রবিবার | রেসিপি | আমরা মেয়েরা | দিনপঞ্জিকা | শেয়ার | রঙ্গভূমি | সিনেমা | নানারকম | টিভি | পাত্র-পাত্রী | জমি-বাড়ি | ম্যাগাজিন

ও আমার দেশের মাটি


স্বাধীনতার ৭০তম বছর উপলক্ষে রবীন্দ্রনাথের দেশাত্মবোধক গান ও পাঠের সংকলন ‘ও আমার দেশের মাটি’ শীর্ষক অ্যালবাম প্রকাশিত হল। অ্যালবামটির গানগুলি গেয়েছেন শাকিলা সুলতানা ও পাঠে রয়েছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। এটির আনুষ্ঠানিক প্রকাশ উপলক্ষে সম্প্রতি কলকাতা প্রেস ক্লাবে এক সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। প্রখ্যাত শিল্পী রামানন্দ বন্দ্যোপাধ্যায় এই অ্যালবামটির প্রকাশ করে বলেন, রবীন্দ্রনাথের গান সকলের কাছে অত্যন্ত প্রিয়। তিনি আমাদের সুস্থ রুচি ও সংস্কৃতি দিয়েছেন। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় বলেন, এটা খুব সময়োপযোগী হয়েছে। পরাধীনতার জ্বালা কতটা ছিল সেটা আজকের প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দেওয়াটা দরকার। এখনকার ছেলেমেয়েদের মধ্যে দেশাত্মবোধ নিশ্চয়ই আছে। তবে রবীন্দ্রনাথের লেখা স্বদেশবোধের গান মানুষকে নিঃসন্দেহে আরও উদ্বুদ্ধ করবে। মোট আটটি গানে সংকলিত অ্যালবামটি। গানগুলি ও আমার দেশের মাটি, নাই নাই ভয়, ব্যর্থপ্রাণের আবর্জনা, বাংলার মাটি বাংলার জল, বিধির বাঁধান কাটবে তুমি এমন শক্তিমান ইত্যাদি।
শিল্পীর সুরেলা ও সুমিষ্ট কণ্ঠে গাওয়া গানগুলি শুনতে মন্দ লাগে না। বিশেষত টাইটেল সঙটি। এছাড়া আবেগমথিত কণ্ঠে আমার সোনার বাংলা গানটিও বেশ ভালো লাগে শুনতে। সুন্দর এক দেশাত্মবোধ জেগে ওঠার সব উপকরণ রয়েছে অ্যালবামটিতে। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের কণ্ঠে কবির লেখা বিভিন্ন পাঠ অ্যালবামটিকে অন্য মাত্রা দিয়েছে। এটা একটা বড় প্রাপ্তি গানের সঙ্গে। অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সংকলন ও বিন্যাসে এটি আরও সমৃদ্ধ হয়েছে।

কলি ঘোষ                     
ছবি: দীপেশ মুখোপাধ্যায়  
 

মেহের আলি

মেহের আলি ছবির কলাকুশলীদের উপস্থিতিতে সম্প্রতি ছবিটির গানের অ্যালবাম প্রকাশ পেল। স্যাভি, দীপ ও লয়ের সুরে ভিন্ন স্বাদের এবং মুডের পাঁচটি গান রয়েছে অ্যালবামটিতে। প্রতিটি গানই ছবিতে ব্যবহার করা হয়েছে ব্যাকগ্রাউন্ডে। গানগুলি লিখেছেন সৌম্যদীপ বসু, রমেশ এবং লয়-দীপ। অনিন্দিতা চট্টোপাধ্যায়, রাজ বর্মণ, দীপ এবং তিমির বিশ্বাসের তরতাজা কণ্ঠ গানগুলিকে অন্য মাত্রা দিয়েছে। যে কারণে গানগুলো শুনতে ভালো লাগে।
অ্যালবাম প্রকাশের পাশাপাশি ছবিটির ট্রেলার লঞ্চ হয়। ‘ছায়ামানুষ’ খ্যাত অরিন্দম দে ছবিটির পরিচালক। অরিন্দম থ্রিলারধর্মী ছবি করতে অভ্যস্ত। প্রেমের পাশাপাশি এ ছবিতেও থ্রিলারের স্বাদ পাওয়া যাবে। ‘আমি গতানুগতিকতার বাইরে গিয়ে, একটু অন্য ধরনের ছবি করতে পছন্দ করি। হিরণ প্রথম এই ধরনের ছবি করল। কাজেই আমাদের দু’জনের কম্বিনেশন একটা আলাদা মাত্রা দেবে। এখনও পর্যন্ত হিরণের সেরা অভিনয়টা এই ছবিতেই দেখা যাবে। ওর লেখা গল্পটাও অন্য স্বাদের’, জানালেন পরিচালক। ‘মেহের আলি’ যে নতুন কিছু দিতে চলেছে, সেটার একটা আঁচ পাওয়া গেল ছবির ট্রেলারে।

