অমৃতকথা
 

সাধন

 সাধন বহু প্রকার আছে এবং সাধকের অধিকার অনুসারে প্রত্যেকটি সাধনার সার্থকতা আছে। সাধকের যেমন যোগ্যতার তারতম্য আছে, তেমনি তদনুসারে সাধনের ফলগত তারতম্যও আছে। যাঁহারা সাধনার ইতিহাস আলোচনা করেন তাঁহারা তটস্থ দৃষ্টি গ্রহণ করিতে পারে না বলিয়া ইহা ধারণা করিতে পারে না। রুচি ও শক্তির বিকাশ অনুসারে যে সাধক যে মার্গ অবলম্বন করিয়া সাধন পথে চলিতে থাকে তাহার নিকট তৎকালে সেই মার্গের লক্ষ্যই সাধনার চরম সিদ্ধি বলিয়া প্রতীত হইয়া থাকে। অন্য মার্গের সহিত তুলনা করিয়া তারতম্য বিচার করার সামর্থ্য তাহার থাকে না। ইহাই সাধারণ নিয়ম এবং ইহা স্বাভাবিক। তবে স্থিতি বিশেষে ইহার ব্যাভিচারও যে দৃষ্ট হয় না তাহা নহে। আইম বর্ত্তমান প্রবন্ধে আরোপ-সাধন সম্বন্ধে কয়েকটি কথা বলিতে ইচ্ছা করি। আমি যাহা বলিব তাহা যদিও কোন বিশিষ্ট ধারা অবলম্বন করিয়াই বলিব তথাপি তাহার মধ্যে যে গভীর তত্ত্ব নিহিত রহিয়াছে তাহা অবস্থা বিশেষে অন্যান্য সাধনপদ্ধতিতেও আংশিকভাবে লক্ষিত হইতে পারে। আরোপ সাধন যোগি সমাজেও অত্যন্ত নিগূঢ় সাধন রূপে স্বীকৃত হয়-ভাগ্যবান্‌ ভক্ত ভিন্ন অপর ইহার রহস্য অবগত নহে। প্রচলিত অধিকাংশ সাধন আত্মদর্শনের উদ্দেশ্যে অনুষ্ঠিত হয়,—আত্মদর্শন হইলেই সিদ্ধিলাভ হইয়াছে মনে করিয়া অগ্রিম পথে আর কেহ অগ্রসর হয় না। এই আত্মদর্শন প্রাথমিক আত্মদর্শন, পূর্ণ আত্মদর্শন নহে। প্রকৃতি হইতে পৃথকভাবে আত্মাকে দর্শন করাই প্রাথমিক আত্মদর্শনের উদ্দেশ্য। এই প্রারম্ভিক আত্মদর্শন না হওয়া পর্যন্ত আরোপ-সাধনের সূত্রপাতই হয় না। আরোপ সাধনের ফলে যে পূর্ণ আত্ম-সাক্ষাৎকার লাভ হয় তাহা অদ্বৈত আত্মস্বরূপে অবস্থিতি। তাহা বহুদূরবর্তী আদর্শ। কিন্তু প্রাথমিক আত্মদর্শন সাধন পথে অতি উচ্চ অবস্থার সূচনা করিয়া থাকে। যাহা হউক, আরোপ-সাধনের বৈশিষ্ট্য ইহা হইতে কিয়দংশে অনুমতি হইতে পারে।
দীক্ষার সময় গুরু শিষ্যের দক্ষিণ কর্ণে ইষ্টমন্ত্র দান করিয়া থাকেন, ইহা সকলেই জানেন। বস্তুত গুরু যে বাহির হইতে সাধারণ ব্যক্তির ন্যায় শিষ্যকে শব্দ-বিশেষ শুনাইয়া দেন তাহা নহে—তিনি দীক্ষার সময় অন্তরে প্রবিষ্ট হইয়া অন্তর্যামি রূপে শব্দব্রহ্মময় জ্ঞান দান করেন। এই জন্যই দীক্ষাদাতা গুরুকে জ্ঞানদাতা রূপে শাস্ত্রকারগণ বর্ণনা করিয়া থাকেন। এই জ্ঞান পরোক্ষ জ্ঞান, কারণ ইহা শব্দ হইতে উত্থিত হয়।
