কলকাতা, রবিবার ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৩

রবিবার | রেসিপি | আমরা মেয়েরা | দিনপঞ্জিকা | শেয়ার | রঙ্গভূমি | সিনেমা | নানারকম | টিভি | পাত্র-পাত্রী | জমি-বাড় | ম্যাগাজিন

‘আপনি মুসলিম?’, ফ্লোরিডা বিমানবন্দরে
দু’ঘণ্টা আটক বক্সার মহম্মদ আলির ছেলে

ওয়াশিংটন, ২৫ ফেব্রুয়ারি (পিটিআই): ট্রাম্পের মুসলিম বিরোধী নীতির শিকার হলেন প্রয়াত বক্সিং আইকন মহম্মদ আলির এক ছেলে। মার্কিন মুলুকের এক বিমানবন্দরে নিরাপত্তারক্ষীদের থেকে তাঁকে শুনতে হয়, ‘এই নাম কোথা থেকে পেলেন? আপনি কি মুসলিম?’ এখানেই শেষ নয়, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য টানা দু’ঘণ্টা আটক করে রাখা হয় তাঁকে। তাঁর আইনজীবী প্রশ্ন তুলেছেন, আর কতদিন এভাবে ট্রাম্পের নীতির জন্য সাধারণ মানুষকে ভুগতে হবে!

ঘটনাটি ঘটেছে গত ৭ ফেব্রুয়ারি। মহম্মদ আলির দ্বিতীয় স্ত্রী তথা মাকে নিয়ে জামাইকা থেকে ফ্লোরিডা ফিরছিলেন মহম্মদ আলি জুনিয়র। ফিলাডেলফিয়াতে জন্ম তাঁর এবং মার্কিন পাসপোর্টও রয়েছে। কিন্তু ফ্লোরিডায় নামার পরই তাঁর নাম শুনে এগিয়ে আসেন নিরাপত্তারক্ষীরা। তাঁকে এবং তাঁর মা’কে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করা হয়। বক্সিং আইকনের সঙ্গে তোলা ছবি দেখিয়ে তাঁর মা রেহাই পেলেও মহম্মদ আলি জুনিয়র তা পাননি। আরবি ভাষার নাম নিয়ে রীতিমতো বেকায়দায় পড়তে হয় তাঁকে। বারংবার শুনতে হয়, ‘এই নাম কোথা থেকে পেয়েছেন? আপনি কি মুসলিম?’ প্রায় দু’ঘণ্টা আটক থাকার পর ছাড়া পান তিনি।

জানুয়ারি মাসের শেষের দিকে সাতটি মুসলিম রাষ্ট্রের নাগরিকদের আমেরিকা ঢোকার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সেই নীতির ফলেই এই হেনস্তা বলে সরাসরি অভিযোগ করেছেন মহম্মদ আলির ছেলে।

পরমাণু অস্ত্র মজুতের ক্ষেত্রে আমেরিকা হবে বিশ্বের এক নম্বর: ট্রাম্প

ওয়াশিংটন, ২৫ ফেব্রুয়ারি: হোয়াইট হাউজে ঢোকার আগেই বলেছিলেন, তিনি বিশ্বে পারমাণবিক অস্ত্রের প্রতিযোগিতা চান। আর গদিতে বসার চার সপ্তাহের মধ্যে জানিয়ে দিলেন, আমেরিকার পারমাণবিক অস্ত্রের সক্ষমতা বাড়ানোর দিকে অবিলম্বে মন দেবেন। একইসঙ্গে ইঙ্গিত দিলেন, এবারের মার্কিন বাজেট হবে সামরিকবান্ধব। সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প বলেন, পারমাণবিক অস্ত্রের সম্ভারে আমেরিকা পিছিয়ে পড়েছে। এই অস্ত্রের মজুতের ক্ষেত্রে আমেরিকাকে বিশ্বের এক নম্বরে থাকতে হবে। ডোনাল্ড ট্রাম্প সাক্ষাৎকারে উত্তর কোরিয়া, ন্যাটো, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও আরব দুনিয়ার সংকট নিয়েও কথা বলেন। তিনি বলেন, উত্তর কোরিয়া আঞ্চলিক নিরাপত্তায় যে সংকট সৃষ্টি করছে, চীন উদ্যোগী হলে খুব সহজেই তার সমাধান সম্ভব। ইজরায়েল-প্যালেস্তাইন সংঘাত নিরসনে ‘দুই রাষ্ট্র সমাধান নীতি’র প্রতিও তিনি সমর্থন জানান। আমেরিকার সমর্থিত এই নীতি থেকে তাঁর সরে যাওয়ার খবর নিয়ে সম্প্রতি উদ্বেগের সৃষ্টি হয়।

