Bartaman Patrika
রাজ্য
 

পদ চাই না, কিন্তু জনগণের সরকার গড়ার
দায়িত্ব বাংলা অবশ্যই পালন করবে: মমতা 

৩৪ বছরের বাম জমানার অবসান ঘটিয়ে বিরোধী নেত্রী থেকে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজনীতি মানে তাঁর কাছে মা-মাটি-মানুষের উন্নয়ন। মানুষের বিপদে ছুটে যাওয়া। পাশে থাকা। তাই ধর্মীয় গেরুয়াকরণের তাস তাঁকে ভোটযুদ্ধে এতটুকু টলাতে পারে না। যাবতীয় অভিযোগ উড়িয়ে তাই তিনি ডাক দিতে পারেন রাজ্যের ৪২টি আসন দখলের। মানুষের ভরসায়, ভালোবাসায়। শুধু এই কারণেই তিনি কাঁধে তুলে নিতে পারেন জনগণের সরকার গঠনের গুরুদায়িত্ব। সব প্রতিবন্ধকতা এড়িয়ে। এই কঠিন পথচলার কথা বললেন একান্ত সাক্ষাৎকারে। শুনলেন দেবাঞ্জন দাস।

 প্রশ্ন: অফুরন্ত প্রাণশক্তি। এক জেলা থেকে অন্য জেলায় ছুটে যাচ্ছেন। একের পর এক সভা। পদযাত্রা আর রোড শো। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কখনও ক্লান্ত হন না। এর রহস্যটা কী?
 মমতা: রহস্য আবার কী! এভাবেই তো চলছি বছরের পর বছর ধরে। মানুষের সঙ্গে থাকলে সবসময় উজ্জীবিত হই। মানুষই আমার প্রাণশক্তি, প্রাণের স্পন্দন। যত পরিশ্রমই করি না কেন, মানুষের হাসিমুখ দেখলেই চাঙ্গা হয়ে যাই। যতদিন বাঁচব, মানুষের জন্য কাজ করে যাব। যেদিন মানুষ চাইবে না, তাড়াতে হবে না, নিজেই চলে যাব।
 প্রশ্ন: আমাদের সংবিধান ধর্মনিরপেক্ষতার কথা বলে। কিন্তু এই নির্বাচনে গেরুয়া শিবির নানাভাবে মেরুকরণের চেষ্টা চালাচ্ছে বলে অভিযোগও উঠেছে। উল্টোদিকে ভোটপ্রচারে এসে মোদি-শাহ জুটি একদিকে অভিযোগ করছেন, এরাজ্যে পুজো করতে দেওয়া হয় না এবং পাশাপাশি আপনি বিশেষ একটি সম্প্রদায়কে তোষণ করে চলেন। এর মোকাবিলা করছেন কী ভাবে?
 মমতা: এরা কেন্দ্রে সরকার গড়বে বলে ভোট চাইছে। দেশের সংবিধানই শেষ কথা। অথচ সেই সংবিধানকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে ভোটের জন্য সাম্প্রদায়িক কার্ড খেলা হচ্ছে, চলছে মেরুকরণ। হিন্দুরাষ্ট্র গঠনের জন্য বিজেপিকে ভোট দিন—এরকম প্রচারও চালানো হয়েছে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে। ঘৃণা, বিদ্বেষ আর ভাইয়ের সঙ্গে ভাইকে লড়ানোর উস্কানি দিয়ে ভোট চাওয়া! ভয়ঙ্কর এই দল... বিজেপিই শুধু পারে এটা। বারবার এই একই কথা বলেছি। কী বলব বলুন তো! এখানে নাকি দুর্গাপুজো, সরস্বতী পুজো কিছুই করতে দেওয়া হয় না। হোমওয়ার্কটুকুও করে আসে না এরা। বাংলার ঐতিহ্য দুর্গাপুজো। সরস্বতী আর লক্ষ্মীপুজো এখানে প্রতি ঘরে হয়। শুধু হিন্দুদের পুজো কেন, বাংলায় প্রতিটি ধর্মীয় উৎসব একে অপরের সঙ্গে মিলে পালন করা হয়। ঈদ, বড়দিন, গুরু নানকের জন্মদিন, ছটপুজো, কালীপুজো, আর দেওয়ালি বাংলার সবার উৎসব। আর তোষণের যে অভিযোগ? যাঁরা এসব বলছেন, তাঁদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এবং কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরাও রয়েছেন। প্রত্যেকেই সংবিধানের নামে শপথ নিয়েছেন। সংবিধানের প্রতি দায়বদ্ধতা এবং দ্বেষ এবং পক্ষপাতমূলক আচরণ করব না বলে শপথও নিয়েছেন। অথচ তাঁরাই ভোটপ্রচারে ভাগাভাগির কথা বলছেন, উৎখাতের কথা বলছেন, সম্প্রদায়ের মধ্যে বিভাজনের চেষ্টা চালাচ্ছেন। একটু দম নিয়ে ফের বললেন মমতা, এখানে পুজো করতে দেওয়া হয় না, এহেন প্রচার বাংলার আত্মসম্মানকে আঘাত করেছে। তাই দেখবেন, প্রতিটি নির্বাচনী সভায় আর যে কথাই বলি না কেন, বাংলার মা-বোন, ভাইদের কাছ থেকে জানতে চাইছি, এখানে পুজো নির্বিঘ্নে হয় কি না। এ প্রশ্ন করা মাত্রই সমস্বরে সভাস্থল থেকে জবাব মিলেছে, এসব মিথ্যা প্রচার, এখানে পুজো ঘরে ঘরে হয়। জবাব তো বাংলার মানুষই দিচ্ছেন, আমি আর কী বলব! আর তোষণ! কীসের তোষণ! এখানে হিন্দু-মুসলমান সবার জন্য কাজ করছে মা-মাটি-মানুষ। এখানে উন্নয়নটাই সরকারের অভিমুখ। কোনও ভাগাভাগি আর মেরুকরণ নয়। তাছাড়া একটা চেয়ারে বসে কাজ করি। সেখানে সবাইকে নিয়েই চলতে হয়। এটাই তো সংবিধানের নির্দেশ। যতদিন আছি, এটাই মেনে চলব।
 প্রশ্ন: আপনার অভিযোগ, বিজেপি এই নির্বাচনে রাজ্যে টাকার থলি নিয়ে নেমেছে। এই অভিযোগ কীভাবে ব্যাখ্যা করবেন?
