রবিবার | রেসিপি | আমরা মেয়েরা | দিনপঞ্জিকা | শেয়ার | রঙ্গভূমি | সিনেমা | নানারকম | টিভি | পাত্র-পাত্রী | জমি-বাড়ি | ম্যাগাজিন

সাবর্ণ সংগীত সম্মেলন

সম্প্রতি সাবর্ণ রায়চৌধুরীদের বড় বাড়ির পুজোর দালানে দুদিন ধরে অনুষ্ঠিত হল সাবর্ণ সংগীত সম্মেলন। এবছর সম্মেলনের উদ্বোধন করেন কলকাতার মেয়র তথা মন্ত্রী শোভন চট্টোপাধ্যায়। হাজির ছিলেন সম্মেলনের আহ্বায়ক তন্ময় রায়চৌধুরী সহ বড় বাড়ির সংগীত প্রেমী সদস্য ও শ্রোতারা। প্রথম দিনের অনুষ্ঠানের সূচনা হয় নীলাঞ্জনা ও শীলাঞ্জনা-দুই বোনের কণ্ঠে মারুবেহাগ খেয়াল দিয়ে। তাঁদের সঙ্গে হারমোনিয়ামে দেবপ্রসাদ দে ও তবলায় নবারুণ দত্ত যোগ্য সংগত করেন। এরপর দুই নবীন শিল্পী দীপ্তম ও অনির্বাণ তাঁদের রেওয়াজি কণ্ঠের যুগ্ম উপস্থাপনায় দর্শকদের মন জয় করেন। তাঁদের পরিবেশনায় ছিল রাগ শ্যামকল্যাণে বিলম্বিত (শঙ্কর-শম্ভু) ও দ্রুত (মানত নাহি মোরি বাত) খেয়াল।
প্রথম দিনের অনুষ্ঠানের অন্যতম আকর্ষণ ছিল পণ্ডিত দেবজ্যোতি বোসের (টনি) সরোদ বাদন। তাঁর পরিবেশনায় ছিল রাগ মালগুঞ্জি এবং ওস্তাদ আমজাদ আলি খাঁর সৃষ্ট রাগ স্বরসমীর। তবলায় উজ্জ্বল ভারতী তাঁর সঙ্গে যোগ্য সংগত করেন। এদিনের আরেক আকর্ষণ ছিল ওমকার দাদরকরের কণ্ঠসংগীত। তিনি যোগ রাগে বিলম্বিত ও দ্রুত খেয়াল দিয়ে তাঁর অনুষ্ঠান শুরু করেন। এর পর ভৈরবিতে একটি ভজন পরিবেশন করেন। তাঁর সঙ্গে তবলায় সংগত করেন পণ্ডিত গোপাল মিশ্র এবং হারমোনিয়ামে অনির্বাণ চক্রবর্তী। রাত গভীর হলেও ওমকারের উপস্থাপনা শ্রোতাদের মন্ত্রমুগ্ধ করে।
দ্বিতীয় দিনের অনুষ্ঠানের সূচনা হয় সুদত্তার কত্থক নৃত্য দিয়ে। লখনউ ঘরানার শিল্পী সুদত্তার মঞ্চে অভিষেক ঘটল এই অনুষ্ঠানে। বিষ্ণুপর ঘরানার প্রধান শিল্পী পণ্ডিত অমিয়রঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন তাঁর কণ্ঠের জাদুতে শ্রোতাদের মুগ্ধ করলেন। নব্বই বছর বয়সেও কণ্ঠ যে তাঁর স্ববশে রয়েছে তা তিনি নিজের গায়কীতে তুলে ধরলেন। তাঁর পরিবেশনায় ছিল রাগ পুরিয়ায় বিলম্বিত ও দ্রুত খেয়াল। এবং যোগ রাগের দুটি বন্দিশ। তাঁর সঙ্গে হারমোনিয়ামে ছিলেন শুভ্রকান্তি চট্টোপাধ্যায় ও তবলায় সংগত করেন রূপক ভট্টাচার্য ।
অনুষ্ঠানের শেষে ছিল পণ্ডিত কুমার বোসের তবলা। ছাত্র কুণাল পালিতের পাখোয়াজের সঙ্গে তাঁর তিন তালের যুগল লহরা, সওয়াল-জবাব পর্বটি অনন্য। সঙ্গে সারেঙ্গিতে পঙ্কজ মিশ্রের নগমা পর্বটিকে আরও বর্ণময় করে। রাগসংগীতের এহেন উজ্জ্বল অনুষ্ঠান শ্রোতারা দীর্ঘদিন স্মরণে রাখবেন।

