Bartaman Patrika
অমৃতকথা
 

কার্য

জানার বিষয় হল তিনটি: গ্রহীতা, গ্রহণ ও গ্রাহ্য, অন্য পরিভাষায় পুরুষ, ইন্দ্রিয় এবং ভূত। অর্থাৎ যে গ্রহণ করছে অর্থাৎ জানছে বা দেখছে সেই হল কর্তা বা গ্রহীতা, যা দিয়ে দেখছে তাকেই বলে করণ বা ইন্দ্রিয় এবং যা দেখছে অর্থাৎ বিষয় বা ভূতবর্গ তাকে বলে কার্য। তাই তিনটিকেই যথাযথভাবে জানতে হবে, তবে আমাদের জ্ঞানের মধ্যে যে ভেজাল অর্থাৎ সাংকর্য ঢুকে আছে, বোঝার মধ্যে যে সব ভুল মিশে আছে তা দূর হবে। চেতনার যে আলো মনের আয়নায় এসে পড়েছে তাকে একাগ্র ও স্বচ্ছ করে ফেলতে হবে এই তিন স্তরে। তার ফলে সবিতর্ক, নিবিতর্ক সমাধি লাভ হলে ফুটে উঠবে স্থূল বিষয়ের যথার্থ জ্ঞান, সবিচার, নির্বিচারে সূক্ষ্ম বিষয়ের যথাযথ উপলব্ধি, সানন্দ সমাধিতে ইন্দ্রিয় বা করণ বর্গের পূর্ণ জ্ঞান এবং শেষ স্যাস্মিত সমাধিতে গ্রহীতা বা জ্ঞাতার শুদ্ধ রূপ ফুটে উঠবে। সম্প্রজ্ঞাত সমাধির সবগুলিই তাই ‘সালম্বন’ সমাধি, অর্থাৎ কোন কিছুকে অবলম্বন করে সমাহিত হওয়া, তার সব কিছু তন্নতন্ন করে নিখুঁতভাবে জানার জন্য।
সমাধির অবশ্যম্ভাবী ফল তাই প্রজ্ঞা। যে-সমাধির ফলে প্রজ্ঞা ফোটে না, তা সমাধি নয়, ব্যাধি। শুধু দেহের নিস্পন্দতাই সমাধি নয়, এটা তন্ময়তার একটা আনুষঙ্গিক বাহ্য লক্ষণমাত্র। কিন্তু তন্ময়তা সেই গভীর অতলে পৌঁছাল কিনা, সেখানে ডুবুরির মতো ‘হৃদি-রত্নাকরের অগাধ জলে’ ডুব দিয়ে প্রজ্ঞার অমূল্য মণি-মাণিক্য, অরূপ-রতন তুলে আনা গেল কিনা, তারই উপর সমাধির সার্থকতা যাচাই হয়ে থাকে। সমাধি সম্বন্ধে আমাদের এত ভ্রান্ত ধারণা যে, সামান্য হৃদয়াবেগ উচ্চগ্রামে ওঠার ফলে যদি দৃষ্টি স্তিমিত হয়, অঙ্গ শিথিল হয়, ইন্দ্রিয়বর্গ স্তব্ধ হয়, প্রাণস্পন্দ নিরুদ্ধ হয়, অমনি আমরা মনে করি সমাধি লাভ হয়েছে। আমরা ভুলে যাই সমাধি চেতনার আলোর বিষ্ফারণ, প্রজ্ঞাজ্যোতির সমুদ্ভাসন, যার ফলে হয় যোগজ প্রত্যক্ষ।
