Bartaman Patrika
অমৃতকথা
 

স্বামীজীর শিক্ষার আলোকে শ্রীরামকৃষ্ণ

শ্রীরামকৃষ্ণ যে আমার একান্ত নির্ভর ও গতি! তাঁর ওপর সম্পূর্ণ নির্ভর করে আমি চলেছি।
শ্রীরামকৃষ্ণ সাধারণ বুদ্ধির জ্ঞানগোচর হবার নন, তিনি এতই মহান্‌। তিনি স্বামী বিবেকানন্দের মধ্যে দিয়ে জগতে প্রকট হয়েছেন। স্বামীজীর শিক্ষার আলোক ব্যতীত শ্রীরামকৃষ্ণকে বুঝতে যাওয়া পাগলামি মাত্র।
শ্রীরামকৃষ্ণ-সন্তানগণের পবিত্র সঙ্গ একটা দুর্লভ সুযোগ। জন্মজন্মান্তরের সুকৃতির ফলে তাঁদের আশীর্বাদ লাভ হয়। যাঁরা আশীর্বাদ লাভ করেছেন, তাঁরা প্রকৃতই ভাগ্যবান।
ঠাকুরের ধ্যান কর। ধ্যান করলেই তাঁর ভাবগুলো ভেতরে ঢুকবে। ঠাকুরের আশ্রয়ে যখন এসে পড়েছ, তখন তাঁর কৃপা নিশ্চয় পেয়েছ জানবে।
যতদিন এ শরীরটা আছে, কেবল তাঁর নাম করে যাও। সব চেয়ে সহজ সাধন-সর্বদা তাঁর স্মরণ-মনন।
জপধ্যান দ্বারাই কুণ্ডলিনীর জাগরণ হয় ইহাই সর্বাপেক্ষা সহজ উপায়। আবার গুরুর কৃপায় তো উহা হয়ই, এমন কি ব্রহ্মজ্ঞান পর্যন্ত হয়। গভীর রাতে জপ করতে হয়, আর না হয় ব্রাহ্মমুহূর্তে ও সন্ধ্যায়। জপের সঙ্গে ইষ্টের ধ্যান করবে। শীতকালই ধ্যানজপের সময়। ধ্যানে প্রথমে কল্পনার সাহায্য নিতে হয়, পরে উহা সত্যে পরিণত হয়। উহা হতে সত্য-উপলব্ধি হয়।
ধ্যানকালে ইষ্টমূর্তিকে জ্যোতির্ময় ভাবতে হয়—যেন তাঁর জ্যোতিতে সব আলোকিত। ধ্যান যতই জমবে, ততই ভেতরে আনন্দ। তাঁর দিকে মন যত বেশী যাবে, আনন্দ তত বেশী হবে। তার সংসারের দিকে, ভোগের দিকে মন যত বেশী যাবে, ততই দুঃখ-কষ্ট বেশী হবে।
প্রথম প্রথম ধ্যান তো মনের সঙ্গে যুদ্ধ। মনের স্বভাবতই হচ্ছে এই যে ভগবৎভাব থেকে টেনে এনে বিষয়ে নাবিয়ে দেওয়া।
ব্রাহ্মমুহূর্তে সুষুম্না নাড়ীর ক্রিয়া আরম্ভ হয় বলে দুই নাকে নিশ্বাস বইতে থাকে, তাই মন স্থির হয়। সাধারণত হয় ইড়া, না হয় পিঙ্গলা দ্বারা শ্বাস বইতে থাকে, তাতে মন চঞ্চল হয়। অমাবস্যা, পূর্ণিমা, অষ্টমী তিথিতে এবং কালীপূজা, দুর্গাপূজা ও জগদ্ধাত্রী পূজার দিনে বিশেষ করে জপধ্যান করতে হয়।
নামই এ যুগের সাধন। ভগবান ও তাঁর নাম অভিন্ন। যদি আকুল হয়ে একমনে শুধু তাঁর নামই জপ করা যায়, তবে তাতেই মুক্তিলাভ হয়। নামের অসীম শক্তি। নামের আগুন জ্বলে উঠলে ভেতরকার সমস্ত জঞ্জাল পুড়ে ছাই হয়ে যাবে।
জপের সময় না পেলেও স্মরণ-মনন ছাড়বে না। সারাদিনের মধ্যে দু’ঘণ্টা সময় অন্তত দেওয়া চাই।
নামের শক্তিতে ভোগবাসনা কোথায় ভাসিয়ে নিয়ে যাবে। যারা কাতর হয়ে ডাকে, ভগবান তাদের সংসারের ঝামেলা ক্রমেই কমিয়ে দিয়ে শেষকালে রেহাই দেন। সংসারে থেকেও জানবে, এ আমার ঠিক ঘর নয়, একটা বাসা মাত্র। শ্রীভগবানের পাদপদ্মই আমার আসল ঘর। যে কোন প্রকারেই হোক, সেখানে আমাকে যেতে হবে।
মন্ত্র নামের মধ্য দিয়ে প্রকাশিত ব্রহ্ম ব্যতীত আর কিছুই নয়।
শিষ্যের জ্ঞানলাভ না হওয়া পর্যন্ত প্রকৃত গুরু যিনি তিনি শিষ্যকে পথ দেখাবার জন্যে, তার মুক্তির জন্যে অপেক্ষা করেন।
প্রকৃত গুরু বস্তুতেই শিষ্যগণের ভার গ্রহণ করেন, অলৌকিক উপায়ে তিনি শিষ্যকে রক্ষা করেন। সদ্‌গুরু মন্ত্রদান কালে সেই মন্ত্রের সঙ্গে এক বিশেষ আধ্যাত্মিক শক্তি শিষ্যে সঞ্চার করেন। তা দ্বারা অপেক্ষাকৃত অল্প চেষ্টায় ও অল্প সাধনায় শিষ্য কৃতকার্য হন।
গুরুতে আশ্রিত শিষ্যের কোন অমঙ্গল হতে পারে না। গুরুর কৃপায় তার চতুর্দিক লোহার বেড়া দিয়ে ঘেরা। কোন বিশেষ উন্নত মহাপুরুষের সঙ্গে বিশেষ আধ্যাত্মিক সম্বন্ধে আবদ্ধ হলে, তাঁর জীবনে উপলব্ধ সত্যগুলি অনায়াসে নিজ জীবনে আয়ত্ত করার সুবিধা হয়।
‘কাম জয় করবো, ক্রোধ জয় করবো’ বলে চেষ্টা করলে রিপু জয় করা যায় না। ভগবানে মন দিলে ও-সব আপনা থেকেই কমে যায়।
স্বামী ব্রহ্মানন্দজীর কথা ‘অমিয়বাণী’ গ্রন্থ থেকে
01st  January, 2019
 সাধনা