আমেরিকার পারমাণবিক অস্ত্রের ভাণ্ডার আরও সমৃদ্ধ করার ব্যাপারে ট্রাম্প বলেন, তিনি পারমাণবিক অস্ত্রমুক্ত একটি বিশ্ব দেখতে চান। এ কথা বলার পরই বলেন, ‘তবে পারমাণবিক শক্তির প্রশ্নে আমরা কোনও দেশের থেকেই পিছিয়ে থাকতে রাজি নই, এমনকী তা কোনও বন্ধুপ্রতীম দেশ হলেও নয়।’ গত বছরের ডিসেম্বরে ট্রাম্প একটি ট্যুইট করেছিলেন। তাতে তিনি বলেছিলেন, গোটা বিশ্বে এ নিয়ে সচেতনতা তৈরি না হওয়া পর্যন্ত আমেরিকার পারমাণবিক অস্ত্রের সম্ভার শক্তিশালী ও সম্প্রসারিত করা উচিত। উল্লেখ্য, আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক পারমাণবিক অস্ত্রবিরোধী সংগঠন প্লাওশেয়ার্স ফান্ডের হিসাবে রাশিয়ার ভাণ্ডারে এখন ৭ হাজার পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে। আমেরিকার রয়েছে ৬ হাজার ৮০০টি। ফলে রাশিয়াকে টপকানোই যে আমেরিকার একমাত্র লক্ষ্য তা নাম না করেই বুঝিয়ে দিয়েছেন ট্রাম্প। মার্কিন প্রেসিডেন্ট অভিযোগ করেন, স্থলভিত্তিক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের বিস্তার ঘটিয়ে রাশিয়া ১৯৮৭ সালের মার্কিন-রুশ চুক্তির লঙ্ঘন করেছে।

উত্তর কোরিয়ার ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, আমেরিকার মিত্র জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা শক্তিশালী করাই এই সমস্যা সমাধানের একটি পথ। তবে চীন চাইলেই খুব সহজে এ সমস্যার সমাধান করতে পারে। ইজরায়েল-প্যালেস্তাইন ইস্যুতে ট্রাম্প বলেন, দুই রাষ্ট্র সমাধান নীতিতে দুই পক্ষের মধ্যে সমস্যা নিরসনের পক্ষেই তিনি। তবে উভয় পক্ষ যে সমাধানে সন্তুষ্ট হবে, তেমন একটা সমাধান বের করতে পারলেই তিনি সবচেয়ে খুশি হবেন।

এদিকে ইউএসএ টুডে জানায়, রাশিয়ার সঙ্গে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সহযোগীদের যোগাযোগের যে খবর ছড়িয়ে পড়েছে, তা খারিজ করে দেওয়ার জন্য হোয়াইট হাউজ যে অনুরোধ করেছিল, তা প্রত্যাখ্যান করেছে আমেরিকার কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থাসহ (এফবিআই) অন্যান্য গোয়েন্দা সংস্থা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক কর্তা জানান, নির্বাচনী প্রচারের সময় ট্রাম্পের সহযোগীরা রুশ গোয়েন্দা কর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করেছিলেন বলে চলতি মাসের প্রথম দিকে নিউ ইয়র্ক টাইমস দাবি করে। হোয়াইট হাউজের চিফ অব স্টাফ রেইন্স প্রিবাস সেই সব খবর খারিজ করে দিতে এফবিআইসহ অন্যান্য মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার প্রতি অনুরোধ জানিয়েছিলেন। গোয়েন্দা সংস্থাগুলি তাঁর অনুরোধ খারিজ করে দিয়েছে।