এখানেই এসে পড়ে প্রমাণের প্রশ্ন। প্রমাণ অর্থাৎ জ্ঞানের যেটি করণ বা সাধন অর্থাৎ উপায়, তারই নাম প্রমাণ। আমাদের জ্ঞানলাভের মোটামুটি তিনটি হাতিয়ার বা করণ— প্রত্যক্ষ, অনুমান ও আগম। কোন কোন দর্শনে প্রমাণের সংখ্যা বাড়িয়ে চার, পাঁচ, ছয়, এমনটি দশ পর্যন্ত টেনে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। কিন্তু মূলত দেখতে গেলে এই তিনের মধ্যেই সব অন্তর্ভুক্ত। আবার এই-তিনও আসলে একে এসেই পর্যবসিত হয় অর্থাৎ সব প্রমাণই প্রত্যক্ষমূলক। প্রত্যক্ষকে ভিক্তি করেই... অনুমান ও আগমের প্রসার ও প্রামাণ্য।
চেতনার আলো ইন্দ্রিয়ের গবাক্ষপথে বিচ্ছুরিত হয়ে আমাদের বাইরের জগৎকে যতটুকু দেখিয়ে বা জানিয়ে দেয়, তারই উপর আমাদের জ্ঞান নির্ভরশীল। এর ফলে আমাদের জ্ঞান খুবই সংকুচিত ও সীমাবদ্ধ। দূরের জিনিস বা সূক্ষ্ম জিনিস ইন্দ্রিয় দেখতে পারে না, সেখানে আমরা অনুমান বা আগমের আশ্রয়ে আমাদের জ্ঞানকে আর একটু ব্যাপক করে নিই। দূরে যে আগুন আছে ধোঁয়া দেখে তার অস্তিত্ব সম্বন্ধে সুনিশ্চিত হই। বিলেতে নিজে না গিয়েও অন্য প্রত্যক্ষ দর্শীর মুখে শুনে সেখানকার যথাযথ জ্ঞান আহরণ করি। কিন্তু অনুমান ও আগমের মারাত্মক ত্রুটি হল যে তারা প্রামাণিক অর্থাৎ যথার্থ জ্ঞান দেয় বটে, কিন্তু সেটি কী ধরণের আগুন তার কোনো বিশেষ পরিচয় অনুমান আমাকে এনে দিতে পারে না। আগম সম্বন্ধেও সেই কথা। বিলেতের সাধারণ পরিচয় অন্যের মুখ থেকে শুনে বা বই পড়ে হতে পারে বটে, কিন্তু বিশেষ জ্ঞান একমাত্র সেখানে গেলেই হতে পারে, অন্যথা সম্ভব নয়।
যোগদর্শন তাই সাধারণ সব প্রমাণকেই বাতিল করলেন কারণ প্রমাণগুলিও সবই বৃত্তি অর্থাৎ চিত্তের পরিণাম। আর চিত্তবৃত্তিনিরোধই যোগের লক্ষ্য। প্রমাণের যে সামান্য আলোটুকু ছিল, তাও নিভিয়ে যোগদর্শন কোন্‌ অন্ধকারের অতলে ডুব দিতে চাইলেন? জগৎ তো তাহলে মুছে গেল, দেখবার, শুনবার, জানবার সব উপকরণ সরিয়ে ফেলা হল। রইল কি তাহলে অভাব বা শূন্যতা বা গাঢ় অন্ধকারময় নিদ্রার মতো অবস্থা? অভাবকে অবলম্বন করে যে নিদ্রা দেখা দেয়, যোগদর্শন তাকেও একরকম বৃত্তি বলেই চিহ্নিত করেছেন, ‘অভাবপ্রত্যয়ালম্বনা বৃত্তিনিদ্রা’। এও চিত্তের আর একরকম পরিণাম বা বিকার, একেও রুদ্ধ করতে হবে। ভাবের জগৎও রুদ্ধ প্রমাণের অভাবে, অভাবের জগৎও বিলুপ্ত নিদ্রার নিরোধে।
গোবিন্দগোপাল মুখোপাধ্যায়ের ‘চেতনার আরোহিণী’ থেকে
10th  May, 2019
ঈশ্বর