 ন্যায়, সাংখ্য, পাতঞ্জল, বেদ, বেদান্ত, পুরাণ, স্মৃতি, তন্ত্র আদি সকল শাস্ত্র নিয়ে টানাটানি করো না। তোমায় সর্ব্বশাস্ত্রবিৎ লোকে যদি নাই বলে তাতে ক্ষতি কি? তুমি তোমার সাধনার অনুকূলে শাস্ত্র দেখ, প্রাণ যাতে জাগিয়া উঠে সেই শাস্ত্র পড়, যাতে সর্ব্বদা নাম করতে ইচ্ছা হয়—সেই শাস্ত্রের অনুশীলন কর, যে মহাপুরুষের বাণীতে তোমার ধমনীতে ধমনীতে উৎসাহের স্রোত ছুটে সে মহাপুরুষের বাণী পুনঃ পুনঃ শোন, পড়।
বিশদ

ভগবান লাভ

 একটা কুকুরকেও যদি নিঃস্বার্থভাবে কেউ ভালোবাসে, তাতে সে ভগবানকে লাভ করতে পারে। প্রেম মানুষকে পবিত্র, সুন্দর করে—অন্তর সম্পূর্ণ হিংসাশূন্য না হলে প্রেম আসে না—শত দুঃখে, আঘাতে অপমানে যার অন্তরের শুভ-কামনার শিখা নিভে না—তারই মনে জন্ম নেয় প্রেম। বিশদ

23rd  July, 2019
ঈশ্বর

ঈশ্বর সর্বশক্তিমান—ধুলোকে তিনি সোনা করেন, মাটি থেকে ফুল, মাটির দেহে জ্বালেন অমর প্রাণের শিখা—কত ক্ষুদ্র জীবন তাঁর প্রসাদে পেয়েছে অসামান্যের গৌরব। শব হয় শিব, গলিত পত্রের রস থেকে আবার ঝরে পুষ্পিত নির্ঝর,—এমন কোনও জীবন নেই যা তাঁর অমৃতস্পর্শে ধন্য হয়ে না ওঠে।
বিশদ

21st  July, 2019
ধর্ম ও মানবতা

 ‘‘যদা যদা হি ধর্মস্য গ্লানির্ভবতি ভারত
অভ্যুত্থানমর্ধস্য তদাত্মানং সৃজাম্যহম্‌।
পরিত্রাণায় সাধুনাং বিনাশায় চ দুষ্কৃতাম্‌।
ধর্ম সংস্থাপনার্থায় সম্ভবামি যুগে যুগে।।’’ বিশদ

