Bartaman Patrika
অমৃতকথা
 

জ্ঞান

যথার্থ জ্ঞানের দ্বারা জীবের অবিদ্যারূপ উপাধির বিনাশ হয়, অন্য কোন উপায়ে ইহার নাশ হয় না। ব্রহ্মের সহিত আত্মার একাত্বানুভবই জ্ঞান, শ্রুতি ইহা বলেন। আত্মা কি, অনাত্মাই বা কি, এই বিচার যথাযথ ভাবে করিতে পারিলে আত্মজ্ঞানের উৎপত্তি হয়। অতএব জীব ও ব্রহ্মের স্বরূপ বিচারের দ্বারা নির্ণয় করা কর্তব্য। অত্যন্ত কর্দমাক্ত জল যেমন (ফটকিরি প্রভৃতির সংযোগে) কাদা থিতাইয়া যাওয়ার পর স্বচ্ছ ও নির্মল হইয়া যায়, অবিদ্যা-দোষ দূরীভূত হইলে আত্মাও সেইরূপ স্ব-মহিমায় প্রকাশ পায়।
মিথ্যাজ্ঞানের নিবৃত্তি হইলে জীবের অন্তরতম আত্মাই যে নিত্যশুদ্ধ ব্রহ্ম, ইহা প্রত্যক্ষরূপে অনুভূত হয়। এই কারণে সম্যগ্‌রূপে বিচারের দ্বারা আত্মাতে আরোপিত অন্তঃকরণাদি-অনিত্যবস্তুসমূহের নিরাস করা অবশ্য কর্তব্য। পূর্বে যেসকল যুক্তি দেওয়া হইয়াছে সেইসকল-অনুসারে বিজ্ঞানময়কোশ চিদাত্মা হইতে পারে না। এই বিজ্ঞান ময়-কোশ বিকারশীল (কাম, সংকল্প প্রভৃতি বিকার ইহাতে উৎপন্ন হয়)। ইহা জড়, দেশকালের দ্বারা সীমাবদ্ধ, দৃশ্যবস্তু এবং ব্যভিচারী (সর্বকালে একরূপ থাকে না—যেমন সুষুপ্তিকালে ইহা প্রকাশ পায় না)। এই প্রকার অনিত্য বস্তু কখনও নিত্য আত্মার সহিত অভিন্ন হইতে পারে না।
বাঞ্ছিত বস্তুর লাভে প্রকাশপ্রাপ্ত, প্রিয়-মোদ-প্রমোদরূপে পরিণত, স্থিরীভূত এবং অন্তর্মুখ-তমোবৃত্তি আনন্দ-স্বরূপ আত্মার দ্বারা প্রতিবিম্বিত হইয়া আনন্দময়-কোশরূপে পরিণত হয়। সৌভাগ্যশালী ব্যক্তিগণের পুণ্যকর্মের অনুভবের সময় এই আনন্দময় কোশ স্বতঃ প্রকাশ পায়। দেহধারী জীব-মাত্র বিনা চেষ্টায় এই আনন্দময়-কোশে সুখানুভব করে। সুষুপ্তিকালে আনন্দময়-কোশের বিশেষ প্রকাশ হয়। স্বপ্নদর্শনের সময় বা জাগ্রৎকালে বাঞ্ছিত বস্তুসমূহের দর্শন-শ্রবণাদির ফলে ইহার অল্প প্রকাশ দেখা যায়।