ঈশ্বর সর্বশক্তিমান—ধুলোকে তিনি সোনা করেন, মাটি থেকে ফুল, মাটির দেহে জ্বালেন অমর প্রাণের শিখা—কত ক্ষুদ্র জীবন তাঁর প্রসাদে পেয়েছে অসামান্যের গৌরব। শব হয় শিব, গলিত পত্রের রস থেকে আবার ঝরে পুষ্পিত নির্ঝর,—এমন কোনও জীবন নেই যা তাঁর অমৃতস্পর্শে ধন্য হয়ে না ওঠে।
বিশদ

ধর্ম ও মানবতা

 ‘‘যদা যদা হি ধর্মস্য গ্লানির্ভবতি ভারত
অভ্যুত্থানমর্ধস্য তদাত্মানং সৃজাম্যহম্‌।
পরিত্রাণায় সাধুনাং বিনাশায় চ দুষ্কৃতাম্‌।
ধর্ম সংস্থাপনার্থায় সম্ভবামি যুগে যুগে।।’’ বিশদ

20th  July, 2019
জ্ঞান

যথার্থ জ্ঞানের দ্বারা জীবের অবিদ্যারূপ উপাধির বিনাশ হয়, অন্য কোন উপায়ে ইহার নাশ হয় না। ব্রহ্মের সহিত আত্মার একাত্বানুভবই জ্ঞান, শ্রুতি ইহা বলেন। আত্মা কি, অনাত্মাই বা কি, এই বিচার যথাযথভাবে করিতে পারিলে আত্মজ্ঞানের উত্‌পত্তি হয়। অতএব জীব ও ব্রহ্মের স্বরূপ বিচারের দ্বারা নির্ণয় করা কর্তব্য।
বিশদ

19th  July, 2019
শ্রীরামকৃষ্ণের সাধনা

 অতীতে যে সকল অবতার-পুরুষ বিশ্বের কল্যাণে আগমন করিয়াছিলেন, গৌতম বুদ্ধ তাঁহাদের অন্যতম। প্রায় পঞ্চবিংশ শতাব্দী পূর্বে যে কঠোর তপস্যা তিনি করিয়াছিলেন, আজিও তাহার জ্বলন্ত দৃষ্টান্ত বর্তমান রহিয়াছে। তিনি যে সময় অবতীর্ণ হইয়াছিলেন, তাঁহার প্রদর্শিত মার্গ বাস্তবিকই তদুপযোগী হইয়াছিল।
বিশদ

18th  July, 2019
 কর্ম এবং জ্ঞান

 প্রাচীন-বেদে আবার তিনটি স্তরবিভাগ দেখা যায়। প্রথমে কর্ম, দ্বিতীয়ত: উপাসনা এবং তৃতীয়ত: জ্ঞান। কর্ম এবং জ্ঞান দ্বারা নিজেকে পরিশুদ্ধ করলেই ভগবান মানুষের অন্তরে প্রতিভাত হবেন। তিনি যে নিরন্তর অন্তরেই অধিষ্ঠিত—এ-উপলব্ধিও তখন তার হবে।
বিশদ

17th  July, 2019
শক্তি 

ভগবান মানুষকে জ্ঞান, বুদ্ধি দিয়েছেন। নিশ্চেষ্ট হয়ে বসে থাকলে কি চলে? কাজ করতে হবে, কুড়েমি করে বসে থেকে বল্‌ছ ভগবান যা করবেন, তাই হবে। আরে! ভগবান তোমায় কোন সাহায্য করবেন না, তোমায় নিজেকে সব করতে হবে। আমি খেলে কি তোমার পেট ভরে? 
বিশদ