মানসী নাথ              
ছবি: সুফল ভট্টাচার্য

লহরীর নিবেদন

নারীর ক্ষমতায়ন নিয়ে সম্প্রতি শিশির মঞ্চে ‘লহরী’ সংস্থা নিবেদন করল ‘কন্যারূপেন’। একজন সাংবাদিকের চোখ দিয়ে গল্পটা সাজানো হয়। আলেখ্যটির মূল বিষয়বস্তু ছিল— যে মেয়েটি দেবী, সেই অফিস সামলায়, সেই বিমানচালিকা, সেই দুষ্টের দমন আর সৃষ্টের পালন করছে। অর্থাৎ বিভিন্ন রূপী নারীর মধ্যেই দেবী সত্ত্বা বর্তমান। তাই বিভিন্ন লাঞ্ছনা-যন্ত্রণাকে উত্তরণ করেও নারী আজ চির উন্নত শির। কাব্যপাঠ ও নৃত্যের পর্যায়ক্রমিক নিবেদন অনুষ্ঠানটিকে অনবদ্য করে তোলে। সাম্য কার্ফার প্রাণোজ্জ্বল কাব্যপাঠ দর্শকদের নির্বাক করে। শিল্পীর কণ্ঠে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, শ্রীজাত, মল্লিকা সেনগুপ্ত, তিয়াসা মুখোপাধ্যায়, নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী ও সুবোধ সরকারের কবিতা পাঠ মন ছুঁয়ে যায়। রবীন্দ্রসংগীতশিল্পী শ্রাবণী সেনের কণ্ঠে ‘ছুটির বাঁশি বাজল যে’, ‘আমি চিত্রাঙ্গদা’, ‘রইল বলে রাখলে কারে’— গানগুলির সংগীত রস দর্শকরা উপভোগ করে। নৃত্যে অংশগ্রহণ করেন প্রকৃতি বসু ও দেবজিৎ মুখোপাধ্যায়। অনুষ্ঠানটিতে সৃজনশীল ভাবনার আত্মপ্রকাশ দর্শকদের তৃপ্তি দেয়।

দেবলীনা সমাজপতি       
ছবি: দীপেশ মুখোপাধ্যায়

সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় জন্মোৎসব

সম্প্রতি রোটারি সদনে কৃত্তিবাস পত্রিকার তরফে আয়োজিত হয় কবি ‘সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় স্মারক বক্তৃতা’র অনুষ্ঠান। শ্রাবণী সেনের দুটি রবীন্দ্রসংগীতের পর কবিতা পাঠ করে সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের প্রতি শ্রদ্ধা জানান, কবি কালীকৃষ্ণ গুহ, রণজিৎ দাস, মৃদুল দাশগুপ্ত ও শ্যামলকান্তি দাস। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় ও নাট্য ব্যক্তিত্ব দেবশংকর হালদার। অধ্যাপক চিন্ময় গুহ তাঁর স্মারক বক্তৃতায় ফরাসি সাহিত্যের অনুসঙ্গে সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের সাহিত্যকর্মের কিছু যোগসূত্র তুলে ধরেন। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শঙ্খ ঘোষ, শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়, স্বাতী গঙ্গোপাধ্যায়, দিব্যেন্দু পালিত ও সুনীল পুত্র শৌভিক গঙ্গোপাধ্যায়। এছাড়াও বহু বিশিষ্ঠ উপস্থিত ছিলেন। এদিন প্রকাশিত হল কৃত্তিবাস পত্রিকার নতুন সংখ্যা।

পল্লব মিত্র      

এক অনুষ্ঠানে শব্দম

সম্প্রতি গোলপার্কের রামকৃষ্ণ মিশনে এক মনোগ্রাহী অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিল ‘শব্দম’। অনুষ্ঠানের শুরু হল আদি তালে মৃদঙ্গ ও তবলার দ্বৈতবাদনে। শিল্পীরা ছিলেন শংকরনারায়ণ স্বামী ও ইন্দ্রনীল মল্লিক। চমৎকার পরিবেশনা। দুই শিল্পীর চমৎকার বোঝাপড়ার জন্য অনুষ্ঠানটি খুবই উপভোগ্য হয়ে ওঠে। হারমোনিয়ামে নগমা রাখেন দেবাশিস কর্মকার। পরবর্তী অনুষ্ঠানে সেতার বাজিয়ে শোনান সঞ্জয় গুহ। মেঘ রাগে আলাপ, জোড় ঝালা ও ধামার তালে গৎ পরিবেশন করেন। ধ্রুপদাঙ্গে বাজানো জোড় অংশটি উল্লেখযোগ্য। তিনি তিলং রাগে গৎ বাজিয়ে অনুষ্ঠান শেষ করেন। তবলা ও পাখোয়াজে সংগত করেন ইন্দ্রনীল মল্লিক ও গৌতম চক্রবর্তী।