 মমতা: কোটি কোটি টাকা খরচ করছে এরাজ্যের ভোটে। আমরা যখন থেকে রাজনীতি করি, টিউশন করে পয়সা বাঁচিয়ে কালি কিনে পোস্টার লিখেছি, পোস্টার সেঁটেছি। আর বিজেপি, এদের দলের কেউ পোস্টার লাগায় না, দেওয়াল লেখে না। সব ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট এজেন্সির হাতে। মোটা টাকার বিনিময়ে তারাই পোস্টার লাগাচ্ছে, গ্রামগঞ্জে পতাকা টাঙাচ্ছে, মিটিংয়ে লোক নিয়ে আসছে। বিহার, ঝাড়খণ্ড, উত্তরপ্রদেশ এমনকী অসম থেকেও লোক এনে ভরানো হচ্ছে মিটিং। আসানসোলে সভা, লোক আনছে পুরুলিয়া আর ঝাড়খণ্ড থেকে। দিল্লি-মুম্বইয়ের এরকম ১৫-১৬টা এজেন্সিকে কয়েকশো কোটি টাকায় নিয়োগ করা হয়েছে। অন্য রাজ্য থেকে নেতাদের এনে কলকাতার হোটেলে বসিয়ে রেখেছে বিজেপি। আর ওদের মিটিংয়ে গেলেই টাকা, মিছিলে হাঁটলে টাকা, স্লোগান দিলে টাকা। প্রধানমন্ত্রীর সভাগুলো দেখেছেন? কোটি কোটি টাকা খরচ হচ্ছে এক একটা মিটিংয়ে। কোথা থেকে আসছে এত টাকা? এ টাকার উৎস কী? কেন জানতে চাইবে না নির্বাচন কমিশন আর আয়কর দপ্তর? মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার দিন প্রধানমন্ত্রীর বারাণসীর রোড শো দেখেছেন! কত টাকা খরচ হয়েছে? কেন এসবের তদন্ত হবে না? ইউপিএ সরকারের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরম এই টাকার উৎস নিয়ে তদন্ত দাবি করেছেন, আমি তাঁকে পূর্ণ সমর্থন জানাচ্ছি। অন্য পার্টির ক্ষেত্রে এরকম ব্যবস্থা, বিজেপির ক্ষেত্রে অন্য খাতির হবে কেন? ওরা কি লাটসাহেবের দল!
 প্রশ্ন: নির্বাচনী বিধিভঙ্গ করার অভিযোগ উঠেছে প্রধানমন্ত্রী এবং তাঁর সেকেন্ড-ইন-কমান্ড অমিত শাহের বিরুদ্ধে। নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানানো সত্ত্বেও কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি বলে দাবি করছে বিরোধীরা। আপনার প্রতিক্রিয়া?
 মমতা: নির্বাচনী বিধিভঙ্গের অভিযোগ উঠলেও, কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি, এই দাবি তো আমাদেরও। সেই দাবি মান্যতা পেয়েছে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশে। নির্বাচন কমিশনকে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ, দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে এই সমস্ত অভিযোগ নিয়ে। জানি প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা রয়েছে, সেটা আরও বাড়ানো হোক, তাতে কোনও অসুবিধা নেই। তবে অন্যদের মতো তিনিও তো ভোটের প্রার্থী! নির্বাচন কমিশনের নিয়মকানুন তো তাঁর উপরও প্রযোজ্য! কিন্তু বাস্তবে তা হচ্ছে কই? নির্বাচনী প্রচারে প্রধানমন্ত্রীর হেলিকপ্টার ব্যবহার করছেন, আমরাও করছি। হেলিপ্যাডে দেখছি, নির্বাচন কমিশনের চিত্রগ্রাহকরা থাকছেন, ছবি তুলছেন। সেটাই নিয়ম। কিন্তু মোদি যেখানে নামছেন, সেখানে সংবাদমাধ্যমের চিত্রগ্রাহক তো ছেড়ে দিন, নির্বাচন কমিশনের ক্যামেরাম্যানকেও থাকতে দেওয়া হচ্ছে কী! হচ্ছে না। সবার উপর চলছে নজরদারি। অথচ ওঁনার হেলিকপ্টারের ‘বাক্স রহস্য’ ভেদ করতে গিয়ে সাসপেন্ড হতে হল এক আইএএস অফিসারকে। হেলিকপ্টার থেকে বাক্স নামল, অথচ কেউ জানতে পারল না তাতে কী ছিল!
 প্রশ্ন: এই নির্বাচনে মোদি-শাহ সহ বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতারা এরাজ্যে ঘনঘন আসতে শুরু করেছেন, বাড়তি সময় দিচ্ছেন। কিন্তু কেন?
 মমতা: নাম বলছি না, আমায় বিজেপির এক শীর্ষ নেতা ফোন করে বলেছিলেন, নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে আপনি কিছু বলবেন না। কেন বলব না? আমি শুনিনি। ফ্যাসিস্ত কায়দায়, তুঘলকি আচরণে দেশ চলছে, প্রতিবাদ করব না! অবশ্যই করব। নিজের জীবন বাজি রাখতে রাজি, তবুও বিজেপির কাছে মাথা নত করব না। সবাই ভয়ে চুপ করে আছে, কিন্তু আমি চুপ করব না। ওরা (বিজেপি) সেটা জানে। তাই ঘনঘন বাংলায় আসছে, যদি মমতাকে থামানো যায়। হবে না, লড়াই চলবে শেষ রক্তবিন্দু পর্যন্ত। এই লড়াইটা করি বলেই বাংলার উপর এত রাগ, হিংসা। দু’-একটা গদ্দার হয়তো বুঝিয়েছে, বাংলায় যান, মমতার গলা স্তব্ধ করুন, এতে লাভ হবে। কোনও লাভ হবে না। বাংলা