তমোগুণরূপ উপাধিযুক্ত বলিয়া, প্রকৃতির পরিণাম বলিয়া, পূর্বকৃত পুণ্যকর্মসমূহের ফলে উৎপন্ন বলিয়া এবং অন্নময়াদি বিকারসমূহের মধ্যে বর্তমান বলিয়া এই আনন্দময় কোশও পরমাত্মা হইতে পারে না। যুক্তির দ্বারা এবং শ্রুতিপ্রমাণের সহায়ে অন্নময়াদি পাঁচটি কোশ আত্মা নয় ইহা প্রমাণিত হইলে মিথ্যা বলিয়া প্রমাণিত এই কোশসমূহ যাঁহার আশ্রয়ে প্রকাশিত হয়, সেই স্বয়ংপ্রকাশ চৈতন্যস্বরূপ আত্মা অবশিষ্ট থাকেন। পঞ্চকোশ হইতে ভিন্ন স্বপ্রকাশ এই যে আত্মা, তিনিই অবস্থাত্রয়ের সাক্ষী, তিনি নির্বিকার, নিরঞ্জন এবং আনন্দস্বরূপ। বিদ্বান্‌ ব্য঩ক্তি (শ্রুতি, যুক্তি ও অনুভবসহায়ে) এই শুদ্ধ আত্মাকে স্বীয় আত্মার সহিত অভিন্ন বলিয়া জানিবেন।
শিষ্য বলিলেন—হে গুরো, পাঁচটি কোশই মিথ্যা বলিয়া প্রমাণিত এবং সেইগুলি আত্মা নয় বলিয়া স্থিরীকৃত হওয়ার ফলে, নিজের মধ্যে এবং স্থূল ও সূক্ষ্ম জগতের মধ্যে সবকিছুর অভাব ব্যতীত অন্য কিছু দেখিতে পাই না। অতএব আত্মবিচারশীল ব্যক্তির পক্ষে নিজের আত্মস্বরূপে সত্যবস্তুরূপে জ্ঞেয় কোন বস্তু আছে কিংবা নাই?
শ্রীগুরু বলিলেন—হে বুদ্ধিমান শিষ্য, তুমি ঠিকই বলিয়াছ। তুমি বিচারে নিপুণ হইয়াছ। সেই অহংপ্রভৃতি বিকারসমূহ, সে সব কিছু জ্ঞানগোচর বিষয়, জাগ্রৎকালে (যখন তাহাদের প্রকাশ দেখা যায় তখন) এবং পরে সুষুপ্তিকালে (যখন তাহাদের অভাব হয়, প্রকাশ থাকে না, তখনও) যাঁহার দ্বারা অনুভূত হয়, অথচ যিনি নিজে অন্য কিছুর অনুভবের বিষয় হন না, সূক্ষ্ম বুদ্ধির সহায়ে তুমি সেই জ্ঞাতা আত্মাকে জ্ঞান।
কোন বিষয় যদি কেহ দর্শন করে তবেই বলা যায় যে, সে সেই বিষয়ে সাক্ষী। কিন্তু যে বিষয় যে ব্যক্তি দেখে নাই, সে সেই বিষয়ের সাক্ষী হইতে পারে না। যে হেতু ‘নিজেই নিজের সাক্ষী’ এই ভাব নিজের দ্বারাই অনুভূত হয়, সেই হেতু জীবাত্মাই সাক্ষাৎ পরব্রহ্ম; জীবাত্মা পরমাত্মা হইতে ভিন্ন আর কিছু নয়। যিনি প্রত্যগাত্মারূপে ‘আমি আমি’ এই প্রকারে বহুভাবে সকলের অন্তরে প্রকাশ পাইয়া জাগ্রৎ, স্বপ্ন ও সুষুপ্তি-কালে বিশেষভাবে প্রকাশ পান এবং বিবিধরূপে পরিণামশীল অহংকার, বুদ্ধি প্রভৃতির স্বয়ং দ্রষ্টারূপে বর্তমান থাকিয়া নিত্য আনন্দ ও চৈতন্যরূপে নিজেকে প্রকাশিত করেন, তাঁহাকে এই নিজের আত্মা বলিয়াই জান।
স্বামী বেদান্তানন্দ অনুদিত ‘বিবেকচূড়ামণি’ থেকে
28th  December, 2018
 সৃষ্টি