তীর্থংকর ব্যানার্জি       

ডিজিটালে বাজিমাত

গোবিন্দাস এন্টারটেইনমেন্ট কোম্পানি বাংলার নতুন প্রতিভা, পরিচালক, প্রযোজক, মিউজিক কোম্পানি সকলের কাছে এক বিশ্বজোড়া প্ল্যাটফর্ম এনে দিল। রিজিওনাল অডিও-ভিডিও কনটেন্টের জন্য ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম-এর সুবিধা পাবেন তাঁরা। এখন প্রতিনিয়ত মানুষ ডিজিটাল মিডিয়ায় অভ্যস্ত হয়ে পড়ছেন। অনেকেই সুবিধামতো যে কোনও অ্যাপ ব্যবহার করছেন। অ্যাপের দুনিয়ায় নবতম সংযোজন হল গোবিন্দাস এন্টারটেইনমেন্ট প্রাইভেট লিমিটেড।
সম্প্রতি কলকাতা প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে সংস্থার ভাইস প্রেসিডেন্ট যোগেশ ভরদ্বাজ জানালেন, ২০০৬ সালে প্রতিষ্ঠিত দিল্লির এই টেলিকম কোম্পানিটি ইতিমধ্যে ২০টি ভারতীয় ভাষায় মোট আঠারো হাজার অডিও ট্র্যাক, পনেরো হাজার ভিডিও, ২৭৫টি আঞ্চলিক ছবি তৈরি করেছে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক শ্রোতা দর্শকদের জন্য। গুগলেই মিলছে এই সুবিধা। বিশেষত যাঁরা বড় বাজেটের ছবি করতে পারছেন না, তাঁরা এর মাধ্যমে শর্ট ফিল্ম করে বৃহৎ সংখ্যক দর্শক বা শ্রোতাদের কাছে পৌঁছতে পারবেন। নিজেদের গানের ভিডিও করতে পারবেন শিল্পীরা। গোবিন্দাস এন্টারটেইনমেন্ট গানগুলি পৌঁছে দেবে পৃথিবীর প্রত্যন্ত প্রান্তেও। এতে কিছুটা হলেও আর্থিক সুবিধা পাবেন তাঁরা। গোবিন্দাস-এর ওয়েবসাইট www.gobindas.com

কলি ঘোষ                       
ছবি: দীপেশ মুখোপাধ্যায়   

 রাগা মিউজিক থেকে প্রকাশিত হল রবীন্দ্রসংগীতের অ্যালবাম ‘মাটির টানে রবির গানে’। শিল্পী অমৃতা দে ও তন্ময় বিশ্বাস। সংকলনে রয়েছে ৫টি গান।
গানের তালিকায় আছে— ‘যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে’, ‘ভেঙে মোর ঘরের চাবি নিয়ে যাবি’, ‘দেখেছি রূপসাগরে মনের মানুষ’, ‘আমার সোনার বাংলা’, ‘আমি কোথায় পাবো তারে’, ‘এবার তোর মরা গাঙে’, । যন্ত্রানুষঙ্গ পরিচালনায় সুভাষ মণ্ডল, লাল্টু রায়, সৌম্যজ্যোতি ঘোষ।
অ্যালবামটির মৌলিকত্ব এখানে ঢপ কীর্তনের সঙ্গে দেশাত্মবোধক ও ভাটিয়ালি লোকগীতির সাথে বাউল আঙ্গিকের এক অভূতপূর্ব সংমিশ্রণ পরিবেশিত হয়েছে। যা বেশ শ্রুতিসুখকর।

দেবলীনা সমাজপতি




?Copyright Bartaman Pvt Ltd. All rights reserved
6, J.B.S. Haldane Avenue, Kolkata 700 105
 
Editor: Subha Dutta