16th  July, 2019
সমষ্টিত্বই ঈশ্বর

একত্ব ও সমষ্টিত্ব মূলত এক। আগন্তুক ও আকস্মিক ধর্মেই ব্যাপক বস্তুকে খণ্ডিত করিয়া ব্যষ্টিতে পরিণত করে। অতএব আগন্তুক ধর্ম বিদূরিত হইলেই মেঘনির্মূক্ত সূর্যের ন্যায় আপন স্বরূপে অবস্থান করে। সূর্যের বিকীর্ণ রশ্মিজাল (divergent rays) মূল এক কেন্দ্রে সংহত। জীব নানত্বও (plurality) এক কেন্দ্রে সংহত। এই কেন্দ্রই সমষ্টিত্ব—ইহাই ঈশ্বর।
বিশদ

15th  July, 2019
 সত্তা

 ব্রহ্ম যদি কেবলই নির্গুণ নিরুপাধিক হত, আমাদের সোপাধিক সত্তার প্রত্যক্ষ সত্যটির সাথে তার যদি চিরন্তন বিরোধ থাকত, তবে লয়ই হত যথাযথ পরিসমাপ্তি—কিন্তু প্রেম আর আনন্দ আর আত্মসংবিৎকেও ত গণনার মধ্যে আনতে হবে।
বিশদ

14th  July, 2019
প্রত্যক্ষানুভূতিই ধর্ম্ম

 ভক্তের পক্ষে এই সকল শুল্ক বিষয় জানার প্রয়োজন, কেবল নিজ ইচ্ছাশক্তিকে দৃঢ় করা মাত্র। এতদ্ব্যতীত উহাদের আর কোন উপযোগিতা নাই। বিশদ

13th  July, 2019
 সাধন

জ্ঞান, ভক্তি, ধর্ম নিজে অর্জন করতে হয়; খুব খাটতে হয়, তবেই নিজস্ব হয়, স্থায়ী হয়, মন ভরপুর হয়ে থাকে। কেউ কাউকে এসব দিতে পারে না। সাধন চাই, তবে সিদ্ধিলাভ হয়। যেমন সাধন তেমনি সিদ্ধি। বিনা সাধনে বা চেষ্টায় যা পাওয়া যায় তার গুরুত্ব থাকে না, কদর হয় না, পেয়েও তেমন সুখ হয় না।
বিশদ

12th  July, 2019
 নারী

সমগ্র নারীজাতির এক কঠিন সমস্যা বহুযুগ ধরিয়া সমাধানের অপেক্ষা করিতেছে। মাতৃজাতির উন্নতির প্রতীকরূপে মা সারদা দেবী মূর্ত হইয়া আসিয়েছেন। এবার সে সমস্যার সমাধান অবশ্যম্ভাবী।
বিশদ

11th  July, 2019
মন্ত্রচৈতন্যের সাধন

 পৃথিবীর অগণিত মানুষ রাম, কৃষ্ণ, কালী, যীশু, রামকৃষ্ণ প্রভৃতি দেবদেবী বা অবতারের নাম জপ করে। গুরু-প্রদর্শিত পথে জপ-ধ্যান করা অবশ্যই কর্তব্য। অনেকে দীক্ষা গ্রহণ করে প্রত্যহ নির্দিষ্ট সংখ্যক জপ করে মনে মনে ভাবে— যথেষ্ট। তন্ত্রশাস্ত্রে মন্ত্রকে চৈতন্যময় করবার নানাবিধ সাধন আছে।
বিশদ

10th  July, 2019
অমৃতকথা 

জগতে সৎ চিৎ ও আনন্দের প্রকাশকে আমরা জ্ঞানের ল্যাবরেটরিতে বিশ্লিষ্ট করিয়া দেখিতে পারি, কিন্তু তাহারা বিচ্ছিন্ন হইয়া নাই। কাষ্ঠবস্তু গাছ নয়, তার রস টানিবার ও প্রাণ ধরিবার শক্তিও গাছ নয়। বস্তু ও শক্তিকে একটি সমগ্রতার মধ্যে আবৃত করিয়া যে একটি অখণ্ড প্রকাশ তাহাই গাছ—তাহা একই কালে বস্তুময়, শক্তিময়, সৌন্দর্যময়। গাছ আমাদিগকে যে আনন্দ দেয় সে এইজন্যই।  বিশদ