‘ট্রাম্প কি আদৌ আমাদের রক্ষা করতে পারবেন?’ প্রশ্ন হত ইঞ্জিনিয়ারের স্ত্রীর

হিউস্টন, ২৫ ফেব্রুয়ারি (পিটিআই): গতকাল ট্রাম্পের ‘বিদ্বেষ’ নীতি নিয়ে প্রশ্নটা তুলেছিলেন নিহত ভারতীয় ইঞ্জিনিয়ারের এক আত্মীয়। আর শনিবার একই প্রশ্ন তুলে দিলেন নিহত শ্রীনিবাস কুচিভোটলার স্ত্রী সুনয়না দুমালা। বরং একধাপ এগিয়ে বললেন, ‘মার্কিন প্রেসিডেন্ট কি আদৌ আমাদের রক্ষা করতে পারবেন? আমরা, যারা এখানে সংখ্যালঘু হিসাবে চিহ্নিত হই, তাঁদের!’

শনিবার শ্রীনিবাসের সংস্থা গারমিন ওলাথের সদর দপ্তরে একটি স্মরণসভার আয়োজন করেছিল। সেখানে ডাকা হয়েছিল তাঁর স্ত্রীকেও। ওই স্মরণসভাতেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট, এই পদে ট্রাম্প বসার পর মার্কিন নীতি নিয়ে ক্ষোভ উগরে দেন তিনি। বলেন, ‘২০০৫ সালে উচ্চশিক্ষার জন্য মার্কিন মুলুকে এসেছিলেন শ্রীনিবাস। সেই থেকেই রয়ে গিয়েছে এখানে। ১২টা বছর। আপন করে নিয়েছিল এই দেশটাকে। সংবাদপত্রে বিভিন্ন জায়গায় এরকম গুলিচালনার ঘটনার কথা বললে উত্তর দিতেন, আমেরিকাতে ভালো জিনিসও হয়। অথচ, তাঁকেই এইভাবে প্রাণ দিতে হল! তাঁর কি এটা প্রাপ্য ছিল?’ বলতে বলতে গলা ধরে আসে তাঁর। কিন্তু পরক্ষণেই নিজেকে সামলে নেন সদ্য স্বামীহারা সুনয়না। প্রশ্ন তোলেন, ‘মার্কিন প্রেসিডেন্টের বিদ্বেষমূলক নীতিতে উৎসাহী কারও গুলিতে যেভাবে আমার স্বামীকে প্রাণ দিতে হল, ভবিষ্যতে এই ধরনের ঘটনা ঠেকাতে ট্রাম্প প্রশাসন আদৌ কি কোনও ব্যবস্থা নেবে?’

নিহত ভারতীয় ইঞ্জিনিয়ারের পরিবারের পাশে ভারতীয় দূতাবাস যেমন দাঁড়িয়েছে, তেমনই শোকবার্তা পাঠিয়েছেন মাইক্রোসফটের ভারতীয় বংশোদ্ভূত প্রধান সত্য নাদেলা। তিনি বলেন, ‘শোকগ্রস্ত ওই পরিবারকে সমবেদনা জানাচ্ছি। আমাদের সমাজে এধরনের ঘৃণ্য আচরণ বা হিংসার কোনও জায়গা নেই।’ উল্লেখ্য, ট্রাম্পের অভিবাসী নীতির বিরুদ্ধে মুখ খুলেছিলেন মাইক্রোসফট প্রধান। আর মার্কিন মুলুকে ক্রমশ বেড়ে চলা এই ধরনের ঘটনার বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন রাষ্ট্রসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। শুক্রবার তাঁর মুখপাত্র বলেন, ‘ইসলাম ধর্মের প্রতি ভীতি বেড়ে চলেছে বিশ্বজুড়ে। শেষ কয়েকমাসে এই কথা প্রায়ই বলে চলেছেন মহাসচিব। এটা বন্ধ করার জন্য প্রায়শই বার্তা দিয়েছেন তিনি। বলেছেন, নিজের ধর্মের পাশাপাশি অন্যান্য ধর্ম এবং জাতির প্রতিও সমানভাবে সহানুভূতিশীল হতে হবে।’

হোয়াইট হাউজে সাংবাদিক সম্মেলনে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না বাছাই করা মিডিয়াকে