 এখানে অনাদি ভাঙ্গাগড়ার খেলা চলেছে, এর ভিতর দিয়েই এগিয়ে চলেছে সৃষ্টি—এক একটি ধ্বংসের পর আবার সৃষ্টি জাগছে—এক একটি মৃত্যুর ভিতর দিয়ে জাগছে নবতর জীবন, আসছে নতুন মানুষ—মানুষের মধ্যে জাগছে দেবতা। এই সৃষ্টি রচনায় একদল লোকের কাজ হলো ভাঙ্গা, একদল লোক গড়ার কাজে ব্যস্ত।
বিশদ

অমৃতকথা 

মাদ্রাজের এগমোর স্টেশনে ট্রেন পৌঁছালে দেখা গেল হাজার হাজার ব্যক্তি স্বামীজীকে স্বাগত জানাবার জন্য সমবেত। তিনি মাদ্রাজে আসবেন জেনেই নগরবাসীরা তাঁর সংবর্ধনার সমুচিত ব্যবস্থায় নিরত; মাদ্রাজ হাইকোর্টের বিচারপতি সুব্রহ্মণ্য আয়ার প্রভৃতি সম্ভ্রান্ত ও বিশিষ্ট ব্যক্তি এই কার্যের নেতৃত্ব গ্রহণ করেছিলেন এবং আয়ার মহাশয়ের সভাপতিত্বে একটি অভ্যর্থনা সমিতি গঠিত হয়েছিল।  বিশদ

25th  March, 2019
 যোগ

প্রথমেই কর্ম-যোগের কথা বলতে হয়। এই যোগে কর্মফলে অনাসক্তির উপর সমধিক গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। একে বলে নিষ্কাম কর্ম। এই কর্ম যত সহজ বলে মনে হয় আসলে তত সহজ এটা নয়। এর জন্য প্রয়োজন অসাধারণ ইচ্ছা-শক্তি। তবে কর্মফলে অনাসক্ত হবার সহজতর উপায়ও আছে।
বিশদ

24th  March, 2019
ভক্তি  

পরমহংসদেব কখন কখনও ব্রাহ্মসমাজে আসিয়া উপাসনাদি শ্রবণ করিয়া যাইতেন। একদা উপাসনান্তে তিনি কেশববাবুকে ডাকিয়া কহিয়াছিলেন, ‘‘কেশব, তুমি বলিলে, ‘ভক্তি নদীতে প্রীতিকমল প্রস্ফুটিত হইলে’—ভাল, জিজ্ঞাসা করি, নদীতে কি কখনও পদ্ম ফুটিতে দেখিয়াছ?  
বিশদ

23rd  March, 2019
 অনন্ত শক্তি

ঠাকুরই ছদ্মবেশে শান্তির পথ দেখাবার জন্য, মূর্খের সাজে এসেছিলেন। পাণ্ডিত্যের গর্ব্ব চূর্ণ করিবার জন্যই তাঁর আবির্ভাব। হও সরল, মন মুখ এক করে তাঁর চিন্তা কর। এই শরীরেই প্রভুর দর্শন লাভ ক’রে ধন্য হতে হবে তোমাদের। তাঁর নামে অসীম শক্তি অনুভব কর্‌বে। বিশদ

20th  March, 2019
জীবন 

ভগবানকে কর তুমি তোমার জীবনের কেন্দ্র। তোমার শরীরের প্রতিটি অণু-পরমাণুতে যৌবন আসিয়া ডাক ছাড়িতেছে,—‘‘আমি আসিয়াছি।’’ তুমিও তাহার সঙ্গে সঙ্গে ডাক ছাড়িয়া বলিতে সমর্থ হও,—‘‘আমার দেহ-মন্দিরে ভগবানও আসিতেছেন।’’ যৌবনকে তুমি সম্বর্দ্ধনা কর, তোমার জীবনের বসন্তকে তুমি ব্যর্থ যাইতে কেন দিবে? 
বিশদ

