কলকাতা, রবিবার ২২ জানুয়ারি ২০১৭, ৮ মাঘ ১৪২৩

রবিবার | রেসিপি | আমরা মেয়েরা | দিনপঞ্জিকা | শেয়ার | রঙ্গভূমি | সিনেমা | নানারকম | টিভি | পাত্র-পাত্রী | জমি-বাড় | ম্যাগাজিন

ম্যালে নেতাজির জন্মদিবস পালনের সরকারি অনুষ্ঠানে ডাক পাননি
আলুওয়ালিয়া, বিমল, আলাদা অনুষ্ঠানের তোড়জোড় মোর্চার

বিএনএ, শিলিগুড়ি: দার্জিলিংয়ে ম্যালে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মদিবস পালনের সরকারি অনুষ্ঠানে স্থানীয় সংসদ সদস্য তথা কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী সুরিন্দর সিং আলুওয়ালিয়া, জিটিএ চিফ বিমল গুরুং আমন্ত্রণ পাননি বলে অভিযোগ উঠেছে। রাজ্য সরকারের তরফে ২৩ জানুয়ারি ম্যালে নেতাজির জন্মদিবস পালন করা হবে। ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু সরকারি অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্য, জিটিএ’র নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের না ডাকায় বিতর্ক শুরু হয়েছে। মোর্চাও আলাদাভাবে অনুষ্ঠানের তোড়জোড শুরু করেছে।

মোর্চার সহকারী সাধারণ সম্পাদক বিনয় তামাং বলেন, নেতাজির জন্মদিবস পালনের অরকারি অনুষ্ঠানের কোনও আমন্ত্রণপত্র আমরা পাইনি। সেখানে যাওয়ার কোনও প্রশ্নই ওঠে না। নেতাজি তৃণমূল কংগ্রেসের নন। দেশপ্রেমী এই নেতার জন্মদিবস আমরা ম্যালে পালন করব। দার্জিলিংয়ের সংসদ সদস্য তথা কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী সুরিন্দর সিং আলুওয়ালিয়া বলেন, নেতাজির জন্মদিবস পালন তো সরকারি অনুষ্ঠান। সেখানে স্থানীয় বিধায়ক, সংসদ সদস্যদের আমন্ত্রণ করা প্রটোকলের মধ্যে পড়ে। কিন্তু স্থানীয় সংসদ সদস্য হওয়া সত্ত্বেও আমি কোনও আমন্ত্রণ পাইনি। যদিও জেলাশাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তব বলেন, জিটিএ’এর সবাইকে আমন্ত্রণ করা হয়েছে। স্থানীয় বিধায়কদের আমন্ত্রণ করা হয়েছে। সংসদ সদস্যকে আমন্ত্রণ করা হয়েছে কি না বলতে পারছি না। এটা জেলা তথ্য সংস্কৃতি দপ্তরের দেখার কথা। জেলা তথ্য ও সংস্কৃতি দপ্তরের আধিকারিক সুপ্রিয়া ব্লোন জানিয়েছেন, এমপির অফিস এবং জিটিএয়ের দপ্তরে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

কোচবিহারে মহিলা কলেজে অধ্যক্ষার সামনেই ছাত্রীদের উপর হামলা যুবকের

বিএনএ, কোচবিহার: কোচবিহারে পঞ্চানন বর্মা মহিলা মহাবিদ্যাল঩য়ের ছাত্র সংসদ নির্বাচনে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের পরাজয়ের পরই শনিবার দুপুরে কলেজের অধ্যক্ষার সামনে ছাত্রীদের মারধর করার অভিযোগ উঠেছে এক যুবকের বিরুদ্ধে। ছাত্রীদের একাংশের অভিযোগ, এদিন টিএমসিপি’র কর্মীদের সঙ্গেই ওই যুবক কলেজে ঢুকেছিল। কলেজের সিসি ক্যামেরার ফুটেজেও দেখা গিয়েছে ওই যুবক ছাত্রীদের চুলের মুঠি ধরে মারছে। হামলায় আহত দুই ছাত্রীকে কোচবিহার এমজেএন হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। কলেজ কর্তৃপক্ষ গোটা ঘটনা পুলিশকে জানিয়েছে। মহিলা কলেজে যুবকের ঢুকে হামলার ঘটনায় শহরে নিন্দার ঝড় উঠেছে। কলেজে ছাত্র সংসদ নির্বাচনে জয়ী স্টুডেন্টস ফোরাম অভিযোগ তুলেছে, নির্বাচিত ছাত্রীদের ভাঙিয়ে কৌশলে সংসদ গঠনের জন্য তৃণমূল নেতৃত্ব তৎপর হয়েছে। এদিনের হামলার ঘটনাও তারই জের। তৃণমূল অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