20th  July, 2019
জ্ঞান

যথার্থ জ্ঞানের দ্বারা জীবের অবিদ্যারূপ উপাধির বিনাশ হয়, অন্য কোন উপায়ে ইহার নাশ হয় না। ব্রহ্মের সহিত আত্মার একাত্বানুভবই জ্ঞান, শ্রুতি ইহা বলেন। আত্মা কি, অনাত্মাই বা কি, এই বিচার যথাযথভাবে করিতে পারিলে আত্মজ্ঞানের উত্‌পত্তি হয়। অতএব জীব ও ব্রহ্মের স্বরূপ বিচারের দ্বারা নির্ণয় করা কর্তব্য।
বিশদ

19th  July, 2019
শ্রীরামকৃষ্ণের সাধনা

 অতীতে যে সকল অবতার-পুরুষ বিশ্বের কল্যাণে আগমন করিয়াছিলেন, গৌতম বুদ্ধ তাঁহাদের অন্যতম। প্রায় পঞ্চবিংশ শতাব্দী পূর্বে যে কঠোর তপস্যা তিনি করিয়াছিলেন, আজিও তাহার জ্বলন্ত দৃষ্টান্ত বর্তমান রহিয়াছে। তিনি যে সময় অবতীর্ণ হইয়াছিলেন, তাঁহার প্রদর্শিত মার্গ বাস্তবিকই তদুপযোগী হইয়াছিল।
বিশদ

18th  July, 2019
 কর্ম এবং জ্ঞান

 প্রাচীন-বেদে আবার তিনটি স্তরবিভাগ দেখা যায়। প্রথমে কর্ম, দ্বিতীয়ত: উপাসনা এবং তৃতীয়ত: জ্ঞান। কর্ম এবং জ্ঞান দ্বারা নিজেকে পরিশুদ্ধ করলেই ভগবান মানুষের অন্তরে প্রতিভাত হবেন। তিনি যে নিরন্তর অন্তরেই অধিষ্ঠিত—এ-উপলব্ধিও তখন তার হবে।
বিশদ

17th  July, 2019
শক্তি 

ভগবান মানুষকে জ্ঞান, বুদ্ধি দিয়েছেন। নিশ্চেষ্ট হয়ে বসে থাকলে কি চলে? কাজ করতে হবে, কুড়েমি করে বসে থেকে বল্‌ছ ভগবান যা করবেন, তাই হবে। আরে! ভগবান তোমায় কোন সাহায্য করবেন না, তোমায় নিজেকে সব করতে হবে। আমি খেলে কি তোমার পেট ভরে? 
বিশদ

16th  July, 2019
সমষ্টিত্বই ঈশ্বর

একত্ব ও সমষ্টিত্ব মূলত এক। আগন্তুক ও আকস্মিক ধর্মেই ব্যাপক বস্তুকে খণ্ডিত করিয়া ব্যষ্টিতে পরিণত করে। অতএব আগন্তুক ধর্ম বিদূরিত হইলেই মেঘনির্মূক্ত সূর্যের ন্যায় আপন স্বরূপে অবস্থান করে। সূর্যের বিকীর্ণ রশ্মিজাল (divergent rays) মূল এক কেন্দ্রে সংহত। জীব নানত্বও (plurality) এক কেন্দ্রে সংহত। এই কেন্দ্রই সমষ্টিত্ব—ইহাই ঈশ্বর।
বিশদ

15th  July, 2019
 সত্তা

 ব্রহ্ম যদি কেবলই নির্গুণ নিরুপাধিক হত, আমাদের সোপাধিক সত্তার প্রত্যক্ষ সত্যটির সাথে তার যদি চিরন্তন বিরোধ থাকত, তবে লয়ই হত যথাযথ পরিসমাপ্তি—কিন্তু প্রেম আর আনন্দ আর আত্মসংবিৎকেও ত গণনার মধ্যে আনতে হবে।
বিশদ

14th  July, 2019
প্রত্যক্ষানুভূতিই ধর্ম্ম

 ভক্তের পক্ষে এই সকল শুল্ক বিষয় জানার প্রয়োজন, কেবল নিজ ইচ্ছাশক্তিকে দৃঢ় করা মাত্র। এতদ্ব্যতীত উহাদের আর কোন উপযোগিতা নাই। বিশদ