পাবে? ছাই পাবে! অত সোজা নয়। এ কি ছেলের হাতে মোয়া নাকি! কেড়ে নেওয়া যাবে। গোটা দেশে বাজে অবস্থা, লোক কথা শুনছে না। কয়েকটা পেটোয়া টিভি চ্যানেল আর গ্যাস দিয়ে ফোলাতে পারছে না। টিআরপি কমছে। ওরা (বিজেপি) ভাবছে, এটা বোধহয় ত্রিপুরা, সহজেই আত্মসমপর্ণ করবে। মনে রাখা উচিত, এটা বাংলা। এই মাটি দুর্জয় ঘাঁটি, দুর্বৃত্তের বিরুদ্ধে লড়াই করার মাটি। যত আসবে ওরা, যত মিথ্যা বলবে, ততই বাংলার মানুষ জবাব দেবে। এখানে এসে বলছে, রাজ্যে নাকি কোনও উন্নয়নই হয়নি... এমনকী আমি নাকি রেলমন্ত্রী থাকাকালীনও কোনও কাজ করিনি। বলুন তো, এসব শুনলে হাসি পায় না! আমি এসব নিয়ে কিছু বলব না, মানুষই জবাব দেবে। ভাবছে সেন্ট্রাল ফোর্স আর দিল্লি থেকে অবসরপ্রাপ্ত অফিসার এনে সমান্তরাল প্রশাসন চালিয়ে বাংলায় পা জমাবে। কেন তোমাদের কথা শুনবে মানুষ? বাংলার বিপদে থাকো না, সুখে-দুঃখে খোঁজ নাও না। বন্যা হলে আসো না, খরা হলে দেখা পাওয়া যায় না। সবক্ষেত্রে বাংলাকে বঞ্চনা করবে, আর ভোটের সময় বসন্তের কোকিলের মতো এসে কুহুকুহু করবে, বলবে ভোট দাও, ভোট দাও। রাজ্যের নাম বাংলা করার প্রস্তাবকে আটকে রেখেছে, আটকে রেখেছে বন্দর করার প্রস্তাব, আর আটকে রেখেছে দেওচা-পাচামি থেকে কয়লা তোলার জন্য সামান্য একটা মউ স্বাক্ষর প্রক্রিয়া। এসব মানুষ জানে, কেন ভোট দেবে? ৩৬৫ দিন বাংলার মানুষের সুখে-দুঃখে থাকি আমরা। গরিব হতে পারি, কিন্তু যা আছে, সবাই মিলে ভাগ করে খাই। কোথায় থাকো তখন তোমরা? ওরা আসবে আর যাবে, আমাদের কিছু যায় আসে না। যারা বাংলাকে চেনে না, বাংলার সংস্কৃতি বোঝে না, যারা দুর্গাপুজোর শুভেচ্ছা জানাতে মা কালীর ছবি দিয়ে ট্যুইট করে, তাদের পাশে থাকবে বাংলার মানুষ! কখনওই নয়। ওরা আসবে যত, ভোট বাড়বে তত।
 প্রশ্ন: ক্ষয়িষ্ণু রাজনৈতিক শক্তি বামেদের প্রাসঙ্গিকতা কি এই নির্বাচনে আদৌ আছে? আপনার অভিমত কী?
 মমতা: ক্ষয়িষ্ণু শক্তি তো বটেই, তবে যেটুকু শক্তি এখনও রয়েছে, তা দিয়ে এখন বামেরা রামদের জেতাতে চাইছে। বাম-রাম মিলেমিশে একাকার। নিজেদের ভোট ট্রান্সফার করার জন্য সর্বত্র প্রচার করছে। তাই সোশ্যাল মিডিয়ায় একই বয়ানে আমাদের বিরোধিতা। আসানসোল লোকসভা কেন্দ্রের ভোটে সিপিএমের নেতারা তো প্রচার সভায় বলেছেন বিজেপিকে ভোট দিতে। ভোটের দিন দুর্গাপুরে সিপিএম সরাসরি বিজেপির হয়ে ভোট করিয়েছে। এরাজ্যে কংগ্রেস, সিপিএম আর বিজেপি—জগাই, মাধাই আর গদাই সব এক! সিপিএমের হার্মাদরা এখন বিজেপির ওস্তাদ হয়েছে। লাল জামা ছেড়ে গেরুয়া কুর্তা পরেছে। মানুষ কি ওদের ৩৪ বছরের অত্যাচার ভুলে গিয়েছে? কেউ ভোলেনি, তাই ওরা বিচ্ছিন্ন! এখন চাইছে, মমতা যাক, বিজেপি আসুক। ভেবেও দেখছে না, বিজেপি এলে কী অবস্থা হবে! ত্রিপুরা তো তার টাটকা প্রমাণ। ২০১১ সালে যখন ক্ষমতায় এসেছিলাম, সব ক’টা অত্যাচারীকে জেলে পোরা উচিত ছিল। তা করিনি, আমাদের স্লোগান ছিল, বদলা নয়, বদল চাই। সুখে-শান্তিতেই আছে সিপিএম তথা বাম শিবিরের লোকজন। নিজেদের ক্ষমতা নেই। তাই বিজেপির কাছে আত্মসমর্পণ। আমার বিশ্বাস, প্রকৃত বামপন্থীরা বিপদটা বোঝেন। তাঁরা বিকিয়ে যাননি। তাঁদের কাছে আমার আবেদন, বন্ধুরা, বিজেপির সঙ্গে একমাত্র আমরাই লড়াই করি। তাই আমাদের সাথ দিন। ধর্মনিরপেক্ষ জনতার সরকার গড়তে আমাদের পাশে থাকুন।
 প্রশ্ন: বিভিন্ন নির্বাচনী সভায় রামের নামে বিজেপির ভোট ভিক্ষে নিয়ে নানা কথা বলছেন। ভগবান রামচন্দ্রকে ওরা কীভাবে ব্যবহার করছে?
 মমতা: পাঁচ বছরে কী কাজ করেছে, ওদের ছোট-বড় কোনও নেতাই হিসেব দিতে পারছেন না। প্রচারে, মিটিংয়ে, সভা আর মিছিলে একটাই স্লোগান—জয় শ্রীরাম। অর্থাৎ শুরুটাই ভগবান রামচন্দ্রকে নিয়ে। আর দেখবেন, ভোটের সময় রামের নাম ওরা বেশি ব্যবহার করে। ‘রামবাবু’কে এজেন্ট করে ভোট ভিক্ষে করতে নেমেছে ওদের এ টু জেড, সবাই। রামনবমীতে গদা, তরোয়াল নিয়ে আস্ফালন করে ভয় দেখাচ্ছে। এটা কি রামচন্দ্র চেয়েছিলেন? রামরাজ্য মানে সবার উন্নতি, সবার জন্য উন্নয়ন। রামের নামে ভোট নিয়ে রাবণের মতো আচরণ, এরা রামভক্ত! আমি তো অনেক সভায় বলেছি, আবার বলছি, ওরা ভোটের জন্য যেন সীতা