ফোরামের সমর্থক ছাত্রীরা বলেন, এদিন টিএমসিপি’র নেত্রীদের সঙ্গে ওই যুবক কলেজে ঢুকেছিল। বিনা অনুমতিতে সে কলেজে ঢোকায় আমরা তাকে বাধা দিই। এরপরই ওই যুবক আমাদের মারধর করে। স্টুডেন্টস ফোরামের সভানেত্রী রূপালি সরকার বলেন, নির্বাচনপর্বের বিভিন্ন সময় এক তৃণমূল নেতা সহ অন্যান্যরা আমাদের হুমকি দিয়েছে। আমরা জয়ী হওয়ার পরেও তৃণমূল ছাত্র পরিষদ আশ্রিত দুষ্কৃতীরা আমাদের নানাভাবে ভয় ও প্রলোভন দেখাচ্ছে। এদিন ওদেরই একজন যুবক কলেজে ঢুকে স্টুডেন্টস ফোরামের আহ্বায়ক সহ চারজনকে বেধড়ক মারধর করেছে। জেলা তৃণমূল নেতা আবদুল জলিল আহমেদ বলেন, আমাদের মেয়েরা কলেজে জেতার শংসাপত্র নিতে গিয়েছিল। স্টুডেন্টস ফোরামের মেয়েরা ওদের উপর চড়াও হয়। এদের সার্টিফিকেটও নিতে দেয়নি। আমাদের কেউ মারধর করেনি। কলেজের অধ্যক্ষা মঞ্জরী বিশ্বাস বলেন, নির্বাচনে জয়ী একজন ছাত্রীর সঙ্গে ওই যুবক কলেজে এসেছিল। বাইরে কথাবার্তা শুনে আমি ঘর থেকে বেরিয়ে তার পরিচয় জিজ্ঞাসা করি। কথাবার্তা বলার সময়েই যুবকটি ছাত্রীদের চুলের মুঠি ধরে মারধর শুরু করে। ঘটনার কথা পুলিশকে জানিয়েছি। পুলিশ জানিয়েছে অভিযোগ খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, শুক্রবার কলেজের ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ৩০টি আসনের মধ্যে ১৮টিতে নির্বাচন হয়। এর সবক’টিই ফোরাম জিতে নেয়। ফোরামের অভিযোগ, এদিন এক তৃণমূল নেতার মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে টিএমসিপি’র একজন বিজয়ী ছাত্রী কলেজে গিয়েছিল। তাদের সঙ্গে একজন যুবক কলেজে ঢুকেছিল। বাইরে বাইক নিয়ে ক঩য়েকজন যুবক ছিল। ছাত্রীরা অধ্যক্ষের ঘরের সামনেই ওই যুবককে আটকাতেই দু’পক্ষের বচসা বাধে। অধ্যক্ষার সামনেই ওই যুবক দুই ছাত্রীর চুলের মুঠি ধরে দেওয়ালে তাঁদের মাথা ঠুকে দেয়, টানাহেঁচড়া করে। অন্য ছাত্রীরা ওই যুবকের উপর চড়াও হয়। কলেজের কর্মীরা গিয়ে ছাত্রীদের সরিয়ে ওই যুবককে কলেজ থেকে বের করে দেয়।

এদিকে ঘটনার পর থেকেই তৃণমূলের বাইক বাহিনী বার বার কলেজের সামনে এসে ছাত্রীদের শাসিয়ে যায় বলে অভিযোগ। ছাত্রীদের একাংশের দাবি, টিএমসিপি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পাওয়া আসনের সঙ্গে স্টুডেন্টস ফোরামের কয়েকজনকে ভাঙিয়ে বোর্ড গঠন করার জন্য নানা কৌশল নিচ্ছে। ইতিমধ্যেই ফোরামের ছাত্রীদের বাড়িতে গিয়ে হুমকি ও প্রলোভন দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ। ফোরাম এনিয়ে ছাত্রীদের অভিভাবকদের সঙ্গে আলোচনা করে সকলকে বোর্ড গঠন পর্যন্ত একজায়গায় রাখার ব্যাপারে পরিকল্পনা নিয়েছে।