19th  March, 2019
অমৃতকথা 

শুরুতেই মনে রাখা দরকার যে আমাদের জীবনের এক তৃতীয়াংশেরও বেশী ঘুমের মধ্যে কেটে যায়—কাজেই, যে সময়টা ঘুমে অতিবাহিত করি তার সম্বন্ধে বিশেষভাবে আমাদের দৃষ্টি দেওয়া উচিত। শারীরিক নিদ্রার কথাই বলছি, কেননা যখন দেহ ঘুমিয়ে পড়ে তখন আমাদের সারা সত্তা ঘুমিয়ে পড়ে বিশ্বাস করলে ভুল হবে।  বিশদ

18th  March, 2019
জীবন 

তোমার জীবনের অর্ঘ্য ভগবানের পায়ে অর্পণ কর। ইহা তোমার জীবনের প্রথম এবং প্রধান কর্ত্তব্য। তার পরে ইহা নির্ম্মাল্য হইয়া জগতের প্রতিজনের সংস্পর্শে আসুক। অকপটে যে জীবন ভগবানে উৎসর্গীকৃত হইয়াছে, সে জীবনের সংস্পর্শে যে যখনি আসুক, নির্ম্মাল্যের পবিত্রতাকে সম্মান করিয়া চলিতে সে বাধ্য হইবে। 
বিশদ

17th  March, 2019
ভগবান্‌

একমাত্র ভগবানে বিশ্বাস করিলেই যে সব গোল মিটিয়া যায়। সাধুদের তোমার প্রতি কৃপা আছেই জানিবে। আর ভগবান্‌ অন্তর্য্যামী, তিনি সকলই দেখিতেছেন। সরল অকপটভাবে তাঁহার কাছে সমস্ত আব্‌দার আবেদন করিবে। আপন হ’তেও আপন তিনি, তোমার প্রার্থনা শুনিবেই শুনিবেন। তাঁহাকে আশ্রয় করিয়া সাধন ভজন করিতে থাক। তাঁহার কৃপা লাভ করিয়া কৃতার্থ হইয়া যাইবে।  বিশদ

16th  March, 2019
আহার-শুদ্ধি

 মানুষের যে স্বাভাবিক বৃত্তি, স্থিতি, ভাব তৈরী হয় সেটি তৈরী হওয়ার পিছনে কিছু কারণ থাকে, তার মধ্যে আহারও একটি কারণ। কথিত আছে যে, ‘‘যেমন অন্ন খাবে, তেমন মন হবে।’’ সুতরাং আহার যত সাত্ত্বিক হয়, মানুষের বৃত্তিও ততই সাত্ত্বিক হয় অর্থাৎ সাত্ত্বিক বৃত্তি গড়ে তুলতে সাহায্য করে সাত্ত্বিক আহার।
বিশদ

15th  March, 2019
অহংকার

বর্ষাকালে বায়ুর দ্বারা চালিত হইয়া মেঘ যেমন শত অনর্থের সৃষ্টি করে, সেই প্রকাপে মহাশক্তিশালী অহংকার মূলসহিত কর্তিত হইলেও মনের দ্বারা যদি ক্ষণকালের জন্যও স্মৃত হয় তো পুনরায় বাঁচিয়া উঠিয়া শত শত চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে। সংযত করার পর অহংকাররূপ শত্রুকে বিষয়চিন্তার আর কোন অবকাশ দিবে না।
বিশদ

14th  March, 2019
অমৃতকথা 

প্রশ্ন: ভাল দিন আর খারাপ দিন কোন্‌঩টি?
উত্তর: ‘যদচ্যুতকথালাপরসপীযূষবর্জিতম্‌।
তদ্দিনং দুর্দিনং মন্যে মেঘাচ্ছন্নৎ ন দুর্দিনম্‌।।’ —(শ্রীমদ্‌ভাগবতম্‌)   বিশদ

13th  March, 2019
‘মন্দির’