মাতার কাছে তাঁর স্বামীকে ধার চেয়ে নিয়েছে। তাঁর নাম বারবার ব্যবহার করায় স্বয়ং ভগবান রামও বোধহয় বিরক্ত। তাই সীতা মাতাকে বলছেন, দেখ নিশ্চয়ই ভারতে ভোট এসেছে, তাই আমার নাম এতবার ব্যবহার করছে বিজেপি। রামের নাম ব্যবহার করে ভোট নিয়ে ক্ষমতায় এসেছ, এবারও সেই নাম ব্যবহার করছ! অথচ একটা ছোট মন্দিরও করতে পারলে না রামের। অথচ ওদের পোস্টার বয় নরেন্দ্র মোদি অযোধ্যায় গিয়ে ফের সেই প্রতিশ্রুতিই বিলি করে এলেন। মানুষ এসবই বোঝে। এমনকী এই নিয়ে গেরুয়া শিবিরেও ক্ষোভ শুরু হয়েছে। রাম কারও দলীয় সম্পত্তি নন, কোনও দলকে তার সন্তানের পেটেন্ট দেননি দশরথ, রামচন্দ্র সবার।
 প্রশ্ন: নরেন্দ্র মোদি দাবি করছেন, আপনার দলের ৪০ জন বিধায়ক তাঁর সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগে রয়েছেন। এই বিষয়ে কিছু বলবেন?
 মমতা: লোকসভা ভোটের প্রচারে এসে বিধানসভার হর্স ট্রেডিং করছেন মোদিবাবু। যা বলছেন, এটা কোনও প্রধানমন্ত্রীর মুখে শোভা পায় না। ৪০ জন এমএলএ! ৪০ জন ছাড়ুন, একজনের নাম তো বলুন! পয়সা দিয়ে বিজেপিকে কেনা যায়, তৃণমূলকে নয়। দু’-একটা গদ্দার ছিল, চলে গিয়েছে। তাদের সব চাই, বিরাট চাহিদা। সব দিতে হবে তাদের, সব নিতে হবে তাদের। এখন তারা বিজেপি হয়েছে। তাদের ফিসফাস কথা কানে নিয়ে এরা (মোদি-শাহ) লাফাচ্ছে। এর আগেও এদের দলের এক একজন নেতা, এক এক রকম হিসেব দিয়েছেন। কেউ বলেছেন ১০০ বিধায়ক আবার কেউ বলেছেন ২০০ তৃণমূল বিধায়ক নাকি পা বাড়িয়ে রেখেছেন। ওরা এসব বলে বাজার গরম করছে। মা-মাটি-মানুষের সৈনিকরা এতে বিচলিত হয় না, বিভ্রান্ত হয় না। এসব প্রচারে কিছু যায় আসে না। এখনও যাদের ইচ্ছে আছে, চলে যেতে পারে। আমি আমার দলের ছাত্র-যুবদের মধ্যে থেকে আবার তৈরি করে নেব পরবর্তী প্রজন্ম। এই বিশ্বাস বাংলার মানুষের ভরসাতেই আরও দৃঢ় হয়েছে।
 প্রশ্ন: ক্ষমতায় ফিরলে অসমের পর এখানেও এনআরসি লাগু করার কথা বলছে বিজেপি। এনআরসি প্রতিরোধ করবেন কীভাবে?
 মমতা: এনআরসি করে অসমে ২২ লক্ষ বাঙালি হিন্দুকে উৎখাত করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। বাকিরা বাঙালি মুসলমান, বিহারি, নেপালি সহ দেশের নানা প্রান্তের মানুষ। যাদের ভোটার পরিচয়পত্র আছে, দেশের নাগরিক হওয়ার যাবতীয় নথি রয়েছে, কেবলমাত্র ৫০ বছর আগে তার বাবা-মায়ের জন্মনথি না থাকার কারণে, তারা বিদেশি। এটা হয় নাকি? আমিও তো আমার মা-বাবার জন্ম সার্টিফিকেট জোগাড় করতে পারব না, তাহলে আমিও কি বিদেশি? অসমে বিজেপি সরকার ক্ষমতায় এসে এনআরসি চালু করছে, বিদেশি চিহ্নিত করছে। অথচ তথাকথিত সেই বিদেশিদের ভোটেই ওরা (বিজেপি) ক্ষমতায় এসেছে। এটা দ্বিচারিতা। বাংলায় এনআরসি করতে দেব না। আগে এন করে দেখাক, পরে তো আরসি। দেখুন, এর আগেই তো এনবিসি পেয়ে যাবে বিজেপি। ন্যাশনাল বিদায় সার্টিফিকেট।
 প্রশ্ন: দেশে কংগ্রেসের সম্ভাবনা কতটা? আপনার কী মনে হয়?
 মমতা: কংগ্রেস নিজের অবস্থান নিজেই অনেকটা দুর্বল করেছে। বিজেপি বিরোধী লড়াইয়ে ওরা অনেকটা নিষ্প্রভ। এই রাজ্যে তো কংগ্রেস, সিপিএম আর বিজেপি মিলেমিশে চলছে। এমন অবস্থান নিচ্ছে, যাতে কোথাও কংগ্রেসের সাহচর্যে বিজেপি’র, আবার কোথাও বিজেপি’র সাহচর্যে কংগ্রেসের সুবিধা হয়। এই নির্বাচনে কংগ্রেস একা কিছুই করতে পারবে না। যেমন বিজেপি’ও পারবে না। কংগ্রেস বা বিজেপি কেউই ১০০’র বেশি সিট পাবে না।
 প্রশ্ন: মানুষ চাইছে জনগণের সরকার। বাংলা চাইছে বাঙালি প্রধানমন্ত্রী। এবার কি সেই স্বপ্ন সত্যি হতে চলেছে?
 মমতা: বিষয়টা বাংলা, গুজরাত, বিহার বা উত্তরপ্রদেশের নয়। গোটা দেশের। দেশের সামনে এখন একটাই লক্ষ্য, জনবিরোধী নরেন্দ্র মোদি সরকারকে হটাতে হবে ক্ষমতা থেকে। বাংলা, বিহার, গুজরাত, উত্তরপ্রদেশ কোথায় মানুষকে স্বস্তি দিয়েছে মোদি সরকার? সবাই মিলেই তাই শপথ করেছি এই সরকারকে সরানোর। আমি আগেও বলেছি, বাংলা গদির জন্য লালায়িত নয়। বাংলা পদ চায় না। তবে জনগণের পক্ষে একটা সরকার গড়ার জন্য বাংলা তার দায়িত্ব অবশ্যই পালন করবে। 
04th  May, 2019
শেষ পর্যন্ত অশক্ত শরীর নিয়ে
ভোট দিতে গেলেন না বুদ্ধদেব