জ্ঞান দুই প্রকার। একটি শব্দজ অর্থাৎ উপদেষ্টা গুরুর উপদেশ-বাণী হইতে শিষ্যের হৃদয়ে পরোক্ষরূপে উদ্ভূত। ইহাকে আগমোত্থ অথবা আগমজন্য জ্ঞান বলা হয়। কেহ কেহ ইহাকে ঔপদেশিক জ্ঞান বলিয়া থাকেন। দ্বিতীয় প্রকার জ্ঞান শব্দ হইতে উত্থিত হয় না অর্থাৎ গুরু বাক্য হইতে জন্মে না, কিন্তু শিষ্যের বিবেক হইতে আপনা আপনি উদ্ভূত হয়। ইহাকে বিবেকজ জ্ঞান বলে—প্রাতিভ জ্ঞান ইহার নামান্তর। ইহা অনৌপদেশিক। কারণ ইহা অন্যের মুখ-নিঃসৃত উপদেশ-বাণী হইতে উৎপন্ন হয় না। এইটি প্রত্যক্ষ জ্ঞান। সদ্‌গুরুর বিশিষ্ট কৃপার উদয় না হওয়া পর্য্যন্ত এই দ্বিতীয় প্রকার জ্ঞান আবির্ভূত হয় না। বস্তুতঃ এই জ্ঞানই তারক জ্ঞান—ইহার অবিষয় কিছুই থাকে না। ইহাতে একই ক্ষণে অতীত অনাগত ও বর্ত্তমান সকল পদার্থের সর্ব্বাবিধ জ্ঞান বিদ্যমান থাকে। এই জ্ঞানে ক্রমে থাকে না, দেশ-গত অথবা কলাগত ব্যবধানের প্রশ্ন থাকে না,— সর্ব্বজ্ঞত্ব ইহারই নামান্তর। গুরুর মৌখিক উপদেশ হইতে এই প্রকার প্রত্যক্ষ জ্ঞান জন্মে না। এই মহাজ্ঞানের সঞ্চার-কালে সদ্‌গুরু বাহ্যতঃ কোন বাক্য প্রয়োগ করেন না, কিন্তু মৌনী থাকেন, অথচ ইহার এমনি প্রভাব যে ইহাতে যাবতীয় সংশয় ছিন্ন হইয়া অখিল কর্মবন্ধন ক্ষীণ হয় এবং হৃদয়ের মর্ম্ম-প্রবিষ্ট গ্রন্থি সকল ছিন্ন হয়। ‘‘গুরোস্তু মৌনং ব্যাখ্যানং শিষ্যস্তু ছিন্নসংশয়ঃ।’’
পরোক্ষ জ্ঞান লাভ করার পর সাধকের চিত্তে যতদিন পর্য্যন্ত ইষ্ট-সাক্ষাৎকারের জন্য ব্যাকুলতা না জন্মে ততদিন সদ্‌গুরুর কৃপার উদয় হয় না এবং অপরোক্ষ জ্ঞানের আবির্ভাব হইতে পারে না। কঠোর তপস্যা, কৃচ্ছ্র সাধন, অভাবের বেদনা, লাঞ্ছনা, আধি ও ব্যাধি এবং নানা প্রকার পরীক্ষা অতিক্রম করিতে না পারিলে প্রত্যক্ষ জ্ঞানের জন্য উৎকট তৃষ্ণা জন্মে না। গুরুর মঙ্গলময় ইচ্ছাতে সাধককে বহুপ্রকার অবস্থা বিপর্যয়ের মধ্য দিয়া অগ্রসর হইতে হয়। কেহ কেহ এই সকল অবস্থাকে প্রারব্ধের ফল ভোগ বলিয়া ব্যাখ্যা করিয়া থাকেন।
শ্রীগোপীনাথ কবিরাজের ‘বিশুদ্ধবাণী’ (১ম খণ্ড) থেকে
06th  January, 2019
 জ্ঞানদৃষ্টি

