটে খান দশেক। আমরা এমন রাজ্যের বাসিন্দা, যেখানে সকালের চা থেকে ডিনার শেষ করে মুখ ধোওয়া পর্যন্ত মন এবং মস্তিষ্কের আনাচে কানাচে রাজনীতি ঘোরাফেরা করে।  
বিশদ

30th  November, 2018
ভোট সমীক্ষার ভ্রান্ত দিগ্‌নির্দেশ
শুভময় মৈত্র

আমরা সকলেই তাকিয়ে আছি পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা ভোটের ফলাফলের দিকে। অবশ্যই সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় কংগ্রেস আর বিজেপি এই নির্বাচনে কেমন ফল করতে চলেছে। তবে অন্যান্য দলগুলিকেও একেবারে ভুলে থাকা ঠিক হবে না। কারণ এর মধ্যে অনেক রাজ্যেই লড়ছে বিএসপি, যাদের ভোট কোথাও কোথাও পাঁচ শতাংশের বেশি।
বিশদ

29th  November, 2018
Loading...
প্রায়োরিটি মমতা
মোশারফ হোসেন

১৯৯১ সালের মে মাস। আগের দু’বছরে দেশের রাজনীতিতে একাধিক নাটকীয় ঘটনা ঘটে গিয়েছে। রাজীব গান্ধী ১৯৮৪ সালে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর বিশ্বনাথপ্রতাপ সিংকে তাঁর সরকারে প্রথমে অর্থ ও পরে প্রতিরক্ষামন্ত্রকের দায়িত্ব দিয়েছিলেন। কিন্তু বিদ্রোহ করেন বিশ্বনাথপ্রতাপ। বিশদ

27th  November, 2018
আর একটা প্রতিষ্ঠান পতনের মুখে
পি চিদম্বরম

পাঠক বা দর্শকের পছন্দ করতেই হিমশিম অবস্থা—কোনটা নেবে। ভারত-অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট ম‌্যাচ হবে ঠিক রয়েছে। রয়েছে সিবিআই ভার্সেস সিবিআই। এবং, সর্বশেষ খেলটা হল গভর্নমেন্ট ভার্সেস রিজার্ভ ব্যাঙ্ক (আরবিআই)।
বিশদ

26th  November, 2018
কলকাতার মেয়র বদল: দলীয় শৃঙ্খলা রক্ষায় মমতার মাস্টার স্ট্রোক
শুভা দত্ত

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে যাঁরা চেনেন তাঁরা জানেন দলের ভাবমূর্তি ও দলীয় শৃঙ্খলা রক্ষার ক্ষেত্রে তিনি কখনও কোনও আপস করেন না। দলীয় শৃঙ্খলা ভাঙলে বা ভাঙার চেষ্টা করলে, সে তিনি যত বড় নেতা বা নেত্রীই হোন, শাস্তি তাঁকে পেতেই হয়। দলীয় শৃঙ্খলার প্রশ্নে কাউকে রেয়াত করেন না তিনি।
বিশদ

25th  November, 2018
পরীক্ষার খাতার ত্রুটিহীন মূল্যায়নের লক্ষ্যে
কল্যাণ বসু

 স্ক্রুটিনি ও রিভিউ পর্ব সাঙ্গ হলে এ বছর উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার চূড়ান্ত ফল প্রকাশের পর ত্রুটির বিশালতা দেখে যথেষ্ট উদ্বেগ ও বিতর্ক দানা বেঁধেছে। এবার উচ্চ মাধ্যমিকের ফল প্রকাশের পর স্ক্রুটিনি ও রিভিউর জন্য প্রায় ৪৫ হাজার পরীক্ষার্থী আবেদন করেছিল। এক একজন আবার একাধিক বিষয়ে আবেদন করায় সেই সংখ্যাটা প্রায় ১ লক্ষ।
বিশদ

24th  November, 2018
অন্য ভারতের গল্প
সমৃদ্ধ দত্ত

 হাতে একটা ওয়াকিং স্টিক। অটো থেকে নেমে কফি হাউসের চৌকাঠের সিঁড়িতে পা রাখতেই একজন ওয়েটার সসম্ভ্রমে এগিয়ে গিয়ে হেসে বললেন, আইয়ে মাথুর সাব! গোয়ালিয়র স্টেশন থেকে বেরিয়েই বড় রাস্তায় এসে একটু পিছনের দিকে হাঁটলে সামনেই ইন্ডিয়ান কফি হাউস।
বিশদ

23rd  November, 2018
বয়স কি কেবলই সংখ্যা?
আজকের উধো-বুধোর গল্প
অতনু বিশ্বাস

 আমাদের প্রজন্মের কাছে এটাই যেন চূড়ান্ত ফ্যান্টাসি! তবু, কখনও কখনও দেখি, আমাদের চারপাশে আবোল তাবোল আর হযবরল-র চরিত্ররা যেন ভিড় জমিয়ে আছে। তখন ফ্যান্টাসি আর বাস্তব এক ফ্রেমে আটকা পড়ে জীবনকে করে তোলে অনেকখানি অনাবিল, বর্ণময়।
বিশদ

22nd  November, 2018
Loading...
একনজরে
 বিশ্বজিৎ মাইতি, তমলুক, বিএনএ: আগামী শিক্ষাবর্ষের জন্য রাজ্যের সমস্ত সরকারি স্কুলে প্রত্যেক সপ্তাহের শ্রেণীভিত্তিক পিরিয়ডের নির্দিষ্ট রুটিন তৈরি করে জেলায় জেলায় পাঠিয়ে দিল রাজ্য মধ্যশিক্ষা পর্ষদ। ...