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: শেষ পর্যন্ত ভোট দিলেন না বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। তাঁর দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে এই প্রথমবার তিনি বুথমুখী হলেন না। তাও আবার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ লোকসভার নির্বাচনে। কারণ সেই একটাই—শারীরিক অসুস্থতা। গোড়ায় ভোট দেওয়ার ব্যাপারে আগ্রহী হলেও শেষ পর্যন্ত রবিবার চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে আর ঝুঁকি নিতে চাননি। তবে তাঁর স্ত্রী মীরা ভট্টাচার্য এবং মেয়ে সুচেতনা এদিন দুপুরে পাঠভবন স্কুলের বুথে গিয়ে ভোট দিয়ে আসেন।
বিশদ

রাজ্যে শক্তিবৃদ্ধির ইঙ্গিত বিজেপির

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: বাংলায় পদ্ম ফোটার স্পষ্ট ইঙ্গিত মিলল একাধিক সংস্থার এক্সিট পোলে। বেসরকারি সংস্থাগুলির সমীক্ষায় উঠে এসেছে, পশ্চিমবঙ্গ থেকে বিজেপির ঝুলিতে ন্যূনতম ১১ এবং সর্বাধিক ২২টি আসন আসতে চলেছে। ভোট পরবর্তী এই আগাম ফলাফলে রীতিমতো উৎফুল্ল বঙ্গ বিজেপি।  দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের প্রতিক্রিয়া, এটাই হওয়ার ছিল। বিজেপির প্রতি সাধারণ মানুষের এই চোরা সমর্থন মোদিজি-অমিতজি আগেই বুঝতে পেরেছিলেন।
বিশদ