আতঙ্ক আশপাশের গ্রামগুলিতে

রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের উপর নজরদারিতে
নেওড়ায় ৪টি ক্যামেরা বসালো বন দপ্তর


সংবাদদাতা, মালবাজার: কালিম্পং মহকুমার লাভার কাছে ঋষপের রাস্তায় রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের দেখা মেলায় চব্বিশঘণ্টা নজরদারি চালাতে শনিবার ওই এলাকায় চারটি ক্যামেরা লাগানো হল। এদিকে এলাকায় বাঘ আছে খবর ছড়িয়ে পড়তেই আশপাশের গ্রামগুলিতে রীতিমতো আতঙ্ক ছড়িয়েছে। সন্ধ্যা নামলেই গ্রামের রাস্তাগুলি ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে। বাসিন্দারা জঙ্গলে ঘাস কাটা এবং জ্বালানি সংগ্রহ করার কাজও বন্ধ করে দিয়েছেন। স্বাভাবিক ভাবেই মানুষের পাশাপাশি বাঘেরও নিরাপত্তার দাবি তুলেছে পরিবেশপ্রেমী সংগঠনগুলি। যদিও পর্যটক সহ গ্রামবাসীদের নিরাপত্তা বাড়াতে টহলদারি বাড়ানো হয়েছে বলে বন দপ্তর জানিয়েছে। উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার সকালে আনমোল ছেত্রি নামে এক গাড়ি চালক পেডং থেকে জলঢাকা যাওয়ার পথে বনদপ্তরের নেওড়াভ্যালি রেঞ্জের দেওরালিডারায় রাস্তার ধরে একটি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারকে দেখতে পান। তিনি তাঁর মোবাইল ক্যামেরায় সেই ছবিও তোলেন। এই ঘটনা চাউর হতেই বন দপ্তর নড়েচড়ে বসে। কারণ গত ৪০ বছরে ওই বনাঞ্চলে বাঘের দেখা মেলেনি। বনকর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে বাঘের পায়ের নমুনাও সংগ্রহ করেন। সেইসঙ্গে জঙ্গল থেকে একটি গোরুর আধ খাওয়া দেহাংশও উদ্ধার হয়। এরপর শনিবার বন কর্মীরা একটি গোরুর ক্ষতবিক্ষত মৃতদেহ উদ্ধার করায় বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক আরও জাঁকিয়ে বসেছে।

ন্যাফের কো-অর্ডিনেটর অনিমেষ বসু এবং ওদলাবাড়ির একটি পরিবেশপ্রেমী সংস্থার কর্ণধার সুজিত দাস বলেন, নেওড়াভ্যালিতে বাঘের অস্তিত্ব রয়েছে এটা সত্যিই ভালো খবর। এর জেরে পাশ্ববর্তী গ্রামগুলিতে বাঘের আতঙ্ক ছড়াবে এটাই স্বাভাবিক। তাই মানুষের পাশাপাশি বাঘেরও নিরাপত্তা বাড়ানোর প্রয়োজন আছে। গোরুমারা ওয়াইল্ড লাইফ ডিভিশনের ডিএফও নিশা গোস্বামী বলেন, বাঘের সম্ভাব্য জল খাওয়ার জায়গায় আমরা এদিন ক্যামেরা লাগিয়েছি। সংলগ্ন জঙ্গলেও ক্যামেরা লাগানো হয়েছে। আমরা দেখে নিতে চাই শুধু একটি বাঘই আছে না সেটির সঙ্গে আরও কোনও সঙ্গী রয়েছে। প্রয়োজনে আমরা আরও ক্যামেরা লাগাব। বাঘ থাকায় জঙ্গলে ভয়ের কিছু নেই। কারণ সংরক্ষিত এই জঙ্গলে সাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ। আমরা নিরাপত্তার জন্য রুটিন টহলদারি বাড়িয়ে দিয়েছি। বনদপ্তরের আপার নেওড়া রেঞ্জের রেঞ্জার সারিতা তামাং বলেন, এদিন আমরা নেওড়া জঙ্গলে একটি গোরুর মৃতদেহ উদ্ধার করেছি। তা যে বাঘেই মেরে ফেলেছে তার প্রমাণও পেয়েছি।