  সংবাদদাতা, ঝাড়গ্রাম: গত বছরের তুলনায় এবার ঝাড়গ্রাম জেলায় উচ্চ মাধ্যমিকে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেল। ছাত্রীদের সংখ্যা তুলনামূলকভাবে অনেকটাই বৃদ্ধি পেয়েছে। এবার ছাত্রের তুলনায় ছাত্রীর সংখ্যা বেশি। মঙ্গলবার ঝাড়গ্রাম জেলা কালেক্টরেট হলে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রস্তুতি মিটিং হয়। ...

 সংবাদদাতা, আলিপুরদুয়ার: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে আলিপুরদুয়ারের চা বাগানগুলিতে গিয়ে জেলা খাদ্যদপ্তর চা শ্রমিকদের রেশন কার্ডের আবেদনপত্র নেওয়ার কাজ শুরু করেছে। এতদিন শ্রমিকরা বাগানের কাজ বন্ধ রেখে শহরে এসে রেশন কার্ডের জন্য আবেদনপত্র জমা করতেন। এতে তাঁদের একদিনের মজুরি নষ্ট ...

 লন্ডন, ৫ ডিসেম্বর: গত ১৪ মে ভারতীয় বংশোদ্ভূত ফার্মাসিস্ট জেসিকা প্যাটেলকে (৩৪) খুনের মামলায় তাঁর স্বামী মিতেশ প্যাটেলকে (৩৭) দোষী সাব্যস্ত করল ব্রিটেনের আদালত। উত্তর ইংল্যান্ডের মিডলসবরোর বাড়িতে জেসিকার হাত বেঁধে সুপার মার্কেটের প্লাস্টিক ব্যাগ দিয়ে শ্বাসরোধ করে খুন করে ...


Loading...

আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

প্রেম-প্রণয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্ব থাকবে। কারও কথায় মর্মাহত হতে হবে। ব্যবসায় যুক্ত হওয়া যেতে পারে। কর্মে সুনাম ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮২৩: জার্মান দার্শনিক ম্যাক্সমুলারের জন্ম
১৮৫৩: ঐতিহাসিক ও শিক্ষাবিদ হরপ্রসাদ শাস্ত্রীর জন্ম
১৯৫৬: দলিত আন্দোলনের নেতা ভীমরাওজি রামাজি আম্বেদকরের মৃত্যু
১৯৮৫: ক্রিকেটার আর পি সিংয়ের জন্ম
১৯৯২: অযোধ্যার বিতর্কিত সৌধ ধ্বংস

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.৯৪ টাকা ৭১.৬৪ টাকা
পাউন্ড ৮৮.৩০ টাকা ৯১.৫২ টাকা
ইউরো ৭৮.৬৮ টাকা ৮১.৬৭ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩১,৪৫৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৯,৮৪৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩০,২৯৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৬,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৬,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৬ ডিসেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার, চতুর্দশী ১৫/১৩ দিবা ঘ ১২/১২। নক্ষত্র- অনুরাধা ৫৬/১১ রাত্রি ঘ ৪/৩৫, সূ উ ৬/৭/৩, অ ৪/৪৭/৫৫, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৭/৩২ মধ্যে পুনঃ ১/১৪ গতে ২/৩৯ মধ্যে। রাত্রি ৫/৫১ গতে ৯/১৪ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৪ গতে ৩/২৭ মধ্যে পুনঃ ৪/২০ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ঘ ২/৮ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ঘ ১১/২৭ গতে ১/৭ মধ্যে।
১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৬ ডিসেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার, চতুর্দশী রাত্রি ১২/৩/৪০। অনুরাধানক্ষত্র রাত্রিশেষ ঘ ৪/৫৮/৪৮। সূ উ ৬/৭/৮, অ ৪/৪৭/১৩, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৭/৩২/২৯ মধ্যে ও ঘ ১/১৩/৫১ থেকে ঘ ২/৩৯/১২ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৪০/৩৩ থেকে ঘ ৯/১৩/৫১ মধ্যে ও ঘ ১১/৫৩/৫০ থেকে ৩/২৭/৯ মধ্যে ও ঘ ৪/২০/২৮ থেকে ৬/৭/৪৭ মধ্যে। বারবেলা ৩/২৭/১৩ থেকে ৪/৪৭/১৩ মধ্যে, কালবেলা ২/৭/১২ থেকে ঘ ৩/২৭/১৩ মধ্যে, কালরাত্রি ১১/২৭/১০ থেকে ঘ ১/৭/১০ মধ্যে।
 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আপাতত রথযাত্রা স্থগিত, জানাল হাইকোর্ট 
আপাতত রথযাত্রার অনুমতি দিল না হাইকোর্ট। এত অল্প সময়ে পুলিসের ...বিশদ

05:14:00 PM

 কমাণ্ড হাসপাতালের নির্মিয়মাণ বাড়ির ছাদ থেকে ঝাঁপ কিশোরীর

04:43:00 PM

৫৭২ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স 

03:56:00 PM

দীঘায় শুরু হচ্ছে আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টার
দীঘায় শুরু হচ্ছে আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টার। আগামী ২ মাসে চালু ...বিশদ

02:50:35 PM

কেদারনাথ: অভিযোগ খারিজ বম্বে হাইকোর্টের

 কেদারনাথ ফিল্মটির কিছু দৃশ্য ধর্মীয় ভাবাবেগকে আঘাত করছে। আজ এই ...বিশদ

02:24:25 PM

শুরু হল বামফ্রন্টের মিছিল
মহাজাতি সদনের সামনে থেকে শুরু হল বামফ্রন্টের মিছিল। যাবে পার্কসার্কাস ...বিশদ

02:09:00 PM

Loading...
Loading...