ওয়াশিংটন, ২৫ ফেব্রুয়ারি: মিডিয়ার সঙ্গে তাঁর বৈরিতা ছিল নির্বাচনের আগে থেকেই। দিন যত গড়িয়েছে, মিডিয়ার সঙ্গে সেই দুরত্ব আরও বেড়েছে। এবার মিডিয়ার মধ্যে ফাটল ধরাতে নয়া কৌশল বেছে নিল ট্রাম্প প্রশাসন। সেই হিসাবেই সিএনএন ও আরও কয়েকটি প্রথম সারির সংবাদমাধ্যমকে শুক্রবার হোয়াইট হাউজে অনুষ্ঠিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে ঢুকতেই দেওয়া হল না। একই প্রেস ব্রিফিংয়ে হাতে গোনা কয়েকটি সংবাদমাধ্যমকে ঢোকার অনুমতি দেওয়া হয়। এই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে সংবাদমাধ্যমগুলি। সিএনএনের খবরে জানানো হয়, নিউ ইয়র্ক টাইমস, দ্য লস এঞ্জেলস টাইমস, পলিটিকো, বিবিসি ও গার্ডিয়ানের মতো বড় বড় পত্রিকা ও সংবাদ সংস্থাকে প্রেস ব্রিফিংয়ে ঢুকতে বাধা দেওয়া হয়। হোয়াইট হাউজের প্রেস সেক্রেটারি শন স্পাইসারের কার্যালয়ে ওই প্রেস ব্রিফিং হয়। উল্লিখিত পত্রিকা ও সংবাদ সংস্থার কর্মীরা যখন স্পাইসারের কার্যালয়ে ঢোকার চেষ্টা করেন, তখন তাঁদের জানানো হয়, তাঁরা ঢোকার তালিকায় নেই।

হোয়াইট হাউজের প্রেস পুলে একটি টেলিভিশন চ্যানেল, একটি রেডিও, একটি পত্রিকা ও কিছু সংবাদ সংস্থার সাংবাদিকদের অংশ নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়। এই প্রেস ব্রিফিংয়ে এনবিসি, এবিসি, সিবিএস ও ফক্স নিউজের মতো চার থেকে পাঁচটি বড় টেলিভিশন চ্যানেলকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। কিন্তু সিএনএনকে ঢুকতে বাধা দেওয়া হয়। নিউ ইয়র্ক টাইমসকেও ভিতরে যেতে দেওয়া হয়নি। রক্ষণশীল মতাদর্শের গণমাধ্যম ব্রেইটবার্ট নিউজ, দ্য ওয়াশিংটন টাইমস ও ওয়ান আমেরিকা নিউজ নেটওয়ার্ককে ভিতরে ঢুকতে দেওয়া হয়। হোয়াইট হাউজের এই আচরণের নিন্দা করে এক বিবৃতিতে সিএনএন বলেছে, ‘ট্রাম্পের হোয়াইট হাউজের এই ধরনের আচরণ মেনে নেওয়ার মতো নয়। দৃশ্যত, ট্রাম্পের অপ্রিয় সত্য খবর প্রকাশ করায় এই ধরনের প্রতিহিংসামূলক আচরণ করা হয়েছে। আমরা সংবাদ পরিবেশন চালিয়ে যাব।’

নিউ ইয়র্ক টাইমসের সম্পাদক ডিন বাকেটও এই আচরণের নিন্দা করেন। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘নিউ ইয়র্ক টাইমসসহ অন্যান্য সংবাদমাধ্যমকে বর্জন করায় আমরা তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। হোয়াইট হাউজের ইতিহাসে এ রকম ঘটনা এর আগে ঘটেনি।’ এপি, টাইম ম্যাগাজিন ও ইউএসএ টুডেও ওই ব্রিফিং বয়কট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ওয়ালস্ট্রিট জার্নাল, ওয়াশিংটন পোস্ট, পলিটিকোসহ বিভিন্ন গণমাধ্যম তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে। এর কয়েক ঘণ্টা পরে ওয়াশিংটনের কাছে কনজারভেটিভ পলিটিক্যাল অ্যাকশন কনফারেন্সে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সংবাদমাধ্যমের উপর আবারও আক্রমণ শানানো। তিনি বলেন, বেশির ভাগ সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিরা জনগণের শত্রু।

জালিয়াতির অভিযোগে গ্রেপ্তার ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন ব্যবসায়ী