৭ দফার ভোটেই একই অবস্থা, ৪ জুন রাজ্য কমিটির বৈঠক ডাকল আলিমুদ্দিন
বহু জায়গায় বুথস্তরে সিপিএমের কঙ্কালসার সংগঠনের ছবি ফের সামনে এল, ক্ষুব্ধ নেতৃত্ব

জীবানন্দ বসু, কলকাতা: শেষ দফায় কলকাতা ও সংলগ্ন দুই ২৪ পরগনার নয় কেন্দ্রে টানটান উত্তেজনাপূর্ণ ভোটের দিকে তাকিয়ে ছিল সিপিএম নেতৃত্ব। দলীয় স্তরে তাদের হিসেব এবং দাবি মোতাবেক এই পর্বের প্রচারে তাদের প্রধান দুই প্রতিপক্ষ তৃণমূল ও বিজেপির সঙ্গে বেশিরভাগ কেন্দ্রে লালপার্টির প্রার্থীরা টক্কর দিয়ে প্রচার করেছেন।
বিশদ

 এবার এরাজ্যে ৪০ শিক্ষককে দেওয়া হবে শিক্ষারত্ন, ২৭ মে থেকে শুরু আবেদন জমা

বিএনএ, তমলুক: চলতি বছরে রাজ্যের ৪০জন শিক্ষককে শিক্ষারত্ন পুরস্কার দেবে রাজ্য সরকার। শিক্ষারত্ন পুরস্কারের জন্য আগামী ২৭মে থেকে অনলাইনে আবেদন জানাতে পারবেন শিক্ষকরা। আবেদনপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ১০জুন।
বিশদ

ভোট মিটতেই বাড়বে হাঙ্গামা, বলছেন নির্মলা সীতারামন
নির্বাচনী আচরণবিধি কার্যকর থাকা পর্যন্ত বাংলায় কেন্দ্রীয় বাহিনী থাকুক, দাবি বিজেপির

দিব্যেন্দু বিশ্বাস, নয়াদিল্লি, ১৯ মে: আদর্শ নির্বাচনী আচরণ বিধি কার্যকর থাকা পর্যন্ত বাংলায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানদের রেখে দেওয়া হোক। নাহলে শেষ দফার নির্বাচন শেষ হতে না হতেই ফের হিংসার রাজনীতিতে ফিরবে পশ্চিমবঙ্গের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। আজ এখানে এই আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারামন।
বিশদ

ভোটে বড় গোলমাল না হলেও,
অভিযোগে জেরবার কমিশন

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ভাটপাড়ায় উপনির্বাচন ছাড়া সপ্তম দফার ভোটে বড় গোলমাল না হলেও, অভিযোগে জেরবার হল নির্বাচন কমিশন। রবিবার সকাল সাতটায় ভোট শুরু হতেই সবথেকে বেশি অভিযোগ আসতে থাকে ইভিএম বিকল হওয়ার। তবে ইভিএমের চেয়েও ভিভিপ্যাট বিকল হওয়ার সংখ্যা বেশি।
বিশদ

কেন্দ্রের ছাড়পত্র, টাকা এসে পড়ে রয়েছে
মাদক বিরোধী অভিযানের জন্য সরঞ্জাম কেনার তোড়জোড় শীর্ষ পুলিসকর্তাদের

শুভ্র চট্টোপাধ্যায়, কলকাতা: কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের ছাড়পত্র রয়েছে। এমনকী সরঞ্জাম কেনার জন্য বরাদ্দ টাকা এসে পড়ে রয়েছে। তবুও নিষিদ্ধ মাদক কারবারিদের বিরুদ্ধে অভিযান ও বেআইনি মাদক চাষের বিরুদ্ধে নজরদারি চালাতে অত্যাধুনিক সরঞ্জাম কেনার কোনও উদ্যোগই নেই রাজ্যের।
বিশদ

শেষ হল লোকসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ পর্ব

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা ও বাংলা নিউজ এজেন্সি: সপ্তম দফার মাধ্যমে শেষ হল লোকসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ পর্ব। সপ্তম দফায় মোটের উপর ভোট শান্তিপূর্ণই হয়েছে। কলকাতা শহরে তেমন কোনও অশান্তির খবর নেই। যদিও নিউ টাউন, ফলতার মতো কয়েকটি জায়গায় বিক্ষিপ্ত অশান্তির খবর মিলেছে।
বিশদ

