কলকাতা, রবিবার ২২ জানুয়ারি ২০১৭, ৮ মাঘ ১৪২৩

 

রবিবার | রেসিপি | আমরা মেয়েরা | দিনপঞ্জিকা | শেয়ার | রঙ্গভূমি | সিনেমা | নানারকম | টিভি | পাত্র-পাত্রী | জমি-বাড়ি | ম্যাগাজিন

উত্তরপ্রদেশের লড়াইয়ে
কংগ্রেসের মুখ প্রিয়াঙ্কা

সমৃদ্ধ দত্ত, নয়াদিল্লি

২১ জানুয়ারি: সত্যিই তাঁর ক্যারিশমা ও গ্ল্যামার কংগ্রেসের মরা গাঙে জোয়ার আনতে পারে কিনা তা যাচাইয়ের আদর্শ মঞ্চ ২০১৯-এর লোকসভা ভোট। তবে সেই ফাইনালের আগে আসন্ন পাঁচ রাজ্যের ভোট সব অর্থেই সেমিফাইনাল। ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটের আগে ২০১৭ সালের উত্তরপ্রদেশের নির্বাচন কংগ্রেস তথা প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর কাছে নিছক একটি ভোট নয়, জনসমর্থনের লিটমাস টেস্ট। কারণ প্রিয়াঙ্কা আসন্ন নির্বাচনে কংগ্রেসের প্রার্থী বাছাই থেকে প্রচার কৌশল নির্ধারণে সক্রিয়ভাবে অংশ নিতে শুরু করেছেন। দলের অন্যতম কাণ্ডারি হয়ে তিনি প্রচারের ময়দানেও নামবেন।

আজও উত্তরপ্রদেশ নিয়ে দলের বৈঠকে তিনিই ছিলেন মধ্যমণি। এতদিন প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর ফোকাস সীমাবদ্ধ থেকেছে একমাত্র আমেথি ও রায়বেরিলির মধ্যেই। শোনা যাচ্ছে এবারই প্রথম তিনি সেই সীমানা ছাড়িয়ে বৃহত্তর রাজনীতির ক্ষেত্রে পা রাখছেন। কিন্তু প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর রাজনৈতিক কেরিয়ারের সূচনার পিচটি ঘূর্ণি হবে কিনা তা নির্ভর করছে কংগ্রেস ও সমাজবাদী পার্টির জোট সম্ভাবনার উপর। কারণ এই জোট হবেই যখন ধরে নেওয়া হচ্ছিল তখন শেষ মুহূর্তে প্রবল দড়ি টানাটানিতে জোট সংক্রান্ত আলোচনাই ভেস্তে যাওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। কংগ্রেস চাইছে ১১০ থেকে ১১৫ টি আসন। অখিলেশ যাদব আজ শেষ অফার করেছেন ৯৯টি। কংগ্রেস রাজি হয়নি। সুতরাং এবার পিছনের দরজা দিয়ে আলোচনা এবং স্নায়ুর লড়াই চলছে। কোনও সন্দেহ নেই এই জোট না হলে ক্ষতি দু’পক্ষেরই। তবে কংগ্রেসেরই বেশি লোকসান। কারণ জোট না হলে উত্তরপ্রদেশে কংগ্রেস আদৌ আর প্রাসঙ্গিক থাকবে না। আর সেই পরিস্থিতিতে সবথেকে লাভবান হতে চলেছে বিজেপি। কারণ সমাজবাদী ও কংগ্রেসের জোট না হওয়ার অর্থ মুসলিম ভোট বিভাজিত হয়ে যাবে। আর শুধু অস্তিত্ব রক্ষার জন্যই নয়, যদি সত্যিই প্রিয়াঙ্কাকে এই নির্বাচনে নিজের জনপ্রিয়তা প্রমাণ করতে হয় তাহলে একমাত্র জোটই পাবে সেই কাঙ্ক্ষিত ফলাফল প্রদান করতে। কারণ জোট না হলে কংগ্রেসের ভোটব্যাংকে জোয়ার আনার ক্ষমতা প্রিয়াঙ্কারও নেই। তাই কংগ্রেস কর্মী সমর্থকরা মনেপ্রাণে চাইছেন যে কোনও মূল্যেই জোট হোক। কারণ সেক্ষেত্রে প্রিয়াঙ্কা ও রাহুল গান্ধীর যুগলবন্দি এই প্রথমবার দৃশ্যমান হবে। আর যদি অখিলেশ ও রাহুলের জোটের জেরে ফল আশাব্যঞ্জক হয় তাহলে অবশ্যই প্রিয়াঙ্কার মুখরক্ষা হবে। যদিও এমনও শোনা যাচ্ছে একমাত্র অখিলেশ যাদবের সঙ্গে জোট হলেই প্রিয়াঙ্কা পুরোদস্তুর নামবেন প্রচারে। নচেৎ নয়। কারণ সেক্ষেত্রে হারা ম্যাচে নামার ঝুঁকি তিনি নেবেন না। এবং এই তুরুপের তাসটি অযথা নষ্ট করতেও চাইবেন না সোনিয়া গান্ধী। ফলে উত্তরপ্রদেশের নির্বাচনে সমাজবাদী পার্টি ও কংগ্রেসের জোট নিছক একটি রাজনৈতিক জোটই নয়, কংগ্রেসের অভ্যন্তরীণ সমীকরণটিরও দিশা নির্ধারক হতে পারে।

 

 

 

 






?Copyright Bartaman Pvt Ltd. All rights reserved
6, J.B.S. Haldane Avenue, Kolkata 700 105
 
Editor: Subha Dutta