জ্ঞানদৃষ্টি নিয়ে বিচার করলে দেখা যায়, চিত্ত সাধারণত মলিন, তাই সেই মলিন চিত্তে শ্রীভগবানের প্রতিমূর্তি প্রতিফলিত হয় না, ঈশ্বরকে দর্শন করা যায় না, সুতরাং আত্মজ্ঞান লাভও হয় না। চিত্তকে (বা মনকে) তাই শ্রীভগবানের পাদপদ্মে স্থিরভাবে বসানো চাই।
বিশদ

 গুণ

 শ্রীঠাকুর সত্যানন্দ বলেছেন—‘‘প্রকৃতির তিনটি গুণ—সত্ত্ব, রজঃ ও তমঃ। সৃষ্টি এই তিনগুণের বৈষম্যের ফল। মানুষের মধ্যে এই তিনটি গুণ খেলা করছে। কারও মধ্যে সত্ত্বগুণের, কারো মধ্যে সত্ত্বগুণের, কারো মধ্যে রজোগুণের, কারো বা ভেতরে তমোগুণের প্রাধান্য। বিশদ

21st  February, 2019
 ধ্যান

আসনে যথাসুখে মেরুদণ্ডকে সোজা করে যথাসম্ভব স্থির হয়ে ভজনে বসবে। প্রথমে মনকে ভ্রুদ্বয়ের মধ্যস্থানে (অজ্ঞাচক্রে) স্থির করবে। যদি প্রারম্ভে তা সম্ভবপর না হয় তবে সর্ব্বপ্রথম নাসাগ্রে দৃষ্টি এবং মনকে স্থির করে, পরে ভ্রুদ্বয়ের মধ্যস্থানে মনকে টেনে আনবে।
বিশদ

20th  February, 2019
 ভগবানের নানা কথা

 তিনটি কারণের জন্য ভগবানকে ডাকবে—
ক) আমাদের নিজেদের মুক্তির জন্য
খ) আমার আশে-পাশের মঙ্গলের জন্য
গ) সারা বিশ্বের মঙ্গলের জন্য বিশদ

19th  February, 2019
জাগতিক পদার্থ

ঈশ্বরের কাছে জাগতিক কোন জিনিস আমাদের প্রার্থনা করা উচিত নয়। ধর, তিনি তা মঞ্জুর করেন। কিন্তু জাগতিক পদার্থ অশান্তিও নিয়ে আসতে পারে। আমরা যখন এই পরম বর-দাতার নিকট যাব তখন কখনোই আমাদের ব্যক্তিগত আকাঙ্খা ও বাসনার সঙ্গে জড়িত পার্থিব জিনিস তাঁর কাছে চাওয়া উচিত হবে না।
বিশদ

18th  February, 2019
শ্রীরামকৃষ্ণদেব

 ঠাকুর একদিন বিদ্যাসাগর মহাশয়ের বাড়ীতে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে গিছলেন। বিদ্যাসাগরকে বললেন—‘‘এতদিনে সাগরে এসে মিশলুম।’’ বিদ্যাসাগর হেসে বললেন, ‘‘তবে কিছু লোনা জল নিয়ে যান।’’ ঠাকুর হেসে বললেন—‘‘না গো, তা হবে কেন? তুমি যে অমৃতের সাগর।’’
বিশদ

17th  February, 2019
অধ্যাত্মবিজ্ঞানাশ্রিত মহাসঙ্গীত

রোশনচৌকির একজন পোঁ ধরে থাকে অপর একজন সাত ফোঁকর দিয়ে নানা রাগিনী বাজায়। তেমনি শ্রীরামকৃষ্ণজীবনে অধ্যাত্মবিজ্ঞানাশ্রিত মহাসঙ্গীত হয়েছিল পটভূমি এবং চিত্রণ, মূর্তিগড়ন, সঙ্গীত-নৃত্য-নাট্য প্রভৃতির বিচিত্র সুষমা তাঁর সমগ্র জীবনে পরিব্যাপ্ত হয়েছিল।
বিশদ

16th  February, 2019
 ধর্মক্ষেত্র

 ধর্মক্ষেত্র কী? বলা হয়েছে, ধর্মক্ষেত্র হ’ল এই শরীরটা। শরীর না থাকলে ধর্ম সাধনা করা যায় না। যে সব মানুষ এই জীবনে অনেক ভাল কাজ করেছেন, যাঁদের আত্মা অনেক উন্নত হয়েছে তাঁরাও যদি মোক্ষ প্রাপ্তির পূর্বেই কালগ্রস্ত হন, মারা যান, তাহলে যতদিন পর্যন্ত না নতুন জীবন পাচ্ছেন ততদিন তাঁদের প্রগতি স্তব্ধ থাকে, বন্ধ থাকে; কারণ শরীর পেলে, শরীর থাকলে তবেই সাধনা হবে।
বিশদ

15th  February, 2019
 অভাব

 মানুষের আসল অভাবটা হচ্ছে ভগবানকে-না-পাওয়ার অভাব—সেই বিরাট অভাবটাই মূল অভাব। কিন্তু ঠাকুর খুব ফাঁকি দিতে জানেন, তাই ছোট ছোট নানান্‌ অভাব দিয়ে সেই বিরাট অভাবকে ভুলিয়ে রাখেন। সব অশান্তির মূল কারণ কিন্তু একটিই—ভগবৎ-অবস্থা থেকে বিচ্যুতি। বিশদ