19th  May, 2019
আজও অস্বস্তিকর গরম, আট
জেলায় তাপপ্রবাহের সতর্কবার্তা

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আজ, রবিবার ভোটের দিনও কলকাতা ও সংলগ্ন এলাকায় অস্বস্তিকর গরম থাকবে। এই এলাকায় তাপমাত্রা স্বাভাবিকের থেকে খুব বেশি নয়। কিন্তু বাতাসে জলীয় বাষ্প বেশি থাকার জন্য ভ্যাপসা গরমে ঘেমেনেয়ে হাঁসফাঁস অবস্থা হচ্ছে।
বিশদ

19th  May, 2019
বার্নপুরে সেই ব্যবসায়ীর বাড়িকে ‘ব্যাঙ্ক’ বানিয়েই ভোটে টাকা ছড়াচ্ছিল বিজেপি
জেরায় সিআইডিকে জানালেন দিলীপ ঘোষের আপ্ত সহায়ক

সুখেন্দু পাল, আসানসোল, বিএনএ: ভোটের অনেক আগে থেকেই বার্নপুরের ফেরার থাকা ওই ব্যবসায়ীর বাড়ি ‘মিনি ব্যাঙ্কে’ পরিণত হয়ে উঠেছিল। সিআইডি দিলীপ ঘোষের আপ্তসহায়ক গৌতম চট্টোপাধ্যায়কে জেরা করে এমনটাই জানতে পেরেছে। তদন্তে তারা আরও জানতে পেরেছে, বার্নপুর স্টেশন রোডের বাসিন্দা ওই ব্যবসায়ীর কাছে বিপুল পরিমাণ টাকা মজুত ছিল।
বিশদ

19th  May, 2019
রুটে নেই অধিকাংশ বেসরকারি
বাস, চরম ভোগান্তিতে যাত্রীরা

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: কলকাতা এবং সংলগ্ন দুই জেলার শেষ দফার ভোটের জেরে রুট থেকে উঠে গিয়েছে ৮০ শতাংশেরও বেশি বেসরকারি বাস। গত শুক্রবারই সেসব বাস তুলে নিয়েছে প্রশাসন। শুধু তাই নয়, হাওড়ায় ভোট মিটে গেলেও, সেখানকার বাসও শেষ দফার ভোটে ব্যবহার করা হচ্ছে। 
বিশদ

19th  May, 2019
পরামর্শ চিকিৎসকদের
১৯-এর উত্তাপ কমাতে খান শশা আর টক দই, মাথা ঠান্ডা রাখতে করুন শ্বাসপ্রশ্বাসের ব্যায়াম!

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ভোটের ‘সপ্তমী’। চূড়ান্ত পর্যায়ের ভোটপুজো। মোক্ষম ক্লাইম্যাক্স। সে যাই বলা হোক না, গোটা রাজ্য তো বটেই, গোটা দেশ তাকিয়ে আজ বাংলার ন’টি আসনে নির্বাচনের দিকে। পাড়ার আলোচনা, চায়ের গল্প, রকের বৈঠক— কোথাও আর দ্বিতীয় কোনও কথা নেই।
বিশদ

19th  May, 2019
বিজেপির হস্তক্ষেপ ছাড়া ভোট করান, কমিশনকে চিঠি মমতার

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: শেষ দফার নির্বাচন যাতে কেন্দ্রীয় সরকার এবং কেন্দ্রের শাসকদল বিজেপির অযাচিত হস্তক্ষেপ ছাড়া শান্তিপূর্ণ এবং নিরপেক্ষভাবে হয়, তা সুনিশ্চিত করতে মুখ্য নির্বাচন কমিশনার সুনীল অরোরাকে চিঠি দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শনিবার দিল্লিতে পাঠানো ওই চিঠিতে মমতা লিখেছেন, কাল রাজ্যে শেষ দফার ভোট।
বিশদ

19th  May, 2019
আজ দীর্ঘ ভোটযুদ্ধের সমাপ্তি
রাজ্যে ৯ কেন্দ্রে নির্বাচন, ভাটপাড়া সহ ৪ বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচন

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: দিল্লির মসনদ দখলের মহাসংগ্রামের শেষ পর্ব আজ, রবিবার। সপ্তম দফার এই ভোটে রাজনৈতিকভাবে তাৎপর্যপূর্ণ কলকাতা ও দুই ২৪ পরগনার ন’টি লোকসভা কেন্দ্রের ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করবেন জনতা-জনার্দন। তৃণমূলের গড় বলে পরিচিত এই অংশে ইদানীং ‘পদ্মচাষি’র সংখ্যা কিছুটা বেড়ে যাওয়া ইস্তক রাজনৈতিক মহলের কাছে সবচেয়ে চর্চার বিষয় হয়ে উঠেছে শেষ দফার ভোট। রাজ্য রাজনীতিতে ক্র঩মেই ক্ষয়িষ্ণু হতে থাকা বামফ্রন্ট তথা সিপিএমের যেটুকু শক্তি এখন রয়েছে, যাদবপুর ও ডায়মন্ডহারবার লোকসভা কেন্দ্রকে ঘিরে তাও আবর্তিত হচ্ছে এই দফাতেই।
বিশদ

19th  May, 2019

Pages: 12345

একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: জেলা নির্বাচনী আধিকারিক এবং জেলা প্রশাসনের প্রস্তাব মতো ভোটকর্মীদের সুবিধার্থে তিনটি বিশেষ ট্রেন চালাল পূর্ব রেল। পূর্ব রেল সূত্রের খবর, এই বিশেষ ট্রেনগুলি চালিয়েছে শিয়ালদহ বিভাগ।  ...