অজয় মুখোপাধ্যায়         
ছবি: ভাস্কর মুখোপাধ্যায়  

দুর্গা সহায় -এর পোস্টার লঞ্চ

অরিন্দম শীল পরিচালিত ‘দুর্গা সহায়’ ছবির পোস্টার সম্প্রতি মুক্তি পেল। কলকাতার এলগিন রোডের ‘স্টোরি’তে । ছবির মূল বক্তব্য ‘বিপদে কোন দুর্গা সহায় হতে পারে। মানবী দুর্গা না দেবী দুর্গা। ছবিতে মানবী দুর্গা সহায় হওয়ার কথা বলা হয়েছে। এবং সেখানেই অভিনবত্ব। ছবিতে অভিনয় করেছেন সোহিনী সরকার, তনুশ্রী, ইন্দ্রাশিস প্রমুখ। চিত্রগ্রহণে গৈরিক সরকার। চিত্রনাট্য পদ্মনাভ দাশগুপ্ত। প্রযোজক অভিষেক ঘোষ।

নিজস্ব প্রতিনিধি             
ছবি: দীপেশ মুখোপাধ্যায়  

 বাংলা আধুনিক গানের অ্যালবাম প্রকাশিত হয়েছে ইনরেকো রেকর্ডস কোম্পানি থেকে। অ্যালবামের গানগুলি গেয়েছেন চন্দ্রিমা। ৬টি গানে সমৃদ্ধ অ্যালবামটি। গানগুলি হল- আমার চোখের ঘরে, একটা দিন, বৃষ্টি দিন, একটা বিকেল ইত্যাদি। গানের কথাগুলি খুব আধুনিক। শিল্পীর কণ্ঠস্বরটি ভালো। খুব স্বচ্ছন্দ, সাবলীলভাবে গানগুলি গেয়েছেন তিনি। তবে গানগুলিতে সুরের প্রাধান্য কম। অ্যালবামটির যন্ত্রানুষঙ্গে রয়েছেন সঞ্জয় দাস, জয় নন্দী, জয় সরকার, দেবাশিস সোম, সবুজ মুখার্জি এবং গৌতম বসু
নিজস্ব প্রতিনিধি
 সারেগামা থেকে প্রকাশিত হয়েছে মেয়েদের লোকগানের দল মাদলের ‘দশের মাদল’ শীর্ষক সিডি টি। এতে আটটি গান পরিবেশিত হয়েছে। স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া নিবেদিত এই সিডিটির সংগীত পরিচালনা করেছেন ডঃ তপন রায়। গানগুলি গেয়েছেন মালা, পল্লবী, রীতা,মেহুলী, রণিতা ও ঝিমলি। ভাষ্যপাঠ করেছেন মোহন মিত্র ও পারমিতা সমাদ্দার। যন্ত্রানুষঙ্গে রকেট মল্ডল।
গানগুলি হল ‘এ মাদল দশের মাদল্’, ‘নিথুয়া পাথারে নেমেছি’, ‘কইলজ্যার ভিতর পাখি’(চট্টগ্রামের গান),‘চিড়া কুটি চিড়া কুটি’(সারি গান), ‘বাতাস কর বাতাস কর সখি’(ময়মনসিংহের জারি গান) প্রভৃতি। প্রতিটি গানই বেশ শ্রুতিসুখকর।
সুদেব চট্টোপাধ্যায়
 নবীন প্রতিভা ইন্দিরা’র কথা ও সুরে সম্প্রতি ইনরেকো থেকে প্রকাশিত হল বাংলা আধুনিক গানের অ্যালবাম ‘উড়ান’।
প্রথমেই উল্লেখ করতে হয় রূপঙ্করের ‘তোমার জন্য’ গানটির কথা। শিল্পীর কণ্ঠের সাবলীলতা, স্টাইল এবং রোমান্টিকতাকে সঠিকভাবে ব্যবহার করেছেন ইন্দিরা। শুভঙ্কর ভাস্করের ‘মেঘ নেমে বসে আছে’, আবেগে ভাসিয়ে নিয়ে যায়। অ্যালবামে ঠাঁই পেয়েছে বেশ কয়েকজন নতুন কণ্ঠশিল্পীর গান। যেমন ইন্দিরা দাশ (তুমি যখন জীবন ছবি), শিরীন সেনগুপ্ত (জ্বেলো না আলো), সায়ম পাল (চলো না ফিরে যাই), শতদ্রু কবীর (উড়ে যাওয়া রোদ্দুর) এবং আশিস গিরি (কল অপিসের মালিক)— প্রত্যেকেই যথাযথভাবে গানগুলিকে গেয়েছেন।
আলাদাভাবে উল্লেখ করতে হয় রূপঙ্কর ও ইন্দিরার দ্বৈত সংগীত ‘তারে বড় মনে পড়ে’। ভিন্ন ভিন্ন স্বাদের ১২টি গানের অ্যালবাম ‘উড়ান’ যেন এক ঝলক তাজা হাওয়া।

নিজস্ব প্রতিনিধি



?Copyright Bartaman Pvt Ltd. All rights reserved
6, J.B.S. Haldane Avenue, Kolkata 700 105
 
Editor: Subha Dutta