ওয়াশিংটন, ২৫ ফেব্রুয়ারি (পিটিআই): ঋণদাতাদের সঙ্গে জালিয়াতির অভিযোগে লস এঞ্জেলসের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বস্টনের জনপ্রিয় রত্ন ব্যবসায়ী ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক রমন হান্ডাকে (৬৭)। চলতি সপ্তাহে ভারত থেকে ফেরার পরই তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। শুক্রবার তাঁকে লস এঞ্জেলসের আদালতে তোলা হয়। এবার তাঁকে বিচারের জন্য বস্টনে আনা হবে। জানা গিয়েছে, ২০০৭ সালের মে থেকে ডিসেম্বরে হান্ডার সংস্থা আলফা ওমেগা জুয়েলার্স গভীর আর্থিক সংকটের মধ্যে পড়ে। এই সময় ব্যাংক থেকে আরও ঋণ নেওয়ার জন্য সংস্থার প্রকৃত আর্থিক অবস্থা সম্পর্কে ভুল তথ্য সরবরাহ করেন তিনি। এরপর অবস্থা বেগতিক দেখে ২০০৭ সালের ১৫ ডিসেম্বর সপরিবারে তিনি আমেরিকা ছেড়ে চলে যান। তখন তাঁর সংস্থার ঋণদাতারাই ব্যাবসার দখল নেন। তারপরই সংস্থার সম্পর্কে আসল চিত্রটি সামনে আসে। দেখা যায়, ৭০ লক্ষ মার্কিন ডলারের কোনও হিসাব মিলছে না। এফবিআই এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, হান্ডার অপরাধের ক্ষেত্রে সর্বাধিক সাজা ২০ বছরের জেল, তারপর তিন বছর নজরদারিতে থাকা এবং প্রতিক্ষেত্রেই আর্থিক জরিমানার পরিমাণ আড়াই লক্ষ মার্কিন ডলার।

সিরিয়ায় নিরাপত্তারক্ষীদের দু’টি শিবিরে আত্মঘাতী হামলায় হত ৪২

বেইরুট, ২৫ ফেব্রুয়ারি (এএফপি): শনিবার সিরিয়া প্রশাসনের শক্ত ঘাঁটি হোমসের কেন্দ্রস্থলে নিরাপত্তারক্ষীদের দু’টি শিবিরে আত্মঘাতী হামলায় ৪২ জন প্রাণ হারিয়েছেন। সিরিয়ায় ‘অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস’-এর ডিরেক্টর রামি আবদেল রহমান জানিয়েছেন, আক্রমণকারীরা সংখ্যায় কমপক্ষে ছ’জন ছিলেন। ‘স্টেট সিকউরিটি অ্যান্ড মিলিটারি ইন্টালিজেন্স’-এর সামনে তাদের অধিকাংশই বিস্ফোরণে নিজেদের উড়িয়ে দেয়। সরকারি টেলিভিশন সূত্রে খবর, প্রেসিডেন্ট বাসার আল-আসাদের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ প্রাদেশিক সেনা গোয়েন্দা প্রধান জেনারেল হাসান ডাবুল এই আত্মঘাতী হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন। হামলার পরই নিরাপত্তারক্ষীরা সিটি সেন্টারটি বন্ধ করে দিয়েছে। প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের মে মাস থেকেই সরকারি বাহিনী হোমস নিজেদের দখলে রেখেছে। সেই সময় রাষ্ট্রসংঘের মধ্যস্থতায় সিটি সেন্টার থেকে বিদ্রোহীরা চলে গিয়েছিল। কিন্তু, তারপর থেকে একাধিকবার এই শহর আক্রমণের শিকার হয়েছে। গত বছর জোড়া আক্রমণে ৬৪ জন প্রাণ হারান। সরকারি টেলিভিশনে শনিবারের আত্মঘাতী হামলায় নিহতদের ‘শহিদের’ মর্যাদা দেওয়া হয়েছে।