এদিকে যেখানে বাঘের দেখা মিলেছে সেখানে ভয়ে বাসিন্দারা যাওয়াই বন্ধ করে দিয়েছেন। তার উপর একটি গোরুর ক্ষতবিক্ষত দেহাংশ পাওয়া যাওয়ার আশপাশের গ্রামগুলিতে আতঙ্ক জাঁকিয়ে বসেছে। যেমন চিউলে, কোলাখাম, গুম্বা ডারা, আলগারাহ, ঋষপ, দেওরালি ডারা প্রভৃতি গ্রামের ৫০০০ মানুষ আতঙ্কিত বোধ করছেন। রান্নার জ্বালানি ও গোরুর জন্য ঘাস কাটতে আগে বাসিন্দারা জঙ্গলে যেতেন। কিন্তু এখন তাঁরা ভয়ে সেদিকে যেতে পারছেন না।

 

রায়গঞ্জে অসুস্থ বৃদ্ধ জার্মান নাগরিককে হাসপাতালে ভরতি করল পুলিশ

বিএনএ, রায়গঞ্জ: রায়গঞ্জ শহরের শক্তি নগর এলাকা থেকে উদ্ধার হওয়া এক বৃদ্ধ জার্মান নাগরিককে ঘিরে রহস্য দানা বেঁধেছে। শুক্রবার রাতে ওই জার্মান নাগরিককে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ উদ্ধার করে রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতালে ভরতি করেছে। উদ্ধার হওয়া ব্যক্তির নাম ডায়াটার হোলজার। তাঁর বয়স ৭২। বর্তমানে ওই ব্যক্তি রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতালের ক্রিটিকাল কেয়ার ইউনিটে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ভাষা ও উচ্চারণের সমস্যার কারণে তাঁর সমস্ত বক্তব্য বুঝতে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যা থাকার কারণে পুলিশ তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে আসে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই ব্যক্তি শক্তিনগর এলাকায় ইতস্তত ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন। সেই সময়ে স্থানীয়রাই তাঁকে ঘিরে ধরে। এরপর পুলিশ গিয়ে তাঁকে উদ্ধার করে। ওই জার্মান নাগরিকের কাছে পাসপোর্ট, ভিসা সহ অন্যান্য বৈধ নথিপত্র রয়েছে কি না পুলিশ তা খতিয়ে দেখছে। রায়গঞ্জের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের দাবি, ওই ব্যক্তি দিল্লি হয়ে হায়দরাবাদে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে অন্য কোথাও যাওয়ার সময়ে ভুল ট্রেনে উঠে কলকাতা, মালদহ হয়ে তিনি রায়গঞ্জে চলে আসনে। ওই ব্যক্তির প্রকৃত পরিচয়, কী উদ্দেশ্যে ও কীভাবে তিনি এখানে এলেন তা জানার জন্য জেলা প্রশাসন ইতিমধ্যেই জার্মান দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগের উদ্যোগ নিয়েছে। উত্তর দিনাজপুরের জেলাশাসক আয়েষা রানি বলেন, বিষয়টি জানার পর ইতিমধ্যেই স্বরাষ্ট্র দপ্তরের মাধ্যমে জার্মান দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। জেলার পুলিশ সুপার অমিত কুমার ভরত রাঠোর বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

চাপাতলিতে গ্রামবাসীদের হাতে মৃত চিতাবাঘের নখ ও লেজ উদ্ধার করল পুলিশ

সংবাদদাতা, আলিপুরদুয়ার: বনচুকামারি পঞ্চায়েতের চাপাতলিতে চিতাবাঘ পিটিয়ে মারার ঘটনার চার দিনের মধ্যে চিতাবাঘটির কেটে নেওয়া পায়ের নখ ও লেজ উদ্ধার করল পুলিশ। শনিবার সকালে বনচুকামারি পঞ্চায়েত কার্যালয়ের প্রধান গেটে স্থানীয় বাসিন্দারা মৃত চিতাবাঘটির ঝুলে থাকা লেজ ও নখ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ গিয়ে সেই লেজ ও নখ উদ্ধার করে। তবে মৃত চিতাবাঘটির কেটে নেওয়া দাঁত ও চোখ এখনও উদ্ধার হয়নি।