13th  July, 2019
 সাধন

জ্ঞান, ভক্তি, ধর্ম নিজে অর্জন করতে হয়; খুব খাটতে হয়, তবেই নিজস্ব হয়, স্থায়ী হয়, মন ভরপুর হয়ে থাকে। কেউ কাউকে এসব দিতে পারে না। সাধন চাই, তবে সিদ্ধিলাভ হয়। যেমন সাধন তেমনি সিদ্ধি। বিনা সাধনে বা চেষ্টায় যা পাওয়া যায় তার গুরুত্ব থাকে না, কদর হয় না, পেয়েও তেমন সুখ হয় না।
বিশদ

12th  July, 2019
 নারী

সমগ্র নারীজাতির এক কঠিন সমস্যা বহুযুগ ধরিয়া সমাধানের অপেক্ষা করিতেছে। মাতৃজাতির উন্নতির প্রতীকরূপে মা সারদা দেবী মূর্ত হইয়া আসিয়েছেন। এবার সে সমস্যার সমাধান অবশ্যম্ভাবী।
বিশদ

11th  July, 2019
মন্ত্রচৈতন্যের সাধন

 পৃথিবীর অগণিত মানুষ রাম, কৃষ্ণ, কালী, যীশু, রামকৃষ্ণ প্রভৃতি দেবদেবী বা অবতারের নাম জপ করে। গুরু-প্রদর্শিত পথে জপ-ধ্যান করা অবশ্যই কর্তব্য। অনেকে দীক্ষা গ্রহণ করে প্রত্যহ নির্দিষ্ট সংখ্যক জপ করে মনে মনে ভাবে— যথেষ্ট। তন্ত্রশাস্ত্রে মন্ত্রকে চৈতন্যময় করবার নানাবিধ সাধন আছে।
বিশদ

10th  July, 2019
অমৃতকথা 

জগতে সৎ চিৎ ও আনন্দের প্রকাশকে আমরা জ্ঞানের ল্যাবরেটরিতে বিশ্লিষ্ট করিয়া দেখিতে পারি, কিন্তু তাহারা বিচ্ছিন্ন হইয়া নাই। কাষ্ঠবস্তু গাছ নয়, তার রস টানিবার ও প্রাণ ধরিবার শক্তিও গাছ নয়। বস্তু ও শক্তিকে একটি সমগ্রতার মধ্যে আবৃত করিয়া যে একটি অখণ্ড প্রকাশ তাহাই গাছ—তাহা একই কালে বস্তুময়, শক্তিময়, সৌন্দর্যময়। গাছ আমাদিগকে যে আনন্দ দেয় সে এইজন্যই।  বিশদ

09th  July, 2019
সার্বভৌম ধর্ম

বৌদ্ধধর্মের পূর্বেও ভারতে এবং অন্যত্র নানা ধর্মের আবির্ভাব হয়েছে। কিন্তু সেগুলি অল্পবিস্তর নিজ নিজ জাতির পরিধির মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। হিন্দু, ইহুদী, পারসীক প্রভৃতি প্রাচীন জাতির প্রত্যেকেরই মহান ধর্ম ছিল। কিন্তু সে-সবই মোটের উপর জাতি-বিশেষের নিজস্ব ধর্ম—সার্বভৌম ধর্ম নয়।
বিশদ

08th  July, 2019
একনজরে
 ওয়াশিংটন, ২৩ জুলাই: প্রাক্তন আল-কায়েদা প্রধান ওসামা বিন লাদেনকে খতম করা নিয়ে নতুন দাবি করলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। লাদেন যে পাকিস্তানে ছিল, তার খতমের ...