09th  July, 2019
সার্বভৌম ধর্ম

বৌদ্ধধর্মের পূর্বেও ভারতে এবং অন্যত্র নানা ধর্মের আবির্ভাব হয়েছে। কিন্তু সেগুলি অল্পবিস্তর নিজ নিজ জাতির পরিধির মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। হিন্দু, ইহুদী, পারসীক প্রভৃতি প্রাচীন জাতির প্রত্যেকেরই মহান ধর্ম ছিল। কিন্তু সে-সবই মোটের উপর জাতি-বিশেষের নিজস্ব ধর্ম—সার্বভৌম ধর্ম নয়।
বিশদ

08th  July, 2019
 রাম ও কাম

 কোন ব্যক্তিই যুগপৎ দুজন প্রভুকে সেবা করতে পারে না। কারণ হয় সে একজনকে ঘৃণা করে অপরকে ভালবাসবে অথবা একজনের প্রতি অনুরক্ত হয়ে অপরকে অবহেলা করবে। তোমরা ঈশ্বর ও বিত্তদেবতাকে এক সঙ্গে সেবা করতে পার না।
বিশদ

07th  July, 2019
 রস

রস জিনিসটা রসিকের অপেক্ষা রাখে, কেবলমাত্র নিজের জোরে নিজেকে সে সপ্রমাণ করিতে পারে না। সংসারে বিদ্বান, বুদ্ধিমান, দেশহিতৈষী, লোকহিতৈষী প্রভৃতি নানা প্রকারের ভালো ভালো লোক আছেন, কিন্তু দময়ন্তী যেমন সকল দেবতাকে ছাড়িয়া নলের গলায় মালা দিয়াছিলেন, তেমনি রসভারতী স্বয়ম্বরসভায় আর-সকলকেই বাদ দিয়া কেবল রসিকের সন্ধান করিয়া থাকেন।
বিশদ

06th  July, 2019
একনজরে
 ভোপাল, ২০ জুলাই (পিটিআই): ভেজাল দুধের বড়সড় চক্রের পর্দা ফাঁস করল মধ্যপ্রদেশ পুলিস। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে অভিযান চালিয়ে শনিবার এই চক্রে জড়িত থাকার অভিযোগে মোট ৬২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিস। ...

 ওয়াশিংটন, ২০ জুলাই (পিটিআই): আন্তর্জাতিক চাপের মুখে মুম্বই হামলার মূলচক্রী হাফিজ সইদকে গ্রেপ্তার করেছে পাকিস্তান। এরপরেও পাকিস্তানের উপর থেকে সন্দেহ যাচ্ছে না আমেরিকার। ট্রাম্প প্রশাসনের প্রবীণ এক কর্তাব্যক্তি শুক্রবার জানিয়েছেন, আগেও হাফিজকে গ্রেপ্তার করেছিল ইসলামাবাদ। ...

 বিএনএ, চুঁচুড়া: প্রায় ২৪ ঘণ্টা পরে হুগলির চাঁপদানির ডালহৌসি জুটমিলে কাজ শুরু হল। শুক্রবার বিকেলে একাংশের কর্মী কাজ বন্ধ করে দেন। তারপর রাতে কারখানার সমস্ত কর্মী কাজ বন্ধ করে দিয়েছিলেন। কর্মীদের অভিযোগ, কারখানার উৎপাদন বাড়ানোর জন্য বেশি সময় ধরে কাজের ...