উল্লেখ্য, গত ১৭ জানুয়ারি দুপুরে বনচুকামারি পঞ্চায়েতের চাপাতলি গ্রামে চিতাবাঘের হামলায় এক মহিলাসহ ছ’জন জখম হন। জখমদের মধ্যে এখনও চারজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। পরে খবর পেয়ে বনদপ্তরের কর্মীরা ঘটনাস্থলে যায়। কিন্তু বনকর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর আগেই গ্রামবাসীরা চিতাবাঘটিকে পিটিয়ে মেরে ফেলে। বনদপ্তরের পক্ষ থেকে চিতাবাঘটিকে পিটিয়ে মেরে ফেলা ও সেটির অঙ্গপ্রত্যঙ্গ কেটে নেওয়ার জন্য আলিপুরদুয়ার থানায় চার গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়। শনিবার সকালে বনচুকামারি পঞ্চায়েতের গেটে চিতাবাঘটির নখ ও লেজ উদ্ধার হলেও এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কোনও গ্রামবাসী গ্রেপ্তার হয়নি। আলিপুরদুয়ার থানার আইসি দেবাশিস চক্রবর্তী বলেন, মৃত চিতাবাঘটির লেজ ও নখ উদ্ধার করা গেছে। কিন্তু এই ঘটনায় এখনও কেউ গ্রেপ্তার হয়নি। অভিযুক্তদের ধরতে তল্লাশি চলছে। বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্পের পশ্চিম ডিভিশনের ভারপ্রাপ্ত উপক্ষেত্র অধিকর্তা পি হরিকৃষ্ণান বলেন, মৃত চিতাবাঘটির নখ ও লেজ পাওয়া গেছে। ওই ঘটনায় পুলিশি তদন্তের পাশাপাশি বনদপ্তরের নিজস্ব তদন্তও চলছে।

সরকারি দরে আস্থা হারিয়ে পাইকারদের কাছে বেশি
দামে পাট বিক্রিতে আগ্রহী ইসলামপুরের চাষিরা

সংবাদদাতা, ইসলামপুর: খোলা বাজারে বেশি দাম মেলায় ইসলামপুরে চাষিরা জুট কর্পোরেশন অব ইন্ডিয়ার (জেসিআই) কাছে পাট বিক্রি করতে আগ্রহ দেখাচ্ছে না। পাশাপাশি জেসিআইয়ের কাছে পাট বিক্রি করলে ব্যাংক কিংবা চেকের মাধ্যমে টাকা পেতে দেরি হওয়ার সমস্যাও রয়েছে। এর ফলে জেসিআই’র গুদামগুলি কার্যত ফাঁকা পড়ে রয়েছে। সরকারিভাবে পাট কেনার উদ্যোগে ভাটা পড়েছে।

জেসিআই’র ইসলামপুরের পাট ক্রয় কেন্দ্রের ম্যানেজার গৌরাঙ্গ গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, ১২ জানুয়ারি থেকে আমরা পাট কেনা শুরু করেছি। গ্রেড অনুযায়ী সরকারি নিয়মে প্রতি কুইন্টাল যে দামে পাট ক্রয় করার নির্দেশ আছে, বাজার মূল্য তার চেয়ে বেশি রয়েছে। ফলে কৃষকরা আমাদের কাছে পাট বিক্রি করতে চাইছে না। এখন পর্যন্ত মাত্র ১৫ কুইন্টাল ২৮ কেজি পাট কেনা সম্ভব হয়েছে। জেসিআই’র শিলিগুড়ি রিজিওনাল ম্যানেজার নীরঞ্জন ঘোষ বলেন, বিষয়টি উপরমহলে জানাব। তারাই পরবর্তী পদক্ষেপ করবে।

উত্তর দিনাজপুরের শিল্প দপ্তরের জেলা আধিকারিক সুনীল সরকার বলেন, জেলায় পাটজাত হস্তশিল্পের বাজার রয়েছে। পাটজাত সামগ্রী তৈরির জন্য ভালো পাটের দরকার। কাঁচামালের জোগান কম হলে দামের ওপর এর প্রভাব পড়বে। জেসিআই দপ্তরের আধিকারিকরা বলেন, পাট ক্রয় কেন্দ্রগুলিতে পাটের জোগান কম। উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে একটি ট্রাকে পাট বোঝাই করে কলকাতার মিলে পাঠাতে হচ্ছে। এক্ষেত্রে পরিবহণ খরচও বেড়েছে।

চাষিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গিয়েছে, সরাসরি জেসিআইয়ের কেন্দ্রগুলিতে পাট বিক্রি করতে তারা আগ্রহী নয়। এর প্রধান কারণই খোলা বাজারে পাটের দাম বেশি রয়েছে। তাছাড়া তারা পাট বিক্রি করে নগদ টাকা চান। কিন্তু জেসিআই ব্যাংক অ্যাকাউন্ট কিংবা চেকে টাকা দেবে। সে কারণে ৫০ কেজি বা এক কুইন্ট্যাল পাট বিক্রি করে টাকা তোলার জন্য ব্যাংকে লাইন দেওয়ার ভয়ে চাষিরা পাইকারদের কাছেই নগদে তা বিক্রি করছেন। এছাড়াও চাষিদের দাবি, পাট বিক্রি করতে গেলে পাটের গ্রেড নির্বাচনে জেসিআই’র আধিকারিকরা বহু টালবাহানা করেন। খোলা বাজারে বিক্রি করলে পাইকাররা পাটের গ্রেড যাচাইয়ের ক্ষেত্রে অতটা পরীক্ষা নিরীক্ষা করে না। তাই পাইকারদের কাছেই পাট বিক্রি করে তারা লাভবান হন। মূলত জেসিআই সাদা, তোর্সা ও মেস্তা এই তিন প্রকারের পাট পাঁচটি গ্রেডে আলাদা আলাদা দামে কেনে। অপরদিকে, মিল মালিকরাও জেসিআই’র পাট কিনতে আগ্রহ দেখায় না। কারণ পাট কেনার সঙ্গে সঙ্গে জেসিআই’কে টাকা দিতে হয়। কিন্তু পাইকারদের কাছ থেকে কিনলে দু-তিন মাস পরেও টাকা দেওয়া যায়।

তপনে স্ত্রী ও শিশুকে খুনের অভিযোগে ধৃত স্বামীর পুলিশ হেপাজত

সংবাদদাতা, বালুরঘাট: স্ত্রী ও চার মাসের পুত্র সন্তানকে খুন করার অভিযোগে স্বামী রঞ্জিত হেমব্রমকে নিজেদের হেপাজতে নিল তপন থানার পুলিশ। তপন থানার পুলিশ জানিয়েছে, রঞ্জিতকে শুক্রবার মালদহ স্টেশন থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর সেদিনই আদালতে তোলা হলে বিচারক তাকে চার দিনের পুলিশি হেপাজতের নির্দেশ দেন। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বুধবার রাতে স্ত্রী ও চার মাসের পুত্র সন্তানকে খুন করে রঞ্জিত ভিন রাজ্যে পাড়ি দেবার ফন্দি এঁটেছিল। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে পুলিশ মালদহ বাসস্ট্যান্ড ও রেল স্টেশনে নাকা তল্লাশি শুরু করে। শুক্রবার সকালে মালদহ স্টেশন থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। তপন থানার ওসি বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য জানান, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে পুলিশ মালদহ স্টেশন থেকে অভিযুক্ত রঞ্জিত হেমব্রমকে গ্রেপ্তার করে। তাকে চার দিনের পুলিশি হেপাজতে নেওয়া হয়েছে।

গোয়ালপোখরে বাইকের ধাক্কায় যুবকের মৃত্যু

সংবাদদাতা, ইসলামপুর: শনিবার ভোরে গোয়ালপোখর থানার গরগছ এলাকায় বাইকের ধাক্কায় এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, নিহত ব্যক্তি গরগছ এলাকারই বাসিন্দা। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এদিন ভোরে ওই ব্যক্তি বাড়ির পাশের রাস্তা দিয়ে হাঁটছিলেন। সেই সময় একটি বাইক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তীব্র গতিতে তাঁকে ধাক্কা মারলে ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। বাইকচালকও স্থানীয় বাসিন্দা বলে পুলিশ জানিয়েছে। তবে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

 






?Copyright Bartaman Pvt Ltd. All rights reserved
6, J.B.S. Haldane Avenue, Kolkata 700 105
 
Editor: Subha Dutta