14th  February, 2019
 মা

 আমার মাকে আমি সহস্ররূপে সহস্র ভাবে সহস্রনয়নে, সহস্রবার দেখিতে চাই। শুধু একটী রূপের ভাতি লইয়া নয়ন-সম্মুখে দাঁড়াইলেই মাতৃ-দর্শন-পিয়াসী সন্তানের পিপাসা মিটিবে না। তাঁর জীবনে শুধু একটী ভাবের লীলা-বৈচিত্র্য দেখিলেই আমি তুষ্ট হইব না, বহু যুগ পরে পরে একটীবার করিয়া মা আবির্ভূতা হইলেই আমার আশা মিটিবে না। বিশদ

13th  February, 2019
শাস্ত্রকারগণ রিপু

 কাম, ক্রোধ, লোভ, মোহ, মদ ও মাৎসর্য্য এই ছয়টীকে শাস্ত্রকারগণ রিপু বলিয়া নির্দ্দেশ করিয়াছেন। শত্রু আরও শত শত আছে, সহস্র সহস্র আছে, কিন্তু এই ছয়টি শত্রুকে যে পদতলে পিষিয়া মারিতে পারে, অপরাপর শত্রু হইতে তাহার আর ভয়ের কোনও কারণ থাকে না।
বিশদ

12th  February, 2019
পবিত্রতা

ধর্মপিপাসু প্রশ্ন করলেন—এ যুগের কথা কি?
শ্রীশ্রীঠাকুর সত্যানন্দদেব উত্তরে বললেন—‘‘এ যুগের কথা পবিত্রতা। পবিত্রতা লাভ করলেই সব হবে।’’
বিশদ

11th  February, 2019
 স্বাধিকার

 জাগতিক প্রভুত্বের উদ্ধত নেশায় তুমি আমাকে পদাঘাতে অপমান করিতে পার, আমি প্রতিঘাত করিতে পারি না বলিয়া সবই নীরবে সহিয়া লইলাম; কিন্তু তুমি যাহা করিলে তাহাতে তোমার স্বাধিকার প্রসার পাইল না, সঙ্কুচিত হইল। বিশদ

10th  February, 2019
উদ্ধব

 উদ্ধব, আমি সর্বজীবের অধীশ্বর। নিখিল জগৎ আমাতে অধিষ্ঠিত। তুমি সংযমী হইয়া সমাচিত-চিত্ত হও, পরমাত্মায় আত্মদর্শন কর—‘‘আত্মন্যাত্মানমীক্ষস্ব’’। তুমি আত্মস্থ হও, আত্মানুভবে সন্তুষ্ট থাক। আগন্তুক কোন বিঘ্ন-বিপদ্‌ তোমাকে বিহত করিতে পারিবে না—
বিশদ

09th  February, 2019
 অনৈক্য

 ঋষির প্রার্থনা ছিল সর্বোত্তম ঐক্যের। এ থেকে কি বোঝায় না যে, ঋষিদের নিজেদের মধ্যে বিরোধ ছিল, অনৈক্য ছিল? জগতের নিয়মেই বিরোধ থাকে। অনৈক্য থাকে। বৈচিত্র্য তো জগতের পরিকল্পনারই অঙ্গ। বিশদ

08th  February, 2019
সংগঠন

সংগঠন বা দলবদ্ধ প্রয়াস অর্থাৎ Team Work একালের যুগলক্ষণ—তাহা স্বামীজী বুঝিয়াছিলেন। মানুষের আধ্যাত্ম-জীবনেও এই দলবদ্ধ প্রচেষ্টা এযুগের বিশেষত্ব, সেকথা এই একবিংশ শতাব্দীর সুরুতে আমরা যথেষ্টই উপলব্ধি করিতেছি। কিন্তু বিশ্বায়নের নামে ধর্মকে পণ্য করা বা Consumerism-এর স্তরে এই অধ্যাত্ম প্রচেষ্টাকে টানিয়া নামাইতে স্বামীজী কখনোই বলেন নাই।
বিশদ

07th  February, 2019
একনজরে
সংবাদদাতা, লালবাগ: প্রায় এক সপ্তাহ ধরে নিখোঁজ থাকার পর বুধবার রানিতলা থানার চর এলাকায় পদ্মা নদী থেকে এক যুবকের মৃতদেহ উদ্ধারের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ায়। পুলিস জানিয়েছে, মৃতের নাম অচিন্ত্যকুমার মণ্ডল (১৯)।  ...