সংবাদদাতা, কুমারগ্রাম: ভারী বর্ষণের কারণে আলিপুরদুয়ার পুরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সূর্যনগরের ম্যাকউইলিয়াম আর আর প্রাইমারি ইংরেজি মাধ্যম স্কুল জলমগ্ন হয়ে আছে। ক্লাস রুমের ভেতরেও হাঁটু ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া: এবারই প্রথম হাওড়ার শৈলেন মান্না স্টেডিয়ামে ডুরান্ড কাপের ৬টি ম্যাচ হবে। এর আগে হাওড়ায় এই রকম সর্বভারতীয় ম্যাচ হয়নি। তাই নতুন করে সাজিয়ে তোলা হচ্ছে শৈলেন মান্না স্টেডিয়াম। এর জন্য হাওড়া পুরসভা জোরকদমে স্টেডিয়ামের পরিকাঠামোগত উন্নয়নে বিশেষ ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: রাজ্য সরকারের কর্মীরা কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের হারে বেতন পাবেন কি না, এই বিতর্ক প্রায় দু’বছর ধরে অমীমাংসিত রয়েছে। হাইকোর্টে দু’দফায় এবং পরবর্তীকালে স্টেট অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইব্যুনালে (স্যাট) এর শুনানি হয়। হাইকোর্টের সর্বশেষ রায় অনুযায়ী, এই বিষয়টির চূড়ান্ত ফয়সালা ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ব্যয় বৃদ্ধি পাবে। কর্মক্ষেত্রে কোনও বিরূপ অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে। বিদ্যার্থীর শুভ ফল লাভ হবে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮০২- ফরাসি লেখক আলেকজান্দার দুমার জন্ম
১৮৭০- সাহিত্যিক কালীপ্রসন্ন সিংহের মৃত্যু
১৮৮৪- ‘হিন্দু পেট্রিয়টে’-র সম্পাদক কৃষ্ণদাস পালের মৃত্যু
১৮৯৮- সাহিত্যিক তারাশংকর বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৩৭- অভিনেতা মনোজ কুমারের জন্ম
১৯৪৫- উইপ্রোর কর্ণধার আজিম প্রেমজির জন্ম
১৯৬৯- আমেরিকান অভিনেত্রী ও সঙ্গীতশিল্পী জেনিফার লোপেজের জন্ম
১৯৮০- মহানায়ক উত্তম কুমারের মৃত্যু
২০০৩- অভিনেতা শমিত ভঞ্জের মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৮.২০ টাকা ৬৯.৮৯ টাকা
পাউন্ড ৮৪.৪০ টাকা ৮৭.৫৪ টাকা
ইউরো ৭৫.৮৭ টাকা ৭৮.৮০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৫,৪২৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৩,৬১০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৪,১১৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪১,১৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪১,২৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৭ শ্রাবণ ১৪২৬, ২৪ জুলাই ২০১৯, বুধবার, সপ্তমী ৩২/২৩ অপঃ ৬/৫। রেবতী ২৬/২৪ দিবা ৩/৪২। সূ উ ৫/৮/৯, অ ৬/১৭/৫৩, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৩ মধ্যে পুনঃ ৯/৩১ গতে ১১/১৭ মধ্যে পুনঃ ৩/৪০ গতে ৫/২৬ মধ্যে। রাত্রি ৭/১ গতে ৯/১১ মধ্যে পুনঃ ১/৩১ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৮/২৫ গতে ১০/৪ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৩ গতে ১/২২ মধ্যে, কালরাত্রি ২/২৬ গতে ৩/৪৭ মধ্যে।
৭ শ্রাবণ ১৪২৬, ২৪ জুলাই ২০১৯, বুধবার, সপ্তমী ২২/২১/১৭ দিবা ২/২/৫৯। রেবতীনক্ষত্র ১৯/৪২/৮ দিবা ১২/৫৯/১৯, সূ উ ৫/৬/২৮, অ ৬/২১/১৮, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৭ মধ্যে ও ৯/৩২ গতে ১১/১৬ মধ্যে ও ৩/৩৫ গতে ৫/১৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৫৫ গতে ৯/৭ মধ্যে ও ১/৩২ গতে ৫/৭ মধ্যে, বারবেলা ১১/৪৩/৫৩ গতে ১/২৩/১৪ মধ্যে, কালবেলা ৮/২৫/১০ গতে ১০/৪/৩২ মধ্যে, কালরাত্রি ১/২৫/১০ গতে ৩/৪৫/৪৯ মধ্যে।
 ২০ জেল্কদ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ইতিহাসে আজকের দিনে
১৮০২- ফরাসি লেখক আলেকজান্দার দুমার জন্ম১৮৭০- সাহিত্যিক কালীপ্রসন্ন সিংহের মৃত্যু১৮৮৪- ...বিশদ

07:50:00 AM

আজকের রাশিফল
মেষ: সম্পত্তি নিয়ে মামলা-মোকদ্দমার সম্ভাবনা আছে। বৃষ: কর্মক্ষেত্রে স্থিতাবস্থা বজায় ...বিশদ

07:45:00 AM

কর্ণাটক: আস্থা ভোটে হার কংগ্রেস-জেডি(এস) জোটের 

23-07-2019 - 07:47:35 PM

কর্ণাটক বিধানসভায় আস্থাভোট শুরু হল 

23-07-2019 - 07:22:00 PM

রাজাবাজারে গুলি চালানোর ঘটনায় ধৃত ২ 

23-07-2019 - 06:24:00 PM

আজ ও কাল বেঙ্গালুরু শহরে জারি ১৪৪ ধারা, বন্ধ সব পানশালা 

23-07-2019 - 06:04:22 PM