সংবাদদাতা, বালুরঘাট: বালুরঘাট শহরের বিভিন্ন রাস্তায় গবাদিপশুর বিচরণ বেড়ে যাওয়া ব্যাপক সমস্যার পড়েছেন পথচলতি সাধারণ মানুষ। শহরের যত্রতত্র গোরু, ছাগল ঘোরাঘুরি করলেও সেসব ধরে সংশ্লিষ্ট মালিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উচ্চবিদ্যার ক্ষেত্রে ভালো ফল হবে। ব্যবসায় যুক্ত হলে খুব একটা ভালো হবে না। প্রেমপ্রীতিতে বাধাবিঘ্ন। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯২০: মা সারদার মৃত্যু
১৮৬৩: কবি, গীতিকার ও নাট্যকার দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের জন্ম
১৮৯৯: লেখক বনফুল তথা বলাইচাঁদ মুখোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৫৫: প্রাক্তন ক্রিকেটার রজার বিনির জন্ম
২০১২: বাংলাদেশের লেখক হুমায়ুন আহমেদের মূত্যু 

20th  July, 2019
ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৭.৯৫ টাকা ৬৯.৬৪ টাকা
পাউন্ড ৮৪.৭৭ টাকা ৮৭.৯২ টাকা
ইউরো ৭৬.১০ টাকা ৭৯.০৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
20th  July, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৫,৫২৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৩,৭০৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৪,২১০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,৫৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,৬৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ২১ জুলাই ২০১৯, রবিবার, চতুর্থী ১৬/২২ দিবা ১১/৪০। শতভিষা ৫/৪৫ দিবা ৭/২৫। সূ উ ৫/৬/৫২, অ ৬/১৮/১৬, অমৃতযোগ প্রাতঃ ৫/৫৯ গতে ৯/৩১ মধ্যে। রাত্রি ৭/৪৫ গতে ৯/১১ মধ্যে, বারবেলা ১০/৪ গতে ১/২২ মধ্যে, কালরাত্রি ১/৩ গতে ২/২৪ মধ্যে।
৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ২১ জুলাই ২০১৯, রবিবার, চতুর্থী ৯/২৬/৩১ দিবা ৮/৫২/১৬। শতভিষানক্ষত্র ২/০/৪৮ প্রাতঃ ৫/৫৩/৫৯, সূ উ ৫/৫/৪০, অ ৬/২১/৪৭, অমৃতযোগ দিবা ৬/৪ গতে ৯/৩২ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৪১ গতে ৯/৮ মধ্যে, বারবেলা ১০/৪/১৩ গতে ১১/৪৩/৪৪ মধ্যে, কালবেলা ১১/৪৩/৪৪ গতে ১/২৩/১৪ মধ্যে, কালরাত্রি ১/৪/১২ গতে ২/২৪/৪২ মধ্যে।
১৭ জেল্কদ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
বিজেপিতে যোগ দিলেন অভিনেত্রী রিমঝিম মিত্র 
বিজেপিতে যোগ দিলেন আরও কয়েকজন অভিনেতা-অভিনেত্রী। এদিন বিজেপির রাজ্য সভাপতির ...বিশদ

04:30:20 PM

মুম্বইয়ের কোলাবায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় একজনের মৃত্যু, জখম ১ 

03:50:12 PM

তৃণমূলের ২১ জুলাইয়ের সভা মেগা ফ্লপ শো: দিলীপ ঘোষ 

03:47:10 PM

টাকা দিয়েও তৃণমূল সভা সফল করতে পারেনি: দিলীপ ঘোষ 

03:42:00 PM

ইন্দোনেশিয়া ওপেনের ফাইনালে হারলেন পি ভি সিন্ধু 
ইন্দোনেশিয়া ওপেনের ফাইনালে জাপানের আকেন ইয়ামাগুচির কাছে ১৫-২১, ১৬-২১ পয়েন্টে ...বিশদ

02:57:15 PM

ওঃ ইন্ডিজ সফরে তিন ফরম্যাটের ভারতীয় দল ঘোষণা
ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের জন্য ঘোষণা করা হল ভারতীয় টেস্ট, ওয়ান ...বিশদ

02:34:49 PM