 বার্লিন, ২১ ফেব্রুয়ারি (এপি): জার্মানির মিউনিখে গুলিতে প্রাণ গেল দু’জনের। পুলিস বৃহস্পতিবার জানিয়েছে, এখন ‘পরিস্থিতি সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে’। মিউনিখের সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, শহরের এক বহুতলে গুলি চালানোর ঘটনা ঘটে। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া: ছেলেধরা সন্দেহে গুজবকে কেন্দ্র করে মাঝবয়সি এক মহিলাকে গণপিটুনি দিলেন এলাকার বাসিন্দারা। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বুধবার রাতে রণক্ষেত্রের চেহারা নিল হাওড়ার ...

 ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

হঠাৎ জেদ বা রাগের বশে কোনও সিদ্ধান্ত না নেওয়াই শ্রেয়। প্রেম-প্রীতির যোগ বর্তমান। প্রীতির বন্ধন ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৭৩২: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম রাষ্ট্রপতি জর্জ ওয়াশিংটনের জন্ম
১৯০৬: অভিনেতা পাহাড়ি সান্যালের জন্ম
১৯৪৪: মহাত্মা গান্ধীর স্ত্রী কস্তুরবা গান্ধীর মৃত্যু
১৯৫৮: স্বাধীনতা সংগ্রামী আবুল কালাম আজাদের মৃত্যু
২০১৫: বাংলাদেশে নৌকাডুবি, মৃত ৭০

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.২৯ টাকা ৭১.৯৯ টাকা
পাউন্ড ৯১.২০ টাকা ৯৪.৪৯ টাকা
ইউরো ৭৯.২৫ টাকা ৮২.২৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৪,০৪৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩২,৩০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩২,৭৮৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,৪৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,৫৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৯ ফাল্গুন ১৪২৫, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, শুক্রবার, তৃতীয়া ১১/৪৬ দিবা ১০/৫০। হস্তা ৪৫/২৪ রাত্রি ১২/১৭। সূ উ ৬/৭/৫৪, অ ৫/৩২/৪৪, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৮ মধ্যে পুনঃ ৮/২৪ গতে ১০/৪২ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৮ গতে ২/২৯ মধ্যে পুনঃ ৪/১ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৭/১৩ গতে ৮/৫৪ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৬ গতে ৪/২৬ মধ্যে, বারবেলা ৮/৫৯ গতে ১১/৫০ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/৪১ গতে ১০/১৫ মধ্যে।
৯ ফাল্গুন ১৪২৫, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, শুক্রবার, তৃতীয়া ৩/১১/২৬। উত্তরফাল্গুনী নক্ষত্র প্রাতঃ ৬/১৯/১৫ পরে হস্তা নক্ষত্র রাত্রিশেষ ৫/৭/০, সূ উ ৬/৯/২৪, অ ৫/৩০/৪৯, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪০/১৫ মধ্যে ও ৮/২৫/৪১ থেকে ১০/৪১/৫৮ মধ্যে ও ১২/৫৮/১৫ থেকে ২/২৯/৬ মধ্যে ও ৩/৫৯/৫৮ থেকে ৫/৩০/৪৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/১১/৩৮ থেকে ৮/৪২/৫৬ মধ্যে ও ৩/৩৭/২১ থেকে ৪/২৭/৫৫ মধ্যে, বারবেলা ৮/৫৯/৪৫ থেকে ১০/২৪/৫৬ মধ্যে, কালবেলা ১০/২৪/৫৬ থেকে ১১/৫০/৭ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/৪০/২৮ থেকে ১০/১৫/৩ মধ্যে।
১৬ জমাদিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
গঙ্গায় ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা দম্পতির, মৃত প্রৌঢ় 
মাঝ গঙ্গায় ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করল এক প্রৌঢ় দম্পতি। ...বিশদ

01:20:18 PM

উত্তরপ্রদেশের সাহারনপুর থেকে ২ সন্দেহভাজন জইশ জঙ্গি ধৃত 

01:17:02 PM

আইসিআইসিআই ব্যাঙ্কের প্রাক্তন সিইও চন্দা কোচারের বিরুদ্ধে লুকআউট নোটিস জারি করল সিবিআই

12:51:01 PM

চন্দ্রকোণায় ৬০ নম্বর জাতীয় সড়কে আলু ফেলে অবরোধে কৃষক সভা 

12:40:32 PM

সিওল শান্তি পুরস্কারে ভূষিত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি 

11:56:15 AM

আজ মুক্তি 
নগরকীর্তন: কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায় পরিচালিত ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে আইনক্স, আরডিবি, ...বিশদ

11:09:40 AM