কলকাতা, রবিবার ২২ জানুয়ারি ২০১৭, ৮ মাঘ ১৪২৩

 

রবিবার | রেসিপি | আমরা মেয়েরা | দিনপঞ্জিকা | শেয়ার | রঙ্গভূমি | সিনেমা | নানারকম | টিভি | পাত্র-পাত্রী | জমি-বাড়ি | ম্যাগাজিন

২ লক্ষ ৩৫ হাজার কোটি টাকা
লগ্নির প্রস্তাব: মমতা

বাপ্পাদিত্য রায়চৌধুরী কলকাতা

দু’দিনের শিল্প সম্মেলন শেষে রাজ্যে ২ লক্ষ ৩৫ হাজার ২৯০ কোটি টাকার বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি এসেছে, দাবি করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গত বছর বিশ্ব বঙ্গ বাণিজ্য সম্মেলন থেকে আড়াই লক্ষ কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রস্তাব এসেছিল। এবার তার থেকে কম প্রতিশ্রুতি এলেও তিনি চিন্তিত নন বলেই জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। নোট বাতিলের ঘটনাকে কাঠগড়ায় তুলে তিনি বলেন, ডিমানিটাইজেশনের পরেও বিনিয়োগের যেটুকু প্রতিশ্রুতি এসেছে, তা আমাদের জন্য যথেষ্ট। তবে লগ্নির অঙ্ক ঘোষণার পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী জানিয়ে দিয়েছেন, তাঁরা হিসাবে জল মেশান না। তিনি দাবি করেন, বছর বছর এই অঙ্ক বাড়বে। বিনিয়োগের অঙ্ক নিয়ে অন্যান্য রাজ্যের হাঁকডাককে খোঁচা দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, অন্যান্য জায়গায় লগ্নি নিয়ে যা বলা হয়, তার সঙ্গে বাস্তবের বিস্তর ফারাক। অথচ আমরা যা বলি, তাই-ই হয়। এবারের সম্মেলন তাই ‘সুপার সাকসেসফুল’।

শুক্রবার থেকে শুরু হওয়া বেঙ্গল গ্লোবাল বিজনেস সামিটের প্রথম দিনেই বিনিয়োগের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে সর্বস্ব উজাড় করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন মুখ্যমন্ত্রী। বারবার বোঝান, তাঁর আমলে রাজ্যে শিল্প পরিবেশ অটুট। মজুত রয়েছে শিল্পের সবরকম মশলা। শনিবার সম্মেলনের শেষ দিনেও মুখ্যমন্ত্রী ফের বোঝাতে চেয়েছেন লগ্নি নিয়ে তাঁর আকুলতার কথা। এবারের সম্মেলনে যেমন তারকা শিল্পপতিদের দেখা যায়নি, তেমনই বড় কোনও শিল্পও ঘোষণা হয়নি। এমনকী দিনের শেষে বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতির যে অঙ্ক সরকারের হাতে এসেছে, তাও গত দু’বছরের তুলনায় কম। তাহলে সাফল্য কোথায়? তা বোঝাতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ২৯টি দেশ থেকে তাঁরা বিপুল সাড়া পেয়েছেন, যেখানে গোটা বিশ্ব একটা পরিবার হিসাবে কাজ করছে। বিদেশ থেকেই বিরাট অঙ্কের পুঁজি আসার প্রতিশ্রুতি এসেছে এবার, দাবি করেছেন তিনি। এসব যে শুধু ফাঁকা আওয়াজ নয়, তা বোঝাতে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, গত দু’বছরে যে ৪.৯৩ লক্ষ কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রস্তাব এসেছিল, তার ৪০ শতাংশ এখন বাস্তবায়নের বিভিন্ন স্তরে রয়েছে।

কোন কোন ক্ষেত্রে এল বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি? মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, উৎপাদন শিল্পেই এসেছে সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগের প্রস্তাব। পরিমাণ ৬১ হাজার ৭৬৬ কোটি টাকা। ছোট ও মাঝারি শিল্পে আসতে পারে ৫০ হাজার ৭০০ কোটি টাকার বিনিয়োগ। এরপর রয়েছে নগরোন্নয়ন। সেখানে লগ্নির প্রতিশ্রুতি ৪৬ হাজার ৬০০ কোটি টাকার। তথ্যপ্রযুক্তি সেক্টরে ১৮ হাজার ৫৪০ কোটি টাকা এবং খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ ও উদ্যানপালন বা মৎস্যক্ষেত্রে ১০ হাজার ৬৪৯ কোটি টাকার লগ্নি আসবে বলে দাবি করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। এছাড়াও তুলনামূলক ছোট অঙ্কের লগ্নি আসছে পরিবহণ, শিক্ষা ও কারিগরি শিক্ষা, স্বাস্থ্য, ফিনান্সিয়াল সেক্টর, বিদ্যুৎ এবং খনি শিল্পে।

শিল্প নির্মাণে সরকারি জটিলতা যাতে বাধা না হয়ে দাঁড়ায়, সেই কারণেই আরও একটি পদক্ষেপের কথা এদিন ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, এখন থেকে এসএমএস-এ বিনিয়োগ প্রস্তাব পাঠানো যাবে সরকারের কাছে। শিল্প সংক্রান্ত কোর কমিটির চেয়ারম্যান হিসাবে সঞ্জীব গোয়েঙ্কা তার দেখভাল করবেন। তিনি যে প্রস্তাব পাবেন, তা শিল্পমন্ত্রী অমিত মিত্রের কাছে পৌঁছে যাবে। পাইলট প্রজেক্ট হিসাবে এই কাজ অল্প পরিসরে শুরু হবে। শিল্পের নানা সেক্টরের দেখভালের জন্য সরকারিভাবে যে কমিটি গড়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী, সেই কমিটির চেয়ারম্যানদের কাছেও এসএমএস-এর মাধ্যমে বিনিয়োগ প্রস্তাব জানানো যাবে।

 

 

 

 






?Copyright Bartaman Pvt Ltd. All rights reserved
6, J.B.S. Haldane Avenue, Kolkata 700 105
 
Editor: Subha Dutta