সত্যকে জানবার জন্য অথবা নিরাকার-ব্রহ্মে একাত্ম হবার জন্য এই মুহূর্তে যে সহজ-সরল অধ্যায় বা সোপানের প্রয়োজন, তা হল মন্দির। সংস্কৃতের ‘মদিঙ্‌’ ধাতুগত শব্দ থেকে ‘মন্দির’ শব্দ নিরূপিত হয়েছে। যার অর্থ হল—যেখানে দেব-দেবীর ঐকান্তিক স্ততি-বন্দনা করা হয়।
বিশদ

12th  March, 2019
অমৃতকথা 

ভগবান সর্বময়। সংসারীর পক্ষে তাঁর জীবমূর্তিকে সেবা ও দানই পরম সাধন। কাঠ, পাথর—এসবও জীব (সুপ্ত চৈতন্য)। পশু, পাখি, কীট, পতঙ্গকেও সেবা করবেন। বৃক্ষলতাকে জল দেবেন। এই কাজগুলো ভক্তিভরে করবেন—যেমন ঠাকুরকে স্নান করান—এই ভাব নিয়ে।  বিশদ

11th  March, 2019
 শাস্ত্র

 শ্রীরামকৃষ্ণ বলতেন: ‘‘শাস্ত্র পড়ে হদ্দ অস্তিমাত্র বোধ হয়।’’ আবার বলেছেন: ‘‘শাস্ত্রে আভাসমাত্র পাওয়া যায়।’’ শাস্ত্র পথনির্দেশক বৈ তো নয়। শ্রীরামকৃষ্ণ বলেছেন: ‘‘শাস্ত্র, বই এসব কেবল ঈশ্বরের কাছে পহুঁছিবার পথ বলে দেয়।’’
বিশদ

10th  March, 2019
উপনিষদ

 মিথ্যার এই আবরণকে ভাঙবার জন্য ঔপনিষদী ধারায় কোনো কৃত্রিম উপায়ের আশ্রয় নিতে বলা হয়নি। প্রকৃতির স্বাভাবিক ধারায় চেতনার আকুঞ্চন-প্রসারণ, গুটিয়ে আনা ও ছড়িয়ে পড়ার দিকে দৃষ্টি রেখেই এই আবরণ মুক্ত করার প্রয়াস দেখতে পাই উপনিষদে।
বিশদ

09th  March, 2019
একনজরে
 শারজা, ২৫ মার্চ: অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চের ব্যাক টু ব্যাক সেঞ্চুরি একদিনের সিরিজে পাকিস্তানকে পরাজিত করল। দ্বিতীয় একদিনের ম্যাচেও অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক ১৪৩ বলে ১৫৩ রানের একটি অপরাজিত ইনিংস উপহার দেন। ...

যাঁরা আমাদের স্কুলে ফেরত পাঠাতে চায় তাঁদের বলতে চাই, কোনও পার্থক্য গড়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে আমরা সত্যিই খুব ছোট। কিন্তু, আমাদের আন্দোলন প্রতিদিনই কলেবরে বাড়ছে। এই ...

 ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...