 মনসুর হাবিবুল্লাহ, দিনহাটা, সংবাদদাতা: বন্যায় দিনহাটার দরিবশ জারিধরলায় বন্যার্তদের বাংলাদেশে যাওয়া আটকাতে এবার হেলিকপ্টারে উদ্ধার কার্য চালাবে প্রশাসন। বিএসএফ কর্তাদের সঙ্গে নিয়ে আগামী ৩০ মে হেলিপ্যাড বানানোর জন্য জায়গা পরিদর্শন করা হবে। ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, ডায়মন্ডহারবার: বুথ না ভারত-পাকিস্তান সীমান্ত! বাইরে থেকে বোঝার উপায় নেই। বালির বস্তা দিয়ে একেবারে বাঙ্কার বানিয়ে সশস্ত্র বাহিনী রয়েছে পাহারায়। যে কোনও সীমান্তে ...

 রঞ্জুগোপাল মুখোপাধ্যায়, শালতোড়া, বিএনএ: রবিবার কড়া নিরাপত্তায় বাঁকুড়া লোকসভার অন্তর্গত শালতোড়ার ১ নম্বর বুথে পুনর্নির্বাচন হয়। এদিন নির্বিঘ্নে ভোটগ্রহণপর্ব সম্পন্ন হয়। তবে বিজেপির তরফে দলীয় পোলিং এজেন্টকে বুথে যাওয়ার সময় বাধা দেওয়ার অভিযোগ তোলা হয়েছে। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উচ্চতর বিদ্যায় বাধা কাটবে। বড়দের কথার মান্যতা দেওয়া দরকার। ব্যবসা সূত্রে উপার্জন বৃদ্ধি। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৫০৬- ক্রিস্টোফার কলম্বাসের মৃত্যু
১৯০২- প্রজাতন্ত্র দেশ হিসেবে ঘোষণা কিউবার
১৯৩২- স্বাধীনতা সংগ্রামী বিপিনচন্দ্র পালের মৃত্যু
১৯৭৭- ভারতীয় মহিলা ক্রিকেটার অঞ্জুম চোপড়ার জন্ম

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.৪৩ টাকা ৭১.১২ টাকা
পাউন্ড ৮৮.২৮ টাকা ৯১.৫৩ টাকা
ইউরো ৭১.১০ টাকা ৮০.০৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
18th  May, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩২,৪২০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩০,৭৬০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩১,২২০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৬,৫০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৬,৬০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
19th  May, 2019

দিন পঞ্জিকা

৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২০ মে ২০১৯, সোমবার, দ্বিতীয়া ৫০/৫৮ রাত্রি ১/২২। জ্যেষ্ঠা ৫৩/৪৭ রাত্রি ২/২৯। সূ উ ৪/৫৮/৩৩, অ ৬/৭/৩৬, অমৃতযোগ দিবা ৮/২৯ গতে ১০/১৪ মধ্যে। রাত্রি ৯/১ গতে ১১/৫৫ মধ্যে পুনঃ ১/২১ গতে ২/৪৯ মধ্যে, বারবেলা ৬/৩৮ গতে ৮/১৬ মধ্যে পুনঃ ২/৫০ গতে ৪/২৯ মধ্যে, কালরাত্রি ১০/১২ গতে ১১/৩৩ মধ্যে।
৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২০ মে ২০১৯, সোমবার, দ্বিতীয়া ৫১/৫৭/৫৯ রাত্রি ১/৪৫/৩০। জ্যেষ্ঠানক্ষত্র ৫৫/৩৮/০ রাত্রি ৩/১৩/৩০, সূ উ ৪/৫৮/১৮, অ ৬/৯/৩০, অমৃতযোগ দিবা ৮/২৮ গতে ১০/১৬ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/৬ গতে ১১/৫৬ মধ্যে ও ১/২২ গতে ২/৪৮ মধ্যে, বারবেলা ২/৫১/৪২ গতে ৪/৩০/৩৬ মধ্যে, কালবেলা ৬/৩৭/১২ গতে ৮/১৬/৬ মধ্যে, কালরাত্রি ১০/১২/৪৮ গতে ১১/৩৩/৫৪ মধ্যে। 
১৪ রমজান

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
বিধানসভা উপনির্বাচন: বেলা ১২টা পর্যন্ত কান্দিতে ৩৯.৫৫ শতাংশ ও নওদায় ৩৯.২৫ শতাংশ ভোট পড়ল 

12:25:48 PM

ভাটপাড়ার আর্যসমাজ মোড়ে বোমাবাজি 

12:12:16 PM

বিধানসভা উপনির্বাচন: সকাল ১১টা পর্যন্ত কান্দিতে ৪২ শতাংশ ভোট পড়ল 

12:05:27 PM

হাওড়া স্টেশনে পাইপ ভেঙে জখম মহিলা 
হাওড়া স্টেশনের এক নম্বর প্ল্যাটফর্মে ভেঙে পড়া পাইপের ঘায়ে জখম ...বিশদ

11:32:33 AM

কাঁকিনাড়ায় অবরোধ উঠল 
২ ঘণ্টারও বেশি সময় পর কাঁকিনাড়ায় রেল অবরোধ উঠল। এদিন ...বিশদ

10:15:45 AM

শহরে ট্রাফিকের হাল
আজ, সোমবার সকালে শহরের রাস্তাঘাটে যান চলাচল বেশ প্রভাবিত। ট্রাফিকের ...বিশদ

10:00:00 AM