আফগানিস্তানে কমান্ডারের স্ত্রীসহ ১০ জন পুলিশ
অফিসারকে গুলি করে মারল আইএস

কাবুল, ২৫ ফেব্রুয়ারি (এপি): আইএসের হামলায় ফের রক্তাক্ত আফগানিস্তান। শুক্রবার এই পাঠানভূমের উত্তরে জাওয়াজ্জান প্রদেশের একটি মসজিদের সামনে ১০ জন পুলিশ অফিসারকে গুলি করে মারল আইএস জঙ্গিরা। তাদের হাত থেকে রেহাই পাননি এক পুলিশ কমান্ডারের স্ত্রীও। গুলিবিদ্ধ স্বামীকে বাঁচাতে গেলে তাঁকেও গুলি করে জঙ্গিরা। ঘটনাস্থলেই মারা যান ওই মহিলা। জাওয়াজ্জান প্রদেশের গভর্নরের মুখপাত্র মহম্মদ রেজা ঘাফোরি শনিবার জানিয়েছেন, পুলিশ অফিসারদের ওই দলটি মসজিদে গিয়েছিলেন। তাঁদের খতম করার টার্গেট নিয়েই মসজিদের পাশের একটি গোপন ডেরায় লুকিয়ে ছিল জঙ্গিরা। পুলিশ অফিসাররা বেরতেই এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করে তারা। ঘটনাস্থলেই ১০জন পুলিশ অফিসারসহ এক কমান্ডারের স্ত্রী মারা যান। আফগানিস্তানের গোয়েন্দা সূত্রে খবর, এতদিন আইএসের শক্ত ঘাঁটি বলে পরিচিত ছিল পূর্ব প্রান্ত। সেখানকার বেশ কয়েকটি জঙ্গি হামলার ঘটনায় নাম জড়িয়েছে আইএসের। এবার জাওয়াজ্জানে হামলা চালিয়ে আফগানিস্তানের উত্তরপ্রান্তে তাদের সক্রিয় উপস্থিতি জাহির করল আইএস।

পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশে গুলি করে মারা হল ছয় জঙ্গিকে

লাহোর, ২৫ ফেব্রুয়ারি (পিটিআই): শনিবার পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশে নিষিদ্ধ সংগঠন লস্কর--জাংভির ছ’য় সন্দেহভাজন জঙ্গিকে গুলি করে মারা হয়েছে। নির্দিষ্ট সূত্রের ভিত্তিতেই পাঞ্জাব পুলিশের জঙ্গিদমন শাখার অফিসাররা এই অভিযান চালিয়েছেন। তাঁদের কাছে খবর ছিল, লাহোর থেকে প্রায় ৩৫০ কিলোমিটার দূরে মুজফ্ফরগড়ের পাত্তি সুলতানের কাছে লস্কর--জাংভির জঙ্গি ইয়াসিন লুকিয়ে রয়েছে। ইয়াসিন এবং তার দলবলের পরিকল্পনা ছিল দক্ষিণ পাঞ্জাবে নিরাপত্তারক্ষীদের অফিসে হামলা চালানো। সেই মতো শুক্রবারই গোয়েন্দারা জঙ্গিদের গোপন ডেরায় হানা দেন এবং তাদের আত্মসমর্পণ করতে বলেন। এরপরই জঙ্গিরা গুলি চালাতে শুরু করে। নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে গুলির লড়াইয়ে ইয়াসিনসহ ছয় জঙ্গির মৃত্যু হয়। গত সপ্তাহে দক্ষিণ পাঞ্জাবে একইভাবে অভিযান চালিয়ে জামাত-উল-আহরারের ১১ জন জঙ্গিকে নিকেশ করা হয়েছে।

চীনের হোটেলে আগুন, মৃত ১০

বেজিং, ২৫ ফেব্রুয়ারি (পিটিআই): চীনের জিয়াংশি প্রদেশের রাজধানী ন্যানচ্যাংয়ের একটি হোটেলে আগুন লাগার ঘটনায় অন্তত ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত আরও ১৪ জন। জিনহুয়া জানিয়েছে, ঘটনাস্থল থেকেই সাত জনের দগ্ধ মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। হাসপাতালে আরও তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। হোটেলের তিন তলায় আগুন লেগেছিল। প্রাথমিক তদন্তে জানা গিয়েছে, ওই তলায় ডেকরেশনের কাজ চলছিল। সেখান থেকেই আগুন লেগেছে। সাত জনকে হেপাজতে নিয়েছে পুলিশ।

 




 

?Copyright Bartaman Pvt Ltd. All rights reserved
6, J.B.S. Haldane Avenue, Kolkata 700 105
 
Editor: Subha Dutta