  সংবাদদাতা, মালবাজার: ২০১৬ সালে বিধানসভা নির্বাচনের কয়েক মাস আগে ধূপগুড়ি ব্লকের বানারহাট-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের ডুডুমারি বস্তিকে দত্তক নিয়ে মডেল ভিলেজ হিসাবে গড়ে তোলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন রাজ্যসভার সংসদ সদস্য কংগ্রেসের প্রদীপ ভট্টাচার্য। কিন্তু আজও মডেল ভিলেজ গড়ে না ওঠায় বাসিন্দারা ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মপ্রার্থীদের বিভিন্ন দিক থেকে শুভ যোগাযোগ ঘটবে। হঠাৎ প্রেমে পড়তে পারেন। কর্মে উন্নতির যোগ। মাঝে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮১৪: গিলেটিনের আবিষ্কর্তা জোসেফ ইগনেস গিলেটিনের মৃত্যু
১৮২৭: জার্মান সুরকার এবং পিয়ানো বাদক লুডউইগ ভ্যান বেইটোভেনের মৃত্যু
১৯৯৩: চিত্র পরিচালক ধীরেন্দ্রনাথ গঙ্গোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৭১: স্বাধীনতা ঘোষণা করল বাংলাদেশ, শুরু হল মুক্তিযুদ্ধ
১৯৭৪: চিপকো আন্দোলনের সূচনা
১৯৯৯: সুরকার আনন্দশঙ্করের মৃত্যু
২০০৬: রাজনীতিবিদ অনিল বিশ্বাসের মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৮.০৭ টাকা ৬৯.৭৬ টাকা
পাউন্ড ৮৯.১৭ টাকা ৯২.৬১ টাকা
ইউরো ৭৬.৫৮ টাকা ৭৯.৫৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩২,৬৫০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩০,৯৭৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩১,৪৪০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৪৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৫৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১১ চৈত্র ১৪২৫, ২৬ মার্চ ২০১৯, মঙ্গলবার, ষষ্ঠী ৩৫/৫৬ রাত্রি ৮/২। অনুরাধা ৩/৫৯ দিবা ৭/১৫। সূ উ ৫/৩৯/২৬, অ ৫/৪৫/৫০, অমৃতযোগ দিবা ৮/৪ গতে ১০/৩০ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৫ গতে ২/৩২ মধ্যে পুনঃ ৩/২০ গতে ৪/৫৭ মধ্যে। রাত্রি ৬/৩৩ মধ্যে পুনঃ ৮/৫৬ গতে ১১/১৯ মধ্যে পুনঃ ১/৪১ গতে ৩/১৬ মধ্যে, বারবেলা ৭/৯ গতে ৮/৪০ মধ্যে পুনঃ ১/১৩ গতে ২/৪৪ মধ্যে, কালরাত্রি ৭/১৪ গতে ৮/৪৪ মধ্যে।
১১ চৈত্র ১৪২৫, ২৬ মার্চ ২০১৯, মঙ্গলবার, ষষ্ঠী রাত্রি ১২/১১/১৩। অনুরাধানক্ষত্র ১১/২৩/৩৭, সূ উ ৫/৩৯/৪৩, অ ৫/৪৫/৩, অমৃতযোগ দিবা ৮/৪/৪৭ থেকে ১০/২৯/৫১ মধ্যে ও ১২/৫৪/৫৫ থেকে ২/৩১/৩৭ মধ্যে ও ৩/১৯/৫৯ থেকে ৪/৫৬/৪২ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৩২/৪২ মধ্যে ও ৮/৫৩/৩৮ থেকে ১১/১৪/৩৪ মধ্যে ও ১/৩৫/৩০ থেকে ৩/১০/৪৭ মধ্যে, বারবেলা ৭/১০/২৩ থেকে ৮/৪১/৩ মধ্যে, কালবেলা ১/১৩/৩ থেকে ২/৪৩/৪৩ মধ্যে, কালরাত্রি ৭/১৪/২৩ থেকে ৮/৪৩/৪৩ মধ্যে।
১৮ রজব

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
গ্রেটার নয়ডায় একটি কারখানায় আগুন, অকুস্থলে দমকলের ৬টি ইঞ্জিন

03:40:50 PM

দিল্লির শাহিনবাগে বহুতলে আগুন, মৃত ২

03:21:01 PM

রাজাবাগান এলাকায় ভেজাল মশলা তৈরির কারখানার হদিশ 

03:15:14 PM

হাওড়ার ব্যাঁটরায় ২২ কেজি গাঁজা সহ গ্রেপ্তার ১ 

03:11:58 PM

নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করতে আসছেন কেকেআর কর্ণধার শাহরুখ খান 

03:09:08 PM

হাওড়ার হালিশহর প্রাইমারি স্কুলে আগুন 
হাওড়ার হালিশহর প্রাইমারি স্কুলে আগুন। মিড ডে মিলের রান্না থেকেই ...বিশদ

01:54:00 PM